প্রজাতন্ত্রী আয়ারল্যান্ড জাতীয় ফুটবল দল

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
প্রজাতন্ত্রী আয়ারল্যান্ড
দলের লোগো
ডাকনামনা বিয়াচাইলি ই নগ্লাস
(সবুজ ঘেরা বালক)
ফিয়ানা ডে জ্যাক (জ্যাকের সেনা)
অ্যাসোসিয়েশনআয়ারল্যান্ড ফুটবল অ্যাসোসিয়েশন
কনফেডারেশনউয়েফা (ইউরোপ)
প্রধান কোচস্টেফেন কেনি
অধিনায়কশেমাস কোলম্যান
সর্বাধিক ম্যাচরবি কিন (১৪৬)
শীর্ষ গোলদাতারবি কিন (৬৮)
মাঠআভিভা স্টেডিয়াম
ফিফা কোডIRL
ওয়েবসাইটwww.fai.ie
প্রথম জার্সি
দ্বিতীয় জার্সি
ফিফা র‌্যাঙ্কিং
বর্তমান ৪২ অপরিবর্তিত (১০ ডিসেম্বর ২০২০)[১]
সর্বোচ্চ(আগস্ট ১৯৯৩)
সর্বনিম্ন৭০ (জুন–জুলাই ২০১৪)
এলো র‌্যাঙ্কিং
বর্তমান ৪৬ হ্রাস ১০ (১৩ জানুয়ারি ২০২১)[২]
সর্বোচ্চ(মার্চ–এপ্রিল ১৯৯১, এপ্রিল ২০০২, আগস্ট ২০০২)
সর্বনিম্ন৬৩ (মে ১৯৭২)
প্রথম আন্তর্জাতিক খেলা
 আয়ারল্যান্ড ১–০ বুলগেরিয়া 
(কলোঁব, ফ্রান্স; ২৮ মে ১৯২৪)
বৃহত্তম জয়
 প্রজাতন্ত্রী আয়ারল্যান্ড ৮–০ মাল্টা 
(ডাবলিন, আয়ারল্যান্ড; ১৬ নভেম্বর ১৯৮৩)
বৃহত্তম পরাজয়
 ব্রাজিল ৭–০ আয়ারল্যান্ড 
(উবেরলান্দিয়া, ব্রাজিল; ২৭ মে ১৯৮২)
বিশ্বকাপ
অংশগ্রহণ৩ (১৯৯০-এ প্রথম)
সেরা সাফল্যকোয়ার্টার-ফাইনাল (১৯৯০)
উয়েফা ইউরোপীয় চ্যাম্পিয়নশিপ
অংশগ্রহণ৩ (১৯৮৮-এ প্রথম)
সেরা সাফল্য১৬ দলের পর্ব (২০১৬)

প্রজাতন্ত্রী আয়ারল্যান্ড জাতীয় ফুটবল দল (আইরিশ: Foireann peile náisiúnta Phoblacht na hÉireann, ইংরেজি: Republic of Ireland national football team) হচ্ছে আন্তর্জাতিক ফুটবলে প্রজাতন্ত্রী আয়ারল্যান্ডের প্রতিনিধিত্বকারী পুরুষদের জাতীয় দল, যার সকল কার্যক্রম প্রজাতন্ত্রী আয়ারল্যান্ডের ফুটবলের সর্বোচ্চ নিয়ন্ত্রক সংস্থা আয়ারল্যান্ড ফুটবল অ্যাসোসিয়েশন দ্বারা নিয়ন্ত্রিত হয়। এই দলটি ১৯২৩ সাল হতে ফুটবলের সর্বোচ্চ সংস্থা ফিফার এবং ১৯৫৪ সাল হতে তাদের আঞ্চলিক সংস্থা উয়েফার সদস্য হিসেবে রয়েছে। ১৯২৪ সালের ২৮শে মে তারিখে, প্রজাতন্ত্রী আয়ারল্যান্ড প্রথমবারের মতো আন্তর্জাতিক খেলায় অংশগ্রহণ করেছে; ফ্রান্সের কলোঁবের অনুষ্ঠিত উক্ত ম্যাচে প্রজাতন্ত্রী আয়ারল্যান্ড বুলগেরিয়াকে ১–০ গোলের ব্যবধানে পরাজিত করেছে।

৫১,৭০০ ধারণক্ষমতাবিশিষ্ট আভিভা স্টেডিয়ামে দি বয়েজ ইন গ্রিন নামে পরিচিত এই দলটি তাদের সকল হোম ম্যাচ আয়োজন করে থাকে। এই দলের প্রধান কার্যালয় আয়ারল্যান্ডের রাজধানী ডাবলিনে অবস্থিত। বর্তমানে এই দলের ম্যানেজারের দায়িত্ব পালন করছেন স্টেফেন কেনি এবং অধিনায়কের দায়িত্ব পালন করছেন এভার্টনের রক্ষণভাগের খেলোয়াড় শেমাস কোলম্যান

প্রজাতন্ত্রী আয়ারল্যান্ড এপর্যন্ত ৩ বার ফিফা বিশ্বকাপে অংশগ্রহণ করেছে, যার মধ্যে সেরা সাফল্য হচ্ছে ১৯৯০ ফিফা বিশ্বকাপের কোয়ার্টার-ফাইনালে পৌঁছানো, যেখানে তারা ইতালির কাছে ১–০ গোলের ব্যবধানে পরাজিত হয়েছে। অন্যদিকে, উয়েফা ইউরোপীয় চ্যাম্পিয়নশিপে প্রজাতন্ত্রী আয়ারল্যান্ড এপর্যন্ত ৩ বার অংশগ্রহণ করেছে, যার মধ্যে সেরা সাফল্য হচ্ছে উয়েফা ইউরো ২০১৬-এর ১৬ দলের পর্বে পৌঁছানো, যেখানে তারা ফ্রান্সের কাছে ২–১ গোলের ব্যবধানে পরাজিত হয়েছে।

রবি কিন, শাই গিভেন, জন ও'শিয়া, জন অলড্রিজ এবং নায়াল কুইনের মতো খেলোয়াড়গণ প্রজাতন্ত্রী আয়ারল্যান্ডের জার্সি গায়ে মাঠ কাঁপিয়েছেন।

র‌্যাঙ্কিং[সম্পাদনা]

ফিফা বিশ্ব র‌্যাঙ্কিংয়ে, ১৯৯৩ সালের আগস্ট মাসে প্রকাশিত র‌্যাঙ্কিংয়ে প্রজাতন্ত্রী আয়ারল্যান্ড তাদের ইতিহাসে সর্বপ্রথম সর্বোচ্চ অবস্থান (৬ষ্ঠ) অর্জন করে এবং ২০১৪ সালের জুন মাসে প্রকাশিত র‌্যাঙ্কিংয়ে তারা ৭০তম স্থান অধিকার করে, যা তাদের ইতিহাসে সর্বনিম্ন। অন্যদিকে, বিশ্ব ফুটবল এলো রেটিংয়ে প্রজাতন্ত্রী আয়ারল্যান্ডের সর্বোচ্চ অবস্থান হচ্ছে ৮ম (যা তারা সর্বপ্রথম ১৯৯১ সালে অর্জন করেছিল) এবং সর্বনিম্ন অবস্থান হচ্ছে ৬৩। নিম্নে বর্তমানে ফিফা বিশ্ব র‌্যাঙ্কিং এবং বিশ্ব ফুটবল এলো রেটিংয়ে অবস্থান উল্লেখ করা হলো:

ফিফা বিশ্ব র‌্যাঙ্কিং
১০ ডিসেম্বর ২০২০ অনুযায়ী ফিফা বিশ্ব র‌্যাঙ্কিং[১]
অবস্থান পরিবর্তন দল পয়েন্ট
৪০ অপরিবর্তিত  হাঙ্গেরি ১৪৬০
৪১ অপরিবর্তিত  অস্ট্রেলিয়া ১৪৫৭
৪২ অপরিবর্তিত  চেক প্রজাতন্ত্র ১৪৫৬
৪২ অপরিবর্তিত  প্রজাতন্ত্রী আয়ারল্যান্ড ১৪৫৬
৪৪ অপরিবর্তিত  নরওয়ে ১৪৫০
বিশ্ব ফুটবল এলো রেটিং
১৩ জানুয়ারি ২০২১ অনুযায়ী বিশ্ব ফুটবল এলো রেটিং[২]
অবস্থান পরিবর্তন দল পয়েন্ট
৪৪ হ্রাস  স্লোভাকিয়া ১৬৬৪
৪৫ বৃদ্ধি  স্কটল্যান্ড ১৬৬০
৪৬ হ্রাস ১০  প্রজাতন্ত্রী আয়ারল্যান্ড ১৬৫৮
৪৭ হ্রাস  কাতার ১৬৪০
৪৮ হ্রাস  বসনিয়া ও হার্জেগোভিনা ১৬৩৪

প্রতিযোগিতামূলক তথ্য[সম্পাদনা]

ফিফা বিশ্বকাপ[সম্পাদনা]

ফিফা বিশ্বকাপ বাছাইপর্ব
সাল পর্ব অবস্থান ম্যাচ জয় ড্র হার স্বগো বিগো ম্যাচ জয় ড্র হার স্বগো বিগো
উরুগুয়ে ১৯৩০ অংশগ্রহণ করেনি অংশগ্রহণ প্রত্যাখ্যান
ইতালি ১৯৩৪ উত্তীর্ণ হয়নি
ফ্রান্স ১৯৩৮
ব্রাজিল ১৯৫০
সুইজারল্যান্ড ১৯৫৪
সুইডেন ১৯৫৮
চিলি ১৯৬২ ১৭
ইংল্যান্ড ১৯৬৬
মেক্সিকো ১৯৭০ ১৪
পশ্চিম জার্মানি ১৯৭৪
আর্জেন্টিনা ১৯৭৮
স্পেন ১৯৮২ ১৭ ১১
মেক্সিকো ১৯৮৬ ১০
ইতালি ১৯৯০ কোয়ার্টার-ফাইনাল ৮ম ১০
মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ১৯৯৪ ১৬ দলের পর্ব ১৫তম ১২ ১৯
ফ্রান্স ১৯৯৮ উত্তীর্ণ হয়নি ১২ ২৪ ১১
দক্ষিণ কোরিয়া জাপান ২০০২ ১৬ দলের পর্ব ১২তম ১২ ২৫
জার্মানি ২০০৬ উত্তীর্ণ হয়নি ১০ ১২
দক্ষিণ আফ্রিকা ২০১০ ১২ ১৩ ১০
ব্রাজিল ২০১৪ ১০ ১৬ ১৭
রাশিয়া ২০১৮ ১২ ১৩ ১১
কাতার ২০২২ অনির্ধারিত অনির্ধারিত
মোট কোয়ার্টার-ফাইনাল ৩/২১ ১৩ ১০ ১০ ১৪১ ৫৬ ৪৩ ৪২ ১৯৯ ১৬৯

অর্জন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "ফিফা/কোকা-কোলা বিশ্ব র‍্যাঙ্কিং"ফিফা। ১০ ডিসেম্বর ২০২০। সংগ্রহের তারিখ ১০ ডিসেম্বর ২০২০ 
  2. গত এক বছরে এলো রেটিং পরিবর্তন "বিশ্ব ফুটবল এলো রেটিং"eloratings.net। ১৩ জানুয়ারি ২০২১। সংগ্রহের তারিখ ১৩ জানুয়ারি ২০২১ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]