নরেন্দ্র মোদী

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
সরাসরি যাও: পরিভ্রমণ, অনুসন্ধান
নরেন্দ্র দামোদরদাস মোদী
CM Narendra Damodardas Modi.jpg
ভারতের পঞ্চদশ প্রধানমন্ত্রী
অধিকৃত অফিস
২৬শে মে, ২০১৪
রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখোপাধ্যায়
পূর্বসূরী মনমোহন সিং
গুজরাটের চতুর্দশ মুখ্যমন্ত্রী
অফিসে
৭ অক্টোবর, ২০০১ – ২১শে মে, ২০১৪
গভর্নর সুন্দর সিং ভাণ্ডারি
কৈলাশপতি মিশ্র
বলরাম জাখর
নওয়াল কিশোর শর্মা
এস সি জমির
কমলা বেণীওয়াল
পূর্বসূরী কেশুভাই পটেল
উত্তরসূরী আনন্দীবেন পটেল
ব্যক্তিগত বিবরণ
জন্ম নরেন্দ্র দামোদরদাস মোদী
(১৯৫০-০৯-১৭) ১৭ সেপ্টেম্বর ১৯৫০ (বয়স ৬৬)
বড়নগর, ভারত
রাজনৈতিক দল বিজেপি
দাম্পত্য সঙ্গী যশোদাবেন নরেন্দ্রভাই মোদী
প্রাক্তন ছাত্র দিল্লি বিশ্ববিদ্যালয়
গুজরাট বিশ্ববিদ্যালয়
ধর্ম হিন্দুধর্ম
স্বাক্ষর
ওয়েবসাইট ওয়েবসাইট

নরেন্দ্র দামোদরদাস মোদী (গুজরাটি ভাষায়: નરેન્દ્ર દામોદરદાસ મોદી; এই শব্দ সম্পর্কে উচ্চারণ শুনুন , জন্ম ১৭ই সেপ্টেম্বর, ১৯৫০) ভারতের পঞ্চদশ প্রধানমন্ত্রী। এই রাজনীতিবিদ ২০১৪ খ্রিষ্টাব্দে অনুষ্ঠিত ষোড়শ সাধারণ নির্বাচনে ভারতীয় জনতা পার্টিকে নেতৃত্ব প্রদানের মাধ্যমে বহুমতের দ্বারা জয়লাভ লাভ করেন[১][২][৩] এবং ২৬শে মে ভারতের পঞ্চদশ প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শপথ গ্রহণ করেন।[৪][৫] এর আগে তিনি গুজরাটের চতুর্দশ মুখ্যমন্ত্রী পদে অধিষ্ঠিত ছিলেন।

মোদী রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সঙ্ঘ নামক হিন্দুত্ববাদী সংগঠনের একজন সদস্য এবং সংবাদমাধ্যম ও বিদগ্ধজনের মতো তিনি নিজেকে একজন হিন্দু জাতীয়তাবাদী হিসেবে দাবী করেন।[৬][৭][৮][৯]

২০০২ খ্রিষ্টাব্দের গুজরাত দাঙ্গার ঘটনায় তাঁর প্রশাসন সমালোচিত হওয়ায়[১০][১১] ভারত ও বিদেশে তিনি একজন বিতর্কিত ব্যক্তি হিসেবে পরিচিত[১০][১২][১৩][১৪] কিন্তু গুজরাটের অর্থনৈতিক উন্নতির বৃদ্ধিতে সহায়ক পরিবেশ গঠনের জন্য তিনি তাঁর আর্থিক নীতির জন্য প্রশংসিত হয়েছেন।[১৫] অন্যদিকে তাঁর রাজ্যের মানবোন্নয়নের ওপর গঠনমূলক প্রভাব বিস্তারে তাঁর প্রশাসনে্র অক্ষমতার জন্য তিনি সমালোচিতও হয়েছেন।[১৬]

প্রাথমিক জীবন ও শিক্ষা[সম্পাদনা]

১৭ই সেপ্টেম্বর, ২০১৩ সালে ৬৩ তম জন্মদিনে মায়ের সাথে মোদী।

নরেন্দ মোদী ১৯৫০ খ্রিষ্টাব্দের ১৭ই সেপ্টেম্বর বম্বে প্রেসিডেন্সির (বর্তমান গুজরাট রাজ্যের) মহেসানা জেলার বড়নগর নামক স্থানে ঘাঞ্চী তেলী সম্প্রদায়ের এক নিম্নবর্গের পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন।[১৭][১৮][১৯][২০][২১] তিনি তাঁর পিতামাতার চার সন্তানের মধ্যে তৃতীয় ছিলেন।[২২] তাঁর পিতার নাম দামোদারদাস মূলচাঁদ মোদী ও মায়ের নাম হীরাবেন মোদী। বড়নগর রেলস্টেশনে তিনি তাঁর পিতাকে চা বিক্রি করতে সহায়তা করতেন এবং কৈশোরে বাস স্ট্যান্ডের কাছে ভাইয়ের সাথে চা বিক্রি করুতেন।[২৩][২৪] পুরো পরিবার একটি ছোট ৪০ ফুট X ১২ ফুট মাপের একতলা বাড়িতে বসবাস করতেন।[২৫] তিনি এই শহরেই একজন সাধারণ মানের ছাত্র হিসেবে তাঁর বিদ্যালয়ের পড়াশোনা শেষ করেন।[২৩][২৬]

ছোট বেলায় স্বামী বিবেকানন্দের জীবন তাঁকে বিশেষ ভাবে অনুপ্রাণিত করে।[২৬] আট বছর বয়সে মোদী রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সঙ্ঘের স্থানীয় শাখায় তাঁর রাজনৈতিক গুরু লক্ষ্মণরাও ইনামদার নামক এক সাংগঠনিক কর্মীর সংস্পর্শে আসেন। ইনামদার তাঁকে সঙ্ঘের বালস্বয়ংসেবক হিসেবে দলে নেন। এই সময় তিনি এই সময় তিনি জন সংঘের নেতা বসন্ত গজেন্দ্রগড়কর ও নথালাল জঘদার সংস্পর্শে আসেন।[২৭][২৮][২৯][৩০][৩১][৩২]

ঘাঞ্চী সম্প্রদায়ের রীতি অনুসারে মোদীর পিতা মাতা কৈশোর অবস্থায় তাঁর বিবাহ স্থির হয়। তেরো বছর বয়সে যশোদাবেন চিমনলাল নামক এক মেয়ের সঙ্গে তাঁর বিবাহ স্থির হয় এবং আঠারো বছর বয়সে তাঁদের মধ্য বিবাহ অনুষ্ঠান সম্পন্ন হয়। খুব কম সময় তাঁরা একসঙ্গে সময় অতিবাহিত করেন কারণ এরপর মোদী পরিব্রাজকের জীবন অনুসরণ করার সিদ্ধান্ত নিলে তাঁরা বিচ্ছিন্ন হন।[২৩][৩৩] মোদীর জীবনীকার নীলাঞ্জন মুখোপাধ্যায়ের মতে এই বিবাহ কখনোই বিচ্ছেদ হিসেবে শেষ হয়ে যায়নি।[৩৪] চারটি নির্বাচন প্রচারে মোদী নিজেকে অবিবাহিত বলে দাবী করলেও ২০১৪ খ্রিষ্টাব্দে অনুষ্ঠিত ষোড়শ সাধারণ নির্বাচনে মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার সময় তিনি যশোদাবেনকে নিজের আইনতঃ বৈধ পত্নী রূপে স্বীকার করে নেন।[৩৫][৩৬]

২০১৪ খ্রিষ্টাব্দে প্রকাশিত কিশোর মাকওয়ানা রচিত কমন ম্যান নরেন্দ্র মোদী গ্রন্থ থেকে জানা যায় যে সতেরো বছর বয়সে ঘর ছেড়ে চলে যাওয়ার পর তিনি রাজকোট শহরে অবস্থিত রামকৃষ্ণ মিশন ও তারপর বেলুড় মঠ যাত্রা করেন। এরপর তিনি আলমোড়া শহরে স্বামী বিবেকানন্দ প্রতিষ্ঠিত আশ্রমে যোগ দেন। দুই বছর পরে তিনি বাড়ি ফিরে এসে আমেদাবাদ শহরে নিজের কাকার চায়ের দোকানে যোগ দেন। এই সময় তিনি পুনরায় লক্ষ্মণরাও ইনামদারের সংস্পর্শে আসেন।[২৭][২৮][২৯] এরপর তিনি গুজরাট রাজ্য মার্গ বাহন ব্যবহার নিগমের ক্যান্টিনের কর্মচারী হিসেবে যোগ দেন, যত দিন না তিনি ১৯৭০ খ্রিষ্টাব্দে রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সংঘের একজন পূর্ণসময়ের প্রচারক হিসেবে যোগ দেন। [২৩][৩১] এই সময় তিনি দিল্লি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে দূরশিক্ষার মাধ্যমে রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিষয়ে স্নাতক[৩৪][৩৭] এবং গুজরাট বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতকোত্তর ডিগ্রী লাভ করেন।[৩৮]

প্রাথমিক রাজনৈতিক জীবন[সম্পাদনা]

১৯৭১ খ্রিষ্টাব্দের ভারত পাকিস্তান যুদ্ধ শেষ হলে মোদী আনুষ্ঠানিকভাবে রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সঙ্ঘে যোগ দেন।[৩৪] নাগপুর শহরে প্রশিক্ষণের পর তাঁকে রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সঙ্ঘের ছাত্র সংগঠন অখিল ভারতীয় বিদ্যার্থী পরিষদের দায়িত্ব দেওয়া হয়। ১৯৭৫ থেকে ১৯৭৫ সাল পর্যন্ত ভারতের প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধী কর্তৃক ঘোষিত জরুরীকালীন অবস্থায় বিরোধীদের গ্রেপ্তার করা হলে এবং রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সঙ্ঘকে নিষিদ্ধ ঘোষণা করা হলে মোদী গ্রেপ্তারী এড়ানোর জন্য কখনো শিখ, কখনো বয়স্ক ব্যক্তির ছদ্মবেশে গোপণে কেন্দ্রীয় সরকারের বিরুদ্ধে প্রচারপুস্তিকা বিতরণ ও বিক্ষোভ সমাবেশ সংগঠিত করতেন।[২৩][৩৪][৩৯][৪০] তিনি জয়প্রকাশ নারায়ণের নেতৃত্বে জরুরীকালীন অবস্থা আন্দোলনে সামিল হন। এই সময় তিনি গুজরাট লোকসংঘর্ষ সমিতি নামক সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হয়ে গুজরাটে বিভিন্ন আন্দোলনকারীদের মধ্যে সমন্বয় সাধন করেন।[২৮][৪১] এই সময় তিনি গুজরাটী ভাষায় সংঘর্ষ্ মা গুজরাট (গুজরাটের সংঘর্ষ) নামক একটি পুস্তক রচনা করেন যেখানে তিনি এই সময়ে ঘটিত বিভিন্ন ঘটনার নিরিখে নিজের অভিজ্ঞতা বর্ণনা করেন।[৪০][৪২][৪৩]

১৯৮৫ খ্রিষ্টাব্দে রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সঙ্ঘ মোদীকে ভারতীয় জনতা পার্টিতে যোগদান করায়।[৩১] এই সময় শঙ্করসিনহা বাগেলাকেশুভাই পটেল ভারতীয় জনতা পার্টির গুজরাট শাখার উল্লেখযোগ্য নেতৃবৃন্দ হলেও নরেন্দ্র মোদী মুরলী মনোহর যোশীর কন্যাকুমারী-শ্রীনগর একতা যাত্রা সংগঠিত করে রাজ্য শাখায় উল্লেখযোগ্য সংগঠক হিসেবে উঠে আসেন।[২৩] ১৯৮৮ খ্রিষ্টাব্দে তিনি ভারতীয় জনতা পার্টির গুজরাট শাখার কার্যনির্বাহী সম্পাদক হিসেবে নির্বাচিত হন।[৩৪][৪৪] এই পদে তাঁর ভূমিকায় ভারতীয় জনতা পার্টি ১৯৯৫ সালে অনুষ্ঠিত গুজরাট বিধানসভা নির্বাচনে জয়লাভে সহায়তা করে।[৩১][৪৫][৪৬]

১৯৯৫ খ্রিষ্টাব্দের নভেম্বর মাসে মোদী ভারতীয় জনতা পার্টির জাতীয় সম্পদক হিসেবে নির্বাচিত হন। এই সময় তিনি হরিয়াণাহিমাচল প্রদেশ রাজ্যে পার্টির সাংগঠনিক কাজকর্মের দায়িত্ব সামলান।[৪৫][৪৭] ১৯৯৬ খ্রিষ্টাব্দে লোকসভা নির্বাচনে পরাজয়ের পর শঙ্করসিনহা বাগেলা পার্টি থেকে বেরিয়ে যান।[২৩] ১৯৯৮ খ্রিষ্টাব্দের মে মাসে তিনি পার্টির কার্যনির্বাহী সাধারণ সম্পাদক হিসেবে নির্বাচিত হন। ১৯৯৮ সালে অনুষ্ঠিত গুজরাট বিধানসভা নির্বাচনের নির্বাচনী কমিটিতে তিনি বাগেলার সমর্থকদের পরিবর্তে কেশুভাই পটেলের সমর্থকদের দলীয় প্রার্থী হিসেবে সমর্থন করলে পার্টির মধ্যেকার বিচ্ছিন্নতাবাদী বিরোধিতা থেমে যেতে বাধ্য হয় এবং ভারতীয় জনতা পার্টি ঐ নির্বাচনে জয়লাভ করে।[৪৫]

গুজরাটের মুখ্যমন্ত্রী[সম্পাদনা]

২০০১ খ্রিষ্টাব্দে কেশুভাই পটেলের স্বাস্থ্য ভেঙ্গে পড়ে এবং তাঁর বিরুদ্ধে ক্ষমতার অপব্যবহার, দুর্নীতি ও ২০০১ খ্রিষ্টাব্দের ভূজ ভূমিকম্পে প্রশাসনিক দুর্বলতার অভিযোগ ওঠে। [৪৫][৪৮][৪৯] এর ফলে পার্টির জাতীয় নেতৃত্ব মুখ্যমন্ত্রী পদের জন্য নরেন্দ্র মোদীকে বিকল্প প্রার্থী হিসেবে হিসেবে তুলে ধরে।[২৩] পার্টির বরিষ্ঠ নেতা লাল কৃষ্ণ আডবাণী মোদীর অনভিজ্ঞতার ওপর চিন্তিত থাকলেও মোদী পটেলের সহায়ক হিসেবে গুজরাটের উপমুখ্যমন্ত্রী হওয়ার প্রস্তাব নাকচ করে দেন। এর ফলশ্রুতিতে ২০০১ খ্রিষ্টাব্দের ৭ই অক্টোবর মোদী গুজরাটের মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণ করেন। মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে তিনি রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সঙ্ঘের সরকারীকরণ ও বিশ্বায়নবিরোধী নীতির বিরুদ্ধে গিয়ে বেসরকারীকরণের নীতি গ্রহণ করেন।[৪৮]

প্রথম মেয়াদ (২০০১-২০০২)[সম্পাদনা]

২০০২ সালের গুজরাট দাঙ্গা[সম্পাদনা]

২০০২ খ্রিষ্টাব্দের ২৭শে ফেব্রুয়ারী গোধরা শহরের নিকটে বহু হিন্দু তীর্থযাত্রী ও শতশত যাত্রীসহ একটি ট্রেন আগুনে পুড়ে গেলে প্রায় ৬০ জন্মের মৃত্যু ঘটে।[৫০][৫১] উগ্র মুসলিমদের দ্বারা এই অগ্নিসংযোগ করা হয়েছে, এরকম খবর ছড়ালে, গুজরাট জুড়ে মুসলিম বিরোধী দাঙ্গা শুরু হয়ে যায়।[৫২] এই দাঙ্গায় ৯০০ থেকে ২০০০ ব্যক্তির মৃত্যু হয় এবং কয়েক হাজার ব্যক্তি আহত হন।[৫৩][৫৪] মোদী সরকার বড় সহরগুলিতে কার্ফ্যু জারী করে দেখামাত্রই গুলি করার নির্দেশ দেয় এবং দাঙ্গা প্রতিরোধে সেনাবাহিনী ডাকা হয়।[৫৫][৫৬] এতৎসত্ত্বেও মানবাধিকার সংগঠনগুলি, বিরোধী দল এবং সংবাদপত্রের কিছু অংশ গুজরাট সরকারের দাঙ্গাবিরোধী পদক্ষেপের সমালোচনা করে।[৫৫][৫৬] গোধরা অগ্নিকান্ডে মৃত করসেবকদের দেহ আমেদাবাদ নিয়ে যাওয়ার মোদীর নির্দেশকে দাঙ্গায় উস্কানিমূলক পদক্ষেপ বলে সমালোচনা করা হয়।[৫৭][৫৮]

২০০৮ খ্রিষ্টাব্দে ভারতের সর্বোচ্চ ন্যায়ালয় রাজ্য সরকারকে ২০০২ গুজরাট দাঙ্গার নয়টি কেস সম্বন্ধে পুনরায় অনুসন্ধানের নির্দেশ দিলে সরকার নতুন করে তদন্তের জন্য একটি বিশেষ তদন্তকারী দল গঠন করে।[৫৯][৬০] গুলবার্গ সোসাইটি হত্যাকান্ডে মৃত এহসান জাফরির বিধবা স্ত্রী জাকিয়া জাফরি ২০০৯ খ্রিষ্টাব্দের এপ্রিল মাসে ভারতের সর্বোচ্চ ন্যায়ালয়ে নরেন্দ্র মোদীর বিরুদ্ধে মামলা করলে সর্বোচ্চ ন্যায়ালয় বিশেষ তদন্তকারী দলকে এই বিষয়ে তদন্তের নির্দেশ দেয়।[৫৯][৬১] এই তদন্তকারী দল মোদীকে ২০১০ খ্রিষ্টাব্দের মার্চ মাসে জিজ্ঞাসাবাদ করে মে মাসে তাঁদের েই মর্মে প্রতিবেদন জমা দেন যে তাঁরা এই অভিযোগের সত্যতার কোন্রকম প্রমাণ পাননি।[৫৯][৬২] ২০১১ খ্রিষ্টাব্দের জুলাই মাসে রাজু রামচন্দ্রন ভারতের সর্বোচ্চ ন্যায়ালয়ে তাঁর অন্তিম প্রতিবেদনে বলেন যে মোদীকে সাক্ষ্য প্রমাণের সাহায্যে দোষী সাব্যস্ত করা সম্ভব। সর্বোচ্চ ন্যায়ালয় এই মামলা ম্যাজিস্ট্রেটের কোর্টে পাঠিয়ে দেন এবং বিশেষ তদন্তকারী দলকে রামচন্দ্রনের প্রতিবেদন পরীক্ষার জন্য দায়িত্ব দেন। বিশেষ তদন্তকারী দল এই প্রতিবেদনের তীব্র সমালোচনা করে কারণ এই প্রতিবেদনে মিথ্যে তথ্যপ্রমাণের ওপর সাজানো সঞ্জীব ভট্টের সাক্ষ্যের ওপর নির্ভর করা হয়েছিল।[৬৩] ২০১২ খ্রিষ্টাব্দের মার্চ মাসে তদন্তকারী দল এই অনুসন্ধান বন্ধ করার আর্জি জানালে জাকিয়া জাফরি এর প্রতিবাদে একটি মামলা দায়ের করেন যা ২০১৩ খ্রিষ্টাব্দের ডিসেম্বর মাসে ম্যাজিস্ট্রেটের কোর্টে এই মর্মে গৃহীত হয় না যে মোদীর বিরুদ্ধে কোন রকম সাক্ষ্য প্রমাণ পাওয়া যায়নি।[৬৪]

২০১২ খ্রিষ্টাব্দে মায়া কোদনানি নামক মোদী মন্ত্রীসভার একজন প্রাক্তন মন্ত্রীকে ২০০২ গুজরাট দাঙ্গার সময় নারোদা পাটিয়া হত্যাকান্ডে জড়িত থাকার অভিযোগে দোষী সাব্যস্ত করা হয়।[৬৫][৬৬] যদিও কোদনানির মৃত্যুদন্ডের জন্য আবেদন করা হবে বলে স্থির করা হলেও পরে মোদী সরকার ২০১৩ খ্রিষ্টাব্দে তাঁর কারাদন্ডের আর্জি জানান।[৬৭][৬৮][৬৯]

২০০২ সালের নির্বাচন[সম্পাদনা]

দাঙ্গার কারণে রাজ্যের ভেতর ও বাইরে থেকে মোদীকে মুখ্যমন্ত্রী পদ থেকে ইস্তফা দেওয়ার জন্য চাপ বাড়তে থাকে। এমনকি কেন্দ্রে তেলুগু দেশম পার্টিদ্রাবিড় মুন্নেত্রা কঝগম নামক ভারতীয় জনতা পার্টির দুই বন্ধু দলও এই মত প্রকাশ করে। বিরোধীরা এই বিষয়ে লোকসভা অচল রাখে।[৭০][৭১] ২০০২ খ্রিষ্টাব্দে গোয়াতে অনুষ্ঠিত ভারতীয় জনতা পার্টির জাতীয় কার্যনির্বাহী সভায় মোদী তাঁর ইস্তফা দিতে চাইলে পার্টি তা গ্রহণ করেনি।[৭২] ২০০২ খ্রিষ্টাব্দের ১৯শে জুলাই মোদীর মন্ত্রীসভা একটি জরুরীকালীন সভার সিদ্ধান্তে গুজরাটের রাজ্যপালের নিকট ইস্তফা পেশ করলে বিধানসভা ভেঙ্গে যায়।[৭৩][৭৪] পরের বিধানসভা নির্বাচনে মোদীর নেতৃত্বে ভারতীয় জনতা পার্টি ১৮২টির মধ্যে ১২৭টি আসন দখল করে।[৭৫] এই নির্বাচনের প্রচারকার্যে মোদী মুসলিম বিরোধী প্রচার করলেও পরে তা অস্বীকার করেন।[৭৬][৭৭][৭৮][৭৯]

দ্বিতীয় মেয়াদ (২০০২-২০০৭)[সম্পাদনা]

মোদীর দ্বিতীয় মুখ্যমন্ত্রীত্বের কালে তিনি হিন্দুত্ব থেকে সরে এসে গুজরাটের উন্নয়নের দিকে জোর দেন।[৪৮][৭৬] তাঁর এই সিদ্ধান্তে গুজরাটে ভারতীয় কিশান সঙ্ঘ এবং বিশ্ব হিন্দু পরিষদের মত হিন্দুত্ববাদী সংগঠনগুলির প্রভাব হ্রাস পায়।[৮০] মোদী তাঁর মন্ত্রীসভা থেকে গোর্ধান জাদাফিয়া এবং বিশ্ব হিন্দু পরিষদের রাজ্যস্তরের প্রধান প্রবীণ তোগাড়িয়াকে সরিয়ে দেন। ভারতীয় কিশান সঙ্ঘ কৃষকদের নিয়ে বিক্ষোভ প্রদর্শন করলে মোদী তাঁদের রাজ্য সরকার দ্বারা প্রদত্ত বাড়ি থেকে বের করে দেওয়ার নির্দেশ দেন। তিনি গান্ধীনগরে দুইশোটি বেআইনী মন্দির নির্মাণকে ভেঙ্গে দেওয়ার নির্দেশ জারী করেন।[৮০][৮১] এই সব ঘটনার ফলে গুজরাট শিল্পে বিনিয়োগের একটি আকর্ষণীয় স্থানে পরিণত হয়। ২০০৭ সালে ভাইব্র্যান্ট গুজরাট সমাবেশে নির্মাণ কার্যে ৬.৬ ট্রিলিয়ন বিনিয়োগের চুক্তি হয়।[৪৮]

অর্থনৈতিক দিকে মোদীর নজর থাকলেও বিভিন্ন সময়ে তাঁকে মুসলিম সম্প্রদায়ের সঙ্গে সম্পর্কের জন্য সমালোচিত হতে হয়। তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী অটল বিহারী বাজপেয়ী দাঙ্গা পরবর্তী সময়ে মোদীকে গুজরাটের সমস্ত্য নাগরিকদের সমান চোখে দেখার অনুরোধ করেন এবং তাঁর পদত্যাগের দাবী করেন।[৮২][৮৩] ২০০৪ খ্রিষ্টাব্দে অনুষ্ঠিত ভারতের লোকসভা নির্বাচনে ভারতীয় জনতা পার্টির পরাজয়ের পর অটল বিহারী বাজপেয়ী এই হারের জন্য ২০০২ গুজরাট দাঙ্গাকে দায়ী করেন এবং স্বীকার করেন দাঙ্গার ঠিক পরেই মোদীকে সরিয়ে নাদেওয়া একটি ভুল পদক্ষেপ ছিল।[৮৪][৮৫]

২০০৭ সালের নির্বাচন[সম্পাদনা]

২০০৭ খ্রিষ্টাব্দে অনুষ্ঠিত গুজরাট বিধানসভা নির্বাচনের প্রচারকার্যে ভারতীয় জনতা পার্টি সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে প্রচারকে তাঁদের প্রধান হাতিয়ার করে।[৮৬] ২০০৬ খ্রিষ্টাব্দের ১৮ই জুলাই মোদী সন্ত্রাসবাদবিরোধী কঠোর আইন প্রণয়নের ব্যাপারে সিদ্ধান্তহীনতার জন্য প্রধামনন্ত্রী মনমোহন সিংকে তীব্র সমালোচনা করেন এবং ২০০৬ মুম্বই বিস্ফোরণের পরিপ্রেক্ষিতে রাজ্য সরকারগুলিকে সন্ত্রাসবাদবিরোধী কঠোর আইন প্রণয়নের অনুমতি প্রদানের জন্য কেন্দ্রের কাছে আর্জি জানান।[৮৭] এই সময় তিনি ২০০১ ভারতীয় সংসদ আক্রমণের প্রধান অভিযুক্ত আফজল গুরুর[৮৮] মৃত্যুদন্ডের বার বার দাবী জানাতে থাকেন।[৮৯] ২০০৮ খ্রিষ্টাব্দের নভেম্বএ মুম্বই শহরে সন্ত্রাসবাদী আক্রমণের নিরিখে মোদী গুজরাটের ১,৬০০ কিমি (৯৯০ মা) লম্বা সমুদ্র উপকূলের নিরাপত্তা জোরদার করেন।[৯০] ২০০৭ খ্রিষ্টাব্দের জুলাই মাসে মোদী মুখ্যমন্ত্রী পদে টানা ২,০৬৩ দিন থেকে গুজরাটের মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে দীর্ঘতম মেয়াদের রেকর্ড গড়েন।[৯১] ২০০৭ খ্রিষ্টাব্দে অনুষ্ঠিত গুজরাট বিধানসভা নির্বাচনে ভারতীয় জনতা পার্টি ১৮২টির মধ্যে ১২২টি আসন দখল করে জয়ী হন এবং মোদী তৃতীয়বার মুখ্যমন্ত্রী পদ লাভ করেন।[৯২]

তৃতীয় মেয়াদ (২০০৭-২০১২)[সম্পাদনা]

তৃতীয়বার ক্ষমতায় এসে মোদী ভূগর্ভস্থ জল সংরক্ষণের ব্যাপারে নজর দেন। ২০০৮ খ্রিষ্টাব্দের ডিসেম্বর মাসে ১১৩,৭৩৮টি ছোট বাঁধ নির্মাণ করা হয়।[৯৩] ২০১০ খ্রিষ্টাব্দের মধ্যে ৬০টি তহসিলে ভূগর্ভস্থ জলের পরিমাণ বৃদ্ধি পায়।[৯৪] এরফলে গুজরাটে দেশের মধ্যে সবচেয়ে বেশি পরিমাণে বিটি তুলার চাষ শুরু হয়।[৯৩] তুলা চাষের বৃদ্ধি এবং শুষ্ক মৃত্তিকাকে চাষের উপযোগী করে তোলায়[৯৫] গুজরাটের কৃষির বৃদ্ধির হার ২০০৭ সালের মধ্যে ৯.৬%[৯৬] এবং ২০১০ সালের মধ্যে বার্ষিক কৃষির বৃদ্ধির হার দেশের মধ্যে সর্বোচ্চ ১০.৯৭% হয়ে যায়।[৯৫]

এই সময়কালে নরেন্দ্র মোদী সরকার গুজরাটের সমস্ত গ্রামে বিদ্যুৎ পরিষেবা দিতে সক্ষম হন।[৯৭] মোদি বিদ্যুৎ সরবরাহের ক্ষেত্রে কৃষকদের অনেকটাই প্রাধান্য দেন। রাজ্যে জ্যোতিগ্রাম যোজনা নামক প্রকল্পের ব্যাপক প্রয়োগ হয়, এই প্রকল্প অনুসারে গ্রামীন বিদ্যুৎ সংযোগ থেকে কৃষি বিদ্যুৎ সংযোগগুলিকে আলাদা করে দেওয়া হয়। বিদ্যুতের খরচ কমাতে চাষের চাহিদা অনুযায়ী এই বিদ্যুৎ সরবরাহের নীতি প্রচলিত হয়। প্রথম দিকে চাষীরা প্রতিবাদ করলেও নতুন নিয়মে বিদ্যুতের সরবরাহের ফলে লাভের মুখ দেখলে সেই প্রতিবাদ স্তিমিত হয়ে পড়ে।[৯৩] একতি সমীক্ষায় দেখা যায়, সমবায় খামার ও বৃহৎ চাষীরা এই প্রকল্পে লাভবান হলেও ক্ষুদ্র চাষী ও কৃষিমজুরেরা ক্ষতিগ্রস্ত হয়।[৯৮]

মোদীর তৃতীয়বারের মুখ্যমন্ত্রীত্বের কালে গুজরাট ইন্টারন্যাশনাল ফাইন্যান্স টেক-সিটি প্রকল্পে অগ্রগতি ঘটে। ২০১২ খ্রিষ্টাব্দের মধ্যে গিফট-১ ও গিফট-২ নামক দুইটি উচ্চ অট্টালিকার নির্মাণ সম্পন্ন হয়।[৯৯][১০০]

গুজরাট উন্নয়ন বিতর্ক[সম্পাদনা]

মোদীর সরকার ভাইব্র্যান্ট গুজরাট স্লোগানের মাধ্যমে গুজরাটকে একটি চলমান উন্নয়নশীল এবং অর্থনৈতিক ভাবে সমৃদ্ধ রাজ্য হিসেবে তুলে ধরেন।[১০১][১০২][১০৩] যদিও সমালোচকরা গুজরাট মানবোন্নয়ন, দারিদ্র্য দূরীকরণ, শিক্ষা প্রভৃতি ক্ষেত্রে অনগ্রসরতার দিকে আঙুল তুলেছেন। এই রাজ্য দারিদ্র্যে দেশের মধ্যে ত্রয়োদশ, শিক্ষায় একুশতম, পাঁচ বছরের নীভে ৪৪.৭% শিশু গড় ওজনের থেকে কম ওজনবিশিষ্ট এবং ২৩% অপুষ্টির শিকার।[১০৪] এর বিপরীতে গুজরাট রাজ্য সরকার দাবী করে যে এই রাজ্যে মহিলা শিক্ষার হার জাতীয় হারের চেয়ে বেশি, স্কুলছুট ছাত্রের হার ২০০১ সালের হিসেব অনুযায়ী ২০% থেকে কমে ২০১১ সালের মধ্যে ২% হারে নেমে এসেছে, মাতৃমৃত্যুর হার ২০০১ সাল থেকে ২০১১ সালের মধ্যে ৩২% কমেছে।[১০৫]

রাষ্ট্রবৈজ্ঞানিক ক্রিষ্টোফ জেফারলটের মতে গুজরাটের উন্নয়ন শহুরে মধ্যবিত্ত শ্রেণীর মধ্যে সীমাবদ্ধ, অপরদিকে গ্রামীণ ও নিম্নবর্গের মানুষেরা আরো বেশি করে পিছিয়ে পড়েছেন। তাঁর মতে মোদীর শাসনকালে দারিদ্র্য সীমার নিচে বসবাসকারী পরিবারের সংখ্যা বেড়ে গেছে।[১০৬] ২০১৩ সালের জুলাই মাসে অর্থনীতিবিদ অমর্ত্য সেন মোদী প্রশাসনের শিক্ষা ও স্বাস্থ্য ব্যবস্থার কঠোর সমালোচনা করেন[১০৭], যদিও অর্থনীতিবিদ অরবিন্দ পনগরিয়া এবং জগদীশ ভগবতী মত প্রকাশ করেন যে গুজরাটের শিক্ষা ও স্বাস্থ্যের বিভিন্ন সামাজিক সূচকগুলি দেশের অন্যান্য রাজ্যের তুলনায় দ্রুত হারে বৃদ্ধি পেয়েছে[১০৮]

সদ্ভাবনা মিশন[সম্পাদনা]

২০১১ সালের শেষের দিকে মোদী গুজরাটের মুসলিম সম্প্রদায়ের নিকটে পৌছুতে সদ্ভাবনা মিশনের অংশ হিসেবে বেশ কয়েকবার উপবাস অনশন করেন।[১০৯] এই অনশন গুজরাটের শান্তি, সমৃদ্ধি ও একতার জন্য বলে তিনি ঘোষণা করেন।[১১০] ২০১১ খ্রিষ্টাব্দের ১৭ই সেপ্টেম্বর আমেদাবাদ শহরে তিন দিনের অনশন দিয়ে এই কর্মসূচী শুরু হয়, যার পর তিনি ছাব্বিশটি জেলা ও আটটি শহরে ছত্রিশ বার অনশন কর্মসূচীতে অংশগ্রহণ করেন,[১১১] তবুও এই কর্মসূচী মুসলিম সম্প্রদায় ভালো ভাবে নিতে পারেননি। সৈয়দ ইমাম শাহী সায়েদ নামক এক মুসলিম ধর্মীয় প্রচারক এক সভায় মোদীকে মুসলিমদের টুপি দিতে গেলে তিনি তা প্রত্যাখ্যান করেন।[১১২][১১৩] গোধরা শহরে অনশনের সময় মোদী বিরোধী এক মোর্চা সংগঠিত করার অভিযোগে কয়েকজনকে আটক করা হয়।[১১৪][১১৫] এই কর্মসূচী একটি জনমোহিনী কর্মসূচী হিসেবে অনেকের নিকট সমালোচিত হলেও[১১৬] মোদী নিজে তা অস্বীকার করেন।[১১৭]

চতুর্থ মেয়াদ (২০১২–২০১৪)[সম্পাদনা]

২০১২ সালের গুজরাট বিধানসভা নির্বাচনে মোদী মণিনগর বিধানসভা কেন্দ্র থেকে ৮৬,৩৭৩ ভোটের বড় ব্যবধানে জয়লাভ করেন।[১১৮] এই নির্বাচনে ভারতীয় জনতা পার্টি ১৮২টি আসনের মধ্যে ১১৫টি দখল করলে মোদী চতুর্থ বার মুখ্যমন্ত্রীর দায়িত্ব গ্রহণ করেন।[১১৯][১২০] পরে উপনির্বাচনে ভারতীয় জনতা পার্টি আরো চারটি আসন দখল করতে সমর্থ হয়।[১২১] ২০১৪ খ্রিষ্টাব্দে ২০১২ খ্রিষ্টাব্দে অনুষ্ঠিত ভারতের লোকসভা নির্বাচনে একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা লাভের পর ভারতীয় জনতা পার্টির প্রধানমন্ত্রী পদপ্রার্থী নরেন্দ্র মোদী ২১শে মে গুজরাটের মুখ্যমন্ত্রি পদ থেকে ইস্তফা দেন এবং পরবর্তী মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে আনন্দীবেন পটেলকে বেছে নেওয়া হয়।[১২২]

জাতীয় রাজনীতি[সম্পাদনা]

ভারতের প্রধানমন্ত্রী[সম্পাদনা]

আন্তর্জাতিক কূটনীতি[সম্পাদনা]

ব্যক্তিত্ব[সম্পাদনা]

মোদী একজন শাকাহারী,[১২৩] অন্তর্মুখী এবং কর্মযোগী পুরুষ।[১২৪] তিনি গুজরাটী ভাষায় কবিতা লিখতে ভালোবাসেন।[১২৫] বক্তা হিসেবে তিনি একজন শ্রোতা টানতে সমর্থ বলে পরিচিত।[১২৬][১২৭][১২৮][১২৯][১৩০] সংবাদমাধ্যম তাঁকে একজন বিতর্কিত ব্যক্তি হিসেবে বর্ণনা করলেও[১৩১][১৩২][১৩৩] ব্রিটিশ অর্থনীতিবিদ জিম ও'নীলের মতে তিনি অর্থনীতিতে পারঙ্গম যা দেশের নেতা হিসেবে একটি বড় গুণ।[১৩৪] ২০১৩ খ্রিষ্টাব্দে অর্থনীতি বিশেষজ্ঞ ক্রিষ্টোফার উড মতপ্রকাশ করেন নরেন্দ্র মোদীর প্রধানমন্ত্রী পদপ্রার্থী হওয়া ভারতের স্টক মার্কেটের উত্থানের সবচেয়ে বড় আশা।[১৩৪]

পুরষ্কার ও সম্মাননা[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "India's Modi on course to become prime minister"Reuters। ১৫ মে ২০১৪। সংগৃহীত ১৬ মে ২০১৪ 
  2. "Modi wins India's election with a landslide, early results show"Reuters। ১৬ মে ২০১৪। সংগৃহীত ১৬ Msy ২০১৪ 
  3. http://www.ndtv.com/elections/article/cheat-sheet/election-results-2014-bjp-sweeps-narendra-modi-wins-both-seats-525311?curl=1400224934
  4. Modi is sworn in
  5. প্রথম আলোর প্রতিবেদন
  6. Harris, Gardiner (১৩ সেপ্টেম্বর ২০১৩)। "Divisive Nationalist to Lead Opposition in Indian Vote"The New York Times। সংগৃহীত ১৫ সেপ্টেম্বর ২০১৩ 
  7. "Yes, I am a Hindu nationalist: Narendra Modi"Indian Express। ১৩ জুলাই ২০১৩। সংগৃহীত ১৩ জুলাই ২০১৩। "Modi said he described himself as a Hindu nationalist because he was born Hindu: "I am nationalist. I'm patriotic. Nothing is wrong. I am a born Hindu. Nothing is wrong. So I'm a Hindu nationalist so yes, you can say I'm a Hindu nationalist because I'm a born Hindu. " 
  8. Menon, Kalyani Devaki (২০১২)। Everyday Nationalism: Women of the Hindu Right in India। University of Pennsylvania Press। পৃ: ২৬। আইএসবিএন 978-0812222340। "Yet, months after this violent pogrom against Muslims, the Hindu nationalist chief minister of Gujarat, Narendra Modi, went to the polls and won a resounding victory" 
  9. Mishra, Pankaj (এপ্রিল ২০১১)। Visweswaran, Kamala, সম্পাদক। Perspectives on Modern South Asia: A Reader in Culture, History, and Representation। Wiley-Blackwell। পৃ: ১৮৮। আইএসবিএন 978-1405100625। "The chief minister of Gujarat, a young up-and-coming leader of the Hindu nationalists called Narendra Modi, quoted Isaac Newton to explain the killings of Muslims. “Every action”, he said, “has an equal and opposite reaction.”" 
  10. Buncombe, Andrew (১৯ সেপ্টেম্বর ২০১১)। "A rebirth dogged by controversy"The Independent। সংগৃহীত ১০ অক্টোবর ২০১২ 
  11. David, Ruth (২৪ ডিসেম্বর ২০০৭)। "Controversial Gujarati Premier Confirmed in Office"Forbes। সংগৃহীত ১০ অক্টোবর ২০১২ 
  12. Nair, Rupam Jain (১২ ডিসেম্বর ২০০৭)। "Edgy Indian state election going down to the wire"। Reuters। সংগৃহীত ১০ অক্টোবর ২০১২ 
  13. Robinson, Simon (১১ ডিসেম্বর ২০০৭)। "India's Voters Torn Over Politician"Time। সংগৃহীত ১০ অক্টোবর ২০১২ 
  14. Burke, Jason (২৮ মার্চ ২০১০)। "Gujarat leader Narendra Modi grilled for 10 hours at massacre inquiry"The Guardian। সংগৃহীত ১০ অক্টোবর ২০১২ 
  15. Joseph, Manu (১৫ ফেব্রুয়ারি ২০১২)। "Shaking Off the Horror of the Past in India"The New York Times। সংগৃহীত ১০ অক্টোবর ২০১২ 
  16. Jaffrelot, Christophe (জুন ২০১৩)। "Gujarat Elections: The Sub-Text of Modi’s ‘Hattrick’ — High Tech Populism and the ‘Neo-middle Class"। Studies in Indian Politics 1 
  17. 'Modi is a Teli-Ghanchi OBC': BJP, TNN | Apr 23, 2014, The Gujarat government's spokesperson and state BJP in the statement said that according to the earlier Mandal Commission survey of Gujarat's OBC communities under schedule 91(A), "Modh-Ghanchi, Teli" caste is included in the OBC community by the Government of India's list of 105 OBC castes of Gujarat.
  18. Everything you need to know about Narendra Modi, Aakar Patel, Sep 29 2011
  19. BJP plays Modi caste card to run down Nitish, Vikas Pathak , Hindustan Times New Delhi, June 18, 2013
  20. OBC વડાપ્રધાન હોવા જોઈએ ભાજપ હવે જ્ઞાાતિનું કાર્ડ ઉતરશે 06 May, 2014
  21. Bhatt, Sheela (১৬ সেপ্টেম্বর ২০১১)। "Why fasting is no big deal for Narendra Modi"Rediff.com। সংগৃহীত ১১ এপ্রিল ২০১৩ 
  22. "Early life of Narendra Modi"। India Today। সংগৃহীত ২৫ মে ২০১৪ 
  23. Jose, Vinod K. (১ মার্চ ২০১২)। "The Emperor Uncrowned"The Caravan। পৃ: 2–4। সংগৃহীত ১১ এপ্রিল ২০১৩ 
  24. Mehta, Harit (১৮ সেপ্টেম্বর ২০১১)। "On Race Course road?"The Times of Indiaআসল থেকে ৩০ জানুয়ারি ২০১৪-এ আর্কাইভ করা। 
  25. "Prime Minister Narendra Modi - Personal life story"। Prime Minister of India's Office। সংগৃহীত ২৬ মে ২০১৪ 
  26. "Modi's life dominates publishing space (Election Special)"New Kerala। ১৪ মার্চ ২০১৪। সংগৃহীত ৪ এপ্রিল ২০১৪ 
  27. Unnithan, Sandeep (২০১৪)। "The man behind Modi: Lakshmanrao Inamdar"। Ahmedabad: India Today। সংগৃহীত ২২ মে ২০১৪ 
  28. Marino, Andy (২০১৪)। Narendra Modi: A Political Biography। HarperCollins India। আইএসবিএন 9351362183 
  29. Mukhopadhyay, Nilanjan (২০১৪)। "Narendra Modi: The making of the political leader"। সংগৃহীত ২২ মে ২০১৪ 
  30. "Narendra Modi: Dedicated Life"। Narenndra Modi। সংগৃহীত ২২ মে ২০১৪ 
  31. Pathak, Anil (২ অক্টোবর ২০০১)। "Modi's meteoric rise"The Times of India। সংগৃহীত ১১ এপ্রিল ২০১৩ 
  32. Debasree (২০১৪)। "Will former tea vendor be India’s next PM?"। The New Indian Express। সংগৃহীত ২২ মে ২০১৪ 
  33. "Narendra Modi's 'wife' Jashodaben finally speaks, 'I like to read about him (Modi)... I know he will become PM'"The Financial Express। ১ ফেব্রুয়ারি ২০১৪। সংগৃহীত ১৩ এপ্রিল ২০১৪ 
  34. "Narendra Modi: From tea vendor to PM candidate"India Today। ১৩ সেপ্টেম্বর ২০১৩। সংগৃহীত ২০ এপ্রিল ২০১৪ 
  35. Bodh, Anand (১৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৪)। "I am single, so best man to fight graft: Narendra Modi"The Times of India। সংগৃহীত ১৩ এপ্রিল ২০১৪ 
  36. "Jashodaben is my wife, Narendra Modi admits under oath"The Times of India। ১০ এপ্রিল ২০১৪। সংগৃহীত ১১ এপ্রিল ২০১৩ 
  37. Marino, Andy (Apr ৮, ২০১৪)। Narendra Modi: A Political Biography। HarperCollins Publishers India। আইএসবিএন 9351362175 
  38. "Modi proves to be an astute strategist"The Hindu। ২৩ ডিসেম্বর ২০০৭। সংগৃহীত ১৭ এপ্রিল ২০১৪ 
  39. "From Vadnagar to 7 RCR: Modi's meteoric rise"। Rediff News। সংগৃহীত ২৩ মে ২০১৪ 
  40. "Narendra Modi’s Book on the Emergency"। India 272 Staff। সংগৃহীত ২৩ মে ২০১৪ 
  41. "Why Modi disguised as Sikh during Emergency?"Dainik Bhaskar। ১৬ মার্চ ২০১৩। সংগৃহীত ২০ এপ্রিল ২০১৪ 
  42. Patel, Aakar। "The poetic side of Narendra Modi"। Deccan Chronicle। সংগৃহীত ২৩ মে ২০১৪ 
  43. "Emergency Time taught Me Importance of Democracy: Narendra Modi"। India 272 Campaign। সংগৃহীত ২৩ মে ২০১৪ 
  44. Mishra, Mayank (২০ জুলাই ২০১৩)। "Did Narendra Modi make Gujarat Vibrant?"Business Standard। সংগৃহীত ২২ মার্চ ২০১৪ 
  45. Venkatesan, V. (১৩ অক্টোবর ২০০১)। "A pracharak as Chief Minister"Frontline (New Delhi)। আসল থেকে ৫ এপ্রিল ২০১৩-এ আর্কাইভ করা। সংগৃহীত ১১ এপ্রিল ২০১৩ 
  46. "Gujarat Assembly Elections 2012: Narendra Modi profile"Zee News। সংগৃহীত ৬ এপ্রিল ২০১৩ 
  47. Mehta, Harit (১ এপ্রিল ২০১৪)। "Six-year banishment led to Narendra Modi’s metamorphosis"The Times of India। সংগৃহীত ২ এপ্রিল ২০১৪ 
  48. Phadnis, Aditi (২০০৯)। Business Standard Political Profiles of Cabals and Kings। Business Standard Books। পৃ: 116–21। আইএসবিএন 978-81-905735-4-2 
  49. Bunsha, Dionne (১৩ অক্টোবর ২০০১)। "A new oarsman"Frontline। সংগৃহীত ১১ এপ্রিল ২০১৩ 
  50. "Eleven sentenced to death for India Godhra train blaze"। BBC News। ১ মার্চ ২০১১। সংগৃহীত ১০ মার্চ ২০১৪ 
  51. Burke, Jason (২২ ফেব্রুয়ারি ২০১১)। "Godhra train fire verdict prompts tight security measures"The Guardian। সংগৃহীত ১০ মার্চ ২০১৪ 
  52. Hampton, Janie (২০০২)। Internally Displaced People: A Global Survey। Routledge। পৃ: ১১৬। আইএসবিএন 978-1853839528 
  53. "Gujarat Riot Death Toll revealed"BBC News। ১১ মে ২০০৫। সংগৃহীত ১৪ নভেম্বর ২০১৩ 
  54. Campbell, John; Seiple, Chris; Hoover, Dennis R. এবং অন্যান্য, সম্পাদকবৃন্দ (২০১২)। The Routledge Handbook of Religion and Security। Routledge। পৃ: ২৩৩। আইএসবিএন 978-0-415-66744-9 
  55. "Army too helpless as violence mounts"The Economic Times। ১ মার্চ ২০০২। সংগৃহীত ১৭ এপ্রিল ২০১৪ 
  56. "Curfew imposed in 26 cities"The Hindu। ১ মার্চ ২০০২। সংগৃহীত ১৭ এপ্রিল ২০১৪ 
  57. "Modi wanted Godhra bodies to come to A'bad"The Times of India। ২২ আগস্ট ২০০৪। সংগৃহীত ১২ এপ্রিল ২০১৩ 
  58. "Decision to bring Godhra victims' bodies taken at top level"The Hindu। ১০ ফেব্রুয়ারি ২০১২। সংগৃহীত ১২ এপ্রিল ২০১৩ 
  59. "Timeline: Zakia Jafri vs Modi in 2002 Gujarat riots case"Hindustan Times। ২৬ ডিসেম্বর ২০১৩। আসল থেকে ১৯ মার্চ ২০১৪-এ আর্কাইভ করা। সংগৃহীত ২৩ মে ২০১৪ 
  60. "National Human Rights Commission vs. State of Gujarat & Ors. - Writ Petition (Crl.) No. 109/2003"। Supreme Court of India। সংগৃহীত ২৩ মে ২০১৪ 
  61. "Jakia Nasim Ahesan & Anr. vs. State of Gujarat & Ors. - SLP (Crl) No. 1088 of 2008"। Supreme Court of India। আসল থেকে ২৩ মে ২০১৪-এ আর্কাইভ করা। সংগৃহীত ২৩ মে ২০১৪ 
  62. Mahapatra, Dhananjay (৩ ডিসেম্বর ২০১০)। "SIT clears Narendra Modi of willfully allowing post-Godhra riots"The Times of India। সংগৃহীত ১৭ এপ্রিল ২০১৪ 
  63. "SIT rejects amicus curiae's observations against Modi"The Hindu। ১০ মে ২০১২। সংগৃহীত ১৭ এপ্রিল ২০১৪ 
  64. "Proceed against Modi for Gujarat riots: amicus"The Hindu। ৯ মে ২০১২। সংগৃহীত ১৭ এপ্রিল ২০১৪ 
  65. Soni, Nikunj (২১ ফেব্রুয়ারি ২০১২)। "For Maya Kodnani, riots memories turn her smile into gloom"DNA India। সংগৃহীত ৭ জুন ২০১২ 
  66. "Maya Kodnani led mob to carry out Naroda riot: Gujarat govt to HC"The Economic Times। ২১ ফেব্রুয়ারি ২০০৯। সংগৃহীত ৭ জুন ২০১২ 
  67. "Narendra Modi government now rethinks death penalty for ex-aide Maya Kodnani"NDTV। ১৪ মে ২০১৩। সংগৃহীত ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৩ 
  68. "Modi government does U-turn on death penalty for Kodnani, Bajrangi"The Hindu। ১৪ মে ২০১৩। সংগৃহীত ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৩ 
  69. "Modi gets cold feet on death for Kodnani"Hindustan Times। ১৪ মে ২০১৩। সংগৃহীত ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৩ 
  70. "Gujarat Cabinet puts off decision on elections"The Tribune। ১৭ এপ্রিল ২০০২। সংগৃহীত ৯ মে ২০০৬ 
  71. "Congress demands Modi's resignation over Bannerjee report"Rediff.com। ৩ মার্চ ২০০৬। সংগৃহীত ১৭ নভেম্বর ২০০৭ 
  72. "BJP national exec rejects Modi's resignation"Rediff.com। ১২ এপ্রিল ২০০২। সংগৃহীত ২২ এপ্রিল ২০১৪ 
  73. "Gujarat Assembly dissolved, early poll sought"The Economic Times। ১৯ জুলাই ২০০২। সংগৃহীত ১৭ এপ্রিল ২০১৪ 
  74. "Modi resigns; seeks Assembly dissolution"The Hindu। ১৯ জুলাই ২০০২। সংগৃহীত ৯ মে ২০০৬ 
  75. "Statistical Report on General Election, 2002 to the Legislative Assembly of Gujarat" (PDF)। New Delhi: Election Commission of India। পৃ: ২২৮। সংগৃহীত ১২ এপ্রিল ২০১৩ 
  76. "Gujarat IB officers transferred for putting Modi's controversial speech on record"Rediff। ১৯ জুলাই ২০০২। সংগৃহীত ১৭ সেপ্টেম্বর ২০০২ 
  77. Brasted, Howard V. (২০০৫)। Lahoud, Nelly; Johns, A. H., সম্পাদকবৃন্দ। Islam in World Politics। Routledge। পৃ: ১১৯। আইএসবিএন 978-0415324113। "the successful anti-Muslim campaign run in Gujarat in December 2002 by its provincial chief minister Narendra Modi – a hardline Hindu nationalist preacher turned politician – has ominous implications." 
  78. Corbridge, Stuart; John Harriss, Craig Jeffrey (২০১২)। India Today: Economy, Politics and Society। Polity Press। পৃ: ১৮৫। আইএসবিএন 978-0745661124। "December 2002, the BJP – led by Narendra Modi, who conducted a vicious campaign, making many stridently anti-Muslim statements"  |coauthors= প্যারামিটার অজানা, উপেক্ষা করুন (সাহায্য)
  79. Hardgrave, Jr., Robert L. (২০০৫)। "Hindu Nationalism and the BJP: Transforming Religion and Politics in India"। in Dossani, Rafiq; Rowen, Henry S.। Prospects For Peace in South Asia। Stanford University Press। পৃ: 210–211। আইএসবিএন 9780804750851। "In the campaign, Modi fused religion and politics and, as a spur to anti-Muslim sentiment, made Islamic terrorism and its ties to Pakistan a central plank in the BJP platform" etc" 
  80. Umat, Ajay (৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৩)। ar-bhavan-maninagar "Once Hindutva twins, Narendra Modi and PravinTogadia no longer conjoined"The Times of India। সংগৃহীত ১১ এপ্রিল ২০১৩ 
  81. "Religious leaders demand rebuilding of temples"DNA India। [Press Trust of India। ২৫ নভেম্বর ২০০৮। সংগৃহীত ১২ এপ্রিল ২০১৩ 
  82. Dasgupta, Manas (৪ এপ্রিল ২০০২)। "Vajpayee's advice to Modi"The Hindu। সংগৃহীত ২ এপ্রিল ২০১৩ 
  83. "Vajpayee, Advani differed over Modi's resignation"India Today। ২০ মার্চ ২০০৮। সংগৃহীত ২ এপ্রিল ২০১৩ 
  84. Tellis, Ashley J.; Wills, Michael (সেপ্টেম্বর ২০০৭)। Domestic political change and grand strategy। National Bureau of Asian Research। পৃ: 193–4। আইএসবিএন 978-0-9713938-8-2 
  85. Yogendra, Kanwar (১৩ জুন ২০০৪)। "Not removing Modi was a mistake, says Vajpayee"The Hindu। সংগৃহীত ২ এপ্রিল ২০১৩ 
  86. Naqvi, Saba (২২ ডিসেম্বর ২০০৮)। "When fear didn't enter the booth"Outlook India। পৃ: 26–28। সংগৃহীত ১১ এপ্রিল ২০১৩ 
  87. "Mahatma on lips, Modi fights Centre"The Telegraph (Kolkata, India)। ১৯ জুলাই ২০০৬। সংগৃহীত ৯ মে ২০০৮ 
  88. Mohan, Vishwa (১০ ফেব্রুয়ারি ২০১৩)। "Afzal Guru hanged, remains in Tihar; no last wish, refused to eat"The Times of India। সংগৃহীত ১২ এপ্রিল ২০১৩ 
  89. "Now, Amar Singh says Afzal Guru must be hanged"The Indian Express। ৪ নভেম্বর ২০০৮। সংগৃহীত ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১১ 
  90. "Modi wants 3-layer ring to secure coast"The Times of India। ২৮ নভেম্বর ২০০৮। সংগৃহীত ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১১ 
  91. "Narendra Modi wins Maninagar by 70,000 votes"The Hindustan Times। ২০ ডিসেম্বর ২০১২। সংগৃহীত ১৭ এপ্রিল ২০১৪ 
  92. "BJP adds 5 seats in Gujarat Assembly by-polls"The Deccan Herald। ১৪ সেপ্টেম্বর ২০০৯। সংগৃহীত ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১১ 
  93. Shah, Tushaar (২০১১)। Business Standard India 2011। Business Standard Books। পৃ: 195–199। আইএসবিএন 978-93-80740-04-1 
  94. Mahurkar, Uday (৪ জুন ২০১০)। "A green rising"India Today। সংগৃহীত ১২ এপ্রিল ২০১৩ 
  95. "Gujarat, Maharashtra record highest growth in farm sector"The Hindu। ১২ জুলাই ২০১২। সংগৃহীত ১২ এপ্রিল ২০১৩ 
  96. Shah, Tushaar; Gulati, Ashok; Hemant, P.; Shreedhar, Ganga; Jain, R. C. (ডিসেম্বর ২০০৯)। "Secret of Gujarat's Agrarian Miracle after 2000"Economic and Political Weekly 44 (52): 45–55। 
  97. Mishra, Mayank (২০ জুলাই ২০১৩)। "Did Narendra Modi make Gujarat Vibrant?"Business Standard। সংগৃহীত ২৯ এপ্রিল ২০১৪ 
  98. Shah, Tushar; Verma, Shilp (ফেব্রুয়ারি ২২, ২০০৮)। "Co-Management of Electricity and Groundwater: An Assessment of Gujarat's Jyotirgram Scheme"Economic and Political weekly 43: 59–66। সংগৃহীত ২৯ এপ্রিল ২০১৪  |coauthors= প্যারামিটার অজানা, উপেক্ষা করুন (সাহায্য)
  99. "Good interest for developing SEZ, non-SEZ areas in GIFT city"The Economic Times। ১১ জানুয়ারি ২০১৪। সংগৃহীত ১৭ এপ্রিল ২০১৪ 
  100. GIFT Project Update July 2012 - Building and Construction Authority, Government of Singapore
  101. Bobbio, Tommaso (২০১২)। "Making Gujarat Vibrant: Hindutva, development and the rise of subnationalism in India"। Third World Quarterly 33 (4): 657–672। ডিওআই:10.1080/01436597.2012.657423  (সদস্যতা প্রয়োজনীয়)
  102. Ibrahim, Farhana (২৫ আগস্ট ২০০৭)। "Capitalism, Multiculturalism and Tolerance: A Perspective on'Vibrant Gujarat"। Economic and Political Weekly: 3446–3449। জেএসটিওআর 4419936 
  103. Mehta, Nalin (১৫ অক্টোবর ২০১০)। "Ashis Nandy vs. the state of Gujarat: authoritarian developmentalism, democracy and the politics of Narendra Modi"। South Asian History and Culture 1 (4): 577–596। ডিওআই:10.1080/19472498.2010.507028 
  104. Shah, Ghanshyam (জুন ২০১৩)। "Politics of Governance: A Study of Gujarat"। Studies in Indian Politics 1 (1): 65–77। ডিওআই:10.1177/2321023013482788 
  105. Pathak, Vikas (১১ আগস্ট ২০১৩)। "Gujarat looks at marketing human development now"The Hindustan Times। সংগৃহীত ১৫ আগস্ট ২০১৩ 
  106. Jaffrelot, Christophe (জুন ২০১৩)। "Gujarat Elections: The Sub-Text of Modi’s ‘Hattrick’—High Tech Populism and the ‘Neo-middle Class’"। Studies in Indian Politics 1 (1): 79–95। ডিওআই:10.1177/2321023013482789 [১]
  107. Sen, Amartya (২২ জুলাই ২০১৩)। "I don't want Narendra Modi as my PM: Amartya Sen"The Indian Express। সংগৃহীত ১৭ এপ্রিল ২০১৪ 
  108. Bhagwati, Jagdish; Panagariya, Arvind (২০১৩)। "Reforms and Their Impact on Health and Education"Why Growth Matters:How Economic Growth in India Reduced Poverty and the Lessons for Other Developing Countries। New York City: PublicAffairs। আইএসবিএন 9781610392723। সংগৃহীত ১৫ সেপ্টেম্বর ২০১৩ 
  109. Kaushik, Himanshu (১৭ সেপ্টেম্বর ২০১১)। "Narendra Modi begins 'sadbhavna' fast among chants of Allahu akbar, shlokas"The Times of India। সংগৃহীত ১২ এপ্রিল ২০১৩ 
  110. "‘I am starting a Sadbhavana Mission’: Modi’s open letter calls for harmony"Firstpost। ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১১। সংগৃহীত ১২ নভেম্বর ২০১৩ 
  111. "Thanks to people of Gujarat for giving huge support to Sadbhavana Mission"। narendramodi.in। ১৭ ফেব্রুয়ারি ২০১২। সংগৃহীত ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০১২ 
  112. "Narendra Modi refuses to put on 'skull cap' offered by Muslim cleric"The Times of India। ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১১। সংগৃহীত ১৭ এপ্রিল ২০১৪ 
  113. Dasgupta, Manas (২১ সেপ্টেম্বর ২০১১)। "Muslims unimpressed by Modi's fast"The Hindu। সংগৃহীত ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৩ 
  114. "Narendra Modi takes Sadbhavna Mission to Godhra"Indian Express। ২০ জানুয়ারি ২০১২। সংগৃহীত ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৩ 
  115. "Narendra Modi refuses to put on 'skull cap' offered by Muslim cleric"The Times of India। PTI। ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১১। সংগৃহীত ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৩ 
  116. "'Sadbhavna Mission is PR exercise"Daily News and Analysis। ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১১। সংগৃহীত ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৩ 
  117. "Modi offered Muslim prayer cap, declines"Zee News। ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১১। সংগৃহীত ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৩ 
  118. "Big win for Narendra Modi, defeats Shweta Bhatt by huge margin"NDTV। Press Trust of India। ২০ ডিসেম্বর ২০১২। 
  119. Ghassem-fachandi, Parvis (২০১২)। Pogrom in Gujarat: Hindu Nationalism and Anti-Muslim Violence in India। Princeton University Press। পৃ: ১৯৮। আইএসবিএন 9780691151779 
  120. 1. "Action continues: Narendra Modi makes lotus bloom again in Gujarat"DNA India। ২০ ডিসেম্বর ২০১২। সংগৃহীত ১৭ এপ্রিল ২০১৪ 
    2. "Gujarat results 2012 Live :Modi's claim for PM's post gets stronger"Samay Live। ২০ ডিসেম্বর ২০১২। সংগৃহীত ২১ ডিসেম্বর ২০১২ 
  121. "BJP sweeps Gujarat bypolls, RJD trumps JD(U) in Bihar"The Hindu। ৬ জুন ২০১৩। সংগৃহীত ১৭ এপ্রিল ২০১৪ 
  122. LIVE: Anandiben Patel named new Gujarat chief minister - IndiaToday - May 21 2014l
  123. Harding, Luke (১৮ আগস্ট ২০১৩)। "Profile: Narendra Modi"The Guardian। সংগৃহীত ১৭ এপ্রিল ২০১৪ 
  124. "The Hawk in Flight"Outlook India। ২৪ ডিসেম্বর ২০০৭। সংগৃহীত ১৭ এপ্রিল ২০১৪ 
  125. Aakar, Patel (১৯ ডিসেম্বর ২০১২)। "Narendra Modi, smart politician and average poet"The Hindustan Times। সংগৃহীত ১৭ মে ২০১৩ 
  126. "Crowd puller Modi"The Hindustan Times। ৭ মে ২০১৩। সংগৃহীত ১৭ মে ২০১৩ 
  127. "Vaghela no match for crowd-puller Modi"The Deccan Herald। ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১১। সংগৃহীত ১৭ মে ২০১৩ 
  128. Dasgupta, Manas (১৪ নভেম্বর ২০০২)। "Modi, Waghela crowd-pullers"The Hindu। সংগৃহীত ১৭ মে ২০১৩ 
  129. "Narendra Modi urges Mumbai's businessmen to set up shop in Gujarat"NDTV। ৩ মে ২০১৩। সংগৃহীত ১৭ মে ২০১৩। "The auditorium had a capacity of only 2,000 people, but, according to Niranjan Hiranandani, IMC president, there were no less than 7,000 people gathered at the venue, many sitting on the floor or standing." 
  130. "Crowd-pulling ability not enough to qualify for PM's post: Uma"The Indian Express (New Delhi)। ১৬ মে ২০১৩। সংগৃহীত ১৭ মে ২০১৩ 
  131. Ramaseshan, Radhika (২ জুলাই ২০১৩)। "Boomerang warning in article on ‘polarising’ Modi"The Telegraph (Kolkata)। সংগৃহীত ১৫ আগস্ট ২০১৩ 
  132. Malik, Ashok (৮ নভেম্বর ২০১২)। "Popular but polarising: can Narendra Modi be PM?"Hindustan Times। সংগৃহীত ১৫ আগস্ট ২০১৩ 
  133. Bajaj, Vikas (২২ ডিসেম্বর ২০১২)। "In India, a Dangerous and Divisive Technocrat"The New York Times। সংগৃহীত ১৫ আগস্ট ২০১৩ 
  134. "NaMo, Ram the new mantra on Dalal Street!"The Economic Times। ১৫ সেপ্টেম্বর ২০১৩। সংগৃহীত ১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৩ 

আরো পড়ুন[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]

পূর্বসূরী
কেশুভাই পটেল
গুজরাটের মুখ্যমন্ত্রী
২০০১–২০১৪
উত্তরসূরী
আনন্দীবেন পটেল
পূর্বসূরী
মনমোহন সিংহ
ভারতের প্রধানমন্ত্রী
Designate

২০১৪–বর্তমান
উত্তরসূরী
রাজনৈতিক দপ্তর
পূর্বসূরী
মুরলী মনোহর যোশী
বারাণসী থেকে নির্বাচিত লোকসভা সাংসদ
২০১৪–বর্তমান
নির্ধারিত হয়নি