গ্যাংটক

স্থানাঙ্ক: ২৭°২০′ উত্তর ৮৮°৩৭′ পূর্ব / ২৭.৩৩° উত্তর ৮৮.৬২° পূর্ব / 27.33; 88.62
উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
গ্যাংটক
সিকিম রাজ্যের রাজধানী
M.G. Marg, Gangtok 01.jpg
Kangch-Goechala.jpg
Gangtok ropeway.jpg
Dro-dul Chorten - Gangtok, Sikkim.jpg
Gangtok from Tibet Road.jpg
Vikramjit-Kakati-Rumtek.jpg
উপরে থেকে নিচে:
এম.জি. মার্গ, গ্যাংটক থেকে দৃশ্যমান কাঞ্চনজঙ্ঘা, গ্যাংটক কেবল কার, ড্রো-ডুল চোর্টেন, তিব্বত রোড থেকে গ্যাংটক, রুমটেক মঠ
গ্যাংটক সিকিম-এ অবস্থিত
গ্যাংটক
গ্যাংটক
সিকিমের গ্যাংটকের অবস্থান
স্থানাঙ্ক: ২৭°২০′ উত্তর ৮৮°৩৭′ পূর্ব / ২৭.৩৩° উত্তর ৮৮.৬২° পূর্ব / 27.33; 88.62
দেশ ভারত
রাজ্যসিকিম
জেলাপূর্ব সিকিম
সরকার
 • ধরনপৌরসভা
 • শাসকগ্যাংটক পৌর কর্পোরেশন
 • মেয়রশক্তি সিং চৌধুরী[১] (SDF)
আয়তন
 • মোট১৯.২ বর্গকিমি (৭.৪ বর্গমাইল)
উচ্চতা[২]১,৬৫০ মিটার (৫,৪১০ ফুট)
জনসংখ্যা (২০১১)
 • মোট১,০০,২৯০
 • জনঘনত্ব৫,২২৩/বর্গকিমি (১৩,৫৩০/বর্গমাইল)
ভাষা[৩][৪]
 • অফিসিয়াল
 • অতিরিক্ত অফিসিয়াল
সময় অঞ্চলআইএসটি (ইউটিসি+৫:৩০)
পিন৭৩৭১০১
টেলিফোন কোড০৩৫৯২
যানবাহন নিবন্ধনএসকে-০১
ওয়েবসাইটgmcsikkim.in

গ্যাংটক (/ˈɡæŋtɒk/ (এই শব্দ সম্পর্কেশুনুন); নেপালি উচ্চারণ: [ˈɡantok]) হচ্ছে ভারতের একটি শহর, পৌরসভা, রাজধানী এবং ভারতের সিকিম রাজ্যের বৃহত্তম জনবহুল স্থান। এটি একই সাথে সিকিম রাজ্যের পূর্ব সিকিম জেলা সদর দপ্তর। গ্যাংটক শহরটি পূর্ব হিমালয় পর্বতমালায় অবস্থিত। সমুদ্র পৃষ্ঠ থেকে এর উচ্চতা ১,৬৫০ মিটার (৫,৪১০ ফুট)। শহরটির জনসংখ্যা প্রায় ১,০০,০০০ জন। তাদের মধ্যে রয়েছে ভুটিয়া, লেপচা, কিরাটি এবং গোর্খাদের মতো বিভিন্ন জাতিগোষ্ঠী। হিমালয়ের উচ্চ শিখরের মধ্যে অবস্থিত হওয়ার পাশাপাশি সারা বছর ধরে মৃদু নাতিশীতোষ্ণ জলবায়ু থাকায় গ্যাংটক সিকিমের পর্যটন শিল্পের কেন্দ্রে রয়েছে।

১৮৪০ সালে এনচে মঠ নির্মাণের পর গ্যাংটক একটি জনপ্রিয় বৌদ্ধ তীর্থস্থান হিসাবে পরিচিত হয়ে ওঠে। ১৮৯৪ সালে সিকিমের তৎকালীন ক্ষমতাসীন চোগিয়াল থুটোব নামগিয়াল সিকিম রাজ্যের রাজধানী গ্যাংটকে স্থানান্তরিত করেন। ২০ শতকের গোড়ার দিকে, তিব্বতের রাজধানী লাসা এবং ব্রিটিশ ভারতের রাজধানী কলকাতার মতো শহরের মধ্যে বাণিজ্য পথে গ্যাংটক একটি প্রধান যাত্রা বিরতির স্থান হয়ে ওঠে। ১৯৪৭ সালে ভারত ব্রিটিশ সাম্রাজ্য থেকে স্বাধীনতা লাভ করার পর, সিকিম ভারতে যোগ না দিয়ে একটি স্বাধীন রাজতান্ত্রিক দেশ হিসেবে থাকার সিদ্ধান্ত নেয়। তখনও এই স্বাধীন সিকিম রাজ্যের রাজধানী ছিল গ্যাংটক। নানা ঘটনা প্রবাহের পর ১৯৭৫ সালে ভারতীয় সেনাবাহিনীর তত্ত্বাবধানে পরিচালিত এক বিতর্কিত গণভোটে ভারতের ২২তম রাজ্যে পরিণত হওয়ার মাধ্যমে ভারতে সিকিমের একীভূত হওয়ার পর, গ্যাংটক ভারতীয় রাজ্য সিকিমের রাজধানী হিসাবে অব্যাহত থাকে।

ব্যুৎপত্তি[সম্পাদনা]

"গ্যাংটক" নামের সঠিক অর্থ অস্পষ্ট, যদিও সবচেয়ে জনপ্রিয় অর্থ হল "পাহাড় কাটা"।[৫]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

বাকি সিকিমের মতো, গ্যাংটকের প্রাথমিক ইতিহাস সম্পর্কে খুব বেশি কিছু জানা যায় না।[৬] ১৭১৬ সালে হারমিটিক গ্যাংটক মঠের নির্মাণের তারিখ থেকে প্রাচীনতম রেকর্ডগুলি পাওয়া যায়।[৭] ১৮৪০ সালে এনচে মঠ নির্মাণ না হওয়া পর্যন্ত গ্যাংটক একটি ছোট গ্রাম ছিল। জিম্মি সংকটের প্রতিক্রিয়ায় ১৯ শতকের মাঝামাঝি সময়ে সিকিম রাজ্যে ইংরেজদের বিজয়ের পর এটি সিকিমের চোগিয়াল বা রাজার অধীনে সিকিমের যেটুকু অংশ অবশিষ্ট ছিল তার রাজধানী হয়ে ওঠে। ব্রিটিশদের হাতে তিব্বতীয়দের পরাজয়ের পর, গ্যাংটক ১৯ শতকের শেষের দিকে তিব্বত এবং ব্রিটিশ ভারতের মধ্যে বাণিজ্যের একটি প্রধান যাত্রা বিরতির স্থান হয়ে ওঠে।[৮] এ সময় এলাকার অধিকাংশ রাস্তা ও টেলিগ্রাফ নির্মিত হয়।

১৮৯৪ সালে, ব্রিটিশ শাসনের অধীনে সিকিমের চোগিয়াল বা রাজা থুটোব নামগিয়াল তুমলং থেকে গ্যাংটকে রাজধানী স্থানান্তর করেন। এর ফলে শহরের গুরুত্ব বৃদ্ধি পায়। নতুন রাজধানীতে অন্যান্য রাষ্ট্রীয় ভবনের সাথে একটি নতুন গ্র্যান্ড প্যালেস তৈরি করা হয়। ১৯৪৭ সালে ভারতের স্বাধীনতার পর, সিকিম একটি জাতি-রাষ্ট্রে পরিণত হয় যার রাজধানী ছিল গ্যাংটক। চোগিয়াল এবং তৎকালীন ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী জওহরলাল নেহরুর মধ্যে স্বাক্ষরিত চুক্তির মাধ্যমে সিকিম ভারতের আধিপত্যের অধীনে আসে এই শর্তে যে, এটি তার স্বাধীনতা বজায় রাখবে।[৯] এই চুক্তিটি সিকিমের পক্ষে ভারতীয়দের পররাষ্ট্রীয় বিষয়গুলির নিয়ন্ত্রণ দেয়। নাথুলা এবং জেলেপলা পাস দিয়ে ভারত ও তিব্বতের মধ্যে বাণিজ্য বৃদ্ধি পায়। এর ফলে গ্যাংটক শহর উপকৃত হয়। ১৯৫৯ সালে তিব্বতে চীনা ক্র্যাকডাউনের ফলে বাণিজ্য হ্রাস পায় এবং ১৯৬২ সালে চীন-ভারত যুদ্ধের পর পাসগুলি সিল করে দেওয়া হয়।[১০] নাথুলা পাস অবশেষে ২০০৬ সালে সীমিত বাণিজ্যের জন্য উন্মুক্ত করা হয়, যা সিকিমের অর্থনৈতিক উত্থানের আশা জাগিয়ে তোলে।[১১]

১৯৭৫ সালে ভারতের প্ররোচনায় দাঙ্গা সহ বছরের পর বছর ধরে চলা রাজনৈতিক অনিশ্চয়তা এবং সংগ্রামের পরে, সিকিমের রাজতন্ত্র বাতিল করা হয়েছিল এবং ভারতের আয়োজিত একটি গণভোটের পরে সিকিম ভারতের বাইশতম রাজ্যে পরিণত হয়। গ্যাংটককে তখন এই ভারতে অন্তর্ভুক্ত রাজ্যের রাজধানী হিসাবে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছিল। গ্যাংটকে বার্ষিক ভূমিধ্বসের ঘটনা ঘটেছে, যার ফলে প্রাণহানি এবং সম্পত্তির ক্ষতি হয়েছে। ১৯৯৭ সালের জুনে সবচেয়ে বড় বিপর্যয় ঘটে, যখন ৩৮ জন নিহত হয় এবং শত শত ভবন ধ্বংস হয়ে যায়।[১২]

ভূগোল[সম্পাদনা]

বিশ্বের তৃতীয় সর্বোচ্চ পর্বতশৃঙ্গ কাঞ্চনজঙ্ঘা গ্যাংটক থেকে দেখা যায়। এটি জেমু হিমবাহের কাছে অবস্থিত।

গ্যাংটকের অবস্থান হচ্ছে ২৭°১৯′৫৭″ উত্তর ৮৮°৩৬′৫০″ পূর্ব / ২৭.৩৩২৫° উত্তর ৮৮.৬১৪০° পূর্ব / 27.3325; 88.6140 (গ্যাংটক হেড পোস্ট অফিসের স্থানাঙ্ক)।[২] এটি নিম্ন হিমালয়ে ১,৬৫০ মি (৫,৪১০ ফু) উচ্চতায় অবস্থিত।[১৩] শহরটি একটি পাহাড়ের এক পাশে অবস্থিত। এক প্রান্তে অবস্থিত "দ্য রিজ"[৮][১৪] প্রাসাদটি হচ্ছে রাজ্যপালের বাসভবন বা রাজভবনের একটি বিহারস্থল। এটি প্রায় ১,৮০০ মিটার (৫,৯০০ ফুট) উচ্চতায় অবস্থিত। শহরটি পূর্ব এবং পশ্চিমে যথাক্রমে রোরো চু এবং রানিখোলা নামে দুটি নদী দ্বারা বেষ্টিত।[১২] এই দুটি নদী শহরের প্রাকৃতিক নিষ্কাশনকে পূর্ব ও পশ্চিম অংশ তথা দুটি ভাগে বিভক্ত করে। উভয় প্রবাহই রানিপুলের সাথে মিলিত হয় এবং সিংতমে তিস্তায় পতিত হওয়ার আগে প্রধান রানিখোলা হিসাবে দক্ষিণে প্রবাহিত হয়।[১২] শহরের বেশিরভাগ রাস্তা খাড়া। এসব রাস্তার পাশাপাশি কম্প্যাক্টেড মাটিতে ভবন নির্মিত।[১৫]

বানঝাকরি  জলপ্রপাত – গ্যাংটক

গ্যাংটক সহ বেশিরভাগ সিকিম প্রিক্যামব্রিয়ান শিলা দ্বারা আবৃত। সেখানে ফলিয়েটেড ফিলাইট এবং শিস্ট রয়েছে। ঢালগুলি তাই ঘন ঘন ভূমিধ্বসের ঝুঁকিতে থাকে।[১৬] প্রাকৃতিক প্রবাহ (ঝোরা) এবং মনুষ্যসৃষ্ট নর্দমা দ্বারা জলের পৃষ্ঠের প্রবাহ ভূমিধ্বসের ঝুঁকিতে ভূমিকা রেখেছে।[১২] ব্যুরো অফ ইন্ডিয়ান স্ট্যান্ডার্ডস অনুসারে, ভারতীয় এবং ইউরেশিয়ান টেকটোনিক প্লেটের কনভার্জেন্ট সীমানার কাছে এবং ঘন ঘন ভূমিকম্পের সাপেক্ষে শহরটি সিসমিক জোন-৪ এর অধীনে পড়ে (ক্রমবর্ধমান ভূমিকম্পের ক্রিয়াকলাপের জন্য ১ থেকে ৫ এর স্কেলে)। পাহাড়গুলি উঁচু চূড়ার মধ্যে অবস্থিত এবং তুষার-ঢাকা হিমালয় পর্বতমালা দূর থেকে শহরের উপর টাওয়ারের মতো মনে হয়। কাঞ্চনজঙ্ঘা পর্বত হচ্ছে বিশ্বের তৃতীয় সর্বোচ্চ শৃঙ্গ (৮,৫৯৮ মিটার বা ২৮,২০৮ ফুট) শহরের পশ্চিমে দৃশ্যমান। খাড়া ঢালের অস্তিত্ব, ভূমিধ্বসের দুর্বলতা, বড় বনভূমি এবং বেশিরভাগ অঞ্চলে দুর্গমতা শহরের স্বাভাবিক ও ভারসাম্যপূর্ণ বৃদ্ধির ক্ষেত্রে একটি বড় বাধা হয়ে দাঁড়িয়েছে।[১২]

গ্যাংটকের চারপাশে ঘন বনাঞ্চল রয়েছে। সেখানে নাতিশীতোষ্ণ, পপলার, বার্চ, ওক এবং এলমের পর্ণমোচী বন, সেইসাথে ভেজা আলপাইন অঞ্চলের চিরহরিৎ, শঙ্কুযুক্ত গাছ রয়েছে। এখানকার অর্কিডগুলি সাধারণ। তবে বিরল প্রজাতির অর্কিডগুলি শহরের ফুল শোতে প্রদর্শিত হয়৷ বাঁশও রয়েছে প্রচুর। শহরের নিম্নাঞ্চলে, গাছপালা ধীরে ধীরে আল্পা‌ইন থেকে নাতিশীতোষ্ণ পর্ণমোচী এবং উপক্রান্তীয় অঞ্চলে পরিবর্তিত হয়।[১৬] বিশেষ করে নভেম্বর এবং ডিসেম্বরে সূর্যমুখী, গাঁদা, পোইনসেটিয়া এবং অন্যান্য ফুলের মতো ফুল ফোটে।

জলবায়ু[সম্পাদনা]

গ্যাংটক (১৯৮১–২০১০, চরম আবহাওয়া ১৯৬৬–বর্তমান)-এর আবহাওয়া সংক্রান্ত তথ্য
মাস জানু ফেব্রু মার্চ এপ্রিল মে জুন জুলাই আগস্ট সেপ্টে অক্টো নভে ডিসে বছর
সর্বোচ্চ রেকর্ড °সে (°ফা) ১৯.৯
(৬৭.৮)
২২.০
(৭১.৬)
২৭.৬
(৮১.৭)
২৭.৩
(৮১.১)
২৮.৫
(৮৩.৩)
২৮.৪
(৮৩.১)
২৮.৪
(৮৩.১)
২৯.৯
(৮৫.৮)
২৮.৫
(৮৩.৩)
২৭.২
(৮১.০)
২৫.৫
(৭৭.৯)
২৪.০
(৭৫.২)
২৯.৯
(৮৫.৮)
মাসিক সর্বোচ্চ গড় °সে (°ফা) ১৬.৪
(৬১.৫)
১৮.০
(৬৪.৪)
২২.৭
(৭২.৯)
২৪.০
(৭৫.২)
২৫.০
(৭৭.০)
২৫.২
(৭৭.৪)
২৫.০
(৭৭.০)
২৬.০
(৭৮.৮)
২৫.৩
(৭৭.৫)
২৪.০
(৭৫.২)
২০.৬
(৬৯.১)
১৭.৪
(৬৩.৩)
২৬.৮
(৮০.২)
সর্বোচ্চ গড় °সে (°ফা) ১২.৩
(৫৪.১)
১৩.৮
(৫৬.৮)
১৭.৫
(৬৩.৫)
২০.৫
(৬৮.৯)
২১.৪
(৭০.৫)
২২.০
(৭১.৬)
২১.৬
(৭০.৯)
২২.২
(৭২.০)
২১.৪
(৭০.৫)
২০.৪
(৬৮.৭)
১৭.১
(৬২.৮)
১৩.৯
(৫৭.০)
১৮.৭
(৬৫.৭)
সর্বনিম্ন গড় °সে (°ফা) ৪.৭
(৪০.৫)
৬.১
(৪৩.০)
৯.২
(৪৮.৬)
১১.৮
(৫৩.২)
১৪.০
(৫৭.২)
১৬.৪
(৬১.৫)
১৭.০
(৬২.৬)
১৬.৯
(৬২.৪)
১৫.৯
(৬০.৬)
১২.৮
(৫৫.০)
৯.১
(৪৮.৪)
৬.২
(৪৩.২)
১১.৭
(৫৩.১)
মাসিক সর্বনিম্ন গড় °সে (°ফা) ১.৮
(৩৫.২)
২.৭
(৩৬.৯)
৫.৫
(৪১.৯)
৮.২
(৪৬.৮)
১১.০
(৫১.৮)
১৪.০
(৫৭.২)
১৫.৬
(৬০.১)
১৫.৪
(৫৯.৭)
১৩.৭
(৫৬.৭)
৯.৯
(৪৯.৮)
৬.৬
(৪৩.৯)
৩.৩
(৩৭.৯)
১.৩
(৩৪.৩)
সর্বনিম্ন রেকর্ড °সে (°ফা) −২.২
(২৮.০)
−১.১
(৩০.০)
১.৪
(৩৪.৫)
২.৯
(৩৭.২)
৬.৬
(৪৩.৯)
১০.০
(৫০.০)
১১.৩
(৫২.৩)
১০.৮
(৫১.৪)
৭.৭
(৪৫.৯)
৪.৩
(৩৯.৭)
২.৪
(৩৬.৩)
−১.৭
(২৮.৯)
−২.২
(২৮.০)
বৃষ্টিপাতের গড় মিমি (ইঞ্চি) ২৭.১
(১.০৭)
৭২.২
(২.৮৪)
১২৬.৪
(৪.৯৮)
২৯৬.৯
(১১.৬৯)
৪৯৬.৪
(১৯.৫৪)
৬০৯.৮
(২৪.০১)
৬২৬.৩
(২৪.৬৬)
৫৬৫.৯
(২২.২৮)
৪৩৮.৭
(১৭.২৭)
১৭৩.৪
(৬.৮৩)
৩৭.৯
(১.৪৯)
১৯.৫
(০.৭৭)
৩,৪৯০.৪
(১৩৭.৪২)
বৃষ্টিবহুল দিনগুলির গড় ২.৪ ৫.৪ ৯.২ ১৫.২ ২০.১ ২৩.৬ ২৭.০ ২৪.৭ ২০.৮ ৮.৪ ২.৩ ১.৭ ১৬১.০
আপেক্ষিক আদ্রতার গড় (%) (17:30 আইএসটি) ৭৭ ৭৮ ৭৬ ৭৮ ৮৫ ৮৯ ৯২ ৯২ ৯০ ৮৩ ৭৯ ৭৭ ৮৩
উৎস: ভারতের আবহাওয়া বিভাগ[১৭][১৮][১৯]

গ্যাংটকের একটি বর্ষা-প্রভাবিত উপ- ক্রান্তীয় উচ্চভূমি জলবায়ু রয়েছে ( কোপেন : Cwb )। এর উচ্চতা এবং আশ্রয়ের পরিবেশের কারণে, গ্যাংটকের মানুষ সারা বছর একটি মৃদু, নাতিশীতোষ্ণ জলবায়ু উপভোগ করে। বেশিরভাগ হিমালয় শহরের মতো গ্যাংটকের পাঁচটি ঋতু রয়েছে: গ্রীষ্ম, বর্ষা, শরৎ, শীত এবং বসন্ত। তাপমাত্রার পরিসীমা গ্রীষ্মকালে গড় সর্বোচ্চ ২২ °সে (৭২ °ফা) থেকে শীতকালে গড় সর্বনিম্ন ৫ °সে (৪১ °ফা) হয়ে থাকে।[২০] গ্রীষ্মকাল (এপ্রিলের শেষ থেকে জুন পর্যন্ত স্থায়ী) হালকা। এই ঋতুর সর্বোচ্চ তাপমাত্রা খুব কমই ২৫ °সে (৭৭ °ফা) অতিক্রম করে, জুন থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত বর্ষা মৌসুমে প্রচণ্ড মুষলধারে বৃষ্টিপাতের কারণে প্রায়ই ভূমিধস হয় যা দেশের বাকি অংশে গ্যাংটকের যাওয়ার পথ অবরুদ্ধ করে। মে মাসে প্রাক-বর্ষা থেকে বৃষ্টিপাত বাড়তে শুরু করে এবং বর্ষাকালে সর্বোচ্চ হয়। জুলাই মাসে সর্বোচ্চ মাসিক গড় ৬৪৯.৬ মিমি (২৫.৬ ইঞ্চি) রেকর্ড করা হয়।[২০] শীতকালে গড় তাপমাত্রা ৪ °সে (৩৯ °ফা) এবং ৭ °সে (৪৫ °ফা)-এর মধ্যে থাকে।[২০] তুষারপাত বিরল এবং সাম্প্রতিক সময়ে, গ্যাংটকে শুধুমাত্র ১৯৯০, ২০০৪, ২০০৫ [২১] ২০২০ সালে তুষারপাত হয়েছে। হিমাঙ্কের নিচের তাপমাত্রাও বিরল।[১৬] এই ঋতুতে আবহাওয়া অস্থিতিশীল হতে পারে এবং কয়েক ঘন্টার মধ্যে উজ্জ্বল রোদ এবং পরিষ্কার আকাশ থেকে ভারী বৃষ্টিতে হঠাৎ পরিবর্তন হতে পারে। বসন্ত এবং শরৎকালে আবহাওয়া সাধারণত রৌদ্রোজ্জ্বল এবং হালকা থাকে। এর উচ্চতার কারণে, গ্যাংটক প্রায়ই বর্ষা ও শীতের মাসগুলিতে কুয়াশায় আচ্ছন্ন থাকে।

অর্থনীতি[সম্পাদনা]

দ্র-দুল চোরটেন, গ্যাংটক, সিকিম,
মহাত্মা গান্ধী মার্গ গ্যাংটকের প্রধান শপিং এবং সাংস্কৃতিক কার্যকলাপের রাস্তাগুলির মধ্যে একটি।

সিকিম পর্যটনের প্রধান ভিত্তি হল গ্যাংটক।[২২] গ্রীষ্ম এবং বসন্ত ঋতু সর্বাধিক জনপ্রিয় পর্যটন ঋতু। গ্যাংটকের অনেক বাসিন্দা প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে পর্যটন শিল্পে নিযুক্ত। অনেক বাসিন্দার হোটেল ও রেস্তোরাঁর মালিকানা রয়েছে এবং অনেক বাসিন্দাই এসব হোটেল ও রেস্তোরাঁয় কাজ করছেন।[২৩]

মহাত্মা গান্ধী মার্গ এবং লাল মার্কেট হল বিশিষ্ট ব্যবসায়িক এলাকা এবং গ্যাংটকের পর্যটন স্পট। [২৪]

ইকোট্যুরিজম এই অঞ্চলে একটি গুরুত্বপূর্ণ অর্থনৈতিক কার্যকলাপ হিসাবে আবির্ভূত হয়েছে। এর মধ্যে রয়েছে ট্রেকিং, পর্বতারোহণ, রিভার রাফটিং এবং অন্যান্য প্রকৃতি ভিত্তিক কার্যক্রম। আনুমানিক ৩৫১,০০০ পর্যটক ২০০৭ সালে সিকিম পরিদর্শন করেছিলেন। এর ফলে শহরটি প্রায় ৫০০ মিলিয়ন (US$ ৬.৭৫ মিলিয়ন) আয় করেছে।[২৩]

গ্যাংটক থেকে প্রায় ৫০ কিমি (৩১ মা) দূরে অবস্থিত নাথুলা পাস তিব্বতের সাথে উল, পশম এবং মসলা বাণিজ্যের প্রাথমিক রুট ছিল এবং বিংশ শতাব্দীর মাঝামাঝি পর্যন্ত গ্যাংটকের জন্য অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধিকে উত্সাহিত করেছিল। ১৯৬২ সালে চীন-ভারত যুদ্ধের সময় সীমান্ত বন্ধ হয়ে যাওয়ার পর গ্যাংটক মন্দার কবলে পড়ে।[১০] পাসটি ২০০৬ সালে পুনরায় চালু করা হয়েছিল এবং পাসের মাধ্যমে বাণিজ্য গ্যাংটকের অর্থনীতিকে বাড়িয়ে তুলবে বলে আশা করা হয়।[২২] সিকিম সরকার নাথুলা পাস হয়ে একটি লাসা-গ্যাংটক বাস পরিষেবা চালু করতে আগ্রহী।[২৫] সিকিমের পার্বত্য অঞ্চলের ফলে ট্রেন বা বিমান সংযোগের অভাব দেখা দেয়, যা দ্রুত শিল্প বিকাশের জন্য এই অঞ্চলের সম্ভাবনাকে সীমাবদ্ধ করে।[২২] সরাসরি এবং ঠিকাদার হিসাবে উভয় ক্ষেত্রেই সরকারই হচ্ছে শহরের বৃহত্তম নিয়োগকর্ত।[১২]

গ্যাংটকের অর্থনীতিতে একটি বড় উত্পাদন ভিত্তি নেই, তবে ঘড়ি তৈরি, দেশীয় তৈরি অ্যালকোহল এবং হস্তশিল্পের একটি সমৃদ্ধ কুটির শিল্প রয়েছে।[২২] হস্তশিল্পের মধ্যে রয়েছে হস্তনির্মিত কাগজ শিল্প বিভিন্ন উদ্ভিজ্জ ফাইবার বা তুলো ন্যাকড়া দিয়ে তৈরি। গ্যাংটকের প্রধান বাজার রাজ্যের গ্রামীণ বাসিন্দাদের অনেককে ফসল কাটার মৌসুমে তাদের উৎপাদিত পণ্য সরবরাহ করার জায়গা প্রদান করে। বেসরকারি ব্যবসায়ী সম্প্রদায়ের অধিকাংশই মাড়োয়ারি এবং বিহারিদের দ্বারা গঠিত। সিকিমের অংশ হিসাবে, গ্যাংটক রাজ্যের ১৯৪৮ সালের আয়কর আইন অনুসারে আয়কর-মুক্ত অঞ্চলের মর্যাদা উপভোগ করে।[২৬] যেহেতু সিকিম একটি সীমান্ত রাজ্য তাই ভারতীয় সেনাবাহিনী গ্যাংটকের আশেপাশে বিশাল উপস্থিতি বজায় রাখে। এর ফলে আধা-স্থায়ী বাসিন্দাদের একটি জনসংখ্যা হয় যারা স্থানীয় অর্থনীতিতে অর্থ নিয়ে আসে।[২৭] সিকিম সরকার সরকারি আয় বাড়ানোর জন্য ভারতের প্রথম অনলাইন লটারি প্লেউইন চালু করেছিল। তবে পরে সিকিম হাইকোর্টের একটি রায়ে এটি বন্ধ হয়ে যায়।[২৮]

কৃষি হচ্ছে সিকিমের অর্থনীতিতে একটি বড় নিয়োগকর্তা এবং ২০০৩ সালে সিকিম রাজ্য সরকার পুরো খাতটিকে জৈব উৎপাদনে রূপান্তরিত করার লক্ষ্য ঘোষণা করে।[২৯] ২০১৬ সালে ১০০% জৈবের লক্ষ্য অর্জন করা হয়েছিল।[২৯] এই অর্জন কৃষি খাতকে উন্নত করার জন্য, প্রিমিয়াম মূল্য এবং কৃষিবিজ্ঞানের জন্য নতুন সুযোগ অর্জনের জন্য নতুন রপ্তানি রপ্তানীর সুযোগ প্রদান করে।[২৯]

নাগরিক প্রশাসন[সম্পাদনা]

সিকিম সরকারের বিভিন্ন বিভাগগুলো বিশেষত নগর উন্নয়ন ও আবাসন বিভাগ (ইউডিএইচডি) এবং জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল বিভাগ (পিএইচইডি) এর সাথে গ্যাংটক মিউনিসিপ্যাল কর্পোরেশন (জিএমসি) দ্বারা পরিচালিত হয়।[১২][৩০] এই বিভাগগুলি আবর্জনা নিষ্পত্তি, জল সরবরাহ, ট্যাক্স সংগ্রহ, লাইসেন্স বরাদ্দ এবং নাগরিক পরিকাঠামোর মতো পৌরসভার কাজগুলি প্রদান করে। রাজ্য সরকার কর্তৃক নিযুক্ত একজন প্রশাসক ইউডিএইচডি-র প্রধান[৩১]

পূর্ব সিকিম জেলার সদর দফতর হিসাবে গ্যাংটকে জেলা কালেক্টরের কার্যালয় রয়েছে। জেলা কালেক্টর হচ্ছেন ভারত সরকার কর্তৃক নিযুক্ত একজন প্রশাসক। গ্যাংটক শহরেই সিকিম হাইকোর্টের অবস্থান। এলাকা এবং জনসংখ্যার বিচারে এটি ভারতের সবচেয়ে ছোট হাইকোর্ট[৩২] ভারতের অন্যান্য বড় শহরের মতো গ্যাংটকের নিজস্ব পুলিশ কমিশনারেট নেই। এর পরিবর্তে এটি রাজ্য পুলিশের এখতিয়ারের অধীনে কাজ করে। এর নেতৃত্বে একজন ডিরেক্টর জেনারেল অফ পুলিশ থাকলেও একজন পুলিশ মহাপরিদর্শক শহরের তত্ত্বাবধান করেন।[৩৩] সিকিম খুব কম অপরাধের হারের জন্য পরিচিত।[৩৪] গ্যাংটকের রঙ্গয়েক জেল হল সিকিমের একমাত্র কেন্দ্রীয় কারাগার।[৩৫]

গ্যাংটক সিকিম লোকসভা কেন্দ্রের মধ্যে রয়েছে যেটি ভারতীয় সংসদের লোকসভার ( নিম্নকক্ষ ) সদস্য নির্বাচন করে। গ্যাংটক শহরে মাত্র একটি বিধানসভা আসন থাকায় এই শহর থেকে সিকিম রাজ্যের বিধানসভার একজন সদস্য নির্বাচন হন। সিকিম ডেমোক্রেটিক ফ্রন্ট (এসডিএফ) ২০০৯ সালের সংসদীয় নির্বাচন এবং ২০০৯ রাজ্য বিধানসভা নির্বাচনে রাজ্য বিধানসভা আসন উভয়ই জিতেছিল।[৩৬][৩৭]

ইউটিলিটি সেবা[সম্পাদনা]

সিকিম সরকারের বিদ্যুৎ বিভাগ দ্বারা বিদ্যুৎ সরবরাহ করা হয়। সিকিমের অসংখ্য জলবিদ্যুৎ কেন্দ্রের কারণে গ্যাংটকে প্রায় নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সরবরাহ রয়েছে। গ্যাংটকের আশেপাশের গ্রামীণ রাস্তাগুলি ভারতীয় সেনাবাহিনীর একটি বিভাগ বর্ডার রোডস অর্গানাইজেশন দ্বারা রক্ষণাবেক্ষণ করা হয়। গ্যাংটকের বেশ কয়েকটি রাস্তা খারাপ অবস্থায় রয়েছে বলে জানা গেছে।[১২] তবে এই শহরে যথাযথ ভূমি অবকাঠামোর অভাবের কারণে ভবন নির্মাণ কার্যক্রম প্রায় অনিয়ন্ত্রিতভাবে চলছে।[১২] বেশিরভাগ পরিবার পিএইচইডি দ্বারা পরিচালিত এবং পরিচালিত কেন্দ্রীয় জল ব্যবস্থা দ্বারা সরবরাহ করা হয়।[১২] পিএইচইডি জল সরবরাহের প্রধান উৎস হল রাটিচু নদী। এটি শহর থেকে প্রায় ১৬ কিলোমিটার (৯.৯ মাইল) দূরে ২,৬২১ মিটার (৮,৫৯৯ ফুট) উচ্চতায় অবস্থিত। এর ওয়াটার ট্রিটমেন্ট প্ল্যান্টটি সেলেপে অবস্থিত। রাটিচু নদীতে বরফগলা পানি প্রবাহিত হয় এবং বছরব্যাপি নদীটিতে পানির প্রবাহ বজায় থাকে। যেহেতু একটি ছোট সেনা বসতি ব্যতীত জলা এলাকায় কোন বাসস্থান নেই, তাই পরিবেশের সামান্য অবনতি হয়ে থাকে এবং নদীর পানি খুবই ভালো মানের হয়।[১২] সিকিম সরকারের গ্রামীণ ব্যবস্থাপনা ও উন্নয়ন বিভাগ ৪০ টি মৌসুমী স্থানীয় প্রস্রবণ থেকে দূরবর্তী গ্রামাঞ্চলে জল সরবরাহের জন্য ব্যবহার করে।

জনসংখ্যার প্রায় ৪০% নর্দমা ব্যবহার করে।[১২] যাইহোক, শুধুমাত্র টয়লেট বর্জ্য নর্দমার সাথে সংযুক্ত করা হয় এবং সু্লেজ নালায় নিষ্কাশন করা হয়।[১২] একটি সঠিক স্যানিটেশন সিস্টেম ছাড়া, সেপটিক ট্যাংকের মাধ্যমে নিকাশী নিষ্কাশন এবং সরাসরি ঝোরা এবং খোলা ড্রেনে নিষ্কাশন করার অভ্যাস প্রচলিত।[১২] পুরো শহর দুটি নদী, রানিখোলা এবং রোরো চু, অসংখ্য ছোট ছোট নদী এবং ঝোরার মধ্য দিয়ে প্রবাহিত হয়। রানিখোলা ও রোরো চু নদী তিস্তা নদীর সাথে মিলিত হয়, যা নিম্নাঞ্চলের জনসংখ্যার জন্য পানীয় জলের প্রধান উৎস। গ্যাংটকের ঘনবসতিপূর্ণ শহুরে এলাকায় ভবনগুলি থেকে ঝড়ের জল এবং বর্জ্য জল নিষ্কাশনের জন্য একটি যৌথ নিকাশী ব্যবস্থা নেই।[১২] গ্যাংটক শহরে উত্পন্ন আনুমানিক কঠিন বর্জ্য প্রায় ৪৫ টন। এর মধ্যে মাত্র ৪০% ইউডিএইচডি দ্বারা সংগ্রহ করা হয়। অন্যদিকে অবশিষ্টাংশ নির্বিচারে ঝোরা, রাস্তা এবং উপত্যকায় নিক্ষেপ করা হয়। সংগৃহীত বর্জ্য শহর থেকে প্রায় ২০ কিলোমিটার (১২ মাইল) দূরে অবস্থিত একটি ডাম্পে নিষ্পত্তি করা হয়।[১২] দুর্গম এলাকাগুলি থেকে কোনও বর্জ্য সংগ্রহ করা হয় না যেখানে যানবাহন পৌঁছাতে পারে না, বা পার্শ্ববর্তী গ্রামাঞ্চলে বর্জ্য সংগ্রহের কোনও ব্যবস্থাও নেই। পলিথিন ব্যাগ ব্যবহারে রাজ্যব্যাপী নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে শহরটি।[১২]

পরিবহন[সম্পাদনা]

রাস্তা[সম্পাদনা]

গ্যাংটকের মধ্যে ট্যাক্সি হল সবচেয়ে ব্যাপকভাবে উপলব্ধ গণপরিবহন। বেশিরভাগ বাসিন্দাই শহরের কেন্দ্রের কয়েক কিলোমিটারের মধ্যে থাকেন[৩৮] এবং অনেকেরই নিজস্ব যানবাহন যেমন টু-হুইলার এবং গাড়ি রয়েছে।[৩৯] ব্যক্তিগত যানবাহন এবং ট্যাক্সির অংশ একত্রিত গ্যাংটকের মোট যানবাহনের ৯৮%। অন্যান্য ভারতীয় শহরের তুলনায় এটি একটি উচ্চ শতাংশ।[১৬] সিটি বাসে এক শতাংশেরও কম যানবাহন রয়েছে।[১৬] যারা দীর্ঘ দূরত্বে ভ্রমণ করে তারা সাধারণত শেয়ার-জীপ ব্যবহার করে, এক ধরনের পাবলিক ট্যাক্সি। রাস্তার খাড়া ঢালে সহজে চলাচল করতে ফোর হুইল ড্রাইভ ব্যবহার করা হয়। ১ কিমি (০.৬ মা) তিনটি স্টপ সহ লম্বা ক্যাবল কার নিম্ন গ্যাংটক শহরতলির সাথে মধ্য গ্যাংটকের সিকিম বিধানসভা এবং উপরের শহরতলির সাথে সংযোগ করে।[৪০]

গ্যাংটক একটি জাতীয় মহাসড়ক ১০ দ্বারা ভারতের বাকি অংশের সাথে সংযুক্ত।[৪১] এটি আগে ন্যাশনাল হাইওয়ে ৩১এ[১২] নামে পরিচিত ছিল, যা গ্যাংটককে ১১৪ কিমি (৭১ মা) দূরে অবস্থিত প্রতিবেশী রাজ্যে পশ্চিমবঙ্গের শিলিগুড়ির সাথে সংযুক্ত করে। মহাসড়কটি পার্শ্ববর্তী হিল স্টেশন শহর দার্জিলিং এবং কালিম্পং -এর সাথেও একটি সংযোগ প্রদান করে। এগুলো সিকিমের নিকটতম শহুরে এলাকা। নিয়মিত জিপ, ভ্যান এবং বাস পরিষেবাগুলি এই শহরগুলিকে গ্যাংটকের সাথে সংযুক্ত করে৷ গ্যাংটক হল একটি রৈখিক শহর যা বিশেষ করে জাতীয় সড়ক ৩১এ বরাবর গড়ে উঠেছে। গ্যাংটকের বেশিরভাগ রাস্তার দৈর্ঘ্য দুই লেনের অবিভক্ত ক্যারেজওয়ে রাস্তার একদিকে ফুটপাথ এবং অন্য দিকে ড্রেন। সর্পিল রাস্তার কনফিগারেশন সহ বিভিন্ন রাস্তার প্রসারিত খাড়া গ্রেডিয়েন্ট যানবাহনের পাশাপাশি পথচারী ট্র্যাফিকের মসৃণ প্রবাহকে সীমাবদ্ধ করে। [১২]

রেল[সম্পাদনা]

ভারতের বাকি অংশের সাথে সংযুক্ত নিকটতম রেলপথ হল শিলিগুড়ির নিউ জলপাইগুড়ি (এনজেপি) স্টেশন, গ্যাংটক থেকে এনএইচ ১০ এর মাধ্যমে ১২৪ কিলোমিটার (৭৭ মা) দূরে অবস্থিত। পশ্চিমবঙ্গের সেভোক থেকে সিকিমের রাংপো পর্যন্ত ব্রডগেজ রেল সংযোগের কাজ শুরু হয়েছে[৪২] যা গ্যাংটক পর্যন্ত সম্প্রসারণের পরিকল্পনা করা হয়েছে। [৪৩]

আকাশপথ[সম্পাদনা]

পাকিয়ং বিমানবন্দরের রানওয়ে, উত্তর- পূর্ব ভারতে নির্মিত প্রথম গ্রিনফিল্ড বিমানবন্দর।

পাকিয়ং বিমানবন্দর হল ভারতের সিকিম রাজ্যের রাজধানী গ্যাংটকের কাছে একটি গ্রিনফিল্ড বিমানবন্দর। [৪৪] পাকইয়ং বিমানবন্দর ভারতের সিকিম রাজ্যের রাজধানী গ্যাংটকের কাছে একটি গ্রিনফিল্ড বিমানবন্দর। বিমানবন্দরটি ৪০০ হেক্টর (৯৯০ একর) জুড়ে বিস্তৃত। এটি গ্যাংটক থেকে প্রায় ৩৫ কিলোমিটার (২২ মা) দক্ষিণে পাকইয়ং শহরে অবস্থিত।[৪৫] ১,৪০০ মিটার (৪,৫০০ ফুট) উচ্চতায় অবস্থিত পাকইয়ং বিমানবন্দর ভারতের পাঁচটি সর্বোচ্চ বিমানবন্দরের মধ্যে একটি।[৪৬] এটি ভারতের উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় অঞ্চলে নির্মিত প্রথম গ্রিনফিল্ড বিমানবন্দর।[৪৭] এছাড়াও এটি ভারতের ১০০ তম অপারেশনাল বিমানবন্দর এবং সিকিম রাজ্যের একমাত্র বিমানবন্দর।[৪৮] [৪৯]

২০১৮ সালের ২৪ সেপ্টেম্বর ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী বিমানবন্দরটি উদ্বোধন করেন[৫০] এবং ৪ অক্টোবর ২০১৮ সালে পাকইয়ং ও কলকাতার মধ্যে বিমানবন্দর থেকে প্রথম বাণিজ্যিক ফ্লাইট পরিচালনা শুরু হয়।[৫১]

জনসংখ্যা[সম্পাদনা]

টেমপ্লেট:ভারতের আদমশুমারি ভারতের অস্থায়ী জনসংখ্যা মোট ২০১১ সালের আদমশুমারি অনুসারে গ্যাংটক মিউনিসিপ্যাল কর্পোরেশনের জনসংখ্যা আনুমানিক ৯৮,৬৫৮ জন। জনসংখ্যার ৫৩% পুরুষ এবং ৪৭% মহিলা। পূর্ব সিকিম জেলার গ্যাংটক মহকুমার জনসংখ্যা ছিল ২৮১,২৯৩ জন, গ্যাংটকের গড় সাক্ষরতার হার ৮২.১৭%, যা জাতীয় গড় ৭৪% এর চেয়ে বেশি: পুরুষ সাক্ষরতার হার ৮৫.৩৩%, এবং মহিলা সাক্ষরতার হার ৭৮.৬৮%।[৫২] গ্যাংটকের জনসংখ্যার প্রায় ৮% নয়টি বিজ্ঞাপিত বস্তি এবং স্কোয়াটার বসতিতে বাস করে, যার সবগুলোই সরকারি জমিতে। আরও বেশি লোক এমন অঞ্চলে বাস করে যা বস্তির মতো বৈশিষ্ট্যগুলি চিত্রিত করে তবে এখনও বস্তি হিসাবে চিহ্নিত করা হয়নি। কারণ তারা ব্যক্তিগত জমিতে বিকশিত হয়েছে।[৫৩] সিকিমের মোট শহুরে জনসংখ্যার মধ্যে, গ্যাংটক মিউনিসিপ্যাল কর্পোরেশনের ৫৫.৫% এর একটি অংশ রয়েছে। গ্যাংটক সহ, পূর্ব জেলার মোট শহুরে জনসংখ্যার ৮৮% এর একটি অংশ রয়েছে। জীবনযাত্রার মান, উন্নয়নের গতি এবং মৌলিক অবকাঠামোর প্রাপ্যতা এবং কর্মসংস্থানের সম্ভাবনাগুলি শহরে দ্রুত অভিবাসনের প্রধান কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। এই অভিবাসনের সাথে সাথে, শহুরে পরিষেবাগুলি চাপের মধ্যে রয়েছে, অবকাঠামোগত উন্নয়নের জন্য উপযুক্ত জমির প্রাপ্যতার অভাবের কারণে তীব্রতর হয়েছে।[১২]

জাতিগত নেপালিরা ব্রিটিশ শাসনামলে এই অঞ্চলে বসতি স্থাপন করেছিল।[৫৪] তারা গ্যাংটকের অধিকাংশ বাসিন্দা। লেপচারা এই ভূমির স্থানীয় এবং ভুটিয়ারাও জনসংখ্যার একটি বড় অংশ গঠন করে।[৫৪] উপরন্তু, বিপুল সংখ্যক তিব্বতি শহরে অভিবাসী হয়েছে। অভিবাসী বাসিন্দা সম্প্রদায়গুলি এই অঞ্চলের স্থানীয় নয়। তাদের মধ্যে রয়েছে মারোয়ারি,[১২] বিহারী এবং বাঙালিরা,

হিন্দুধর্ম এবং বৌদ্ধ ধর্ম গ্যাংটকের সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য ধর্ম।[২২] গ্যাংটকে একটি বিশাল খ্রিস্টান জনসংখ্যা এবং একটি ছোট মুসলিম সংখ্যালঘু জনগোষ্ঠী রয়েছে।[২২] নর্থ ইস্ট প্রেসবিটেরিয়ান চার্চ, রোমান ক্যাথলিক চার্চ এবং গ্যাংটকের আঞ্জুমান মসজিদ ধর্মীয় সংখ্যালঘুদের উপাসনালয়।[৫৫] শহরটিকে সাম্প্রদায়িক করা হয়নি, এর ইতিহাসে কখনো কোনো ধরনের আন্তঃধর্মীয় সংঘর্ষের সাক্ষী হয়নি।[৫৬] নেপালি হল সিকিমের পাশাপাশি গ্যাংটকের সবচেয়ে ব্যাপকভাবে কথ্য ভাষা।[৫৭] ইংরেজি এবং হিন্দি যথাক্রমে সিকিম এবং ভারতের সরকারি ভাষা হওয়ায় সিকিমের বেশিরভাগ অঞ্চলে, বিশেষ করে গ্যাংটকে ব্যাপকভাবে কথ্য ও বোঝা যায়।[৫৮][৫৯] গ্যাংটকে কথিত অন্যান্য ভাষার মধ্যে রয়েছে ভুটিয়া (সিক্কিমী ভাষা ), তিব্বতি এবং লেপচা,

সংস্কৃতি[সম্পাদনা]

দশইন, তিহার, বড়দিন, হোলি ইত্যাদি প্রধান ধর্মীয় উৎসবগুলি ছাড়াও, শহরের বিভিন্ন জাতিগত জনগোষ্ঠী বেশ কয়েকটি স্থানীয় উত্সব উদযাপন করে। লেপচা এবং ভুটিয়ারা জানুয়ারিতে নতুন বছর উদযাপন করে। অন্যদিকে তিব্বতিরা জানুয়ারি-ফেব্রুয়ারিতে "চাম নাচ" এর সাথে নতুন বছর (লোসার) উদযাপন করে। মাঘী সংক্রান্তি, রাম নবমী নেপালিদে কিছু গুরুত্বপূর্ণ উৎসব। চোট্রুল দুচেন, বুদ্ধ জয়ন্তী, দালাই লামার জন্মদিন, লুসোং, ভুমচু, সাগা দাওয়া, লাবাব ডুচেন এবং দ্রুপকা তেশি হল কিছু অন্যান্য উত্সব, কিছু স্থানীয় সংস্কৃতির সাথে আলাদা এবং অন্যগুলি বাকি ভারত, নেপাল, ভুটান এবং তিব্বতের সাথে সামাঞ্জস্যপূর্ণ হয়।[২২][৬০]

গ্যাংটকের একটি জনপ্রিয় খাবার হল মোমো[৬১] একটি বাষ্পযুক্ত ডাম্পলিং যা শুয়োরের মাংস, গরুর মাংস এবং শাকসবজি ধারণ করে যা একটি ময়দা মোড়ানোয় রান্না করা হয় এবং জলযুক্ত স্যুপ দিয়ে পরিবেশন করা হয়। ওয়াই-ওয়াই হচ্ছে নুডলসের সমন্বয়ে গঠিত একটি প্যাকেটজাত করা নাস্তাজাতীয় খাদ্য। এটি শুকনো বা স্যুপ আকারে খাওয়া হয়। গ্যাংটকে থুকপা নামে এক ধরনের নুডলস স্যুপ আকারে পরিবেশন করা হয়।[৬১] এই খাবার গ্যাংটকে বেশ জনপ্রিয়। অন্যান্য নুডল-ভিত্তিক খাবার যেমন চাউমিন, থ্যাথুক, ফকথু, গিয়াথুক এবং ওন্টন পাওয়া যায়। অন্যান্য ঐতিহ্যবাহী সিকিমিজ রন্ধনপ্রণালীগুলির মধ্যে রয়েছে শাহ-ফ্যালি (একটি খাস্তা সমুচার মতো ক্ষেত্রে মশলাযুক্ত কিমাযুক্ত মাংসের সাথে সিকিমিজ প্যাটিস) এবং গাক-কো স্যুপ।[৬২] রেস্তোঁরাগুলি পর্যটকদের জন্য বিভিন্ন ধরণের ঐতিহ্যবাহী ভারতীয়, মহাদেশীয় এবং চীনা রন্ধনপ্রণালী সরবরাহ করে। চুরপি, গরু বা চমরী গাইয়ের (ইয়াক) দুধ থেকে তৈরি এক ধরনের শক্ত পনির মাঝে মাঝে চিবিয়ে খাওয়া হয়। ছাং হল একটি স্থানীয় ফেনাযুক্ত বাজরা বিয়ার যা ঐতিহ্যগতভাবে বাঁশের ট্যাঙ্কার্ডে পরিবেশন করা হয় এবং বাঁশ বা বেতের খড়ের মাধ্যমে পান করা হয়।[৬২]

ফুটবল (সকার), ক্রিকেট এবং তীরন্দাজ গ্যাংটকের সবচেয়ে জনপ্রিয় খেলা।[২২] গ্যাংটক শহরের পালজোর স্টেডিয়ামে নিয়মিত ফুটবল ম্যাচ অনুষ্ঠিত হয়। তবে এটি শহরের একমাত্র ক্রিড়া স্টেডিয়াম। সিকিমের একটি উল্লেখযোগ্য হস্তশিল্প হচ্ছে থাংকা। এটি একটি বিস্তৃতভাবে হাতে আঁকা একটি উজ্জ্বল রঙের ধর্মীয় স্ক্রোল যা একটি মঠ বা পারিবারিক বেদিতে টাঙানো কাপড়ের (পট) উপর আঁকা হয়। মাঝে মাঝেই আনুষ্ঠানিক শোভাযাত্রায় সন্ন্যাসী থাংকা বহন করে থাকে।[৬০] চাম নাচ হল স্পষ্টভাবে পোশাকধারী সন্ন্যাসীদের নৃত্য যা আনুষ্ঠানিক এবং উত্সব অনুষ্ঠানে, বিশেষ করে তিব্বতি নববর্ষের সময় মঠগুলিতে করা হয়।[৬০]

শহরের প্রতিষ্ঠান[সম্পাদনা]

বৌদ্ধ শিক্ষা ও সংস্কৃতির একটি কেন্দ্র হিসেবে পরিচিত গ্যাংটকের সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য বৌদ্ধ প্রতিষ্ঠান হল এনচে মঠ[৫], দো-দ্রুল চোরটেন স্তুপ কমপ্লেক্স এবং রুমটেক মঠ, এনচে মঠটি শহরের প্রাচীনতম মঠ এবং এটি র্ন্যিং-মা অর্ডারের আসন।[৫৫] দুইশত বছরের পুরনো বারোক মঠে দেবতা, দেবদেবী এবং অন্যান্য ধর্মীয় প্রত্নবস্তুর ছবি রয়েছে।[৫৫] জানুয়া্রি মাসে চাম বা মুখোশ নাচ খুব ধুমধাম করে পরিবেশিত হয়। ডো-ড্রুল চোরটেন একটি স্তূপ যা ১৯৪৫ সালে তিব্বতি বৌদ্ধ ধর্মের নাইংমা আদেশের প্রধান ট্রুলশিক রিম্পোচে নির্মাণ করেছিলেন।[৫৫] এই স্তূপের ভিতরে সম্পূর্ণ ধ্বংসাবশেষ, পবিত্র বই এবং মন্ত্র রয়েছে। ভবনটির চারপাশে ১০৮টি মণি লাকোর বা প্রার্থনার চাকা রয়েছে।[৫৫] কমপ্লেক্সে একটি ধর্মীয় বিদ্যালয়ও রয়েছে।

শহরের উপকণ্ঠে রুমটেক মঠটি বৌদ্ধধর্মের সবচেয়ে পবিত্র মঠগুলির মধ্যে একটি। মঠটি কাগু অর্ডারের আসন, প্রধান তিব্বতী সম্প্রদায়গুলির মধ্যে একটি, এবং বিশ্বের সবচেয়ে পবিত্র এবং বিরল তিব্বতি বৌদ্ধ ধর্মগ্রন্থ এবং ধর্মীয় বস্তুগুলির মধ্যে কিছু রয়েছে। ১৯৬০-এর দশকে নির্মিত এই ভবনটি তিব্বতের লাসার একটি অনুরূপ মঠের আদলে তৈরি করা হয়েছে। রুমটেক ২০০০ সালে আন্তর্জাতিক মিডিয়ার দৃষ্টি আকর্ষণের কেন্দ্রবিন্দু ছিল। তখন চারজন পবিত্রতম লামার মধ্যে একজন চতুর্দশ কারমাপা লাসা থেকে পালিয়ে মঠে আশ্রয় নিয়েছিলেন।[৬৩][৬৪]

সিকিমের নামগিয়াল ইনস্টিটিউট অফ টিবেটোলজি তিব্বতবিদ্যা জাদুঘর নামে বেশি পরিচিত। সেখানে মুখোশ, বৌদ্ধ ধর্মগ্রন্থ, মূর্তি এবং ট্যাপেস্ট্রির বিশাল সংগ্রহ রয়েছে।[৬৫] এটিতে দুই শতাধিক বৌদ্ধ আইকন রয়েছে এবং এটি বৌদ্ধ দর্শনের অধ্যয়নের কেন্দ্র। শহরের কেন্দ্রস্থলে অবস্থিত ঠাকুরবাড়ি মন্দির ১৯৩৫ সালে সিকিমের তৎকালীন মহারাজা কর্তৃক দান করা জমির একটি প্রধান অংশে স্থাপিত। এটি শহরের প্রাচীনতম এবং সর্বাধিক পরিচিত হিন্দু মন্দিরগুলির মধ্যে একটি। [৬৬] [৬৭] গণেশ টোক এবং হনুমান টোক, হিন্দু দেবতা গণপতি এবং হনুমানকে উত্সর্গীকৃত এবং গুরুত্বপূর্ণ হিন্দু দেবতাদের বাসস্থান এই শহরের উপরের অংশে অবস্থিত।[৬৮][৬৯] হিমালয়ান জুলজিক্যাল পার্ক হিমালয়ের প্রাণীজগতকে তাদের প্রাকৃতিক আবাসস্থলে প্রদর্শন করে। চিড়িয়াখানায় হিমালয়ের কালো ভাল্লুক, লাল পান্ডা, বার্কিং ডিয়ার, স্নো লেপার্ড, চিতাবাঘ বিড়াল, তিব্বতি নেকড়ে, মুখোশযুক্ত পাম সিভেট এবং দাগযুক্ত হরিণ রয়েছে।[৭০] রুমটেকের কাছে জওহরলাল নেহরু বোটানিক্যাল গার্ডেনে অনেক প্রজাতির অর্কিড এবং বহু ওক সহ ৫০টির মতো বিভিন্ন প্রজাতির গাছ রয়েছে।[৭১]

শিক্ষা[সম্পাদনা]

গ্যাংটকের স্কুলগুলি হয় রাজ্য সরকার বা ব্যক্তিগত এবং ধর্মীয় সংস্থা দ্বারা পরিচালিত হয়। স্কুলগুলি প্রধানত তাদের শিক্ষার মাধ্যম হিসাবে ইংরেজি এবং নেপালি ভাষা ব্যবহার করে। স্কুলগুলি হয় ইন্ডিয়ান সার্টিফিকেট অফ সেকেন্ডারি এডুকেশন, সেন্ট্রাল বোর্ড অফ সেকেন্ডারি এডুকেশন বা ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অফ ওপেন স্কুলিং এর সাথে অনুমোদিত। উল্লেখযোগ্য বিদ্যালয়ের মধ্যে রয়েছে তাশি নামগিয়াল একাডেমি,[৭২] পালজোর নামগিয়াল গার্লস স্কুল, হলি ক্রস স্কুল, তাকসে ইন্টারন্যাশনাল স্কুল এবং কেন্দ্রীয় বিদ্যালয়,[৭৩]

এই শহরের স্নাতক ডিগ্রি প্রদানকারী কলেজগুলির মধ্যে রয়েছে সিকিম গভর্নমেন্ট কলেজ, সিকিম গভর্নমেন্ট ল কলেজ এবং ডাম্বার সিং কলেজ।[১২] ২০০৭ সালে প্রতিষ্ঠিত সিকিম বিশ্ববিদ্যালয় গ্যাংটকে কার্যক্রম পরিচালনা করছে। বিশ্ববিদ্যালয়টি তার নিজস্ব ক্যাম্পাস প্রতিষ্ঠার জন্য পার্শ্ববর্তী ইয়াং ইয়াং শহরে জমি বরাদ্দ করা হয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়টি বিভিন্ন ধরণের কোর্স সরবরাহ করে এবং এর সাথে যুক্ত বেশ কয়েকটি প্রতিষ্ঠান রয়েছে। এখান থেকে ৮ কিলোমিটার (৫.০ মাইল) দূরে সিকিম মণিপাল বিশ্ববিদ্যালয়ের সদর দপ্তর, যেখানে সিকিম মণিপাল ইনস্টিটিউট অফ মেডিকেল সায়েন্সেস এবং সিকিম মণিপাল ইনস্টিটিউট অফ টেকনোলজি রয়েছে।[১২] ইন্দিরা গান্ধী জাতীয় উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়েরও এই শহরে একটি আঞ্চলিক কেন্দ্র রয়েছে। বৌদ্ধ সাহিত্য, ক্যাটারিং এবং অন্যান্য অ-মূলধারার ক্ষেত্রগুলিতে ডিপ্লোমা সরবরাহকারী অন্যান্য প্রতিষ্ঠান রয়েছে।[১২] ডিস্ট্রিক্ট ইনস্টিটিউট অফ এডুকেশন অ্যান্ড ট্রেনিং এবং স্টেট ইনস্টিটিউট অফ এডুকেশন শিক্ষক প্রশিক্ষণ প্রোগ্রাম পরিচালনা করে।[৭৪][৭৫]

গণমাধ্যম[সম্পাদনা]

সিকিমে ৫০টিরও বেশি সংবাদপত্র প্রকাশিত হয়।[৭৬] একাধিক স্থানীয় নেপালি এবং ইংরেজি সংবাদপত্র প্রকাশিত হয়।[৭৭] এখানে ভারতের অন্যত্র মুদ্রিত আঞ্চলিক এবং জাতীয় হিন্দি ও ইংরেজি সংবাদপত্রগুলিও প্রচারিত হয়। ইংরেজি সংবাদপত্রের মধ্যে রয়েছে দ্য স্টেটসম্যান এবং দ্য টেলিগ্রাফ, যেগুলি শিলিগুড়িতে ছাপা হয়; দ্য হিন্দু এবং টাইমস অফ ইন্ডিয়া, যা কলকাতা থেকে ছাপা হয়। সিকিম হেরাল্ড, সিকিম সরকারের নিউজ উইকলি রাজ্যের তেরোটি ভাষায় প্রকাশিত হয়। [৭৬]

গ্যাংটকে নেপালি, হিন্দি এবং ইংরেজি ভাষার চলচ্চিত্র সমন্বিত দুটি সিনেমা হল রয়েছে।[৭৬] শহরে একটি পাবলিক লাইব্রেরিও রয়েছে। [৭৬]

প্রধান পরিষেবা প্রদানকারীরা হল সিকিম ক্যাবল, নয়ুমা,[৭৮] ডিশ টিভি এবং দূরদর্শন, অল ইন্ডিয়া রেডিওর গ্যাংটকে একটি স্থানীয় স্টেশন রয়েছে, যা জনস্বার্থের বিভিন্ন অনুষ্ঠান প্রচার করে। গ্যাংটকের তিনটি এফএম স্টেশন রয়েছে যথা ৯৩.৫ (রেড এফএম), ৯৫.০ (রেডিও মিস্টি), ৯১.৯ (নাইন এফএম) এবং একটি এআইআর গ্যাংটক রেডিও স্টেশন। [৭৯] ভারত সঞ্চার নিগম লিমিটেড, ভোডাফোন ইন্ডিয়া, জিও এবং ভারতী এয়ারটেলের শহরে চারটি বৃহত্তম সেলুলার নেটওয়ার্ক রয়েছে। এখানে ৪G পরিষেবাগুলি শহরের সীমার মধ্যে উপলব্ধ। গ্যাংটকে একটি দূরদর্শন টিভি স্টেশন আছে।[৮০]

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Gangtokmunicipalcorporation.org"। Gangtokmunicipalcorporation.org। ৩১ ডিসেম্বর ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩০ ডিসেম্বর ২০১২ 
  2. "Gangtok, India page"Global Gazetteer Version 2.1। Falling Rain Genomics, Inc। ১৭ জুলাই ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৯ জুন ২০১১ 
  3. "1977 Sikkim government gazette" (PDF)sikkim.gov.in (ইংরেজি ভাষায়)। Governor of Sikkim। পৃষ্ঠা 188। ২২ জুলাই ২০১৮ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৮ মে ২০১৯ 
  4. "50th Report of the Commissioner for Linguistic Minorities in India" (PDF)। ১৬ জুলাই ২০১৪। পৃষ্ঠা 109। ২ জানুয়ারি ২০১৮ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৮ মে ২০১৯ 
  5. Bannerjee, Parag (১৪ অক্টোবর ২০০৭)। "Next weekend you can be at ... Gangtok"The Telegraph। ২১ ফেব্রুয়ারি ২০০৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২১ মে ২০০৮ 
  6. Shangderpa, Pema Leyda (৬ অক্টোবর ২০০৩)। "Kids to learn hill state history"The Telegraph। ২৩ অক্টোবর ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২ মে ২০০৮ 
  7. Bernier, Ronald M. (১৯৯৭)। Himalayan Architectureবিনামূল্যে নিবন্ধন প্রয়োজন। Fairleigh Dickinson Univ Press। পৃষ্ঠা 40–42আইএসবিএন 0-8386-3602-0 
  8. Lepcha, N.S। "Gangtok Capital Attraction"Himalayan Travel Trade Journal। MD Publishing Co. Pvt. Ltd। ১৬ আগস্ট ২০০৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩ মে ২০০৮ 
  9. "History of Sikkim"sikkim.nic.inNational Informatics Centre, Sikkim। ৩০ এপ্রিল ২০০১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০ মে ২০০৮ 
  10. Jha, Prashant (আগস্ট ২০০৬)। "Special report: A break in the ridgeline"Himal South Asia। South Asia Trust। ৩০ অক্টোবর ২০০৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০ মে ২০০৮ 
  11. "Historic India-China link opens"BBC News। ৬ জুলাই ২০০৬। ৭ জুলাই ২০০৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৬ জুলাই ২০০৬ 
  12. "Section 4: City Assessment" (PDF)City Development Plan-Gangtok City। Jawaharlal Nehru National Urban Renewal Mission, Ministry of Urban Development, Government of India। ৫ ফেব্রুয়ারি ২০১১ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৮ জুন ২০১১ 
  13. "Geographical Location"Meteorological Centre, Gangtok। India Meteorological Department, Ministry of Earth Sciences, Government of India। ১২ মে ২০০৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩ মে ২০০৮ 
  14. Negi, S. S. (১৯৯৮)। Discovering the Himalaya। Indus Publishing। পৃষ্ঠা 563। আইএসবিএন 81-7387-079-9 
  15. "Gangtok City"mapsofindia.com। Compare Infobase Limited। ১৬ মার্চ ২০০৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩ মে ২০০৮ 
  16. "Section 2: Introduction To The State And Its Capital" (PDF)City Development Plan-Gangtok City। Jawaharlal Nehru National Urban Renewal Mission, Ministry of Urban Development, Government of India। ২৮ মে ২০০৮ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৭ মে ২০০৮ 
  17. "স্টেশন: গ্যাংটকের জলবায়ু-বিষয়ক ছক ১৯৮১-২০০০" (PDF)Climatological Normals 1981–2010। ভারতের আবহাওয়া বিভাগ। জানুয়ারি ২০১৫। পৃষ্ঠা 279–280। ৫ ফেব্রুয়ারি ২০২০ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৭ অক্টোবর ২০২০ 
  18. "Extremes of Temperature & Rainfall for Indian Stations (Up to 2012)" (PDF)। India Meteorological Department। ডিসেম্বর ২০১৬। পৃষ্ঠা M190। ৫ ফেব্রুয়ারি ২০২০ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৫ ফেব্রুয়ারি ২০২০ 
  19. "স্টেশন"। ভারতের আবহাওয়া বিভাগ। সংগ্রহের তারিখ ৫ ফেব্রুয়ারি ২০২০ 
  20. "Meteorological data in respect of Gangtok and Tadong station"Meteorological Centre, Gangtok। India Meteorological Department, Ministry of Earth Sciences, Government of India। ১৪ জুন ২০০৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৭ মে ২০০৮ 
  21. "Gangtok sees snowfall after 15 years"Northeast Today। ৭ জানুয়ারি ২০২০। সংগ্রহের তারিখ ৯ জানুয়ারি ২০২০ 
  22. "Section 3: Social, Demographic & Economic Profile" (PDF)City Development Plan-Gangtok City। Jawaharlal Nehru National Urban Renewal Mission, Ministry of Urban Development, Government of India। ৯ এপ্রিল ২০১১ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৮ জুন ২০১১ 
  23. Press Trust of India (২৪ এপ্রিল ২০০৮)। "Tourist inflow in Sikkim up 10% in 2007"Business Standard। ১১ মে ২০০৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৭ মে ২০০৮ 
  24. Sen, Piyali (২৭ জানুয়ারি ২০২০)। "Secret Gangtok: 5 Things That No One Will Tell You About"Outlook (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ১ সেপ্টেম্বর ২০২০ 
  25. Sinha, A. C. (সেপ্টেম্বর ২০০৫)। "Nathula: Trading in uncertainty"Himal South Asia। South Asia Trust। Archived from the original on ১০ মে ২০০৮। সংগ্রহের তারিখ ৭ মে ২০০৮ 
  26. Atreya, Satikah (৪ মার্চ ২০০৮)। "Decision to exempt incomes of Sikkim subjects hailed"The Hindu Business Line। ১ জুলাই ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৮ জুন ২০১১ 
  27. Mohan, C. Raja (২৯ জুন ২০০৩)। "Building a gateway to Tibet"The Hindu। Archived from the original on ৪ মে ২০০৮। সংগ্রহের তারিখ ২১ মে ২০০৮ 
  28. Shangderpa, Pema Leyda (১২ জুলাই ২০০৩)। "Ducking court blow, Gangtok retailers play to win"The Telegraph। ১০ মে ২০০৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১২ জুলাই ২০০৩ 
  29. Paull, John (2017) "Four New Strategies to Grow the Organic Agriculture Sector" ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ৪ মার্চ ২০১৮ তারিখে, Agrofor International Journal, 2(3):61-70.
  30. "Introduction"Urban Development and Housing Department। Government of Sikkim। ১৪ সেপ্টেম্বর ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৭ মে ২০০৮ 
  31. "Section 8: City Management and Institutional Strengthening" (PDF)City Development Plan-Gangtok City। Jawaharlal Nehru National Urban Renewal Mission, Ministry of Urban Development, Government of India। ২৬ মার্চ ২০১২ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৮ জুন ২০১১ 
  32. Mitta, Manoj (২৭ ডিসেম্বর ২০০৬)। "Gangtok turns 'kaala paani' for high court judges"The Times of India। ২৭ নভেম্বর ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৮ জুন ২০১১ 
  33. "List of IPS officers and place of posting"। Department of Information Technology, Government of Sikkim। ৯ মে ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২ মে ২০০৮ 
  34. "Sikkim Police: History"। Sikkim police website। ২১ জুলাই ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৮ জুন ২০১১ 
  35. "Maps"Prison Statistics India: 2005। National Crime Records Bureau, Government of India। জুন ২০০৭। ২২ এপ্রিল ২০০৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৭ মে ২০০৮ 
  36. "Election Result of Sikkim Lok Sabha Constituency"Biographical Sketch, Member of Parliament, 12th Lok Sabha। Indian Parliament, National Informatics Centre। ৯ আগস্ট ২০০৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২১ মে ২০০৮ 
  37. "Sikkim Assembly Elections 2004 Results"Assembly Elections 2004, Indian-ElectionsElection Commission of India। ১০ জুন ২০০৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২১ মে ২০০৮ 
  38. "City Assessment: Physical Infrastructure" (PDF)City Development Plan-Gangtok City। Jawaharlal Nehru National Urban Renewal Mission, Ministry of Urban Development, Government of India। পৃষ্ঠা 4–25। ৫ ফেব্রুয়ারি ২০১১ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৮ জুন ২০১১ 
  39. "City Assessment: Physical Infrastructure" (PDF)City Development Plan-Gangtok City। Jawaharlal Nehru National Urban Renewal Mission, Ministry of Urban Development, Government of India। পৃষ্ঠা 4–27। ৫ ফেব্রুয়ারি ২০১১ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৮ জুন ২০১১ 
  40. "Gangtok ready for ropeway ride"The Telegraph। ২৬ নভেম্বর ২০০৩। ১০ মে ২০০৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৫ জুলাই ২০০৮ 
  41. Khanna, Rohit (১১ আগস্ট ২০১৫)। "Bengal-Sikkim tussle over NH-10"The Times of India। ৫ জানুয়ারি ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৩ জুলাই ২০১৬ 
  42. "Gangtok"। Sikkiminfo website। ৫ জুলাই ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৮ জুন ২০১১ 
  43. "Speech of Mamata Banerjee introducing the Railway Budget 2010-11 on 24th February 2010" (PDF)। ৩০ মার্চ ২০১০। ৩০ মার্চ ২০১০ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩০ ডিসেম্বর ২০১২ 
  44. PTI (২ মে ২০১৮)। "Sikkim's Pakyong airport to become 100th functional airport in India: Jayant Sinha"Hindustan Times (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ৮ এপ্রিল ২০২১ 
  45. Sinha, Avijit (১১ নভেম্বর ২০১৭)। "Wait for Sikkim air link"The Telegraph। সংগ্রহের তারিখ ৮ এপ্রিল ২০২১ 
  46. "Sikkim's Greenfield Airport"Punjlloyd। সংগ্রহের তারিখ ৪ আগস্ট ২০১২ 
  47. "PM Modi to inaugurate Sikkim's first-ever airport today"The Indian Express (ইংরেজি ভাষায়)। ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮। সংগ্রহের তারিখ ৮ এপ্রিল ২০২১ 
  48. "Sikkim to get its first airport at Pakyong"The Indian Express। ১৭ নভেম্বর ২০০৭। সংগ্রহের তারিখ ৪ আগস্ট ২০১২ 
  49. "Pakyong airport in Sikkim to become the 100th functional airport in India: Jayant Sinha"Financial Express। PTI। ৩ মে ২০১৮। সংগ্রহের তারিখ ৫ মে ২০১৮ 
  50. "PM Narendra Modi inaugurates Sikkim's Pakyong airport"The Economic Times। ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮। সংগ্রহের তারিখ ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮ 
  51. "Sikkim's Pakyong Airport welcomes first commercial flight in state with water cannon salute"First Post। ৪ অক্টোবর ২০১৮। সংগ্রহের তারিখ ৪ অক্টোবর ২০১৮ 
  52. "Population of Sikkim – 2011 census results"। populationindia.com। ১৪ মে ২০১১। ৩১ মে ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৮ জুন ২০১১ 
  53. "Section 5: Urban Poor and Housing Situation" (PDF)City Development Plan-Gangtok City। Jawaharlal Nehru National Urban Renewal Mission, Ministry of Urban Development, Government of India। ২৬ মার্চ ২০১২ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৮ জুন ২০১১ 
  54. "People"। Department of Information and Public Relations, Government of Sikkim। ২২ মে ২০০৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৯ মে ২০০৮ 
  55. "Tourism"। Department of Information and Public Relations, Government of Sikkim। ১০ মে ২০০৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৯ মে ২০০৮ 
  56. Dorjee, C. K. (৫ ডিসেম্বর ২০০৩)। "The Ethnic People of Sikkim"Features। Press Information Bureau, Government of India। ৫ ডিসেম্বর ২০০৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২১ মে ২০০৮ 
  57. "People of Sikkim"। Government of Sikkim। ২২ মে ২০০৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩০ মে ২০০৮ 
  58. "Introduction to Sikkim"। Government of Sikkim। ১০ মে ২০০৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩০ মে ২০০৮ 
  59. "Constitution of India as of 29 July 2008" (PDF)The Constitution of India। Ministry of Law & Justice। ৯ সেপ্টেম্বর ২০১৪ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৩ এপ্রিল ২০১১ 
  60. "Festivals of Sikkim"Culture। Department of Information and Public Relations, Government of Sikkim। ৮ মে ২০০৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৯ মে ২০০৮ 
  61. Shangderpa, Pema Leyda (৩ সেপ্টেম্বর ২০০২)। "Sleepy capital comes alive to beats of GenX"The Telegraph। ১০ মে ২০০৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৭ মে ২০০৮ 
  62. Gantzer, Hugh; Colleen Gantzer (১১ জুন ২০০৬)। "The seat of esoteric knowledge"Deccan Herald। The Printers (Mysore) Private Ltd। ১১ মে ২০০৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৭ মে ২০০৮ 
  63. Harding, Luke (৩০ এপ্রিল ২০০১)। "Tibetan leader at crossroads"The Guardian। Guardian News and Media Limited। ২৫ আগস্ট ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৮ জুন ২০১১ 
  64. Cheung, Susanna Chui-Yung (৫ এপ্রিল ২০০০)। "The flight of the Karmapa and the security of South Asia"The Taipei Times। ২০ ফেব্রুয়ারি ২০০৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২১ মে ২০০৮ 
  65. "Museum"Namgyal Institute of Tibetology। Archived from the original on ১০ জুন ২০০৮। সংগ্রহের তারিখ ২১ মে ২০০৮ 
  66. "Some Aspect of Bhutia Culture in Sikkim (a Case Study)" (PDF)। ১৮ জানুয়ারি ১৯৯৫। ২ ফেব্রুয়ারি ২০১২ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩০ সেপ্টেম্বর ২০১১ 
  67. "Gangtok Tourist Attractions"। Gangtok Hotels। ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  68. "Slides snap road links in hill state"The Telegraph। ১৭ জুলাই ২০০৭। ৯ অক্টোবর ২০০৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২১ মে ২০০৮ 
  69. "Army lands in row over Baba"The Telegraph। ৪ জানুয়ারি ২০০৭। ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০০৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২১ মে ২০০৮ 
  70. "Himalayan Zoological Park"। Forests, Environment and Forests Management Department, Government of Sikkim। ২৯ জানুয়ারি ২০০৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২২ মে ২০০৮ 
  71. "Jawaharlal Nehru Botanical Garden"। BharatOnline.com। ৩ মে ২০০৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২২ মে ২০০৮ 
  72. Chettri, Naresh (২১ এপ্রিল ২০১১)। "Annual Prize Day held at Tashi Namgyal Academy"। isikkim.com। ২৩ এপ্রিল ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৮ জুন ২০১১ 
  73. "Kendriya Vidyalaya"Kendriya Vidyalaya Sangathan। National Informatics Centre (NIC), Government of India। ২৮ জুন ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৮ জুন ২০১১ 
  74. "District Institute of Education and Training, Gangtok"। National Informatics Centre (NIC), Sikkim State Centre। ২১ জুলাই ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৮ জুন ২০১১ 
  75. "Education Statistics"Sikkim: A Statistical Profile। Department of Information and Public Relations, Government of Sikkim। ১৩ মে ২০০৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৯ মে ২০০৮ 
  76. "About Us"। Department of Information and Public Relations, Government of Sikkim। ১৬ মে ২০০৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৯ মে ২০০৮ 
  77. "Newspapers in Sikkim"। Department of Information and Public Relations, Government of Sikkim। ২০ জানুয়ারি ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৮ জুন ২০১১ 
  78. Shangderpa, Pema Leyda (২৮ জানুয়ারি ২০০৩)। "Bhandari adds political colour to cable war"The Telegraph। ২৬ মে ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৯ মে ২০০৮ 
  79. "Radio Stations in Sikkim, India"asiawaves.net 
  80. "Facts and Figures about Sikkim"। Government of Sikkim। ১ মে ২০০৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৯ মে ২০০৮ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]

  • উইকিভ্রমণ থেকে গ্যাংটক ভ্রমণ নির্দেশিকা পড়ুন।

টেমপ্লেট:সিকিম জেলার রাজধানীটেমপ্লেট:পূর্ব সিকিম জেলাটেমপ্লেট:উত্তর-পূর্ব ভারত