২০১৮ ফিফা বিশ্বকাপ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
Jump to navigation Jump to search
২০১৮ ফিফা বিশ্বকাপ
Чемпионат мира по футболу 2018
চিম্পিওনাত মির‍্য প্য ফুতবোলু দ্‌ভি তিসিচি ভ্যসিম নাৎস্যত[১]
২০১৮ ফিফা বিশ্বকাপের লোগো
টুর্নামেন্টের বিবরণ
স্বাগতিক দেশ রাশিয়া
তারিখসমূহ ১৪ জুন - ১৫ জুলাই (৩২ দিন)
দলসমূহ ৩২ (৫টি কনফেডারেশন থেকে)
ভেন্যু(সমূহ) ১২ (১১টি আয়োজক শহরে)
শীর্ষস্থানীয় অবস্থান
চ্যাম্পিয়ন  ফ্রান্স (২য় শিরোপা)
রানার-আপ  ক্রোয়েশিয়া
তৃতীয় স্থান  বেলজিয়াম
চতুর্থ স্থান  ইংল্যান্ড
প্রতিযোগিতার পরিসংখ্যান
ম্যাচ খেলেছে ৬৪
গোল সংখ্যা ১৬৯ (ম্যাচ প্রতি ২.৬৪টি)
উপস্থিতি ৩০,৩১,৭৬৮ (ম্যাচ প্রতি ৪৭,৩৭১ জন)
শীর্ষ গোলদাতা ইংল্যান্ড হ্যারি কেন (৬ গোল)
সেরা খেলোয়াড় ক্রোয়েশিয়া লুকা মদ্রিচ
সেরা তরুণ খেলোয়াড় ফ্রান্স কিলিয়ান এমবাপে
সেরা গোলরক্ষক বেলজিয়াম থিবো কোর্তোয়া
ফেয়ার প্লে পুরষ্কার  স্পেন[২]
২০২২‌ →
সর্বশেষ হালনাগাদ: ১৫ জুলাই ২০১৮

২০১৮ ফিফা বিশ্বকাপ ২০১৮ ফিফা বিশ্বকাপের শিরোপা বিজয়ী দল ফ্রান্স (রুশ: Чемпионат мира по футболу 2018 চিম্পিওনাত মির‍্য প্য ফুতবোলু দ্‌ভি তিসিচি ভ্যসিম নাৎস্যত) ছিল চতুর্বাষিক আন্তর্জাতিক ফুটবল প্রতিযোগিতা ফিফা বিশ্বকাপের ২১তম আসরের চূড়ান্ত পর্ব, যাতে আন্তর্জাতিক ফুটবল সংস্থা ফিফা-র অন্তর্ভুক্ত ৩২টি জাতীয় ফুটবল দল (পুরুষ) প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছে। প্রতিযোগিতাটি রাশিয়ায় ১৪ই জুন হতে ১৫ই জুলাই ২০১৮ তারিখ পর্যন্ত অনুষ্ঠিত হয়েছে।[৩] এর আগে ২রা ডিসেম্বর ২০১০ তারিখে অনুষ্ঠিত এক নিলামের মাধ্যমে রাশিয়াকে স্বাগতিক রাষ্ট্র হিসেবে নির্বাচন করা হয়।

চূড়ান্ত পর্বে যে ৩২টি জাতীয় ফুটবল দল খেলেছে, তাদের মধ্যে রাশিয়ার জাতীয় ফুটবল দল আয়োজক রাষ্ট্রের দল হিসেবে সরাসরি খেলার সুযোগ পেয়েছে। বাকি ৩১টি জাতীয় দল বাছাইপর্বের প্রতিযোগিতায় উত্তীর্ণ হয়ে খেলতে এসেছে। এই ৩২টি দলের মধ্যে ২০টি দল পূর্ববর্তী ২০১৪ ফিফা বিশ্বকাপেও অংশগ্রহণ করেছিল, যাদের মধ্যে সাবেক বিশ্বকাপ চ্যাম্পিয়ন জার্মানি অন্যতম। অন্যদিকে আইসল্যান্ড এবং পানামা এই বিশ্বকাপে ইতিহাসে প্রথমবারের মতো বিশ্বকাপে অংশগ্রহণ করেছে।

২০১৮ ফিফা বিশ্বকাপটি ছিল প্রথমবারের মত পূর্ব ইউরোপে অনুষ্ঠিত বিশ্বকাপ। জার্মানিতে অনুষ্ঠিত ২০০৬ ফিফা বিশ্বকাপের ১০ বছর পর যা আবার ইউরোপে বিশ্বকাপ অনুষ্ঠিত হয়েছে; এটি হচ্ছে ইউরোপে অনুষ্ঠিত ১১তম বিশ্বকাপ।

খেলোয়াড়দের ভ্রমণের সময় বাঁচানোর জন্য কেবল রাশিয়ার ইউরোপীয় অংশে অবস্থিত বিভিন্ন স্টেডিয়ামে ফুটবল খেলাগুলি অনুষ্ঠিত হয়েছে। রাশিয়ার ১১টি শহরের ১২টি স্টেডিয়ামে সর্বমোট ৬৪টি ম্যাচ আয়োজন করা হয়েছে। ২০১৮ সালের ১৫ই জুলাই রাশিয়ার রাজধানী মস্কো শহরের লুঝনিকি স্টেডিয়ামে এই আসরের শিরোপা নির্ধারণী খেলাটি অনুষ্ঠিত হয়[৪][৫][৬] ফ্রান্স এবং ক্রোয়েশিয়ার মধ্যে। এই ফাইনাল ম্যাচে ক্রোয়েশিয়ার বিপক্ষে ফ্রান্স ৪-২ স্কোরের করার মাধামে তারা তাদের দ্বিতীয় বিশ্বকাপ শিরোপা লাভ করে।

২০১৮ ফিফা বিশ্বকাপের শিরোপা বিজয়ী দল ফ্রান্স ২০২১ সালে অনুষ্ঠিতব্য ফিফা কনফেডারেশন্স কাপের জন্য সরাসরি উত্তীর্ণ হয়েছে।

পরিচ্ছেদসমূহ

স্বাগতিক রাষ্ট্র নির্বাচন প্রক্রিয়া[সম্পাদনা]

নিলামে অংশগ্রহণকারী রুশ কর্মকর্তা ২০১৮ সালের বিশ্বকাপে রাশিয়ার স্বাগতিক দেশের কথা ঘোষণাপূর্বক উৎসব পালন করেন।
২০১৭ সালের সেপ্টেম্বর মাসে, মস্কো টুর্নামেন্টের পূর্ব-অনুষ্ঠানে ফিফা বিশ্বকাপ ট্রফি হাতে রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন

এই আসরের স্বাগতিক শহর নির্ধারণী প্রক্রিয়া শুরু হয় ২০০৯ সালের জানুয়ারী মাসে, এবং ২ ফেব্রুয়ারী ২০০৯ হতে জাতীয় দলগুলো স্বাগতিক হওয়ার জন্য তাদের আগ্রহ নিবন্ধন করাতে পারে।[৭] প্রাথমিকভাবে, ৯টি দেশ এই আসরের স্বাগতিক হওয়ার জন্য নিলাম প্রক্রিয়ায় অংশগ্রহণ করে, কিন্তু পরবর্তীতে মেক্সিকো এই কার্যধারা হতে তাদের নাম প্রত্যাহার করে,[৮] এবং ২০১০ সালের ফেব্রুয়ারীতে ফিফা ইন্দোনেশিয়ার নাম বাতিল করে দেয়, কারণ তাদের সরকার এই নিলামকে সমর্থন প্রদানের চিঠি পাঠাতে ব্যর্থ হয়।[৯] এই নিলামের প্রক্রিয়ায়, ৩টি নন-উয়েফা দেশ (অস্ট্রেলিয়া, জাপান এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র) ক্রমান্বয়ে এই নিলাম হতে তাদের নাম প্রত্যাহার করে, এবং এতদনুসারে ২০২২ সালের নিলামে উয়েফা দেশগুলোকে বাতিল ঘোষণা করা হয়। অবশেষে এই আসরের নিলামের জন্য মাত্র ৪টি নাম অবশিষ্ট ছিল, তারা হলো: ইংল্যান্ড, রাশিয়া, বেলজিয়াম/নেদারল্যান্ডস এবং পর্তুগাল/স্পেন

২০১০ সালের ২ ডিসেম্বর জুরিখে, ২২ সদস্যবিশিষ্ট ফিফা নির্বাহী পরিষদ সমবেত হয়ে এই নিলামে স্বাগতিক দল ঠিক করে।[১০] উক্ত নিলামে ভোটের দ্বিতীয় পর্বে রাশিয়া জয়লাভ করে এবং এই বিশ্বকাপের আয়োজক হিসেবে নির্বাচিত হয়। এই নিলামে পর্তুগাল/স্পেন দ্বিতীয় স্থান অধিকার করে, এবং বেলজিয়াম/নেদারল্যান্ডস তৃতীয় স্থান অধিকার করে। স্বাগতিক হিসেবে নির্বাচিত হওয়ার পথে ভোটের প্রথম পর্বেই ইংল্যান্ডের স্বপ্ন শেষ হয়ে যায়।[১১]

ভোটের ফলাফল নিম্নরূপ ছিল:[১২]

২০১৮ ফিফা নিলাম প্রক্রিয়া (সংখ্যাগরিষ্ঠ ১২ ভোট)
নিলামে অংশগ্রহণকারী দেশ ভোট
প্রথম-পর্ব দ্বিতীয়-পর্ব
 রাশিয়া ১৩
 পর্তুগাল/ স্পেন
 বেলজিয়াম/ নেদারল্যান্ডস
 ইংল্যান্ড বিদায়

এই প্রক্রিয়াটি সমালোচনার ঊর্ধ্বে ছিল না: রাশিয়ার দলের পক্ষ থেকে ঘুষ নেওয়ার অভিযোগ এবং ফিফার দুর্নীতি যেটি বিশেষত ইংরেজ দ্য ফুটবল অ্যাসোসিয়েশন দ্বারা করা হয়েছিল। এটা তথাকথিত ছিল যে, নির্বাহী কমিটির চার জন সদস্য ইংল্যান্ডের জন্য ভোট করার জন্য ঘুষ নিতে অনুরোধ করেছিলেন, এবং তখন তৎকালীন ফিফা প্রেসিডেন্ট সেপ ব্ল্যাটার জানান যে, এই নিলামের ভোট গ্রহনের পূর্বে এটা নির্ধারিত হয়ে গিয়েছিল যে রাশিয়া এই নিলামে জয়লাভ করবে।[১৩] মাইকেল জে. গার্সিয়া একটি অভ্যন্তরীণ তদন্ত শেষে ২০১৪ গার্সিয়া রিপোর্ট নামে একটি প্রতিবেদন তৈরি করেন, যেটি ফিফার নৈতিক বিষয়ক বিচারের প্রধান হান্স-জোয়াকিম একার্ট দ্বারা প্রতিসংহৃত হয়ে গিয়েছিল। এই প্রতিবেদনে পরিবর্তে তিনি একটি সংক্ষিপ্ত সারাংশ প্রকাশ করেন। এই প্রতিবেদন প্রকাশে ফিফার অনিচ্ছার কারণে প্রতিবাদী গার্সিয়া হতে নিজেকে প্রত্যাহার করে নেন।[১৪] এই সকল বিতর্কের কারণে, এফএ একার্টের রাশিয়ায় মুক্ত প্রদানকে প্রত্যাখ্যান করে দেয় এবং গ্রেগ ডাইককে এই সম্পূর্ণ ব্যাপারটি পুনরায় তদন্ত করার নির্দেশ প্রদান করে। অন্যদিকে ডেভিড বার্নস্টেইন এই বিশ্বকাপকে বয়কট করার ঘোষণা দেন।[১৫][১৬]

দল[সম্পাদনা]

বাছাইপর্ব[সম্পাদনা]

ফিফা বিশ্বকাপের ইতিহাসে প্রথমবারের মতো এবার ফিফার অন্তর্ভুক্ত সকল উপযুক্ত দেশ ২০১৮ ফিফা বিশ্বকাপ বাছাইপর্বে অংশগ্রহণ করার সুযোগ পেয়েছিল। এবারের বাছাইপর্বে ২০৯টি ফিফা সদস্য নিয়েছে, যেখানে আয়োজক দেশ হিসেবে রাশিয়া পূর্বেই তাদের অংশগ্রহণ নিশ্চিত করেছে, যদিও রাশিয়া বাছাইপর্বে অংশ নিয়েছিল।[১৭] পরবর্তীতে, জিম্বাবুয়ে এবং ইন্দোনেশিয়া তাদের প্রথম ম্যাচ খেলার পূর্বেই বাছাইপর্ব হতে বাতিল হয়ে যায়,[১৮][১৯] অন্যদিকে, বাছাইপর্বের ড্র অনুষ্ঠিত হওয়ার পর ২০১৬ সালের ১৩ই মে তারিখে ফিফা সদস্যপদ লাভ করে জিব্রাল্টার এবং কসভো; তারাও ইউরোপীয় বাছাইপর্ব শুরুর পূর্বেই এই প্রতিযোগিতায় যোগদান করে।[২০] মহাদেশীয় সংঘ অনুযায়ী এই প্রতিযোগিতায় দলের সংখ্যা বরাদ্দ করা হয়েছে, যেটি ২০১৪ ফিফা বিশ্বকাপের মতোই রয়েছে।[২১][২২] দিলি এবং পূর্ব তিমুরের মধ্যকার ম্যাচের মাধ্যমে ২০১৫ সালের ১২ই মার্চ তারিখে ২০১৮ ফিফা বিশ্বকাপ বাছাইপর্ব যাত্রা শুরু করে,[২৩] এবং ২০১৫ সালের ২৫ জুলাই , ১৮:০০ এমএসকে (ইউটিসি+৩) সময়ে রাশিয়ার সেন্ট পিটার্সবার্গের স্ত্রেলনার কন্সতান্টিনোভস্কি প্রাসাদে প্রধান ড্র অনুষ্ঠিত হয়েছে।[৩][২৪][২৫][২৬]

ড্র[সম্পাদনা]

২০১৮ ফিফা বিশ্বকাপের ড্র ২০১৭ সালের ১ ডিসেম্বর স্টেট ক্রেমলিন প্যালেস, মস্কো, রাশিয়ায় অনুষ্ঠিত হয়।[২৭] এই অনুষ্ঠান প্রতিযোগিতার অংশগ্রহণকারী ৩২ দলের গ্রুপ নির্ধারণ করে। এই দলসমূহকে ফিফা পূর্বেই ভৌগোলিক অবস্থান বিবেচনা করে ৪টি পাত্রে ভাগ করে।

বিশ্বকাপের আগের সংস্করণগুলির তুলনায়, ২০১৭ সালের অক্টোবরে ফিফা বিশ্ব র‌্যাঙ্কিং অনুযায়ী প্রতিটি জাতীয় দলের পাত্রগুলি নির্ধারণ করা হয়েছিল, পাত্র ১-এ ছিল সর্বোচ্চ র‌্যাঙ্কিংয়ের দলগুলি, পাত্র ২-এ ছিল পরবর্তী সর্বোচ্চ-র‌্যাঙ্কিং ধারণকারী দলগুলি, এবং এভাবেই চলতে থাকে; আগের সংস্করণে সর্বোচ্চ স্তরের দলগুলোর মধ্যে কেবল একটি পাত্রই র‌্যাঙ্কিংয়ের দ্বারা নির্ধারিত হয়, মহাদেশীয় কনফেডারেশন দ্বারা নির্ধারিত অন্যান্য তিনটি পাত্রের সাথে। আয়োজক দেশকে পাত্র ১-এ রাখা হয় এবং একটি বাছাই দল হিসাবে গণ্য হয়, এই কারনে, আয়োজক রাশিয়া সেরা ৮ দলে না থাকলেও ফিফার বিশ্বকাপ নীতি অনুযায়ী, আয়োজক হওয়ায় প্রথম ৮ দলের পাত্রে স্থান পায় এবং ফিফা র‌্যাঙ্কিং এর সেরা ৭ দল প্রথম পাত্রের বাকি ৭ স্থান পূরণ করে।

ড্র পর্যায়াক্রম শুরু হয় পাত্র ১ দিয়ে এবং পাত্র ৪ দিয়ে শেষ হয়।[২৮]

আগের সংস্করণগুলির মতো, উয়েফা ব্যতীত কোনও মহাদেশীয় কনফেডারেশনের কোন গ্রুপের একাধিক দল ছিল না, যেটির কমপক্ষে একটি ছিল, কিন্তু একটি গ্রুপে দুইয়ের অধিক নয়।[২৮]

পাত্র ১ পাত্র ২ পাত্র ৩ পাত্র ৪
 রাশিয়া (আয়োজক) (৬৫)  স্পেন (৮)  ডেনমার্ক (১৯)  সার্বিয়া (৩৮)
 জার্মানি (১)  পেরু (১০)  আইসল্যান্ড (২১)  নাইজেরিয়া (৪১)
 ব্রাজিল (২)   সুইজারল্যান্ড (১১)  কোস্টা রিকা (২২)  অস্ট্রেলিয়া (৪৩)
 পর্তুগাল (৩)  ইংল্যান্ড (১২)  সুইডেন (২৫)  জাপান (৪৪)
 আর্জেন্টিনা (৪)  কলম্বিয়া (১৩)  তিউনিসিয়া (২৮)  মরক্কো (৪৮)
 বেলজিয়াম (৫)  মেক্সিকো (১৬)  মিশর (৩০)  পানামা (৪৯)
 পোল্যান্ড (৬)  উরুগুয়ে (১৭)  সেনেগাল (৩২)  দক্ষিণ কোরিয়া (৬২)
 ফ্রান্স (৭)  ক্রোয়েশিয়া (১৮)  ইরান (৩৪)  সৌদি আরব (৬৩)

স্কোয়াড[সম্পাদনা]

প্রত্যেক দলের জন্য ২০১৮ সালের ১৪ই মে তারিখের মধ্যে একটি ৩৫ সদস্যের প্রাথমিক দল ঘোষণা করা বাধ্যতামূলক, যার মধ্য হতে ২০১৮ সালের ৪ঠা জুনের মধ্যে ২৩ সদস্যের দল ঘোষণা করতে হবে।[২৯] ইনজুরিতে আক্রান্ত কোন খেলোয়াড়ের বদলি খেলোয়াড় উক্ত দলের প্রথম বিশ্বকাপ খেলার ২৪ ঘণ্টা পূর্ব পর্যন্ত দলে অন্তর্ভুক্ত হতে পারবে। প্রাথমিকভাবে প্রাথমিক দলগুলির ৩০ জন খেলোয়াড় ছিল, তবে ২০১৮ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে ঘোষণা করা হয় যে, প্রাথমিক দলগুলিতে খেলোয়াড়দের নামকরণ ৩৫-এ উন্নীত করা হবে না।

রেফারি[সম্পাদনা]

গ্রুপ ডি-এ নাইজেরিয়া বনাম আইসল্যান্ড ম্যাচে ভিএআর এর ব্যবহার।

২০১৮ সালের ১৬ই মার্চ তারিখে, ফিফা কাউন্সিল ফিফা বিশ্বকাপের ইতিহাসে প্রথমবারের মতো ভিডিও সহকারী রেফারি (ভিএআর) ব্যবহারের অনুমোদন দেয়।[৩০]

২০১৮ সালের ২৯ মার্চ তারিখে, ফিফা কাউন্সিল ২০১৮ ফিফা বিশ্বকাপের জন্য ছয়টি ফুটবল কনফেডারেশন থেকে জাতীয়তার ভিত্তিতে ৩৬ জন রেফারি এবং ৬৩জন সহকারী রেফারির তালিকা প্রকাশ করেছে।[৩০][৩১] ৩০শে এপ্রিল তারিখে, ফিফা ২০১৮ ফিফা বিশ্বকাপের জন্য ১৩ ভিডিও সহকারী রেফারি (ভিএআর) ঘোষণা করে, যারা এই প্রতিযোগিতায় শুধুমাত্র ভিডিও সহকারী রেফারি হিসেবেই কাজ করবে।[৩২] ২০১৮ সালের ৩০শে মে তারিখে, সৌদি রেফারি ফাহাদ আল-মিরদাসি সৌদি আরবের ২০১৮ কিং কাপের ফাইনালে ম্যাচ ফিক্সিংয়ের চেষ্টা করার কারণে এই তালিকা থেকে অপসারিত হন এবং একই সাথে উক্ত ম্যাচে তার সহকারী রেফারি মুহম্মদ আল-আবাকরী ও আব্দুলাহ আল-শালউইকেও অপসারণ করা হয়।[৩৩] এই ঘটনার পর কোন রেফারি প্রতিস্থাপন করা হয়নি, কিন্তু সংযুক্ত আরব আমিরাতের মোহাম্মদ আবদুল্লা হাসান মোহাম্মদ এবং জাপানের রাউজি সাতোর রেফারি দল পূর্ণ করার জন্য দুইজন সহকারী রেফারি সংযুক্ত আরব আমিরাতের হাসান আল-মাহরি ও জাপানের হিরোশি ইয়ামানশী অন্তর্ভুক্ত হন।[৩৪][৩৫]

অনুষ্ঠানস্থল[সম্পাদনা]

মস্কো সেন্ট পিটার্সবার্গ কালিনিনগ্রাদ
লুঝনিকি স্টেডিয়াম অতক্রিটিয়ে এরিনা
(স্পার্টাক স্টেডিয়াম)
ক্রেস্তভস্কি স্টেডিয়াম
(সেন্ট পিটার্সবার্গ স্টেডিয়াম)
কালিনিনগ্রাদ স্টেডিয়াম
ধারণ ক্ষমতা: ৮১,০০০ ধারণ ক্ষমতা: ৪৫,৩৬০ ধারণ ক্ষমতা: ৬৮,১৩৪ ধারণ ক্ষমতা: ৩৫,২১২[৩৬]
(নতুন স্টেডিয়াম)
Luzhniki Stadium1.jpg Stadium Spartak in Moscow.jpg Spb 06-2017 img40 Krestovsky Stadium.jpg Kaliningrad 05-2017 img72 new stadium.jpg
কাজান নিঝনি নভগোরোদ
কাজান এরিনা নিঝনি নভগোরোদ স্টেডিয়াম
ধারণ ক্ষমতা: ৪৫,৩৭৯ ধারণ ক্ষমতা: ৪৪,৮৯৯
(নতুন স্টেডিয়াম)
Kazan Arena 08-2016.jpg Construction of Nizhny Novgorod Stadium.jpg
সামারা ভলগোগ্রাদ
কসমস এরিনা
(সামারা এরিনা)
ভলগোগ্রাদ এরিনা
ধারণ ক্ষমতা: ৪৪,৯১৮
(নতুন স্টেডিয়াম)
ধারণ ক্ষমতা: ৪৫,৫৬৮
(পুনর্নির্মিত)
Volgograd Arena.jpg
সারানস্ক রোস্তভ-ন্য-দানু সোচি ইয়েকাতেরিনবুর্গ
মর্ডোভিয়া এরিনা রোস্তভ এরিনা ফিশ্ত অলিম্পিক স্টেডিয়াম
(ফিশ্ত স্টেডিয়াম)
কেন্দ্রীয় স্টেডিয়াম
(ইয়েকাতেরনিবুর্গ এরিনা)
ধারণ ক্ষমতা: ৪৪,৪৪২
(নতুন স্টেডিয়াম)
ধারণ ক্ষমতা: ৪৫,০০০
(নতুন স্টেডিয়াম)
ধারণ ক্ষমতা: ৪৭,৬৫৯ ধারণ ক্ষমতা: ৩৫,৬৯৬[৩৬]
(উন্নত করা হয়েছে)
Mordovia-Arena stadium(building).jpg
Rostov Arena 21.05.2017.jpg
Fisht Olympic Stadium 2017.jpg
Estadio Central.jpg

উদ্বোধনী অনুষ্ঠান[সম্পাদনা]

লুঝনিকি স্টেডিয়ামে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের একটি দৃশ্য

২০১৮ ফিফা বিশ্বকাপের উদ্বোধনী অনুষ্ঠান ৩:৩০ (বিএসটি) বৃহস্পতিবার, ১৪ জুন ২০১৮ তারিখে রাশিয়ার রাজধানী মস্কোর লুঝনিকি স্টেডিয়াম-এ অনুষ্ঠিত হয়,[৩৭] স্বাগতিক রাশিয়াসৌদি আরবের মধ্যকার টুর্নামেন্টের উদ্বোধনী ম্যাচের প্রায় আধা ঘন্টা আগে।[৩৮][৩৯] ব্রাজিলের সাবেক বিশ্বকাপ জয়ী স্ট্রাইকার রোনালদো রাশিয়া ২০১৮ শার্ট পরিহিত একটি শিশুর সঙ্গে হাটেন। শুরুতেই দর্শকদের মাতিয়ে তোলেন ইংল্যান্ডের বিখ্যাত পপ শিল্পী রবি উইলিয়ামস। ‘'লেট মি এন্টারটেন ইউ’' গান গাইতে গাইতে মাঠে প্রবেশ করেন তিনি। ববি উইলিয়ামসের সাথে তাল মেলাতে ড্রাগন পাখির সদৃশ একটি বাহনে করে ডানায় ভর করে মাঠে প্রবেশ করেন রাশিয়ান বিখ্যাত উচ্চাঙ্গ সঙ্গীত শিল্পী এইদা গারিফুলিনা। তারা উভয়ে যৌথভাবে “এঞ্জেলস” গানটি পরিবেশন করেন। রোনালদো আনুষ্ঠানিক বল আডিডাস টেলস্টার ১৮ সাথে নিয়ে ফিরে আসেন, যেটি মার্চ মাসে আন্তর্জাতিক মহাকাশ স্টেশনে ক্রুদের সাথে নিয়ে যাওয়া হয় এবং জুন মাসের প্রথম দিকে পৃথিবীতে ফিরে আসে।[৪০]

গ্রুপ পর্ব[সম্পাদনা]

গ্রুপের বিজয়ী এবং রানার-আপ দল ১৬ দলের পর্বে অংশগ্রহনের সুযোগ পাবে। নিচের তালিকাভুক্ত খেলাগুলো রাশিয়ার দাপ্তরিক সময় অনুযায়ী দেওয়া রয়েছে (ইউটিসি−৩)[৪১]

টাই- ব্রেকার[সম্পাদনা]

গ্রুপ পর্বের সবগুলো খেলা শেষে নিম্নে বর্ণিত মানদণ্ডের উপর ভিত্তি করে শীর্ষ দুই দল নির্ণয় করা হবে (নিয়ম-কানুন নিবন্ধ ৩২.৫)।[৪২]

  1. সকল গ্রুপ ম্যাচে অর্জিত পয়েন্ট;
  2. সকল গ্রুপ ম্যাচের গোল পার্থক্য;
  3. সকল গ্রুপ ম্যাচে গোল করার সংখ্যা;

যদি দুই বা ততোধিক দল তারপরেও পয়েন্ট তালিকায় সমান অবস্থানে থাকে, তবে নিম্নে বর্ণিত উপায়ে তাদের দলীয় অবস্থান নির্ধারিত হবে।

  1. যে দলগুলো সমান অবস্থানে আছে, গ্রুপ পর্বে তাদের মধ্যেকার ম্যাচে অর্জিত পয়েন্ট;
  2. যে দলগুলো সমান অবস্থানে আছে, গ্রুপ পর্বে তাদের মধ্যেকার ম্যাচের গোল পার্থক্য;
  3. যে দলগুলো সমান অবস্থানে আছে, গ্রুপ পর্বে তাদের মধ্যেকার ম্যাচে গোল করার সংখ্যা;
  4. সুশৃঙ্খল ভাবে খেলার জন্য পয়েন্ট (একটি ম্যাচে একজন খেলোয়াড়ের জন্য নিম্নে বর্ণিত উপায়ের মধ্যে শুধুমাত্র একভাবেই পয়েন্ট কাটা যাবে)
    • প্রথম হলুদ কার্ড: ১ পয়েন্ট কাটা হবে;
    • পরোক্ষ লাল কার্ড (দ্বিতীয় হলুদ কার্ড): ৩ পয়েন্ট কাটা হবে;
    • সরাসরি লাল কার্ড: ৪ পয়েন্ট কাটা হবে;
    • হলুদ কার্ড ও সরাসরি লাল কার্ড: ৫ পয়েন্ট কাটা হবে;
  5. ফিফা আয়োজক কমিটি কর্তৃক ভাগ্য নির্ধারণী

গ্রুপ এ[সম্পাদনা]

উদ্বোধনী খেলাটির পূর্বে প্রাক-ম্যাচ অনুষ্ঠান, রাশিয়া ও সৌদি আরব
অব দল খে ড্র হা স্বগো বিগো গোপা পয়েন্ট যোগ্যতা অর্জন
 উরুগুয়ে +৫ নকআউট পর্বে উন্নীত
 রাশিয়া (H) +৪
 সৌদি আরব −৫
 মিশর −৪
উৎস: ফিফা
শ্রেণীবিভাগের নিয়মাবলী: গ্রুপ পর্বের টাই- ব্রেকার
(H) স্বাগতিক।
রাশিয়া ৫–০ সৌদি আরব
প্রতিবেদন
মিশর ০–১ উরুগুয়ে
প্রতিবেদন

রাশিয়া ৩-১ মিশর
প্রতিবেদন
উরুগুয়ে ১–০ সৌদি আরব
প্রতিবেদন

উরুগুয়ে ৩-০ রাশিয়া
প্রতিবেদন
দর্শক সংখ্যা: ৪১,৯৭০[৪৭]
সৌদি আরব ২-১ মিশর
প্রতিবেদন

গ্রুপ বি[সম্পাদনা]

গ্রুপের প্রথম ম্যাচ, সেন্ট পিটার্সবার্গে মরক্কোর বিরুদ্ধে ইরান দল
অব দল খে ড্র হা স্বগো বিগো গোপা পয়েন্ট যোগ্যতা অর্জন
 স্পেন +১ নকআউট পর্বে উন্নীত
 পর্তুগাল +১
 ইরান
 মরক্কো −২
উৎস: ফিফা
শ্রেণীবিভাগের নিয়মাবলী: গ্রুপ পর্বের টাই- ব্রেকার
মরক্কো ০–১ ইরান
প্রতিবেদন
পর্তুগাল ৩-৩ স্পেন
প্রতিবেদন

পর্তুগাল ১-০ মরক্কো
প্রতিবেদন
ইরান ০–১ স্পেন
প্রতিবেদন

ইরান ১-১ পর্তুগাল
প্রতিবেদন
স্পেন ২-২ মরক্কো
প্রতিবেদন

গ্রুপ সি[সম্পাদনা]

অস্ট্রেলিয়া বনাম পেরু
অব দল খে ড্র হা স্বগো বিগো গোপা পয়েন্ট যোগ্যতা অর্জন
 ফ্রান্স +২ নকআউট পর্বে উন্নীত
 ডেনমার্ক +১
 পেরু
 অস্ট্রেলিয়া −৩
উৎস: ফিফা
শ্রেণীবিভাগের নিয়মাবলী: গ্রুপ পর্বের টাই- ব্রেকার
ফ্রান্স ২-১ অস্ট্রেলিয়া
প্রতিবেদন
পেরু ০-১ ডেনমার্ক
প্রতিবেদন

ডেনমার্ক ১-১ অস্ট্রেলিয়া
প্রতিবেদন
ফ্রান্স ১-০ পেরু
প্রতিবেদন

ডেনমার্ক ০-০ ফ্রান্স
প্রতিবেদন
অস্ট্রেলিয়া ০-২ পেরু
প্রতিবেদন

গ্রুপ ডি[সম্পাদনা]

আইসল্যান্ড ও ক্রোয়েশিয়া
অব দল খে ড্র হা স্বগো বিগো গোপা পয়েন্ট যোগ্যতা অর্জন
 ক্রোয়েশিয়া +৬ নকআউট পর্বে উন্নীত
 আর্জেন্টিনা −২
 নাইজেরিয়া −১
 আইসল্যান্ড −৩
উৎস: ফিফা
শ্রেণীবিভাগের নিয়মাবলী: গ্রুপ পর্বের টাই- ব্রেকার
আর্জেন্টিনা ১-১ আইসল্যান্ড
প্রতিবেদন
ক্রোয়েশিয়া ২-০ নাইজেরিয়া
প্রতিবেদন

আর্জেন্টিনা ০-৩ ক্রোয়েশিয়া
প্রতিবেদন
নাইজেরিয়া ২-০ আইসল্যান্ড
প্রতিবেদন

নাইজেরিয়া ১-২ আর্জেন্টিনা
প্রতিবেদন
আইসল্যান্ড ১-২ ক্রোয়েশিয়া
প্রতিবেদন

গ্রুপ ই[সম্পাদনা]

ব্রাজিল বনাম কোস্টারিকা
অব দল খে ড্র হা স্বগো বিগো গোপা পয়েন্ট যোগ্যতা অর্জন
 ব্রাজিল +৪ নকআউট পর্বে উন্নীত
  সুইজারল্যান্ড +১
 সার্বিয়া −২
 কোস্টা রিকা −৩
উৎস: ফিফা
শ্রেণীবিভাগের নিয়মাবলী: গ্রুপ পর্বের টাই- ব্রেকার
কোস্টা রিকা ০-১ সার্বিয়া
প্রতিবেদন
দর্শক সংখ্যা: ৪১,৪৩২[৬৬]
ব্রাজিল ১-১  সুইজারল্যান্ড
প্রতিবেদন

ব্রাজিল ২–০ কোস্টা রিকা
প্রতিবেদন
সার্বিয়া ১–২  সুইজারল্যান্ড
প্রতিবেদন

সার্বিয়া ০-২ ব্রাজিল
প্রতিবেদন
সুইজারল্যান্ড  ২–২ কোস্টা রিকা
প্রতিবেদন

গ্রুপ এফ[সম্পাদনা]

জার্মানি বনাম মেক্সিকো
অব দল খে ড্র হা স্বগো বিগো গোপা পয়েন্ট যোগ্যতা অর্জন
 সুইডেন +৩ নকআউট পর্বে উন্নীত
 মেক্সিকো −১
 দক্ষিণ কোরিয়া
 জার্মানি −২
উৎস: ফিফা
শ্রেণীবিভাগের নিয়মাবলী: গ্রুপ পর্বের টাই- ব্রেকার
জার্মানি ০-১ মেক্সিকো
প্রতিবেদন
সুইডেন ১-০ দক্ষিণ কোরিয়া
প্রতিবেদন

দক্ষিণ কোরিয়া ১-২ মেক্সিকো
প্রতিবেদন
জার্মানি ২-১ সুইডেন
প্রতিবেদন

দক্ষিণ কোরিয়া ২-০ জার্মানি
প্রতিবেদন
মেক্সিকো ০-৩ সুইডেন
প্রতিবেদন

গ্রুপ জি[সম্পাদনা]

বেলজিয়াম বনাম তিউনিসিয়া
অব দল খে ড্র হা স্বগো বিগো গোপা পয়েন্ট যোগ্যতা অর্জন
 বেলজিয়াম +৭ নকআউট পর্বে উন্নীত
 ইংল্যান্ড +৫
 তিউনিসিয়া −৩
 পানামা ১১ −৯
উৎস: ফিফা
শ্রেণীবিভাগের নিয়মাবলী: গ্রুপ পর্বের টাই- ব্রেকার
বেলজিয়াম ৩-০ পানামা
প্রতিবেদন
তিউনিসিয়া ১–২ ইংল্যান্ড
প্রতিবেদন

বেলজিয়াম ৫-২ তিউনিসিয়া
প্রতিবেদন
ইংল্যান্ড ৬–১ পানামা
প্রতিবেদন

ইংল্যান্ড ০–১ বেলজিয়াম
প্রতিবেদন
পানামা ১–২ তিউনিসিয়া
প্রতিবেদন

গ্রুপ এইচ[সম্পাদনা]

জাপান বনাম পোল্যান্ড
অব দল খে ড্র হা স্বগো বিগো গোপা পয়েন্ট যোগ্যতা অর্জন
 কলম্বিয়া +৩ নকআউট পর্বে উন্নীত
 জাপান [ক]
 সেনেগাল [ক]
 পোল্যান্ড −৩
উৎস: ফিফা
শ্রেণীবিভাগের নিয়মাবলী: গ্রুপ পর্বের টাই- ব্রেকার
টীকা:
  1. ফেয়ার প্লে পয়েন্ট: জাপান −৪, সেনেগাল −৬
কলম্বিয়া ১-২ জাপান
প্রতিবেদন
পোল্যান্ড ১-২ সেনেগাল
প্রতিবেদন

জাপান ২–২ সেনেগাল
প্রতিবেদন
পোল্যান্ড ০–৩ কলম্বিয়া
প্রতিবেদন

জাপান ০-১ পোল্যান্ড
প্রতিবেদন
সেনেগাল ০–১ কলম্বিয়া
প্রতিবেদন

নকআউট পর্ব[সম্পাদনা]

রাশিয়া বনাম ক্রোয়েশিয়া

নকআউট পর্বে যদি কোন খেলায় নির্দিষ্ট ৯০ মিনিট সময়ের পরে দলীয় স্কোরে সমতা বজায় থাকে, তবে ৩০ মিনিটের অতিরিক্ত সময় প্রদান করা হবে (১৫ মিনিট করে দুইবার)। যদি এতেও স্কোরে সমতা বজায় থাকে, তাহলে পেনাল্টি শুট-আউটের মাধ্যমে খেলার ফলাফল নির্ধারণ করা হবে।[৪২]

খেলাসমূহ[সম্পাদনা]

 
১৬ দলের পর্বকোয়ার্টার-ফাইনালসেমি-ফাইনালফাইনাল
 
              
 
৩০ জুন – সোচি
 
 
 উরুগুয়ে
 
৬ জুলাই – নিঝনি নভগোরোদ
 
 পর্তুগাল
 
 উরুগুয়ে
 
৩০ জুন – কাজান
 
 ফ্রান্স
 
 ফ্রান্স
 
১০ জুলাই – সেন্ট পিটার্সবার্গ
 
 আর্জেন্টিনা
 
 ফ্রান্স
 
২ জুলাই – সামারা
 
 বেলজিয়াম
 
 ব্রাজিল
 
৬ জুলাই – কাজান
 
 মেক্সিকো
 
 ব্রাজিল
 
২ জুলাই – রোস্তভ-অন-দন
 
 বেলজিয়াম
 
 বেলজিয়াম
 
১৫ জুলাই – মস্কো (লুঝনিকি)
 
 জাপান
 
 ফ্রান্স
 
১ জুলাই – মস্কো (লুঝনিকি)
 
 ক্রোয়েশিয়া
 
 স্পেন১ (৩)
 
৭ জুলাই – সোচি
 
 রাশিয়া (পেন.) ১ (৪)
 
 রাশিয়া
 
১ জুলাই – নিঝনি নভগোরোদ
 
 ক্রোয়েশিয়া
 
 ক্রোয়েশিয়া (পেন.)১ (৩)
 
১১ জুলাই – মস্কো (লুঝনিকি)
 
 ডেনমার্ক১ (২)
 
 ক্রোয়েশিয়া
 
৩ জুলাই – সেন্ট পিটার্সবার্গ
 
 ইংল্যান্ডতৃতীয় স্থান নির্ধারণী
 
 সুইডেন
 
৭ জুলাই – সামারা১৪ জুলাই – সেন্ট পিটার্সবার্গ
 
  সুইজারল্যান্ড
 
 সুইডেন বেলজিয়াম
 
৩ জুলাই – মস্কো (অতক্রিটিয়ে)
 
 ইংল্যান্ড ইংল্যান্ড
 
 কলম্বিয়া
 
 
 ইংল্যান্ড
 

১৬ দলের পর্ব[সম্পাদনা]

ফ্রান্স ৪-৩ আর্জেন্টিনা
প্রতিবেদন
দর্শক সংখ্যা: ৪২,৮৭৩

উরুগুয়ে ২–১ পর্তুগাল
প্রতিবেদন

স্পেন ১–১ (অ.স.প.) রাশিয়া
প্রতিবেদন
পেনাল্টি
৩–৪

ক্রোয়েশিয়া ১–১ (অ.স.প.) ডেনমার্ক
প্রতিবেদন
পেনাল্টি
৩–২

ব্রাজিল ২-০ মেক্সিকো
প্রতিবেদন

বেলজিয়াম ৩–২ জাপান
প্রতিবেদন

সুইডেন ১–০  সুইজারল্যান্ড
প্রতিবেদন

কলম্বিয়া ১–১ (অ.স.প.) ইংল্যান্ড
প্রতিবেদন
পেনাল্টি
৩–৪

কোয়ার্টার-ফাইনাল[সম্পাদনা]

উরুগুয়ে ০–২ ফ্রান্স
প্রতিবেদন

ব্রাজিল ১–২ বেলজিয়াম
প্রতিবেদন

সুইডেন ০–২ ইংল্যান্ড
প্রতিবেদন

রাশিয়া ২–২ (অ.স.প.) ক্রোয়েশিয়া
প্রতিবেদন
পেনাল্টি
৩–৪

সেমি-ফাইনাল[সম্পাদনা]

ফ্রান্স ১-০ বেলজিয়াম
প্রতিবেদন

ক্রোয়েশিয়া ২–১ (অ.স.প.) ইংল্যান্ড
প্রতিবেদন

তৃতীয় স্থান নির্ধারণী[সম্পাদনা]

বেলজিয়াম ২-০ ইংল্যান্ড
প্রতিবেদন

ফাইনাল[সম্পাদনা]

ফ্রান্স ৪-২ ক্রোয়েশিয়া
প্রতিবেদন

পরিসংখ্যান[সম্পাদনা]

আরও দেখুন: ফিফা বিশ্বকাপ রেকর্ড

শীর্ষ গোলদাতাগণ[সম্পাদনা]

There were 169 goals scored in 64 matches, for an average of 2.64 goals per match.

টুর্নামেন্টে মোট বারোটি আত্মঘাতী গোল হয়েছে।[১০৫]

৬টি গোল

৪টি গোল

৩টি গোল

২টি গোল

১টি গোল

১টি আত্মঘাতী গোল

উৎস: ফিফা[১০৬]

পুরস্কার[সম্পাদনা]

টুর্নামেন্টের শেষে নিম্নলিখিত পুরস্কারগুলো প্রদান করা হয়। গোল্ডেন বুট, গোল্ডেন বল এবং গোল্ডেন গ্লাভ অ্যাওয়ার্ডস আডিডাস কর্তৃক স্পন্সর করা হয়।[২]

গোল্ডেন বল সিলভার বল ব্রোঞ্জ বল
ক্রোয়েশিয়া লুকা মদ্রিচ বেলজিয়াম এদেন আজার ফ্রান্স অঁতোয়ান গ্রিয়েজমান
গোল্ডেন বুট সিলভার বুট ব্রোঞ্জ বুট
ইংল্যান্ড হ্যারি কেন ফ্রান্স অঁতোয়ান গ্রিয়েজমান বেলজিয়াম রোমেলু লুকাকু
৬ গোল, ০ সহায়তা ৪ গোল, ২ সহায়তা ৪ গোল, ১ সহায়তা
গোল্ডেন গ্লাভ
বেলজিয়াম থিবো কোর্তোয়া
সেরা তরুণ খেলোয়াড়
ফ্রান্স কিলিয়ান এমবাপে
ফিফা ফেয়ার প্লে পুরস্কার
 স্পেন

পুরস্কারের অর্থমূল্য[সম্পাদনা]

২০১৮ ফিফা বিশ্বকাপ পুরস্কারের অর্থমূল্য ঘোষিত হয় ২০১৭ সালের অক্টোবর মাসে।[১০৭]

অবস্থান মার্কিন ডলারের পরিমাণ
প্রতি দল মোট
চ্যাম্পিয়ন ৩ কোটি ৮০ লক্ষ ৩ কোটি ৮০ লক্ষ
রানার-আপ ২ কোটি ৮০ লক্ষ ২ কোটি ৮০ লক্ষ
তৃতীয় স্থান ২ কোটি ৪০ লক্ষ ২ কোটি ৪০ লক্ষ
চতুর্থ স্থান ২ কোটি ২০ লক্ষ ২ কোটি ২০ লক্ষ
৫ম-৮ম স্থান ১ কোটি ৬০ লক্ষ ৬ কোটি ৪০ লক্ষ
৯ম-১৬তম স্থান ১ কোটি ২০ লক্ষ ৯ কোটি ৬০ লক্ষ
১৭তম-৩২তম স্থান ৮০ লক্ষ ১২ কোটি ৮০ লক্ষ
সর্বমোট ৪০ কোটি

পয়মন্ত প্রাণীচরিত্র বা মাস্কট[সম্পাদনা]

২০১৮ ফিফা বিশ্বকাপের পয়মন্ত প্রাণী, জাবিভাকা নামক নেকড়ে

২০১৮ ফিফা বিশ্বকাপের আনুষ্ঠানিক পয়মন্ত প্রাণী বা মাস্কট হচ্ছে একটি নেকড়ে যেটির নামকরণ করা হয়েছে জাবিভাকা (রুশ ভাষায় "জাবিভাকা" শব্দের অর্থ হচ্ছে ‘যিনি গোল করেন’), ২১ অক্টোবর ২০১৬-এ পয়মন্ত চরিত্রটিকে উন্মোচন করা হয়। চরিত্রটিকে বাদামী ও সাদা পশমের টি-শার্ট পরিহিত একটি মনুষ্যরূপী নেকড়ে দিয়ে নির্দেশ করা হয়েছে, যেটির টি-শার্টে লেখা রয়েছে "RUSSIA 2018" এবং যার চোখে রয়েছে কমলা রঙের খেলাধুলার চশমা। সাদা, নীল এবং লাল টি- শার্ট এবং শর্টস সমন্বয় রাশিয়ান দলের জাতীয় রং। রাশিয়ার ২০১৮ ফিফা বিশ্বকাপের পয়মন্ত প্রাণীচরিত্রের নকশাকারক হলেন রুশ ছাত্রী একাতেরিনা বোচারোভা। চরিত্রটিকে ইন্টারনেটে ভোটের মাধ্যমে নির্বাচিত করা হয়েছিল।

চ্যানেল ওয়ান রাশিয়া এর ইভেনিং আরজেন্ট-এ ২২ অক্টোবর ২০১৬ তারিখে নির্বাচনের ফলাফল ঘোষণা করা হয়। রাশিয়া বিশ্বকাপ মাস্কট নির্বাচিত হতে শেষ তিনে লড়েছে বাঘ, বিড়াল, নেকড়ে। ১০ লাখেরও বেশি ভোটদানকারীর মধ্যে ৫৩ শতাংশ বেছে নিয়েছেন নেকড়েরূপী ‘জাবিভাকা’কে। বাঘ পেয়েছে ২৭ শতাংশ ভোট, বিড়ালের ভোট ২০ শতাংশ। যেটি ২০১৬ সালের সেপ্টেম্বরে ফিফা প্লাটফর্মের সাথে এবং চ্যানেল ওয়ানে সরাসরি সম্প্রচারের সময় অনুষ্ঠিত হয়, সেখানে সৃজনশীল প্রতিযোগিতারও ফলাফল ঘোষিত হয়।[১০৮]

টিকেট[সম্পাদনা]

ভক্তের পরিচয়পত্র

১৪ই সেপ্টেম্বর ২০১৭ তারিখে মস্কো সময় দুপুর ১২টায় খেলার টিকিট বিক্রির প্রথম পর্যায় শুরু হয়েছিল। ১২ই অক্টোবর ২০১৭ পর্যন্ত টিকেট বিক্রি হয়।[১০৯] রাশিয়ার সাধারণ ভিসা নীতি বিশ্বকাপের অংশগ্রহণকারীদের এবং ভক্তদের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য হবে না, যারা তাদের নাগরিকত্ব নির্বিশেষে প্রতিযোগিতার আগে ও সময় ভিসা ছাড়াই রাশিয়া ভ্রমণ করতে সক্ষম হবে।[১১০] ম্যাচগুলিতে অংশগ্রহণকারীদের একটি ভক্ত পরিচয়পত্র (ফ্যান আইডি) ব্যবহার করতে হবে।[১০৯]

এপ্রিল ৬, ২০১৮-এ, টিকেটের নকশা উন্মোচন করা হয়। টিকিটের নকশাতে নিরাপত্তা বৈশিষ্ট্য যেমন একটি বারসংকেত, স্টেডিয়াম সেক্টর মানচিত্রের পাশে একটি হলোগ্রাম এবং টিকেট ধারকের নাম রয়েছে।[১১১]

ম্যাচ বল[সম্পাদনা]

ম্যাচ বল "টেলস্টার ১৮"

২০১৮ সালের বিশ্বকাপের আনুষ্ঠানিক ম্যাচ বলটিকে "টেলস্টার ১৮" বলা হয় এবং ১৯৭০ সালের প্রথম অাডিডাস বিশ্বকাপ বলের নাম এবং নকশাটির উপর ভিত্তি করে তৈরি করা হয়েছে এটিকে। ৯ই নভেম্বর, ২০১৭ তারিখে বলটিকে পরিচয় করিয়ে দেয়া হয়।[১১২]

পণ্য[সম্পাদনা]

৩০ই এপ্রিল, ২০১৮-এ, ইএ ২০১৮ ফিফা বিশ্বকাপের উপর ভিত্তি করে ফিফা ১৮ এর জন্য একটি বিনামূল্যের সম্প্রসারণ প্যাক ঘোষণা করেছে, ২০১৮ ফিফা বিশ্বকাপের সমস্ত ৩২ অংশগ্রহণকারী দল এবং সমস্ত ১২ টি স্টেডিয়াম নিয়ে এটি তৈরি করা হয়েছে।[১১৩]

অফিসিয়াল গান[সম্পাদনা]

টুর্নামেন্টের অফিসিয়াল গান হিসাবে নির্বাচিত হয়েছে "লিভ ইট আপ"। মার্কিন গায়ক নিকি জ্যাম সমন্বিত মার্কিন র‍্যাপার-অভিনেতা-প্রযোজক উইল স্মিথ এবং কসোভোর নাগরিক ইরা ইজত্রেফাই এই গানটি গেয়েছে।। ২৫শে মে, ২০১৮ তারিখে গানটি মুক্তি পায়। গানটির জন্য অফিসিয়াল মিউজিক ভিডিও ৭ জুন ২০১৮ তারিখে প্রকাশিত হবে।[১১৪]

প্রস্তুতি ও ব্যয়[সম্পাদনা]

রাশিয়ার সরকার বিশ্বকাপের প্রস্তুতির ব্যয়ের জন্য বাজেট নির্দিষ্ট করেছিল $২০ বিলিয়ন ডলার[১১৫] যা পরে কমিয়ে $১০ বিলিয়ন করা হয় যার অর্ধেক পরিবহন পরিকাঠামো খাতে ব্যয় করা হয়।[১১৬] বিমানবন্দরগুলোতে একটু বিশেষ জোর দেওয়া হয়, আয়োজক শহরসমূহের বিমানবন্দরগুলোর অনেকে সংস্কার ও আধুনিকায়ন করা হয়েছিল। সামারাতে, নতুন ট্রাম লাইন স্থাপন করা হয়েছিল।[১১৭] পাশাপাশি কয়েকটি ছোটখাট আবাসন সুবিধার পাশাপাশি সারান্‌স্ক শহর পায় দুটি নতুন হোটেল, মারকুরি সারান্‌স্ক সেন্টার এবং শেরাটন সারানস্কের চারটি কেন্দ্র।[১১৮]

বিতর্ক[সম্পাদনা]

সন্ত্রাসী হুমকি[সম্পাদনা]

টুর্নামেন্টের আগে, আইএসআইএস হুমকি দিয়েছে যে তারা ড্রোনের মাধ্যমে দর্শকদের উপর বোমা হামলা করবে। আইএসআইএস সদস্যরা একটি এনক্রিপ্ট করা অ্যাপ্লিকেশন, টেলিগ্রামে ভিডিও ক্লিপ এবং ছবিসমূহ পোস্ট করার পরে তথ্যসমূহ আলোচনায় এসেছিল। প্রথম হুমকি অক্টোবর ২০১৭-এ শুরু হয় যখন আইএসপন্থী মিডিয়া সংগঠন ওয়াফা মিডিয়া ফাউন্ডেশন একটি পোস্টার প্রকাশ করে, আইএসের তৈরি ওই পোস্টারে দেখা যায়, গারদের পেছনে দাঁড়িয়ে মেসি। রক্ত ঝরছে তার বাঁ চোখ দিয়ে। মেসির চেহারার পাশে লেখা একটি বার্তা, 'তোমরা যে রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে লড়াই চালাচ্ছ, ব্যর্থতা শব্দটা তাদের অভিধানে নেই।' নিচের দিকে ক্রীড়াসামগ্রী প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠান নাইকির বিজ্ঞাপনী স্লোগান 'জাস্ট ডু ইট'র আদলে লেখা 'জাস্ট টেরোরিজম'।[১১৯] প্রায় একই রকম হুমকির শিকার হন ব্রাজিলীয় তারকা নেইমার, ফ্রান্স জাতীয় ফুটবল দলের কোচ দিদিয়ের দেশম, ও পর্তুগালের তারকা ফুটবলার ক্রিস্তিয়ানো রোনালদো

সম্প্রচার স্বত্ত্ব[সম্পাদনা]

বিভিন্ন সংস্থার মাধ্যমে ফিফা, বিভিন্ন স্থানীয় সম্প্রচারকদের জন্য ২০১৮ ফিফা বিশ্বকাপের সম্প্রচার স্বত্ত্ব বিক্রি করে।

যুক্তরাষ্ট্রে ২০১৮ সালের বিশ্বকাপ হবে প্রথম পুরুষ বিশ্বকাপ যার ইংরেজী স্বত্ত্ব ফক্স স্পোর্টস এবং স্প্যানিশ স্বত্ত্ব তেলেমুন্ড এর নিকটে থাকবে। বাংলাদেশে বিশ্বকাপ সরাসরি সম্প্রচার করে নাগরিক টিভি।

বিজ্ঞাপনী উদ্যোগ[সম্পাদনা]

ফিফা অংশীদার ফিফা বিশ্বকাপ অংশীদার এশীয় সহায়তাকারী ইউরোপীয় সহায়তাকারী

আরো দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Standard Russian pronunciation is [tɕɪmʲpʲɪɐˈnat ˈmʲirə pə fʊdˈboɫʊ dʲvʲɪ ˈtɨsʲɪtɕɪ vəsʲɪmˈnatsətʲ]
  2. "Golden consolation for magical Modric"FIFA (ইংরেজি ভাষায়)। ১৫ জুলাই ২০১৮। সংগ্রহের তারিখ ১৬ জুলাই ২০১৮ 
  3. "Ethics: Executive Committee unanimously supports recommendation to publish report on 2018/2022 FIFA World Cup bidding process" (সংবাদ বিজ্ঞপ্তি) (ইংরেজি ভাষায়)। FIFA। ১৯ ডিসেম্বর ২০১৪। ২৯ মার্চ ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা 
  4. "Russia united for 2018 FIFA World Cup Host Cities announcement" (ইংরেজি ভাষায়)। FIFA.com। সংগ্রহের তারিখ ১৩ নভেম্বর ২০১৩ 
  5. "FIFA Picks Cities for World Cup 2018" (ইংরেজি ভাষায়)। En.rsport.ru। ২৯ সেপ্টেম্বর ২০১২। ১৩ নভেম্বর ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৩ নভেম্বর ২০১৩ 
  6. "Russia budget for 2018 Fifa World Cup nearly doubles" (ইংরেজি ভাষায়)। BBC News। ৩০ সেপ্টেম্বর ২০১২। সংগ্রহের তারিখ ১৩ নভেম্বর ২০১৩ 
  7. Goff, Steve (১৬ জানুয়ারি ২০০৯)। "Future World Cups"The Washington Post (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ১৬ জানুয়ারি ২০০৯ 
  8. "Mexico withdraws FIFA World Cup bid" (ইংরেজি ভাষায়)। FIFA। ২৯ সেপ্টেম্বর ২০০৯। সংগ্রহের তারিখ ১০ ফেব্রুয়ারি ২০১১ 
  9. "Indonesia's bid to host the 2022 World Cup bid ends"BBC Sport (ইংরেজি ভাষায়)। ১৯ মার্চ ২০১০। ২০ মার্চ ২০১০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৯ মার্চ ২০১০ 
  10. "Combined bidding confirmed" (ইংরেজি ভাষায়)। FIFA। ২০ ডিসেম্বর ২০০৮। ২২ জানুয়ারি ২০০৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০ ডিসেম্বর ২০০৮