জেসন রয়

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
জেসন রয়
ব্যক্তিগত তথ্য
পূর্ণ নামজেসন জোনাথন রয়
জন্ম (১৯৯০-০৭-২১) ২১ জুলাই ১৯৯০ (বয়স ২৮)
ডারবান, নাটাল, দক্ষিণ আফ্রিকা
ব্যাটিংয়ের ধরনডানহাতি
বোলিংয়ের ধরনডানহাতি মিডিয়াম
ভূমিকাব্যাটসম্যান
আন্তর্জাতিক তথ্য
জাতীয় পার্শ্ব
ওডিআই অভিষেক
(ক্যাপ ২৩৮)
৮ মে ২০১৫ বনাম আয়ারল্যান্ড
শেষ ওডিআই২০ জুন ২০১৫ বনাম নিউজিল্যান্ড
ওডিআই শার্ট নং৬৭
টি২০আই অভিষেক
(ক্যাপ ৭০)
৭ সেপ্টেম্বর ২০১৪ বনাম ভারত
শেষ টি২০আই২৩ জুন ২০১৫ বনাম নিউজিল্যান্ড
টি২০আই শার্ট নং৬৭
ঘরোয়া দলের তথ্য
বছরদল
২০০৮-বর্তমানসারে (দল নং ২০)
২০১২-২০১৩চিটাগং কিংস
২০১৫সিডনি থান্ডার
খেলোয়াড়ী জীবনের পরিসংখ্যান
প্রতিযোগিতা ওডিআই টি২০আই এফসি এলএ
ম্যাচ সংখ্যা ৫৬ ৬৬
রানের সংখ্যা ৯৮ ৩১ ৩,০৭৮ ১,৭৬৭
ব্যাটিং গড় ১৯.৬০ ১৫.৫০ ৩৭.৫৩ ৩১.০০
১০০/৫০ ০/০ ০/০ ৬/১৩ ৫/৮
সর্বোচ্চ রান ৩৯ ২৩ ১৪৩ ১৪১
বল করেছে ৭১২
উইকেট ১৪
বোলিং গড় ৩৫.৩৫
ইনিংসে ৫ উইকেট -
ম্যাচে ১০ উইকেট - - -
সেরা বোলিং ৩/৯
ক্যাচ/স্ট্যাম্পিং ২/– ০/– ৫৪/– ২০/–
উৎস: ক্রিকেট আর্কাইভ, ২৩ জুন ২০১৫

জেসন জোনাথন রয় (ইংরেজি: Jason Roy; জন্ম: ২১ জুলাই, ১৯৯০) নাটাল প্রদেশের ডারবানে জন্মগ্রহণকারী দক্ষিণ আফ্রিকান বংশোদ্ভূত ইংল্যান্ডের আন্তর্জাতিক ক্রিকেটারইংল্যান্ড ক্রিকেট দলের অন্যতম সদস্য তিনি। দলে তিনি মূলতঃ ডানহাতে শীর্ষসারির ব্যাটসম্যানের ভূমিকায় অবতীর্ণ হয়ে থাকেন। তাকে ইংল্যান্ডের সর্বাপেক্ষা উদীয়মান তরুণ খেলোয়াড় হিসেবে মনে করা হয়।[১] কাউন্টি ক্রিকেটে সারে দলের পক্ষে খেলছেন জেসন রয়

প্রারম্ভিক জীবন[সম্পাদনা]

১০ বছর বয়সে দক্ষিণ আফ্রিকা থেকে পরিবারের সাথে ইংল্যান্ডে অভিবাসিত হন। এরপর তিনি হুইটগিফ্ট স্কুলে অধ্যয়ন করেন। অনূর্ধ্ব-১১ দলের সদস্য হিসেবে সারে দলে খেলেন। ২০০৭ সালে সারে অনূর্ধ্ব-১৯ দলের পক্ষে দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে যান। সেখানে ওয়েস্টার্ন প্রভিন্স অনূর্ধ্ব-১৯ দলের বিপক্ষে সীমিত ওভারের খেলায় দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ৫১ রান তোলেন।[২]

২৭ জুন, ২০০৮ তারিখে সারে প্রথম একাদশের সদস্য হিসেবে টুয়েন্টি২০ কাপে মিডলসেক্সের বিরুদ্ধে অভিষেক ঘটে তার। ২০ জুলাই, ২০০৮ তারিখে নিজের ১৮তম জন্মদিনের পূর্বে ইয়র্কশায়ারের বিপক্ষে ন্যাটওয়েস্ট প্রো৪০ লীগে লিস্ট এ ক্রিকেটে অভিষিক্ত হন।

২৪ আগস্ট, ২০১০ তারিখে গ্রেস রোডে লিচেস্টারশায়ারের বিপক্ষে প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটে অভিষেক ঘটে তার। খেলায় তিনি সারে দলের প্রথম ইনিংসে সর্বশেষ খেলোয়াড় হিসেবে আউট হন। এসময় তিনি ৬৫ বল মোকাবেলা করে ৯ চার ও ৩ ছক্কার সাহায্যে ৭৬ রান তোলেন। ২০১০ মৌসুমের শেষে প্রথম একাদশের সদস্য হিসেবে সকল স্তরের ক্রিকেটে অংশ নেন ও নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করেন। এছাড়াও দুই বছর মেয়াদে সারে দলের সাথে চুক্তিবদ্ধ হন। এ চুক্তিকে তিনি স্বপ্ন সত্য হয়েছে বলে জানান।[৩]

২৯ সেপ্টেম্বর, ২০১১ তারিখে ইসিবি কর্তৃক ২০১১-১২ মৌসুমের জন্য তাকে ইংল্যান্ড পারফরমেন্স প্রোগ্রাম স্কোয়াডের সদস্য মনোনীত করা হয়।[৪]

খেলোয়াড়ী জীবন[সম্পাদনা]

২০০৮ মৌসুমে সফরকারী দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে ওভালে অনুষ্ঠিত চূড়ান্ত টেস্টে ইংল্যান্ডের টেস্ট দলে অতিরিক্ত খেলোয়াড় হিসেবে মাঠে নামেন।[৫]

সেপ্টেম্বর, ২০১৪ সালে ভারতের বিপক্ষে টুয়েন্টি২০ আন্তর্জাতিকে অভিষেক ঘটে তার। ঐ খেলায় তিনি ৮ রানে আউট হন। ৮ মে, ২০১৫ তারিখে আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে একদিনের আন্তর্জাতিকে তার অভিষেক ঘটলেও খেলাটি বৃষ্টির কারণে পরিত্যক্ত ঘোষিত হয়।[৬] জুন, ২০১৫ সালে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ৫-খেলার ওডিআই সিরিজে খেলার জন্য তাকে অন্তর্ভুক্ত করা হয়।[৭] কিন্তু প্রথম খেলায় ইনিংসের প্রথম বলে তিনি কট আউটের শিকার হন।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Jason Roy"Cricinfo। সংগ্রহের তারিখ ১৫ জানুয়ারি ২০১১ 
  2. Under-19 tour
  3. http://www.kiaoval.com/news/dunn-and-roy-commit-futures-surrey
  4. "England Performance Squad 2011-12"ECB। ২৯ সেপ্টেম্বর ২০১১। 
  5. Test match substitute
  6. "England tour of Ireland, Only ODI: Ireland v England at Dublin, May 8, 2015"ESPN Cricinfo। সংগ্রহের তারিখ ৮ মে ২০১৫ 
  7. http://www.espncricinfo.com/england-v-new-zealand-2015/content/story/885205.html

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]