আরমান পারভেজ মুরাদ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
সরাসরি যাও: পরিভ্রমণ, অনুসন্ধান
আরমান পারভেজ মুরাদ
Replace this image male bn.svg
জন্ম আরমান পারভেজ মুরাদ
রাজশাহী, বাংলাদেশ
জাতীয়তা বাংলাদেশী
জাতিসত্তা বাঙালি
নাগরিকত্ব বাংলাদেশী
শিক্ষা স্নাতক ও স্নাতকোত্তর (জৈব-রসায়ন)
শিক্ষা প্রতিষ্ঠান রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়
পেশা অভিনেতা, মডেল
কার্যকাল ১৯৯৭ – বর্তমান
উচ্চতা ১.৭১ মি
ধর্ম ইসলাম
পুরস্কার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার (১ বার)

আরমান পারভেজ মুরাদ হলেন একজন বাংলাদেশি মঞ্চ ও টেলিভিশনের অভিনেতা। তিনি চলচ্চিত্রেও অভিনয় করেছেন। তার অভিনীত প্রথম চলচ্চিত্র ব্যাচেলর (২০০৪)। তার অভিনীত অন্যান্য চলচ্চিত্রসমূহ হল ঘানি (২০০৬), খেলাঘর (২০০৬), প্রিয়তমেষু (২০০৯), রাবেয়া (২০০৯), আমার বন্ধু রাশেদ (২০১১)। ঘানি চলচ্চিত্রে অভিনয়ের জন্য তিনি ২০০৮ সালে প্রদত্ত জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারে শ্রেষ্ঠ অভিনেতার পুরস্কার লাভ করেন।

প্রাথমিক জীবন[সম্পাদনা]

মুরাদ রাজশাহী জেলার বোসপাড়ায় জন্মগ্রহণ করেন। তিনি রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় থেকে জৈব-রসায়ন বিষয়ে স্নাতক ও ১৯৯৭ সালে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি অর্জন করেন। ১৯৮৯ সালে থেকে ও পরে বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াকালীন তিনি মঞ্চনাটকে সাথে জড়িত ছিলেন। রাজশাহী সাংস্কৃতিক সংঘের সাথে টানা ৯ বছর কাজ করেন।[১]

কর্মজীবন[সম্পাদনা]

প্রারম্ভিক কর্ম[সম্পাদনা]

মুরাদ ১৯৯৭ সালে বিজ্ঞাপনী সংস্থা ইউনিট্রেন্ডে কপিরাইটার হিসেবে যোগ দেন।[২] পাশাপাশি তিনি ঢাকার থিয়েটার আরামবাগে যুক্ত হন। এসময়ে তিনি টেলিভিশন নাটকে কাজ শুরু করেন। তার অভিনীত প্রথম টেলিভিশিন নাটক হল নিশীথে নোঙ্গর (১৯৯৭)। এটি পরিচালনা করেন সৈয়দ অহিদুজ্জামান ডায়মন্ড[৩] ছয় বছর ইউনিট্রেন্ডে কাজ করার পর ২০০৩ সালে তিনি অভিনয়ে মনোযোগ দিতে এই চাকুরী ছেড়ে দেন।[২]

চলচ্চিত্রে অভিষেক: ২০০৪-২০০৯[সম্পাদনা]

তার চলচ্চিত্র অভিনয়ে অভিষেক হয় মোস্তফা সরয়ার ফারুকী পরিচালিত ব্যাচেলর (২০০৪) দিয়ে। এই চলচ্চিত্রে ঢাকায় বসবাসরত একদল ব্যাচেলরদের একজন মারুফ চরিত্রে অভিনয় করেন। মুরাদ ২০০৬ সালে কাজী মোরশেদ পরিচালিত ঘানিমোরশেদুল ইসলাম পরিচালিত খেলাঘর ছবিতে অভিনয় করেন। ঘানি চলচ্চিত্রে বজলু চরিত্রে অভিনয়ের জন্য তিনি শ্রেষ্ঠ অভিনেতার জন্য জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার লাভ করেন। ২০০৯ সালে তিনি কথাসাহিত্যিক হুমায়ূন আহমেদ রচিত উপন্যাস অবলম্বনে মোরশেদুল ইসলাম পরিচালিত প্রিয়তমেষু এবং তানভীর মোকাম্মেল পরিচালিত রাবেয়া চলচ্চিত্রে অভিনয় করেন।[৪]

অভিনয়ে বিরতি ও ফিরত: ২০১০-২০১৪[সম্পাদনা]

২০১০ সালে অভিনয় থেকে বিরতি নিয়ে তিনি কক্সবাজারের মারমেইড ইকো ট্যুরিজমের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা হিসেবে যোগ দেন। সাত মাস এই চাকুরী করার পর তা ছেড়ে দিয়ে ২০১০ সালের নভেম্বর মাসে তিনি বেস্টওয়ে গ্রুপ-এ যোগ দেন। সেখানে কর্পোরেট ব্র্যান্ড ও জনসংযোগ ব্যবস্থাপক হিসেবে কাজ করার পর রিসোর্স অ্যান্ড ট্যুরিজমের কার্যনির্বাহী প্রধান হিসেবে যোগদান করেন। ২০১১ সালের জুলাই মাসে তিনি পুনরায় অভিনয়ে মনোযোগ দিতে এই চাকুরী থেকে অবসর নেন।[২]

২০১০ সালে তিনি 'ঈদ আনন্দ ডট কম' নামক বিশেষ ম্যাগাজিন অনুষ্ঠানের উপস্থাপনা করেন। ঈদুল ফিতরে বিটিভিতে অনুষ্ঠানটি প্রচারিত হয়। এতে তাকে বাংলাদেশী এভারেস্ট বিজয়ী মুসা ইব্রাহীমের সাক্ষাৎকার নিতে দেখা যায়।[৫] এ বছর তিনি লাবণ্য ও বনলতা নাটকে অভিনয় করেন। আকরাম খান পরিচালিত এই নাটকে তার বিপরীতে প্রথমবারের মত অভিনয় করেন বিদ্যা সিনহা সাহা মীম। এতে মুরাদ জীবনানন্দ দাশ ও মীম বনলতা সেন চরিত্রে অভিনয় করেন।[৬] ২০১১ সালে মুক্তি পায় তার অভিনীত চলচ্চিত্র আমার বন্ধু রাশেদ। কথাসাহিত্যিক মুহম্মদ জাফর ইকবাল রচিত একই নামের উপন্যাস অবলম্বনে ছবিটি নির্মাণ করেন মোরশেদুল ইসলাম। ২০১২ সালে নরেন্দ্রনাথ মিত্র রচিত বিকল্প গল্প অবলম্বনে নির্মিত বৃষ্টির দিন নাটকে কাজ করেন। এটি পরিচালনা করেন তুহিন অবন্ত। এতে তার বিপরীতে অভিনয় করেন মীম।[৬] ২০১৪ সালে তিনি স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে নির্মিত খুঁজে বেড়াই তারে নাটকে অভিনয় করেন। নাটকটি পরিচালনা করেন আকরাম খান এবং প্রচারিত হয় দেশ টিভিতে। এ বছর মুক্তি পায় তার অভিনীত সংগ্রাম চলচ্চিত্র। মনসুর আলী পরিচালিত এই ছবিতে তাকে প্রধান খল চরিত্র পাকিস্তানী মেজর ইফতেখার চরিত্রে দেখা যায়।[৭] একই বছর তিনি গাজী টিভিতে প্রচারিত ধারাবাহিক নাটক শোধ-এ খল চরিত্রে অভিনয় করেন।[৭]

২০১৫-বর্তমান[সম্পাদনা]

২০১৫ সালে মুরাদ সাদা সুতায় নীল ঘুড়ি নাটকে অভিনয় করেন। এটি পরিচালনা করেন নুর আনোয়ার হোসেন। বিটিভিতে প্রচারিত এই নাটকে তিনি সোহানা সাবার বাবার ভূমিকায় অভিনয় করেন। সাবা এর পূর্বে মুরাদের বিপরীতে প্রিয়তমেষু চলচ্চিত্রে ও মায়া নাটকে অভিনয় করেছিলেন।[৮] ২০১৭ সালে তিনি অভিনয় শিল্পী সংঘের নির্বাচনে অনুষ্ঠান সম্পাদক পদে প্রার্থী হন।[৯] এ বছর তিনি কাজ করেছেন আহসান সারোয়ার পরিচালিত দ্বিতীয় চলচ্চিত্র রং ঢং-এ।[১০]

চলচ্চিত্র[সম্পাদনা]

সাল চলচ্চিত্র ভূমিকা পরিচালক টীকা
২০০৪ ব্যাচেলর মারুফ মোস্তফা সরয়ার ফারুকী অভিনীত প্রথম চলচ্চিত্র
২০০৬ ঘানি বজলু কাজী মোরশেদ বিজয়ী বাংলাদেশ জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার শ্রেষ্ঠ অভিনেতা
খেলাঘর মুকুল মোরশেদুল ইসলাম
২০০৯ প্রিয়তমেষু পুষ্পর স্বামী মোরশেদুল ইসলাম
রাবেয়া তানভীর মোকাম্মেল
২০১১ আমার বন্ধু রাশেদ শফিক ভাই মোরশেদুল ইসলাম
২০১৪ সংগ্রাম মেজর ইফতিখার মনসুর আলী খল চরিত্রে
২০১৬ হাসন রাজা জেনারেল বিনয় রুহুল আমিন
২০১৭ রং ঢং আহসান সারোয়ার নির্মাণাধীন

টেলিভিশন[সম্পাদনা]

নাটক[সম্পাদনা]

সাল নাটক পরিচালক চ্যানেল
১৯৯৭ নিশিথে নোঙ্গর সৈয়দ অহিদুজ্জামান ডায়মন্ড
জোঁক
সন্ধ্যালোকের যাত্রা
একান্নবর্তী
কৃষ্ণকুমারী
তেভাগা
২০০৫ এনেছি সূর্যের হাসি বিটিভি
২০১০ লাবণ্য ও বনলতা আকরাম খান
২০১২ বৃষ্টির দিন তুহিন অবন্ত
২০১৩ যুগলবন্দী জোছনা মাহাদী হাসান সুমেন
২০১৪ খুঁজে বেড়াই তারে আকরাম খান দেশ টিভি
শোধ গাজী টিভি
মাল্যদান সুমন আনোয়ার
২০১৫ সাদা সুতায় নীল ঘুড়ি নুর আনোয়ার হোসেন বিটিভি
২০১৭ সাধারণ মেয়ে নাহিদ আহমেদ পিয়াল এনটিভি

অনুষ্ঠান[সম্পাদনা]

সাল অনুষ্ঠান ভূমিকা চ্যানেল
২০১০ ঈদ আনন্দ ডট কম উপস্থাপক বিটিভি
২০১৩ আয়োজনে আমন্ত্রণে[১১] অতিথি গাজী টিভি
২০১৫ ফুড ক্যারাভান[১২] অতিথি এনটিভি

পুরস্কার[সম্পাদনা]

জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "আরমান পারভেজ মুরাদ"দেশে বিদেশে। সংগৃহীত ১৯ জুন, ২০১৭ 
  2. "চাকরী ছেড়ে পুরোপুরি অভিনয়ে মুরাদ"বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম। ৬ আগস্ট, ২০১১। সংগৃহীত ১৯ জুন, ২০১৭ 
  3. "অভিনেতা আরমান পারভেজ মুরাদ আসছেন এই সন্ধ্যা' অণুষ্ঠানে"সাতদিন। ১ অক্টোবর, ২০১৫। সংগৃহীত ৩১ ডিসেম্বর, ২০১৫ 
  4. বৈদ্য, ভাস্কর (২০ এপ্রিল, ২০১২)। "দুই পর্দায় মুরাদ"যায়যায়দিন। সংগৃহীত ৩১ ডিসেম্বর, ২০১৫ 
  5. "উপস্থাপনায় আরমান পারভেজ মুরাদ"দৈনিক প্রথম আলো। ৬ সেপ্টেম্বর, ২০১০। সংগৃহীত ১৯ জুন, ২০১৭ 
  6. "দুই বছর পর নাটকে আরমান পারভেজ মুরাদ ও মিম"দৈনিক প্রথম আলো। ১৮ অক্টোবর ২০১২। সংগৃহীত ১৯ জুন, ২০১৭ 
  7. "এই প্রথম চলচ্চিত্রে খল চরিত্রে আরমান পারভেজ মুরাদ"বিডি টুডে। ২৭ মার্চ, ২০১৪। সংগৃহীত ৩১ ডিসেম্বর, ২০১৫ 
  8. "সোহানা সাবার বাবার চরিত্রে মুরাদ !"বিডিমর্নিং। ২৯ অক্টোবর, ২০১৫। সংগৃহীত ৩১ ডিসেম্বর, ২০১৫ 
  9. শান্ত, আমিনুল ইসলাম (১০ ফেব্রুয়ারি ২০১৭)। "‘এটা আমার জীবনের পরীক্ষা’"রাইজিংবিডি ডট কম। সংগৃহীত ১৯ জুন, ২০১৭ 
  10. "শেষ পর্যায়ে ‘রং ঢং’"দৈনিক মানবজমিন। ৩ জুন ২০১৭। সংগৃহীত ১৯ জুন, ২০১৭ 
  11. শাওন, রাশেদ (৬ সেপ্টেম্বর, ২০১০)। "‘আয়োজনে আমন্ত্রণে’ আরমান পারভেজ মুরাদ"বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম। সংগৃহীত ১৯ জুন, ২০১৭ 
  12. "ফুড ক্যারাভান - রন্ধনশিল্পী আফিফা আক্তার লিটা। অতিথি আরমান পারভেজ মুরাদ"এনটিভি অনলাইন। ১৩ মে ২০১৫। সংগৃহীত ১৯ জুন, ২০১৭ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]