ভবানীপুর ইসলামিয়া কামিল মাদ্রাসা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
ভবানীপুর ইসলামিয়া কামিল মাদ্রাসা, পার্বতীপুর
মাদ্রাসা মুলগেট.jpg
মাদ্রাসার মূলগেট
ধরনমাদ্রাসা
স্থাপিত২৫ ডিসেম্বর ১৯৭২; ৪৯ বছর আগে (1972-12-25)
প্রতিষ্ঠাতামোঃ মনির উদ্দীন মন্ডল ও মোঃ গোলাম মোরতুজা
অধিভুক্তিইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়, বাংলাদেশ (২০০৬ – ২০১৬)
ইসলামি আরবি বিশ্ববিদ্যালয় (২০১৬ – বর্তমান)
অধ্যক্ষমাওলানা মো হাসান মাসুদ
শিক্ষায়তনিক ব্যক্তিবর্গ
৬০ জন
শিক্ষার্থী২৬০০+
ঠিকানা, ,
বাংলাদেশ
ইআইআইএন১২১০২৪, মাদ্রাসা কোড-১৫১৩৬
ক্রীড়াক্রিকেট, ফুটবল, ভলিবল
ওয়েবসাইটপ্রাতিষ্ঠানিক ওয়েবসাইট
ভবানীপুর কামিল মাদ্রাসার লোগো.png

ভবানীপুর ইসলামিয়া কামিল মাদ্রাসা দিনাজপুর জেলার একটি উলেখযোগ্য আলিয়া মাদ্রাসা। এটি দিনাজপুরের পার্বতীপুর উপজেলার হাবড়া ইউনিয়নে অবস্থিত একটি কামিল মাদ্রাসা[১][২] এটি ১৯৭২ সালে মাওলানা মনির উদ্দীন মন্ডল ও মোঃ গোলাম মোরতুজা নামের দুই ইসলামি ব্যক্তিত্ব কর্তৃক প্রতিষ্ঠিত হয়।[৩] মাদ্রাসাটি ভবানীপুর রেলস্টেশনের পূর্ব দিকে কয়াটার কিলো অদুরে পলাশ বাড়ি ইউপির সিমান্তে অবস্থিত।[৪] মাদ্রাসার বর্তমান অধ্যক্ষের নাম মাওলানা হাসান মাসুদ এবং উপাধ্যক্ষের নাম মাওলানা মোস্তফা খালেদ। এদের পরিচালনায় মাদরাসাটি দেশের মাদরাসা শিক্ষা বোর্ডইসলামি আরবি বিশ্ববিদ্যালের শ্রেষ্ঠ মাদ্রাসা সমূহের তালিকায় স্থান পেয়েছে।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

দিনাজপুর জেলার পার্বতীপুর উপজেলাধীন ভবানীপুরের বাসিন্দা মেহের উদ্দীন মন্ডল ১৯৭১ সালে স্বাধীনতা যুদ্ধে পাক হানাদার বাহিনীর হাতে শহীদ হলে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান শহীদ পরিবারকে ২০০০ টাকা প্রদান করেন। উক্ত টাকায় শহীদ মেহের উদ্দীন মন্ডলের দুই সন্তান মোঃ মনির উদ্দীন মন্ডল ও মোঃ গোলাম মোরতুজা এলাকাবাসীর সহযোগিতায় প্রথমে ফোরকানিয়া মাদ্রাসা চালু করেন। পরে এলাকাবাসির সহযোগিতায় মাদ্রাসাটি ২৫ ডিসেম্বর ১৯৭২ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়ে পর্যায়ক্রমে দাখিল (১৯৭৬), আলিম (১৯৭৯) (বিজ্ঞান), ফাযিল, কামিল স্নাতকোত্তর (হাদিস, তাফসির, ফিকহ) ২০০১, ফাযিল স্নাতক (সম্মান) আল-কুরআন এন্ড ইসলামিক স্টাডিজ বিষয়ে অনার্স কোর্স চালু আছে।[৩] এখানে বাংলাদেশ কারিগরি শিক্ষা বোর্ড, ঢাকা এর অধীনে এসএসসি (ভোকেশনাল), এইচএসসি (বিএম) চালু আছে।[৩][৫]

জমির পরিমাণ[সম্পাদনা]

মাদরাসাটির ক্যাম্পাস ৫১৪ একর এবং অন্যত্র ২০০ একর জমি আছে।[৩]

ভবনের বিবরণ[সম্পাদনা]

মাদরাসাটিতে ৫টি ভবন আছে-

  1. প্রশাসনিক ভবন-১টি চারতলা।
  2. একাডেমিক ভবন-২টি তিন তলা, ও ১টি চার তলা।
  3. ছাত্রাবাস ভবন-১টি
  4. মসজিদ-১টি দুতলা।[৩]

অন্যান্য[সম্পাদনা]

  1. বিজ্ঞানাগার-১টি
  2. কম্পিউটার ল্যাব-১টি
  3. পাঠাগার- ১টি।[৩]

শিক্ষক ও শিক্ষার্থী সংখ্যা[সম্পাদনা]

মাদরাসায় শিক্ষকসহ ৬০ জন কর্মচারী[৩] এবং ২৮০০+ জন ছাত্র-ছাত্রী আছে।

পোশাক[সম্পাদনা]

ছাত্রের জন্য সাদা পায়জামা, আকাশি পাঞ্জাবি, টুপি ও জুতা এবং মেয়েদের আকাশি রঙের বোরখা ও সাদা ওড়না।

সাংস্কৃতিক কর্মকান্ড[সম্পাদনা]

মাদাসার অনেক ছাত্র-ছাত্রী জাতীয় পর্যায়ে রচনা, ইসলামি সংগিত, কেরাত ও খেলাধুলা প্রতিযোগিতায় অংশ গ্রহণ করে বিজয়ী হয়েছে।

ফলাফল[সম্পাদনা]

প্রতিবছর মাদরাসাটি বোর্ড ও বিশ্ববিদ্যালয়ের পরীক্ষায় প্রায় শতভাগ পাশ করে। ২০২০ সালে জেডেসিতে ১০০%, দাখিলে ৯৫.৮৩, আলিমে ১০০% এবং ২০২১ সালে দাখিলে ৯৭.৮৭, ফাযিল ২০১৪ সালে ১০০%,(২য় বর্ষ), ফাযিল স্নাতক (অনার্স) ২০১৪ সালে ১০০% এবং কামিল ২০১৫ সালে ৯১.১৪% পাশ করে। [৩]

উল্লেখযোগ্য ব্যক্তি[সম্পাদনা]

গ্যালারি[সম্পাদনা]

মাদ্রাসার পূর্ব দিকে ৩ তলা ১নং একাডেমিক ভবন
মাদ্রাসার ৪ তলা ২নং একাডেমিক ভবন ও প্রশাসনিক ভবন

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. কামিল মাদ্রাসা, ভবানীপুর ইসলামিয়া (৩১ জানুয়ারি ২০২২)। "ভবানীপুর ইসলামিয়া কামিল মাদ্রাসা"। সংগ্রহের তারিখ ৩১ জানুয়ারি ২০২২ 
  2. "Bhabanipur Islamia Kamil Madrasah - Sohopathi | সহপাঠী" (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১৭-০৭-০২। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-০১-৩১ 
  3. "BHABANIPUR ISLAMIA KAMIL MADRASAH"121024.ebmeb.gov.bd। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-০১-৩১ 
  4. কামিল-মাদ্রাসা, ভবানীপুর-ইসলামিয়া (৩১ জানুয়ারি ২০২২)। "ভবানীপুর-ইসলামিয়া-কামিল-মাদ্রাসা"হাবরা ইউনিয়ন। সংগ্রহের তারিখ ৩১ জানুয়ারি ২০২২ 
  5. "পার্বতীপুরের ভবানীপুর ইসলামিয়া কামিল মাদ্রাসা সরকারী হচ্ছে"birganjpratidin.com (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-০১-৩১