লিয়াম প্লাঙ্কেট

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
লিয়াম প্লাঙ্কেট
ব্যক্তিগত তথ্য
পূর্ণ নামলিয়াম এডওয়ার্ড প্লাঙ্কেট
জন্ম (1985-04-06) ৬ এপ্রিল ১৯৮৫ (বয়স ৩৪)
নানথর্প, মিডলসব্রাউ, টিসাইড, ইংল্যান্ড
ডাকনামপাডসি
উচ্চতা৬ ফুট ৩ ইঞ্চি (১.৯১ মিটার)
ব্যাটিংয়ের ধরনডানহাতি
বোলিংয়ের ধরনডানহাতি ফাস্ট
ভূমিকাবোলার
আন্তর্জাতিক তথ্য
জাতীয় পার্শ্ব
টেস্ট অভিষেক
(ক্যাপ ৬২৮)
২৯ নভেম্বর ২০০৫ বনাম পাকিস্তান
শেষ টেস্ট২৪ জুন ২০১৪ বনাম শ্রীলঙ্কা
ওডিআই অভিষেক
(ক্যাপ ১৯০)
১০ ডিসেম্বর ২০০৫ বনাম পাকিস্তান
শেষ ওডিআই৬ ফেব্রুয়ারি ২০১১ বনাম অস্ট্রেলিয়া
ঘরোয়া দলের তথ্য
বছরদল
২০০৩-২০১২ডারহাম
২০০৭ডলফিন্স
২০১৩-বর্তমানইয়র্কশায়ার (দল নং ২৮)
খেলোয়াড়ী জীবনের পরিসংখ্যান
প্রতিযোগিতা টেস্ট ওডিআই এফসি এলএ
ম্যাচ সংখ্যা ১১ ২৯ ১৩৪ ১২৪
রানের সংখ্যা ১৬৯ ৩১৫ ৩,৫৬৩ ১,০৮১
ব্যাটিং গড় ১২.০৭ ২১.০০ ২৪.০৭ ২০.০১
১০০/৫০ ০/০ ০/১ ২/১৭ ০/৩
সর্বোচ্চ রান ৪৪* ৫৬ ১১৪ ৭২
বল করেছে ২,০৯৫ ১,৩৬৩ ২০,৬৮৮ ৫,১৭৩
উইকেট ৩৪ ৩৯ ৪০৭ ১৪৭
বোলিং গড় ৩৬.৬৭ ৩৩.৮৭ ৩০.৭৬ ৩১.৮০
ইনিংসে ৫ উইকেট ১১
ম্যাচে ১০ উইকেট n/a n/a
সেরা বোলিং ৫/৬৪ ৩/২৪ ৬/৩৩ ৪/১৫
ক্যাচ/স্ট্যাম্পিং ৩/– ৭/– ৭৯/– ২৮/–
উৎস: CricketArchive, ২৪ জুন ২০১৪

লিয়াম এডওয়ার্ড প্লাঙ্কেট (জন্ম: ৬ এপ্রিল, ১৯৮৫) টিসাইডের মিডলসব্রাউ এলাকার নানথর্পে জন্মগ্রহণকারী ইংরেজ ক্রিকেটারইংল্যান্ড ক্রিকেট দলের অন্যতম সদস্য প্লাঙ্কেট টেস্ট ক্রিকেটএকদিনের আন্তর্জাতিক খেলার পাশাপাশি প্রথম-শ্রেণীর কাউন্টি ক্রিকেটে ইয়র্কশায়ারের পক্ষ হয়ে খেলছেন। লিয়াম প্লাঙ্কেট মূলত ডানহাতি ফাস্ট বোলার। পাশাপাশি ডানহাতে ব্যাটিংয়েও অভ্যস্ত তিনি।

প্রারম্ভিক জীবন[সম্পাদনা]

২০০৩ সালে ডারহামের হয়ে কাউন্টি চ্যাম্পিয়নশীপে অভিষিক্ত হন তিনি। ২০০৫ মৌসুমে ডারহামের শীর্ষস্থানীয় বোলার হিসেবে সর্বাধিক উইকেট লাভ করেন। ২০০৮ ও ২০০৯ মৌসুমে কাউন্টি চ্যাম্পিয়নশীপে প্রথমবারের মতো বিজয়ী ডারহাম দলের অন্যতম সদস্য ছিলেন তিনি। কিন্তু ২০১১ ও ২০১২ সালে ডারহামের পক্ষে তিনি মাত্র তিনটি খেলায় অংশগ্রহণের সুযোগ লাভ করেছিলেন। ফলে বাধ্য হয়ে ২০১৩ মৌসুমে ডারহাম থেকে ইয়র্কশায়ারে স্থানান্তরিত হন প্লাঙ্কেট। ইয়র্কশায়ারের কোচ ও সাবেক অস্ট্রেলীয় ফাস্ট বোলার জেসন গিলেস্পি’র অধীনে প্লাঙ্কেটের খেলোয়াড়ী জীবনের মোড় ঘুরে যায়। প্লাঙ্কেট মূলতঃ বোলার হলেও ইতোমধ্যে দু’টি প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটে সেঞ্চুরি করেছেন ও তার ব্যাটিং গড় ২৪। এছাড়াও, দক্ষিণ আফ্রিকার ঘরোয়া ক্রিকেটে ডলফিন্সের হয়ে খেলেছেন।

খেলোয়াড়ী জীবন[সম্পাদনা]

কাউন্টি ক্রিকেটে সফলতার মুখ দেখায় ২০০৫ সালের নভেম্বর-ডিসেম্বর মাসে পাকিস্তান সফরে ইংল্যান্ডের টেস্ট ও একদিনের দলে ডাক পান। নভেম্বর, ২০০৫ থেকে জুন, ২০০৭ সালের মধ্যে ৯ টেস্ট ও ২৭টি একদিনের আন্তর্জাতিকে অংশ নেন। এরপর তিনি ইংল্যান্ড দল থেকে বাদ পড়েন। এরপর ২০১০ ও ২০১১ সালে সর্বমোট দুইটি একদিনের আন্তর্জাতিকে খেলার সুযোগ পান। অর্থাৎ, তিনি কখনো ইংল্যান্ড দলে নিয়মিত খেলোয়াড়ের মর্যাদা উপভোগ করেননি। ২০১৪ সালে তিনি পুণরায় ইংল্যান্ডের টেস্ট দলে অন্তর্ভুক্ত হন। নীচের সারির ব্যাটসম্যান হিসেবে তিনি বেশ সফলতা লাভ করেছেন। মাত্র ১৮টি একদিনের আন্তর্জাতিকে অংশ নেয়ার পর ইংল্যান্ডের পক্ষে ৮ম ও ৯ম উইকেট জুটিতে রেকর্ড গড়েছেন।[১]

২০১৫ মৌসুমে সফরকারী নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে অনুষ্ঠিত ২য় টেস্ট খেলার জন্য মনোনীত হন।[২]

টেস্টে ৫ উইকেট[সম্পাদনা]

# বোলিং পরিসংখ্যান খেলা প্রতিপক্ষ মাঠ শহর দেশ সাল
৫/৬৪ ১১  শ্রীলঙ্কা হেডিংলি স্টেডিয়াম লিডস ইংল্যান্ড ২০১৪

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "ODI Partnership Records for England"। Cricinfo। ৬ জুলাই ২০০৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৪ নভেম্বর ২০১২ 
  2. "England Squad - 2nd Test"ESPNCricinfo। সংগ্রহের তারিখ ২৭ মে ২০১৫ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]