যৌনবিকৃতি

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
সরাসরি যাও: পরিভ্রমণ, অনুসন্ধান
যৌনবিকার বা যৌনবিকৃতির অন্যান্য ব্যবহারের জন্য, যৌনবিকৃতি (দ্ব্যর্থতা নিরসন) দেখুন।
Paraphilia
শ্রেণীবিভাগ এবং বহিঃস্থ সম্পদ
বিশিষ্টতা মনোরোগবিদ্যা
মেএসএইচ D০১০২৬২ (ইংরেজি)

যৌনবিকৃতি (ইংরেজি ভাষায়: Paraphilia, "প্যারাফিলিয়া") বলতে এমনসব যৌনকর্ম-কাণ্ডের প্রতি আকর্ষণ এবং/অথবা সেই সকল কর্মকাণ্ডের সংঘটন বোঝায় যেগুলো 'স্বাভাবিক' নয়।[১] চিকিৎসাবিজ্ঞানের দৃষ্টিতে যৌনবিকৃতিকে মানসিক রোগ বা মনঃবৈকল্য হিসেবে শ্রেণিভুক্ত করা হয়ে থাকে।[২][৩][৪] যদিও বিভিন্ন প্রকার যৌনতা যেমন শিশ্নচোষণ, যোনিলেহন, উরুচোষণ, পেটচোষণ যৌনক্রিয়াকে (সাধারণত নারীর যোনিতে পুরুষের শিশ্ন প্রবেশ করানোর আগে ব্যবহৃত শৃঙ্গার কর্ম, মুখমৈথুন) প্রাকৃতিক এবং স্বাভাবিক যৌন-কর্ম ধরা হয় তারপরেও শুধু যৌনাঙ্গের মিলনটাই মূল যৌনমিলন হিসেবে স্বীকৃত। যৌনবিকৃতি হচ্ছে স্বমেহন, অাত্মরতি, পায়ুকাম, সমকাম, শিশুকাম, ধর্ষণ, মর্ষকামিতা, শরীরের কোনো একটি নির্দিষ্ট অঙ্গের প্রতি মাত্রাতিরিক্ত যৌনাকর্ষণ যেমনঃ স্তনের প্রতি, গুহ্যদ্বারের প্রতি, নাভির প্রতি, পেটের প্রতি, পিঠের প্রতি, পায়ের প্রতি, বগলের প্রতি, হাতের প্রতিসহ শিশ্ন এবং যোনির প্রতিও অতিরিক্ত যৌনঅাকর্ষণ থাকাও একপ্রকারের বিকৃত যৌনতা, এছাড়া অন্তর্বাসের বা বিভিন্ন বহির্বাসের প্রতি মাত্রাতিরিক্ত যৌন-আকর্ষণ (যেমনঃ জাঙ্গিয়ার প্রতি, হাফ প্যান্টের প্রতি) হচ্ছে বিকৃত যৌনাচার বা যৌনবিকৃতি, এরুপ যৌনকামনাকে প্রাকৃতিক ধরা হলেও অস্বাভাবিক বলা হয়। শৃঙ্গার কর্ম হিসেবে ব্যবহৃত মুখমৈথুন করলে জীবাণু ছড়ায় এবং মুখে ঘা হতে পারে বিধায় মুখকামকেও অস্বাভাবিক যৌনতা বলা যায়, তখন শৃঙ্গার হিসেবে শুধু বিভিন্ন অঙ্গ স্পর্শ কিংবা মর্দন করা যেতে পারে, এছাড়া বিভিন্ন অঙ্গে অালতো চুম্বন, প্রেম-ভালোবাসামূলক কথাবার্তা ও যৌনাঙ্গ নাড়াচাড়াও শৃঙ্গার হিসেবে ব্যবহৃত হতে পারে।[৫][৬][৭]ভারতের দিল্লীর 'মওলানা আজাদ মেডিক্যাল কলেজ' এর ফরেনসিক মেডিসিনের অধ্যাপক অনিল আগরওয়াল অনেক রকম যৌনবিকৃতির ব্যাখ্যা দিয়েছেন যার মধ্যে পায়ুকাম এবং সমকামের বর্ণনাও রয়েছে, যদিও পায়ুকাম এবং সমকাম (এরুপ যৌনকর্মকে ইংরেজী ভাষায় 'সডোমি', sodomy বলা হয়) বর্তমান বিশ্বে অনেক দেশেই অাইনগতভাবে বৈধ।[৮]

যৌনবিকৃতির কারণ[সম্পাদনা]

সাধারণত যেসব মানুষ মাতাপিতার ভালোবাসা ঠিকমত পায়না এবং কারো সঙ্গে মেশেনা বা মিশতে পারেনা অর্থাৎ যার কোনো বন্ধু-বান্ধবী নেই, প্রেমিক বা প্রেমিকা নেই এবং যে ব্যক্তি পর্নোগ্রাফির প্রতি আসক্ত তার মন-মানসিকতা যৌনবিকৃতির দিকে মোড় নেয়। একজন মানুষের জীবনে ভালোবাসা খুবই প্রয়োজন প্রথমে তার মাতাপিতা থেকে, এরপর বান্ধব-বান্ধবী থেকে এরপর জীবনসঙ্গী বা সঙ্গিনী (প্রেমিক বা প্রেমিকা) থেকে, এছাড়া সুস্থ-স্বাভাবিক যৌনাচার প্রত্যেক মানুষের জীবনে অবশ্যই জরুরী যেটা তার জীবনসঙ্গী বা সঙ্গিনীকে অবশ্যই দিতে হবে। এগুলো প্রত্যেক মানুষকে সুস্থ এবং স্বাভাবিক রাখে, এবং এর মাধ্যমে মানুষের যৌনবিকৃতি হয়না।[৯][১০]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. American Psychiatric Association (জুন ২০০০)। Diagnostic and Statistical Manual of Mental Disorders-IV (Text Revision)। Arlington, VA, USA: American Psychiatric Publishing, Inc.। পৃ: 566–76আইএসবিএন 978-0-89042-024-9ডিওআই:10.1176/appi.books.9780890423349 
  2. Gay, p. 148
  3. Fenichel, p. 328
  4. Peter Gay, Freud: A Life for our Time (London 1988) p. 145–6
  5. American Psychiatric Association (জুন ২০০০)। Diagnostic and Statistical Manual of Mental Disorders-IV (Text Revision)। Arlington, VA, USA: American Psychiatric Publishing, Inc.। পৃ: 566–76আইএসবিএন 978-0-89042-024-9ডিওআই:10.1176/appi.books.9780890423349 
  6. Joyal, Christian C. (২০১৪-০৬-২০)। "How Anomalous Are Paraphilic Interests?"Archives of Sexual Behavior 43 (7): 1241–1243। আইএসএসএন 0004-0002ডিওআই:10.1007/s10508-014-0325-z 
  7. "The Journal of Sexual Medicine - Volume 12, Issue 2 - February 2015 - Wiley Online Library"The Journal of Sexual Medicine 12ডিওআই:10.1111/jsm.2015.12.issue-2 
  8. Anil Aggrawal, Forensic and Medico-Legal Aspects of Sexual Crimes and Unusual Sexual Practices, CRC Press, 2008, p. 373, ISBN 1420043080
  9. "Neurodevelopmental Correlates of Paraphilic Sexual Interests in Men"। Archives of Sexual Behavior 37 (1): 166–172। ফেব্রুয়ারি ২০০৭। ডিওআই:10.1007/s10508-007-9255-3পিএমআইডি 18074220 
  10. Nolen-Hoeksema, Susan (২০১৩)। Abnormal Psychology (6th সংস্করণ)। Boston: McGraw-Hill। পৃ: ৩৮৫। আইএসবিএন 0078035384 
গ্রন্থ
অধিকন্তু পড়ুন

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]