খলিল উল্লাহ খান

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
(খলিলউল্লাহ খান থেকে পুনর্নির্দেশিত)
Jump to navigation Jump to search
খলিল উল্লাহ খান
Khalil11.jpg
জন্ম খলিল উল্লাহ খান খলিল
(১৯৩৪-০২-০১)১ ফেব্রুয়ারি ১৯৩৪
মৃত্যু ৭ ডিসেম্বর ২০১৪(২০১৪-১২-০৭) (৮০ বছর)
ঢাকা
জাতীয়তা বাংলাদেশী
জাতিসত্তা বাঙালি
নাগরিকত্ব বাংলাদেশী
পেশা অভিনেতা
কার্যকাল ১৯৫৯২০১৪
দাম্পত্য সঙ্গী রাবেয়া খানম
সন্তান ৫ ছেলে, ৪ মেয়ে
পুরস্কার একুশে পদক
আজীবন সম্মাননা - জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার ২০১২

খলিল উল্লাহ খান (জন্ম: ১ ফেব্রুয়ারি, ১৯৩৪ - মৃত্যু: ৭ ডিসেম্বর, ২০১৪[১])[২] ষাটের দশকের বাংলাদেশের অন্যতম জনপ্রিয় নায়কদের একজন। চলচ্চিত্র মাধ্যম ছাড়াও টেলিভিশনেও অভিনয়ে জনপ্রিয় এই নায়ক খলিল[৩]

প্রাথমিক জীবন[সম্পাদনা]

খলিলের জন্মস্থান সিলেটের কুমারপাড়ায়। [২][৪] তার বাবা পুলিশ অফিসার ছিলেন বলে তাকে মেদিনিপুর, কৃষ্ণনগর,বগুড়া, বর্ধমান, নোয়াখালী যেতে হয়। খলিলের শৈশব জীবন কেটেছিল এসব জেলাতেই।[৫] খলিল ১৯৪৮ সালে সিলেট সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ম্যাট্রিক পাস করেন। ১৯৫১ সালে মদনমোহন কলেজ থেকে ইন্টারমিডিয়েট পরীক্ষা দেন।[৩] সিলেট মুরারিচাঁদ কলেজ থেকে তিনি স্নাতক পাস করেন।

সামরিক জীবন[সম্পাদনা]

১৯৫১ সালে আর্মি কমিশনে যোগ দিয়ে কোয়েটাতে চলে যান। ১৯৫২ সালে ফিরে এসে আনসার এডজুট্যান্ট হিসেবে যোগ দেন।[৫] দীর্ঘদিন সাসপেন্ড থাকার পর তা উইড্র হয় ১৯৭৭ সালে। ১৯৯২ সালে বয়সের কারণে রিটায়ার করেন আনসার ডিপার্টমেন্ট থেকে।[৩]

চলচ্চিত্র জীবন[সম্পাদনা]

১৯৫৯ সালে সোনার কাজল ছবিতে প্রথম অভিনয় শুরু করেন। [৫] ফিল্মে আসার আগে বেশ কয়েকটি নাটকেও অভিনয় করেন। ফিল্মে আসার ব্যাপারে প্রযোজক মাসুদ চৌধুরীর কাছ থেকে সহযোগিতা পান। তার সাহযোগিতায় জহির রায়হানের ‘সোনার কাজল’ ছবিতে নায়ক হয়ে হয়ে যান খলিল। প্রথম ছবিতে দু’জন নায়িকা ছিলেন—একজন সুমিতা দেবী, অপরজন সুলতানা জামান। সোনার কাজল ছবির পরিচালক ছিলেন জহির রায়হান ও কলিম শরাফি। খলিল অভিনীত দ্বিতীয় ছবি প্রীত না জানে রীত। ছবিটি ১৯৬৩ সালের ১৩ জানুয়ারি মুক্তি পায়।[৩] খলিলের তৃতীয় ছবি ‘সংগম’।[৫] এ ছবিতে খলিল ও সুমিতা দেবী রোমান্টিক নায়ক-নায়িকা। এরপর নায়ক হিসেবে তিনি একে একে অভিনয় করলেন—কাজল (১৯৬৫), ক্যায়সে কঁহু (১৯৬৫), ভাওয়াল সন্ন্যাসী (১৯৬৫), বেগানা (১৯৬৬), জংলী ফুল (১৯৬৮) প্রভৃতি ছবিতে। নায়ক হিসেবে খলিলের শেষ ছবি ‘জংলী ফুল’। এটি ১৯৬৮ সালের ২৯ মার্চ মুক্তি পায়। তার নায়িকা ছিলেন সুলতানা জামান। সহ-নায়িকা ছিলেন সুচন্দা। ১৯৭৪ সালে ‘উত্সর্গ’ এবং ‘এখানে আকাশ নীল’ ছবি ২টির মাধ্যমে খলিল চরিত্রাভিনেতারূপে আত্মপ্রকাশ করেন। এস এম পারভেজ পরিচালিত বেগানা ছবিতে প্রথম খলনায়ক হিসেবে খলিল অভিনয় করেন। দু’টি ছবি প্রযোজনা করেছিলেন তিনি। একটি সিপাহী অন্যটি এই ঘর এই সংসার[৫]

পরিচালনা জীবন[সম্পাদনা]

১৯৬৫ সালে চুক্তিবদ্ধ হন ‘ভাওয়াল সন্ন্যাসী’ ছবিতে। [৫] ভাওয়াল রাজার ঐতিহাসিক কাহিনী অবলম্বনে এর চিত্রনাট্য লিখেছিলেন—রওনক চৌধুরী। তিনিই ছিলেন ছবির পরিচালক। ছবিতে ডাক্তার আশুর চরিত্রে ছিলেন খলিল। ছবিতে নায়িকা অর্থাত্ রানীরূপী রেশমার সঙ্গে ছিল তার পরকীয়া প্রেম। ভাওয়াল সন্ন্যাসীর পর ‘উলঝন’ ছবিতে খলিলের নায়িকা ছিলেন রোজী। [৩]

উর্দু ছবিতে[সম্পাদনা]

১৯৬৬ সালে ‘বালা’ নামে একটি উর্দু ছবিতে অভিনয় করার অফার পেলেন। [৫] এই ছবিতে জেনিফার নামে একজন অ্যাংলো মেয়ে ছিলেন। তার সঙ্গে জড়িয়ে খলিলের নামে বিভিন্ন কুত্সা রটে। এ কারণে ইচ্ছা করেই খলিল ‘বালা’ ছবির কাজ ছেড়ে দেন।[৩]

টেলিভিশন পর্দায়[সম্পাদনা]

আশির দশকে টেলিভিশন পর্দায় আসেন খলিল। তার অভিনীত বিশেষ নাটকের মধ্যে উল্লেখযোগ্য হচ্ছে- আব্দুল্লাহ আল মামুনের ধারাবাহিক নাটক সংশপ্তক[৫]

উল্লেখযোগ্য চলচ্চিত্র[সম্পাদনা]

  • পুনম কি রাত
  • ভাওয়াল সন্ন্যাসী
  • উলঝান
  • সমাপ্তি
  • তানসেন
  • নদের চাঁদ
  • পাগলা রাজা
  • বেঈমান
  • অলঙ্কার
  • মিন্টু আমার নাম
  • ফকির মজনুশাহ
  • কন্যাবদল
  • মেঘের পরে মেঘ
  • আলোর মিছিল
  • এত টুকু আশা
  • আয়না
  • মধুমতি
  • ওয়াদা
  • ভাই ভাই
  • বিনি সুতার মালা
  • মাটির পুতুল
  • সুখে থাকো
  • অভিযান
  • কার বউ
  • কথা কও
  • দিদার
  • আওয়াজ
  • নবাব
  • নবাব সিরাজ উদ দৌলা (রঙিন)
  • ভণ্ড

[৩]

পারিবারিক জীবন[সম্পাদনা]

খলিল ১৯৫৪ সালে বাবা-মায়ের পছন্দে মানিকগঞ্জের মেয়ে রাবেয়া খানমকে বিয়ে করেন। তার পাচ ছেলে ও চার মেয়ে।[৩]

মৃত্যু[সম্পাদনা]

খলিল ২০১৪ সালের ৭ ডিসেম্বর সকাল ১০টায় ঢাকায় স্কয়ার হাসপাতালে মৃত্যুবরন করেন। [৬][৭]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. দৈনিক প্রথম আলো
  2. "হৃদয়ে বাজে খুশির বীণ" 
  3. http://www.dailynayadiganta.com/details/46996
  4. "অভিনেতা খলিলের জীবনাবসান"। bdnews24.com। ৭ ডিসেম্বর ২০১৪। সংগ্রহের তারিখ ৭ ডিসেম্বর ২০১৪ 
  5. http://www.amardeshonline.com/pages/weekly_news/2010/02/06/934
  6. "খলিলুল্লাহ খান আর নেই"। দৈনিক মানবজমিন। ৭ ডিসেম্বর ২০১৪। সংগ্রহের তারিখ ৭ ডিসেম্বর ২০১৪ 
  7. "অভিনেতা খলিলুল্লাহ খান আর নেই"। দৈনিক যুগান্তর। ৭ ডিসেম্বর ২০১৪। সংগ্রহের তারিখ ৭ ডিসেম্বর ২০১৪