আলিপুরদুয়ার জংশন রেলওয়ে স্টেশন

স্থানাঙ্ক: ২৬°৩১′২৫″ উত্তর ৮৯°৩২′০১″ পূর্ব / ২৬.৫২৩৭° উত্তর ৮৯.৫৩৩৫° পূর্ব / 26.5237; 89.5335
উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
আলিপুরদুয়ার জংশন
ভারতীয় রেল জংশন স্টেশন
Alipurduar Railway Junction Station.jpg
আলিপুরদুয়ার জংশন রেলওয়ে স্টেশন
অবস্থানবিএফ রোড, আলিপুরদুয়ার, আলিপুরদুয়ার জেলা, পশ্চিমবঙ্গ
ভারত
স্থানাঙ্ক২৬°৩১′২৫″ উত্তর ৮৯°৩২′০১″ পূর্ব / ২৬.৫২৩৭° উত্তর ৮৯.৫৩৩৫° পূর্ব / 26.5237; 89.5335
উচ্চতা৫৩ মিটার (১৭৪ ফু)
মালিকানাধীনভারতীয় রেল
পরিচালিতউত্তরপূর্ব সীমান্ত রেল
লাইননিউ জলপাইগুড়ি-আলিপুরদুয়ার-শামুকতলা রোড লাইন, আলিপুরদুয়ার-বামনহাট ব্রাঞ্চ লাইন
প্ল্যাটফর্ম
নির্মাণ
গঠনের ধরনঅ্যাট গ্রাউন্ড
পার্কিংপাওয়া যায়
অন্য তথ্য
অবস্থাকার্যকর
স্টেশন কোডAPDJ
অঞ্চল উত্তরপূর্ব সীমান্ত রেল
বিভাগ আলিপুরদুয়ার
ইতিহাস
আগের নামকোচবিহার স্টেট রেলওয়ে
পরিষেবা
পূর্ববর্তী স্টেশন   Indian Railway   পরবর্তী স্টেশন
Northeast Frontier Railway zone
শেষ স্টেশনNortheast Frontier Railway zone
অবস্থান
আলিপুরদুয়ার জংশন পশ্চিমবঙ্গ-এ অবস্থিত
আলিপুরদুয়ার জংশন
আলিপুরদুয়ার জংশন
পশ্চিমবঙ্গে অবস্থান
আলিপুরদুয়ার জংশন ভারত-এ অবস্থিত
আলিপুরদুয়ার জংশন
আলিপুরদুয়ার জংশন
পশ্চিমবঙ্গে অবস্থান

আলিপুরদুয়ার জংশন রেলওয়ে স্টেশন হল ভারতের পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের আলিপুরদুয়ার জেলার সদর আলিপুরদুয়ার শহরকে রেল-পরিষেবা প্রদানকারী চারটি রেলওয়ে স্টেশনের অন্যতম। এই স্টেশনের কোড হল এপিডিজে। এই স্টেশনের পার্শ্ববর্তী স্টেশনটি হল নিউ আলিপুরদুয়ার জংশন (স্টেশন কোড এনওকিউ)।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

১৯০১ সালে কোচবিহার স্টেট রেলওয়ে ইস্টার্ন বেঙ্গল রেলওয়ের গীতলদহ থেকে একটি ২ ফুট ৬ ইঞ্চি (৭৬২ মিলিমিটার) ন্যারো গেজ লাইন নির্মাণ করে। এই লাইনটি আলিপুরদুয়ারের উপর দিয়ে প্রসারিত ছিল। ১৯১০ সালে লাইনটিকে ১,০০০ মিলিমিটার (৩ ফুট   ইঞ্চি) মিটার গেজে পরিবর্তন করা হয়।

১৯৪৭ সালে ভারত বিভাজনের পর অসমের সঙ্গে ভারতের উত্তরবঙ্গ অঞ্চলের রেল যোগাযোগ সম্পূর্ণ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে। কারণ যোগাযোগরক্ষাকারী রেলপথটি সম্পূর্ণই পূর্ব পাকিস্তানের ভাগে পড়ে। ১৯৪৮ সালের ২৬ জানুয়ারি অসম রেল লিঙ্ক প্রকল্পটি গৃহীত হয়। এই প্রকল্পে একটি ২২৯-কিলোমিটার long (১৪২ মা) ১,০০০ মিলিমিটার (৩ ফুট   ইঞ্চি) মিটার গেজ রেলপথ ফকিরাগ্রামকে আলিপুরদুয়ার হয়ে বিহারের কিশানগঞ্জের সঙ্গে যুক্ত করে।[১] এই পথে প্রথম ট্রেন চলেছিল ১৯৫০ সালের ২৬ জানুয়ারি। ২০০৩-২০০৬ সালে লাইনটিকে ১,৬৭৬ মিলিমিটার (৫ ফুট ৬ ইঞ্চি) ব্রড গেজে রূপান্তরিত করা হয়।[২]

বর্তমানে আলিপুরদুয়ার শহরের সব কটি রেল ট্র্যাকই ব্রড গেজ।

অন্যান্য পার্শ্ববর্তী স্টেশন[সম্পাদনা]

এই স্টেশনের পার্শ্ববর্তী দুটি স্থানীয় রেলওয়ে স্টেশন হল আলিপুরদুয়ার (স্টেশন কোড এপিডি) ও আলিপুরদুয়ার কোর্ট (স্টেশন কোড এপিডিসি)। দূরপাল্লার ট্রেনগুলি এই স্টেশনগুলিতে দাঁড়ায় না।

অধিকাংশ দূরপাল্লার ট্রেন নিউ আলিপুরদুয়ার জংশনের (স্টেশন কোড এনওকিউ) উপর দিয়ে যায় ও সেই স্টেশনে দাঁড়ায়। ১৯৫০-এর দশনে নির্মিত ওই স্টেশনটি ডাবল ট্র্যাকের মাধ্যমে অসম ও পশ্চিমবঙ্গের অন্যান্য অঞ্চলের মধ্যে যোগাযোগ রক্ষা করছে। পুরনো আলিপুরদুয়ার স্টেশনটি মিটার গেজ ট্র্যাকের উপর ছিল। অনেক পরে ২০০৬ সালে এটিকে ব্রড গেজে রূপান্তরিত করা হয়। অল্প কয়েকটি ট্রেনই এই স্টেশনের উপর দিয়ে যায়।

দুটি জংশন আলাদা লাইনের উপর অবস্থিত। আলিপুরদুয়ার-কামাখ্যা ইন্টারসিটি এক্সপ্রেস (ট্রেন নং ১৫৪৭১) নামে একটি স্বল্পপাল্লার ট্রেনই এই দুটি জংশনের মধ্যে চলে।

২০০৭ সালে উত্তরপূর্ব সীমান্ত রেল আলিপুরদুয়ার-বামনহাট ব্রাঞ্চ লাইনটিকে ১,৬৭৬ মিলিমিটার (৫ ফুট ৬ ইঞ্চি) ব্রড গেজে রূপান্তরিত করে।[২]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "History of NFR"। Northeast Frontier Railway। সংগ্রহের তারিখ ২০১৩-০২-২২ 
  2. Srivastava, V.P.। "Role of Engineering Deptt in Meeting Corporate Objectives of Indian Railways" (PDF)। ২০১৪-০৩-৩০ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৩-০২-২১ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]

টেমপ্লেট:Alipurduar topics