লাহোর

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
লাহোর
لہور
لاہور
মেগাসিটি / মেট্রোপলিটন শহর
Clockwise from top: Kim's Gun, Badshahi Mosque, Samadhi of Ranjit Singh, Lahore Museum, Shalimar Gardens, Lahore Fort and Minar-e-Pakistan
লাহোরের অফিসিয়াল লোগো
Emblem
নাম: প্রাচ্যের প্যারিস, পাকিস্তানের হৃদয়[১], পাকিস্তানের সাংস্কৃতিক রাজধানী[২], মুঘলদের উদ্যান ও দাতা আলি হুজভিরির শহর (দাতা কি নগরি)[৩].
পাকিস্তানের পাঞ্জাবের মধ্যে লাহোর (লাল রঙে) এবং (ইনসেটে) পাঞ্জাবের মধ্যে অবস্থান
পাকিস্তানের পাঞ্জাবের মধ্যে লাহোর (লাল রঙে) এবং (ইনসেটে) পাঞ্জাবের মধ্যে অবস্থান
স্থানাঙ্ক: ৩১°৩২′৫৯″ উত্তর ৭৪°২০′৩৭″ পূর্ব / ৩১.৫৪৯৭২° উত্তর ৭৪.৩৪৩৬১° পূর্ব / 31.54972; 74.34361স্থানাঙ্ক: ৩১°৩২′৫৯″ উত্তর ৭৪°২০′৩৭″ পূর্ব / ৩১.৫৪৯৭২° উত্তর ৭৪.৩৪৩৬১° পূর্ব / 31.54972; 74.34361
দেশ পাকিস্তান
প্রদেশপাঞ্জাব
সিটি জেলা সরকার১১ সেপ্টেম্বর ২০০৮
সিটি কাউন্সিললাহোর
শহর
সরকার
 • ধরনসিটি জেলা
 • জেলা প্রশাসকক্যাপ্টেন (আর) মুহাম্মদ উসমান ইউনিস
 • জেলা সমন্বয় অফিসারক্যাপ্টেন (আর) মুহাম্মদ উসমান ইউনিস
 • রাজধানী শহর পুলিশ প্রধানক্যাপ্টেন (আর) আমিন ভেনাস
আয়তন[৪]
 • মোট১৭২ কিমি (৬৮৪ বর্গমাইল)
উচ্চতা২১৭ মিটার (৭১২ ফুট)
জনসংখ্যা (২০০৯)
 • মোট১,০০,০০,০০০
 লাহোর শহর এবং লাহোর সেনানিবাসের জনসংখ্যা সংযুক্ত
এলাকা কোড0423
ওয়েবসাইটhttp://www.lahore.gov.pk
লাহোর সেনানিবাস আইননুযায়ী মিলিটারি-শাসিত পত্তনি থেকে আলাদা

লাহোর (পাঞ্জাবি: لہور, উর্দু: لاہور‎‎) পাকিস্তানের অন্যতম প্রধান শহর ও পাকিস্তানের সম্পদশালী পাঞ্জাব প্রদেশের রাজধানী।

অবস্থান[সম্পাদনা]

শহরটি উত্তর-পূর্ব পাকিস্তানে পাকিস্তান-ভারত সীমান্তের কাছে রাভি নদীর তীরে অবস্থিত এবং পাঞ্জাব প্রদেশের প্রধান বাণিজ্যিক, ব্যাংকিং এবং পরিবহন কেন্দ্র।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

লাহোর শহরটি দক্ষিণ এশিয়ামধ্য এশিয়াকে সংযুক্তকারী একটি গুরুত্বপূর্ণ বাণিজ্যপথের উপর অবস্থিত। ফলে দীর্ঘ ইতিহাস জুড়ে বহু রাজ্য ও রাজবংশের রাজধানী হিসেবে শহরটি ব্যবহৃত হয়েছে। হিন্দু পুরাণমতে, রামের সন্তান লাভা বা লোহ এই শহরের পত্তন করেন। ৬৩০ খ্রিস্টাব্দে চীনা পুরোহিত চুয়ান জাং ভারতে তীর্থযাত্রায় যাওয়ার পথে লাহোর দিয়ে যান এবং তিনি এখানকার বিবরণ দিয়ে গেছেন। ১১শ শতকে মুসলিম গজনভিরা ব্রাহ্মণদের হাত থেকে শহরটির নিয়ন্ত্রণ কেড়ে নেন। তাঁরা ১১৫২ সালে এখানে তাদের রাজধানী স্থাপন করেন। দ্বাদশ শতকের শেষ দিকে উত্তরের ঘোরি সুলতানরা শহরটি দখল করেন[৫] এবং ত্রয়োদশ শতকের শুরুতেই শহরটিতে ভারতীয় উপমহাদেশের প্রথম মুসলিম শাসকের অভিষেক অনুষ্ঠান উদযাপিত হয়। এরপর পরে কয়েক শতাব্দী যাবৎ মঙ্গোল হানাদারেরা লাহোরের উপর উপর্যুপরি আক্রমণ চালায়, কিন্তু লাহোর তা সত্ত্বেও টিকে থাকে এবং ১৫২৪ সালে এটিকে ভারতের মুঘল সাম্রাজ্যের রাজধানী বানানো হয়। মুঘলদের পতনের পর ১৭৬৭ সালে লাহোর একটি শিখ রাজ্যের রাজধানীতে পরিণত হয়। শিখরা পরবর্তীকালে ব্রিটিশদের কাছে পরাজিত হলে ১৮৪৯ সাল থেকে ১৯৪৭ সালে পাকিস্তানের স্বাধীনতা লাভের আগ পর্যন্ত এটি ব্রিটিশ ভারতের একটি শহর ছিল।

জনসংখ্যা[সম্পাদনা]

প্রায় ৮৫ লক্ষ। [৬]

শিল্প[সম্পাদনা]

লাহোর শহরে তেমন কলকারখানা না থাকলেও এটি চারপাশে অবস্থিত ঘন শিল্প-অধ্যুষিত অঞ্চলগুলির একটি বিতরণ কেন্দ্র হিসেবে কাজ করে থাকে। এখানে টেক্সটাইল, ধাতব দ্রব্য, রাসায়নিক দ্রব্য, যন্ত্রপাতি, কাঁচের দ্রব্য এবং চামড়া ও রাবারের দ্রব্যের শিল্পকারখানা আছে।

ঐতিহাসিক পার্ক এবং বাগান[সম্পাদনা]

  1. শালিমার উদ্যান, লাহোর
  2. বাগ-ই-জিন্নাহ
  3. ইকবাল পার্ক (পূর্বে মিন্টো পার্ক)
  4. জিলানি পার্ক (পূর্বে হিসাবে রেসকোর্স পার্ক পরিচিত)
  5. গুলশান-ই-ইকবাল পার্ক

শিক্ষা প্রতিষ্ঠান[সম্পাদনা]

লাহোর শহর পাকিস্তানের শিক্ষা ও সংস্কৃতির অন্যতম কেন্দ্র। এখানে ১৮৮২ সালে প্রতিষ্ঠিত পাকিস্তানের প্রাচীনতম বিশ্ববিদ্যালয় পাঞ্জাব বিশ্ববিদ্যালয় এবং ১৯৬১ সালে প্রতিষ্ঠিত প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় অবস্থিত। শহরে একটি পারমাণবিক শক্তি গবেষণা কেন্দ্রও রয়েছে।

ঐতিহ্য[সম্পাদনা]

An Open-Air Restaurant Lahore

লাহোরে স্থাপত্যকলার দিক থেকে উল্লেখযোগ্য বেশ কিছু ভবন আছে। এগুলির অনেকগুলি মুঘল আমলে নির্মিত হয়েছিল;ঐ আমলে শহরটির ব্যাপক প্রসিদ্ধি ঘটে। এদের মধ্যে আছে সম্রাট জাহাঙ্গীরের প্রাসাদ ও সমাধি, লাহোর দুর্গ, এবং ওয়াজির খান মসজিদ, যেখানে অন্তর্লিখিত মৃতশিল্পের উৎকৃষ্ট নিদর্শন দেখতে পাওয়া যায়। শহরের অন্যান্য ঐতিহাসিক ভবন ও সৌধের মধ্যে আছে শালিমার বাগান, লাহোর জাদুঘর, এবং সোনালী ও মুক্তার মসজিদসমূহ।

স্থিরচিত্র[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]


  1. "Pakistan: Largest cities and towns and statistics of their population"। সংগ্রহের তারিখ ২০১১-০২-১০