স্থানাঙ্ক: ২৩°৩১′০০″ উত্তর ৮৬°৪০′৫১″ পূর্ব / ২৩.৫১৬৮° উত্তর ৮৬.৬৮০৯° পূর্ব / 23.5168; 86.6809

জয়চণ্ডী পাহাড় রেলওয়ে স্টেশন

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
জয়চন্ডী পাহাড়
ভারতীয় রেল স্টেশন
View of the joychandipahar railways station.jpg
জয়চণ্ডী পাহাড় স্টেশন
অবস্থানজয়চণ্ডী পাহাড়, পুরুলিয়া জেলা, পশ্চিমবঙ্গ
ভারত
স্থানাঙ্ক২৩°৩১′০০″ উত্তর ৮৬°৪০′৫১″ পূর্ব / ২৩.৫১৬৮° উত্তর ৮৬.৬৮০৯° পূর্ব / 23.5168; 86.6809
উচ্চতা১৫৫ মিটার (৫০৯ ফু)
লাইনআসানসোল-টাটানগর-খড়গপুর লাইন
প্ল্যাটফর্ম
নির্মাণ
গঠনের ধরনআদর্শ
পার্কিংহ্যাঁ
সাইকেলের সুবিধানা
অন্য তথ্য
স্টেশন কোডজেওসে (JOC)
অঞ্চল দক্ষিণ পূর্ব রেল
বিভাগ আদ্রা রেলওয়ে বিভগ
ইতিহাস
চালু১৮৯১; ১৩০ বছর আগে (1891)
বৈদ্যুতীকরণ১৯৫৭-৬২
আগের নামবেঙ্গল নাগপুর রেলওয়ে
অবস্থান
চুঁচুড়া পশ্চিমবঙ্গ-এ অবস্থিত
চুঁচুড়া
চুঁচুড়া
পশ্চিমবঙ্গে অবস্থান
চুঁচুড়া ভারত-এ অবস্থিত
চুঁচুড়া
চুঁচুড়া
পশ্চিমবঙ্গে অবস্থান

জয়চান্ডী পাহাড় রেলওয়ে স্টেশন ভারতীয় রাজ্য পশ্চিমবঙ্গের পুরুলিয়া জেলার জয়চণ্ডী পাহাড় ও রঘুনাথপুরের মধ্যে অবস্থিত।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

১৮৮৭ সালে নাগপুর - ছত্তীসগঢ় রেলপথকে উন্নত করার লক্ষ্যে এবং বেহালপুর থেকে আসানসোল পর্যন্ত বিস্তৃত করার জন্য বেঙ্গল নাগপুর রেলওয়ে গঠিত হয়, যাতে হাওড়া-মুম্বাই রুটটিকে এলাহাবাদের মধ্য দিয়ে একটি কম দূরত্বের পথ বানানো যায়। হাওড়া-দিল্লি মূল লাইনের নাগপুর থেকে আসানসোলের বেঙ্গল নাগপুর রেলওয়ে মূল লাইনটি ১৮৯১ সালের ১ ফেব্রুয়ারি পণ্য পরিবহনের জন্য খোলা ছিল। [১]

বৈদ্যুতীকরণ[সম্পাদনা]

টাটানগর-আদ্রা-আসানসোল বিভাগটি ১৯৫৭-১৯৬২ সময়ের মধ্যে বিদ্যুতায়িত হয়। [২]

নতুন স্টেশন ভবন[সম্পাদনা]

জয়চন্ডী পাহাড় স্টেশনের নতুন ভবন

জয়পুরী পাহাড় রেলস্টেশনে একটি নতুন স্টেশন ভবন উদ্বোধন করা হয় ৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৩ তারিখে রেলওয়ের রাষ্ট্রীয় প্রতিমন্ত্রী অধীর রঞ্জন চৌধুরী[৩]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Major Events in the Formation of S.E. Railway"। South Eastern Railway। ১ এপ্রিল ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৩-০২-০৫ 
  2. Ghose, Arabinda। "Platinum Jubilee of Railway Electrification in India"। Press Information Bureau। সংগ্রহের তারিখ ২০১৩-০২-০৫ 
  3. Mitra, Bilwadal। "Political affiliations no bar when it comes to rail projects for Bengal:Adhir"। The Statesman, 5 February 2013। ২০১৩-০৪-১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৩-০২-০৫