রামরাইল ইউনিয়ন

স্থানাঙ্ক: ২৩°৫৬′৩৫″ উত্তর ৯১°৬′১২″ পূর্ব / ২৩.৯৪৩০৬° উত্তর ৯১.১০৩৩৩° পূর্ব / 23.94306; 91.10333
উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
রামরাইল
ইউনিয়ন
গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের সীল.svg ১০নং রামরাইল ইউনিয়ন পরিষদ
রামরাইল চট্টগ্রাম বিভাগ-এ অবস্থিত
রামরাইল
রামরাইল
রামরাইল বাংলাদেশ-এ অবস্থিত
রামরাইল
রামরাইল
বাংলাদেশে রামরাইল ইউনিয়নের অবস্থান
স্থানাঙ্ক: ২৩°৫৬′৩৫″ উত্তর ৯১°৬′১২″ পূর্ব / ২৩.৯৪৩০৬° উত্তর ৯১.১০৩৩৩° পূর্ব / 23.94306; 91.10333 উইকিউপাত্তে এটি সম্পাদনা করুন
দেশবাংলাদেশ
বিভাগচট্টগ্রাম বিভাগ
জেলাব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা
উপজেলাব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর উপজেলা উইকিউপাত্তে এটি সম্পাদনা করুন
সময় অঞ্চলবিএসটি (ইউটিসি+৬)
পোস্ট কোড৩৪০০ উইকিউপাত্তে এটি সম্পাদনা করুন
মানচিত্র

রামরাইল বাংলাদেশের ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার অন্তর্গত ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর উপজেলার একটি ইউনিয়ন

আয়তন[সম্পাদনা]

রামরাইল ইউনিয়নের আয়তন ৩,৪৯০ একর (১৪.১২ বর্গ কিলোমিটার)।[১]

জনসংখ্যার উপাত্ত[সম্পাদনা]

২০১১ সালের আদমশুমারি অনুযায়ী রামরাইল ইউনিয়নের মোট জনসংখ্যা ৩২,৩৪১ জন। এর মধ্যে পুরুষ ১৫,৮৬২ জন এবং মহিলা ১৬,৪৭৯ জন। মোট পরিবার ৫,৮৩৮টি।[১] জনসংখ্যার ঘনত্ব প্রতি বর্গ কিলোমিটারে প্রায় ২,২৯০ জন।[২]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

অবস্থান ও সীমানা[সম্পাদনা]

ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর উপজেলার মধ্যাংশে রামরাইল ইউনিয়নের অবস্থান। এ ইউনিয়নের উত্তরে ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌরসভা, পূর্বে মাছিহাতা ইউনিয়নসুলতানপুর ইউনিয়ন, দক্ষিণে সুলতানপুর ইউনিয়ন এবং দক্ষিণে তিতাস নদীনবীনগর উপজেলার নাটঘর ইউনিয়ন অবস্থিত।

প্রশাসনিক কাঠামো[সম্পাদনা]

রামরাইল ইউনিয়ন ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর উপজেলার আওতাধীন ১০নং ইউনিয়ন পরিষদ। এ ইউনিয়নের প্রশাসনিক কার্যক্রম ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর থানার আওতাধীন। এটি জাতীয় সংসদের ২৪৫নং নির্বাচনী এলাকা ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৩ এর অংশ।

শিক্ষা ব্যবস্থা[সম্পাদনা]

২০১১ সালের আদমশুমারি অনুযায়ী রামরাইল ইউনিয়নের সাক্ষরতার হার ৪৮.৬%।[১]

শিক্ষা প্রতিষ্ঠান[সম্পাদনা]

যোগাযোগ ব্যবস্থা[সম্পাদনা]

খাল ও নদী[সম্পাদনা]

== হাট-বাজার == ভোলাচং কুরবানীর পশুর হাট,ভোলাচং,রামরাইল,ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সদর, ব্রাহ্মণবাড়িয়া।

যাতায়াত: ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌরশহরের কাউতলী থেকে দক্ষিণ দিকে যেকোনো যানবাহন যোগে ৮ থেকে ১০ মিনিটের দূরত্ব।

এটি একটি ঐতিহ্যবাহী বাৎসরিক হাট, ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর উপজেলার অন্যতম কোরবানির পশুর হাট এটি। প্রতিবছর ঈদুল আযহা উপলক্ষে সপ্তাহ ব্যাপী এই হাট হয়ে থাকে। এই হাটের লভ্যাংশের একটি বড় অংশ ভোলাচং গ্রামের মাদ্রাসা,মসজিদ,ঈদগাহ, কবরস্থান ইত্যাদির উন্নয়ন কাজে ব্যবহার করা হয়।

দর্শনীয় স্থান[সম্পাদনা]

উল্লেখযোগ্য ব্যক্তি[সম্পাদনা]

জনপ্রতিনিধি[সম্পাদনা]

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "ইউনিয়ন পরিসংখ্যান সংক্রান্ত জাতীয় তথ্য" (PDF)web.archive.org। Wayback Machine। Archived from the original on ৮ ডিসেম্বর ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ১ ডিসেম্বর ২০১৯ 
  2. "ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার তথ্য উপাত্ত" (PDF)web.archive.org। Wayback Machine। Archived from the original on ১৩ নভেম্বর ২০১৪। সংগ্রহের তারিখ ১ ডিসেম্বর ২০১৯ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]