জ্যাক চিদাম

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
জ্যাক চিদাম
Jack Cheetham 1952.jpg
১৯৫২ সালে জ্যাক চিদাম
ব্যক্তিগত তথ্য
পূর্ণ নামজন আরস্কাইন চিদাম
জন্ম(১৯২০-০৫-২৬)২৬ মে ১৯২০
কেপ টাউন, দক্ষিণ আফ্রিকা
মৃত্যু২১ আগস্ট ১৯৮০(1980-08-21) (বয়স ৬০)
জোহেন্সবার্গ, দক্ষিণ আফ্রিকা
ব্যাটিংয়ের ধরনডানহাতি
বোলিংয়ের ধরনলেগব্রেক
আন্তর্জাতিক তথ্য
জাতীয় পার্শ্ব
খেলোয়াড়ী জীবনের পরিসংখ্যান
প্রতিযোগিতা টেস্ট এফসি
ম্যাচ সংখ্যা ২৪ ১০৮
রানের সংখ্যা ৮৮৩ ৫৬৯৭
ব্যাটিং গড় ২৩.৮৬ ৪২.২০
১০০/৫০ ০/৫ ৮/৩৩
সর্বোচ্চ রান ৮৯ ২৭১*
বল করেছে ৬১৩
উইকেট
বোলিং গড় ৪৭.০০
ইনিংসে ৫ উইকেট
ম্যাচে ১০ উইকেট
সেরা বোলিং ২/৩৮
ক্যাচ/স্ট্যাম্পিং ১৩/- ৬৬/-
উৎস: ক্রিকইনফো, ৩১ অক্টোবর ২০১৮

জন আরস্কাইন জ্যাক চিদাম (ইংরেজি: Jack Cheetham; জন্ম: ২৬ মে, ১৯২০ - মৃত্যু: ২১ আগস্ট, ১৯৮০) কেপটাউনে জন্মগ্রহণকারী প্রথিতযশা দক্ষিণ আফ্রিকান আন্তর্জাতিক ক্রিকেটার ও অধিনায়ক ছিলেন। দক্ষিণ আফ্রিকা ক্রিকেট দলের অন্যতম সদস্য ছিলেন। ১৯৪৯ থেকে ১৯৫৫ সময়কালে দক্ষিণ আফ্রিকার পক্ষে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অংশ নিয়েছেন তিনি। ঘরোয়া প্রথম-শ্রেণীর দক্ষিণ আফ্রিকান ক্রিকেটে ওয়েস্টার্ন প্রভিন্সের প্রতিনিধিত্ব করেছেন। দলে তিনি মূলতঃ মাঝারিসারির ডানহাতি ব্যাটসম্যান হিসেবে খেলতেন। এছাড়াও, লেগব্রেক বোলিংয়ে পারদর্শীতা দেখিয়েছেন জ্যাক চিদাম

খেলোয়াড়ী জীবন[সম্পাদনা]

৫ মার্চ, ১৯৪৯ তারিখে টেস্ট অভিষেক ঘটে জ্যাক চিদামের। সমগ্র খেলোয়াড়ী জীবনে ২৪ টেস্ট খেলার সৌভাগ্য হয় তার। তন্মধ্যে ১৫ টেস্টে দলের অধিনায়কের দায়িত্বে ছিলেন তিনি। মাঝারিসারির ব্যাটসম্যান হিসেবে খেলতেন জ্যাক চিদাম। এ সময়ে উল্লেখযোগ্য সাফল্যের মুখ দেখে দক্ষিণ আফ্রিকা দল। তন্মধ্যে, ১৯৫২-৫৩ মৌসুমে অস্ট্রেলিয়া সফরে টেস্ট সিরিজ ড্র, ১৯৫২-৫৩ ও ১৯৫৩-৫৪ মৌসুমে দেশের বাইরে ও নিজদেশে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে সিরিজ জয় করে তার দল। এছাড়াও ১৯৫৫ সালে ইংল্যান্ড সফরে তুমুল প্রতিদ্বন্দ্বিতা গড়ে ৩-২ ব্যবধানে স্বাগতিক দলের কাছে পরাজয়বরণ করেছিল সফরকারী দক্ষিণ আফ্রিকা দল।

১৯৩৯-৪০ মৌসুম থেকে ১৯৫৪-৫৫ মৌসুম পর্যন্ত দক্ষিণ আফ্রিকান ঘরোয়া প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটে ওয়েস্টার্ন প্রভিন্সের পক্ষে খেলেছেন। তন্মধ্যে, ডিসেম্বর, ১৯৫১ সালে অরেঞ্জ ফ্রি স্টেটের বিপক্ষে অপরাজিত ২৭১ রানের ইনিংস খেলেছিলেন তিনি।[১] এ সংগ্রহটি কারি কাপের ইতিহাসে তৎকালীন ব্যক্তিগত সর্বোচ্চ সংগ্রহ ছিল। এর পাঁচদিন পর এরিক রোয়ান ট্রান্সভালের সদস্যরূপে গ্রিকুয়াল্যান্ড ওয়েস্টের বিপক্ষে অপরাজিত ২৭৭ রান করে রেকর্ডটি নিজের করে নেন।[২]

ব্যক্তিগত জীবন[সম্পাদনা]

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ চলাকালীন জ্যাক চিদাম মধ্যপ্রাচ্যে নিয়োজিত ছিলেন।[৩] কেপটাউন বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতক ডিগ্রি লাভ করেন। এরপর মারে এন্ড রবার্টস নামীয় অবকাঠামো নির্মাণ প্রতিষ্ঠানে প্রকৌশলী হিসেবে কাজ করার পর পরিচালক মনোনীত হন।

২১ আগস্ট, ১৯৮০ তারিখে ৬০ বছর বয়সে জোহেন্সবার্গে জ্যাক চিদামের দেহাবসান ঘটে।

মূল্যায়ন[সম্পাদনা]

রডনি হার্টম্যান তার সম্পর্কে মন্তব্য করেন যে, চিদাম ভদ্রলোকের আদর্শ প্রতিচিত্রস্বরূপ। ক্রীড়াবিদ ও মানবিক সেরা গুণাবলী তার মাঝে বিদ্যমান। তিনি নিজ দেশের অধিনায়কের দায়িত্ব লাভে আদর্শস্থান ধরে রাখতে সর্বদা সচেষ্ট ছিলেন।[৪]

১৯৬৮ সালে বর্ণবৈষম্যবাদ সময়ে সংঘটিত ডি’অলিভেইরা ঘটনায় জ্যাক চিদামকে সংবাদবাহকরূপে এমসিসি বরাবরে প্রেরণ করা হয়েছিল। এতে দক্ষিণ আফ্রিকান বংশোদ্ভূত মিশ্রবর্ণের ব্যাসিল ডি’অলিভেইরাকে ইংল্যান্ড দলের সদস্যরূপে আসন্ন দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে অন্তর্ভুক্ত না করার কথা তুলে ধরা হয়েছিল। দক্ষিণ আফ্রিকান ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশনের (সাকা) সহঃ সভাপতির দায়িত্বে থেকে সকল ধরনের ক্রীড়ায় অংশগ্রহণে বাঁধার প্রাচীর গড়ে তুলেন। ইংল্যান্ডের মাটিতে পা রেখে সাকা থেকে প্রেরিত চিঠিতে ডি’অলিভেইরার বিষয়ে কোন কিছুই ছিল না ও এমসিসি থেকে প্রত্যুত্তরে চিঠির মাধ্যমে জানানো হয় যে এমসিসি সফর চালিয়ে যাবার বিষয়ে সবটুকুই করবে।[৫]

তার মৃত্যুর পর প্রতিষ্ঠান থেকে জ্যাক চিদাম স্মারক পুরস্কারের প্রবর্তন ঘটানো হয়। অবহেলিত সম্প্রদায়ের মাঝে ক্রীড়াক্ষেত্রে অসামান্য অবদানকারীকে এ পুরস্কারে ভূষিত করা হয়।[৬]

রচনাসমগ্র[সম্পাদনা]

  • Caught by the Springboks (1953) (about the South African tour of Australia and New Zealand, 1952–53)
  • I Declare (1956) (about the South African tour of England, 1955)

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Orange Free State v Western Province 1950–51. Cricketarchive.com. Retrieved on 21 May 2018.
  2. Wisden 1952, p. 890.
  3. ABC Cricket Book: South Africans Tour 1952–53, ABC, Sydney, 1952, p. 9.
  4. Rodney Hartman, Ali: The Life of Ali Bacher, Penguin, Johannesburg, 2006, p. 47.
  5. Basil D'Oliveira, Cricket and Conspiracy: The Untold Story by Peter Oborne, pp. 148, 152.
  6. Against the Odds Retrieved 2 February 2013.

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]