এই পাতাটি অর্ধ-সুরক্ষিত। শুধুমাত্র নিবন্ধিত ব্যবহারকারীরাই সম্পাদনা করতে পারবেন।

পায়ুসঙ্গম

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
(পায়ুমৈথুন থেকে পুনর্নির্দেশিত)
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
নারীর পায়ুতে শিশ্ন প্রবেশ

পায়ুসঙ্গম অথবা পায়ুকাম হচ্ছে সাধারণত যৌন-আনন্দ লাভের জন্য উত্থিত শিশ্ন কোন ব্যক্তির পায়ুপথে প্রবেশকরণ ও সঞ্চালনাকরণ[১][২][৩] পায়ুসম্পর্কিত অন্যান্য যৌনক্রিয়াগুলোর মধ্যে রয়েছে পায়ুপথে অঙ্গুলিসঞ্চালন, পায়ুপথে কৃত্রিম শিশ্ন ঢোকানোসহ পায়ুলেহন এবং পেগিং[৪][৫] যদিও পায়ুসঙ্গম বলতে প্রধানত পায়ুপথে শিশ্নের অনুপ্রবেশকেই বোঝানো হয়,[৩][৪][৬] এবং পায়ুকাম শব্দটিও অনুরূপ ক্রিয়া বোঝাতে ব্যবহৃত হয়ে থাকে তবে আবার পায়ুকাম শব্দটি পায়ুদ্বারসম্পর্কিত অন্যান্য যৌনক্রিয়া বোঝাতেও ব্যবহৃত হয় শুধু 'স্বপায়ুমেহন' বা 'পায়ুপথে স্বঅঙ্গুলি প্রবেশ' ক্রিয়া ব্যতিত।[৬][৭]

পায়ুসঙ্গম সাধারণত পুরুষ-পুরুষ যৌনসংসর্গের জন্য সুপরিচিত যদিও বিষমকামিতায়ও পায়ুসঙ্গম প্রচলিত।[২][৮][৯] নারী-নারী যৌনসংসর্গেও পায়ুসঙ্গম কৃত্রিম শিশ্ন দ্বারা করা হয়।[১০] যার পায়ুপথে শিশ্ন প্রবেশ করা হবে তিনি তার পায়ুর স্নায়ুতন্ত্রের কারণে ব্যথা কিংবা কষ্ট বা দুটোই পেতে পারেন, পুরুষের পায়ুপথে যৌনানন্দ আসতে পারে তাদের প্রোস্টেটের পরোক্ষ উদ্দীপনার মাধ্যমে আর একজন নারীর পায়ুতে যৌনানন্দ আসতে পারে তার ভগাঙ্কুর বা যোনিপথের কোনো একটা জায়গা (জি-স্পট) এর পরোক্ষ উদ্দীপনার মাধ্যমে, এছাড়াও নারীদের আরো সংবেদনশীল স্নায়ুতন্ত্রের কারণেও আনন্দ আসতে পারে।[২][৪][১১] যদিও, পায়ুসঙ্গম অধিকাংশ ক্ষেত্রেই পায়ুতে ব্যথাদায়ক, কখনো কখনো এই ব্যথা তীব্রও হতে পারে,[১২][১৩] এটা প্রাথমিকভাবে কোনো কোনো ক্ষেত্রে মনস্তাত্ত্বিক কারণে হয়ে থাকে।[১৩]

অন্য সব যৌনক্রিয়ার চেয়ে পায়ুসঙ্গমে যৌনবাহিত রোগ হবার সম্ভাবনা বেশি হয়ে থাকে। পায়ুসঙ্গমকে সবচেয়ে ঝুঁকিপূর্ণ যৌনক্রিয়া বলা হয় পায়ুপথের সহজনশ্বরতার জন্য। পায়ুপথে যোনিপথের মত পিচ্ছিলতা না থাকায় পায়ুপথের টিস্যু সহজে ছিঁড়ে যায়, বিশেষ করে তখন যখন পায়ুপথে লুব্রিক্যান্ট না ব্যবহার করা হয়।[২][৩][১৪] কনডম ছাড়া পায়ুসঙ্গম ঝুঁকিপূর্ণ হিসেবে বিবেচিত হয়,[১৪][১৫][১৬] এবং সেইজন্যে স্বাস্থ্য বিষয়ক সংস্থাসমূহ যেমন বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা পায়ুসঙ্গম করার ক্ষেত্রে নিরাপদ যৌনতা অবলম্বন করতে বলে।[১৭]

পায়ুসঙ্গম সম্পর্কে প্রায়শঃই শক্ত মতবাদ প্রকাশ করা হয়। বিভিন্ন সংস্কৃতিতে এটি বিতর্কিত বিশেষ করে ধর্মীয় আইনসমূহে। এটা সাধারণত এই কারণে যে পায়ুসঙ্গম বলতে সাধারণত দুইজন পুরুষের যৌনসঙ্গম বোঝায় এবং যৌনতার মূল অর্থ যেখানে শুধুই 'বাচ্চা জন্মদান' এর জন্য - এরকমটা শেখানো হয়।[৫][৭] এটাকে ট্যাবু বা অপ্রাকৃতিক বলা হতে পারে, এবং কিছু কিছু রাষ্ট্রে আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ, যেখানে নিতম্বে বেত্রাঘাত কিংবা মৃত্যুদণ্ডের মত বড় ধরনের শাস্তিও দেওয়া হতে পারে।[৫][৭] অনেক মানুষ পায়ুসঙ্গমকে প্রাকৃতিক এবং যৌনমিলনের অন্যতম একটি আনন্দদায়ক মাধ্যম হিসেবে মনে করেন। তারা এটাকে তাদের যৌনজীবনের একটি বর্ধিত অংশ হিসেবেও মনে করেন।[৫][৭]

পুরুষ থেকে নারীতে

আচরণ এবং মতবাদসমূহ

১৮৯২ সালের একটি চিত্রকর্মে নারীর পায়ুতে পুরুষের শিশ্নের প্রবেশ, চিত্রশিল্পীঃ এদুয়ার্দ অঁরি অভ্রিল

পায়ুপথের পেশি যোনির পেশির মত না হওয়াতে একজন পুরুষ যখন একজন নারীর পায়ুপথে তার শিশ্ন প্রবেশ করান তখন তার শিশ্ন সহজে ভেতরে প্রবেশ করেনা এবং পুরুষটি তার শিশ্নে একটি চাপ অনুভব করে আনন্দ লাভ করেন।[৩][১৮][১৯] এছাড়া পুরুষেরা এক ধরনের মনস্তাত্ত্বিক কারণেও নারীর পায়ুপথে শিশ্ন ঢুকিয়ে মজা পেতে পারেন সেটা হচ্ছে পায়ুসঙ্গমে নারীর গর্ভে সন্তান আসেনা, তাছাড়া যে সমাজে পায়ুসঙ্গম গোপন এবং নিষিদ্ধ একটি বিষয় ঐ সমাজে পুরুষেরা পায়ুসঙ্গম করতে আগ্রহী হয়ে উঠতে পারেন এবং পায়ুসঙ্গমকালে এভাবেও মনস্তাত্ত্বিকভাবে আনন্দ পেতে পারেন যে একটা নিষিদ্ধ কাজ কত মজা। অথবা পুরুষেরা শিশ্ন ঢোকানোর একটি বিকল্প পথ মনে করেও আনন্দ পেতে পারেন।[৫][১৯]

যেখানে কিছু নারী তাদের পায়ুতে শিশ্নের প্রবেশে ব্যথা এবং অস্বস্তি অনুভব করেন অথবা তার পুরুষসঙ্গীকে খুশী করার জন্য তার পায়ুতে শিশ্ন ঢোকাতে দেন আবার কিছু নারী এই যৌনক্রিয়ায় আনন্দ পান অথবা যোনিতে শিশ্ন গ্রহণের বিকল্প হিসেবে পায়ুতে শিশ্ন প্রবেশ করতে দেন।[৬][১৮][২০][২১]

২০১০ সালে বিষমকামিতার পায়ুসঙ্গম নিয়ে একটি ক্লিনিক্যাল রিভিউ আর্টিকেল বের করা হয়, ওখানে পায়ুসঙ্গম বলতে পায়ুতে শিশ্নের অনুপ্রবেশ এবং পায়ুকাম বলতে পায়ু বা মলদ্বারসংক্রান্ত অন্যান্য যৌনক্রিয়া নির্দেশ করা হয়। রিভিউতে বলা হয় যে পায়ুসঙ্গম অধিকাংশ ক্ষেত্রেই ব্যথাদায়ক এবং যেসব যুগল পায়ুসঙ্গম করেন তাদের সঙ্গীর পায়ুপথে সাধারণত ব্যথাই দিয়ে থাকেন।[৬]

নারীদের ঋতুস্রাবচলাকালীন সময়ে অনেক পুরুষই যোনির পরিবর্তে পায়ুপথে শিশ্ন প্রবেশ করতে চাইতে পারেন।[৫] অনেক পুরুষ পায়ুসঙ্গমকে জন্মনিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থার একটি পদ্ধতি হিসেবে ব্যবহার করেন কনডমের অনুপস্থিতে।[৫][২২][২৩] পায়ুসঙ্গমের দ্বারা গর্ভে বাচ্চা হওয়ার কোনো সম্ভাবনা নেই কারণ পায়ুতে বীর্য গেলে সেটা জরায়ুতে পৌঁছাতে পারেনা কিন্তু অনেকসময় পায়ু থেকে শিশ্ন বের করার সময় অসাবধানতাবশত শিশ্নের বীর্য বেরিয়ে গড়িয়ে পড়ে যোনিতে লেগে যেতে পারে, এভাবে যোনিপথে একটু বীর্য ঢুকে গেলে সেটা জরায়ুতে চলে যেতে পারে এবং সমস্যা হতে পারে।

কোনো নারী যদি তার প্রথম যৌনমিলন হিসেবে এই পায়ুসঙ্গম করেন এবং এর আগে যদি কখনো যৌনমিলন (যোনিতে শিশ্ন) না করে থাকেন তাহলে তিনি কুমারী নারী বিবেচিত হবেন কারণ যোনিচ্ছেদ শিশ্ন দ্বারা ছেঁড়েনি। এটাকে কখনো কখনো কারিগরী কুমারীত্ব বলা হয়।[২৪][২৫][২৬][২৭] কিছু কিছু বিষমকামী যুগল পায়ুসঙ্গমকে একটি শৃঙ্গার কর্ম হিসেবে দেখতে পারেন, লরা এম কার্পেন্টার বলেন যে ষোড়শ শতাব্দীর শেষের দিকে এই ধারণা প্রচলিত হয় যে এটা শৃঙ্গার এবং বিংশ শতাব্দীতে ধারণা সম্পূর্ণ বদলে পায়ুসঙ্গম একটি একক যৌনক্রিয়ার কাতারে পড়ে যায়।[২৪]

প্রচলন

যেহেতু পায়ুসঙ্গমের অধিকাংশ গবেষণাই পুরুষ-পুরুষ যৌনসংসর্গ নির্ভর সেহেতু বিষমকামী যুগলদের পায়ুসঙ্গম সম্পর্কিত তথ্য খুব কমই পাওয়া যায়।[৬][২৮] কিমবার্লি আর ম্যাকব্রাইডের ২০১০ সালের ক্লিনিক্যাল রিভিউ থেকে প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী বিষমকামী পুরুষদের অধিকাংশ যারা পায়ুসংক্রান্ত যৌনক্রিয়া তাদের নারীসঙ্গীদের করেছেন তাদের খুব কমই পায়ুপথে শিশ্ন ঢুকিয়েছেন; অধিকাংশ পুরুষই মলদ্বারের গন্ধ শুঁকেছেন বা মলদ্বার চুষেছেন বা পায়ুপথে আঙ্গুল ঢুকিয়েছেন এবং মাত্র ২৩ শতাংশ পুরুষ পায়ুপথে শিশ্ন ঢুকিয়েছেন।[৬]

২০১০ সালের 'ন্যাশনাল সার্ভে অব সেক্সুয়াল হেলথ এ্যান্ড বিহেভিয়ার' এর পরিসংখ্যান বলে যে মাত্র ১৩ থেকে ১৫ শতাংশ পুরুষ তার নারীসঙ্গীর পায়ুতে শিশ্ন ঢুকিয়েছেন।[২৯][৩০]

পুরুষ থেকে পুরুষে

আচরণ এবং প্রচলন

এদুয়ার্দ অঁরি অভ্রিল কর্তৃক অঙ্কিত পুরুষ-পুরুষ পায়ুসঙ্গম

সুদূর অতীতকাল থেকেই পায়ুসঙ্গমকে পুরুষ-পুরুষ যৌনসংসর্গের কাতারে ফেলা হচ্ছে। যদিও সব সমকামী পুরুষ পায়ুসঙ্গমে লিপ্ত হননা।[৮][৯][৩১][৩২] যে পুরুষ শিশ্ন প্রবেশ করান তাকে 'টপ' এবং যার পায়ুপথে ঢোকানো হয় তাকে 'বটম' বলা হয়। যারা এই দুই ধরনের কাজই করেন তাদেরকে বলা হয় 'ভারস্যাটাইল'।[৩৩][৩৪]

যেসব পুরুষ অন্য পুরুষের পায়ুতে তাদের শিশ্ন ঢোকাতে চান তারা এটা নারীর বিকল্প হিসেবেই সাধারণত করে থাকেন।[৩১][৩৫][৩৬] তারা মনে করেন যে যেহেতু বিষমকামিতায় একটি নারীর যোনি শিশ্ন দ্বারা বিদ্ধ করা হয় সেহেতু পুরুষ-পুরুষ যৌনতায়ও পায়ুপথ বিদ্ধ করা উচিৎ।[৩৬][৩৭] যেসব পুরুষ তাদের পায়ুতে অন্য পুরুষের শিশ্ন নেন তাদের অনেকে আবার নিজেদেরকে পুরুষত্ব হারিয়েছেন বলে মনে করেন।[৩৮][৩৯]

সমকামী পুরুষেরা সাধারণত পায়ুসঙ্গমের পরিবর্তে ফ্রট কর্মে লিপ্ত হন বা পারস্পরিক হস্তমৈথুন করেন যেটাকে তারা পায়ুসঙ্গমের চেয়ে বেশি আনন্দদায়ক বলে মনে করেন,[৩১][৩৩][৪০] এবং পায়ুসঙ্গমকে ব্যথাদায়ক এবং ক্ষতিকারক মনে করেন।[৩৭][৪১]

প্রচলন

সমকামী পুরুষযুগলদের মধ্যকার পায়ুকাম এবং অসমকামী কিন্তু পুরুষ-পুরুষ যৌনসংসর্গকারীদের মধ্যে সংঘটিত পায়ুকামের বিভিন্ন পরিসংখ্যান রয়েছে। যুক্তরাষ্ট্রের ১৯৯৪ সালের 'দ্যা এ্যাডভোকেট' ম্যাগাজিনের একটি রিপোর্ট অনুযায়ী ৪৬ শতাংশ পুরুষ পায়ুসঙ্গম করেছেন এবং ৪৩ শতাংশ সমকামী পুরুষ তাদের পায়ুতে শিশ্ন নিয়েছেন।[৩৩] আরেকটি পরিসংখ্যানে বলা হয় যে তিন চতুর্থাংশ পুরুষই পায়ুসঙ্গম করেছেন বা করিয়েছেন।[৩৩] ২০১২ সালে যুক্তরাষ্ট্রের এনএসএসবি বলে যে, ৮৩ শতাংশ পুরুষ অপর পুরুষের সঙ্গে পায়ুসঙ্গম করেন মাসে অন্তঃত একবার এবং ৯০ শতাংশ পুরুষ তাদের পায়ুতে শিশ্ন গ্রহণ করেন।[৪২]

শিশ্নচোষণ এবং পারস্পরিক হস্তমৈথুন সমকামী পুরুষদের মধ্যে পায়ুসঙ্গমের সঙ্গে সঙ্গে বেশ জনপ্রিয়।[১][৩১][৪৩] উইটেন বলেন যে, বিষমকামী যুগলদের চেয়ে সমকামী যুগলদের মধ্যে পায়ুসঙ্গম বেশি জনপ্রিয়, কিন্তু এটা মুখকাম এবং পারস্পরিক হস্তমৈথুনের চেয়ে কম জনপ্রিয়।[১]

নারী থেকে পুরুষে

একজন পুরুষের পায়ুপথে কৃত্রিম শিশ্ন পরিধান করে প্রবেশ করাতে যাচ্ছেন একজন নারী

যদি একজন নারী বন্ধনীযুক্ত কৃত্রিম শিশ্ন পরিধান করে একজন পুরুষের পায়ুতে তা ঢোকান তবে সেটা পেগিং বলে গণ্য হবে।[৫][৪৪][৪৫] ১৯৯৯ সালের একটি পরিসংখ্যান অনুযায়ী ৭৮ শতাংশ পুরুষ তার নারীসঙ্গী দ্বারা তাদের পায়ুপথে কৃত্রিম শিশ্ন ঢুকাতে চেয়েছেন।[৪৬]

২০১০ সালের আরেকটি পরিসংখ্যান প্রকাশ করে যে ৭ শতাংশ পুরুষ এইরূপ পায়ুসঙ্গমে আগ্রহী।[৪৭]

নারী থেকে নারীতে

পায়ুলেহনরত অবস্থায় দুজন নারী

নারী সমকামিতায় নারীরা স্ট্র্যাপ-অন ডিলডো পরিধান করে নারীদের পায়ুপথে পায়ুকাম করে থাকেন।[১০][৪৮]

যুক্তরাষ্ট্র এবং কানাডার ২০১৪ সালের একটি পরিসংখ্যান বলে যে মাত্র ৭ শতাংশ সমকামী যুগল এহেন ক্রিয়ায় জড়িয়েছেন সপ্তাহে অন্তঃত একবার, প্রায় ১০ শতাংশ মাসে একবার করেছেন এবং ৭০ শতাংশ একেবারেই কোনো কিছু করেননি।[৪৯]

স্বাস্থ্য ঝুঁকি

সাধারণ ঝুঁকি

মলদ্বারের মিউকাস ঝিল্লী

যে ব্যক্তির পায়ুতে সঙ্গম করা হয় তার দুটি প্রধান ঝুঁকি থাকে; একটি হলো শরীরের কোথাও পাওয়া যায় না, এরূপ উচ্চমাত্রার সংক্রামক অণুজীব দ্বারা সে ব্যক্তির সংক্রমণ হওয়া এবং অপরটি হলো পায়ু ও মলাশয় নাজুক হওয়ার দরুণ, সে প্রত্যঙ্গের ক্ষতি হওয়া।[১৪][১৬]বেয়ারব্যাক নামক অসুরক্ষিত শিশ্ন-পায়ুর মধ্যকার সঙ্গম[৫০] হলে পায়ুর রন্ধ্রকপেশী (স্ফিংক্টার পেশী) অপেক্ষাকৃত দুর্বল হওয়ায়, সহজে তার টিস্যুকোষ ছিড়ে যেতে পারে, ফলে সেজায়গা দিয়ে রোগজীবানু সহজে প্রবেশে করতে পারে। এর ফলে উক্ত ব্যক্তি উচ্চমাত্রার যৌন সংক্রামক রোগে (এসটিডি) আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকিতে থাকে। [১৪][১৬]

মলপথের চারপাশে শ্বেতকণিকার আধিক্যের সাথে এর আবরণী পর্দা ছিঁড়ে যাবার ঝুঁকি, এবং কোলনের তরল শোষণ করার ভূমিকা সব মিলিতভাবে পায়ুসঙ্গমকারীদের যৌনরোগের ঝুঁকি বাড়ায়। কারণ যৌনরোগের জীবাণু শ্বেতকণিকাকে আক্রমণ করতে পারে, এবং এর মাধ্যমে রক্তে বাহিত হতে পারে। কন্ডম, এম্পল লুব্রিকেশন তৈল পেশীকোষ ছিড়ে যাওয়ার ঝুঁকি হ্রাস করে[২][৫১] এবং সাধারণভাবে নিরাপদ যৌনতার চর্চা এসটিআই সংক্রমিত হওয়ার ঝুঁকি হ্রাস করে।[১৬][৫২] যাইহোক, পায়ুসঙ্গম করার সময়, পায়ুর রন্ধ্রনিয়ন্ত্রক পেশীর (স্ফিংক্টার পেশী) দৃঢ়তার জন্য সঙ্গমজনিত ঘর্ষণের সময় কন্ডম ভেঙে যেতে পারে। ফলে কণ্ডম পরিধানের মুল উদ্দেশ্য ব্যহত হয়।[১৬]

(কোন এইচআইভি পজিটিভ সঙ্গীর সঙ্গে) অরক্ষিত পায়ুসঙ্গম করা হলে এইচআইভি সংক্রমণের সম্ভাবনা সবচেয়ে বেশী থাকে।[১৪][১৫][১৬] অরক্ষিত পায়ুসঙ্গমের মধ্যমে সংক্রমণযোগ্য অন্যান্য সংক্রমণগুলো হল মানব প্যাপিলোমা ভাইরাস বা এইচপিভি (যা পায়ুপথের ক্যান্সার হওয়ার ঝুঁকি বাড়িয়ে দিতে পারে[৫৩]); টাইফয়েড জ্বর;[৫৪] আমাশয়; ক্ল্যামিডিয়া সংক্রমণ;[১৫] ক্রিপ্টোস্পোরিডিয়োসিস; ই কোলি সংক্রমণ; গায়ারডিয়াসিস; গনেরিয়া;[১৫] হেপাটাইটিস এ; হেপাটাইটিস; হেপাটাইটিস সি; হারপেস সিম্প্লেক্স;[১৫] কাপেসি'র হারকোমা সম্পর্কিত হারপিসভাইরাস (HHV-8);[৫৫] লিম্ফোগ্র্যানুলোমা ভেনেরিয়াম; মাইকোপ্লাজমা হোমিনিজ; মাইকোপ্লাজমা জেনিটালিয়াম; পিউবিক উকুন;[১৫] স্যালমনেলোসিস; শেইগেলা; সিফিলিস;[১৫] যক্ষ্মা; এবং ইউরিপ্লাজমা ইউরিলিটিকাম[৫৬]

অন্যান্য যৌনক্রিয়ার মত পায়ু সংগমের ফলে কী ধরনের যৌনবাহিত রোগ (যেমনঃ এসটিআই) সংক্রমিত হতে পারে নিয়ে সাধারণ মানুষের খুবই কম ধারনা থাকে। এই ধারণার পেছনে অন্যতম একটি কারণ হলো মানুষ পায়ুসঙ্গম কে প্রকৃতপক্ষে কোনো যৌনাচার ভাবেই না। তারা মনে করে এই যৌনাচরণের ফলে ব্যক্তির কুমারীত্ব নষ্ট হয় না, গর্ভবতী হয় না। অল্প বয়সী মানুষ মনে করে যোনিতে সঙ্গম; পায়ু সংগমের তুলনায় অনেক বেশি ঝুঁকিপূর্ণ এবং বিশ্বাস করে এসটিআই যোনিতে সঙ্গমের ফলেই সংক্রমিত হতে পারে।[৫৭][৫৮][৫৯] যেহেতু কণ্ডম পরিধান করে সঙ্গম করলে বা না করলে কী হবে, তা নিয়ে বিশ্বজুড়ে সংগঠিত গবেষণার সংখ্যা নগণ্য, তাই এই বিশ্বাস তরুণমনে সৃষ্টি হয়েছে।[৫৭]

শুধুমাত্র পায়ু সঙ্গমের ফলে গর্ভাধান সম্ভব না হলেও পায়ুসঙ্গমের সময়ে গর্ভাধান হওয়া সম্ভব, যদি পায়ুসঙ্গমের সময় শিশ্ন যোনির কাছে থাকে (যেমনঃ ঊরুমৈথুন অথবা যৌনাঙ্গ-যৌনাঙ্গ ঘর্ষণের সময়ে) এবং বীর্য যোনির চারপাশে পরে তখন তা যোনির লুব্রিকেটিং ফ্লুইডের মাধ্যমে যোনিতে প্রবেশ করতে পারে। যদি আঙ্গুল বা অন্য কোনো অঙ্গের মাধ্যমে বীর্য যোনির প্রবেশদ্বারের স্পর্শে আসে, তবে শিশ্নের স্পর্শ ছাড়াও গর্ভাধান সম্ভব।[৬০][৬১]

একটি গবেষণায় দেখা গেছে যে, ৬১% সমকামী এবং উভকামীর অতীব বেদনাদায়ক অভিজ্ঞতা হল পায়ুসঙ্গম এবং এটা সবচেয়ে বেশি ঘটে থাকে তাদের সাথে। ২৪ শতাংশ সমকামী এবং উভকামীর মতে পায়ুসঙ্গমেত সময় কখনো বেশি কখনো কম ব্যথা অনুভব করেন[১৩] এবং ১২ শতাংশ মনে করে তাদের পায়ুতে সঙ্গমের সময় বিষয়টি তীব্র পীড়াদায়ক।[১৩][৬২] পায়ুসঙ্গমের সময় মলদ্বারে লিঙ্গের ব্যথার মাত্রা নিয়ে কিছু কারণকে বিবেচনায় রেখে পূর্বাভাস দেওয়া যায়। এর মধ্যে কিছু কারণ হলো পায়ুতে পিচ্ছিল পদার্থের কম উপস্থিতি, উদ্বেগ অনুভব করা, উদ্দীপনার অভাব হওয়া এবং সঙ্গীর সাথে পর্যাপ্ত সামাজিক যোগাযোগের অভাব থাকার মত বিষয়গুল অন্তর্ভুক্তহলে পায়ুসঙ্গমের সময় ব্যথার মাত্রা বেড়ে যায়। গবেষকদের মতে পায়ু সঙ্গমের সময়, নিশ্চিত ভাবে ব্যথা অনুভূত হওয়ার কথা বলেও, পায়ুসঙ্গমকালীন সময়ে যদি সঙ্গী একে অপরের সাথে বিভিন্ন বিষয়ে আলাপ বা পর্যাপ্ত প্রতিক্রিয়া জানায়, সেক্ষেত্রে নিশ্চিত ব্যথাটিকে এড়ানো যায় অর্থাৎ যে ধারণা গড়ে উঠেছে, পায়ুসঙ্গম মাত্রই পীড়াদায়ক, সেধারণাটি সম্পুর্ণ সত্য নয়।[১৩][৬২]

জরায়ুসঙ্গমের চেয়ে পায়ুসঙ্গমে এইচআইভি সংক্রমণের ঝুঁকি অনেক বেশী,[৩][৬৩][৬৪] জরায়ুসঙ্গমের তুলনায় পায়ুসঙ্গমের আঘাতপ্রাপ্তির সম্ভাবনা লক্ষণীয়ভাবে বেশী কারণ জরায়ুর টিস্যুর তুলনায় পায়ুপথের টিস্যুর দৃঢ়তা খুবই কম।[৩][৬৫][৬৬] পাশাপাশি, কোন পুরুষ যদি পায়ুসঙ্গমের পরপরই কনডম ছাড়া অথবা পূর্বের কনডম পরিবর্তন ছাড়াই জরায়ুঙ্গম করে তবে, তবে মলদ্বারে উপস্থিত ব্যাকটেরিয়ার কারণে জরায়ুতে সংক্রমণ হতে পারে; পায়ুপথে অঙ্গুলিচালনা বা যৌনখেলনা চালনা করার পরপর তা জরায়ুপথে চালনা করার মাধ্যমেও একইভাবে জরায়ুতে সংক্রমণ হতে পারে।[২][৩][৬৭]

লুব্রিক্যান্ট বা জেলী ব্যবহার করা না হলে পায়ু এবং মলপথের টিস্যু স্বাভাবিকভাবে ভগাঙ্কুরীয় তৈলাক্ততা প্রদান করে না।[২][৩][১৪] ফলে যোনিতে যত সহজে শিশ্ন প্রবেশ করা যায়, বা যোনির ক্ষতি হওয়ার ঝুঁকি কম থাকে, তার চেয়ে অধিক পরিমাণ ক্ষতি হওয়ার ঝুঁকি থাকে পায়ুসঙ্গম করা হলে। কনডম ব্যবহার ব্যতীত পায়ুসঙ্গম সর্বাপেক্ষা ঝুঁকিপূর্ণ যৌন কার্যকলাপ হিসেবে বিবেচিত,[১৪][১৫][১৬] এবং এ কারণে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা পায়ুসঙ্গম চর্চার জন্য নিরাপদ যৌনসঙ্গমের প্রস্তাব করে।[১৭]

কিন্তু পায়ু সঙ্গমের সময় জেলীর ব্যবহারও যৌনবাহিত রোগ সংক্রমণের ঝুঁকি বাড়িয়ে দিতে পারে।২০১০ সালে সহস্রাধিক অনুজীববিজ্ঞানী একটি সম্মেলনে যে প্রতিবেদন পেশ করেন, তার সারমর্ম হল, পায়ুসঙ্গমে জেলী (lubricants) ব্যবহারে এইডসের রিস্ক বাড়ে। বাল্টিমোর ও লস এঞ্জেলসের ৯০০ পুরুষ ও মহিলার ডেটা নেয়া হয়। গবেষকগণ দেখেন, যারা জেলী ব্যবহার করে তারা ৩ গুণ বেশি যৌনবাহিত রোগের (ইংরেজিঃ rectal sexually transmitted infections) ঝুঁকিতে আছে।[৬৮] আরেকটি প্রতিবেদন অনুসারে জনপ্রিয় জেলীগুলোকে ল্যাবে নিয়ে দেখা যায়, সেগুলোর অনেকগুলো মলপথে কোষের জন্য মরণঘাতী (toxic)। যার ফলে এগুলো ব্যবহারে এইডস ভাইরাসের প্রবেশ হয় আরও সহজ। এমনকি পুরুষ না কি নারী, এইডস আছে না কি নেই, কোন শহরে থাকে, কনডম ইউজ করে কি না, গত মাসে কতজন যৌনসঙ্গীর সাথে মিলিত হয়েছে— এই সবগুলো ফ্যাক্টরকে সমান সমান নিয়েও দেখা গেছে, পায়ুমৈথুনের (receptive rectal intercourse) আগে জেলী (lubricant) ব্যবহার করার সাথে পায়ুর যৌনবাহিত রোগের সম্পর্ক জোরালোই রয়ে গেছে।[৬৯] আরেকটা গবেষণার প্রতিবেদন অনুসারে বহুল প্রচলিত ৬ টা জেলী নিয়ে গবেষণায় দেখা গেছে, - এতে অনেক বেশি পরিমাণে লবণ ও সুগার থাকে যা কোষের পানি টেনে নেয়। ডিহাইড্রেশান হয়ে মারা যায় আবরণী কোষ। ইনফেকশনের জায়গা করে দেয়। - আবার কোনো কোনো জেলী পায়ুর ভালো ব্যাকটেরিয়ার পুরো বসতিই জ্বালিয়ে দেয়। ফলে খারাপ ব্যাকটেরিয়া আসার সুযোগ পায়। [৭০]

ব্যক্তির পায়ুতে অসুরক্ষিত পায়ু সঙ্গমের ফলে তার উক্ত স্থানে বীর্যপ্রতিরোধী এন্টিবডি (বীএডি) গড়ে উঠতে পারে। কিছু কিছু ব্যক্তিতে এর ফলে অটোইমিউন অনুর্বরতা গড়ে উঠতে পারে।[৭১] বীএডি নিষেকে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করে, ইমপ্ল্যান্টেশনে নেতিবাচক প্রভাব ফেলে এবং ভ্রুণের ক্রমবিকাশে নানা বিপত্তির সৃষ্টি করে।[৭১][৭২]

শারীরিক ক্ষতি এবং ক্যান্সার

পায়ুসঙ্গমের ফলে পায়ুপথের শিরা-উপশিরা ছিড়ে যেতে পারে এবং ফলশ্রুতিতে রক্তপাত হতে পারে; এছাড়াও, পায়ুসঙ্গম অর্শ্বরোগের সম্ভাবনা বাড়িয়ে তোলে।[৩][৭৩] পায়ু সঙ্গমের ফলে পায়ু-কলা বা রেক্টাল টিস্যু ছিঁড়ে (পায়ু বিদার/ইংরেজি: anal fissure) যাওয়া অথবা বৃহদান্ত্রে ছিদ্রের জন্য যদি রক্তপাত হয়, তবে তাৎক্ষণিকভাবে চিকিৎসা নিলে সমস্যার প্রশমন হয়।[৩][৭৩] মলদ্বারে নমনীয়তা বা সংকোচন-প্রসারণ ক্ষমতার অভাব, পায়ুর শ্লেষ্মা ঝিল্লী পাতলা হওয়া এবং মিউকাস পর্দার ঠিক নিচেই ছোট ছোট রক্তনালিকা অবস্থান করার কারণে, অন্তর্ভেদী পায়ুসঙ্গমে সাধারণত মলদ্বারের চামড়া ছিঁড়ে যায় এবং রক্তপাত হয়, যদিও এই রক্তপাত সাধারণত ছোট আকারে হওয়ার ফলে তা বাহির থেকে দেখা যায় না।[১৬]

অন্যান্য পায়ু সঙ্গমের নেতিবাচক ফলাফলের তুলনায় পায়ু বিদারের দরুণ বেশি ক্ষতি হয়৷ পায়ু এবং রেক্টাল টিস্যুকে (মলাশয়স্থ কলা) ইচ্ছাকৃতভাবে প্রসারণের ফলে পায়ুর রন্ধ্রনিয়ন্ত্রক পেশি (স্ফিংটার পেশি) এবং সিগমান্ত্রতে (ইংরেজি: sigmoid colon) ছিদ্র হলে তার দরুণ এমনকি মৃত্যুও হতে পারে।[৫][৭৪]

পায়ুতে অবস্থিত রন্ধ্রনিয়ন্ত্রক পেশি বা স্ফিংক্টার পেশির অন্যতম কাজ হলো, মলত্যাগকে নিয়ন্ত্রণ করা। যদি পায়ুতে পুনঃপুন সঙ্গম করা হয়, তবে রন্ধ্রনিয়ন্ত্রক পেশি দুর্বল হয়ে যেতে পারে। এতে করে ব্যক্তির মলত্যাগের উপর নিয়ন্ত্রণ থাকে না৷ এরফলে হারিশ (rectal prolapse) হতে পারে।[৩][৭৩] হারিশ বিশেষ করে পুরুষে হতে সচরাচর দেখা যায় না এবং এর কারণ সম্বন্ধে সম্পুর্ণভাবে জানাও সম্ভবপর হয় নি।[৭৫][৭৬] পায়ুর রন্ধ্রনিয়ন্ত্রক পেশী এবং পেলভিক ফ্লোরকে সুদৃঢ় করতে কেগেল ব্যায়াম করা যায়, যার ফলে মলত্যাগে নিয়ন্ত্রণ হারানোর মত বিষয়টিকে প্রতিরোধ করা যায় অথবা এ জটিলতার সৃষ্টি হলে এব্যায়াম প্রতিকার হিসেবে সাহায্য করতে পারে।[৩][৭৭]

পায়ু কর্কটের (এনাল ক্যান্সার) বেশিরভাগ কারণগুলোই হয় মানব পিড়কার্বুদ ভাইরাসের (হিউম্যান প্যাপিলোমা ভাইরাস) কারণে। পায়ু সঙ্গম করলেই যে পায়ু কর্কট হবে তা নয়, যদি কোনো প্রকার সুরক্ষা না নিয়ে (সঙ্গম করার সময়, পর্যাপ্ত প্রতিরক্ষা না নিলে) পায়ু সঙ্গম করা হয়, তবে হিউম্যান প্যাপিলোমা ভাইরাসের সংক্রমণের ঝুঁকি বেড়ে যায়।[৫৩] বৃহদান্ত্র এবং মলাশয় ক্যান্সারের তুলনায় পায়ুতে ক্যান্সার আক্রান্ত হবার ঝুঁকি তুলনামূলকভাবে কম। আমেরিকান ক্যান্সার সোসাইটি বিবৃতিতে বলেছে, প্রায় ৭০৬০ জন ব্যক্তি (৪৪৩০ জন নারী এবং ২৬৩০ জন পুরুষ) এরোগে আক্রান্ত হয় যাদের মধ্যে ৮৩০ জন ব্যক্তি (৫৫০ জন নারী এবং ৩৩০ জন পুরুষ) মারা যায় এবং যদিও এনাল ক্যান্সারে আক্রান্তের সংখ্যা ক্রমাগত বাড়ছে, তবে এটি ষাট বছর বয়সী এবং প্রাপ্তবয়স্ক মানুষদের ক্ষেত্রেই বেশি শনাক্ত করা যায় এবং প্রায়সই দেখা যায়, নারীরা এক্যান্সারে বেশি আক্রান্ত হয়।[৫৩] যদিও পায়ু কর্কট খুবই গুরুতর একটি সমস্যা কিন্তু চিকিৎসা করলে এটি থেকে সম্পূর্ণ আরোগ্য হওয়া যায়; আমেরিকান ক্যান্সার সোসাইটি মনে করে, "পুনঃপুনঃ পায়ু সঙ্গম করলে নারী এবং পুরুষ উভয়তেই পায়ু কর্কট হওয়ার ঝুঁকি বেশি থাকে। বিশেষ করে যাদের বয়স ৩০ এর কম, তাদের ক্ষেত্রে এ ঝুঁকি বেশি। এইসব কারনেই বলা যায়, যেসব পুরুষ অন্য পুরুষের সাথে পায়ুসঙ্গম করে তাদের পায়ুকর্কট হবার সম্ভাবনা উচ্চহারে থাকে।"[৫৩]

সাংস্কৃতিক অভিমত

সাধারণ

মানব ইতিহাসে বিভিন্ন সংস্কৃতিতে পায়ুসঙ্গমের বিভিন্ন দৃষ্টিভঙ্গি প্রচলিত রয়েছে। ঐতিহাসিকভাবে, পায়ুসঙ্গম নিষিদ্ধ বা গর্হিত হিসেবে বিবেচিত, বিশেষত ধর্মীয় বিশ্বাসের ভিত্তিতে, পাশাপাশি একে বলপ্রয়োগের একটি ধরন হিসেবেও ব্যবহার করা হয়, যেখানে সাধারণত সক্রিয় সঙ্গী পুরুষত্বের প্রতিনিধি এবং কর্মসঙ্গী নারীত্বের প্রতিনিধি হিসেবে গণ্য হয়। কিছু সংস্কৃতিতে পুরুষদের মধ্যে পায়ুসঙ্গমের চর্চাকে বিশেষভাবে সনাক্ত করা হয়, এবং একে বিশেষভাবে নিন্দা করা হয় ও শাস্তি দেওয়া হয়। কিছু সমাজে, এ কর্মে জড়িত ব্যক্তিদের বিভিন্নভাবে মৃত্যুদন্ড দেওয়া হয়, যেমন শিরচ্ছেদ, জীবন্ত দাহ বা অঙ্গহানিকরণ। আধুনিক যুগে পায়ুসঙ্গমের গ্রহণযোগ্যতা বেড়েছে, এবং প্রায়শই একে আনন্দতুষ্টির সহজ-স্বাভাবিক মাধ্যম হিসেবে বিবেচনা করা হচ্ছে। বর্তমানে, কিছু মানুষ, বিশেষত পুরুষ, যৌনতুষ্টির জন্য শুধুমাত্র পায়ুসঙ্গমেই আগ্রহী, যার অন্যতম কারণ হিসেবে বলা হয় যে, আধুনিক সময়ে পর্নোগ্রাফিসহ বিভিন্ন মাধ্যমে নিতম্ব ও পায়ুকে অধিক যৌনরসাত্মক হিসেবে দেখানো হচ্ছে। পাশাপাশি, আধুনিক সময়ে কিছু সমাজব্যবস্থায় পায়ুসঙ্গম শাস্তিযোগ্য অপরাধ হিসেবে প্রচলিত আছে। উদাহরণস্বরূপ, ইরানের প্যানাল কোডের ১০৩ ধারায় বলা আছে, "সমলিঙ্গ পায়ুসঙ্গম বা অন্য সকল সঙ্গমের জন্য সংশ্লিষ্ট উভয় পুরুষ দন্ডিত হবে।" এবং ১০৩ ধারায বলা আছে, "পায়ুসঙ্গমে জড়িত আসামীগণ মৃত্যুদন্ডে দন্ডিত হবে এবং মৃত্যুদন্ডাদেশের বিবেচনার বিষয় বিচারকের এখতিয়ারে থাকবে।"[৭৮][৭৯]

ধর্ম

কেবলমাত্র ইসলাম আর খ্রিস্টীয় ধর্ম বাদে অন্য কোনো ধর্মে পায়ুকামের ক্ষেত্রে সরাসরি কোনো নিষেধাজ্ঞা নেই।

খ্রিষ্টান ধর্ম

খ্রিষ্টান ধর্মের বিশ্বাস অনুযায়ী পায়ুকাম একটি প্রকৃতিবিরোধী কর্ম এবং আইন অনুযায়ী পুরুষ পায়ুকাম বা স্ত্রীর গুহ্যদ্বারে পুংলিঙ্গ প্রবেশ করানো শাস্তিযোগ্য অপরাধ, যার মাধ্যমে পুরুষটিকে একঘরে রাখা হয়। তাছাড়া পরকালে কোনো ক্ষমা নেই।[৮০]

ইসলাম

ইসলামী বিধান অনুযায়ী মানবদেহে পায়ুতে লিঙ্গ প্রবেশ হারাম বা নিষিদ্ধ।[৮১] নিজ স্ত্রীর সঙ্গেও পায়ূমৈথুন হারাম।[৮২][৮৩] কোন পুরুষ তার স্ত্রীকে পায়ুসঙ্গমের প্রস্তাব স্ত্রীর কর্তব্য হল তা বাধা দেয়া, এবং স্বামী যদি জোর করে তবে স্ত্রী চাইলে বিবাহবিচ্ছেদের আবেদন করতে পারে।[৮৪] স্বামী স্ত্রীর পায়ুসঙ্গমে বিবাহ বাতিল না হলেও স্ত্রী যদি চায় এ অভিযোগে তালাকের আবেদন করতে পারবে।[৮৫] ইসলামী বিধান অনুসারে, পায়ুসঙ্গম কবিরা গুনাহ বা সর্বোচ্চ পাপসমূহের মধ্যে অন্তর্ভুক্ত। বর্তমানে, কিছু মুসলিম দেশে পায়ুমৈথুন বা সডোমি মৃত্যুদণ্ড-যোগ্য অপরাধ, যাদের অন্যতম হল সৌদি আরব, ইয়েমেন ও নাইজেরিয়ার শরিয়া আদালত।[৮৬]

হিন্দু ধর্ম

সাধারণত হিন্দু ধর্মে পায়ুকামের বিরুদ্ধে কোনো উল্লেখ পাওয়া যায়না, এটাকে সরাসরিভাবে নিষিদ্ধও করা হয়নি আবার পক্ষেও কথা বলা হয়নি। হিন্দু সমাজে এই পায়ুকাম সবসময়ই একটা নিষিদ্ধ বিষয় বা ট্যাবু ছিলো। তবে প্রাচীন ভারতে অনেক মূর্তিতে পায়ুকামের চিত্রন করা হয়েছে।[৮৭][৮৮]

ইহুদী ধর্ম

ইহুদী ধর্মে বলা আছে যে, একজন পুরুষ তার স্ত্রীর সাথে যেভাবে ইচ্ছা সেভাবে সঙ্গম করতে পারবে। এই ধর্মে স্ত্রীর সঙ্গে পায়ুকামে লিপ্ত হওয়া যাবেনা এই ধরনের কোনো কথার উল্লেখই নেই।[৮৯]

বৌদ্ধ ধর্ম

বৌদ্ধ ধর্মেও পায়ুকামের ক্ষেত্রে কিছু বলা হয়নি।[৯০]

তথ্যসূত্র

  1. Wayne Weiten; Margaret A. Lloyd; Dana S. Dunn; Elizabeth Yost Hammer (২০১৬)। Psychology Applied to Modern Life: Adjustment in the 21st centuryCengage Learning। পৃষ্ঠা 349। আইএসবিএন 1305968476। সংগ্রহের তারিখ মার্চ ১১, ২০১৭Anal intercourse involves insertion of the penis into a partner's anus and rectum. 
  2. See pages 270–271 for anal sex information, and page 118 for information about the clitoris. Janell L. Carroll (২০০৯)। Sexuality Now: Embracing DiversityCengage Learning। পৃষ্ঠা 629 pages। আইএসবিএন 978-0-495-60274-3। সংগ্রহের তারিখ ডিসেম্বর ১৯, ২০১০ 
  3. "Anal Sex Safety and Health Concerns"WebMD। সংগ্রহের তারিখ আগস্ট ১৯, ২০১৩Often referred to simply as anal sex, anal intercourse is sexual activity that involves inserting the penis into the anus. 
  4. Barry R. Komisaruk; Beverly Whipple; Sara Nasserzadeh; Carlos Beyer-Flores (২০০৯)। The Orgasm Answer GuideJHU Press। পৃষ্ঠা 108–109। আইএসবিএন 978-0-8018-9396-4। সংগ্রহের তারিখ নভেম্বর ৬, ২০১১ 
  5. Vern LeRoy Bullough; Bonnie Bullough (১৯৯৪)। Human Sexuality: An EncyclopediaTaylor & Francis। পৃষ্ঠা 27–28। আইএসবিএন 0824079728। সংগ্রহের তারিখ জুলাই ৫, ২০১৩ 
  6. Kimberly R. McBrideab; J. Dennis Fortenberry (মার্চ ২০১০)। "Heterosexual anal sexuality and anal sex behaviors: a review"Journal of Sex Research47 (2–3): 123–136। doi:10.1080/00224490903402538PMID 20358456 
  7. "Anal Sex, defined"Discovery.com। জুন ১৩, ২০০২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ জুলাই ২৩, ২০১৩ 
  8. "Not all gay men have anal sex"। Go Ask Alice!। জুন ১৩, ২০০৮। সংগ্রহের তারিখ এপ্রিল ২৬, ২০১০ 
  9. Kaye Wellings; Kirstin Mitchell; Martine Collumbien (২০১২)। Sexual Health: A Public Health PerspectiveMcGraw-Hill International। পৃষ্ঠা 91। আইএসবিএন 0335244815। সংগ্রহের তারিখ আগস্ট ২৯, ২০১৩ 
  10. Felice Newman (২০০৪)। The Whole Lesbian Sex Book: A Passionate Guide For All Of Us। Cleis Press। পৃষ্ঠা 205–224। আইএসবিএন 978-1-57344-199-5। সংগ্রহের তারিখ নভেম্বর ৬, ২০১১ 
  11. Rosenthal, Martha (২০১২)। Human Sexuality: From Cells to SocietyCengage Learning। পৃষ্ঠা 133–135। আইএসবিএন 978-0-618-75571-4। সংগ্রহের তারিখ সেপ্টেম্বর ১৭, ২০১২ 
  12. "Pain from anal sex, and how to prevent it"। Go Ask Alice!। জুন ২৬, ২০০৯। সংগ্রহের তারিখ এপ্রিল ৭, ২০১১ 
  13. Joel J. Heidelbaugh (২০০৭)। Clinical men's health: evidence in practiceElsevier Health Sciences। পৃষ্ঠা 273। আইএসবিএন 978-1-4160-3000-3। সংগ্রহের তারিখ অক্টোবর ১৪, ২০১১ 
  14. Robert I Krasner (২০১০)। The Microbial Challenge: Science, Disease and Public HealthJones & Bartlett Publishers। পৃষ্ঠা 416–417। আইএসবিএন 0763797359। সংগ্রহের তারিখ আগস্ট ২৮, ২০১৩  উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ অবৈধ; আলাদা বিষয়বস্তুর সঙ্গে "Krasner" নাম একাধিক বার সংজ্ঞায়িত করা হয়েছে
  15. Dianne Hales (২০০৮)। An Invitation to Health Brief 2010-2011Cengage Learning। পৃষ্ঠা 269–271। আইএসবিএন 0495391921। সংগ্রহের তারিখ আগস্ট ২৯, ২০১৩  উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ অবৈধ; আলাদা বিষয়বস্তুর সঙ্গে "Hales" নাম একাধিক বার সংজ্ঞায়িত করা হয়েছে
  16. Werner W. K. Hoeger; Sharon A. Hoeger (২০১০)। Lifetime Fitness and Wellness: A Personalized ProgramCengage Learning। পৃষ্ঠা 455। আইএসবিএন 1133008585। সংগ্রহের তারিখ আগস্ট ২৮, ২০১৩  উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ অবৈধ; আলাদা বিষয়বস্তুর সঙ্গে "Werner" নাম একাধিক বার সংজ্ঞায়িত করা হয়েছে
  17. World Health Organization, Department of Reproductive Health and Research Global strategy for the prevention and control of sexually transmitted infections: 2006–2015. Breaking the chain of transmission, 2007, আইএসবিএন ৯৭৮-৯২-৪-১৫৬৩৪৭-৫ উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ অবৈধ; আলাদা বিষয়বস্তুর সঙ্গে "Who" নাম একাধিক বার সংজ্ঞায়িত করা হয়েছে
  18. উদ্ধৃতি ত্রুটি: অবৈধ <ref> ট্যাগ; Taormino নামের সূত্রের জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  19. উদ্ধৃতি ত্রুটি: অবৈধ <ref> ট্যাগ; Understanding নামের সূত্রের জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  20. Adrian Howe (২০০৮)। Sex, Violence and Crime: Foucault and the 'Man' QuestionRoutledge। পৃষ্ঠা 35। আইএসবিএন 0203891279। সংগ্রহের তারিখ জুলাই ১৬, ২০১৩ 
  21. Sandra Alters; Wendy Schiff (২০১২)। Essential Concepts for Healthy LivingJones & Bartlett Publishers। পৃষ্ঠা 144। আইএসবিএন 1449630626। সংগ্রহের তারিখ জুলাই ১৬, ২০১৩ 
  22. উদ্ধৃতি ত্রুটি: অবৈধ <ref> ট্যাগ; Crooks নামের সূত্রের জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  23. SIECUS Prevalence of Unprotected Anal Sex among Teens Requires New Education Strategies[১] Accessed January 26, 2010
  24. See here and pages 48–49 for the majority of researchers and heterosexuals defining virginity loss/"technical virginity" by whether or not a person has engaged in vaginal sex. Laura M. Carpenter (২০০৫)। Virginity lost: an intimate portrait of first sexual experiencesNYU Press। পৃষ্ঠা 295 pages। আইএসবিএন 978-0-8147-1652-6। সংগ্রহের তারিখ অক্টোবর ৯, ২০১১ 
  25. Bryan Strong; Christine DeVault; Theodore F. Cohen (২০১০)। The Marriage and Family Experience: Intimate Relationship in a Changing SocietyCengage Learning। পৃষ্ঠা 186। আইএসবিএন 0-534-62425-1। সংগ্রহের তারিখ অক্টোবর ৮, ২০১১Most people agree that we maintain virginity as long as we refrain from sexual (vaginal) intercourse. But occasionally we hear people speak of 'technical virginity' [...] Data indicate that 'a very significant proportion of teens ha[ve] had experience with oral sex, even if they haven't had sexual intercourse, and may think of themselves as virgins' [...] Other research, especially research looking into virginity loss, reports that 35% of virgins, defined as people who have never engaged in vaginal intercourse, have nonetheless engaged in one or more other forms of heterosexual sexual activity (e.g., oral sex, anal sex, or mutual masturbation). 
  26. Jayson, Sharon (অক্টোবর ১৯, ২০০৫)। "'Technical virginity' becomes part of teens' equation"USA Today। সংগ্রহের তারিখ আগস্ট ৭, ২০০৯ 
  27. Ken Plummer (২০০২)। Modern Homosexualities: Fragments of Lesbian and Gay ExperiencesRoutledge। পৃষ্ঠা 187–191। আইএসবিএন 1134922426। সংগ্রহের তারিখ আগস্ট ২৪, ২০১৩The social construction of 'sex' as vaginal intercourse affects how other forms of sexual activity are evaluated as sexually satisfying or arousing; in some cases whether an activity is seen as a sexual act at all. For example, unless a woman has been penetrated by a man's penis she is still technically a virgin even if she has had lots of sexual experience. 
  28. Hardin L.K. Coleman, Christine Yeh (২০১১)। Handbook of School CounselingRoutledge। পৃষ্ঠা 247। আইএসবিএন 1135283591। সংগ্রহের তারিখ ডিসেম্বর ১০, ২০১৬ 
  29. Janell L. Carroll (২০১২)। Discovery Series: Human Sexuality (1st সংস্করণ)। Cengage Learning। পৃষ্ঠা 285–286। আইএসবিএন 1111841896। সংগ্রহের তারিখ ডিসেম্বর ১০, ২০১৬ 
  30. National Survey of Sexual Health and Behavior (NSSHB). Findings from the National Survey of Sexual Health and Behavior, Center for Sexual Health Promotion, Indiana University. The Journal of Sexual Medicine, Vol. 7, Supplement 5. 2010.
  31. Edwin Clark Johnson; Toby Johnson (২০০৮)। Gay Perspective: Things Our Homosexuality Tells Us about the Nature of God & the UniverseLethe Press। পৃষ্ঠা 139। আইএসবিএন 978-1-59021-015-4। সংগ্রহের তারিখ ফেব্রুয়ারি ১২, ২০১১ 
  32. Goldstone, Stephen E.; Welton, Mark L. (২০০৪)। "Sexually Transmitted Diseases of the Colon, Rectum, and Anus"Clin Colon Rectal Surg17 (4): 235–239। doi:10.1055/s-2004-836944PMID 20011265পিএমসি 2780055অবাধে প্রবেশযোগ্য 
  33. Steven Gregory Underwood (২০০৩)। Gay Men and Anal Eroticism: Tops, Bottoms, and VersatilesHarrington Park Press। পৃষ্ঠা 4–225। আইএসবিএন 978-1-56023-375-6। সংগ্রহের তারিখ ফেব্রুয়ারি ১২, ২০১১ 
  34. [২] Role versatility among men who have sex with men in urban Peru. In: The Journal of Sex Research, August 2007
  35. উদ্ধৃতি ত্রুটি: অবৈধ <ref> ট্যাগ; dailyuw.com নামের সূত্রের জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  36. Raymond A. Smith (১৯৯৮)। Encyclopedia of AIDS: A Social, Political, Cultural and Scientific Record of the HIV EpidemicTaylor & Francis। পৃষ্ঠা 73–76। আইএসবিএন 0203305493। সংগ্রহের তারিখ ডিসেম্বর ২৩, ২০১৩ 
  37. "The New Sex Police"The Advocate। এপ্রিল ১২, ২০০৫। পৃষ্ঠা 39–40, 42। সংগ্রহের তারিখ ফেব্রুয়ারি ১২, ২০১১ 
  38. John H. Harvey; Amy Wenzel; Susan Sprecher (২০০৪)। The handbook of sexuality in close relationshipsRoutledge। পৃষ্ঠা 355–356। আইএসবিএন 0805845488। সংগ্রহের তারিখ ২০১১-০৩-১২ 
  39. Odets, Walt (১৯৯৫)। In the Shadow of the Epidemic: Being Hiv-negative in the Age of AIDSDuke University Press। পৃষ্ঠা 191–192। আইএসবিএন 0822316382। সংগ্রহের তারিখ জুলাই ৬, ২০১৩ 
  40. Joseph Gross, Michael (২০০৩)। Like a VirginThe Advocate। Here Publishing। পৃষ্ঠা 44–45। 0001-8996। সংগ্রহের তারিখ মার্চ ১২, ২০১১ 
  41. Dolby, Tom (ফেব্রুয়ারি ২০০৪)। "Why Some Gay Men Don't Go All The Way"Out। পৃষ্ঠা 76–77। সংগ্রহের তারিখ ফেব্রুয়ারি ১২, ২০১১ 
  42. Brian Dodge; ও অন্যান্য (২০১৬)। "Sexual Behaviors of U.S. Men by Self-Identified Sexual Orientation: Results From the 2012 National Survey of Sexual Health and Behavior"। J Sex Med13: 37e649। doi:10.1016/j.jsxm.2016.01.015 
  43. Linda Brannon (২০১৫)। Gender: Psychological Perspectives, Sixth EditionPsychology Press। পৃষ্ঠা 484। আইএসবিএন 1317348133। সংগ্রহের তারিখ ডিসেম্বর ১০, ২০১৬ 
  44. উদ্ধৃতি ত্রুটি: অবৈধ <ref> ট্যাগ; Zdrok নামের সূত্রের জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  45. Keesling, Barbara (২০০৫)। Sexual Pleasure: Reaching New Heights of Sexual Arousal and IntimacyHunter House। পৃষ্ঠা 221। আইএসবিএন 9780897934350। সংগ্রহের তারিখ জুলাই ৬, ২০১৩ 
  46. Bell, Robin (ফেব্রুয়ারি ১৯৯৯)। "ABC of sexual health: Homosexual men and women"BMJNational Institutes of Health/BMJ318 (7181): 452–5। doi:10.1136/bmj.318.7181.452PMID 9974466পিএমসি 1114912অবাধে প্রবেশযোগ্য 
  47. Janell L. Carroll (২০১২)। Discovery Series: Human Sexuality (1st সংস্করণ)। Cengage Learning। পৃষ্ঠা 285। আইএসবিএন 1111841896। সংগ্রহের তারিখ আগস্ট ২৫, ২০১৩ 
  48. JoAnn Loulan (১৯৮৪)। Lesbian Sex। The University of California। পৃষ্ঠা 53। আইএসবিএন 0-933216-13-0। সংগ্রহের তারিখ ফেব্রুয়ারি ৩, ২০১১ 
  49. Cohen, Jacqueline N.; Byers, E. Sandra (২০১৪)। "Beyond Lesbian Bed Death: Enhancing Our Understanding of the Sexuality of Sexual-Minority Women in Relationships"। Journal of Sex Research51 (8): 893–903। doi:10.1080/00224499.2013.795924আইএসএসএন 0022-4499 
  50. Partridge, Eric; Dalzell, Tom; Victor, Terry (২০০৬)। The New Partridge Dictionary of Slang and Unconventional English: A-I (reprint সংস্করণ)। Taylor & Francis। পৃষ্ঠা 92। আইএসবিএন 978-0-415-25937-8Bareback – to engage in sex without a condom. 
  51. উদ্ধৃতি ত্রুটি: অবৈধ <ref> ট্যাগ; lubrication নামের সূত্রের জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  52. Donna D. Ignatavicius; M. Linda Workman (২০১৩)। Medical-Surgical Nursing: Patient-Centered Collaborative CareElsevier Health Sciences। পৃষ্ঠা 1655। আইএসবিএন 0323293441। সংগ্রহের তারিখ এপ্রিল ৩০, ২০১৫ 
  53. Reller, Megan E.; Olsen, Sonja J.; Kressel, Amy B.; Moon, Troy D.; Kubota, Kristy A.; Adcock, Kristy A.; Nowicki, Scott F.; Mintz, Eric D. (২০০৩)। "Sexual Transmission of Typhoid Fever: A Multistate Outbreak among Men Who Have Sex with Men"। Clinical Infectious Diseases37 (1): 141–4। doi:10.1086/375590 
  54. Pauk J, Huang ML, Brodie SJ; ও অন্যান্য (নভেম্বর ২০০০)। "Mucosal shedding of human herpesvirus 8 in men"। N. Engl. J. Med.343 (19): 1369–77। doi:10.1056/NEJM200011093431904PMID 11070101 
  55. Weiss, Margaret D.; Wasdell, Michael B.; Bomben, Melissa M.; Rea, Kathleen J.; Freeman, Roger D.; Xue, H; Yang, H; Zhang, G; Shao, C (ফেব্রুয়ারি ২০০৬)। "High Prevalence of Sexually Transmitted Diseases Among Men Who Have Sex With Men in Jiangsu Province, China"Sex Transm Dis33 (2): 118–123। doi:10.1097/01.olq.0000199763.14766.2bPMID 16432484 
  56. Kumar, Bhushan; Gupta, Somesh (২০১৪)। Sexually Transmitted InfectionsElsevier Health Sciences। পৃষ্ঠা 123। আইএসবিএন 8131229785। সংগ্রহের তারিখ ডিসেম্বর ১৫, ২০১৬ 
  57. Katharine O'Connell White (২০১০)। Talking Sex With Your Kids: Keeping Them Safe and You Sane - By Knowing What They're Really ThinkingAdams Media। পৃষ্ঠা 85–86। আইএসবিএন 1440506841। সংগ্রহের তারিখ মে ১, ২০১৫ 
  58. Twila Pearson (২০১২)। The Challenging Years: Shedding Light on Teen SexualityWestBow Press। পৃষ্ঠা 63। আইএসবিএন 1449773281। সংগ্রহের তারিখ ডিসেম্বর ১৫, ২০১৬ 
  59. Thomas, R. Murray (২০০৯)। Sex and the American Teenager: Seeing through the Myths and Confronting the Issues। Lanham, Md.: Rowman & Littlefield Education। পৃষ্ঠা 81। আইএসবিএন 9781607090182। সংগ্রহের তারিখ মে ২১, ২০১৪ 
  60. Edlin, Gordon (২০১২)। Health & Wellness.Jones & Bartlett Learning। পৃষ্ঠা 213। আইএসবিএন 9781449636470। সংগ্রহের তারিখ মে ২১, ২০১৪ 
  61. Handbook of affirmative psychotherapy with lesbians and gay men By Kathleen Ritter, Anthony I. Terndrup; p350
  62. Dianne Hales (২০১৪)। An Invitation to HealthCengage Learning। পৃষ্ঠা 363। আইএসবিএন 1305142969। সংগ্রহের তারিখ মে ১, ২০১৫ 
  63. Leichliter, Jami S (২০০৮)। "Heterosexual Anal Sex: Part of an Expanding Sexual Repertoire?"Archives of Sexual Behavior35 (11): 910–911। doi:10.1097/olq.0b013e31818af12f 
  64. M. Sara Rosenthal (২০০৩)। The Gynecological SourcebookMcGraw Hill Professional। পৃষ্ঠা 153। আইএসবিএন 0071402799। সংগ্রহের তারিখ আগস্ট ২৮, ২০১৩ 
  65. Deborah Dortzbach, W. Meredith Long (২০০৬)। The AIDS Crisis: What We Can DoInterVarsity Press। পৃষ্ঠা 97। আইএসবিএন 0830833722। সংগ্রহের তারিখ আগস্ট ২৮, ২০১৩ 
  66. Nikol Hasler (২০১৫)। An Uncensored IntroductionHoughton Mifflin Harcourt। পৃষ্ঠা 91। আইএসবিএন 1936976846। সংগ্রহের তারিখ মে ১, ২০১৫ 
  67. "Use of lubricants with anal sex could increase risk of HIV"ScienceDaily (ইংরেজি ভাষায়)। 
  68. https://www.ncbi.nlm.nih.gov/pmc/articles/PMC3244680/  |শিরোনাম= অনুপস্থিত বা খালি (সাহায্য)
  69. Russo J et al. (presenter Dezzutti C) Safety and anti-HIV activity of over-the-counter lubricant gels. 2010 International Microbicides Conference, Pittsburgh, abstract 347, 2010.
  70. Rao, Kamini (২০১৩-০৯-৩০)। Principles & Practice of Assisted Reproductive Technology (3 Vols) (ইংরেজি ভাষায়)। JP Medical Ltd। পৃষ্ঠা 311। আইএসবিএন 9789350907368 
  71. Restrepo, B.; Cardona-Maya, W. (অক্টোবর ২০১৩)। "Antisperm antibodies and fertility association"। Actas Urologicas Espanolas37 (9): 571–578। doi:10.1016/j.acuro.2012.11.003PMID 23428233আইএসএসএন 1699-7980 
  72. Janet R. Weber, Jane H. Kelley (২০১৩)। Health Assessment in NursingLippincott Williams & Wilkins। পৃষ্ঠা 588। আইএসবিএন 1469832224। সংগ্রহের তারিখ মে ১, ২০১৫ 
  73. John J. Miletich; Tia Laura Lindstrom (২০১০)। An Introduction to the Work of a Medical Examiner: From Death Scene to Autopsy SuiteABC-CLIO। পৃষ্ঠা 29। আইএসবিএন 0275995089। সংগ্রহের তারিখ সেপ্টেম্বর ১৫, ২০১৪ 
  74. Donato F. Altomare; Filippo Pucciani (২০০৮)। Rectal Prolapse: Diagnosis and Clinical ManagementSpringer Science & Business Media। পৃষ্ঠা 12–14। আইএসবিএন 8847006848। সংগ্রহের তারিখ মে ১, ২০১৫ 
  75. Mark D. Walters; Mickey M. Karram (২০১৫)। Urogynecology and Reconstructive Pelvic SurgeryElsevier Health Sciences। পৃষ্ঠা 501। আইএসবিএন 0323262570। সংগ্রহের তারিখ মে ১, ২০১৫ 
  76. Hagen S, Stark D (২০১১)। "Conservative prevention and management of pelvic organ prolapse in women"। Cochrane Database Syst Rev12 (12): CD003882। doi:10.1002/14651858.CD003882.pub4PMID 22161382 
  77. Steven Seidman; Nancy Fischer; Chet Meeks (২০১১)। Introducing the New Sexuality Studies (2nd সংস্করণ)। Routledge। পৃষ্ঠা 108–112। আইএসবিএন 1136818103। সংগ্রহের তারিখ ডিসেম্বর ২২, ২০১৩ 
  78. Jeffrey S. Nevid (২০০৮)। Psychology: Concepts and ApplicationsCengage Learning। পৃষ্ঠা 417। আইএসবিএন 0547148143। সংগ্রহের তারিখ ডিসেম্বর ২২, ২০১৩Some cultures are more permissive with respect to such sexual practices as oral sex, anal sex, and masturbation, whereas others are more restrictive. 
  79. "Is Anal Sex A Sin?"biblereasons.com 
  80. "When Husband Insists on Anal Sex with His Wife - IslamonLine.net - Ask The Scholar"। ১৫ ফেব্রুয়ারি ২০০৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ 
  81. "When Husband Insists on Anal Sex with His Wife - IslamonLine.net - Ask The Scholar"। ১৫ ফেব্রুয়ারি ২০০৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ 
  82. "Anal Sex with the Wife: Does It Nullify Marriage? - IslamonLine.net - Ask The Scholar"। ১৫ ফেব্রুয়ারি ২০০৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ 
  83. "When Husband Insists on Anal Sex with His Wife - IslamonLine.net - Ask The Scholar"। ১৫ ফেব্রুয়ারি ২০০৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ 
  84. "Anal Sex with the Wife: Does It Nullify Marriage? - IslamonLine.net - Ask The Scholar"। ১৫ ফেব্রুয়ারি ২০০৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ 
  85. Omar, Sara। "The Oxford Encyclopedia of Islam and Law"। Oxford Islamic Studies Online। সংগ্রহের তারিখ ৩ মে ২০১৩ 
  86. https://www.gaystarnews.com/article/this-is-how-hinduism-lgbti-people-are-celebrating-diwali-this-year/#gs.IWR6KzU
  87. https://www.dailyo.in/lifestyle/dharmashastra-manusmriti-karma-devdutt-pattanaik-mythology-hindu-epics/story/1/14814.html
  88. Maimonides, Moshe। Mishneh Torah। পৃষ্ঠা Laws Concerning Forbidden Relations 21:9। 
  89. Higgins, Winton। "Buddhist Sexual Ethics"। BuddhaNet Magazine। জানুয়ারি ২১, ২০০৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ জানুয়ারি ১৫, ২০০৭ 

আরও পড়ুন

বহিঃসংযোগ