গঞ্জাম জেলা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
গঞ্জাম জেলা
ଗଞ୍ଜାମ ଜିଲ୍ଲା
ওড়িশার জেলা
ওড়িশায় গঞ্জামের অবস্থান
ওড়িশায় গঞ্জামের অবস্থান
দেশভারত
রাজ্যওড়িশা
প্রশাসনিক বিভাগদক্ষিণ ওড়িশা বিভাগ
সদরদপ্তরছত্রপুর
তহশিল২৩
আয়তন
 • মোট৮,২০৬ বর্গকিমি (৩,১৬৮ বর্গমাইল)
জনসংখ্যা (২০১১)
 • মোট৩২,৫৯,০৩১
 • জনঘনত্ব৪০০/বর্গকিমি (১,০০০/বর্গমাইল)
জনতাত্ত্বিক
 • সাক্ষরতা৭১.০৯ শতাংশ
 • লিঙ্গানুপাত৯৮৩
গড় বার্ষিক বৃষ্টিপাত১৪০৩ মিমি
ওয়েবসাইটদাপ্তরিক ওয়েবসাইট

গঞ্জাম জেলা (ওড়িয়া: ଗଞ୍ଜାମ ଜିଲ୍ଲା, প্রতিবর্ণী. গঞ্জাম জিল্লা) পূর্ব ভারতে অবস্থিত ওড়িশা রাজ্যের ৩০ টি জেলার একটি জেলা৷ ১৯শে চৈত্র ১৩৪২ বঙ্গাব্দে (১লা এপ্রিল ১৯৩৬ খ্রিষ্টাব্দে) উৎকল সংগঠন গড়ে ওঠির সময় এই জেলাটির আত্মপ্রকাশ ঘটে৷ আবার ১৫ই আশ্বিন ১৩৯৯ বঙ্গাব্দে (২রা অক্টোবর ১৯৯২ খ্রিষ্টাব্দে) পুর্বতন গঞ্জাম জেলাটি থেকে গজপতি ও গঞ্জাম দুটি জেলা গঠন করা হয়৷ গঞ্জাম জেলাটি ওড়িশার দক্ষিণ ওড়িশা বিভাগের অন্তর্গত৷ জেলাটির জেলাসদর ছত্রপুর শহরে অবস্থিত এবং ব্রহ্মপুর মহকুমা, ভঞ্জনগর মহকুমা, ছত্রপুর মহকুমা নিয়ে গঠিত৷

নামকরণ[সম্পাদনা]

গঞ্জাম জেলার এই 'গঞ্জাম' নামটি এসেছে 'গঞ্জ-ই-আম' থেকে৷ আরবি এই শব্দের অর্থ বিশ্বের শস্যাগার৷ আবার অন্যমতে ঐ অঞ্চলের মধ্য দিয়ে প্রবাহিত রুশিকুল্য নদীর তীরে অবস্থিত ইউরোপীয়ানদের দ্বারা নির্মিত গঞ্জাম দুর্গের নামে ঐ অঞ্চলের নাম, তবে দুর্গের নাম আগে এসেছে নাকী জায়গার নাম সেই নিয়ে বিবাদ রয়েছে৷[১]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

ঐতিহাসিক আন্দোলন[সম্পাদনা]

ভূপ্রকৃৃতি[সম্পাদনা]

অর্থনীতি[সম্পাদনা]

অবস্থান[সম্পাদনা]

জেলাটির উত্তরে ওড়িশা রাজ্যের নয়াগড় জেলাজেলাটির উত্তর পূর্বে(ঈশান) ওড়িশা রাজ্যের নয়াগড় জেলাজেলাটির পূর্বে ওড়িশা রাজ্যের পুরী জেলা ও ওড়িশা রাজ্যের খোর্দা জেলাজেলাটির দক্ষিণে অন্ধ্র প্রদেশ রাজ্যের শ্রীকাকুলাম জেলাজেলাটির দক্ষিণ পশ্চিমে(নৈঋত) ওড়িশা রাজ্যের গজপতি জেলাজেলাটির পশ্চিমে ওড়িশা রাজ্যের কন্ধমাল জেলাজেলাটির উত্তর পশ্চিমে(বায়ু) ওড়িশা রাজ্যের কন্ধমাল জেলা[২] জেলাটির দক্ষিণ পূর্বে(অগ্নি) বঙ্গোপসাগর অবস্থিত৷

জেলাটির আয়তন ৮২০৬ বর্গ কিমি৷ রাজ্যের জেলায়তনভিত্তিক ক্রমাঙ্ক ৩০ টি জেলার মধ্যে তম৷ জেলার আয়তনের অনুপাত ওড়িশা রাজ্যের ৫.২৭%৷

ভাষা[সম্পাদনা]

গঞ্জাম জেলায় প্রচলিত ভাষাসমূহের পাইচিত্র তালিকা নিম্নরূপ -

২০১১ অনুযায়ী গঞ্জাম জেলার ভাষাসমূহ[৩]

  ওড়িয়া (৯১.২৯%)
  তেলুগু (৭.১৭%)
  কুই (০.৪৫%)
  অন্যান্য (১.০৯%)

ধর্ম[সম্পাদনা]

জনসংখ্যার উপাত্ত[সম্পাদনা]

মোট জনসংখ্যা ৩১৬০৬৩৫(২০০১ জনগণনা) ও ৩৫২৯০৩১(২০১১ জনগণনা)৷ রাজ্যে জনসংখ্যাভিত্তিক ক্রমাঙ্ক ৩০ টি জেলার মধ্যে ১ম৷ ওড়িশা রাজ্যের ৮.৪১% লোক গঞ্জাম জেলাতে বাস করেন৷ জেলার জনঘনত্ব ২০০১ সালে ৩৮৫ ছিলো এবং ২০১১ সালে তা বৃদ্ধি পেয়ে ৪৩০ হয়েছে৷ জেলাটির ২০০১-২০১১ সালের মধ্যে জনসংখ্যা বৃৃদ্ধির হার ১১.৬৬% , যা ১৯৯১-২০১১ সালের ১৬.৮৮% বৃদ্ধির হারের থেকে কম৷ জেলাটিতে লিঙ্গানুপাত ২০১১ অনুযায়ী ৯৮৩(সমগ্র) এবং শিশু(০-৬ বৎ) লিঙ্গানুপাত ৯০৮৷[৪]

নদনদী[সম্পাদনা]

পরিবহন ও যোগাযোগ[সম্পাদনা]

পর্যটন ও দর্শনীয় স্থান[সম্পাদনা]

ঐতিহ্য ও সংস্কৃৃতি[সম্পাদনা]

শিক্ষা[সম্পাদনা]

জেলাটির স্বাক্ষরতা হার ৬০.৭৭%(২০০১) তথা ৭১.০৯%(২০১১)৷ পুরুষ স্বাক্ষরতার হার ৭৫.২২%(২০০১) তথা ৮০.৯৯%(২০১১)৷ নারী স্বাক্ষরতার হার ৪৬.৪৪%(২০০১) তথা ৬১.১৩% (২০১১)৷ জেলাটিতে শিশুর অনুপাত সমগ্র জনসংখ্যার ১১.৯১%৷[৪]

প্রশাসনিক বিভাগ[সম্পাদনা]

সীমান্ত[সম্পাদনা]

বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]