২০১৫ পাকিস্তান ক্রিকেট দলের শ্রীলঙ্কা সফর

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
২০১৫ পাকিস্তান ক্রিকেট দলের শ্রীলঙ্কা সফর
Flag of Sri Lanka.svg
শ্রীলঙ্কা
Flag of Pakistan.svg
পাকিস্তান
তারিখ ১১ জুন, ২০১৫ – ১ আগস্ট, ২০১৫
অধিনায়ক অ্যাঞ্জেলো ম্যাথিউস (টেস্ট ও ওডিআই)
লাসিথ মালিঙ্গা (টি২০আই)
মিসবাহ-উল-হক (টেস্ট)
আজহার আলী (ওডিআই)
শহীদ আফ্রিদি (টি২০আই)
টেস্ট সিরিজ
ফলাফল ৩-ম্যাচের সিরিজ পাকিস্তান ২–১ এ জয়ী হয়
সর্বাধিক রান দিমুথ করুনারত্নে (৩১৮) ইউনুস খান (২৬৭)
সর্বাধিক উইকেট ধাম্মিকা প্রসাদ (১৪) ইয়াসির শাহ (২৪)
সিরিজ সেরা ইয়াসির শাহ (পাকিস্তান)
একদিনের আন্তর্জাতিক সিরিজ
ফলাফল ৫-ম্যাচের সিরিজ পাকিস্তান ৩–২ এ জয়ী হয়
সর্বাধিক রান কুশল পেরেরা (২৩০) মোহাম্মদ হাফিজ (২৭৩)
সর্বাধিক উইকেট লাসিথ মালিঙ্গা (৪) রাহাত আলী (৯)
সিরিজ সেরা মোহাম্মদ হাফিজ (পাকিস্তান)
টুয়েন্টি২০ আন্তর্জাতিক সিরিজ
ফলাফল ২-ম্যাচের সিরিজ পাকিস্তান ২–০ তে জয়ী হয়
সর্বাধিক রান চামারা কাপুগেদারা (৭৯) শোয়েব মালিক (৫৪)
সর্বাধিক উইকেট থিসারা পেরেরা (৩)
বিনুরা ফার্নান্দো (৩)
সোহেল তানভীর (৪)
সিরিজ সেরা শোয়েব মালিক (পাকিস্তান)

পাকিস্তান ক্রিকেট দল পূর্ব-নির্ধারিত সময়সূচী মোতাবেক ১১ জুন থেকে ১ আগস্ট, ২০১৫ তারিখ পর্যন্ত শ্রীলঙ্কা সফর করছে।[১] সফরে দলটি শ্রীলঙ্কা দলের বিপক্ষে তিনটি টেস্ট, ৫টি একদিনের আন্তর্জাতিক ও ৩টি টুয়েন্টি২০ আন্তর্জাতিকে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবে। এছাড়াও তারা শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট বোর্ড সভাপতি একাদশের বিপক্ষে তিনদিনের প্রস্তুতিমূলক খেলায় অংশ নিবে।[২][৩][৪] তৃতীয় টেস্ট রানাসিংহে প্রেমাদাসা স্টেডিয়ামে আয়োজনের কথা থাকলেও মে মাসের শুরুতে পাল্লেকেলে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে স্থানান্তর করা হয়।[৫]

দলীয় সদস্য[সম্পাদনা]

টেস্ট ওডিআই টি২০আই
 শ্রীলঙ্কা[৬]  পাকিস্তান[৭]  শ্রীলঙ্কা[৮]  পাকিস্তান[৯]  শ্রীলঙ্কা  পাকিস্তান

প্রস্তুতিমূলক খেলা[সম্পাদনা]

শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট বোর্ড সভাপতি একাদশ ব পাকিস্তান একাদশ[সম্পাদনা]

১১-১৩ জুন, ২০১৫
স্কোরকার্ড
২৪৭ (৭৩.৩ ওভার)
আহমেদ শেহজাদ ৮২ (১৪৪)
জেফ্রি ভ্যান্ডারসে ৫/৭৩ (১৯.৩ ওভার)
২৪১ (৮৯.১ ওভার)
কৌশল সিলভা ১০১ (২২২)
জুলফিকার বাবর ২/৪৫ (২৩.১ ওভার)
২৫৭/৭ঘো (৬৯.৪ ওভার)
শান মাসুদ ৬৯ (১২২)
জেফ্রি ভ্যান্ডারসে ৩/৯৪ (১৮.৪ ওভার)
১২৯/৩ (২৭ ওভার)
দিমুথ করুনারত্নে ৫৪ (৬৯)
এহসান আদিল ১/২৪ (৯ ওভার)
  • পাকিস্তান একাদশ টসে জিতে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়।
  • উভয় দলে ১৪ খেলোয়াড় অংশগ্রহণ করে (১১ ব্যাটিং, ১১ ফিল্ডিং)।

টেস্ট সিরিজ[সম্পাদনা]

১ম টেস্ট[সম্পাদনা]

১৭-২১ জুন ২০১৫
স্কোরকার্ড
৩০০ (১০৯.৩ ওভার)
কৌশল সিলভা ১২৫ (৩০০)
জুলফিকার বাবর ৩/৬৪ (২৭ ওভার)
৪১৭ (১১৩.১ ওভার)
আসাদ শফিক ১৩১ (২৫৬)
দিলরুয়ান পেরেরা ৪/১২২ (৩১.১ ওভার)
২০৬ (৭৭.১ ওভার)
দিমুথ করুনারত্নে ৭৯ (১৭৩)
ইয়াসির শাহ ৭/৭৫ (৩০.১ ওভার)
৯২/০ (১১.২ ওভার)
মোহাম্মদ হাফিজ ৪৬* (৩৩)
পাকিস্তান ১০ উইকেটে জয়ী
গালে আন্তর্জাতিক স্টেডিয়াম, গালে
আম্পায়ার: রিচার্ড ইলিংওয়ার্থ (ইংল্যান্ড) ও পল রেইফেল (অস্ট্রেলিয়া)
ম্যাচসেরা: সরফরাজ আহমেদ (পাকিস্তান)
  • পাকিস্তান টসে জিতে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়।
  • বৃষ্টির কারণে ১ম দিন খেলা হয়নি। ভেজা মাঠের কারণে ২য় দিন দেরীতে খেলা শুরু হয় ও মন্দালোকের কারণে ১৭:৩০এর পূর্বেই শেষ হয়। ৩য় দিন খেলা শেষ হবার পূর্বেই শেষ হয়।
  • ১২৩তম জয়ের মাধ্যমে পাকিস্তান এশিয়ার সর্বাপেক্ষা সফলতম টেস্ট দলে পরিণত হয়।[১০]

২য় টেস্ট[সম্পাদনা]

২৫-২৯ জুন ২০১৫
স্কোরকার্ড
১৩৮ (৪২.৫ ওভার)
মোহাম্মদ হাফিজ ৪২ (৭৫)
থারিন্ডু কৌশল ৫/৪২ (১০.৫ ওভার)
৩১৫ (১২১.৩ ওভার)
কৌশল সিলভা ৮০ (২১৮)
ইয়াসির শাহ ৬/৯৬ (৪১.৩ ওভার)
৩২৯ (১১৮.২ ওভার)
আজহার আলী ১১৭ (৩০৮)
ধাম্মিকা প্রসাদ ৪/৯২ (২৯.৩ ওভার)
১৫৩/২ (২৬.৩ ওভার)
দিমুথ করুনারত্নে ৫০ (৫৭)
ইয়াসির শাহ ২/৫৫ (১০.৩ ওভার)
শ্রীলঙ্কা ৭ উইকেটে জয়ী
পি. সারা ওভাল, কলম্বো
আম্পায়ার: রিচার্ড ইলিংওয়ার্থ (ইংল্যান্ড) ও সুন্দরাম রবি (ভারত)
ম্যাচসেরা: ধাম্মিকা প্রসাদ (শ্রীলঙ্কা)
  • পাকিস্তান টসে জিতে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়।
  • ১ম দিনে ১:২০ ৫৫ মিনিট; ২য় দিনে শেষের ১০ মিনিট খেলা বন্ধ থাকে; ৩য় দিনে ১৫ মিনিট বিলম্বে শুরু হয়। ৪র্থ দিনে চা বিরতির পূর্বে খেলা বন্ধ হয় ও পরবর্তীকালে খেলা শুরু করা যায়নি।
  • দুষ্মন্ত চামিরা (শ্রীলঙ্কা) তার টেস্ট অভিষেক হয়।
  • নিজ দেশে শ্রীলঙ্কা ৫০তম টেস্ট জয় পায়।[১১]
  • থারিন্ডু কৌশল (শ্রীলঙ্কা) তার প্রথম ৫-উইকেট লাভ করেন।[১২]
  • ইউনুস খান (পাকিস্তান) তার ১০০তম টেস্টে অংশ নেন।[১২]
  • ইয়াসির শাহ (পাকিস্তান) ধারাবাহিকভাবে ২য়বার ৫-উইকেট লাভ করেন।

৩য় টেস্ট[সম্পাদনা]

৩-৭ জুলাই, ২০১৫
স্কোরকার্ড
২৭৮ (৮৯.৫ ওভার)
দিমুথ করুনারত্নে ১৩০ (২৩০)
ইয়াসির শাহ ৫/৭৮ (৩১.৫ ওভার)
২১৫ (৬৬ ওভার)
সরফরাজ আহমেদ ৭৮* (১০৪)
নুয়ান প্রদীপ ৩/২৯ (১৫ ওভার)
৩১৩ (৯৫.৪ ওভার)
অ্যাঞ্জেলো ম্যাথিউস ১২২ (২৫২)
ইমরান খান ৫/৫৮ (২০.৪ ওভার)
৩৮২/৩ (১০৩.১ ওভার)
ইউনুস খান ১৭১* (২৭১)
সুরঙ্গা লকমল ১/৪৮ (১৯ ওভার)
পাকিস্তান ৭ উইকেটে জয়ী
পাল্লেকেলে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়াম, ক্যান্ডি
আম্পায়ার: ইয়ান গোল্ড (ইংল্যান্ড) ও পল রেইফেল (অস্ট্রেলিয়া)
ম্যাচসেরা: ইউনুস খান (পাকিস্তান)
  • পাকিস্তান টসে জিতে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়।
  • ২য় দিনে মধ্যাহ্নভোজনের পর দু’দফায় বৃষ্টির কারণে দেড় ঘণ্টা খেলা বন্ধ থাকে। শেষ ১৫ মিনিটে আবারো বৃষ্টি নামে। মন্দালোকের কারণে ৩য় দিনে পূর্বেই শেষ হয়।
  • টেস্ট ক্রিকেটে পাকিস্তান সর্বোচ্চ রান তাড়া করে জয় পায়।[১৩]
  • এ জয়ের ফলে পাকিস্তান টেস্ট র‌্যাঙ্কিংয়ে ৬ষ্ঠ অবস্থান থেকে ৩য় স্থানে চলে যায়।[১৪]

ওডিআই সিরিজ[সম্পাদনা]

১ম ওডিআই[সম্পাদনা]

১১ জুলাই, ২০১৫
১০:০০
স্কোরকার্ড
শ্রীলঙ্কা 
২৫৫/৮ (৫০ ওভার)
 পাকিস্তান
২৫৯/৪ (৪৫.২ ওভার)
মোহাম্মদ হাফিজ ১০৩ (৯৫)
সুরঙ্গা লকমল ১/২১ (৫ ওভার)

২য় ওডিআই[সম্পাদনা]

১৫ জুলাই
১৪:৩০ (দিন/রাত)
স্কোরকার্ড
পাকিস্তান 
২৮৭/৮ (৫০ ওভার)
 শ্রীলঙ্কা
২৮৮/৮ (৪৮.১ overs)
আজহার আলী ৭৯ (১০৪)
লাসিথ মালিঙ্গা ২/৬৪ (১০ ওভার)
লাসিথ মালিঙ্গা ৬৮ (২৫)
রাহাত আলী ৩/৭৩ (৯.১ ওভার)

৩য় ওডিআই[সম্পাদনা]

১৯ জুলাই ২০১৫
১৪:৩০ (দিন/রাত)
স্কোরকার্ড
শ্রীলঙ্কা 
৩১৬/৪ (৫০ ওভার)
 পাকিস্তান
১৮১ (৪১.১ ওভার)
সরফরাজ আহমেদ ৭৭ (৭৪)
সচিথ পথিরানা ১/৪৯ (১০ ওভার)
লাহিরু থিরিমানে ৫৬ (৬৭)
ইয়াসির শাহ ৪/২৯ (১০ ওভার)
  • পাকিস্তান টসে জিতে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়।
  • পাকিস্তানের ইনিংসের সময় ১৫ মিনিটের জন্য বৃষ্টি খেলা বন্ধ করে দেয়।
  • ইমাদ ওয়াসিম (পাকিস্তান) তার ওডিআই অভিষেক হয়।
  • ভিড়ের সমস্যার কারণে শ্রীলঙ্কার রান তাড়া চলাকালীন প্লে ৩০মিনিটের জন্য স্থগিত করা হয়েছিল।

৪র্থ ওডিআই[সম্পাদনা]

২২ জুলাই ২০১৫
১৪:৩০ (দিন/রাত)
স্কোরকার্ড
শ্রীলঙ্কা 
২৫৬/৯ (৫০ ওভার)
 পাকিস্তান
২৫৭/৩ (৪০.৫ ওভার)
  • শ্রীলঙ্কা টসে জিতে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়।

৫ম ওডিআই[সম্পাদনা]

২৬ জুলাই, ২০১৫
১৪:৩০ (দিন/রাত)
স্কোরকার্ড
শ্রীলঙ্কা 
৩৬৮/৪ (৫০ অভার)
 পাকিস্তান
২০৩ (৩৭.২ ওভার)
কুশল পেরেরা ১১৬ (১০৯)
রাহাত আলী ২/৭৪ (১০ ওভার)
  • শ্রীলঙ্কা টসে জিতে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়।
  • দিনেশ চান্ডিমাল (শ্রীলঙ্কা) তার ১০০তম ওডিআইতে খেলা খেলেছে।
  • তিলকরত্নে দিলশান (শ্রীলঙ্কা) ১০,০০০ ওডিআই রানের রেকর্ড পেরিয়ে চতুর্থ শ্রীলঙ্কার হয়ে চূড়ান্তভাবে একাদশতম স্থান অর্জন করে।
  • এটি ওডিআইতে পাকিস্তানের বিপক্ষে শ্রীলঙ্কার সর্বোচ্চ এবং হাম্বানটোটাতে দলের সর্বোচ্চ রান।

টি২০আই সিরিজ[সম্পাদনা]

১ম টি২০আই[সম্পাদনা]

৩০ জুলাই ২০১৫
১৯:০০ (দিন/রাত)
স্কোরকার্ড
পাকিস্তান 
১৭৫/৫ (২০ ওভার)
 শ্রীলঙ্কা
১৪৬/৭ (২০ ওভার)
উমর আকমল ৪৬ (২৪)
থিসারা পেরেরা ২/৩০ (৪ ওভার)

২য় টি২০আই[সম্পাদনা]

১ আগস্ট ২০১৫
১৯:০০ (দিন/রাত)
স্কোরকার্ড
শ্রীলঙ্কা 
১৭২/৭ (২০ ওভার)
 পাকিস্তান
১৭৪/৯ (১৯.২ ওভার)

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Pakistan set for full tour of Sri Lanka in June"ESPNCricinfo। সংগ্রহের তারিখ ২২ এপ্রিল ২০১৫ 
  2. "Pakistan in Sri Lanka Test Series, 2015"ESPNCricinfo। সংগ্রহের তারিখ ১১ এপ্রিল ২০১৫ 
  3. "Pakistan in Sri Lanka ODI Series, 2015"ESPNCricinfo। সংগ্রহের তারিখ ১১ এপ্রিল ২০১৫ 
  4. "Pakistan in Sri Lanka T20I Series, 2015"ESPNCricinfo। সংগ্রহের তারিখ ১১ এপ্রিল ২০১৫ 
  5. "Third Pakistan Test shifted to Pallekele"ESPNCricinfo। সংগ্রহের তারিখ ৮ মে ২০১৫ 
  6. "Mubarak back in Test squad for Pakistan series"ESPNcricinfo। ESPN Sports Media। ১০ জুন ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ১০ জুন ২০১৫ 
  7. "Shehzad, Masood picked for Sri Lanka Tests"ESPNcricinfo। ESPN Sports Media। ৩ জুন ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ৩ জুন ২০১৫ 
  8. "Uncapped Siriwardana, Pathirana in ODI squad"ESPNcricinfo। ESPN Sports Media। ৭ জুলাই ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ৭ জুলাই ২০১৫ 
  9. "Mohammad Irfan returns to ODI squad"ESPNcricinfo। ESPN Sports Media। ৩ জুলাই ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ৩ জুলাই ২০১৫ 
  10. "Shah spins Pakistan to victory in opening Test"Al-Jazeera। জুন ২১, ২০১৫। জুন ২১, ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ জুন ২১, ২০১৫ 
  11. "Sangakkara's golden duck, Sri Lanka's 50th home win"ESPN Cricinfo। সংগ্রহের তারিখ ২ জুলাই ২০১৫ 
  12. "Kaushal, Prasad bowl Pakistan out for 138"ESPN Cricinfo। সংগ্রহের তারিখ ২৫ জুন ২০১৫ 
  13. "Younis 171* gives Pakistan series in record chase"ESPN Cricinfo। সংগ্রহের তারিখ ৭ জুলাই ২০১৫ 
  14. "Pakistan soar to No. 3 in Tests"ESPN Cricinfo। সংগ্রহের তারিখ ৭ জুলাই ২০১৫ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]