সিউড়ী রেলওয়ে স্টেশন

স্থানাঙ্ক: ২৩°৫৩′২৫″ উত্তর ৮৭°৩১′৫২″ পূর্ব / ২৩.৮৯০৩০১° উত্তর ৮৭.৫৩১০১৬° পূর্ব / 23.890301; 87.531016
উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
Indian Railways Suburban Railway Logo.svg
সিউড়ী
রেলওয়ে স্টেশন
Siuri railway station.jpg
সিউড়ী রেলওয়ে স্টেশন
অবস্থানহাটজন বাজার, সিউড়ি, বীরভুম, পশ্চিমবঙ্গ,
ভারত
স্থানাঙ্ক২৩°৫৩′২৫″ উত্তর ৮৭°৩১′৫২″ পূর্ব / ২৩.৮৯০৩০১° উত্তর ৮৭.৫৩১০১৬° পূর্ব / 23.890301; 87.531016
মালিকানাধীনভারতীয় রেল
পরিচালিতপূর্ব রেল
লাইনঅণ্ডাল-সাঁইথিয়া শাখা রেলপথ
প্ল্যাটফর্ম
রেলপথ
নির্মাণ
গঠনের ধরনভূমিগত স্টেশন
পার্কিংহ্যা‍ঁ
অন্য তথ্য
অবস্থাসক্রিয়
স্টেশন কোডSURI
অঞ্চল পূর্ব রেল
বিভাগ আসানসোল রেলওয়ে বিভাগ
ইতিহাস
চালু১৯১৩
বৈদ্যুতীকরণ২০১৬
পরিষেবা
পূর্ববর্তী স্টেশন   ভারতীয় রেলওয়ে   পরবর্তী স্টেশন
পূর্ব রেল
অবস্থান
চুঁচুড়া পশ্চিমবঙ্গ-এ অবস্থিত
চুঁচুড়া
চুঁচুড়া
পশ্চিমবঙ্গে অবস্থান
চুঁচুড়া ভারত-এ অবস্থিত
চুঁচুড়া
চুঁচুড়া
পশ্চিমবঙ্গে অবস্থান

সিউড়ী রেলওয়ে স্টেশন পূর্ব রেলওয়ে অঞ্চলের আসানসোল রেল বিভাগের অণ্ডাল সাঁইথিয়া রেলপথের একটি গুরুত্বপূর্ণ রেলওয়ে স্টেশন । এটি ভারতের পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের বীরভূম জেলার সদর শহর সিউড়িতে অবস্থিত। ভারতীয় রেলের অধীনস্থ পূর্ব রেল দ্বারা এই স্টেশনটি পরিচালিত হয়।

সর্বমোট ২৮ টি ট্রেন সিউড়ী হয়ে যাতায়াত করে। এছাড়াও সিউড়ীতে ২ টি ট্রেন-এর যাত্রাপথ শেষ হয় এবং এখান থেকে ২ টি ট্রেন-এর যাত্রাপথ শুরু হয়। এর ফলে সিউড়ী রেলস্টেশন বীরভূম জেলার সপ্তম ব্যস্ততম রেলওয়ে স্টেশনে পরিনত হয়েছে। বীরভূম জেলার বক্রেশ্বরে অবস্থিত বক্রেশ্বর শক্তিপীঠউষ্ণ প্রস্রবণ এবং বীরভূম জেলার পাথরচাপড়িতে অবস্থিত দাতাবাবার মাজার ভ্রমনকারী পূন্যার্থী এবং ভ্রমনার্থীরা এই স্টেশন ব্যবহার করে থাকেন।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

অণ্ডাল-সাঁইথিয়া শাখা রেলপথের মধ্যে সিউড়ী রেলওয়ে স্টেশন ১৯১৩ সালে নির্মিত হয়েছিল।[১] ২০১৬ সালে এর বৈদ্যুতিকরনের কাজ শেষ হয়।

সিউড়ী রেলওয়ে স্টেশনের একটি পুরানো চিত্র

অবস্থান[সম্পাদনা]

সিউড়ী রেলওয়ে স্টেশন ভারতের পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের বীরভূম জেলার সদর শহর সিউড়ির দক্ষিণ প্রান্তে হাটজন বাজারে অবস্থিত। এটি অণ্ডাল-সাঁইথিয়া শাখা রেলপথের একটি গুরুত্বপূর্ণ স্টেশন। অণ্ডাল জংশন রেলওয়ে স্টেশনের দিক থেকে সিউড়ীর পূর্ববর্তী স্টেশন হল - কচুজোড় রেলওয়ে স্টেশন এবং পরবর্তী স্টেশন হল - কুনুরি রেলওয়ে স্টেশন

রেলপথ[সম্পাদনা]

সিউড়ী রেলওয়ে স্টেশনটি পশ্চিম বর্ধমান জেলাবীরভূম জেলার মধ্যে বিস্তৃত অণ্ডাল-সাঁইথিয়া শাখা রেলপথের মধ্যে অবস্থিত। অণ্ডাল এবং সাঁইথিয়ার মধ্যে সংযোগকারী এই রেলপথে ২ টি (আপ এবং ডাউন) ব্রড গেজ ট্র্যাক রয়েছে।

পরিকাঠামো[সম্পাদনা]

এই স্টেশনে ৩ টি প্ল্যাটফর্ম রয়েছে। সিউড়ী রেলওয়ে স্টেশনে ৫ টি রেললাইন বা রেলট্র্যাক রয়েছে। স্টেশনে স্টেশন পরিচালনার জন্য ভবন ও স্টেশন মাষ্টারে ভবন ১ নং প্ল্যাটফর্মের সঙ্গেই অবস্থিত। যাত্রীদের রেল ভ্রমণের জন্য সংরক্ষিত এবং অসংরক্ষিত টিকিট স্টেশনের টিকিট ঘর থেকে প্রদান করা হয়। স্টেশনে যাত্রী সুবিধার জন্য বসার আসন, প্ল্যাটফর্ম ছাউনি, পানীয় জল এর ব্যবস্থা রয়েছে। এছাড়াও প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণীর যাত্রীদের জন্য পৃথক ওয়েটিং রুম-এর ব্যবস্থা রয়েছে। স্টেশনে গাড়ি রাখার ব্যবস্থা আছে।

বৈদ্যুতীকরণ[সম্পাদনা]

সিউড়ী রেলওয়ে স্টেশনের রেলপথে বৈদ্যুতীক ট্রেন চলাচল করে। ২০১২ সালের জন্য রেল বাজেটে পাণ্ডবেশ্বর-সাঁইথিয়া বিভাগের বিদ্যুৎকেন্দ্র অনুমোদন করা হয়েছিল, যা ২০১৩ সাল পর্যন্ত সম্পূর্ণ করার কাথা ছিল এবং ২০১৬ সালে সম্পন্ন করা হয়।[২]

রেল পরিষেবা[সম্পাদনা]

এই স্টেশনটি মেল/এক্সপ্রেস ও লোকাল ট্রেনের দ্বারা বীরভূম জেলার সদর শহর সিউড়ির সাথে হাওড়া, কলকাতা, বর্ধমান, দুর্গাপুর, গুয়াহাটি, ডিব্রুগড়, মালদা, শিলিগুড়ি, পুরী, চেন্নাই, সুরাট, ঝাঝা আসানসোল, রাঁচি, নাগপুর, বিলাসপুর, ভুবনেশ্বর, বিশাখাপত্তনম, ডিমাপুর, জামশেদপুর, পুরুলিয়া, কটক, বিজয়ওয়াড়া, রায়পুর, দুর্গ ইত্যাদি শহরের সরাসরি সংযোগ স্থাপন করে। সিউড়ি শহর ছাড়াও পার্শ্ববর্তী এলাকার (যেমন- রাজনগর, মহম্মদ বাজার, বক্রেশ্বর, পুরন্দরপুর ইত্যাদি) মানুষজন সিউড়ী রেলওয়ে স্টেশন ব্যবহার করে থাকেন। এছাড়াও বীরভূম জেলার বক্রেশ্বরে অবস্থিত বক্রেশ্বর শক্তিপীঠউষ্ণ প্রস্রবণ এবং বীরভূম জেলার পাথরচাপড়িতে অবস্থিত দাতাবাবার মাজার ভ্রমনকারী পূন্যার্থী এবং ভ্রমনার্থীরা এই স্টেশন ব্যবহার করে থাকেন।

১৫৬৪০ ডাউন কামাখ্যা-পুরী এক্সপ্রেস (ভায়া- আদ্রা) সিউড়ী রেলওয়ে স্টেশনের ২ নং প্ল্যাটফর্মে দাঁড়িয়ে আছে

প্রশাসন ও নিরাপত্তার ব্যবস্থা[সম্পাদনা]

সিউড়ী রেলওয়ে স্টেশনটি ভারতীয় রেলের পূর্ব রেল জোনের আসানসোল রেল বিভাগের অন্তর্গত। স্টেশন পরিচালনার সমস্ত দায়িত্ব স্টেশনের প্রধান "স্টেশন মাষ্টার" - এর উপর ন্যস্ত। যাত্রীদের সুরক্ষার জন্য সিউড়ী রেলওয়ে স্টেশনে একটি জি.আর.পি.এস. বা রেল পুলিশ থানা এবং একটি আর.পি.এফ. ব্যারাক আছে। স্টেশন চত্বর ও সংলগ্ন এলাকার নিরাপত্তা রেল পুলিশ প্রদান করে থাকে।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Saxena, R.P.। "Indian Railway History Time line"Irse.bravehost.com। ২৯ ফেব্রুয়ারি ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৫ মার্চ ২০১৭ 
  2. "Electrification of new rail sections"। Press information Bureau। সংগ্রহের তারিখ ২০১১-১১-২৮