ম্যাকলিন পার্ক

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
ম্যাকলিন পার্ক
স্টেডিয়ামের তথ্যাবলী
অবস্থাননেপিয়ার, নিউজিল্যান্ড
স্থানাঙ্ক৩৯°৩০′৭″ দক্ষিণ ১৭৬°৫৪′৪৬″ পূর্ব / ৩৯.৫০১৯৪° দক্ষিণ ১৭৬.৯১২৭৮° পূর্ব / -39.50194; 176.91278স্থানাঙ্ক: ৩৯°৩০′৭″ দক্ষিণ ১৭৬°৫৪′৪৬″ পূর্ব / ৩৯.৫০১৯৪° দক্ষিণ ১৭৬.৯১২৭৮° পূর্ব / -39.50194; 176.91278
প্রতিষ্ঠাকাল১৯১১[১]
ধারন ক্ষমতা২২,৫০০
স্বত্ত্বাধিকারীনেপিয়ার সিটি কাউন্সিল
পরিচালনায়নেপিয়ার সিটি কাউন্সিল
অন্যান্যহারিকেন্স, (সুপার রাগবি)
হক’স বে রাগবি ইউনিয়ন (আইটিএম কাপ)
সেন্ট্রাল স্ট্যাগস (স্টেট চ্যাম্পিয়নশীপ/স্টেট শীল্ড/স্টেট টুয়েন্টি২০)
প্রান্ত
সেন্টেনিয়াল স্ট্যান্ড এন্ড
এমব্যাংকমেন্ট এন্ড
আন্তর্জাতিক তথ্যাবলী
প্রথম টেস্ট১৬ ফেব্রুয়ারি ১৯৭৯: নিউজিল্যান্ড বনাম পাকিস্তান
শেষ টেস্ট২৬ জানুয়ারি ২০১২: নিউজিল্যান্ড বনাম জিম্বাবুয়ে
প্রথম ওডিআই১৯ মার্চ ১৯৮২: নিউজিল্যান্ড বনাম শ্রীলঙ্কা
শেষ ওডিআই৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৩: নিউজিল্যান্ড বনাম ইংল্যান্ড
ঘরোয়া দলের তথ্য
সেন্ট্রাল ডিস্ট্রিক্টস (১৯৫২)
১২ ফেব্রুয়ারি ২০১২ অনুযায়ী
উৎস: Cricinfo

ম্যাকলিন পার্ক নেপিয়ারে অবস্থিত নিউজিল্যান্ডের খেলাধূলার মাঠ। এ মাঠে ক্রিকেটরাগবি ইউনিয়ন - উভয় ধরনের খেলাই অনুষ্ঠিত হয়। নিউজিল্যান্ডের ১০টি সঠিকমানের ক্রিকেট মাঠের মধ্যে এটিও অন্যতম।

এ মাঠের স্বাগতিক দল হিসেবে রয়েছে হক’স বে রাগবি ইউনিয়ন ও সেন্ট্রাল ডিস্ট্রিক্টস ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশন। স্টেডিয়ামের উভয় প্রান্তের নাম রাখা হয়েছে সেন্টেনিয়াল স্ট্যান্ড এন্ডএমব্যাংকমেন্ট এন্ড

বিবরণ[সম্পাদনা]

মূলতঃ বর্গাকৃতির মাঠটি একদিনের ক্রিকেটের উপযোগী করে নির্মিত হয়েছে। ফলে আগ্রাসী ব্যাটসম্যানগণ খুব সহজেই শুরুর দিকের ওভারগুলোয় স্বচ্ছন্দে রান সংগ্রহ করতে সক্ষম হন। ১৯৫২ সাল থেকে প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেট ও ১৯৭৯ সাল থেকে অদ্যাবধি ছয়টি টেস্ট খেলার আয়োজন করেছে। তন্মধ্যে স্বাগতিক নিউজিল্যান্ড ক্রিকেট দল চার টেস্ট ড্র করে ও বাকী দুই টেস্টে পরাজিত হয়েছিল। ১৯৯০ সাল থেকে প্রত্যেক মৌসুমেই কমপক্ষে একটি একদিনের আন্তর্জাতিক খেলার আয়োজন করে আসছে। মাঠের দর্শক ধারন সক্ষমতা ২১,০০০ ও পীচ টার্ফ সহযোগে নির্মিত।

ব্যবহার[সম্পাদনা]

এ মাঠে একদিনের আন্তর্জাতিক ও টেস্ট খেলায় ব্যবহৃত হয়ে আসছে। ১৯৮২-৮৩ মৌসুমে অনুষ্ঠিত রথম্যান্স কাপের খেলায় নিউজিল্যান্ড ও শ্রীলঙ্কার মধ্যকার খেলাটি প্রথম ওডিআইরূপে স্বীকৃত। ৭ উইকেটের ব্যবধানে নিউজিল্যান্ড দল জয় পেয়েছিল। ২০১৬ সালের শুরুর দিকে পাকিস্তান দলের টেস্ট খেলায় অংশ নেয়ার কথা রয়েছে।

পুণঃউন্নয়ন[সম্পাদনা]

পার্কের পুণঃগঠনের কার্যক্রম শেষ হবার পর ১ আগস্ট, ২০০৯ তারিখে নতুন গ্রাহাম লো স্ট্যান্ডের উদ্বোধন করা হয়। এ স্ট্যান্ডটি ২০১১ সালের রাগবি বিশ্বকাপ উপলক্ষে নির্মাণ করা হয় ও ২০১৫ সালের ক্রিকেট বিশ্বকাপ প্রতিযোগিতার খেলা এ মাঠে হবে।

পরিসংখ্যান[সম্পাদনা]

ম্যাকলিন পার্ক বিশ্বের অন্যতম ব্যাটিংবান্ধব উইকেট নামে বিবেচিত হয়ে আসছে।[২] সর্বমোট ৪১১ রান করে ব্রেন্ডন ম্যাককুলাম এবং ১৫ টেস্ট উইকেট নিয়ে আয়ান ও’ব্রায়ান শীর্ষস্থানে রয়েছেন।[৩]

অন্যদিকে, একদিনের ক্রিকেটে এক ইনিংসে অপরাজিত ১৪১ রান করে ব্যক্তিগত পর্যায়ে শীর্ষে রয়েছেন রিকি পন্টিং। দলীয় সর্বোচ্চ রান হচ্ছে ৩৪৭/৫। স্টিফেন ফ্লেমিংনাথান অ্যাসলে যৌথভাবে সর্বমোট ৭৪৩ রান করে শীর্ষস্থান দখল করেছেন।[৪] ২৩ উইকেট নিয়ে ড্যানিয়েল ভেট্টোরি শীর্ষে রয়েছেন।[৫]

একদিবসীয় কীর্তি[সম্পাদনা]

এখনো অব্দি ৩ এশীয় দেশ নিউজিল্যান্ডের বিরুদ্ধে এই মাঠে জয় পেয়েছে ।

দেশ প্রথম জয়(সেরা খেলোয়াড়) সর্বশেষ জয়(সেরা খেলোয়াড়)
ভারত ১৯৯৯ (শচীন তেন্ডুলকর) ২০০৯ (মহেন্দ্র সিং ধোনি)
শ্রীলংকা ২০০১ (মুত্তিয়া মুরালিধরন) ২০০৬ (সনাথ জয়াসুরিয়া)
পাকিস্তান ২০১১ (মিসবাহ-উল-হক) এখনো অব্দি একমাত্র জয়

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]