২০১৫ ক্রিকেট বিশ্বকাপ গ্রুপ বি

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
Jump to navigation Jump to search
২৮ ফেব্রুয়ারি পার্থের ওয়াকা গ্রাউন্ডে ভারত ও সংযুক্ত আরব আমিরাতের মধ্যকার খেলার দৃশ্য

২০১৫ ক্রিকেট বিশ্বকাপের বি-গ্রুপের খেলাগুলো ১৫ ফেব্রুয়ারি থেকে ১৫ মার্চ, ২০১৫ তারিখ পর্যন্ত অনুষ্ঠিত হয়। গ্রুপটিতে সহঃ স্বাগতিক দেশ নিউজিল্যান্ডে ভারত, পাকিস্তান, সংযুক্ত আরব আমিরাত, আয়ারল্যান্ড, জিম্বাবুয়ে, ওয়েস্ট ইন্ডিজ এবং দক্ষিণ আফ্রিকা ক্রিকেট দল একে-অপরের বিপক্ষে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে। ২০১৫ সালের ক্রিকেট বিশ্বকাপ প্রতিযোগিতার এই পর্বে সাতটি দল রাউন্ড-রবিন পদ্ধতিতে খেলে। ভারত, দক্ষিণ আফ্রিকা, পাকিস্তান এবং ওয়েস্ট ইন্ডিজ - শীর্ষস্থানীয় চার দল কোয়ার্টার ফাইনালে এ-গ্রুপের শীর্ষস্থানীয় চার দলের মুখোমুখি হবে। এরফলে গ্রুপ পর্ব থেকে বিদায় নিলেও প্রত্যেক দলই কমপক্ষে ছয়টি খেলায় অংশ নিতে পেরেছে।[১]

পরিচ্ছেদসমূহ

পয়েন্ট তালিকা

দল খেলা জয় পরাজয় টাই ফলাফল হয়নি এনআরআর পয়েন্ট
 ভারত +১.৮২৭ ১২
 দক্ষিণ আফ্রিকা +১.৭০৭
 পাকিস্তান -০.০৮৫
 ওয়েস্ট ইন্ডিজ −০.০৫৩
 আয়ারল্যান্ড -০.৯৩৩
 জিম্বাবুয়ে -০.৫২৭
 সংযুক্ত আরব আমিরাত -২.০৩২

খেলার বিবরণ

দক্ষিণ আফ্রিকা ব জিম্বাবুয়ে

১৫ ফেব্রুয়ারি
১৪:০০ (এনজেডডিটি) (দিন/রাত)
স্কোরকার্ড
দক্ষিণ আফ্রিকা 
৩৩৯/৪ (৫০ ওভার)
 জিম্বাবুয়ে
২৭৭ (৪৮.২ ওভার)
দক্ষিণ আফ্রিকা ৬২ রানে বিজয়ী
সেডন পার্ক, হ্যামিল্টন
দর্শক সংখ্যা: ৮,৩৩২
আম্পায়ার: রড টাকার (অস্ট্রেলিয়া) ও র‌্যানমোর মার্টিনেজ (শ্রীলঙ্কা)
সেরা খেলোয়াড়: ডেভিড মিলার (দক্ষিণ আফ্রিকা)
  • জিম্বাবুয়ে টসে জয়ী হয়ে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়

একদিনের আন্তর্জাতিকে ইতিহাসে ৫ম উইকেট জুটিতে ডেভিড মিলারজেপি ডুমিনি অবিচ্ছিন্নভাবে সর্বোচ্চ ২৫৬* রানের নতুন রেকর্ড গড়েন।[২]

ভারত ব পাকিস্তান

১৫ ফেব্রুয়ারি
১৪:০০ (এইডিটি) (দিন/রাত)
স্কোরকার্ড
ভারত 
৩০০/৭ (৫০ ওভার)
 পাকিস্তান
২২৪ (৪৭ ওভার)
বিরাট কোহলি ১০৭ (১২৬)
সোহেল খান ৫/৫৫ (১০ ওভার)
মিসবাহ-উল-হক ৭৬ (৮৪)
মোহাম্মদ শমী ৪/৩৫ (৯ ওভার)
ভারত ৭৬ রানে বিজয়ী
অ্যাডিলেড ওভাল, অ্যাডিলেড
দর্শক সংখ্যা: ৪১,৫৮৭
আম্পায়ার: ইয়ান গোল্ড (ইংল্যান্ড) ও রিচার্ড কেটেলবরা (ইংল্যান্ড)
সেরা খেলোয়াড়: বিরাট কোহলি (ভারত)
  • ভারত টসে জয়ী হয়ে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়।

ব্যাটিংয়ে নেমে ৮ম ওভারে রোহিত শর্মা’র (১৪) উইকেট পড়ে। ২য় উইকেটে শিখর ধাওয়ান (৭৩)-বিরাট কোহলি (১০৭) ১২৯ রানে জুটি গড়েন। ৩য় উইকেটে সুরেশ রায়না-বিরাট কোহলি ১১০ রান তোলেন। শেষ ৫ ওভারে ৫ উইকেট হারিয়ে মাত্র ২৭ রান তোলে ভারত ৩০০ রানে নির্ধারিত ৫০ ওভার শেষ করে। রবীন্দ্র জাদেজা, এমএস ধোনিঅজিঙ্কা রাহানেকে ধারাবাহিকভাবে আউট করে পাকিস্তান দলগত হ্যাট্রিক করে। তারা যথাক্রমে ওয়াহাব রিয়াজসোহেল খানের শিকারে পরিণত হন। ক্রিকেট বিশ্বকাপের ৬ষ্ঠ মোকাবেলায় পাকিস্তানের বিরুদ্ধে ভারত অপরাজিত অবস্থায় থাকে।

আয়ারল্যান্ড ব ওয়েস্ট ইন্ডিজ

১৬ ফেব্রুয়ারি
১১:০০ (এনজেডডিটি)
স্কোরকার্ড
ওয়েস্ট ইন্ডিজ 
৩০৪/৭ (৫০ ওভার)
 আয়ারল্যান্ড
৩০৭/৬ (৪৫.৫ ওভার)
লেন্ডল সিমন্স ১০২ (৮৪)
জর্জ ডকরেল ৩/৫০ (১০ ওভার)
পল স্টার্লিং (৮৪)
জেরোমি টেলর ৩/৭১ (৮.৫ ওভার)
আয়ারল্যান্ড ৪ উইকেটে বিজয়ী
স্যাক্সটন ওভাল, নেলসন
দর্শক সংখ্যা: ৪,১৪৩
আম্পায়ার: রিচার্ড ইলিংওর্থ (ইংল্যান্ড) ও ব্রুস অক্সেনফোর্ড (অস্ট্রেলিয়া)
সেরা খেলোয়াড়: পল স্টার্লিং (আয়ারল্যান্ড)
  • আয়ারল্যান্ড টসে জয়ী হয়ে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়।

আয়ারল্যান্ড ওয়েস্ট ইন্ডিজকে ব্যাটিংয়ে পাঠায়। ৩১/২ থেকে ৮৭/৫-এ পরিণত হয় ওয়েস্ট ইন্ডিজ দল। ৬ষ্ঠ উইকেটে লেন্ডল সিমন্স-ড্যারেন স্যামি ১৫৪ রানের জুটি গড়ে দলকে ৫০ ওভারে ৩০৪/৭ নিয়ে যান। বিশাল রানকে তাড়া করতে গিয়ে ৭১ রানে আয়ারল্যান্ডের ১ম উইকেটের পতন ঘটে। পল স্টার্লিং-এড জয়েস ২য় উইকেটে ১০৬ রানে জুটি গড়েন। নায়ল ও’ব্রায়ান ৬০ বলে অপরাজিত ৭৯ রান তোলে চার ওভারেরও বেশি বল বাকী থাকতে দলকে ৪ উইকেটের জয় এনে দেন। এরফলে ক্রিকেট বিশ্বকাপে টেস্টখেলুড়ে দলের বিপক্ষে আয়ারল্যান্ডের চতুর্থ জয়লাভ।[৩]

সংযুক্ত আরব আমিরাত ব জিম্বাবুয়ে

১৯ ফেব্রুয়ারি
১১:০০ (এনজেডডিটি)
স্কোরকার্ড
সংযুক্ত আরব আমিরাত 
২৮৫/৭ (৫০ ওভার)
 জিম্বাবুয়ে
২৮৬/৬ (৪৮ ওভার)
জিম্বাবুয়ে ৪ উইকেটে বিজয়ী
স্যাক্সটন ওভাল, নেলসন
দর্শক সংখ্যা: ২,৬৪৩
আম্পায়ার: যোহান ক্লোয়েত (দক্ষিণ আফ্রিকা) ও ক্রিস গফানি (নিউজিল্যান্ড)
সেরা খেলোয়াড়: শন উইলিয়ামস (জিম্বাবুয়ে)
  • জিম্বাবুয়ে টসে জয়ী হয়ে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়।

সংযুক্ত আরব আমিরাত দল একদিনের আন্তর্জাতিকে তাদের সর্বোচ্চ ইনিংস গড়ে।[৪]

পাকিস্তান ব ওয়েস্ট ইন্ডিজ

২১ ফেব্রুয়ারি
১১:০০ (এনজেডডিটি)
স্কোরকার্ড
ওয়েস্ট ইন্ডিজ 
৩১০/৬ (৫০ ওভার)
 পাকিস্তান
১৬০ (৩৯ ওভার)
দীনেশ রামদিন ৫১ (৪৩)
হারিস সোহেল ২/৬২ (৯ ওভার)
উমর আকমল ৫৯ (৭১)
জেরোমি টেলর ৩/১৫ (৭ ওভার)
ওয়েস্ট ইন্ডিজ ১৫০ রানে বিজয়ী
হ্যাগলে ওভাল, ক্রাইস্টচার্চ
দর্শক সংখ্যা: ১৪,৪৬১
আম্পায়ার: মারাইজ ইরাসমাস (দক্ষিণ আফ্রিকা) ও নাইজেল লং (ইংল্যান্ড)
সেরা খেলোয়াড়: আন্দ্রে রাসেল (ওয়েস্ট ইন্ডিজ)
  • পাকিস্তান টসে জয়ী হয়ে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়।

পাকিস্তান দল তাদের একদিনের আন্তর্জাতিকের ইতিহাসে সবচেয়ে বাজে ব্যাটিং করে। দলটি মাত্র ১ রানে ৪ উইকেট হারায়।[৫] ওয়েস্ট ইন্ডিজ দল একদিনের আন্তর্জাতিকে পাকিস্তানের বিপক্ষে রানের ব্যবধানে সবচেয়ে বড় জয় পায়।[৬]

ভারত ব দক্ষিণ আফ্রিকা

২২ ফেব্রুয়ারি
১৪:৩০ (এইডিটি) (দিন/রাত)
স্কোরকার্ড
ভারত 
৩০৭/৭ (৫০ ওভার)
 দক্ষিণ আফ্রিকা
১৭৭ (৪০.২ ওভার)
শিখর ধাওয়ান ১৩৭ (১৪৬)
মরনে মরকেল ২/৫৯ (১০ ওভার)
ভারত ১৩০ রানে বিজয়ী
মেলবোর্ন ক্রিকেট গ্রাউন্ড, মেলবোর্ন
দর্শক সংখ্যা: ৮৬,৮৭৬
আম্পায়ার: আলীম দার (পাকিস্তান) ও রিচার্ড কেটেলবরা (ইংল্যান্ড)
সেরা খেলোয়াড়: শিখর ধাওয়ান (ভারত)
  • ভারত টসে জয়ী হয়ে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়।

শিখর ধাওয়ান একদিনের আন্তর্জাতিকে তার ব্যক্তিগত সর্বোচ্চ রান তোলেন। ক্রিকেট বিশ্বকাপের ইতিহাসে প্রথমবারের মতো দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে জয়লাভ করে ভারত দল।[৭][৮] দক্ষিণ আফ্রিকার অধিনায়ক এবি ডি ভিলিয়ার্সকে দলের ধীরগতিতে বোলিংয়ের কারণে ম্যাচ ফি'র ২০% জরিমানা করা হয়। অন্যান্য খেলোয়াড়দেরকে একই কারণে ম্যাচ ফি'র ২০% জরিমানা করা হয়।[৯]

ওয়েস্ট ইন্ডিজ ব জিম্বাবুয়ে

২৪ ফেব্রুয়ারি
১৪:৩০ (এইডিটি) (দিন/রাত)
স্কোরকার্ড
ওয়েস্ট ইন্ডিজ 
৩৭২/২ (৫০ ওভার)
 জিম্বাবুয়ে
২৮৯ (৪৪.৩ ওভার)
শন উইলিয়ামস ৭৬ (৬১)
জেরোমি টেলর ৩/৩৮ (১০ ওভার)
ওয়েস্ট ইন্ডিজ ৭৩ রানে বিজয়ী (ডি/এল)
ম্যানুকা ওভাল, ক্যানবেরা
দর্শক সংখ্যা: ৫,৫৪৪
আম্পায়ার: স্টিভ ডেভিস (অস্ট্রেলিয়া) ও ইয়ান গোল্ড (ইংল্যান্ড)
সেরা খেলোয়াড়: ক্রিস গেইল (ওয়েস্ট ইন্ডিজ)
  • ওয়েস্ট ইন্ডিজ টসে জয়ী হয়ে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়।
  • বৃষ্টির কারণে জিম্বাবুয়ের জয়ের লক্ষ্যমাত্রা ৪৮ ওভারে ৩৬৩ ধার্য্য করা হয়।

প্রথম ব্যাটসম্যান হিসেবে ক্রিস গেইল বিশ্বকাপের ইতিহাসে ও প্রথম অ-ভারতীয় ব্যাটসম্যান হিসেবে একদিনের আন্তর্জাতিকে দ্বি-শতক হাঁকান।[১০] এছাড়াও গেইলের দ্বি-শতক একদিনের আন্তর্জাতিকে দ্রুততম।[১১] ১৬ ছক্কা মেরে রোহিত শর্মাএবি ডি ভিলিয়ার্সের সাথে একদিনের আন্তর্জাতিকে সর্বোচ্চ ছক্কার রেকর্ডে ভাগ বসান গেইল।[১২] মারলন স্যামুয়েলসের সাথে ৩৭২ রানের জুটি গড়ে একদিনের আন্তর্জাতিকের ইতিহাসে যে-কোন উইকেটে সর্বোচ্চ রানের জুটি গড়েন।[১৩] ব্রায়ান লারা'র পর দ্বিতীয় ওয়েস্ট ইন্ডিয়ান হিসেবে ক্রিস গেইল একদিনের আন্তর্জাতিকে ৯,০০০ রানের মাইলফলক স্পর্শ করেন।[১৪]

আয়ারল্যান্ড ব সংযুক্ত আরব আমিরাত

২৫ ফেব্রুয়ারি
১৩:৩০ (এইডিটি) (দিন/রাত)
স্কোরকার্ড
সংযুক্ত আরব আমিরাত 
২৭৮/৯ (৫০ ওভার)
 আয়ারল্যান্ড
২৭৯/৮ (৪৯.২ ওভার)
শাইমন আনোয়ার ১০৬ (৮৩)
পল স্টার্লিং ২/২৭ (১০ ওভার)
গ্যারি উইলসন ৮০ (৬৯)
আমজাদ জাভেদ ৩/৬০ (১০ ওভার)
আয়ারল্যান্ড ২ উইকেটে বিজয়ী
ব্রিসবেন ক্রিকেট গ্রাউন্ড, ব্রিসবেন
দর্শক সংখ্যা: ৫,২৪৯
আম্পায়ার: মাইকেল গফ (ইংল্যান্ড) ও নাইজেল লং (ইংল্যান্ড)
সেরা খেলোয়াড়: গ্যারি উইলসন (আয়ারল্যান্ড)
  • আয়ারল্যান্ড টসে জয়ী হয়ে ফিল্ডিয়ের সিদ্ধান্ত নেয়।

বিশ্বকাপের কোন খেলায় প্রথম আমিরাতি ক্রিকেটার হিসেবে সাইমন আনোয়ার সেঞ্চুরি করেন।[১৫] সাইমন আনোয়ার ও আমজাদ জাভেদ বিশ্বকাপের ইতিহাসে ৭ম উইকেট জুটিতে ১০৩-রানের জুটি গড়েন।[১৫]

দক্ষিণ আফ্রিকা ব ওয়েস্ট ইন্ডিজ

২৭ ফেব্রুয়ারি
১৪:৩০ (এইডিটি) (দিন/রাত)
স্কোরকার্ড
দক্ষিণ আফ্রিকা 
৪০৮/৫ (৫০ ওভার)
 ওয়েস্ট ইন্ডিজ
১৫১ (৩৩.১ ওভার)
জেসন হোল্ডার ৫৬ (৪৮)
ইমরান তাহির ৫/৪৫ (১০ ওভার)
দক্ষিণ আফ্রিকা ২৫৭ রানে বিজয়ী
সিডনি ক্রিকেট গ্রাউন্ড, সিডনি
দর্শক সংখ্যা: ২৩,৬১২
আম্পায়ার: স্টিভ ডেভিস (অস্ট্রেলিয়া) ও ইয়ান গোল্ড (ইংল্যান্ড)
সেরা খেলোয়াড়: এবি ডি ভিলিয়ার্স (দক্ষিণ আফ্রিকা)
  • দক্ষিণ আফ্রিকা টসে জয়ী হয়ে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়।

এবি ডি ভিলিয়ার্স একদিনের আন্তর্জাতিকের ইতিহাসে দ্রুততম ১৫০ রান সংগ্রহ করেন মাত্র ৬৪ বল মোকাবেলা করে।[১৬] এছাড়াও এটি বিশ্বকাপের ইতিহাসে দ্বিতীয় দ্রুততম সেঞ্চুরি।[১৭] শেষ ৫ ওভারে তিনি ৭৩ রান তোলেন যা এ সময়ের যে-কোন ব্যাটসম্যানের মধ্যে সর্বাধিক।[১৭] ওয়েস্ট ইন্ডিজের জেসন হোল্ডার ১০৪ রান দেন যা বিশ্বকাপের যে-কোন বোলারের তুলনায় সবচেয়ে বেশী। এছাড়াও তিনি একদিনের আন্তর্জাতিকের ইতিহাসে ধারাবাহিকভাবে দুই ওভারে সবচেয়ে বেশী রান দেন।[১৭] ২৫৭ রানের ব্যবধানে জয়ী হয়ে দক্ষিণ আফ্রিকা দল ২০০৭ সালে বারমুদার বিপক্ষে জয়ী ভারত দলের সমকক্ষ হয়।[১৮]

ভারত ব সংযুক্ত আরব আমিরাত

২৮ ফেব্রুয়ারি
১৪:৩০ (এইডিটি) (দিন/রাত)
স্কোরকার্ড
সংযুক্ত আরব আমিরাত 
১০২ (৩১.৩ ওভার)
 ভারত
১০৪/১ (১৮.৫ ওভার)
রোহিত শর্মা ৫৭* (৫৫)
মোহাম্মদ নাভিদ ১/৩৫ (৫ ওভার)
ভারত ৯ উইকেটে বিজয়ী
ওয়াকা গ্রাউন্ড, পার্থ
দর্শক সংখ্যা: ৮,৭১৮
আম্পায়ার: বিলি বাউডেন (নিউজিল্যান্ড) ও মাইকেল গফ (ইংল্যান্ড)
সেরা খেলোয়াড়: রবিচন্দ্রন অশ্বিন (ভারত)
  • সংযুক্ত আরব আমিরাত টসে জয়ী হয়ে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়।

পাকিস্তান ব জিম্বাবুয়ে

১ মার্চ
১৩:৩০ (এইডিটি) (দিন/রাত)
স্কোরকার্ড
পাকিস্তান 
২৩৫/৭ (৫০ ওভার)
 জিম্বাবুয়ে
২১৫ (৪৯.৪ ওভার)
মিসবাহ-উল-হক ৭৩ (১২১)
টেন্ডাই চাতারা ৩/৩৫ (১০ ওভার)
পাকিস্তান ২০ রানে বিজয়ী
ব্রিসবেন ক্রিকেট গ্রাউন্ড, ব্রিসবেন
দর্শক সংখ্যা: ৯,৮৪৭
আম্পায়ার: রিচডর্ড কেটেলবরা (ইংল্যান্ড) ও জোয়েল উইলসন (ওয়েস্ট ইন্ডিজ)
সেরা খেলোয়াড়: ওয়াহাব রিয়াজ (পাকিস্তান)
  • পাকিস্তান টসে জয়ী হয়ে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়।

পাকিস্তানের প্রথম ক্রিকেটার হিসেবে বিশ্বকাপের কোন খেলায় ওয়াহাব রিয়াজ অর্ধ-শতকসহ ৪ উইকেট লাভ করেন।[১৯]

আয়ারল্যান্ড ব দক্ষিণ আফ্রিকা

৩ মার্চ
১৪:৩০ (এইডিটি) (দিন/রাত)
স্কোরকার্ড
দক্ষিণ আফ্রিকা 
৪১১/৪ (৫০ ওভার)
 আয়ারল্যান্ড
২১০ (৪৫ ওভার)
দক্ষিণ আফ্রিকা ২০১ রানে বিজয়ী
ম্যানুকা ওভাল, ক্যানবেরা
দর্শক সংখ্যা: ৮,৮৩১
আম্পায়ার: স্টিভ ডেভিস (অস্ট্রেলিয়া) ও র‌্যানমোর মার্টিনেজ (শ্রীলঙ্কা)
সেরা খেলোয়াড়: হাশিম আমলা (দক্ষিণ আফ্রিকা)
  • দক্ষিণ আফ্রিকা টসে জয়ী হয়ে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়।

একদিনের আন্তর্জাতিকে প্রথম দল হিসেবে দক্ষিণ আফ্রিকা ধারাবাহিকভাবে দুই ইনিংসে ৪০০ রান সংগ্রহ করে। ৪১১/৪ বিশ্বকাপের ইতিহাসে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ রান।[২০] হাশিম আমলাফাফ দু প্লেসিস একদিনের আন্তর্জাতিকে দক্ষিণ আফ্রিকার পক্ষে দ্বিতীয় উইকেটে ২৪৭ রানের সর্বোচ্চ রান তোলেন।[২১]

পাকিস্তান ব সংযুক্ত আরব আমিরাত

৪ মার্চ
১৪:০০ (এনজেডডিটি) (দিন/রাত)
স্কোরকার্ড
পাকিস্তান 
৩৩৯/৬ (৫০ ওভার)
 সংযুক্ত আরব আমিরাত
২১০/৮ (৫০ ওভার)
আহমেদ শেহজাদ ৯৩ (১০৫)
মঞ্জুলা গুরুগে ৪/৫৬ (৮ ওভার)
স্ইমন আনোয়ার ৬২ (৮৮)
শহীদ আফ্রিদি ২/৩৫ (১০ ওভার)
পাকিস্তান ১২৯ রানে বিজয়ী
ম্যাকলিন পার্ক, নেপিয়ার
দর্শক সংখ্যা: ২,৪০৬
আম্পায়ার: যোহান ক্লোয়েত (দক্ষিণ আফ্রিকা) ও এস. রবি (ভারত)
সেরা খেলোয়াড়: আহমেদ শেহজাদ (পাকিস্তান)
  • সংযুক্ত আরব আমিরাত টসে জয়ী হয়ে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়।

পাকিস্তানের পক্ষে চতুর্থ খেলোয়াড় হিসেবে শহীদ আফ্রিদি একদিনের আন্তর্জাতিকে ৮,০০০ রান সংগ্রহ করেন।[২২]

ভারত ব ওয়েস্ট ইন্ডিজ

৬ মার্চ
১৪:৩০ (এইডব্লিউএসটি) (দিন/রাত)
স্কোরকার্ড
ওয়েস্ট ইন্ডিজ 
১৮২ (৪৪.২ ওভার)
 ভারত
১৮৫/৬ (৩৯.১ ওভার)
জেসন হোল্ডার ৫৭ (৬৪)
মোহাম্মদ শমী ৩/৩৫ (৮ ওভার)
ভারত ৪ উইকেটে বিজয়ী
ওয়াকা গ্রাউন্ড, পার্থ
দর্শক সংখ্যা: ১৭,৫৫৭
আম্পায়ার: কুমার ধর্মসেনা (শ্রীলঙ্কা) ও নাইজেল লং (ইংল্যান্ড)
সেরা খেলোয়াড়: মোহাম্মদ শমী (ভারত)
  • ওয়েস্ট ইন্ডিজ টসে জয়ী হয়ে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়।
  • খেলার ফলাফলে ভারত কোয়ার্টার ফাইনালে উন্নীত হয়।[২৩]

বিশ্বকপে ভারত ধারাবাহিকভাবে অষ্টম জয় পায় যা তাদের দীর্ঘতম জয়ের ধারায় যৌথভাবে অবস্থান করে।[২৪]

পাকিস্তান ব দক্ষিণ আফ্রিকা

৭ মার্চ
১৪:০০ (এনজেডডিটি) (দিন/রাত)
স্কোরকার্ড
পাকিস্তান 
২২২ (৪৬.৪ ওভার)
 দক্ষিণ আফ্রিকা
২০২ (৩৩.৩ ওভার)
মিসবাহ-উল-হক ৫৬ (৮৬)
ডেল স্টেইন ৩/৩০ (১০ ওভার)
এবি ডি ভিলিয়ার্স ৭৭ (৫৮)
রাহাত আলী ৩/৪০ (৮ ওভার)
পাকিস্তান ২৯ রানে বিজয়ী (ডি/এল)
ইডেন পার্ক, অকল্যান্ড
দর্শক সংখ্যা: ২২,৭১৩
আম্পায়ার: রিচার্ড কেটেলবরা (ইংল্যান্ড) ও ব্রুস অক্সেনফোর্ড (অস্ট্রেলিয়া)
সেরা খেলোয়াড়: সরফরাজ আহমেদ (পাকিস্তান)
  • দক্ষিণ আফ্রিকা টসে জয়ী হয়ে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়।

বৃষ্টির কারণে প্রত্যকে দলের ইনিংস ৪৭ ওভার নির্ধারণ করা হয়। ফলে ডি/এল পদ্ধতিতে দক্ষিণ আফ্রিকার জয়ের লক্ষ্যমাত্রা ২৩২ নির্ধারিত হয়। প্রথমবারের মতো বিশ্বকাপে পাকিস্তান দক্ষিণ আফ্রিকাকে পরাজিত করে।

আয়ারল্যান্ড ব জিম্বাবুয়ে

৭ মার্চ
১৪:৩০ (এইইডিটি) (দিন/রাত)
স্কোরকার্ড
আয়ারল্যান্ড 
৩৩১/৮ (৫০ ওভার)
 জিম্বাবুয়ে
৩২৬ (৪৯.৩ ওভার)
এড জয়েস ১১২ (১০৩)
টেন্ডাই চাতারা ৩/৬১ (১০ ওভার)
আয়ারল্যান্ড ৫ রানে বিজয়ী
বেলেরিভ ওভাল, হোবার্ট
দর্শক সংখ্যা: ৪,০৪৮
আম্পায়ার: রুচিরা পল্লিয়াগুরু (শ্রীলঙ্কা) ও পল রেইফেল (অস্ট্রেলিয়া)
সেরা খেলোয়াড়: এড জয়েস (আয়ারল্যান্ড)
  • জিম্বাবুয়ে টসে জয়ী হয়ে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়।
  • খেলার ফলাফলে জিম্বাবুয়ে ও সংযুক্ত আরব আমিরাত বিশ্বকাপ থেকে বিদায় নেয়।[২৫]

ভারত ব আয়ারল্যান্ড

১০ মার্চ
১৪:০০ (এনজেডডিটি) (দিন/রাত)
স্কোরকার্ড
আয়ারল্যান্ড 
২৫৯ (৪৯ ওভার)
 ভারত
২৬০/২ (৩৬.৫ ওভার)
ভারত ৮ উইকেটে বিজয়ী
সেডন পার্ক, হ্যামিল্টন
দর্শক সংখ্যা: ১০,১৯২
আম্পায়ার: কুমার ধর্মসেনা (শ্রীলঙ্কা) ও রিচার্ড কেটেলবরা (ইংল্যান্ড)
সেরা খেলোয়াড়: শিখর ধাওয়ান (ভারত)
  • আয়ারল্যান্ড টসে জয়ী হয়ে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়।

খেলার ফলাফলে ভারত বি গ্রুপে শীর্ষস্থান দখল করে।[২৬] পাশাপাশি বিশ্বকাপে ধারাবাহিকভাবে ৯ম জয় পায়।[২৭]

দক্ষিণ আফ্রিকা ব সংযুক্ত আরব আমিরাত

১২ মার্চ
১৪:০০ (এনজেডডিটি) (দিন/রাত)
স্কোরকার্ড
দক্ষিণ আফ্রিকা 
৩৪১/৬ (৫০ ওভার)
 সংযুক্ত আরব আমিরাত
১৯৫ (৪৭.৩ ওভার)
দক্ষিণ আফ্রিকা ১৪৬ রানে বিজয়ী
ওয়েলিংটন রিজিওন্যাল স্টেডিয়াম, ওয়েলিংটন
দর্শক সংখ্যা: ৪,৯০১
আম্পায়ার: স্টিভ ডেভিস (অস্ট্রেলিয়া) ও রড টাকার (অস্ট্রেলিয়া)
সেরা খেলোয়াড়: এবি ডি ভিলিয়ার্স (দক্ষিণ আফ্রিকা)
  • সংযুক্ত আরব আমিরাত টসে জয়ী হয়ে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়।
  • খেলার ফলাফলে দক্ষিণ আফ্রিকা কোয়ার্টার ফাইনালে উন্নীত হয়।[২৮]

এবি ডি ভিলিয়ার্স বর্তমানে যে-কোন বিশ্বকাপ প্রতিযোগিতায় সর্বাধিক ২০ ছক্কা মেরে রেকর্ড গড়েন। এছাড়াও সকল বিশ্বকাপে সর্বাধিক ছক্কা (৩৬) হাঁকান।[২৯]

ভারত ব জিম্বাবুয়ে

১৪ মার্চ
১৪:০০ (এনজেডডিটি) (দিন/রাত)
স্কোরকার্ড
জিম্বাবুয়ে 
২৮৭ (৪৮.৫ ওভার)
 ভারত
২৮৮/৪ (৪৮.৪ ওভার)
ব্রেন্ডন টেলর ১৩৮ (১১০)
উমেশ যাদব ৩/৪৩ (৯.৫ ওভার)
ভারত ৬ উইকেটে বিজয়ী
ইডেন পার্ক, অকল্যান্ড
দর্শক সংখ্যা: ৩০,০৭৬
আম্পায়ার: ক্রিস গফানি (নিউজিল্যান্ড) ও ব্রুস অক্সেনফোর্ড (অস্ট্রেলিয়া)
সেরা খেলোয়াড়: সুরেশ রায়না (ভারত)
  • ভারত টসে জয়ী হয়ে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়।

বিশ্বকাপে ভারতের পক্ষে ৫ম উইকেট জুটিতে সুরেশ রায়না-মহেন্দ্র সিং ধোনি অপরাজিত ১৯৬* রানের সর্বোচ্চ জুটি গড়েন।

সংযুক্ত আরব আমিরাত ব ওয়েস্ট ইন্ডিজ

১৫ মার্চ
১১:০০ (এনজেডডিটি)
স্কোরকার্ড
সংযুক্ত আরব আমিরাত 
১৭৫ (৪৭.৪ ওভার)
 ওয়েস্ট ইন্ডিজ
১৭৬/৪ (৩০.৩ ওভার)
নাসির আজিজ ৬০ (৮৬)
জেসন হোল্ডার ৪/২৭ (১০ ওভার)
জনসন চার্লস ৫৫ (৪০)
আমজাদ জাভেদ ২/২৯ (৮ ওভার)
ওয়েস্ট ইন্ডিজ ৬ উইকেটে বিজয়ী
ম্যাকলিন পার্ক, নেপিয়ার
দর্শক সংখ্যা: ১,২২১
আম্পায়ার: আলীম দার (পাকিস্তান) ও র‌্যানমোর মার্টিনেজ (শ্রীলঙ্কা)
সেরা খেলোয়াড়: জেসন হোল্ডার (ওয়েস্ট ইন্ডিজ)
  • ওয়েস্ট ইন্ডিজ টসে জয়ী হয়ে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়।

সংযুক্ত আরব আমিরাতের সাইমন আনোয়ার বিশ্বকাপে সহযোগী দেশের মধ্যে সর্বোচ্চ রান সংগ্রহকারী হন। আমজাদ জাভেদনাসির আজিজ বিশ্বকাপে ৭ম উইকেটে ১০৭-রানের নতুন রেকর্ড গড়েন। এছাড়াও সংযুক্ত আরব আমিরাতের পক্ষে টেস্টভূক্ত দলের বিপক্ষে যে-কোন উইকেটে সর্বোচ্চ রানের রেকর্ড গড়েন।[৩০]

আয়ারল্যান্ড ব পাকিস্তান

১৫ মার্চ
১৪:০০ (এইসিডিটি) (দিন/রাত)
স্কোরকার্ড
আয়ারল্যান্ড 
২৩৭ (৫০ ওভার)
 পাকিস্তান
২৪১/৩ (৪৬.১ ওভার)
সরফরাজ আহমেদ ১০১* (১২৪)
অ্যালেক্স কুস্যাক ১/৪৩ (১০ ওভার)
পাকিস্তান ৭ উইকেটে বিজয়ী
অ্যাডিলেড ওভাল, অ্যাডিলেড
দর্শক সংখ্যা: ৯,৮৮৯
আম্পায়ার: মারাইজ ইরাসমাস (দক্ষিণ আফ্রিকা) ও রুচিরা পল্লিয়াগুরু (শ্রীলঙ্কা)
সেরা খেলোয়াড়: সরফরাজ আহমেদ (পাকিস্তান)
  • আয়ারল্যান্ড টসে জয়ী হয়ে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়।
  • খেলার ফলাফলে পাকিস্তান কোয়ার্টার ফাইনালে উন্নীত হয়।
  • খেলার ফলাফলে ওয়েস্ট ইন্ডিজ কোয়ার্টার ফাইনালে উন্নীত হয়।
  • খেলার ফলাফলে আয়ারল্যান্ড বিশ্বকাপ থেকে বিদায় নেয়।

তথ্যসূত্র

  1. আর্কিথ আথনি (১৫ নভেম্বর ২০১৪)। "The ICC World Cup 2015 format"Sportzwiki। সংগ্রহের তারিখ ১৫ নভেম্বর ২০১৪ 
  2. Mitchener, Mark (১৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৫)। "World Cup 2015: South Africa beat Zimbabwe after record stand"। বিবিসি স্পোর্ট (ব্রিটিশ ব্রডকাস্টিং কর্পোরেশন)। সংগ্রহের তারিখ ১৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৫ 
  3. "Cricket World Cup 2015: Ireland stun West Indies in Nelson"BBC Sport। সংগ্রহের তারিখ ১৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৫ 
  4. "Cricket World Cup 2015: Zimbabwe avoid UAE loss"BBC Sport। সংগ্রহের তারিখ ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৫ 
  5. "Russell leads rout of sloppy Pakistan"ইএসপিএনক্রিকইনফো। ইএসপিএন স্পোর্টস মিডিয়া। ২১ ফেব্রুয়ারি ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ২১ ফেব্রুয়ারি ২০১৫ 
  6. "Statistics / Statsguru / One-Day Internationals / Team records"। ইএসপিএন ক্রিকইনফো। সংগ্রহের তারিখ ২১ ফেব্রুয়ারি ২০১৫ 
  7. Monga, Sidharth (২২ ফেব্রুয়ারি ২০১৫)। "Dhawan hundred sets up another big-day win"ইএসপিএনক্রিকইনফো। ইএসপিএন স্পোর্টস মিডিয়া। সংগ্রহের তারিখ ২২ ফেব্রুয়ারি ২০১৫ 
  8. "All-round India crush South Africa by 130 runs"টাইমস অব ইন্ডিয়া। টাইমস অব ইন্ডিয়া স্পোর্টস মিডিয়া। ২২ ফেব্রুয়ারি ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ২২ ফেব্রুয়ারি ২০১৫ 
  9. "De Villiers fined for slow over-rate"। CricBuzz। ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ২ মার্চ ২০১৫ 
  10. "Gayle becomes first batsman to score double ton in world cup"। SportsMirchi.com। 
  11. Krishnaswamy, Karthik (২৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৫)। "Gayle, Samuels smash Zimbabwe and records"। ইএসপিএন ক্রিকইনফো। সংগ্রহের তারিখ ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৫ 
  12. "Most sixes in an innings"ইএসপিএনক্রিকইনফো। ইএসপিএন স্পোর্টস মিডিয়া। সংগ্রহের তারিখ ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৫ 
  13. "Highest partnership ever for Chris Gayle and Marlon Samuels"ইএসপিএনক্রিকইনফো। ইএসপিএন স্পোর্টস মিডিয়া। সংগ্রহের তারিখ ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৫ 
  14. "Gayle enters 9000 runs: Records / Leading Run Scorers"ইএসপিএনক্রিকইনফো। ইএসপিএন স্পোর্টস মিডিয়া। সংগ্রহের তারিখ ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৫ 
  15. "Wilson, K O'Brien seal tense win"ইএসপিএনক্রিকইনফো। ইএসপিএন স্পোর্টস মিডিয়া। ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৫ 
  16. "De Villiers 162* off 66, WI 151 all out"ইএসপিএনক্রিকইনফো। ইএসপিএন স্পোর্টস মিডিয়া। সংগ্রহের তারিখ ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৫ 
  17. "AB De Villiers hits fastest ODI 150 in South Africa World Cup win"। বিবিসি স্পোর্ট। ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৫ 
  18. "15 overs, 222 runs"ইএসপিএনক্রিকইনফো। ইএসপিএন স্পোর্টস মিডিয়া। সংগ্রহের তারিখ ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৫ 
  19. "Cricket World Cup: Pakistan beat Zimbabwe to keep hopes alive"। বিবিসি স্পোর্ট। ১ মার্চ ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ১ মার্চ ২০১৫ 
  20. "Amla fastest to 20 ODI tons"ইএসপিএনক্রিকইনফো। ইএসপিএন স্পোর্টস মিডিয়া। ৩ মার্চ ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ৩ মার্চ ২০১৫ 
  21. "Cricket World Cup: South Africa beat Ireland by 201 runs"। বিবিসি স্পোর্ট। ৩ মার্চ ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ৩ মার্চ ২০১৫ 
  22. "Afridi's 8000, and Misbah's quick fifties"ইএসপিএনক্রিকইনফো। ইএসপিএন স্পোর্টস মিডিয়া। ৪ মার্চ ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ৪ মার্চ ২০১৫ 
  23. "India defeat West Indies to reach the Cricket World Cup quarter-finals"। The Guardian। ৬ মার্চ ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ৬ মার্চ ২০১৫ 
  24. "Dhoni, bowlers extend World Cup streak"ইএসপিএনক্রিকইনফো। ইএসপিএন স্পোর্টস মিডিয়া। ৬ মার্চ ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ৬ মার্চ ২০১৫ 
  25. ড্রুমন্ড, অ্যান্ড্রু (৭ মার্চ ২০১৫)। "Ireland beat Zimbabwe by five runs"। ইয়াহু স্পোর্টস অস্ট্রেলিয়া। সংগ্রহের তারিখ ৭ মার্চ ২০১৫ 
  26. "Cricket World Cup 2015: Ireland dealt qualification blow by India"। বিবিসি স্পোর্ট। ১০ মার্চ ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ১০ মার্চ ২০১৫ 
  27. "Ashwin, Dhawan make it nine in a row"ইএসপিএনক্রিকইনফো। ইএসপিএন স্পোর্টস মিডিয়া। ৬ মার্চ ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ১০ মার্চ ২০১৫ 
  28. "Cricket World Cup 2015: South Africa ease into quarter-finals"বিবিসি স্পোর্ট। বিবিসি স্পোর্ট। ১২ মার্চ ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ১২ মার্চ ২০১৫ 
  29. "Anwar's record and de Villiers' sixes"ইএসপিএনক্রিকইনফো। ইএসপিএন স্পোর্টস মিডিয়া। ১২ মার্চ ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ১২ মার্চ ২০১৫ 
  30. "WI in quarter-final barring Adelaide tie"ইএসপিএনক্রিকইনফো। ইএসপিএন স্পোর্টস মিডিয়া। ১৫ মার্চ ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ১৫ মার্চ ২০১৫ 

আরও দেখুন

বহিঃসংযোগ