পিঠা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
বাংলাদেশের ভাপা পিঠা

পিঠা একটি মুখরোচক উপাদেয় খাদ্যদ্রব্য। এটি চালের গুড়া, আটা, ময়দা, অথবা অন্য কোনও শষ্যজাত গুড়া দিয়ে তৈরি করা হয়। এলাকা অনুযায়ী ভিন্ন ভিন্ন এবং আলাদা রকম পিঠা তৈরি হয়ে থাকে। গ্রামাঞ্চলে সাধারণতঃ নতুন ধান উঠার পর থেকেই পিঠা তৈরির আয়োজন করা হয়। শীতের সময় পিঠার বাহারি উপস্থাপন ও আধিক্য দেখা যায়। মিষ্টি, ঝাল, টক বা অন্য যে কোনও স্বাদ হতে পারে।

পিঠার প্রকারভেদ[সম্পাদনা]

  • ভাঁপা পিঠা
  • ভেজিটেবল ঝাল পিঠা
  • ছাঁচ পিঠা
  • ছিটকা পিঠা
  • চিতই পিঠা
  • চুটকি পিঠা
  • চাপড়ি পিঠা
  • চাঁদ পাকন পিঠা
  • ছিট পিঠা
  • সুন্দরী পাকন
  • সরভাজা
  • পুলি পিঠা
  • পাতা পিঠা
  • পাটিসাপটা
  • পাকান পিঠা
  • পানতোয়া
  • পুডিং
  • মালপোয়া
  • মেরা পিঠা
  • মালাই পিঠা
  • মুঠি পিঠা
  • আন্দশা
  • কুলশি
  • কাটা পিঠা
  • কলা পিঠা
  • খেজুরের পিঠা
  • ক্ষীর কুলি
  • গোকুল পিঠা
  • গোলাপ ফুল পিঠা
  • লবঙ্গ লতিকা
  • রসফুল পিঠা
  • জামদানি পিঠা
  • হাঁড়ি পিঠা
  • ঝালপোয়া পিঠা
  • ঝুরি পিঠা
  • ঝিনুক পিঠা
  • সূর্যমুখী পিঠা
  • নকশি পিঠা
  • নারকেল পিঠা
  • নারকেলের ভাজা পুলি
  • নারকেলের সেদ্ধ পুলি
  • নারকেল জেলাফি
  • তেজপাতা পিঠা
  • তেলের পিঠা
  • তেলপোয়া পিঠা
  • দুধরাজ
  • ফুল ঝুরি পিঠা
  • ফুল পিঠা
  • বিবিয়ানা পিঠা
  • সেমাই পিঠা
  • চিড়ার মোয়া
  • কাউনের মোয়া
  • ঝাল মোয়া
  • ফিরনি
  • সেমাই
  • নারকেল নাড়ু

তন্মধ্যে, বিবিয়ানা পিঠাকে জামাই ভুলানো পিঠা নামেও অভিহিত করা হয়। অপূর্ব কারুকার্যখচিত এ পিঠা তৈরীতে বিবি (অর্থ - কনে)-কে অনেকরকম পারদর্শিতা কিংবা পারঙ্গমতার পরিচয় দিতে হয় বলেই এরূপ নামকরণ হয়েছে বলে ধারণা করা হয়।[১]

প্রেক্ষাপট[সম্পাদনা]

বাসায় বানানো পুলি পিঠা

বাঙালীর লোক ইতিহাস-ঐতিহ্যে পিঠা-পুলির গুরুত্ব ভূমিকা পালন করে আসছে বহুকাল ধরে। এটি লোকজ ও নান্দনিক সংস্কৃতিরই বহিঃপ্রকাশ। সাধারণতঃ পিঠা শীতকালের রসনাজাতীয় খাবার হিসেবে অত্যন্ত পরিচিত। মুখরোচক খাদ্য হিসেবে বাঙালী সমাজে বিশেষ আদরণীয়। এছাড়াও, আত্মীয়-স্বজন ও মানুষে-মানুষের পারস্পরিক সম্পর্কের বন্ধনকে আরো দৃঢ় ও মজবুত করে তুলতে পিঠা-পুলি আয়োজনের উৎসব সবিশেষ ভূমিকা পালন করে।[২]

পিঠাঘর[সম্পাদনা]

শুধুমাত্র শীতেই নয়, সারাবছর পিঠা খাবার সুযোগ রয়েছে। শহুরে ব্যস্ত জীবনে পিঠা তৈরী করা বেশ কষ্টসাধ্য ব্যাপার। তাই, বেশ কিছু জায়গায় গড়ে উঠেছে পিঠাঘর। সেখানে পিঠা বিক্রী করা হয়। সাধারণতঃ অধিকাংশ পিঠাই সংখ্যা বা পিস হিসেবে বিক্রী হয়। এছাড়াও, খাবার ব্যবস্থাও রয়েছে খাদ্যরশিকদের জন্য। পাশাপাশি গায়ে-হলুদ, জন্মদিন, বিয়ে-শাদীসহ বিভিন্ন অনুষ্ঠানে পিঠা সরবরাহেরও ব্যবস্থা করে থাকে পিঠাঘরগুলো।[৩]

সাংস্কৃতিক অঙ্গনে[সম্পাদনা]

পিঠার স্বাদ গ্রহণ ও জনসমক্ষে একে আরো পরিচিত করে তুলতে দিনব্যাপী অথবা সপ্তাহব্যাপী শহর-নগরে পিঠা উৎসবের আয়োজন করা হয়। ঢাকায় সাংবাৎসরিকভাবে বাংলাদেশ শিশু একাডেমী, বাংলাদেশ মহিলা সমিতি, আমরা ঢাকাবাসী প্রমূখ সংস্থা-সংগঠনের উদ্যোগে এ উৎসব উদযাপিত হয়ে থাকে।

সেজন্যেই পিঠাকে ঘিরে পল্লী মায়ের কোল কবিতায় বাংলাদেশের বিখ্যাত কবি বেগম সুফিয়া কামাল লিখেছেন,

পৌষ পার্বণে পিঠা খেতে বসি খুশীতে বিষম খেয়ে
আরও উল্লাস বাড়িয়াছে মনে মায়ের বকুনি পেয়ে।

এছাড়াও, মাটির গান হিসেবে ব্যাপক পরিচিতি রয়েছে ভাওয়াইয়া গানের। সেখানেও পিঠে বা পিঠার প্রভাব পড়েছে।[২] তেমনি একটি হলোঃ-

মনটাই মোর পিঠা খাবার চাই

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. দৈনিক ইত্তেফাক, মুদ্রিত সংস্করণ, সম্পাদকীয়, শীতকালে পিঠা-পুলির উৎসব, ১৭ ডিসেম্বর, ২০১১ইং, পৃষ্ঠা-৮
  2. ২.০ ২.১ দৈনিক ইত্তেফাক, মুদ্রিত সংস্করণ, পৌষ এলো গো পৌষ, নগর সংস্কৃতি, ৭ জানুয়ারী, ২০১২ইং, পৃষ্ঠা-২৪
  3. কালের কণ্ঠ, এ টু জেড, এই শীতে পিঠাঘরে, মুদ্রিত সংস্করণ, পৃষ্ঠা-১৫, ৯ জানুয়ারী, ২০১২ইং

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]