ভাজা ডিম

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
ফ্রাই প্যানে ডিম ভাজা হচ্ছে
ফ্রাই প্যানে ডিম ভাজা হচ্ছে

ভাজা ডিম এক প্রকার রান্না করা খাবার যেখানে ডিম তাওয়ার মধ্যে ভেজে পরিবেশন করা হয়। বিভিন্ন দেশে ঐতিহ্যগতভাবে এই খাবার সকালের নাস্তা হিসেবে খাওয়া হয়। ভারতীয় উপমহাদেশে একে সাধারণত "পোচ" বলা হয়।

অঞ্চলভেদে বিভিন্নতা এবং ঐতিহ্য[সম্পাদনা]

অস্ট্রেলিয়া, জার্মানি এবং সুইজারল্যান্ড[সম্পাদনা]

ক্রোয়েশিয়ায় ভেজেটার সাথে পরিবেশনকৃত ভাজা ডিম
নীল পনিরের সাথে প্লেটে পরিবেশনকৃত দুটি ডিম

ভাজা ডিম (স্পিজেলিয়ার) স্ট্র্যামার ম্যাক্সের মতো এই জাতীয় ঐতিহ্যবাহী খাবারের একটি গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গ। ভাজা ডিম একটি উইনার শ্নিটসেলে পরিবেশন করা হয়। ভাজা ডিমের ওপরে (বা পাশাপাশি) প্যান-ফ্রাইড আলু হলো আরও একটি সাধারণ খাবার, যা মাঝে মাঝে খাবারের তৃতীয় উপাদান হিসাবে পালং শাকের সাথে পরিবেশন করা হয়। কিছু জার্মান রান্না কুসুমটি ভেঙে ভাজার ডিমের সাদা অংশ জুড়ে পরিবেশন করে। ডিম (সেদ্ধ বা স্ক্র্যাম্বলড ডিম) জার্মান প্রাতঃরাশের একটি সাধারণ অংশ।

কম্বোডিয়া এবং ভিয়েতনাম[সম্পাদনা]

কম্বোডিয়ায় ভাজা ডিম প্রায়শই একটি সাধারণ থালায় দেওয়া হয় যা লোকলক বলে। এটি পালং, পেঁয়াজ, টমেটো, গরুর মাংসের এবং হাঁসের বা মুরগিডিম দিয়ে তৈরি করা হয় (কিছু অংশ থাকে যা ভাজা ডিমের সাথে শীর্ষে থাকে)। ভিয়েতনামে একটি ভাজা ডিম সাদা ভাতের উপর পরিবেশন করা হয়, ঝিনুক এবং হুইসিন সসের সাথে; পূর্ব এশিয়াতেও এটি জনপ্রিয়। ভাজা ডিম কখনও কখনও ভিয়েতনামী প্রাতঃরাশের জনপ্রিয় খাবার রোলে ব্যবহৃত হয়।

চেক প্রজাতন্ত্র[সম্পাদনা]

ভাজা ডিম প্রস্তুত করার সময় কুসুমের দিক উপরে থাকলে, তথা সূর্যের মত দিক উপরে রাখা হলে সেটাকে চেক ভাষায় "ভোলস্কো ওকো" বা "সেজেন ভেজে" নামে ডাকা হয়। এটাকে একক খাবার হিসেবে, কিংবা নাস্তার অংশ হিসাবে দেওয়া হয়, অথবা পালংসিদ্ধ আলুর পাশে মধ্যহ্নভোজের জন্য দেওয়া হয়।

মিশর[সম্পাদনা]

মিশরে ভাজা ডিম একটি সাধারণ ব্রেকফাস্ট খাবার। তারা শুধুমাত্র উদ্ভিজ্জ তেল বা মাখন/ ঘি দিয়ে ভাজা ডিম প্রস্তুত করে অথবা একাধিক উপকরণও যোগ করে। এটা সাধারণত পেঁয়াজ এবং মশলা দিয়ে টমেটো, মাখন (Cheese), গরুর মাংসের বিভিন্ন ধরনের সস এবং বিশেষভাবে প্রস্তুত করা কিমা থাকে। তারা মটরশুটির সঙ্গে ভাজা ডিম পরিবেশন করে। এটি স্কটল্যান্ডের ডিম ভাজা প্রণালীর কিছুটা অনুরূপ "ষ্টার এগ" এর মত।

বাংলাদেশভারত[সম্পাদনা]

বাংলাদেশভারতে ভাজা ডিম সাধারণত একা বা রুটির সহযোগে পরিবেশন করা হয়। মাঝে মাঝে এটি দোসার সাথে পরিবেশন করা হয়। ভাজার পর্যায়ে বা তারপরে, ভাজা ডিমের উপরে মাঝে মাঝে মরিচ, মরিচ গুঁড়ো, কাঁচা মরিচ এবং লবণের সাথে হালকাভাবে ছিটানো হয়।

বাংলাদেশভারতে (এবং ভারতীয় উপমহাদেশে) ভাজা ডিমকে "পোচ" বলা হয়। তারা ভিতরের কুসুম কিছুটা নরম রেখে রান্না করে। কিছু রেস্টুরেন্টে "ডিম ভাজা' বা "ডিম আধা ভাজা" তৈরি করে। দক্ষিণ ভারতে ডিম বিক্রেতা সাধারণ রাস্তাডিম বিক্রি করে। তারা সাধারণত এই ধরনের খাবার সরিষার তেল এবং উদ্ভিজ্জ তেল এর সঙ্গে বিভিন্ন মসলা দিয়ে তৈরি করে। অনেক সময় ভাজার পরে, কখনো কখনো গোলমরিচ, লঙ্কা গুরা, কাঁচা মরিচ কুচি, লবণ মশলা হিসাবে এর উপরে অল্প ছিটিয়ে দেয়া হয়। সেন্ট্রাল এবং উত্তর ভারতের ইংরেজিভাষী মধ্য ও উচ্চস্তরের রেস্টুরেন্টগুলো, সিঙ্গেল ফ্রাইড বলতে ডিমের একদিকে এবং ডবল ফ্রাইড বলতে ডিমের উভয় দিকে ভাজা বুঝায়।

ইন্দোনেশিয়া[সম্পাদনা]

মি গোরেং নুডুলস, যা ভাজা ডিমসবজির সাথে পরিবেশন করা হয়েছে।

ইন্দোনেশিয়ায় ভাজা ডিম 'তেলুর সেপলক ' বা 'তেলুর মাতা সপি ' (ইন্দোনেশিয়ান: telur mata banteng ) হিসাবে পরিবেশন করা হয় । ইন্দোনেশিয়ায়ার দুটি জনপ্রিয় ডিশ 'সেটেঙ্গাহ মাতাঙ্গ ' যাতে ডিম অর্ধেক রান্না হয় এবং 'মাতং ' দিয়ে যাতে ডিম ভালভাবে সম্পূর্ণ ভাজা হয়। ইন্দোনেশিয়ান পরিবেশক প্রায়ই আপনাকে জিজ্ঞাসা করতে পারে আপনি ডিম ভাজা "একদিক" বা "দুদিক" ভাজা চান কিনা। ভাজা ডিম বিশেষত ফ্রাইড রাইস (ইন্দোনেশিয়ান: নাসি গোরেং) এবং ফ্রাইড নুডলস (ইন্দোনেশিয়ান: মাই গোরেং) এর জন্য অতন্ত্য জনপ্রিয়।

বাষ্পযুক্ত চালের উপরে মিষ্টি সয়া সসের সাথে 'কেইকাপ ম্যানিস ' (যা ভাজা ডিম দিয়ে তৈরী করা হয়) ইন্দোনেশিয়াবাচ্চাদের মধ্যে একটি প্রিয় খাবারভাত দিয়ে পরিবেশন করা ছাড়াও ভাজা ডিম নাস্তায় স্যান্ডউইচ হিসাবে রুটির সাথে পরিবেশন করা হয়।

আয়ারল্যান্ড এবং যুক্তরাজ্য[সম্পাদনা]

এটি ঐতিহ্যবাহী ইংরেজ ব্রেকফাস্ট (প্রাতঃরাশ): বেকন, ভাজা ডিম, কালো পুডিং, ভাজা টমেটো, ভাজা মাশরুম, হ্যাশ ব্রাউনস (ঐতিহ্যবাহী না), বেকড মটরশুটি, এবং সাগু রয়েছে

আয়ারল্যান্ড এবং যুক্তরাজ্যে টোস্ট এর সঙ্গে ভাজা ডিম, বেকন, সস, এবং বিভিন্ন মশলা পরিবেশন করা হয় অথবা একটি স্যান্ডউইচ মধ্যে ভাজা ডিম দেয়া হয়। সাধারণত ব্রিটেনআয়ারল্যান্ডে ভাজা ডিম খাওয়া ব্রেকফাস্টের একটি অপরিহার্য অংশ। প্রায়ই ভাজা ডিম একটি জনপ্রিয় খাবার হিসেবে "হ্যম স্টেকের" সঙ্গে পরিবেশিত হয়। ডিম উচ্চ তাপমাত্রায় রান্না করা হয় এবং গরম চর্বি দিয়ে ডিমের উপরে আবরন দেয়া হয়। এটি রান্নায় একটি কাস্টার্ড প্রণালীর এর মত কুসুম থাকে।

ইতালি, লাতিন আমেরিকা, পর্তুগাল এবং স্পেন[সম্পাদনা]

পর্তুগাল এবং ব্রাজিলে একটি ডিমের উপর ভাত, কালো শিম ও ভাজা আলু রেখে "Bife a cavalo" পরিবেশন করা হয়।

স্পেনীয় ভাষায় 'bife a caballo' নামের একটি অনুরূপ খাবার আর্জেন্টিনা, ইকুয়েডর এবং উরুগুয়েতে 'churrasco' নামে পরিচিত ও প্রচলিত, যা ভাজা আলু, সালাদ, মটরশুটি এবং ভাতের সাথে পরিবেশন করা হয়।

চিলি এবং পেরুতে ভাজা ডিম 'লোমো লো পোব্রে ' , 'চরিরিলানা ', 'পাইলা দে হুভো ' এবং আরও বেশ কয়েকটি খাবারের মধ্যে অন্তর্ভুক্ত রয়েছে।

ইকুয়েডরে 'ল্যাপিংচোস ' এর মধ্যে ভাজা ডিম, মশলা, মাখন, ভাজা আলু এবং ভাজা সসেজের উপরে পরিবেশন করা হয়।

উত্তর মেক্সিকোতে "হিউভোস মন্টাডোস " শিম এবং ভাজা আলু দিয়ে পরিবেশন করা হয়। 'হুভোস লা ম্যাক্সিকানা ' হলো মেক্সিকোতে ডিম পরিবেশন করার একটি সাধারণ পদ্ধতি, যাতে ভাজা ডিমগুলি টমেটো, পেঁয়াজ এবং কাঁচা মরিচের সাথে মিশ্রিত করে পরিবেশন করা হয়।

মেক্সিকোতে আরও বেশ কয়েকটি ডিমের প্রণালী রয়েছে যা বিভিন্ন উপাদানের সংমিশ্রণে তৈরী করা হয়: 'হুভোস মোটুলিওসস ', 'অ্যাপ্রোরিডোস ', এবং 'হিউভোস রানচেরোস '। এছাড়াও, মেক্সিকোর কিছু অংশে ভাজা ডিম তাজা টমেটো, মরিচ, পেঁয়াজ এবং সস দিয়ে পরিবেশন করা হয়।

স্পেনে ভাজা ডিম (হিউভোস ফ্রিটোস) একটি সাধারণ খাবার। এগুলি একা, মাংস বা সসেজ সহ খাওয়া হয়। স্পেনে, ভাত এবং টমেটো সসে ঢাকা ভাজা ডিম দিয়ে পরিবেশন করাকে স্প্যানিশ ভাষায় 'আরোজ লা লা কিউবানা ' বলা হয় এবং এই একই খাবারটি লাতিন আমেরিকা, ফিলিপাইন, পর্তুগাল এবং ইতালির কিছু অংশেও পরিবেশন করা হয়।

একটি সাক্ষাত্কারে, কবি নাজিম হিকমত বলেছেন, তিনি স্পেনের এক বন্ধুর সাথে একমাস থেকেছেন এবং প্রায় প্রতিদিনই ভাজা ডিম খেতেন।

জাপান[সম্পাদনা]

জাপানে ভাজা ডিমকে "medama Yaki" (目 玉 焼 き) বলা হয়। ভাজা ডিম সাধারণত খুশির মুহুর্তগুলোতে তৈরি করা হয়। তারা লবণ এবং মরিচ এবং সয়া সস দিয়ে এটি পরিবেশন করে। ভাজা ডিম হ'ল টোস্টযুক্ত কাটা রুটি বা ভাত সহ একটি জনপ্রিয় প্রাতঃরাশ

কোরিয়া[সম্পাদনা]

ডিমের উপর কখনও কখনও লবণ ছিটিয়ে রান্নার সঙ্গে তেলে ভাজা হয়। এটি সাধারনত "bibimbap" বা "Kimchi bokkeumbap" বা ভাজা ডিম বলে পরিচিত। তবে কখনো কখনো ভাজা ডিম তরকারি হিসেবে রান্না করে এক চা চামচ সরিষা এবং তিলের তেল এবং গরম ভাতের সঙ্গে পরিবেশন করা হয়। আবার মাঝে মধ্যে পাঁউরুটির মাঝে লবণ দিয়ে ভাজা ডিমের সাথে দেয়া হয়।

মালয়েশিয়াসিঙ্গাপুর[সম্পাদনা]

ইন্দোনেশিয়ার "নাসি গোরেং" প্রণালীর মতো, মালয়েশিয়া এবং সিঙ্গাপুরের অন্যতম জনপ্রিয় খাবার "ফ্রাইড রাইস", যা প্রায়শই একটি ভাজা ডিমের সাথে পরিবেশন করা হয়।

নেদারল্যান্ড[সম্পাদনা]

একটি ডাচ খাবারে বেকন এবং পনির সঙ্গে ভাজা ডিম

নেদারল্যান্ডে ভাজা ডিম সাধারণত ব্রেকফাস্ট বা লাঞ্চের জন্য তৈরি করা হয়। ভাজা ডিম বেকনের সঙ্গে প্রায়ই রুটির একটি ফালির উপরে পরিবেশিত হয়। দুটি বা তিনটি ভাজা ডিম একই সাথে একটি থালায় পরিবেশন করা হয়। [১] প্রথমে ডিম হ্যাম, বেকন এবং পনিরের সঙ্গে ভাজা হয়। পরে গরুর মাংস অথবা হ্যাম এর উপর মাখন এবং পাউরুটি দিয়ে রান্না করা হয়। এটা নেদারল্যান্ড-এর অনেক ক্যাফে, ক্যান্টিন, এবং হোটেলে পরিবেশিত হয়।[২]

নাইজেরিয়া[সম্পাদনা]

যুক্তরাজ্যমার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে যা "স্ক্যাম্বলড ডিম" নামে পরিচিত, তা নাইজেরিয়ায় "ভাজা ডিম" নামে পরিচিত। আবার, যুক্তরাজ্যমার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে যা "ভাজা ডিম" নামে পরিচিত, তা নাইজেরিয়ায় "অর্ধ-ভাজা ডিম" নামে পরিচিত। মাই-শাইয়ের স্টলগুলি প্রায়ই স্ক্র্যাম্বলড ডিমকে ভারী মসলাযুক্ত করে রান্না করে।

ফিলিপাইন[সম্পাদনা]

চালডিমের সাথে ভাজা স্প্যাম ফিলিপিনের জনপ্রিয় খাবার

ফিলিপাইনে, ভাজা ডিমগুলি প্রায়শই ভাজা ডিমের মতো রান্না করা হয় তবে কুসুম অর্ধেক রান্না হয়, যা "মালাসাডো" হিসাবে পরিচিত (স্প্যানিশ ভাষায়, যার অর্থ 'ভাজা') - এটিকে লবণ এবং তেল দিয়ে ছিটিয়ে দিয়ে স্বাদ দেওয়া হয় এবং রসুন, গরুর ভাজা মাংস, শুকনো মাছ, টোকিনো (ক্যারামেলাইজড শুয়োরেমাংস) দিয়ে পরিবেশন করা হয়। এছাড়াও, ভাজা ডিমগুলি আড়োজ লা লা কিউবানা নামে একটি থালাতে খাওয়া হয়, যা সাদা ভাত এবং ভাজা পাকা প্লাটেনের সাথে কিসমিস, কিউবড আলু, টমেটো সস এবং জলপাইযুক্ত মাংসের মাংস হিসাবে খাওয়া হয়। নুডল ডিশ প্যানসিট বাটিল পাতং-তে ভাজা ডিমগুলিও একটি প্রধান উপাদান, যেখানে একটি ভাজা ডিম নাড়তে-ভাজা নুডলসের উপরে রয়েছে।

রাশিয়া[সম্পাদনা]

ঈয়্যেসনিৎসা (রাশিয়ান: яичница)

রাশিয়ায় খাওয়া সবচেয়ে জনপ্রিয় দুইটি ডিম ভাজা ডিশ হল ঈয়্যেসনিৎসা (রাশিয়ান: яичница) এবং অমলেট (রাশিয়ান: омлет) যা দুধ বা অন্যান্য তরলের সাথে তৈরি করা হয়।

ঈয়্যেসনিৎসা প্রণালীর দুটি প্রকার আছে, একটি গ্লাজুন্‌ইয়া (রাশিয়ান: глазунья) যা বেকন, হ্যাম, ভাজা রুটি, পেঁয়াজ এবং অন্যান্য সবজির সাথে তৈরি করা হয়,। আর বালতুনিয়া (রাশিয়ান: болтунья) পুরো কুসুমের সঙ্গে ভাজা হয়। উভয় ধরনের খাবার প্রস্তুতিতে একাধিক ডিম একটি কড়াই বা ফ্রাই প্যানে রান্না করা হয়।

থাইল্যান্ড[সম্পাদনা]

ইয়াম খাই দাও: একটি মশলাদার টক থাই সালাদ, যা মুচমুচে ভাজা ডিম দিয়ে তৈরি করা হয়।

থাই খাবারগুলিতে, যখন "খাই দাও" শব্দটি কোনো খাবারের নামের পরে থাকে, এর অর্থ হলো ক্রেতা একটি ভাজা ডিমের সাথে সেই খাবারটি খেতে চায়। উদাহরণস্বরূপ, খুব জনপ্রিয় ডিশ "kaphrao mu rat khao khai dao" কে অনুবাদ করা হয়: "ভাতের উপরে ভাজা ডিমের সাথে পুদিনা পাতা দিয়ে শুয়োরেমাংস"। কখনো কখনো এটিকে "টপ এগ" হিসাবে উল্লেখ করা হয়।[৩] 'আমেরিকান খাও ফট ' এবং 'খাও ফট ' (স্ট্যান্ডার্ড থাই-স্টাইলে ভাজা) ডিশ ফ্রাইড রাইস ও ভাজা ডিমের সাথে জনপ্রিয়ভাবে পরিবেশন করা হয়ে থাকে।[৪][৫] থাইল্যান্ডে ভাজা ডিম খাওয়ার আর একটি জনপ্রিয় উপায় হলো এটাকে "ইয়াম খাই দাও" নামে থাই সালাদের প্রধান উপাদান হিসাবে এটি ব্যবহার করা।[৬]

কানাডা এবং যুক্তরাষ্ট্র[সম্পাদনা]

ভাজা ডিম কানাডাআমেরিকায় প্রায়ই একটি বৃত্ত বা অন্যান্য আকৃতিতে কাটা রুটি দ্বারা পরিবেশন করা হয়। রুটির উভয়পাশ বাদামী না হওয়া পর্যন্ত ভাজা হয় এবং একটি ডিম ভাজতে সাধারণত লবণ এবং মরিচ ব্যবহার করা হয়। এটি ফ্রাই প্যানে ঢাকনা দিয়ে ঢেকে দেয়া হয় এবং তৈরি না হওয়া পর্যন্ত ভাজা হয়। রুটিও প্রায়ই ডিমের সাথে ভাজা হয় এবং রুটির উপরে ডিম ভাজা পরিবেশিত হয়। উত্তর আমেরিকানরা বিভিন্ন রান্নায় ভাজা ডিম ব্যবহার করে:

  • কুসুম ফেটিয়ে এবং ডিমের সাদা অংশ সম্পূর্ণরূপে রান্না করা। সেন্ট্রাল-পেনসিলভানিয়া বসবাসকারী পেনসিলভানিয়া ডাচ ব্যক্তিদের কাছে ভাজা ডিম সাধারণভাবে "ডিপ এগ " নামে পরিচিত এবং তাদের টোস্ট এর সাথে ভাজা ডিম খাওয়ার অভ্যাস আছে। খাওয়ার সময় টোস্টের চারপাশে কুসুম মাখিয়ে করে নেয়া হয়।
  • ডিমের দুদিকে রান্না করা; কুসুমের মাঝখানে নরম এবং তরল রেখে রান্না করা হয়। ডিমেসাদা অংশটি ভালভাবে রান্না করা হয়।
  • কুসুমসহ ডিমের উভয় পাশ কড়া কড়া করে ভাজা ।
  • কুসুমের সঙ্গে একটি সেদ্ধ ডিম ভেজে পরিবেশন করা ।
  • শুধুমাত্র একপাশে রান্না হয় যতক্ষণ পর্যন্ত না ডিমের সাদা অংশ ভাজা হয় এবং যেন কুসুম তরল এবং নরম রয়ে যায়। এই ডিম ভাজা "আপ এগ " হিসাবে পরিচিত। রান্না শেষ করার আগে আধা-চামচ পানি যোগ করা হয়। রান্নার সময় একটি ঢাকনা দিয়ে ফ্রাইং প্যান মাঝে মাঝে ঢেকে দেয়া হয়।
'Mie Goreng' (ভাজা ডিম এবং সবজির সঙ্গে)
Yam khai dao: এটি ভাজা ডিম দিয়ে তৈরি ঝাঁল এবং টক থাই সালাদ
ভাতডিম দিয়ে ভাজা স্প্যাম ফিলিপাইনে একটি সাধারণ খাবার

গ্যালারি[সম্পাদনা]

ঝুড়িতে ডিম[সম্পাদনা]

এই ডিশটি সাধারণত একটি পনির বা বিস্কুট কাটার যন্ত্র ব্যবহার করে বৃত্ত বা অন্য আকারে টুকরো টুকরো করে কেটে তৈরি করা হয়। রুটি্র একদিকে বাদামি হওয়া পর্যন্ত ভাজা হয় এবং তারপরে উল্টানো হয় এবং এটি সাধারণত ডিম, লবণ, গোলমরিচ এবং কখনও কখনও পুদিনা পাতার সাথে এটি পরিবেশন করা হয় এবং ডিমের সাদা অংশটি সিদ্ধ না হওয়া পর্যন্ত রান্না করা হয়। পাউরুটিকেন্দ্রটি প্রায়শই পাশাপাশি ভাজা হয় এবং তার উপরে ডিমের বাকী অংশ পরিবেশন করা হয়।

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. ভ্যান Limburg স্টিরাম, সি. কানট্রিস (১৯৬২)। The Art of Dutch Cooking (সম্পাদনা সংস্করণ)। লন্ডন: Andre Deutsch Limited। পৃষ্ঠা ৪৫। 
  2. "Uitsmijter"। The Dutch Table। ৩ এপ্রিল ২০১১। সংগ্রহের তারিখ ২ সেপ্টেম্বর ২০১২ 
  3. "Kra Pao Moo (stir fry pork with basil) for lunch"। Athomeinthailand.com। ২৯ সেপ্টেম্বর ২০১১। ২৮ জানুয়ারি ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২ সেপ্টেম্বর ২০১২ 
  4. "Khao phat Amerikan"। Austin Bush Photography। ১৬ মার্চ ২০১১। ১৫ জুন ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২ সেপ্টেম্বর ২০১২ 
  5. Kodi। "A "Farangs" trek through a Culture of Food and the Unknown- Thailand"। Kodikassell.blogspot.nl। সংগ্রহের তারিখ ২ সেপ্টেম্বর ২০১২ 
  6. "Thai Fried Egg Salad – Yam Khai Dao (ยำไข่ดาว)"। SheSimmers। ১ ডিসেম্বর ২০০৯। সংগ্রহের তারিখ ২ সেপ্টেম্বর ২০১২ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]

  • উইকিমিডিয়া কমন্সে ভাজা ডিম সম্পর্কিত মিডিয়া দেখুন