যোনিলেহন

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
Jump to navigation Jump to search
একজন নারীর যোনি লেহন করছেন একজন পুরুষ, ফরাসী চিত্রকর এদুয়ার্দ অঁরি অভ্রিল কর্তৃক অঙ্কিত

যোনিলেহন বা যোনিচোষন হচ্ছে একপ্রকারের মুখমৈথুন কর্ম যেখানে একজন মানুষ (নারী/পুরুষ) অপর একটি নারীর জননেন্দ্রিয়তে করেন (ভগাঙ্কুরে, যোনির অন্যান্য অংশে)।[১][২] ভগাঙ্কুর হচ্ছে নারীদের যোনির সবচেয়ে সংবেদনশীল অংশ এবং এটিতে স্পর্শ বা আদর করলে নারীদের অনেক যৌনসুখ ওঠে।[৩][৪][৫]

যোনিলেহন যৌনকর্মে অংশ নেওয়া মানুষের মধ্যে অনেক যৌনআনন্দময় হয় এবং এটি একজন যৌনসঙ্গীর দ্বারা মূল যৌনমিলন (অন্তর্ভেদী মিলন) করার আগে একটি শৃঙ্গারকর্ম হিসেবে ব্যবহারিত হতে পারে অথবা এমনিতেই শুধু নারী সঙ্গীর প্রতি ভালোবাসার প্রকাশ হিসেবে হতে পারে।[১][১][২][৬] অন্যান্য যৌনকর্মের মত, মুখমৈথুন এর মাধ্যমে 'যৌনবাহিত রোগ' ছড়ায়। যদিও মুখমৈথুন এর মাধ্যমে এইচআইভি হওয়ার সম্ভাবনা খুবই কম, যেখানে যোনিজমিলন কিংবা পায়ুকামের ক্ষেত্রে ঝুঁকি বেশী।[৭][৮][৯]

মুখমৈথুনকে মাঝে মধ্যেই একটি 'সরাসরি বলা যায়না এমন কথা' হিসেবে ধরা হয়,[১] কিন্তু অধিকাংশ দেশেই এমন কোনো আইন নেই যেটা এইকাজ করতে মানা করে। সাধারণত বিষমকামী যুগলরা যোনিলেহনকে কুমারীত্বের ক্ষতি হিসেবে দেখেননা, অন্যদিকে সমকামিনী যুগলরা এটাকে একপ্রকারের কুমারীত্ব মোচন হিসেবে দেখেন।[১০][১১][১২][১৩] কিছু কিছু মানুষের যোনিলেহনের প্রতি নেতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গি থাকতে পারে কিংবা যোনিলেহন দেওয়ার পরে একজন নারীর ভালো নাও লাগতে পারে বা নারীটির সঙ্গী যোনিলেহন করতে অপারগতা প্রকাশ করতে পারে।[১]

শব্দের উৎপত্তি এবং অর্থ[সম্পাদনা]

যোনিলেহন শব্দটির ইংরেজী শব্দ 'Cunnilingus' ল্যাটিন শব্দ cunnus যার বাংলা অর্থ যোনি এবং lingua যার বাংলা অর্থ জিহ্বা থেকে এসেছে।[১৪] যোনিলেহন শব্দটির বিভিন্ন অশ্লীল রুপ আছে, যেমন ঝোলের পেয়ালা থেকে পান করা,[১৫] কার্পেট মোড়ানো, এবং কাদায় মুখ দেওয়া। আরো অশ্লীল শব্দ আছে যেমন মুখ দেওয়া, মুখ সেবা, অথবা ছোটো পাছায় মুখ দেওয়া; শেষোক্ত শব্দটির ক্ষেত্রে ঔপন্যাসিক 'সারাহ ওয়াটার্স' বলেন যে তিনি শব্দটি রাণী ভিক্টোরিয়ার শাসনামলে চলা পর্নোগ্রাফী (পুস্তক/ছবি) থেকে পেয়েছেন।[১৬] যে ব্যক্তি যোনিলেহন করেন তাকে যোনিলেহনকারী (কেবলমাত্র বিষমকামী পুরুষ) কিংবা যোনিলেহনকারীনী (কেবলমাত্র সমকামিনীদের ক্ষেত্রে) বলা হয়।[১৭]

আরো দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Janell L. Carroll (২০০৯)। Sexuality Now: Embracing DiversityCengage Learning। পৃষ্ঠা 265–267। আইএসবিএন 978-0-495-60274-3। সংগ্রহের তারিখ ২৯ আগস্ট ২০১৩ 
  2. Wayne Weiten, Margaret A. Lloyd, Dana S. Dunn, Elizabeth Yost Hammer (২০০৮)। Psychology Applied to Modern Life: Adjustment in the 21st century। Cengage Learning। পৃষ্ঠা 422। আইএসবিএন 978-0-495-55339-7। সংগ্রহের তারিখ ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০১১ 
  3. Rodgers, Joann Ellison (২০০৩)। Sex: A Natural HistoryMacmillan। পৃষ্ঠা 92–93। আইএসবিএন 0805072810। সংগ্রহের তারিখ সেপ্টেম্বর ৪, ২০১৪ 
  4. Greenberg, Jerrold S.; Bruess, Clint E.; Conklin, Sarah C (২০১০)। Exploring the Dimensions of Human Sexuality। Jones & Bartlett Learning। পৃষ্ঠা 95–96। আইএসবিএন 978-0-7637-7660-2। সংগ্রহের তারিখ ১৫ নভেম্বর ২০১২ 
  5. Carroll, Janell L. (২০১২)। Sexuality Now: Embracing DiversityCengage Learning। পৃষ্ঠা 110–111। আইএসবিএন 978-1-111-83581-1। সংগ্রহের তারিখ ১২ সেপ্টেম্বর ২০১২ 
  6. "What is oral sex?"NHS ChoicesNHS। ১৫ জানুয়ারি ২০০৯। ২০ সেপ্টেম্বর ২০১০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  7. "Global strategy for the prevention and control of sexually transmitted infections: 2006–2015. Breaking the chain of transmission" (PDF)World Health Organization। ২০০৭। সংগ্রহের তারিখ ২৬ নভেম্বর ২০১১ 
  8. Dianne Hales (২০০৮)। An Invitation to Health Brief 2010-2011Cengage Learning। পৃষ্ঠা 269–271। আইএসবিএন 0495391921। সংগ্রহের তারিখ ২৯ আগস্ট ২০১৩ 
  9. William Alexander, Helaine Bader, Judith H. LaRosa (২০১১)। New Dimensions in Women's HealthJones & Bartlett Publishers। পৃষ্ঠা 211। আইএসবিএন 1449683754। সংগ্রহের তারিখ ২৯ আগস্ট ২০১৩ 
  10. See here and pages 47-49 for male virginity, how gay and lesbian individuals define virginity loss, and for how the majority of researchers and heterosexuals define virginity loss/"technical virginity" by whether or not a person has engaged in vaginal sex. Laura M. Carpenter (২০০৫)। Virginity lost: An Intimate Portrait of First Sexual ExperiencesNYU Press। পৃষ্ঠা 295 pages। আইএসবিএন 0-8147-1652-0। সংগ্রহের তারিখ ৯ অক্টোবর ২০১১ 
  11. Bryan Strong, Christine DeVault, Theodore F. Cohen (২০১০)। The Marriage and Family Experience: Intimate Relationship in a Changing SocietyCengage Learning। পৃষ্ঠা 186। আইএসবিএন 0-534-62425-1। সংগ্রহের তারিখ ৮ অক্টোবর ২০১১Most people agree that we maintain virginity as long as we refrain from sexual (vaginal) intercourse. But occasionally we hear people speak of 'technical virginity' [...] Data indicate that 'a very significant proportion of teens ha[ve] had experience with oral sex, even if they haven't had sexual intercourse, and may think of themselves as virgins' [...] Other research, especially research looking into virginity loss, reports that 35% of virgins, defined as people who have never engaged in vaginal intercourse, have nonetheless engaged in one or more other forms of heterosexual sexual activity (e.g., oral sex, anal sex, or mutual masturbation). 
  12. Sonya S. Brady; Bonnie L. Halpern-Felsher (২০০৭)। "Adolescents' Reported Consequences of Having Oral Sex Versus Vaginal Sex"। Pediatrics119 (2): 229–236। doi:10.1542/peds.2006-1727PMID 17272611 
  13. Blank, Hanne (২০০৮)। Virgin: The Untouched HistoryBloomsbury Publishing USA। পৃষ্ঠা 253। আইএসবিএন 1-59691-011-9। সংগ্রহের তারিখ ৮ অক্টোবর ২০১১ 
  14. "cunnilingus"। Dictionary.com। সংগ্রহের তারিখ ৭ অক্টোবর ২০১২ 
  15. "drinking from the furry cup - Dictionary of sexual terms"। Sex-lexis.com। সংগ্রহের তারিখ ২ জুলাই ২০১২ 
  16. "Taking Velvet public: author Sarah Waters reflects on the sensation she started by writing Tipping the Velvet, the novel that became a smash UK miniseries that's now set to conquer America." The Advocate (The national gay & lesbian newsmagazine), 13 May 2003.
  17. Morrison, Blake (১০ নভেম্বর ২০০৭)। "The pleasure principle"The Guardian। London। সংগ্রহের তারিখ ১৯ অক্টোবর ২০০৮ 

অতি পঠন[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]