২০১৬ অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট দলের শ্রীলঙ্কা সফর

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
২০১৬ অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট দলের শ্রীলঙ্কা সফর
Flag of Sri Lanka.svg
শ্রীলঙ্কা
Flag of Australia.svg
অস্ট্রেলিয়া
তারিখ ১৮ জুলাই ২০১৬ – ৯ সেপ্টেম্বর ২০১৬
অধিনায়ক অ্যাঞ্জেলো ম্যাথিউস (টেস্ট ও প্রথম চারটি ওডিআই)
দিনেশ চান্ডিমাল (৫ম ওডিআই ও টি২০আই)
স্টিভ স্মিথ (টেস্ট ও প্রথম দুটি ওডিআই)
ডেভিড ওয়ার্নার (৩য়, ৪র্থ, ৫ম ওডিআই ও টি২০আই)
টেস্ট সিরিজ
ফলাফল ৩-ম্যাচের সিরিজ শ্রীলঙ্কা ৩–০ তে জয়ী হয়
সর্বাধিক রান ধনঞ্জয় ডি সিলভা (৩২৫) স্টিভ স্মিথ (২৪৭)
সর্বাধিক উইকেট রঙ্গনা হেরাথ (২৮) মিচেল স্টার্ক (২৪)
সিরিজ সেরা রঙ্গনা হেরাথ (শ্রীলঙ্কা)
একদিনের আন্তর্জাতিক সিরিজ
ফলাফল ৫-ম্যাচের সিরিজ অস্ট্রেলিয়া ৪–১ এ জয়ী হয়
সর্বাধিক রান দিনেশ চান্ডিমাল (২৩৬) জর্জ বেইলি (২৭০)
সর্বাধিক উইকেট দিলরুয়ান পেরেরা (৯) মিচেল স্টার্ক (১২)
সিরিজ সেরা জর্জ বেইলি (অস্ট্রেলিয়া)
টুয়েন্টি২০ আন্তর্জাতিক সিরিজ
ফলাফল ২-ম্যাচের সিরিজ অস্ট্রেলিয়া ২–০ তে জয়ী হয়
সর্বাধিক রান ধনঞ্জয় ডি সিলভা (৭৪) গ্লেন ম্যাক্সওয়েল (২১১)
সর্বাধিক উইকেট সচিথ পথিরানা (৩) অ্যাডাম জাম্পা (৪)
জেমস ফকনার (৪)
মিচেল স্টার্ক (৪)
সিরিজ সেরা গ্লেন ম্যাক্সওয়েল (অস্ট্রেলিয়া)

অস্ট্রেলিয়া জাতীয় ক্রিকেট দল তিনটি টেস্ট ক্রিকেট, পাঁচটি একদিনের আন্তর্জাতিক এবং দুইটি টুয়েন্টি২০ আন্তর্জাতিক খেলার জন্য শ্রীলঙ্কা সফর করে, যা ১৮ জুলাই থেকে ৯ সেপ্টেম্বর ২০১৬-এ অনুষ্ঠিত হয়।

দলীয় সদস্য[সম্পাদনা]

টেস্ট ওডিআই টি২০আই
 শ্রীলঙ্কা[১]  অস্ট্রেলিয়া[২]  শ্রীলঙ্কা[৩]  অস্ট্রেলিয়া[৪]  শ্রীলঙ্কা[৫]  অস্ট্রেলিয়া[৬][৭]

প্রস্তুতিমূলক খেলা[সম্পাদনা]

প্রথম শ্রেণী: শ্রীলঙ্কা একাদশ বনাম অস্ট্রেলিয়া[সম্পাদনা]

১৮–২০ জুলাই ২০১৬
২২৯ (৫৭.২ ওভার)
আসেলা গুণারত্নে ৫৮ (১০৬)
স্টিভ ও’কিফ ৫/৪৩ (১২.২ ওভার)
৪৭৪ (১৩২.৩ ওভার)
স্টিভ ও’কিফ ৭৮ (১৩৯)
শিহান জয়াসুরিয়া ৫/১১০ (৩০ ওভার)
৮৩ (২০.৫ ওভার)
শিহান জয়াসুরিয়া ২৯ (৩১)
স্টিভ ও’কিফ ৫/২১ (৬.৫ ওভার)
অস্ট্রেলিয়া একটি ইনিংস এবং ১৬২ রানে দ্বারা জয়ী
পি. সারা ওভাল, কলম্বো
আম্পায়ার: হেমন্ত বোতুজু (শ্রীলঙ্কা) ও নিলন ডি সিলভা (শ্রীলঙ্কা)
  • শ্রীলঙ্কা একাদশ টসে জিতে ব্যাটিং করার সিদ্ধান্ত নেয়

টেস্ট সিরিজ[সম্পাদনা]

১ম টেস্ট[সম্পাদনা]

২৬–৩০ জুলাই ২০১৬
স্কোরকার্ড
১১৭ (৩৪.২ ওভার)
ধনঞ্জয় ডি সিলভা ২৪ (৩৮)
নাথান লায়ন ৩/১২ (৩ ওভার)
২০৩ (৭৯.২ ওভার)
এ্যাডাম ভোজেস ৪৭ (১১৫)
রঙ্গনা হেরাথ ৪/৪৯ (২৫ ওভার)
৩৫৩ (৯৩.৪ ওভার)
কুশল মেন্ডিস ১৭৬ (২৫৪)
মিচেল স্টার্ক ৪/৮৪ (১৯ ওভার)
১৬১ (৮৮.৩ ওভার)
স্টিভ স্মিথ ৫৫ (১২৫)
রঙ্গনা হেরাথ ৫/৫৪ (৩৩.৩ ওভার)
শ্রীলঙ্কা ১০৬ রানে জয়ী
পাল্লেকেলে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়াম, ক্যান্ডি
আম্পায়ার: রিচার্ড কেটেলবরা (ইংল্যান্ড) ও সুন্দরাম রবি (ভারত)
ম্যাচসেরা: কুশল মেন্ডিস (শ্রীলঙ্কা)
  • শ্রীলঙ্কা টসে জিতে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়।
  • খারাপ আলো এবং বৃষ্টির কারণে খেলা প্রথম চার দিন প্রথম দিকে শেষ হয়েছিল।
  • বৃষ্টিপাত ৪র্থ দিন এবং ৫ম দিনে এক ঘণ্টা খেলার শুরুতে বিলম্ব করেছিল।
  • ধনঞ্জয় ডি সিলভালক্ষ্মণ সন্দাকান (উভয় শ্রীলঙ্কা) তার তৈরি টেস্ট অভিষেক হয়।
  • ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেওয়ার পর টেস্টে শ্রীলঙ্কার প্রথম ইনিংসটি ছিল তাদের স্বল্পতম ইনিংস।
  • ধনঞ্জয় ডি সিলভা শ্রীলঙ্কার হয়ে প্রথম টেস্টে ছক্কা মেরে একটি টেস্ট ম্যাচে নাম্বার পাওয়া প্রথম খেলোয়াড় হয়েছিলেন।
  • কুশল মেন্ডিস অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে টেস্ট সেঞ্চুরি করা শ্রীলঙ্কার হয়ে সর্বকনিষ্ঠ খেলোয়াড় হয়েছেন।
  • নাথান লায়ন (অস্ট্রেলিয়া) তার ২০০তম টেস্ট উইকেট নেন।
  • লক্ষ্মণ সন্দাকানের (শ্রীলঙ্কা) ম্যাচের পরিসংখ্যানগুলি ৭-১০৭ এ দ্বারা সেরা চীনমান বোলার টেস্ট অভিষেক হয়।
  • পঞ্চম দিনে ড্র করার সময় ব্যাট করার চেষ্টা করার সময় নবম ও দশম উইকেটে অংশীদারিত্ব ছিল স্টিভ ও’কিফ, পিটার নেভিলজোশ হজলউড (অস্ট্রেলিয়া) একটি রান না করে টানা ২৫.৪ ওভারে একটি টেস্ট ক্রিকেটের রেকর্ডের মুখোমুখি।
  • সাতাশ টেস্টে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে এটিই শ্রীলঙ্কার দ্বিতীয় জয়।
  • স্টিভ স্মিথ অস্ট্রেলিয়ার অধিনায়ক হিসাবে প্রথম টেস্টে হেরে গেছেন।

২য় টেস্ট[সম্পাদনা]

৪–৮ আগস্ট ২০১৬
স্কোরকার্ড
২৮১ (৭৩.১ ওভার)
কুশল মেন্ডিস ৮৬ (১৩৭)
মিচেল স্টার্ক ৫/৪৪ (১৬.১ ওভার)
১০৬ (৩৩.২ ওভার)
ডেভিড ওয়ার্নার ৪২ (৪১)
দিলরুয়ান পেরেরা ৪/২৯ (১৫ ওভার)
২৩৭ (৫৯.৩ ওভার)
দিলরুয়ান পেরেরা ৬৪ (৮৯)
মিচেল স্টার্ক ৬/৫০ (১২.৩ ওভার)
১৮৩ (৫০.১ ওভার)
ডেভিড ওয়ার্নার ৪১ (৩১)
দিলরুয়ান পেরেরা ৬/৭০ (২৩ ওভার)
শ্রীলঙ্কা ২২৯ রানে জয়ী
গালে আন্তর্জাতিক স্টেডিয়াম, গালে
আম্পায়ার: ক্রিস গফানি (নিউজিল্যান্ড) ও রিচার্ড কেটেলবরা (ইংল্যান্ড)
ম্যাচসেরা: দিলরুয়ান পেরেরা (শ্রীলঙ্কা)
  • শ্রীলঙ্কা টসে জিতে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়।
  • বিশ্ব ফার্নান্দো (শ্রীলঙ্কা) ও জন হল্যান্ড (অস্ট্রেলিয়া) তার টেস্ট অভিষেক হয়।
  • এটি ছিল শ্রীলঙ্কার আড়াইশতম টেস্ট ম্যাচ।
  • মিচেল স্টার্ক (অস্ট্রেলিয়া) তার ১০০ তম টেস্ট উইকেট নিয়েছে এবং টেস্ট ম্যাচে প্রথম বলে উইকেট শিকারকারী 26 তম খেলোয়াড় হয়ে যায়।
  • টেস্টে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে অস্ট্রেলিয়ার প্রথম ইনিংসের মোট ১০৬ রান তাদের সর্বনিম্ন।
  • রঙ্গনা হেরাথ প্রথম শ্রীলঙ্কার স্পিনার, দ্বিতীয় শ্রীলঙ্কান, এবং প্রাপ্ত বয়স্কতম হয়েছেন হ্যাট্রিক একটি পরীক্ষায়।
  • মিচেল স্টার্ক শ্রীলঙ্কায় টেস্টে অস্ট্রেলিয়ান পেস বোলারের সেরা ম্যাচের পরিসংখ্যান নিয়েছেন।
  • দিলরুয়ান পেরেরা একই টেস্টে দশটি উইকেট শিকার এবং অর্ধশতক সংগ্রহকারী প্রথম শ্রীলঙ্কান হয়েছিলেন।
  • দিলরুয়ান পেরেরা শ্রীলঙ্কার দ্রুততম ৫০ উইকেট শিকারী বোলার হয়েছিলেন, এটি তার একাদশতম টেস্ট।
  • এই জয়ের সাথে সাথে এটি অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে শ্রীলঙ্কার প্রথম সিরিজ জয় ১৯৯৯
  • এটি এশিয়ার টেস্টে অস্ট্রেলিয়ার সরাসরি অষ্টম পরাজয়।

৩য় টেস্ট[সম্পাদনা]

১৩–১৭ আগস্ট ২০১৬
স্কোরকার্ড
৩৫৫ (১৪১.১ ওভার)
দিনেশ চান্ডিমাল ১৩২ (৩৫৬)
মিচেল স্টার্ক ৫/৬৩ (২৫.১ ওভার)
৩৭৯ (১২৫.১ ওভার)
শন মার্শ ১৩০ (২৮১)
রঙ্গনা হেরাথ ৬/৮১ (৩৮.১ ওভার)
৩৪৭/৮ডি (৯৯.৩ ওভার)
কৌশল সিলভা ১১৫ (২৬৯)
নাথান লায়ন ৪/১২৩ (৩৭ ওভার)
১৬০ (৪৪.১ ওভার)
ডেভিড ওয়ার্নার ৬৮ (৯৪)
রঙ্গনা হেরাথ ৭/৬৪ (১৮.১ ওভার)
শ্রীলঙ্কা ১৬৩ রানে জয়ী
সিংহলীজ স্পোর্টস ক্লাব গ্রাউন্ড, কলম্বো
আম্পায়ার: ক্রিস গফানি (নিউজিল্যান্ড) ও সুন্দরাম রবি (ভারত)
ম্যাচসেরা: রঙ্গনা হেরাথ (শ্রীলঙ্কা)
  • শ্রীলঙ্কা টসে জিতে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়।
  • ধনঞ্জয় ডি সিলভা (শ্রীলঙ্কা) তার প্রথম টেস্ট সেঞ্চুরি করেছিলেন।
  • মিচেল স্টার্ক (অস্ট্রেলিয়া) শ্রীলঙ্কায় টেস্ট সিরিজে তিনটি পাঁচ উইকেট শিকারকারী প্রথম ফাস্ট বোলার হয়েছিলেন এবং তিনি টানা তৃতীয় পাঁচ উইকেট শিকার করেছেন।
  • স্টিভ স্মিথ (অস্ট্রেলিয়া) ৪,০০০ টেস্টে সর্বোচ্চ রান সংগ্রহকারী অস্ট্রেলিয়ান হয়ে উঠল।
  • রঙ্গনা হেরাথ (শ্রীলঙ্কা) অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে একজন শ্রীলঙ্কার বোলারের হয়ে সেরা ম্যাচের চিত্র তুলেছিলেন।
  • রঙ্গনা হেরাথ (শ্রীলঙ্কা) টেস্টের চতুর্থ ইনিংসে তাঁর অষ্টম পাঁচ উইকেট শিকার, কোনও বোলারের পক্ষে সর্বাধিক।
  • টেস্টে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে শ্রীলঙ্কার এটি প্রথম সিরিজ হোয়াইটওয়াশ ছিল।

ওডিআই সিরিজ[সম্পাদনা]

১ম ওডিআই[সম্পাদনা]

২১ আগস্ট ২০১৬
১৪:৩০ (দিন/রাত)
স্কোরকার্ড
শ্রীলঙ্কা 
২২৭/৮ (৫০ ওভার)
 অস্ট্রেলিয়া
২২৮/৭ (৪৬।৫ ওভার)
দিনেশ চান্ডিমাল ৮০(* (১১৮)
জেমস ফকনার ৪/৩৮ (১০ ওভার)

২য় ওডিআই[সম্পাদনা]

২৪ আগস্ট ২০১৬
১৪:৩০ (দিন/রাত)
স্কোরকার্ড
শ্রীলঙ্কা 
২৮৮ (৪৮.৫ ওভার)
 অস্ট্রেলিয়া
২০৬ (৪৭.২ ওভার)
কুশল মেন্ডিস ৬৯ (৬৯)
অ্যাডাম জাম্পা ৩/৪২ (১০ ওভার)
ম্যাথু ওয়েড ৭৬ (৮৮)
আমিলা আপন্সো ৪/১৪ (৯.২ ওভার)
  • শ্রীলঙ্কা টসে জিতে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়।
  • জেমস ফকনার (অস্ট্রেলিয়া) নিয়েছিল হ্যাট্রিক
  • অ্যাঞ্জেলো ম্যাথিউস (শ্রীলঙ্কা) শ্রীলঙ্কায় নিজের ৫০তম ওয়ানডে উইকেট নিয়েছিলেন।
  • ওয়ানডেতে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে রানের দিক থেকে শ্রীলঙ্কার এটি ছিল সবচেয়ে বড় জয়।

৩য় ওডিআই[সম্পাদনা]

২৮ আগস্ট ২০১৬
১৪:৩০ (দিন/রাত)
স্কোরকার্ড
শ্রীলঙ্কা 
২২৬ (৪৯.২ ওভার)
 অস্ট্রেলিয়া
২২৭/৮ (৪৬ ওভার)
দিনেশ চান্ডিমাল ১০২ (১৩০)
অ্যাডাম জাম্পা ৩/৩৮ (১০ ওভার)
  • শ্রীলঙ্কা টসে জিতে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়।
  • এটি ছয় বছরে ডাম্বুলায় অনুষ্ঠিত প্রথম দিন-রাতের ওয়ানডে।
  • এটিই তিলকরত্নে দিলশানের (শ্রীলঙ্কা) চূড়ান্ত ওয়ানডে উপস্থিতি।
  • দিনেশ চান্ডিমাল (শ্রীলঙ্কা) শ্রীলঙ্কায় প্রথম ওয়ানডে সেঞ্চুরি করেছিলেন তিনি।
  • ওয়ানডেতে ডাম্বুলায় শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে এটিই ছিল সর্বোচ্চ সফল রান তাড়া।
  • এটি ওয়ানডেতে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে উইকেটের দিক থেকেও অস্ট্রেলিয়ানদের সংক্ষিপ্ত জয় ছিল।

৪র্থ ওডিআই[সম্পাদনা]

৩১ আগস্ট ২০১৬
১৪:৩০ (দিন/রাত)
স্কোরকার্ড
শ্রীলঙ্কা 
২১২ (৫০ ওভার)
 অস্ট্রেলিয়া
২১৭/৪ (৩১ ওভার)
ধনঞ্জয় ডি সিলভা ৭৬ (৮৭)
জন হেস্টিংস ৬/৪৫ (১০ ওভার)
জর্জ বেইলি ৯০* (৮৫)
সচিথ পথিরানা ৩/৩৭ (৮ ওভার)
  • শ্রীলঙ্কা টসে জিতে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়।
  • অভিষ্কা ফার্নান্দো (শ্রীলঙ্কা) তার ওডিআই অভিষেক হয়।
  • জন হেস্টিংস (অস্ট্রেলিয়া) ওডিআইতে তার প্রথম পাঁচ-উইকেট নিয়েছিল।
  • অ্যারন ফিঞ্চ ওয়ানডেতে অস্ট্রেলিয়ান ব্যাটসম্যানের দ্বারা দ্রুততম ফিফটিসের রেকর্ডটির সমতুল্য হন।

৫ম ওডিআই[সম্পাদনা]

৪ সেপ্টেম্বর ২০১৬
১৪:৩০ (দিন/রাত)
স্কোরকার্ড
শ্রীলঙ্কা 
১৯৫ (৪০.২ ওভার)
 অস্ট্রেলিয়া
১৯৯/৫ (৪৩ ওভার)
  • শ্রীলঙ্কা টসে জিতে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়।
  • ডেভিড ওয়ার্নার ওয়ানডেতে শ্রীলঙ্কায় অস্ট্রেলিয়ান ব্যাটসম্যানদের দ্বারা প্রথম সেঞ্চুরি করেছিলেন।

টি২০আই সিরিজ[সম্পাদনা]

১ম টি২০আই[সম্পাদনা]

৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯
১৯:০০ (দিন/রাত)
স্কোরকার্ড
অস্ট্রেলিয়া 
২৬৩/৩ (২০ ওভার)
 শ্রীলঙ্কা
১৭৮/৯ (২০ ওভার)
  • শ্রীলঙ্কা টসে জিতে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়।
  • সচিথ পথিরানা (শ্রীলঙ্কা) তার টি২০আই অভিষেক হয়।
  • অস্ট্রেলিয়া টি২০আইতে সর্বোচ্চ দলীয় স্কোর করে, যা ২০০৭ সালে শ্রীলঙ্কার করা পূর্ববর্তী সর্বোচ্চ স্কোর ২৬০/৬ কে অতিক্রম করে।[৮]
  • গ্লেন ম্যাক্সওয়েল (অস্ট্রেলিয়া) তার প্রথম টি২০আই শতক করেন।[৮]
  • গ্লেন ম্যাক্সওয়েল (অস্ট্রেলিয়া) হন প্রথম ব্যক্তি যিনি একজন ওপেনার হিসেবে তার প্রথম টি২০আই ইনিংসে সেঞ্চুরি করার কৃতিত্ব অর্জন করেন।[৮]
  • এটি টি২০আইতে শ্রীলঙ্কার সবচেয়ে বড় পরাজয়।[৮]

২য় টি২০আই[সম্পাদনা]

৯ সেপ্টেম্বর ২০১৬
১৯:০০ (দিন/রাত)
স্কোরকার্ড
শ্রীলঙ্কা 
১২৮/৯ (২০ ওভার)
 অস্ট্রেলিয়া
১৩০/৬ (১৭.৫ ওভার)
  • শ্রীলঙ্কা টসে জিতে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়।
  • এটি তিলকরত্নে দিলশান-এর (শ্রীলঙ্কা) সর্বশেষ টি২০আই ও সর্বশেষ আন্তর্জাতিক ম্যাচ ছিল।[৯]
  • গ্লেন ম্যাক্সওয়েল একজন অস্ট্রেলীয় হিসেবে সমান দ্রুততম টি২০আই পঞ্চাশ রান করেন (১৮ বল)।[১০]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Siriwardana left out of Sri Lanka squad for first Test"ইএসপিএন ক্রিকইনফো (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২১ জুলাই ২০১৬ 
  2. "Henriques, fit-again Starc recalled for Sri Lanka tour"ইএসপিএন ক্রিকইনফো (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২৪ মে ২০১৬ 
  3. "Sri Lanka pick 18-year-old Avishka Fernando in ODI squad"ইএসপিএন ক্রিকইনফো (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ১৯ আগস্ট ২০১৬ 
  4. "Maxwell dropped from ODI squad"ইএসপিএন ক্রিকইনফো (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ৩১ জুলাই ২০১৬ 
  5. "Kasun Rajitha picked for T20s against Australia"ইএসপিএন ক্রিকইনফো (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ৫ সেপ্টেম্বর ২০১৬ 
  6. "Injured Coulter-Nile out of Sri Lanka tour"ইএসপিএন ক্রিকইনফো (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২৫ আগস্ট ২০১৬ 
  7. "Lynn and Finch out of Sri Lanka T20s"ইএসপিএন ক্রিকইনফো (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ৪ সেপ্টেম্বর ২০১৬ 
  8. "Australia set new record, narrow miss for Maxwell"ইএসপিএন ক্রিকইনফো (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ৬ সেপ্টেম্বর ২০১৬ 
  9. "Dilshan set for swansong against firing Australia"ইএসপিএন ক্রিকইনফো (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ৯ সেপ্টেম্বর ২০১৬ 
  10. "Record Maxwell fifty powers Australia sweep"ইএসপিএন ক্রিকইনফো (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ৯ সেপ্টেম্বর ২০১৬ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]