মিলিন্দপঞ্‌হ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
রাজা মিলিন্দ (মিনান্ডার) প্রশ্ন করছেন।

মিলিন্দপঞ্‌হ (পালি: মিলিন্দের প্রশ্ন) হল একটি বৌদ্ধ ধর্মগ্রন্থ। এটি আনুমানিক খ্রিস্টপূর্ব ১০০ অব্দ নাগাদ রচিত হয়। থেরবাদ বৌদ্ধধর্মের তিপিটকের ব্রহ্মদেশীয় সংস্করণে এটিকে খুদ্দক নিকায় বলে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। যদিও উক্ত গ্রন্থের থাই বা শ্রীলঙ্কার সংস্করণে এটি পাওয়া যায় না। অবশ্য এর একটি অপেক্ষাকৃত ক্ষুদ্রকায় পাঠ চীনা মহাযান অনুবাদগুলির অন্তর্ভুক্ত হয়েছে।

মিলিন্দপঞ্‌হ গ্রন্থে ভারত-গ্রিক রাজ্য ব্যাক্ট্রিয়ার রাজা প্রথম মিনান্ডার (পালি: মিলিন্দ) ও বৌদ্ধ ভিক্ষু নাগসেনের কথোপকথন লিপিবদ্ধ রয়েছে। প্রথম মিনান্ডার খ্রিস্টপূর্ব দ্বিতীয় শতাব্দীর ব্যক্তিত্ব ছিলেন।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

এই গ্রন্থের প্রাচীনতম অংশটি সম্ভবত খ্রিস্টপূর্ব ১০০ থেকে ২০০ অব্দের মধ্যবর্তী সময়ে রচিত।[১] সম্ভবত বইটি প্রথমে সংস্কৃত ভাষায় লেখা হয়েছিল।[২] তবে শ্রীলঙ্কার পালি সংস্করণ এবং সেটির টীকা, অনুবাদ ইত্যাদি ভিন্ন বইটির অন্য কোনো কপি পাওয়া যায় না।

গবেষকেরা সাধারণত এই বিষয়ে একমত যে,[৩] এই গ্রন্থটি বেশ জটিল। পরবর্তীকালে কিছু অংশ এতে প্রক্ষিপ্ত হয়েছে। এই বক্তব্যের সমর্থনে দেখানো হয় যে, এই গ্রন্থের চীনা সংস্করণগুলি অপেক্ষাকৃত ক্ষুদ্রকায়।[৪]

পালি ধর্মগ্রন্থটির প্রাচীনতম পাণ্ডুলিপিটির প্রতিলিপি গৃহীত হয়েছিল ১৪৯৫ খ্রিস্টাব্দে। এই গ্রন্থে প্রাপ্ত সূত্র থেকে জানা যায়, এই গ্রন্থের কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ হারিয়ে গিয়েছে। ফলে এই গ্রন্থটিই একমাত্র পালি ধর্মগ্রন্থে পরিণত হয়েছে, যেটি অসম্পূর্ণ।[৫]

ব্রহ্মদেশীয় পঞ্চম সঙ্গীতিষষ্ঠ সঙ্গীতির ধর্মগ্রন্থগুলির মুদ্রিত সংস্করণ অনুসারে এই ধর্মগ্রন্থ তিপিটকের অন্তর্ভুক্ত।

রাইস ডেভিস বলেছেন যে, এই গ্রন্থটি ধ্রুপদি ভারতীয় গদ্যসাহিত্যের সর্বশ্রেষ্ঠ গ্রন্থ।[৬] যদিও মর্টিজ উইনটের্নিটিজ বলেছেন, কেবলমাত্র এই গ্রন্থের প্রথম অংশগুলির ক্ষেত্রেই এই কথা প্রযোজ্য।[৭]

বিষয়বস্তু[সম্পাদনা]

মিলিন্দপঞ্‌হ গ্রন্থের বিষয়বস্তু হল:

  1. পূর্বজন্ম কথা
  2. বৈশিষ্ট্যগুলির পার্থক্যকরণ-সংক্রান্ত প্রশ্নাবলি : (মনোযোগ ও প্রজ্ঞার বৈশিষ্ট্য, প্রজ্ঞার বৈশিষ্ট্য, যোগাযোগের বৈশিষ্ট্য, অনুভূতির বৈশিষ্ট্য, ধারণার বৈশিষ্ট্য, কামনার বৈশিষ্ট্য, চেতনার বৈশিষ্ট্য, প্রযুক্ত চিন্তার বৈশিষ্ট্য, নিরবিচ্ছিন্ন চিন্তার বৈশিষ্ট্য ইত্যাদি)
  3. জটিলতা ছেদকরণ-সংক্রান্ত প্রশ্নাবলি : (রূপান্তর ও পুনর্জন্ম, আত্মা, দুষ্কর্মের বন্ধন, বিভিন্ন স্থানে যুগপৎ উত্থান, জ্ঞানত ও অজ্ঞানত কৃত দুষ্কর্ম ইত্যাদি)
  4. সমস্যা-সংক্রান্ত প্রশ্নাবলি : বিভিন্ন ধাঁধা ও ৮২টি সমস্যায় সেই ধাঁধাগুলিকে বিন্যাস
  5. সিদ্ধান্তের মাধ্যমে সমাধান-কৃত একটি প্রশ্ন
  6. কৃচ্ছ্রসাধনের বিশেষ গুণাবলির আলোচনা
  7. উপমার কথা-সংক্রান্ত প্রশ্নাবলি

হিনুবারের (২০০০) মতে, রাজা মিনান্ডার যে ঐতিহাসিক চরিত্র সেই বিষয়ে সন্দেহ নেই। কিন্তু ভিক্ষু নাগসেন অজ্ঞাত চরিত্র। বইটিতে কালনির্দেশে কিছু ভুল আছে। কথোপকথনের মধ্যে গ্রিক প্রভাব কম। অথচ উপনিষদের প্রভাব এসে স্পষ্ট।[৮]

গ্রন্থে নাগসেনের পিতা সোঙুত্তর, গুরু রোহন, বত্তনিয়ার অস্‌সগুত্ত এবং পাটলীপুত্রের নিকটবর্তী অশোক আরামের ধম্মরক্‌খিতের কথা পাওয়া যায়। এছাড়া সাগলের নিকট সনখেয়ার আয়ুপাল নামে আরেক গুরুর নামও পাওয়া যায়।

বাংলা অনুবাদ[সম্পাদনা]

  1. মিলিন্দপঞ্হ, অনুবাদক: সাধনকমল চৌধুরী, করুণা প্রকাশনী, কলকাতা, ২০০১।

পাদটীকা[সম্পাদনা]

  1. Hinuber (2000), pp. 85-6, para. 179.
  2. Hinüber (2000), p. 83, para. 173, suggests, based on an extant Chinese translation of Mil as well as some unique conceptulizations within the text, the text's original language might have been Gandhari.
  3. Hinüber (2000), pp. 83-86, para. 173-179.
  4. According to Hinüber (2000), p. 83, para. 173, the first Chinese translation is believed to date from the 3rd century and is currently lost; a second Chinese translation, known as "Nagasena-bhiksu-sutra," (那先比丘經 ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ৮ ডিসেম্বর ২০০৮ তারিখে) dates from the 4th century. The extant second translation is "much shorter" than that of the current Pali-language Mil.
  5. Hinuber (2000), p. 85, para. 178.
  6. Rhys Davids (1890, 1894), p. xlviii, writes: "[T]he 'Questions of Milinda' is undoubtedly the masterpiece of Indian prose, and indeed is the best book of its class, from a literary point of view, that had then been produced in any country."
  7. History of Indian Literature
  8. von Hinuber (2000), p. 83, para. 172.

সূত্র[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]