কারেন রোল্টন

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
কারেন রোল্টন
Krolton.jpg
ব্যক্তিগত তথ্য
পূর্ণ নামকারেন লুইস রোল্টন
জন্ম (1974-11-21) ২১ নভেম্বর ১৯৭৪ (বয়স ৪৪)
অ্যাডিলেড, অস্ট্রেলিয়া
ব্যাটিংয়ের ধরনবামহাতি
বোলিংয়ের ধরনবামহাতি মিডিয়াম
আন্তর্জাতিক তথ্য
জাতীয় পার্শ্ব
টেস্ট অভিষেক
(ক্যাপ ১২৭)
২৮ ফেব্রুয়ারি ১৯৯৫ বনাম নিউজিল্যান্ড
শেষ টেস্ট১৩ জুলাই ২০০৯ বনাম ইংল্যান্ড
ওডিআই অভিষেক
(ক্যাপ ৭৭)
১৪ ফেব্রুয়ারি ১৯৯৫ বনাম নিউজিল্যান্ড
শেষ ওডিআই২৫ জুন ২০০৯ বনাম ইংল্যান্ড
ওডিআই শার্ট নং২১
ঘরোয়া দলের তথ্য
বছরদল
১৯৯৬-বর্তমানসাউথ অস্ট্রেলিয়া
খেলোয়াড়ী জীবনের পরিসংখ্যান
প্রতিযোগিতা টেস্ট ওডিআই
ম্যাচ সংখ্যা ১৪ ১৪১
রানের সংখ্যা ১,০০২ ৪,৮১৪
ব্যাটিং গড় ৫৫.৬৬ ৪৮.১৪
১০০/৫০ ২/৫ ৮/৩৩
সর্বোচ্চ রান ২০৯* ১৫৪*
বল করেছে ১,১০৪ ৩,২৬৭
উইকেট ১৪ ৮৫
বোলিং গড় ২৩.৩৫ ২০.৮১
ইনিংসে ৫ উইকেট
ম্যাচে ১০ উইকেট -
সেরা বোলিং ৪/৬৮ ৪/২৯
ক্যাচ/স্ট্যাম্পিং ৯/– ২৫/–
উৎস: ইএসপিএনক্রিকইনফো.কম, ৫ ডিসেম্বর ২০১৬

কারেন লুইস রোল্টন (ইংরেজি: Karen Rolton; জন্ম: ২১ নভেম্বর, ১৯৭৪) অ্যাডিলেডে জন্মগ্রহণকারী অস্ট্রেলিয়ার সাবেক মহিলা আন্তর্জাতিক ক্রিকেটারঅস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট দলের অন্যতম সদস্য ছিলেন তিনি। এছাড়াও তিনি জাতীয় দলের অধিনায়ক ছিলেন। দলে তিনি মূলতঃ ব্যাটসম্যান হিসেবে ভূমিকা রেখেছেন। বামহাতে ব্যাটিংয়ের পাশাপাশি দলের প্রয়োজনে মাঝে-মধ্যে বামহাতে মিডিয়াম পেস বোলিংয়ে দক্ষ কারেন রোল্টনমহিলাদের টেস্ট ক্রিকেটে অস্ট্রেলিয়ার পক্ষে সর্বাধিক রান সংগ্রহ করেছেন।[১] ঘরোয়া ক্রিকেটে সাউথ অস্ট্রেলিয়ান স্করপিয়ন্সের পক্ষে খেলেছেন তিনি। শীত মৌসুমে হকি খেলায় অংশ নিতেন তিনি।

খেলোয়াড়ী জীবন[সম্পাদনা]

১৯৯৫ সালে অস্ট্রেলিয়ার পক্ষে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অভিষেক ঘটে তার। ২০০১ সালে হেডিংলিতে স্বাগতিক ইংল্যান্ডের বিপক্ষে নিজস্ব সর্বোচ্চ অপরাজিত ২০৯ রান তোলেন।[১] এরফলে তিনি বিশ্বরেকর্ড গড়েন। এছাড়াও, একদিনের আন্তর্জাতিকে সর্বাধিক ১৪১টি খেলায় অংশ নিয়েছিলেন যা পরবর্তীতে ২০১০ সালে ইংল্যান্ডের শার্লত এডওয়ার্ডস ভঙ্গ করেন। ১৯৯৭ সাল থেকে অস্ট্রেলিয়া দলের সহঃ অধিনায়কের দায়িত্ব পালন করেন। ফেব্রুয়ারি, ২০০৬ সালে বেলিন্ডা ক্লার্কের অবসর নেয়ার পর তিনি তার স্থলাভিষিক্ত হন।[২]

২০০৫ সালের মহিলা ক্রিকেট বিশ্বকাপের চূড়ান্ত খেলায় ১০৭ রান তুলেছিলেন। এরফলে তিনি ম্যান অব দ্য ম্যাচের পুরস্কার পেয়েছিলেন। এছাড়াও, নিজস্ব সর্বোচ্চ অপরাজিত ৯৬ রান তোলেন মহিলাদের টুয়েন্টি২০ ক্রিকেটে যা অদ্যাবধি সর্বোচ্চ রানের রেকর্ড।

মূল্যায়ণ[সম্পাদনা]

নিউজিল্যান্ডীয় কোচ স্টিভ জেনকিন একবার মজা করে বলেছিলেন যে, রোল্টনের বিপক্ষে সেরা কৌশল হচ্ছে অস্ট্রেলিয়ার উদ্বোধনী ব্যাটসম্যানদেরকে আউট না করা যাতে তিনি ব্যাটিং করার সুযোগ পেতে না পারেন।[৩]

তিনি দুইবার বর্ষসেরা অস্ট্রেলীয় আন্তর্জাতিক মহিলা ক্রিকেটারের পুরস্কার লাভ করেন। ২০০২ ও ২০০৩ সালে ধারাবাহিকভাবে নৈশকালীন অ্যালান বর্ডার পদক বিতরণীতে এ সম্মাননা লাভ করেছিলেন। ২০০৬ সালে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট কাউন্সিল প্রবর্তিত বর্ষসেরা মহিলা খেলোয়াড়ের উদ্বোধনী পুরস্কারে ভূষিত হন।

১৪ বছরের বর্ণাঢ্য খেলোয়াড়ী জীবন শেষে জানুয়ারি, ২০১০ সালে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে অবসরের ঘোষণা দেন রোল্টন।[৪]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Player Profiles: Karen Rolton"Women's Cricket in Australia - Southern Stars। ২ মে ২০০৪। ২০০৭-০২-২৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০০৭-০৩-১১ 
  2. ইএসপিএনক্রিকইনফোতে কারেন রোল্টন উইকিউপাত্তে এটি সম্পাদনা করুন (ইংরেজি) . Retrieved on 15 December 2006.
  3. "Rolton, Fitzpatrick notch one-day tons"। ১৯ অক্টোবর ২০০৬। সংগ্রহের তারিখ ২০০৭-০৩-১২ 
  4. http://www.cricinfo.com/ci/content/story/445112.html?CMP=OTC-RSS

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]

পূর্বসূরী
নব প্রবর্তিত
আইসিসি বর্ষসেরা মহিলা ক্রিকেটার
২০০৬
উত্তরসূরী
ঝুলন গোস্বামী