ফজল মাহমুদ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
ফজল মাহমুদ
ফজল মাহমুদ.jpg
ব্যক্তিগত তথ্য
পূর্ণ নামফজল মাহমুদ
জন্ম(১৯২৭-০২-১৮)১৮ ফেব্রুয়ারি ১৯২৭
লাহোর, পাঞ্জাব, ব্রিটিশ ভারত
(বর্তমানে পাকিস্তান)
মৃত্যু৩০ মে ২০০৫(2005-05-30) (বয়স ৭৮)
গুলবার্গ, লাহোর, পাঞ্জাব, পাকিস্তান
উচ্চতা৬ ফুট ২ ইঞ্চি (১.৮৮ মিটার)
ব্যাটিংয়ের ধরনডানহাতি
বোলিংয়ের ধরনডানহাতি ফাস্ট-মিডিয়াম
ভূমিকাবোলার
সম্পর্কইয়ার সাঈদ (শ্যালক), মোহাম্মদ সাঈদ (শ্বশুর)
আন্তর্জাতিক তথ্য
জাতীয় পার্শ্ব
টেস্ট অভিষেক
(ক্যাপ )
১৬ অক্টোবর ১৯৫২ বনাম ভারত
শেষ টেস্ট১৬ আগস্ট ১৯৬২ বনাম ইংল্যান্ড
ঘরোয়া দলের তথ্য
বছরদল
১৯৫৮–৫৯লাহোর
১৯৪৭–৫৭পাঞ্জাব (পাকিস্তান)
১৯৪৪–৪৭উত্তর ভারত
খেলোয়াড়ী জীবনের পরিসংখ্যান
প্রতিযোগিতা টেস্ট এফসি
ম্যাচ সংখ্যা ৩৪ ১১২
রানের সংখ্যা ৬২০ ২,৬৬২
ব্যাটিং গড় ১৪.০৯ ২৩.৩৫
১০০/৫০ ০/১ ১/১৩
সর্বোচ্চ রান ৬০ ১০০*
বল করেছে ৯,৮৩৪ ২৫,৯৩২
উইকেট ১৩৯ ৪৬৬
বোলিং গড় ২৪.৭০ ১৮.৯৬
ইনিংসে ৫ উইকেট ১৩ ৩৮
ম্যাচে ১০ উইকেট
সেরা বোলিং ৭/৪২ ৯/৪৩
ক্যাচ/স্ট্যাম্পিং ১১/– ৩৯/–
উৎস: ইএসপিএনক্রিকইনফো.কম, ৪ অক্টোবর ২০১৭

ফজল মাহমুদ (উর্দু: فضل محمود‎‎; জন্ম: ১৮ ফেব্রুয়ারি, ১৯২৭ - মৃত্যু: ৩০ মে, ২০০৫) তৎকালীন ব্রিটিশ ভারতের লাহোরে জন্মগ্রহণকারী বিখ্যাত পাকিস্তানী আন্তর্জাতিক ক্রিকেট তারকা ছিলেন। পাকিস্তানী ক্রিকেটের ঊষালগ্নে অন্যতম সেরা পেস বোলাররূপে তাঁকে বিবেচনা করা হতো। পাকিস্তান ক্রিকেট দলের অন্যতম সদস্য ছিলেন তিনি। সমগ্র খেলোয়াড়ী জীবনে ৩৪ টেস্টে অংশ নিয়ে ২৪.৭০ গড়ে ১৩৯ উইকেট পান। এরফলে প্রথম পাকিস্তানী ক্রিকেটার হিসেবে ১০০ উইকেটের মাইলফলক স্পর্শ করেন। এ অর্জনের জন্য তাঁকে ২২ টেস্টে অংশ নিতে হয়েছিল।

রঞ্জী ট্রফিতে উত্তর ভারতের পক্ষে শুরুর দিককার প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটে অংশগ্রহণ করেছেন ফজল। চমকপ্রদ ক্রীড়াশৈলী উপস্থাপনার দরুণ ১৯৪৭-৪৮ মৌসুমে ভারতের প্রথম অস্ট্রেলিয়া সফরে অন্যতম সদস্য মনোনীত হন। তবে, সফরের পূর্বেই পাকিস্তানের স্বাধীনতা লাভের প্রেক্ষিতে মুসলিম হিসেবে নাম প্রত্যাহার করে নেন ও পাকিস্তানের পক্ষাবলম্বন করেন। নতুন দেশের টেস্ট মর্যাদা লাভে তিনি বড় ধরনের ভূমিকা পালন করেন। চারবার টেস্টে দশ উইকেট পান। ভারত, ইংল্যান্ড এবং অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে তাঁর এ অর্জনগুলো সম্পৃক্ত ছিল ও পাকিস্তান জয়লাভ করে। ১৯৫৪ সালে ইংল্যান্ড সফরে সেরা ক্রীড়ানৈপুণ্য প্রদর্শন করেন। ওভালে পাকিস্তানের জয়ে স্মরণীয় ভূমিকা পালন করে দলকে সিরিজে সমতা আনয়ণ করেন। খেলায় তিনি ১২/৯৯ পান। তন্মধ্যে, জয়ের জন্য ১৬৮ রানের লক্ষ্যমাত্রায় ইংল্যান্ড দলের দ্বিতীয় ইনিংসে তিনি ৬/৪৬ বোলিং পরিসংখ্যান দাঁড় করান।

আবদুল কারদারের পরিবর্তে তাঁকে জাতীয় দলের অধিনায়করূপে মনোনয়ন দেয়া হয়। ১৯৫৯ থেকে ১৯৬১ সময়কালে দলকে ১০ টেস্টে নেতৃত্ব দেন ফজল মাহমুদ। ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে সফলতা পেলেও অস্ট্রেলিয়া ও চীরপ্রতিদ্বন্দ্বী ভারতের বিপক্ষে হেরে যাবার পর অধিনায়কের পদ থেকে তাঁকে বরখাস্ত করা হয়। তাঁর নেতৃত্বে পাকিস্তান দুই টেস্টে জয় ও দুই টেস্টে পরাজিত হয়েছিল। বাদ-বাকী টেস্টগুলো ড্রয়ে পরিণত হয়। ১৯৬২ সালে সফরকারী ইংল্যান্ডের বিপক্ষে খেলার পর টেস্ট ও প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেট থেকে অবসর নেন। তবে, আঘাতপ্রাপ্ত উদ্বোধনী বোলারের পরিবর্তে তাঁকে আবারও দলের সদস্য মনোনীত করা হয়েছিল।

প্রারম্ভিক জীবন[সম্পাদনা]

লাহোরে জন্মগ্রহণকারী ফজল মাহমুদ ১৩ বছর বয়সে ইসলামিয়া কলেজে অধ্যয়ন করেন। তাঁর বাবা গুলাম হোসেন ঐ কলেজেরই অর্থনীতি বিষয়ের অধ্যাপক ছিলেন।[১] পাশাপাশি কলেজের ক্রিকেট ক্লাবেরও সভাপতির দায়িত্ব পালন করতেন।[২] তিনি ফজলকে কঠোরভাবে প্রশিক্ষণ দিতেন যা শুরু হতো ভোর ৪:৩০-এ। তাঁকে প্রত্যেহ পাঁচ মাইল হাঁটাতেন ও পাঁচ মাইল দৌঁড়াতেন। পরবর্তী সাত বছর এ সময়সূচীর অন্যথা ঘটতো না।[২][৩]

দ্বিতীয় বর্ষে থাকাকালে কলেজের প্রথম একাদশে অন্তর্ভূক্ত হন। আন্তঃকলেজ প্রতিযোগিতার চূড়ান্ত খেলায় ১৫ বছর বয়সে অংশগ্রহণ করেন। ঐ খেলায় ৫/১৩ বোলিং পরিসংখ্যান দাঁড় করান[৪] যা প্রতিযোগিতার রেকর্ডস্বরূপ।[৩]

প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেট[সম্পাদনা]

ভারত অধ্যায়[সম্পাদনা]

১৭ বছর বয়সে মার্চ, ১৯৪৪ সালে কলেজে অধ্যয়নরত অবস্থায় উত্তর ভারতের পক্ষে প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটে অভিষেক ঘটে তাঁর। রঞ্জী ট্রফিতে দক্ষিণ পাঞ্জাবের বিপক্ষে এগারো নম্বরে ব্যাটিংয়ে নেমে অপরাজিত ৩৮ রান তুলেন ও তিন উইকেট লাভ করেন। ভারতীয় টেস্ট ক্রিকেট তারকা ও অল-রাউন্ডার লালা অমরনাথ তাঁর প্রথম শিকারে পরিণত হন।[৫] দ্বিতীয় খেলায় পশ্চিম ভারতের বিপক্ষে সেমি-ফাইনালে অংশ নেন। খেলায় তিনি আট উইকেট পান। তন্মধ্যে প্রথম ইনিংসে তাঁর বোলিং পরিসংখ্যান ছিল ৬/৬৫।[৬]

১৯৪৪-৪৫ মৌসুম শেষে ফজল পাঁচ উইকেট পান ১৮.২০ গড়ে। এরফলে, পরবর্তী মৌসুমে ইংল্যান্ড সফরের জন্য তাঁর স্থান নিশ্চিত হয়। আঞ্চলিক চতুর্দেশীয় প্রতিযোগিতায় অংশ নেন। এ প্রতিযোগিতাটি মূলতঃ সফরের অনুশীলনীমূলক খেলারূপে বিবেচিত ছিল। উত্তর অঞ্চলের পক্ষে অমরনাথের সঙ্গে বোলিং উদ্বোধনে নামেন। খেলায় তিনি ৯/৮৩ পান।[৭] ভারতীয় অধিনায়ক পতৌদি'র নবাব ফজলকে দলে নিতে চাইলেন। তবে, অন্যান্য দল নির্বাচক বয়সে খুবই কম বিধায় তাঁকে দলের বাইরে রাখেন।[৮]

সফরকারী দল বাদ-বাকী ভারতীয় একাদশের বিপক্ষে দুই খেলায় অংশ নেয়। প্রথম খেলায় ফজল সাত উইকেট নিলে বাদ-বাকী একাদশ জয় পায়। পরের খেলায় তারা হারে।[৯] ১৯৪৬-৪৭ মৌসুমে তাঁর ব্যাটিংয়ে সক্ষমতা লক্ষ্য করা যায়। এ মৌসুমে তিনি তাঁর একমাত্র প্রথম-শ্রেণীর সেঞ্চুরির সন্ধান পান। উত্তর অঞ্চলের সদস্যরূপে আট নম্বরে ব্যাটিংয়ে নেমে অপরাজিত ১০০ রানের ইনিংস খেলেন। গগুমাল কিষেনচাঁদের সাথে সপ্তম উইকেট জুটিতে ২০৭ রান তুলেছিলেন। বল হাতে ছয় উইকেট নিয়ে উত্তর অঞ্চলের জয় নিশ্চিত করেন তিনি।[১০] চূড়ান্ত খেলায় পাঁচ উইকেট পেলেও উত্তর অঞ্চল ইনিংস ব্যবধানে পরাভূত হয়।[১১]

১৯৪৭-৪৮ মৌসুমে অস্ট্রেলিয়ায় উদ্বোধনী সফরে যায় ভারত দল। এরপূর্বে আঞ্চলিক প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়। এবারো ফজল দলের সদস্য মনোনীত হন ও প্রশিক্ষণ শিবিরে তাঁকে রাখা হয়।[১২] এ সফরের পূর্বেই ভারত বিভাজন হয়। ফলশ্রুতিতে ধর্মভীরু মুসলমান ফজল মাহমুদ দল থেকে নিজ নাম প্রত্যাহার করে নেন।

পাকিস্তান অধ্যায়[সম্পাদনা]

নবপ্রতিষ্ঠিত দেশে প্রথম-শ্রেণীর প্রথম খেলাটি ২৭ ডিসেম্বর, ১৯৪৭ তারিখে পাঞ্জাব ও সিন্ধুর মধ্যে অনুষ্ঠিত হয়। ফজল পাঞ্জাবের প্রতিনিধিত্ব করেন। ছয় উইকেট ও ৬০ রান তুলে দলের ইনিংস বিজয়ে সবিশেষ অবদান রাখেন।[১৩] এ খেলায় প্রথমবারের মতো খান মোহাম্মদের সাথে বোলিং উদ্বোধনে নামেন। নভেম্বর, ১৯৪৮ সালে প্রথমবারের মতো আন্তর্জাতিক দল হিসেবে ওয়েস্ট ইন্ডিজ পাকিস্তান সফরে আসে। তিনটি নির্ধারিত খেলায় প্রতিনিধিত্বকারী দলের পক্ষে অংশ নেন ফজল। তবে ড্র হওয়া খেলায় কোন উইকেট লাভে ব্যর্থ হন।[১৪] ১৯৪৮-৪৯ মৌসুমের শেষদিকে পাকিস্তান দল চার খেলায় অংশ নিতে সিলন গমন করে। ২০ উইকেট নিয়ে সফরে সর্বোচ্চ উইকেট শিকারী হন তিনি। এক বছর পর ফিরতি সফরে দুই খেলায় তিনি ১৬ উইকেট দখল করেন।

১৯৫১-৫২ মৌসুমে এমসিসি দল উপমহাদেশ সফরে আসে। পাকিস্তানে দলটি কয়েকটি খেলায় অংশ নেয়। পাঞ্জাবের বিপক্ষে অনুষ্ঠিত প্রথম খেলায় ফজলের ৫/৫৮ বোলিং পরিসংখ্যানের ফলে দলটি কোন রকমে ফলো-অন এড়াতে সক্ষম হয়। পঞ্চম ও চূড়ান্ত খেলাটি করাচীর ম্যাটিং উইকেটে অনুষ্ঠিত হয়। এমসিসির প্রথম ইনিংসে ৬/৪০ নিয়ে তিনি পূর্বেকার সাফল্যকে ছাপিয়ে যান।[১৫] খেলায় স্বাগতিক দল চার উইকেটে জয় তুলে নেয়। এ বিজয়ের ফলে পাকিস্তান দল তাদের টেস্ট মর্যাদা লাভে প্রভূতঃ ভূমিকা রাখে।

দেশ স্বাধীনতা লাভের পাঁচ বছরেরও কম সময়ে ২৮ জুলাই, ১৯৫২ তারিখে পাকিস্তান দল টেস্টখেলুড়ে দেশের মর্যাদা পায়।[১৬]

টেস্ট ক্রিকেটে অংশগ্রহণ[সম্পাদনা]

অক্টোবর, ১৯৫২ সালে পাকিস্তান তাদের টেস্ট ক্রিকেটের ইতিহাসের প্রথম খেলায় ভারতের বিপক্ষে অংশগ্রহণ করে। দিল্লিতে অনুষ্ঠিত সিরিজের প্রথম টেস্টে অংশগ্রহণের মাধ্যমে ফজলের টেস্ট অভিষেক ঘটে। ভারতের প্রথম ইনিংসে তিনি ২/৯২ লাভ করেন। ভারতীয় অধিনায়ক লালা অমরনাথকে আউট করে নিজের প্রথম উইকেটের সন্ধান পান। দুবারই অল্প রান সংগ্রহ করে পাকিস্তান ইনিংস ব্যবধানে পরাভূত হয়। কেবলমাত্র ফজলই একমাত্র পাকিস্তানী ক্রিকেটার হিসেবে দুইবারই দুই অঙ্কের কোঠায় পৌঁছুতে সক্ষম হয়েছিলেন।[১৭]

লক্ষ্ণৌতে অনুষ্ঠিত দ্বিতীয় টেস্টে পাকিস্তান খেলার ফলাফল নিজেদের অনুকূলে নিয়ে আসে। পাটের ম্যাটিং পিচে ফজল ৫/৫২ ও ৭/৪২ লাভ করলে দ্বিতীয় টেস্টেই ইনিংস ব্যবধানে নিজেদের প্রথম টেস্টের জয় পায়।[১৮] বিদেশের মাটিতে তাঁর সংগৃহীত ১২/৯৪ যে-কোন পাকিস্তানী বোলারের সেরা বোলিং পরিসংখ্যানরূপে বিবেচ্য।[১৯] ১৯৮০ সাল পর্যন্ত ভারতের বিপক্ষে সেরা বোলিং ছিল এটি।[২০]

বোম্বের তৃতীয় টেস্টেে ফজল উইকেট শূন্য অবস্থায় মাঠ ছাড়েন। ঐ টেস্টে পাকিস্তান দশ উইকেটে পরাজিত হয়। তবে প্রথম ইনিংসে আট নম্বরে ব্যাটিংয়ে নেমে তিনি ৩৩ রান তুলে ৬০/৬ থাকা অবস্থায় দলকে ১৪৩/৭-এ নিয়ে যান।[২১] সিরিজের শেষ দুই টেস্ট ড্র হয়। আরও ছয় উইকেট নিয়ে অভিষেক সিরিজেই ২৫.৬০ গড়ে ২০ উইকেট লাভ করে দলের শীর্ষ উইকেট শিকারীতে পরিণত হন। এছাড়াও নিচেরসারিতে ২৮.৮৩ গড়ে ১৭৩ রান নিয়ে সিরিজে প্রভূতঃ ভূমিকা রাখেন।[২২]

ইংল্যান্ড সফর[সম্পাদনা]

পাকিস্তান ঈগলেটস দলের সদস্যরূপে ফজল ১৯৫৩ সালে ইংল্যান্ড সফরে যান। পরবর্তী বছরে পাকিস্তান দলের ইংল্যান্ড সফরের অংশ হিসেবে প্রস্তুতি গ্রহণের জন্য এ সফরটি আয়োজন করা হয়েছিল। ইংল্যান্ডে অবস্থানকালে ইংল্যান্ডের সাবেক ক্রিকেটার ও সারের ফাস্ট বোলার আল্ফ গোভারের কাছ থেকে প্রশিক্ষণ গ্রহণ করেন।

১৯৫৪ সালে আবদুল কারদারের নেতৃত্বাধীন পাকিস্তান দলে ফজল সহঃ অধিনায়কের দায়িত্ব পালন করেন। উপমহাদেশের বাইরে প্রথমবারের মতো ঐ সফরে বেশ সফলতা লাভ করে পাকিস্তান দল।

সফরের শুরুতেই ফজলের সাফল্যগাঁথা শুরু হয়। প্রথম খেলায় ওরচেস্টারশায়ারের বিপক্ষে ১১/১০২ ও ৬৭ রান তুলেন।[২৩] টেস্ট সিরিজেও এ ধারাবাহিকতা অব্যাহত রাখেন তিনি।[২৪] অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের বিপক্ষে দীর্ঘক্ষণ ধরে মিতব্যয়ী বোলিং করেন। ৬৮ ওভারের ৩৭টিতেই মেইডেন ছিল ও ৭/৯৫ পান।[২৫]

লর্ডসে অনুষ্ঠিত প্রথম টেস্টটি ব্যাপকভাবে বৃষ্টিতে আক্রান্ত হয় ও অবশেষে ড্রয়ে পরিণত হয়। খেলা অনুপযোগী পিচে পাকিস্তান তাদের প্রথম ইনিংসে ৮৭ রানে গুটিয়ে যায়। জবাবে ইংল্যান্ড দল সম্পূর্ণ ইনিংসটিতে ফজল ও খান মোহাম্মদের তোপে পড়ে ১১৭/৯ তুলে ইনিংস ঘোষণা করে। ফজল ৪/৫৪ পান। [২৬] দ্বিতীয় টেস্ট শুরুর পূর্বে সফরকারী দল ট্রেন্ট ব্রিজে নটিংহ্যামশায়ারের মুখোমুখি হয়। দল আট উইকেটে জয় পায় যাতে ফজল প্রথম ইনিংসে ঐ সময়ে তাঁর সেরা বোলিং ৮/৬৬ সহ খেলায় ১১ উইকেট তুলে নেন।[২৭] একই মাঠে দ্বিতীয় টেস্ট শুরু হয়। ঐ টেস্টে পাকিস্তান দল ইনিংসের বিরাট ব্যবধানে হেরে যায়। ফজল টেস্টে তাঁর জঘন্যতম বোলিং করেন ০/১৪৮।[২৮] পায়ের আঘাতের কারণে তাঁকে স্বল্প দূরত্ব নিয়ে বোলিং করতে হয়েছিল।[২৯]

তিনদিন পর তৃতীয় টেস্টেও আরেকটি ইনিংস পরাজয়ের স্বাদ আস্বাদনের মুখোমুখি হয় পাকিস্তান দল। তবে এ যাত্রায় বৃষ্টি তাদের জন্য সৌভাগ্যের কারণ হয়ে দাঁড়ায় ও টেস্টটি ড্রয়ে পরিণত হয়। শেষ দুইদিন খেলা বৃষ্টির জন্য বন্ধ থাকে। ৪২ ওভার বোলিং করে ৪/১০৭ বোলিং পরিসংখ্যান গড়েন ফজল মাহমুদ।[৩০]

ওভালে সিরিজের চতুর্থ ও চূড়ান্ত টেস্টে অংশ নেয় পাকিস্তান দল। ১-০ পিছিয়ে পড়ে ইংল্যান্ডকে পরাজিত করে বড় ধরনের অঘটন ঘটায় তারা। ইংল্যান্ডে উদ্বোধনী সফরে কোন দল প্রথমবারের মতো টেস্টে জয়লাভে সমর্থ হয়।[৩১] ফজল খেলায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করনে। খেলায় তিনি ১২/৯৯ লাভ করেন। প্রথম ইনিংসে ৩০ ওভারে ৬/৫৩ পান ফজল মাহমুদ। উইজডেন মন্তব্য করে যে, এ পরিসংখ্যানটি আরও সমৃদ্ধ হতো যদি ক্যাচ নষ্ট না হতো।[৩২]

নিম্নমূখী রানের খেলায় দ্বিতীয় ইনিংসে খেলে ১৬৮ রানের জয়ের লক্ষ্যমাত্রায় অগ্রসর হয় ইংল্যান্ড দল। শুরুতেই তারা লেন হাটনের উইকেট হারায়। খেলায় হাটন দ্বিতীয়বারের মতো ফজলের কট বিহাইন্ডের শিকার হন। এক পর্যায়ে ১০৯/২ তুলে চতুর্থ দিন পার করে। তবে, দিন শেষ হবার পূর্বে পিটার মে, গডফ্রে ইভান্সডেনিস কম্পটনের উইকটে তুলে নেন ফজল মাহমুদ। পরদিন তিনি আরও দুই উইকেট নিয়ে দলকে ২৪ রানের জয় এনে দেন। দ্বিতীয় ইনিংসে ফজল ৩০ ওভার বোলিং করে ৬/৪৬ পান।[৩৩]

ঐ সিরিজে ফজল ২০.৪০ গড়ে ২০ উইকেট পান যা তাঁর নিকটতম পাকিস্তানী বোলারের চেয়ে ১২টি বেশী ছিল।[৩৪] ছয়টি প্রথম-শ্রেণীর খেলার মধ্যে মাত্র একটিতে খেলেন। তাস্বত্ত্বেও সফর শেষে ১৭.৫৩ গড়ে ৭৭ উইকেট নিয়ে শীর্ষে আরোহণ করেন।[৩৫] তাঁর এ অনন্য সাধারণ খেলার দরুণ ১৯৫৫ সালে উইজডেন কর্তৃক বর্ষসেরা ক্রিকেটার হিসেবে মনোনীত হন। এটিই যে-কোন পাকিস্তানী ক্রিকেটারদের মধ্যে প্রথম সম্মাননা ছিল।[৩৬]

নিজদেশে অংশগ্রহণ[সম্পাদনা]

১৯৫৪-৫৫ মৌসুমে ভারত দল পাকিস্তানে উদ্বোধনী সফরে আসে। পাঁচ টেস্টে গড়া ঐ সিরিজটি রক্ষণাত্মক ভঙ্গীমায় শেষ হয়। প্রত্যেকটি খেলাই ড্রয়ে পরিণত হয় যা টেস্ট ক্রিকেটের ইতিহাসে প্রথম ঘটনারূপে স্বীকৃত।[৩৭] ফজল চার খেলায় অংশ নিয়ে ২১.৯৩ গড়ে ১৫ উইকেট পান।[৩৮] করাচীর পঞ্চম ও চূড়ান্ত টেস্টে ভারতের প্রথম ইনিংসে ৫/৪৮ লাভ করেন।[২৮]

এরপর ১৯৫৫ সালে নিউজিল্যান্ড দল প্রথমবারের মতো পাকিস্তান সফরে আসে। ঐ সিরিজে ২-০ ব্যবধানে প্রথমবারের মতো সিরিজ জয় করে পাকিস্তান।[৩৯] তিন টেস্টের সিরিজটিতে ফজল দুই টেস্টে অংশ নিয়ে ১৮.৪০ গড়ে পাঁচ উইকেট দখল করেন।

ইংল্যান্ড সফর শেষে ভারত সফর করে অক্টোবর, ১৯৫৬ সালে পাকিস্তানে অস্ট্রেলিয়া দল একমাত্র টেস্টে অংশগ্রহণ করে। করাচীতে পাকিস্তান ঐতিহাসিক জয় পায়। ফজল এ টেস্টে ব্যাপক ভূমিকা রাখেন। খেলায় ১৩/১১৪ নিয়ে নিজস্ব সেরা বোলিং পরিসংখ্যান গড়েন তিনি। অস্ট্রেলিয়ার প্রথম ইনিংসের প্রথম ছয় উইকেট তুলে নিয়ে ৫২/৬-এ নিয়ে যান। পরবর্তীতে দলটি আর ইনিংস গোছাতে পারেনি ও ৮০ রানে গুটিয়ে যায়।

দ্বিতীয় ইনিংসেও প্রথম চার উইকেট পান ও ৭/৮০ বোলিং পরিসংখ্যান গড়েন।[৪০] উইজডেন তাঁর কৌশল সম্পর্কে মন্তব্য করে যে, নিখুঁত নিশানা ও লেগ-কাটার এবং ব্রেকবেকস প্রয়োগের মিশ্রণ ঘটিয়ে এ সাফল্য পেয়েছেন।[৪১] ইমতিয়াজ আহমেদের মতে, ফজল কখনো নিশানা ও উদ্দেশ্য নিয়ে বোলিং করেননি। তিনি বলকে উইকেটের উভয়দিকে বুদ্ধিমত্তা প্রয়োগে সফলকাম হয়েছেন। প্রথম ইনিংসে ফজল একচ্ছত্র প্রাধান্য বিস্তারকারীর ভূমিকায় অবতীর্ণ হয়েছেন। এমনকি কিংবদন্তীতুল্য কিথ মিলারও এর কূল-কিনারা খুঁজে পাননি।[৪২]

ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফর[সম্পাদনা]

১৯৫৮ সালে পাকিস্তান দল ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরে যায়। এ সিরিজটি বিশাল রানে পরিপূর্ণ ছিল। ফজলের উপর বেশ চাপ পড়ে। পাঁচ টেস্টের ঐ সিরিজে তাঁকে ৩২০ ওভারেরও বেশী বোলিং করতে হয়। তন্মধ্যে পরপর দুই টেস্টেই তাঁকে করতে হয়েছে ১৮৬ ওভার। পাকিস্তান ৩-১ ব্যবধানে সিরিজে পরাজয় বরণ করে। তবে, হানিফ মোহাম্মদের ১৬ ঘন্টায় সংগৃহীত ৩৩৭ রানের কল্যাণে প্রথম টেস্টে পরাজিত হবার হাত থেকে রক্ষা পায়।

ত্রিনিদাদে অনুষ্ঠিত দ্বিতীয় টেস্টে ফজল পাকিস্তানের সর্বাপেক্ষা মিতব্যয়ী বোলার ছিলেন। এ সময় তিনি ছয় উইকেট পান। ব্যাটসম্যান হিসেবে ১০ নম্বরে মাঠে নেমে ৬০ রান তুলেন। এটিই টেস্টে তাঁর সর্বোচ্চ ব্যক্তিগত সংগ্রহ ও আন্তর্জাতিক পর্যায়ে মাত্র পঞ্চম ছিল।[৪৩]

কিংস্টনের তৃতীয় টেস্টে গ্যারি সোবার্স অপরাজিত ৩৬৫ রান তুলে ইতিহাস গড়েন। এরফলে তিনি তাঁর নিজেরই গড়া সর্বোচ্চ রানের রেকর্ড ভঙ্গ করেন। উদ্বোধনী বোলার মাহমুদ হোসেন ও স্পিনার নাসিম-উল-গনির আঘাতজনিত অনুপস্থিতিতে তাঁকে ৮৫.২ ওভার বোলিং করতে হয়।

একই পেস নিয়ে অনেকগুলো ওভার বোলিং করাকে আশ্চর্যরূপে আখ্যায়িত করে উইজডেন কর্তৃপক্ষ।[৪৪] তবে ঐ ইনিংসে ২৪৭ রান খরচ করে মাত্র দুই উইকেটের পতন করতে সহায়তা করেন তিনি।[৪৫]

ফজলের ঐ বোলিং পরিসংখ্যান তাঁকে টেস্টের ইতিহাসে বোলিংয়ের দিক দিয়ে পঞ্চম ও সর্বাপেক্ষা খরুচে বোলিংরূপে অনাকাঙ্খিত রেকর্ড গড়ে।[৪৬][৪৭] ঐ টেস্টে ইনিংস ব্যবধানে পরাজিত হয় তাঁর দল ও গায়ানার পরবর্তী টেস্টে হেরে সিরিজ খোঁয়ায়।[৪৮] পঞ্চম টেস্টে স্বান্তনাসূচক জয়ের সন্ধান পায় পাকিস্তান।

প্রথম ইনিংসে ৬/৮৩ পান। উল্লেখযোগ্য দিক ছিল খেলার প্রথম বলেই কনরাড হান্টকে আউট করা।[৪৯] গড়ের দিক দিয়ে মন্দ সময় পার করা স্বত্ত্বেও তিনি এ সিরিজে ৩৮.২০ গড়ে ২০ উইকেট পান।[৩৮] এছাড়াও সিরিজে পাকিস্তানের সর্বোচ্চ উইকেটশিকারী ছিলেন তিনি।[৫০]

অধিনায়কত্ব লাভ[সম্পাদনা]

পরের বছর ফিরতি সফরে টেস্ট ক্রিকেট থেকে অধিনায়ক আবদুল কারদারের অবসর গ্রহণের প্রেক্ষিতে দেশের সেরা বোলার ফজলকে অধিনায়কের দায়িত্বভার অর্পণ করা হয়।

প্রথম টেস্টে টস জয় করে বোলিংয়ে নামে তাঁর দল। বোলিং উদ্বোধনে নেমে উপর্যুপরী দ্বিতীয় টেস্টের প্রথম ওভারেই কনরাড হান্টকে বিদায় করেন। ইনিংসে তিনি ৪/৩২ বোলিং পরিসংখ্যান দাঁড় করান। তন্মধ্যে,গ্যারি সোবার্সকে শূন্য রানে আউট করেন তিনি।

দ্বিতীয় ইনিংসেও তিনি তিনটি উইকেট পান যাতে হান্ট ও সোবার্সের উইকেট ছিল। সোবার্সকে আউট করার মাধ্যমে ফজল তাঁর শততম টেস্ট উইকেট লাভ করেন যা প্রথম পাকিস্তানী হিসেবে এ মাইলফলক স্পর্শ করেন তিনি। পাকিস্তান দশ উইকেটে জয় পায় নতুন অধিনায়কের সাহচর্য্যে।[৫১]

ঢাকায় অনুষ্ঠিত পরবর্তী টেস্টে জয় পেয়ে তিন খেলার রাবার জয় করে। নিম্নমূখী রানের খেলায় ফজল স্মারকসূচক ভূমিকা অবলম্বন করেন। চতুর্থবারের মতো খেলায় দশ উইকেট পান তিনি। ব্যাট হাতে ২২/৫ থাকা অবস্থায় দলকে ১৪৫-এ নিয়ে যান। ওয়েস্ট ইন্ডিজেরও করুণ পরিণতি ঘটে। ৭৬ রানে অল-আউট হয়। তন্মধ্যে এক পর্যায়ে ১১ রানে ছয় উইকেটের পতন ঘটেছিল। ফজল একাধারে বোলিং করে ৬/৩৪ পান।

ওয়েস্ট ইন্ডিজ তাদের দ্বিতীয় ইনিংসে ২১৪ করে ৪১ রানে পরাজিত হয়। ফজল প্রথম সাত উইকেটের ছয়টিতেই ভাগ বসান। অন্য ডিসমিসালে মাহমুদ হোসেন সোবার্সকে ফজলের তালুবন্দী করান। মাহমুদ নিচেরসারির ব্যাটসম্যানদেরকে আউট করে চার উইকেট দখল করেন। ফলশ্রুতিতে ফজলের বোলিং পরিসংখ্যান দাঁড়ায় ৬/৬৬ ও খেলায় ১২/১০০।[৫২] তাঁর এ রেকর্ডটুকু পরবর্তীতে ১৯৯৩ সালে ওয়াকার ইউনুস কর্তৃক ভেঙ্গে যায়।[৫৩]

রাবার খোয়ানো অবস্থায় ওয়েস্ট ইন্ডিজ জয় পায়। ফজল উদ্বোধনী বোলারদেরকে বিদায় করলেও ৪০ ওভারেই তা সীমাবদ্ধ থাকে।[৫৪] এ সিরিজে ১৫.৮৫ গড়ে ২১ উইকেট নিয়ে শীর্ষস্থানে থাকেন।[৫৫]

১৯৫৯ সালের শেষদিকে তিন টেস্টের সিরিজ খেলার জন্য অস্ট্রেলিয়া দল পাকিস্তান সফরে আসে। ২-০ ব্যবধানে সিরিজ জয় করে অস্ট্রেলিয়া যা পাকিস্তানের নিজ মাটিতে প্রথম সিরিজ পরাজয় ছিল। ঢাকায় অনুষ্ঠিত প্রথম টেস্টে সফরকারীরা আট উইকেটে জয় তুলে নেয়। খেলায় ফজল ছয় উইকেট পান। তন্মধ্যে, প্রথম ইনিংসে ৫/৭১ ছিল।[৫৬] নিজ শহর লাহোরে অনুষ্ঠিত দ্বিতীয় টেস্টে অংশ নিতে পারেননি তিনি। ফলশ্রুতিতে উইকেট-রক্ষক ইমতিয়াজ আহমেদ দলের অধিনায়কত্ব করেন। তবে, অস্ট্রেলিয়া সাত উইকেটে বিজয়ী হয়।[৫৭]

করাচীতে অনুষ্ঠিত তৃতীয় টেস্টে ফজলের অন্তর্ভূক্তি ঘটে। প্রথম ইনিংসে এগিয়ে থাকলেও দ্বিতীয় ইনিংসে দ্রুত তিন উইকেটের পতন ঘটলে খেলাটি ড্রয়ের দিকে চলে যায়।[৫৮] এক খেলায় অংশ না নিয়েও তিনি ১৯.৩৬ গড়ে ১১ উইকেট লাভ করেন।[৫৯] এর স্বীকৃতিস্বরূপ আইসিসি প্রণীত রাঙ্কিংয়ে বিশ্বের এক নম্বর বোলারে পরিণত হন ফজল মাহমুদ।

ভারত সফর[সম্পাদনা]

১৯৬০-৬১ মৌসুমে পাকিস্তান ভারত সফরে যায়। সফরে ১৫ খেলার মধ্যে পাঁচটি টেস্টও অন্তর্ভূক্ত ছিল যার সবকটিই ড্রয়ে পরিণত হয়। সাত বছর পূর্বেকার সিরিজটিও রক্ষণাত্মক ক্রিকেটের অন্তর্ভূক্তিতে জয়ের সাড়া পাওয়া যায়নি।[৬০]

প্রথম চার টেস্টে টসে জয়লাভে সক্ষম হন ফজল। কেবলমাত্র ইডেন গার্ডেন্সের তৃতীয় টেস্টের প্রথম ইনিংসে এগিয়ে ছিল তারা। খেলায় ২৫.৩ ওভার বোলিং করে ৫/২৬ পান। দ্বিতীয় ইনিংসে সময় পেয়ে নিশ্চিত মন নিয়ে ব্যাটিং করে ভারত দল ও তিনি কোন উইকেট পাননি।[৬১] তাঁর ত্রয়োদশ ও সর্বশেষ পাঁচ-উইকেট অর্জনের পর সিরিজের বাদ-বাকী খেলায় তিনি আর মাত্র চার উইকেট পেয়েছিলেন।

ফজলের অধিনায়কত্বের বিষয়টি ব্যাপক সমালোচনার মুখোমুখি হয় ও চূড়ান্ত টেস্টের পর তাঁর অধিনায়কত্ব কেড়ে নেয়া হয়।[৬২]

চূড়ান্ত টেস্টে অংশগ্রহণ[সম্পাদনা]

নিজ দেশে সফরকারী ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ফজলকে মনোনীত করা হয়নি। তবে চূড়ান্ত টেস্টে তাঁর অন্তর্ভূক্তি ঘটে। ৬৩ ওভার বোলিং করে ৯৩ রান দিয়ে সর্বাপেক্ষা মিতব্যয়ী বোলার হলেও কোন উইকেট তুলে নিতে ব্যর্থ হন।

১৯৬২ সালে ইংল্যান্ড সফরেও তাঁকে নেয়া হয়নি। তবে, মাহমুদ হোসেন ও মোহাম্মদ ফারুকের আঘাতের প্রেক্ষিতে তাঁকে দলে নেয়া হয়।[৬৩] পাঁচ খেলার সিরিজটি ইতোমধ্যে হেরে যায়।

ট্রেন্ট ব্রিজের চতুর্থ টেস্টে অংশগ্রহণের সুযোগ ঘটে তাঁর। সারাদিনই বোলিং করেন। দ্বিতীয় দিন মাত্র ত্রিশ মিনিট এর ব্যতিক্রম ছিল। তৃতীয় দিনে ইনিংস ঘোষণার পূর্ব-পর্যন্ত এ ধারাবাহিকতা অব্যাহত থাকে। ৬০ ওভার বোলিং করে ৩/১৩০ পান।[৬৪][৬৫]

ওভালের পঞ্চম টেস্টে ৪৭ ওভার বোলিং করে ২/১৯২ পান। এ দুই উইকেটপ্রাপ্তির মাধ্যমে তিনি তাঁর সর্বশেষ টেস্টে অংশগ্রহণ করেন। কলিন কাউড্রে ১৮২ ও টেড ডেক্সটার ১৭২ রান তুলে তাঁর হাতে ধরা দেন।[৬৬]

ল্যাঙ্কাশায়ার লীগে অংশগ্রহণ[সম্পাদনা]

১৯৫৭, ১৯৫৮ ও ১৯৫৯ সালে পূর্ব ল্যাঙ্কাশায়ার ক্রিকেট ক্লাবের পক্ষে পেশাদারী পর্যায়ে তিন মৌসুম খেলেন। শৌখিন ক্রিকেটারদের বিপক্ষে খেলে বিধ্বংসী বোলিং করেন। এ তিন মৌসুমে চারবার হ্যাট্রিক কার্য সসম্পাদন করেন। দুইবার আট উইকেট ও ছয়বার সাত উইকেট পান। ১৯৫৯ সালে ৭/৯ ও ১৯৫৭ সালে ৭/২৬ পান।[৬৭]

ব্যক্তিগত জীবন[সম্পাদনা]

অর্থনীতি বিষয়ে ইসলামিয়া কলেজ থেকে স্নাতকোত্তর ডিগ্রী লাভ করেন। ১৯৪৭ সালে পাকিস্তান সার্ভিসেসে পুলিশ ইন্সপেক্টর, ১৯৫২ সালে ডেপুটি সুপারিন্টেন্ডেন্ট ও ১৯৭৬ সালে ডেপুটি ইন্সপেক্টর জেনারেল হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।

পাকিস্তান ক্রিকেট দলের প্রথম অধিনায়ক মোহাম্মদ সাঈদের কন্যার সাথে বৈবাহিক সম্পর্ক স্থাপন করে ফজল মাহমুদ।

লাহোরে নিজ বাসভবনে হৃদযন্ত্রক্রীয়ায় আক্রান্ত হয়ে ৩০ মে, ২০০৫ তারিখে ফজলের দেহাবসান ঘটে। তাঁর বন্ধু ও সাবেক দলীয় সঙ্গী হানিফ মোহাম্মদ ফজলকে বিরাট মানবিক গুণাবলীর অধিকারী ও দেশের উৎপত্তিকালীন বছরগুলোয় পাকিস্তানী বোলারদের প্রধান রূপকাররূপে চিত্রিত করেন।[৬৮]

কীর্তিগাঁথা[সম্পাদনা]

ভারত, ইংল্যান্ড, অস্ট্রেলিয়া ও ওয়েস্ট ইন্ডিজ - পৃথক এ চারটি দেশের বিপক্ষে প্রথম বোলার হিসেবে টেস্ট ক্রিকেটের ইতিহাসে ১২ বা ততোধিক উইকেট লাভের কৃতিত্ব প্রদর্শন করেন ফজল।[৬৯] ২২ টেস্টেই ১০০ টেস্ট উইকেট লাভ করেন। পাকিস্তানী বোলারদের মধ্যে কেবলমাত্র ওয়াকার ইউনুস ও মোহাম্মদ আসিফ তারচেয়ে দ্রুততম সময়ে এ কৃতিত্ব অর্জন করেছেন।[৭০]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Viner, Brian (৯ আগস্ট ২০০৪)। "Pakistan's overthrow of the old order still resonates 50 years on"। Independent। সংগ্রহের তারিখ ১৯ সেপ্টেম্বর ২০০৯ 
  2. "Obituaries – Fazal Mahmood"। Daily Telegraph। ৩০ মে ২০০৫। সংগ্রহের তারিখ ১২ মার্চ ২০০৯ 
  3. "Wisden Cricketer of the Year 1955 – Fazal Mahmood"Wisden Cricketers' Almanack – online archive। John Wisden & Co.। ১৯৫৫। সংগ্রহের তারিখ ১২ মার্চ ২০০৯ 
  4. This notation means he took five wickets and conceded 13 runs
  5. "Southern Punjab v Northern India"CricketArchive। সংগ্রহের তারিখ ১৯ সেপ্টেম্বর ২০০৯ 
  6. "Western India v Northern India"CricketArchive। সংগ্রহের তারিখ ১৯ সেপ্টেম্বর ২০০৯ 
  7. "East Zone v North Zone"CricketArchive। সংগ্রহের তারিখ ১৯ সেপ্টেম্বর ২০০৯ 
  8. "Player Profile"। Cricinfo। সংগ্রহের তারিখ ১৯ সেপ্টেম্বর ২০০৯ 
  9. "Player Oracle: Fazal Mahmood"CricketArchive। সংগ্রহের তারিখ ১৯ সেপ্টেম্বর ২০০৯ 
  10. "North Zone v South Zone, Zonal Quadrangular Tournament 1946/47"CricketArchive। সংগ্রহের তারিখ ১৯ সেপ্টেম্বর ২০০৯ 
  11. "West Zone v North Zone, Zonal Quadrangular Tournament 1946/47 (Final)"CricketArchive। সংগ্রহের তারিখ ১৯ সেপ্টেম্বর ২০০৯ 
  12. "Obituary: Fazal Mahmood"। Guardian। ২ জুন ২০০৫। সংগ্রহের তারিখ ১৯ সেপ্টেম্বর ২০০৯ 
  13. "Punjab v Sind, Other First-Class matches in Pakistan 1947/48"CricketArchive। সংগ্রহের তারিখ ১৯ সেপ্টেম্বর ২০০৯ 
  14. "Pakistan v West Indies, West Indies in Pakistan 1948/49"CricketArchive। সংগ্রহের তারিখ ১৯ সেপ্টেম্বর ২০০৯ 
  15. "Pakistan v MCC, MCC in Pakistan 1951/52"। CricketArchive। সংগ্রহের তারিখ ১৩ মার্চ ২০০৯ 
  16. "1909 – 1963 – Imperial Cricket Conference"। International Cricket Council। ২১ জুলাই ২০০৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৩ মার্চ ২০০৯ 
  17. "India v Pakistan, 1951–52, First Test, Scorecard"। Cricinfo। সংগ্রহের তারিখ ১৩ মার্চ ২০০৯ 
  18. "India v Pakistan, 1951–52, Second Test, Scorecard"। Cricinfo। সংগ্রহের তারিখ ১৩ মার্চ ২০০৯ 
  19. "Test records – Best bowling figures in a match for Pakistan"। Cricinfo। সংগ্রহের তারিখ ২৩ জুলাই ২০০৯ 
  20. "Test records – Best bowling figures in a match v India"। Cricinfo। সংগ্রহের তারিখ ১৩ মার্চ ২০০৯ 
  21. "India v Pakistan, 1951–52, Third Test, Scorecard"। Cricinfo। সংগ্রহের তারিখ ২৩ জুলাই ২০০৯ 
  22. "Statsguru – Fazal Mahmood, Test batting by series"। Cricinfo। সংগ্রহের তারিখ ২৩ জুলাই ২০০৯ 
  23. "Worcestershire v Pakistanis, Pakistan in British Isles 1954"। CricketArchive। সংগ্রহের তারিখ ২৩ জুলাই ২০০৯ 
  24. "Player Oracle: Fazal Mahmood"। CricketArchive। সংগ্রহের তারিখ ২৩ জুলাই ২০০৯ 
  25. "Oxford University v Pakistanis, Pakistan in British Isles 1954"। CricketArchive। সংগ্রহের তারিখ ২৩ জুলাই ২০০৯ 
  26. "England v Pakistan, 1954, First Test, Scorecard"। Cricinfo। সংগ্রহের তারিখ ২৩ জুলাই ২০০৯ 
  27. "Nottinghamshire v Pakistanis, Pakistan in British Isles 1954"। CricketArchive। সংগ্রহের তারিখ ২৩ জুলাই ২০০৯ 
  28. "Statsguru – Fazal Mahmood, Test bowling by innings"। Cricinfo। সংগ্রহের তারিখ ২৩ জুলাই ২০০৯ 
  29. "England v Pakistan, 1954, Second Test, Match Report"Wisden Cricketers' Almanack – online archive। John Wisden & Co.। ১৯৫৫। সংগ্রহের তারিখ ২৯ জুলাই ২০০৯ 
  30. "England v Pakistan, 1954, Third Test, Scorecard"। Cricinfo। সংগ্রহের তারিখ ২৩ জুলাই ২০০৯ 
  31. John Arlott। "Pakistani plunder"Wisden Cricket Monthly – online archive। Wisden Cricket Monthly – May 1987। সংগ্রহের তারিখ ২৩ জুলাই ২০০৯ 
  32. "England v Pakistan, 1954, Fourth Test, Match Report"Wisden Cricketers' Almanack – online archive। John Wisden & Co.। ১৯৫৫। সংগ্রহের তারিখ ২৩ জুলাই ২০০৯ 
  33. "England v Pakistan, 1954, Fourth Test, Scorecard"। Cricinfo। সংগ্রহের তারিখ ২৩ জুলাই ২০০৯ 
  34. "Pakistan in England Test Series, 1954 – Pakistan averages"। Cricinfo। সংগ্রহের তারিখ ২৩ জুলাই ২০০৯ 
  35. "Pakistan in British Isles 1954, First-class Bowling for Pakistanis"। Cricinfo। সংগ্রহের তারিখ ২৪ আগস্ট ২০০৯ 
  36. "Pakistan in England, 1954, Series Report"Wisden Cricketers' Almanack – online archive। John Wisden & Co.। ১৯৫৫। সংগ্রহের তারিখ ২৪ আগস্ট ২০০৯ 
  37. "India in Pakistan, 1954–55, Series Report"Wisden Cricketers' Almanack – online archive। John Wisden & Co.। ১৯৫৬। সংগ্রহের তারিখ ২৪ আগস্ট ২০০৯ 
  38. "Statsguru – Fazal Mahmood, Test bowling by series"। Cricinfo। সংগ্রহের তারিখ ২৪ আগস্ট ২০০৯ 
  39. "Statsguru – Pakistan series averages"। Cricinfo। সংগ্রহের তারিখ ২৪ আগস্ট ২০০৯ 
  40. "Pakistan v Australia, 1956/57, Only Test, Scorecard"। Cricinfo। সংগ্রহের তারিখ ২৪ আগস্ট ২০০৯ 
  41. "Pakistan v Australia, 1956/57, Only Test, Match Report"Wisden Cricketers' Almanack – online archive। John Wisden & Co.। ১৯৫৮। সংগ্রহের তারিখ ২৪ আগস্ট ২০০৯ 
  42. "Pleased to beat you"। Cricinfo। সংগ্রহের তারিখ ২৪ আগস্ট ২০০৯ 
  43. "West Indies v Pakistan, 1957/58, Second Test, Scorecard"। Cricinfo। সংগ্রহের তারিখ ২৪ আগস্ট ২০০৯ 
  44. "West Indies v Pakistan, 1957/58, Third Test, Match Report"Wisden Cricketers' Almanack – online archive। John Wisden & Co.। ১৯৫৯। সংগ্রহের তারিখ ২৪ আগস্ট ২০০৯ 
  45. "West Indies v Pakistan, 1957/58, Third Test, Scorecard"। Cricinfo। সংগ্রহের তারিখ ২৪ আগস্ট ২০০৯ 
  46. "Statsguru – Most overs bowled in a Test innings"। Cricinfo। সংগ্রহের তারিখ ২৪ আগস্ট ২০০৯ 
  47. "Statsguru – Most runs conceded in a Test innings"। Cricinfo। সংগ্রহের তারিখ ২৪ আগস্ট ২০০৯ 
  48. "Pakistan in West Indies Test Series 1957/58 – Results"। Cricinfo। সংগ্রহের তারিখ ২৪ আগস্ট ২০০৯ 
  49. "West Indies v Pakistan, 1957/58, Fifth Test, Scorecard"। Cricinfo। সংগ্রহের তারিখ ২৪ আগস্ট ২০০৯ 
  50. "Pakistan in West Indies Test Series, 1957/58 – Pakistan averages"। Cricinfo। সংগ্রহের তারিখ ২৪ আগস্ট ২০০৯ 
  51. "Pakistan v West Indies, 1958/59, First Test, Scorecard"। Cricinfo। সংগ্রহের তারিখ ২৪ আগস্ট ২০০৯ 
  52. "Pakistan v West Indies, 1958/59, Second Test, Scorecard"। Cricinfo। সংগ্রহের তারিখ ২৪ আগস্ট ২০০৯ 
  53. "Statsguru – Best Test match figures by a captain"। Cricinfo। সংগ্রহের তারিখ ২৪ আগস্ট ২০০৯ 
  54. "Pakistan v West Indies, 1958/59, Third Test, Scorecard"। Cricinfo। সংগ্রহের তারিখ ২৪ আগস্ট ২০০৯ 
  55. "West Indies in Pakistan Test Series, 1958/59 – Most wickets"। Cricinfo। সংগ্রহের তারিখ ২৪ আগস্ট ২০০৯ 
  56. "Pakistan v Australia, 1959/60, First Test, Scorecard"। Cricinfo। সংগ্রহের তারিখ ২৪ আগস্ট ২০০৯ 
  57. "Pakistan v Australia, 1959/60, Second Test, Scorecard"। Cricinfo। সংগ্রহের তারিখ ২৪ আগস্ট ২০০৯ 
  58. "Pakistan v Australia, 1959/60, Third Test, Scorecard"। Cricinfo। সংগ্রহের তারিখ ২৪ আগস্ট ২০০৯ 
  59. "Australia in Pakistan Test Series, 1959/60 – Pakistan averages"। Cricinfo। সংগ্রহের তারিখ ২৪ আগস্ট ২০০৯ 
  60. "Pakistan in India, 1960–61, Series Report"Wisden Cricketers' Almanack – online archive। John Wisden & Co.। ১৯৬২। সংগ্রহের তারিখ ২৪ আগস্ট ২০০৯ 
  61. "India v Pakistan, 1960/61, Third Test, Scorecard"। Cricinfo। সংগ্রহের তারিখ ২৪ আগস্ট ২০০৯ 
  62. Ahmed, Shoaib (১ আগস্ট ২০০২)। "Fazal Mahmood – Master of Nagging Length"। Cricinfo। সংগ্রহের তারিখ ২৪ আগস্ট ২০০৯ 
  63. "Pakistan in England, 1962, Series Report"Wisden Cricketers' Almanack – online archive। John Wisden & Co.। ১৯৬৩। সংগ্রহের তারিখ ২৪ আগস্ট ২০০৯ 
  64. "England v Pakistan, 1962, Fourth Test, Match Report"Wisden Cricketers' Almanack – online archive। John Wisden & Co.। ১৯৬৩। সংগ্রহের তারিখ ২৪ আগস্ট ২০০৯ 
  65. "England v Pakistan, 1962, Fourth Test, Scorecard"। Cricinfo। সংগ্রহের তারিখ ২৪ আগস্ট ২০০৯ 
  66. "England v Pakistan, 1962, Fifth Test, Scorecard"। Cricinfo। সংগ্রহের তারিখ ২৪ আগস্ট ২০০৯ 
  67. "Lancashire League Archive" 
  68. "Ex-Pakistan captain Mahmood dies"। BBC Sport। ৩০ মে ২০০৫। সংগ্রহের তারিখ ২৪ আগস্ট ২০০৯ 
  69. "Statsguru – 12 wickets in a match, ordered by player name"। Cricinfo। সংগ্রহের তারিখ ১২ মার্চ ২০০৯ 
  70. "Test records – Fastest to 100 wickets"। Cricinfo। সংগ্রহের তারিখ ১২ মার্চ ২০০৯ 

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]

পূর্বসূরী
আবদুল হাফিজ কারদার
পাকিস্তানী ক্রিকেট অধিনায়ক
১৯৫৯–১৯৬১
উত্তরসূরী
ইমতিয়াজ আহমেদ