২০০৬ আইসিসি চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
সরাসরি যাও: পরিভ্রমণ, অনুসন্ধান
২০০৬ আইসিসি চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি
ICC Champions Trophy 2006 logo.svg
ব্যবস্থাপক আন্তর্জাতিক ক্রিকেট কাউন্সিল
ক্রিকেটের ধরন একদিনের আন্তর্জাতিক
প্রতিযোগিতার ধরন রাউন্ড-রবিন
আয়োজক  ভারত
বিজয়ী  অস্ট্রেলিয়া (১ম শিরোপা)
অংশগ্রহণকারী ১০
প্রতিযোগিতার সেরা
খেলোয়াড়
ওয়েস্ট ইন্ডিজ ক্রিকেট বোর্ড ক্রিস গেইল
সর্বোচ্চ রান ওয়েস্ট ইন্ডিজ ক্রিকেট বোর্ড ক্রিস গেইল (৪৭৪)
সর্বোচ্চ উইকেট ওয়েস্ট ইন্ডিজ ক্রিকেট বোর্ড জেরোমি টেলর (১৩)

২০০৬ আইসিসি চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি একদিনের আন্তর্জাতিক ক্রিকেট প্রতিযোগিতা হিসেবে ৭ অক্টোবর থেকে ৫ নভেম্বর, ২০১৬ তারিখ পর্যন্ত ভারতে অনুষ্ঠিত হয়েছিল। আইসিসি চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি প্রতিযোগিতার ৫ম আসর এটি। পূর্বেকার প্রতিযোগিতাগুলো আইসিসি নক-আউট প্রতিযোগিতা নামে পরিচিত ছিল। ২০০৫ সালের মাঝামাঝি সময়কাল পর্যন্ত প্রতিযোগিতার স্থান নির্ধারণ করা সম্ভব হয়নি। পরবর্তীতে ভারত সরকার প্রতিযোগিতায় কর অবকাশের সুযোগ দেয়ায় সম্মতি প্রকাশ করে। ২০০২ সালের প্রতিযোগিতাটি ভারতে হবার কথা থাকলেও কর বিষয়ে ঐক্যমতে না পৌঁছানোয় শ্রীলঙ্কায় অনুষ্ঠিত হয়েছিল।[১] অস্ট্রেলিয়া দল প্রতিযোগিতার শিরোপা জয় করে ও প্রথমবারের মতো চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি লাভের সুযোগ পায়। সমগ্র প্রতিযোগিতায় দলটি একটিমাত্র খেলায় পরাজিত হয়েছিল; অন্যান্য দলগুলো কমপক্ষে দু'টি খেলায় পরাভূত হয়। ফাইনালে উত্তীর্ণ ওয়েস্ট ইন্ডিজ দল গ্রুপ-পর্বে অস্ট্রেলিয়াকে পরাজিত করলেও ডাকওয়ার্থ-লুইস পদ্ধতিতে ৮ উইকেটে পরাজিত হয়ে রানার-আপ হয়। দলের উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান ক্রিস গেইল প্লেয়ার অব দ্য টুর্নামেন্ট মনোনীত হন।

বাছাই-পর্ব[সম্পাদনা]

প্রতিযোগিতায় দশটি দল প্রতিদ্বন্দ্বিতায় অবতীর্ণ হয়। ১ এপ্রিল, ২০০৬ তারিখের আইসিসি ওডিআই চ্যাম্পিয়নশীপ অনুযায়ী দলগুলোর অবস্থান নির্ধারিত হয়েছিল। ২৩ মার্চ, ২০০৬ তারিখে কেনিয়ার অবস্থানকে পাশ কাটিয়ে বাংলাদেশ ১০ম স্থানে উপনীত হয়ে খেলার সুযোগ পায়। অস্ট্রেলিয়া, দক্ষিণ আফ্রিকা, পাকিস্তান, নিউজিল্যান্ড, ভারত ও ইংল্যান্ড - এ শীর্ষ ছয় দল স্বয়ংক্রিয়ভাবে যোগ্যতা লাভ করে। বাদ-বাকী চার দল - শ্রীলঙ্কা, পূর্বতন চ্যাম্পিয়ন ওয়েস্ট ইন্ডিজ, জিম্বাবুয়ে ও বাংলাদেশ দলকে যোগ্যতাসূচক পর্বে খেলার জন্য ৭-১৪ অক্টোবর, ২০০৬ তারিখে অনুষ্ঠিত প্রতিযোগিতা-পূর্ব রাউন্ড-রবিন খেলায় অংশ নিতে হয়েছিল।[২] এ পর্বের শীর্ষ দুই দল স্বয়ংক্রিয়ভাবে যোগ্যতা লাভকারী ছয় দলের সাথে যোগ দেয়।

প্রতিযোগিতার কাঠামো[সম্পাদনা]

২০০৬ আইসিসি চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি ভারত-এ অবস্থিত
ব্রাবোর্ন (মুম্বই)
ব্রাবোর্ন (মুম্বই)
সরদার প্যাটেল (আহমেদাবাদ)
সরদার প্যাটেল (আহমেদাবাদ)
পিসিএ (মোহালি)
পিসিএ (মোহালি)
Cricket grounds hosting the 2006 ICC Champions Trophy

বাছাই পর্বের দুই দল ও অন্য ছয় দল (সর্বমোট আট দল) দুই গ্রুপে বিভক্ত হয়ে ৪ দলের অংশগ্রহণে রাউন্ড-রবিন প্রতিযোগিতায় অগ্রসর হয়। খেলাগুলো ১৫ থেকে ২৯ অক্টোবর অনুষ্ঠিত হয়। প্রাথমিক রাউন্ড এবং গ্রুপ রাউন্ডের খেলাগুলো মোহালির পাঞ্জাব ক্রিকেট সংস্থা স্টেডিয়াম, আহমেদাবাদের সরদার প্যাটেল স্টেডিয়াম, জয়পুরের সয়াই মানসিং স্টেডিয়াম এবং মুম্বইয়ের ব্রাবোর্ন স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত হয়। তন্মধ্যে, গত ১১ বছরের মধ্যে মুম্বইয়ে প্রথমবারের মতো ওডিআই অনুষ্ঠিত হয়েছে।

প্রত্যেক গ্রুপের শীর্ষ দুই দল সেমি-ফাইনাল খেলার জন্য ১ নভেম্বর মোহালি ও ২ নভেম্বর জয়পুরে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে। চূড়ান্ত খেলাটি ৫ নভেম্বর মুম্বইয়ে অনুষ্ঠিত হয়।

অংশগ্রহণকারী দল[সম্পাদনা]

১০টি টেস্টভূক্ত দল খেলায় অংশ নেয়।

খেলা পরিচালনাকারী কর্মকর্তা[সম্পাদনা]

তিনজন ম্যাচ রেফারি ও আটজন আম্পায়ারকে প্রতিযোগিতায় রাখা হয়। আইসিসি এলিট প্যানেলের দশজন আম্পায়ারের মধ্যে ডারেল হেয়ারকে নিরাপত্তাজনিত কারণে ও বিলি ডকট্রোভকে প্রতিযোগিতার বাইরে রাখতে হয়। ঐ দুই আম্পায়ার আগস্ট, ২০০৬ সালে বল টেম্পারিংয়ের জন্য আগস্টে পাকিস্তানের বিপক্ষে সিদ্ধান্ত দিতে বাধ্য হয়েছিলেন। এ বিষয়ে আইসিসি মুখপত্র বলেন, তার মানে এই নয় যে, বিলি ডকট্রোভ বাজে আম্পায়ার এবং এ সিদ্ধান্তে কোনরূপ বাজে পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়নি।[৩]

ম্যাচ রেফারি

আম্পায়ার

খেলা[সম্পাদনা]

বাছাই পর্ব[সম্পাদনা]

একটি খেলা বাকী থাকতেই ওয়েস্ট ইন্ডিজ এবং শ্রীলঙ্কা দল পরবর্তী পর্বে নিজেদের উত্তরণ ঘটায়। দল দু'টোর মধ্যকার খেলাটি গ্রুপে তাদের অবস্থান নির্ধারণের আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন করে।

খেলা তারিখ দল ১ দল ২ মাঠ ফলাফল ম্যান অব দ্য ম্যাচ
ওডিআই ২৪২৩ ৭ অক্টোবর, ২০০৬  শ্রীলঙ্কা  বাংলাদেশ মোহালি  শ্রীলঙ্কা ৩৭ রানে বিজয়ী উপুল থারাঙ্গা
ওডিআই ২৪২৪ ৮ অক্টোবর, ২০০৬  ওয়েস্ট ইন্ডিজ  জিম্বাবুয়ে আহমেদাবাদ  ওয়েস্ট ইন্ডিজ ৯ উইকেটে বিজয়ী ক্রিস গেইল
ওডিআই ২৪২৫ ১০ অক্টোবর, ২০০৬  শ্রীলঙ্কা  জিম্বাবুয়ে আহমেদাবাদ  শ্রীলঙ্কা ১৪৪ রানে বিজয়ী উপুল থারাঙ্গা
ওডিআই ২৪২৬ ১১ অক্টোবর, ২০০৬  ওয়েস্ট ইন্ডিজ  বাংলাদেশ সয়াই মানসিং স্টেডিয়াম, জয়পুর  ওয়েস্ট ইন্ডিজ ১০ উইকেটে বিজয়ী ক্রিস গেইল
ওডিআই ২৪২৭ ১৩ অক্টোবর, ২০০৬  বাংলাদেশ  জিম্বাবুয়ে সয়াই মানসিং স্টেডিয়াম, জয়পুর  বাংলাদেশ ১০১ রানে বিজয়ী শাহরিয়ার নাফীস
ওডিআই ২৪২৮ ১৪ অক্টোবর, ২০০৬  শ্রীলঙ্কা  ওয়েস্ট ইন্ডিজ মুম্বই (বিএস)  শ্রীলঙ্কা ৯ উইকেটে বিজয়ী ফারভিজ মাহারুফ
দল খেলা জয় পরাজয় ফলাফল হয়নি এনআরআর পয়েন্ট
 শ্রীলঙ্কা +২.৬৭
 ওয়েস্ট ইন্ডিজ +০.৪০
 বাংলাদেশ +০.০২
 জিম্বাবুয়ে −২.৯৩

মূল পর্ব[সম্পাদনা]

খেলা তারিখ দল ১ দল ২ মাঠ ফলাফল ম্যান অব দ্য ম্যাচ
প্রধান পর্ব
ওডিআই ২৪২৯ ১৫ অক্টোবর, ২০০৬  ভারত  ইংল্যান্ড সয়াই মানসিং স্টেডিয়াম, জয়পুর  ভারত ৪ উইকেটে বিজয়ী মুনাফ প্যাটেল
ওডিআই ২৪৩০ ১৬ অক্টোবর, ২০০৬  নিউজিল্যান্ড  দক্ষিণ আফ্রিকা মুম্বই (বিএস)  নিউজিল্যান্ড ৮৭ রানে বিজয়ী স্টিফেন ফ্লেমিং
ওডিআই ২৪৩১ ১৭ অক্টোবর, ২০০৬  পাকিস্তান  শ্রীলঙ্কা সয়াই মানসিং স্টেডিয়াম, জয়পুর  পাকিস্তান ৪ উইকেটে বিজয়ী আব্দুল রাজ্জাক
ওডিআই ২৪৩২ ১৮ অক্টোবর, ২০০৬  অস্ট্রেলিয়া  ওয়েস্ট ইন্ডিজ মুম্বই(বিএস)  ওয়েস্ট ইন্ডিজ ১০ রানে বিজয়ী রুনাকো মর্টন
ওডিআই ২৪৩৩ ২০ অক্টোবর, ২০০৬  নিউজিল্যান্ড  শ্রীলঙ্কা মুম্বই (বিএস)  শ্রীলঙ্কা ৭ উইকেটে বিজয়ী মুত্তিয়া মুরালিধরন
ওডিআই ২৪৩৪ ২১ অক্টোবর, ২০০৬  অস্ট্রেলিয়া  ইংল্যান্ড সয়াই মানসিং স্টেডিয়াম, জয়পুর  অস্ট্রেলিয়া ৬ উইকেটে বিজয়ী ড্যামিয়েন মার্টিন
ওডিআই ২৪৩৫ ২৪ অক্টোবর, ২০০৬  দক্ষিণ আফ্রিকা  শ্রীলঙ্কা আহমেদাবাদ  দক্ষিণ আফ্রিকা ৭৮ রানে বিজয়ী শন পোলক
ওডিআই ২৪৩৬ ২৫ অক্টোবর, ২০০৬  নিউজিল্যান্ড  পাকিস্তান মোহালি  নিউজিল্যান্ড ৫১ রানে বিজয়ী স্টিফেন ফ্লেমিং
ওডিআই ২৪৩৭ ২৬ অক্টোবর, ২০০৬  ভারত  ওয়েস্ট ইন্ডিজ আহমেদাবাদ  ওয়েস্ট ইন্ডিজ ৩ উইকেটে বিজয়ী শিবনারায়ণ চন্দরপল
ওডিআই ২৪৩৮ ২৭ অক্টোবর, ২০০৬  পাকিস্তান  দক্ষিণ আফ্রিকা মোহালি  দক্ষিণ আফ্রিকা ১২৪ রানে বিজয়ী মাখায়া এনটিনি
ওডিআই ২৪৩৯ ২৮ অক্টোবর, ২০০৬  ইংল্যান্ড  ওয়েস্ট ইন্ডিজ আহমেদাবাদ  ইংল্যান্ড ৩ উইকেটে বিজয়ী ক্রিস গেইল
ওডিআই ২৪৪০ ২৯ অক্টোবর, ২০০৬  ভারত  অস্ট্রেলিয়া মোহালি  অস্ট্রেলিয়া ৬ উইকেটে বিজয়ী ড্যামিয়েন মার্টিন
গ্রুপ এ
দল খেলা জয় পরাজয় ফলাফল হয়নি এনআরআর পয়েন্ট
 অস্ট্রেলিয়া +০.৫৩
 ওয়েস্ট ইন্ডিজ +০.০১
 ভারত +০.৪৮
 ইংল্যান্ড −১.০৪
গ্রুপ বি
দল খেলা জয় পরাজয় ফলাফল হয়নি এনআরআর পয়েন্ট
 দক্ষিণ আফ্রিকা +০.৭৭
 নিউজিল্যান্ড +০.৫৭
 পাকিস্তান −০.২০
 শ্রীলঙ্কা −১.১১

নক-আউট পর্ব[সম্পাদনা]

ক্রমিক তারিখ দল ১ দল ২ মাঠ ফলাফল ম্যান অব দ্য ম্যাচ
সেমি-ফাইনাল
ওডিআই ২৪৪১ ১ নভেম্বর, ২০০৬  অস্ট্রেলিয়া  নিউজিল্যান্ড মোহালি  অস্ট্রেলিয়া ৩৪ রানে বিজয়ী গ্লেন ম্যাকগ্রা
ওডিআই ২৪৪২ ২ নভেম্বর, ২০০৬  দক্ষিণ আফ্রিকা  ওয়েস্ট ইন্ডিজ সয়াই মানসিং স্টেডিয়াম, জয়পুর  ওয়েস্ট ইন্ডিজ ৬ উইকেটে বিজয়ী ক্রিস গেইল
ফাইনাল
ওডিআই ২৪৪৩ ৫ নভেম্বর, ২০০৬  অস্ট্রেলিয়া  ওয়েস্ট ইন্ডিজ মুম্বই (বিএস)  অস্ট্রেলিয়া ৮ উইকেটে বিজয়ী (ডি/এল) শেন ওয়াটসন
সেমি-ফাইনাল ফাইনাল
১ নভেম্বর – পাঞ্জাব, মোহালি
   অস্ট্রেলিয়া ২৪০/৯  
   নিউজিল্যান্ড ২০৬/১০  
 
৫ নভেম্বর – মুম্বই (বিএস), মুম্বই
       অস্ট্রেলিয়া ১১৬/২
     ওয়েস্ট ইন্ডিজ ১৩৮/১০
২ নভেম্বর – সয়াই মানসিং স্টেডিয়াম, জয়পুর
   দক্ষিণ আফ্রিকা ২৫৮/৮
   ওয়েস্ট ইন্ডিজ ২৬২/৪  

পরিসংখ্যান[সম্পাদনা]

প্রাথমিক রাউন্ডের ফলাফলও এ পরিসংখ্যানে অন্তর্ভূক্ত হয়েছে।

ব্যাটিং[সম্পাদনা]

সর্বাধিক রান[৪]
ক্রমিক খেলোয়াড় দল খেলা ই. অপঃ রান সর্বোচ্চ[৫] গড় এসআর ১০০ ৫০
ক্রিস গেইল  ওয়েস্ট ইন্ডিজ ৪৭৪ ১৩৩* ৭৯.০০ ৯২.৯৪
উপুল থারাঙ্গা  শ্রীলঙ্কা ৩২০ ১১০ ৫৩.৩৩ ৭৬.৩৭
ড্যামিয়েন মার্টিন  অস্ট্রেলিয়া ২৪১ ৭৮ ৮০.৩৩ ৭০.০৫
শিবনারায়ণ চন্দরপল  ওয়েস্ট ইন্ডিজ ২২২ ৫৭* ৫৫.৫০ ৬৭.০৬
মাহেলা জয়াবর্ধনে  শ্রীলঙ্কা ১৮৮ ৪৮ ৩৭.৬০ ৮০.৬৮
স্টিফেন ফ্লেমিং  নিউজিল্যান্ড ১৮৪ ৮৯ ৪৬.০০ ৭১.৮৭
শাহরিয়ার নাফীস  বাংলাদেশ ১৬৬ ১২৩* ৮৩.০০ ৬৬.১৩
ডোয়েন ব্র্যাভো  ওয়েস্ট ইন্ডিজ ১৬৪ ১১২* ৪১.০০ ৭৫.২২
কুমার সাঙ্গাকারা  শ্রীলঙ্কা ১৬০ ৮০ ৪০.০০ ৮১.২১
১০ সনাথ জয়াসুরিয়া  শ্রীলঙ্কা ১৫৬ ৪৮ ৩১.২০ ৯১.৭৬
সর্বোচ্চ রান[৬]
ক্রমিক খেলোয়াড় দল রান প্রতিপক্ষ স্টেডিয়াম তারিখ
ক্রিস গেইল  ওয়েস্ট ইন্ডিজ ১৩৩*  দক্ষিণ আফ্রিকা সয়াই মানসিং স্টেডিয়াম ২ নভেম্বর
শাহরিয়ার নাফীস  বাংলাদেশ ১২৩*  জিম্বাবুয়ে সয়াই মানসিং স্টেডিয়াম ১৩ অক্টোবর
ডোয়েন ব্র্যাভো  ওয়েস্ট ইন্ডিজ ১১২*  ইংল্যান্ড সরদার প্যাটেল স্টেডিয়াম ২৮ অক্টোবর
উপুল থারাঙ্গা  শ্রীলঙ্কা ১১০  জিম্বাবুয়ে সরদার প্যাটেল স্টেডিয়াম ১০ অক্টোবর
উপুল থারাঙ্গা  শ্রীলঙ্কা ১০৫  বাংলাদেশ পাঞ্জাব ক্রিকেট সংস্থা স্টেডিয়াম ৭ অক্টোবর
ক্রিস গেইল  ওয়েস্ট ইন্ডিজ ১০৪*  বাংলাদেশ সয়াই মানসিং স্টেডিয়াম ১১ অক্টোবর
ক্রিস গেইল  ওয়েস্ট ইন্ডিজ ১০১  ইংল্যান্ড সরদার প্যাটেল স্টেডিয়াম ২৮ অক্টোবর
অ্যাডাম গিলক্রিস্ট  অস্ট্রেলিয়া ৯২  ওয়েস্ট ইন্ডিজ ব্রাবোর্ন স্টেডিয়াম ১৮ অক্টোবর
রুনাকো মর্টন  ওয়েস্ট ইন্ডিজ ৯০*  অস্ট্রেলিয়া ব্রাবোর্ন স্টেডিয়াম ১৮ অক্টোবর
কেভিন পিটারসন  ইংল্যান্ড ৯০*  ওয়েস্ট ইন্ডিজ সরদার প্যাটেল স্টেডিয়াম ২৮ অক্টোবর

বোলিং[সম্পাদনা]

সর্বাধিক উইকেট[৭]
ক্রমিক খেলোয়াড় দল খেলা ওভার মেইডেন রান উইকেট গড় এসআর ইকো. বিবিআই
জেরোমি টেলর  ওয়েস্ট ইন্ডিজ ৫৭ ২৮৭ ১৩ ২২.০৭ ২৬.৩ ৫.০৩ ৪–৪৯
ফারভিজ মাহারুফ  শ্রীলঙ্কা ৩৬ ১৯০ ১২ ১৫.৮৩ ১৮.০ ৫.২৭ ৬–১৪
লাসিথ মালিঙ্গা  শ্রীলঙ্কা ৫০.৩ ২১০ ১১ ১৯.০৯ ২৭.৫ ৪.১৫ ৪–৫৩
কাইল মিলস  নিউজিল্যান্ড ২৮.৩ ১১৮ ১০ ১১.৮০ ১৭.১ ৪.১৪ ৪–৩৮
গ্লেন ম্যাকগ্রা  অস্ট্রেলিয়া ৪৪ ১৫৮ ১০ ১৫.৮০ ২৬.৪ ৩.৫৯ ৩–২২
নাথান ব্রাকেন  অস্ট্রেলিয়া ৪১ ১৯৪ ১০ ১৯.৪০ ২৪.৬ ৪.৭৩ ৩–২২
চামিন্দা ভাস  শ্রীলঙ্কা ৪৬ ১৭০ ১৮.৮৮ ৩০.৬ ৩.৬৯ ২–৬
মুত্তিয়া মুরালিধরন  শ্রীলঙ্কা ৫৫ ১৮১ ২০.১১ ৩৬.৬ ৩.২৯ ৪–২৩
মাখায়া এনটিনি  দক্ষিণ আফ্রিকা ২৮ ১২৯ ১৬.১২ ২১.০ ৪.৬০ ৫–২১
শেন ওয়াটসন  অস্ট্রেলিয়া ৩৪ ১৩৬ ১৭.০০ ২৫.৫ ৪.০০ ৩–১৬
ক্রিস গেইল  ওয়েস্ট ইন্ডিজ ৪৬.১ ১৮৫ ২৩.১২ ৩৪.৬ ৪.০০ ৩–৩
ইয়ান ব্রাডশ  ওয়েস্ট ইন্ডিজ ৫১ ১৯২ ২৪.০০ ৩৮.২ ৩.৭৬ ৩–৩০
সেরা বোলিং পরিসংখ্যান[৮]
ক্রমিক খেলা দল পরিসংখ্যান প্রতিপক্ষ স্টেডিয়াম তারিখ
ফারভিজ মাহারুফ  শ্রীলঙ্কা ৬–১৪  ওয়েস্ট ইন্ডিজ ব্রাবোর্ন স্টেডিয়াম ১৪ অক্টোবর
মাখায়া এনটিনি  দক্ষিণ আফ্রিকা ৫–২১  পাকিস্তান পাঞ্জাব ক্রিকেট সংস্থা আইএস বিন্দ্রা স্টেডিয়াম ২৭ অক্টোবর
মুত্তিয়া মুরালিধরন  শ্রীলঙ্কা ৪–২৩  নিউজিল্যান্ড ব্রাবোর্ন স্টেডিয়াম ২০ অক্টোবর
কাইল মিলস  নিউজিল্যান্ড ৪–৩৮  অস্ট্রেলিয়া পাঞ্জাব ক্রিকেট সংস্থা আইএস বিন্দ্রা স্টেডিয়াম ১ নভেম্বর
জেরোমি টেলর  ওয়েস্ট ইন্ডিজ ৪–৪৯  অস্ট্রেলিয়া ব্রাবোর্ন স্টেডিয়াম ১৮ অক্টোবর
আব্দুল রাজ্জাক  পাকিস্তান ৪–৫০  শ্রীলঙ্কা সয়াই মানসিং স্টেডিয়াম ১৭ অক্টোবর
লাসিথ মালিঙ্গা  শ্রীলঙ্কা ৪–৫৩  দক্ষিণ আফ্রিকা সরদার প্যাটেল স্টেডিয়াম ২৪ অক্টোবর
ক্রিস গেইল  ওয়েস্ট ইন্ডিজ ৩–৩  জিম্বাবুয়ে সরদার প্যাটেল স্টেডিয়াম ৮ অক্টোবর
জিতেন প্যাটেল  নিউজিল্যান্ড ৩–১১  দক্ষিণ আফ্রিকা ব্রাবোর্ন স্টেডিয়াম ১৬ অক্টোবর
১০ ডোয়েন ব্র্যাভো  ওয়েস্ট ইন্ডিজ ৩–১৪  বাংলাদেশ সয়াই মানসিং স্টেডিয়াম ১১ অক্টোবর

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. India to keep Champions Trophy BBC News, 26 May 2005
  2. Bangladesh confirm final ICC Champions Trophy 2006 place ICC media release, 23 March 2006
  3. Doctrove will not stand
  4. ICC Champions Trophy, 2006 Batting – Most Runs, from Cricinfo. Retrieved 5 November 2006
  5. Highest score.
  6. ICC Champions Trophy, 2006 Highest Individual Scores, from Cricinfo. Retrieved 5 November 2006
  7. ICC Champions Trophy, 2006 Bowling – Most Wickets, from Cricinfo. Retrieved 5 November 2006
  8. ICC Champions Trophy, 2006 Best Innings Bowling, from Cricinfo. Retrieved 5 November 2006

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]