২০০৪ আইসিসি চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
২০০৪ আইসিসি চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি
তত্ত্বাবধায়কআন্তর্জাতিক ক্রিকেট কাউন্সিল
ক্রিকেটের ধরনএকদিনের আন্তর্জাতিক
প্রতিযোগিতার ধরনরাউন্ড-রবিন এবং নকআউট
আয়োজক ইংল্যান্ড
বিজয়ী ওয়েস্ট ইন্ডিজ (১ম শিরোপা)
রানার-আপ ইংল্যান্ড
অংশগ্রহণকারী দলসংখ্যা১২
খেলার সংখ্যা১৫
প্রতিযোগিতার সেরা খেলোয়াড়ক্রিকেট ওয়েস্ট ইন্ডিজ রামনরেশ সারওয়ান
সর্বাধিক রান সংগ্রহকারীইংল্যান্ড মার্কাস ট্রেসকোথিক (২৬১)
সর্বাধিক উইকেটধারীইংল্যান্ড অ্যান্ড্রু ফ্লিনটফ (৯)

২০০৪ আইসিসি চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি সেপ্টেম্বর ২০০৪ সালে ইংল্যান্ডে অনুষ্ঠিত হয়েছিল। বারোটি দল তিনটি ভেন্যুতে ১৬ দিনব্যাপী ১৫টি ম্যাচে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছিল: এজবাস্টন, দ্য রোজ বোল এবং ওভাল । প্রতিযোগী দেশগুলির মধ্যে দশটি টেস্ট দেশ, কেনিয়া (ওডিআই স্ট্যাটাস), এবং - তাদের একদিনের আন্তর্জাতিক অভিষেক - মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র যারা ২০০৪ আইসিসি সিক্স নেশনস চ্যালেঞ্জ জিতে সবচেয়ে কম ব্যবধানে ( নেট রান রেট ওভারে নেমে আসে) অন্তর্ভুক্ত করে কানাডা, নামিবিয়া এবং নেদারল্যান্ডস যারা সম্প্রতি ২০০৩ ক্রিকেট বিশ্বকাপ খেলেছে)।

আইসিসি চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি ওয়েস্ট ইন্ডিজ ওভালের ভিড়ের সামনে জিতেছিল। রামনারেশ সারওয়ান টুর্নামেন্টের সেরা খেলোয়াড় নির্বাচিত হন।[১][২]

যোগ্যতা[সম্পাদনা]

যোগ্যতা বার্থ দেশ
আয়োজক  ইংল্যান্ড
আইসিসি ওডিআই র‍্যাঙ্কিং ১০  অস্ট্রেলিয়া
 বাংলাদেশ
 ভারত
 কেনিয়া
 নিউজিল্যান্ড
 পাকিস্তান
 দক্ষিণ আফ্রিকা
 শ্রীলঙ্কা
 ওয়েস্ট ইন্ডিজ
 জিম্বাবুয়ে
২০০৪ আইসিসি সিক্স নেশনস চ্যালেঞ্জ  মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র

অংশগ্রহণকারী দেশগুলো[সম্পাদনা]

গ্রুপ পর্ব[সম্পাদনা]

গ্রুপ এ[সম্পাদনা]

অব দল খেলা হা টাই ফহ পয়েন্ট এনআরআর
 অস্ট্রেলিয়া +৩.২৩৭
 নিউজিল্যান্ড +১.৬০৩
 মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র −৫.১২১
১০ সেপ্টেম্বর ২০০৪
স্কোরকার্ড
নিউজিল্যান্ড 
৩৪৭/৪ (৫০ ওভার)
বনাম
নাথান অ্যাসলে ১৪৫*] (১৫১)
রিচার্ড স্ট্যাপল ২/৭৬ (১০ ওভার)
নিউজিল্যান্ড ২১০ রানে জয়ী
ওভাল, লন্ডন
আম্পায়ার: বিলি ডক্টরোভ (ওয়েস্ট ইন্ডিজ) এবং ডেভিড শেফার্ড (ইংল্যান্ড)
ম্যাচ সেরা খেলোয়াড়: নাথান অ্যাসলে (নিউজিল্যান্ড)

১৩ সেপ্টেম্বর ২০০৪
স্কোরকার্ড
বনাম
 অস্ট্রেলিয়া
৬৬/১ (৭.৫ ওভার)
অস্ট্রেলিয়া ৯ উইকেটে জয়ী
রোজ বোল, সাউথ্যাম্পটন
আম্পায়ার: আলিম দার (পাকিস্তান) এবং বিলি বাউডেন (নিউজিল্যান্ড)
ম্যাচ সেরা খেলোয়াড়: মাইকেল কাসপ্রোভিচ (অস্ট্রেলিয়া)
  • অস্ট্রেলিয়া টসে জিতে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয় ।
  • ডোনোভান ব্লেক এবং নাসির জাভেদ (মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র) তাদের ওডিআই অভিষেক হয়েছিল।
  • পয়েন্ট: অস্ট্রেলিয়া ২, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ০

১৬ সেপ্টেম্বর ২০০৪
স্কোরকার্ড
নিউজিল্যান্ড 
১৯৮/৯ (৫০ ওভার)
বনাম
 অস্ট্রেলিয়া
১৯৯/৩ (৩৭.২ ওভার)
অস্ট্রেলিয়া ৭ উইকেটে জয়ী
ওভাল, লন্ডন
আম্পায়ার: স্টিভ বাকনার (ওয়েস্ট ইন্ডিজ) এবং রুডি কোয়ের্টজেন (দক্ষিণ আফ্রিকা)
ম্যাচ সেরা খেলোয়াড়: অ্যান্ড্রু সাইমন্ডস (অস্ট্রেলিয়া)
  • অস্ট্রেলিয়া টসে জিতে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়।
  • পয়েন্ট: অস্ট্রেলিয়া ২, নিউজিল্যান্ড ০।

গ্রুপ বি[সম্পাদনা]

অব দল খেলা হা টাই ফহ পয়েন্ট এনআরআর
 ওয়েস্ট ইন্ডিজ +১.৪৭১
 দক্ষিণ আফ্রিকা +১.৫৫২
 বাংলাদেশ −৩.১১১
১২ সেপ্টেম্বর ২০০৪
স্কোরকার্ড
বাংলাদেশ 
৯৩ (৩১.৩ ওভার)
বনাম
 দক্ষিণ আফ্রিকা
৯৪/১ (১৭.৫ ওভার)
গ্রেম স্মিথ ৪২* (৫২)
তাপস বৈশ্য ১/৩৯ (৬ ওভার)
দক্ষিণ আফ্রিকা ৯ উইকেটে জয়ী
এজবাস্টন, বার্মিংহাম
আম্পায়ার: জেরেমি লয়েডস (ইংল্যান্ড) এবং সাইমন টাফেল (অস্ট্রেলিয়া)
ম্যাচ সেরা খেলোয়াড়: চার্ল ল্যাঞ্জেভেল্ট (দক্ষিণ আফ্রিকা)
  • বাংলাদেশ টস জিতে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়।
  • আফতাব আহমেদ এবং নাজমুল হোসেন (বাংলাদেশ) তাদের ওয়ানডে অভিষেক হয়েছিল।
  • নাজমুল হোসেন (বাংলাদেশ) তার লিস্ট এ অভিষেক।
  • পয়েন্ট: দক্ষিণ আফ্রিকা ২, বাংলাদেশ ০।

১৫ সেপ্টেম্বর ২০০৪
স্কোরকার্ড
ওয়েস্ট ইন্ডিজ 
২৬৯/৩ (৫০ ওভার)
বনাম
 বাংলাদেশ
১৩১ (৩৯.৩ ওভার)
ক্রিস গেইল ৯৯ (১৩২)
তাপস বৈশ্য ২/৫৮ (১০ ওভার)
খালেদ মাহমুদ ৩৪*] (৫১)
মারভিন ডিলন ৫/২৯ (১০ ওভার)
ওয়েস্ট ইন্ডিজ ১৩৮ রানে জয়ী
রোজ বোল, সাউথ্যাম্পটন
আম্পায়ার: আলিম দার (পাকিস্তান) এবং জেরেমি লয়েডস (ইংল্যান্ড)
ম্যাচ সেরা খেলোয়াড়: ক্রিস গেইল (ওয়েস্ট ইন্ডিজ)
  • বাংলাদেশ টস জিতে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়।
  • পয়েন্ট: ওয়েস্ট ইন্ডিজ ২, বাংলাদেশ ০

১৮–১৯ সেপ্টেম্বর ২০০৪
স্কোরকার্ড
দক্ষিণ আফ্রিকা 
২৪৬/৬ (৫০ ওভার)
বনাম
 ওয়েস্ট ইন্ডিজ
২৪৯/৫ (৪৮.৫ ওভার)
হার্শেল গিবস ১০১ (১৩৫)
ক্রিস গেইল ৩/৫০ (১০ ওভার)
ওয়েস্ট ইন্ডিজ ৫ উইকেটে জয়ী
ওভাল, লন্ডন
আম্পায়ার: জেরেমি লয়েডস (ইংল্যান্ড) এবং ডেভিড শেফার্ড (ইংল্যান্ড)
ম্যাচ সেরা খেলোয়াড়: রামনারেশ সারওয়ান (ওয়েস্ট ইন্ডিজ)
  • ওয়েস্ট ইন্ডিজ টসে জিতে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়।
  • বৃষ্টির কারণে ওয়েস্ট ইন্ডিজের ইনিংসের মাত্র ৬ ওভার খেলা সম্ভব হয়েছিল; বাকিটা রিজার্ভ ডে-তে খেলা হয়েছিল।[৩]
  • পয়েন্ট: ওয়েস্ট ইন্ডিজ ২, দক্ষিণ আফ্রিকা ০

গ্রুপ সি[সম্পাদনা]

অব দল খেলা হা টাই ফহ পয়েন্ট এনআরআর
 পাকিস্তান +১.৪১৩
 ভারত +০.৯৪৪
 কেনিয়া −২.৭৪৭
১১ সেপ্টেম্বর ২০০৪
স্কোরকার্ড
ভারত 
২৯০/৪ (৫০ ওভার)
বনাম
 কেনিয়া
১৯২/৭ (৫০ ওভার)
সৌরভ গাঙ্গুলী ৯০ (১২৪)
থমাস ওডোয়ো ২/৪৩ (১০ ওভার)
মরিস ওমা ৪৯ (৯৩)
হরভজন সিং ৩/৩৩ (১০ ওভার)
  • কেনিয়া টস জিতে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়।
  • রাঘেব আগা এবং মরিস ওমা (কেনিয়া) তাদের ওডিআই অভিষেক হয়েছিল।
  • পয়েন্ট: ভারত ২, কেনিয়া ০

১৪–১৫ সেপ্টেম্বর ২০০৪
স্কোরকার্ড
কেনিয়া 
৯৪ (৩২ ওভার)
বনাম
 পাকিস্তান
৯৫/৩ (১৮.৪ ওভার)
ইয়াসির হামিদ ৪১ (৪৮)
রাঘেব আগা ২/১৭ (৪ ওভার)
পাকিস্তান ৭ উইকেটে জয়ী
এজবাস্টন, বার্মিংহাম
আম্পায়ার: বিলি ডক্টরোভ (ওয়েস্ট ইন্ডিজ) এবং ড্যারিল হার্পার (অস্ট্রেলিয়া)
ম্যাচ সেরা খেলোয়াড়: শহীদ আফ্রিদি (পাকিস্তান)
  • পাকিস্তান টস জিতে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়।
  • ১৪ সেপ্টেম্বর কোনো খেলা সম্ভব হয়নি, তাই রিজার্ভ ডে ব্যবহার করতে হয়েছিল।
  • মালহার প্যাটেল (কেনিয়া) তার ওডিআই অভিষেক।
  • পয়েন্ট: পাকিস্তান ২, কেনিয়া ০

১৯ সেপ্টেম্বর ২০০৪
স্কোরকার্ড
ভারত 
২০০ (৪৯.৫ ওভার)
বনাম
 পাকিস্তান
২০১/৭ (৪৯.২ ওভার)
মোহাম্মদ ইউসুফ ৮১* (১১৪)
ইরফান পাঠান ৩/৩৪ (৯ ওভার)
পাকিস্তান ৩ উইকেটে জয়ী
এজবাস্টন, বার্মিংহাম
আম্পায়ার: রুডি কোয়ের্তজেন (দক্ষিণ আফ্রিকা) এবং সাইমন টাওফেল (অস্ট্রেলিয়া)
ম্যাচ সেরা খেলোয়াড়: মোহাম্মদ ইউসুফ (পাকিস্তান)
  • পাকিস্তান টস জিতে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয় ।
  • পয়েন্টঃ পাকিস্তান ২, ভারত ০

গ্রুপ ডি[সম্পাদনা]

অব দল খেলা হা টাই ফহ পয়েন্ট এনআরআর
 ইংল্যান্ড +২.৭১৬
 শ্রীলঙ্কা −০.২৫২
 জিম্বাবুয়ে −১.৮৮৫
১০–১১ সেপ্টেম্বর ২০০৪
স্কোরকার্ড
ইংল্যান্ড 
২৯৯/৭ (৫০ ওভার)
বনাম
 জিম্বাবুয়ে
১৪৭ (৩৯ ওভার)
পল কলিংউড ৮০ (৯৩)
এড রেইনসফোর্ড ২/৪৩ (১০ ওভার)
ইংল্যান্ড ১৫২ রানে জয়ী
এজবাস্টন, বার্মিংহাম
আম্পায়ার: স্টিভ বাকনার (ওয়েস্ট ইন্ডিজ) এবং সাইমন টাওফেল (অস্ট্রেলিয়া)
ম্যাচ সেরা খেলোয়াড়: পল কলিংউড (ইংল্যান্ড)
  • জিম্বাবুয়ে টসে জিতে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয় ।
  • বৃষ্টি মানে ইংল্যান্ডের ইনিংসের মাত্র ৩৮ ওভার খেলা হতে পারে; বাকিটা খেলা হয়েছিল রিজার্ভ ডেতে।
  • পয়েন্ট: ইংল্যান্ড ২, জিম্বাবুয়ে ০

১৪ সেপ্টেম্বর ২০০৪
স্কোরকার্ড
জিম্বাবুয়ে 
১৯১ (৪৯.১ ওভার)
বনাম
 শ্রীলঙ্কা
১৯৫/৬ (৪৩.৫ ওভার)
শ্রীলঙ্কা ৪ উইকেটে জয়ী
ওভাল, লন্ডন
আম্পায়ার: ড্যারিল হার্পার (অস্ট্রেলিয়া) এবং ডেভিড শেফার্ড (ইংল্যান্ড)
ম্যাচ সেরা খেলোয়াড়: এলটন চিগুম্বুরা (জিম)
  • টসে জিতে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয় শ্রীলঙ্কা।
  • পয়েন্ট: শ্রীলঙ্কা ২, জিম্বাবুয়ে ০

১৭–১৮ সেপ্টেম্বর ২০০৪
স্কোরকার্ড
ইংল্যান্ড 
২৫১/৭ (৫০ ওভার)
বনাম
 শ্রীলঙ্কা
৯৫/৫ (২৪ ওভার)
  • শ্রীলঙ্কা টসে জিতে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়।
  • বৃষ্টি মানে ইংল্যান্ডের ইনিংসের মাত্র ৩২ ওভার খেলা হতে পারে; বাকিটা খেলা হয়েছিল রিজার্ভ ডেতে।
  • রিজার্ভ ডেতে বৃষ্টির কারণে শ্রীলঙ্কার ইনিংস ২৪ ওভারে কমিয়েছে, সংশোধিত লক্ষ্য ১৪৫ রান।
  • পয়েন্ট: ইংল্যান্ড ২, শ্রীলঙ্কা ০

নক-আউট পর্যায়[সম্পাদনা]

  সেমিফাইনাল ফাইনাল
                 
এ১   অস্ট্রেলিয়া ২৫৯/৯ (৫০ ওভার)  
ডি১   ইংল্যান্ড ২৬২/৪ (৪৬.৩ ওভার)  
    ডি১   ইংল্যান্ড ২১৭ (৪৯.৪ ওভার)
  বি১   ওয়েস্ট ইন্ডিজ ২১৮/৮ (৪৮.৫ ওভার)
সি১   পাকিস্তান ১৩১ (৩৮.২ ওভার)
বি১   ওয়েস্ট ইন্ডিজ ১৩২/৩ (২৮.১ ওভার)  

সেমিফাইনাল[সম্পাদনা]

২১ সেপ্টেম্বর ২০০৪
স্কোরকার্ড
অস্ট্রেলিয়া 
২৫৯/৯ (৫০ ওভার)
বনাম
 ইংল্যান্ড
২৬২/৪ (৪৬.৩ ওভার)
মাইকেল ভন ৮৬ (১২২)
ব্রেট লি ২/৬৫ (৮.৩ ওভার)
ইংল্যান্ড ৬ উইকেটে জয়ী
এজবাস্টন, বার্মিংহাম
আম্পায়ার: বিলি বাউডেন (নিউজিল্যান্ড,) এবং রুডি কোয়ের্তজেন (দক্ষিন আফ্রিকা)
ম্যাচ সেরা খেলোয়াড়: মাইকেল ভন (ইংল্যান্ড)
  • ইংল্যান্ড টস জিতে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়।

২২ সেপ্টেম্বর ২০০৪
স্কোরকার্ড
পাকিস্তান 
১৩১ (৩৮.২ ওভার)
বনাম
 ওয়েস্ট ইন্ডিজ
১৩২/৩ (২৮.১ ওভার)
ইয়াসির হামিদ ৩৯ (৫৬)
কোরি কলিমোর ২/২৪ (৯ ওভার)
ওয়েস্ট ইন্ডিজ ৭ উইকেটে জয়ী
রোজ বোল, সাউদাম্পটন
আম্পায়ার: ড্যারেল হেয়ার (অস্ট্রেলিয়া) এবং সাইমন টাওফেল (অস্ট্রেলিয়া)
ম্যাচ সেরা খেলোয়াড়: রামনরেশ সারওয়ান (ওয়েস্ট ইন্ডিজ)
  • পাকিস্তান টস জিতে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়।
  • সালমান বাট (পাকিস্তান) তার ওডিআই অভিষেক।

ফাইনাল[সম্পাদনা]

২৫ সেপ্টেম্বর ২০০৪
স্কোরকার্ড
ইংল্যান্ড 
২১৭ (৪৯.৪ ওভার)
বনাম
 ওয়েস্ট ইন্ডিজ
২১৮/৮ (৪৮.৫ ওভার)
ওয়েস্ট ইন্ডিজ ২ উইকেটে জয়ী
ওভাল, লন্ডন
আম্পায়ার: রুডি কোয়ের্টজেন (দক্ষিন আফ্রিকা) এবং সাইমন টাওফেল (অস্ট্রেলিয়া)
ম্যাচ সেরা খেলোয়াড়: ইয়ান ব্র্যাডশ (ওয়েস্ট ইন্ডিজ)
  • ওয়েস্ট ইন্ডিজ টসে জিতে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়।

পরিসংখ্যান[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Wisden – Final: England v West Indies, 2004"ESPNcricinfo। ৭ অক্টোবর ২০০৯। সংগ্রহের তারিখ ৬ অক্টোবর ২০১৪ 
  2. "ICC Champions Trophy, 2004 – Final: England v West Indies"। ESPNcricinfo। ৭ অক্টোবর ২০০৯। সংগ্রহের তারিখ ৬ অক্টোবর ২০১৪ 
  3. "Windies to resume run chase as rain hits again"এবিসি নিউজ। ১৯ সেপ্টেম্বর ২০০৪। ২৭ অক্টোবর ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২ জুন ২০১৭ 
  4. "Batting and Fielding in ICC Champions Trophy 2004"অর্থের বিনিময়ে সদস্যতা প্রয়োজন। CricketArchive। 
  5. "Bowling in ICC Champions Trophy 2004"অর্থের বিনিময়ে সদস্যতা প্রয়োজন। CricketArchive। 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]