হাম্বানটোটা

স্থানাঙ্ক: ০৬°০৭′২৮″ উত্তর ৮১°০৭′২১″ পূর্ব / ৬.১২৪৪৪° উত্তর ৮১.১২২৫০° পূর্ব / 6.12444; 81.12250
উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
হাম্বানটোটা
හම්බන්තොට
அம்பாந்தோட்டை
শহর
হাম্বানটোটা প্রশাসনিক কমপ্লেক্স
হাম্বানটোটা প্রশাসনিক কমপ্লেক্স
হাম্বানটোটা শ্রীলঙ্কা-এ অবস্থিত
হাম্বানটোটা
হাম্বানটোটা
শ্রীলঙ্কায় অবস্থান
স্থানাঙ্ক: ০৬°০৭′২৮″ উত্তর ৮১°০৭′২১″ পূর্ব / ৬.১২৪৪৪° উত্তর ৮১.১২২৫০° পূর্ব / 6.12444; 81.12250
দেশশ্রীলঙ্কা
প্রদেশ দক্ষিণ প্রদেশ
জেলাহাম্বানটোটা জেলা
উচ্চতা১ মিটার (৩ ফুট)
জনসংখ্যা (২০১২)
 • মোট৮,২৮৩
এলাকা কোড০৪৭

হাম্বানটোটা (সিংহলি: හම්බන්තොට, তামিল: அம்பாந்தோட்டை) শ্রীলঙ্কার দক্ষিণ প্রদেশের হাম্বানটোটা জেলার প্রধান শহর। এই অনুন্নত এলাকাটি ২০০৪ সালের ভারত মহাসাগরের সুনামির ফলে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছিল। শহরটি ২০১৩ সালে সমাপ্ত হওয়া একটি নতুন সমুদ্র বন্দর মগমপুর মাহিন্দ রাজাপক্ষে বন্দর এবং মাত্তালা রাজাপক্ষ আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর নির্মাণ সহ বেশ কয়েকটি বড় উন্নয়ন প্রকল্পের মধ্য দিয়ে যাচ্ছে। এই প্রকল্পগুলো এবং হাম্বানটোটার মহিন্দ রাজাপক্ষ আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামের মতো অন্যান্য প্রকল্পগুলো কলম্বো থেকে দূরে হাম্বানটোটাকে শ্রীলঙ্কার দ্বিতীয় প্রধান নগর-কেন্দ্রে রূপান্তরিত করার জন্য সরকারের পরিকল্পনার অংশ বলে মনে করা হয়।[১]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

রুহুনার রাজ্য প্রতিষ্ঠিত হওয়ার পর এটি শ্যাম, চীন এবং ইন্দোনেশিয়া থেকে অনেক ভ্রমণকারী এবং ব্যবসায়ীকে পেয়েছিল। তারা গোদাওয়ায়া, আম্বালানটোটাতে প্রাকৃতিক বন্দরে নোঙর করার চেষ্টা করেছিল। এই ব্যবসায়ীরা যে জাহাজ বা বড় নৌকায় যাতায়াত করতেন তাদের বলা হত "সাম্পান"। অন্যদিকে থোটা শব্দের অর্থ হচ্ছে বন্দর বা নোঙর করার জায়গা। তাই বন্দরের যেখানে সাম্পান নোঙর করে সেটি সাম্পানটোটা (যা এখন গোদাওয়ায়া নামে পরিচিত) নামে পরিচিত। কিছুকাল পরে মানুষের মুখে মুখে এলাকাটির নাম হয় হাম্বানটোটা[২]

প্রাচীন হাম্বানটোটা[সম্পাদনা]

হাম্বানটোটা জেলা রুহুনা নামে পরিচিত ঐতিহ্যবাহী দক্ষিণের অংশ। প্রাচীনকালে এই অঞ্চল, বিশেষ করে হাম্বানটোটা এবং পার্শ্ববর্তী অঞ্চলগুলি একটি সমৃদ্ধ সভ্যতার কেন্দ্র ছিল। ঐতিহাসিক প্রমাণ থেকে জানা যায় যে সেই যুগে অঞ্চলটি উর্বর ক্ষেত্র এবং একটি দুর্দান্ত সেচ ব্যবস্থা দ্বারা আশীর্বাদতুষ্ট ছিল। শহরটি হাম্বানটোটা মহাগামা, রুহুনা এবং দোলোস দাহস রাটা নামেও পরিচিত ছিল।

প্রায় ২০০ খ্রিস্টপূর্বাব্দে, অনুরাধাপুরার উত্তর মধ্যাঞ্চলে শ্রীলঙ্কার প্রথম রাজ্যের বিকাশ ঘটেছিল।

অনুরাধাপুরার রাজা দেবানম্পিয়াতিসার সাথে তার ভাইয়ের সাথে ব্যক্তিগত বিরোধের পর রাজা মহানাগা দ্বীপের দক্ষিণে রুহুনা রাজ্য প্রতিষ্ঠা করেন। এই অঞ্চলটি জাতি গঠনের পাশাপাশি শ্রীলঙ্কার বৌদ্ধ সংস্কৃতি লালন-পালনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছে। হাম্বানটোটার কাছে অবস্থিত তিসামহারামের বিশাল মন্দিরটি বৌদ্ধের একটি পবিত্র দাঁতের অবশেষ রাখার জন্য নির্মিত হয়েছিল।[৩]

আধুনিক ইতিহাস[সম্পাদনা]

১৮০১ এবং ১৮০৩ সালের দিকে, ব্রিটিশরা হাম্বানটোটায় সমুদ্রের দিকে তাক করে করে বাতিঘর নির্মানের পাশাপাশি পাথুরে হেডল্যান্ডের ডগায় একটি মার্টেলো টাওয়ার তৈরি করেছিল। এর নির্মাতা ছিলেন একজন ক্যাপ্টেন গোপার। তিনি পূর্বের ডাচ মাটির দুর্গের জায়গায় টাওয়ারটি তৈরি করেছিলেন। টাওয়ারটি ১৯৯৯ সালে পুনরুদ্ধার করা হয়েছিল। এর আগে এটি হাম্বানটোটা কচ্ছেরির একটি অফিসের একটি অংশ হিসেবে এখানে একটি ভূমি রেজিস্ট্রি শাখা ছিল। বর্তমানে এখানে একটি মৎস্য জাদুঘর রয়েছে।

১৮০৩ সালের ২ আগস্ট থেকে ৯ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত, সিলনের স্থানীয় পদাতিক বাহিনীর রেজিমেন্টের একজন এনসাইন জে. প্রিন্ডারগাস্ট একটি কান্দিয়ান আক্রমণের সময় হাম্বানটোটায় ব্রিটিশ উপনিবেশের কমান্ডে ছিলেন। তিনি তুষার জাহাজ মিনার্ভার সহায়তায় এই আক্রমণ প্রতিহত করতে সক্ষম হন।[৪] এর আগে, ডাচ নৌ-বহর এইচএমএস উইলহেলমিনা সেখানে স্পর্শ করেছিল এবং তাকে শক্তিশালী করার জন্য রয়্যাল আর্টিলারি থেকে তিনি আটজন লোককে ছেড়ে দিয়েছিলেন। এই বিচ্ছিন্নতা প্রেন্ডারগাস্টের উপনিবেশের সফল প্রতিরক্ষায় অংশগ্রহণ করেছিল।[৫] হাম্বানটোটার টাওয়ারটি যদি কোনো আক্রমণ প্রতিহত করার জন্য আদৌ ব্যবহৃত হয়ে থাকে তবে এটিই হচ্ছে একমাত্র ঘটনা যেখানে ব্রিটিশ মার্টেলো টাওয়ার যুদ্ধে জড়িত ছিল।

ভার্জিনিয়া উলফের ভবিতব্য স্বামী লিওনার্ড উলফ ১৯০৮ থেকে ১৯১১ সালের মধ্যে হাম্বানটোটায় ব্রিটিশ ঔপনিবেশিক প্রশাসক ছিলেন।

২০০৪ ভারত মহাসাগরের ভূমিকম্প[সম্পাদনা]

২০০৪ ভারত মহাসাগরের সুনামি হাম্বানটোটাকে বিধ্বস্ত করেছিল এবং ৪৫০০ জনেরও বেশি মানুষ নিহত হয়েছিল বলে জানা গেছে।[৬]

জলবায়ু[সম্পাদনা]

হাম্বানটোটা কোপেন জলবায়ু শ্রেণীবিভাগের অধীনে একটি গ্রীষ্মমন্ডলীয় আর্দ্র এবং শুষ্ক জলবায়ু (এডব্লিউ) বৈশিষ্ট্যযুক্ত। কোনো সত্যিকারের শুষ্ক মৌসুম নেই, তবে জানুয়ারি থেকে মার্চ এবং আবার জুন থেকে আগস্ট পর্যন্ত উল্লেখযোগ্যভাবে কম বৃষ্টিপাত হয়। অক্টোবর এবং নভেম্বরে সবচেয়ে ভারী বৃষ্টিপাত হয়। শহরটি গড়ে প্রায় ১,০৫০ মিলিমিটার (৪১ ইঞ্চি) বার্ষিক বর্ষণ। হাম্বানটোটায় গড় তাপমাত্রা সারা বছর জানুয়ারিতে ২৬.৩ °সে (৭৯.৩ °ফা) থেকে ২৮.১ °সে (৮২.৬ °ফা) এপ্রিল এবং মে মাসে সামান্য পরিবর্তিত হয়।

হাম্বানটোটা (১৯৬১–১৯৯০, সর্বোচ্চ ১৮৬৯–২০২১)-এর আবহাওয়া সংক্রান্ত তথ্য
মাস জানু ফেব্রু মার্চ এপ্রিল মে জুন জুলাই আগস্ট সেপ্টে অক্টো নভে ডিসে বছর
সর্বোচ্চ রেকর্ড °সে (°ফা) ৩৪.৭
(৯৪.৫)
৩৫.১
(৯৫.২)
৩৬.০
(৯৬.৮)
৩৬.০
(৯৬.৮)
৩৬.৪
(৯৭.৫)
৩৭.২
(৯৯.০)
৩৬.২
(৯৭.২)
৩৯.২
(১০২.৬)
৩৬.০
(৯৬.৮)
৩৬.৯
(৯৮.৪)
৩৬.৭
(৯৮.১)
৩৪.৮
(৯৪.৬)
৩৯.২
(১০২.৬)
সর্বোচ্চ গড় °সে (°ফা) ২৯.৮
(৮৫.৬)
৩০.২
(৮৬.৪)
৩০.৯
(৮৭.৬)
৩১.২
(৮৮.২)
৩০.৭
(৮৭.৩)
৩০.৩
(৮৬.৫)
৩০.৬
(৮৭.১)
৩০.১
(৮৬.২)
২৯.৯
(৮৫.৮)
৩০.১
(৮৬.২)
২৯.৯
(৮৫.৮)
২৯.৬
(৮৫.৩)
৩০.৩
(৮৬.৫)
দৈনিক গড় °সে (°ফা) ২৬.৩
(৭৯.৩)
২৬.৬
(৭৯.৯)
২৭.৪
(৮১.৩)
২৮.১
(৮২.৬)
২৮.১
(৮২.৬)
২৭.৭
(৮১.৯)
২৭.৬
(৮১.৭)
২৭.৪
(৮১.৩)
২৭.২
(৮১.০)
২৭.১
(৮০.৮)
২৬.৮
(৮০.২)
২৬.৫
(৭৯.৭)
২৭.২
(৮১.০)
সর্বনিম্ন গড় °সে (°ফা) ২২.৮
(৭৩.০)
২৩.০
(৭৩.৪)
২৩.৯
(৭৫.০)
২৫.০
(৭৭.০)
২৫.৫
(৭৭.৯)
২৫.১
(৭৭.২)
২৪.৭
(৭৬.৫)
২৪.৬
(৭৬.৩)
২৪.৫
(৭৬.১)
২৪.২
(৭৫.৬)
২৩.৬
(৭৪.৫)
২৩.৩
(৭৩.৯)
২৪.২
(৭৫.৬)
সর্বনিম্ন রেকর্ড °সে (°ফা) ১৭.৭
(৬৩.৯)
১৫.৬
(৬০.১)
১৭.৪
(৬৩.৩)
১৮.৯
(৬৬.০)
১৯.৫
(৬৭.১)
২১.২
(৭০.২)
২১.২
(৭০.২)
২০.১
(৬৮.২)
২০.৬
(৬৯.১)
২০.২
(৬৮.৪)
১৯.৬
(৬৭.৩)
১৮.২
(৬৪.৮)
১৫.৬
(৬০.১)
অধঃক্ষেপণের গড় মিমি (ইঞ্চি) ৫৮
(২.৩)
৪৭
(১.৯)
৬৬
(২.৬)
৯৫
(৩.৭)
৮৯
(৩.৫)
৫৯
(২.৩)
৪৮
(১.৯)
৫৫
(২.২)
৭১
(২.৮)
১৫১
(৫.৯)
১৮৮
(৭.৪)
১১৮
(৪.৬)
১,০৪৫
(৪১.১)
অধঃক্ষেপণ দিনগুলির গড় (≥ ১.০ mm) ১০ ১২ ৮৫
আপেক্ষিক আদ্রতার গড় (%) (Daytime) ৭১ ৭১ ৭২ ৭৫ ৭৮ ৭৭ ৭৫ ৭৬ ৭৭ ৭৬ ৭৭ ৭৬ ৭৫
মাসিক সূর্যালোক ঘণ্টার গড় ২০৭.৭ ২০০.৬ ২৪৮.০ ২৩৭.০ ২৩৫.৬ ২০১.০ ২০৪.৬ ২০১.৫ ২০৭.০ ১৯২.২ ১৮৯.০ ২১৭.০ ২,৫৪১.২
দৈনিক সূর্যালোক ঘণ্টার গড় ৬.৭ ৭.১ ৮.০ ৭.৯ ৭.৬ ৬.৭ ৬.৬ ৬.৫ ৬.৯ ৬.২ ৬.৩ ৭.০ ৭.০
উৎস ১: NOAA[৭]
উৎস ২: Deutscher Wetterdienst (precipitation days, 1968–1990 and sun, 1962–1977),[৮] Meteo Climat (record highs and lows)[৯]

জনসংখ্যা[সম্পাদনা]

হাম্বানটোটা শহর বৌদ্ধ সংখ্যাগরিষ্ঠ। ইসলাম শহরের দ্বিতীয় বৃহত্তম ধর্ম। খ্রিস্টানহিন্দুদের সংখ্যাও কম।

হাম্বানটোটায় ধর্ম[১০]

   বৌদ্ধ (৫৪.০৭%)
   মুসলিম (৪০.৪২%)
   হিন্দু (৩.১৫%)
  অন্যান্য (০.০১%)

অর্থনীতি এবং অবকাঠামো[সম্পাদনা]

এখানে একটি সিমেন্ট গ্রাইন্ডিং এবং ব্যাগিং কারখানা এবং সেইসাথে সার ব্যাগিং প্ল্যান্ট স্থাপন করা হচ্ছে। বড় লবণ সমভূমি হাম্বানটোটার একটি বিশিষ্ট বৈশিষ্ট্য। শহরটি লবণের অন্যতম প্রধান উৎপাদক।[১১] প্রধানমন্ত্রী রনিল বিক্রমাসিংহে ৬,১০০ হেক্টর (১৫,০০০ একর) একটি বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চলের প্রস্তাব করেছেন, যার মধ্যে প্রায় ৫০০ হেক্টর (১,২৩৫ একর) হাম্বানটোটায় কারখানা, এলএনজি এবং তেল শোধনাগার নির্মাণের জন্য হাম্বানটোটায় অবস্থিত হবে এবং বাকিগুলো মোনারাগালা, এমবিলিপিটিয়া এবং মাতারায় থাকবে।[১২][১৩][১৪] ২০১৭ সালে প্রধানমন্ত্রী রনিল বিক্রমাসিংহে চীনের সাথে এসইজেডের জন্য প্রয়োজনীয় কর্মীদের প্রশিক্ষণের জন্য একটি বৃত্তিমূলক প্রশিক্ষণ কেন্দ্র চালু করেছিলেন।[১৫] বিক্রমাসিংহে রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন চীন মার্চেন্টস পোর্ট হোল্ডিংসের সাথে কৌশলগতভাবে অবস্থিত হাম্বানটোটা বন্দরের ৭০ শতাংশ অংশীদারিত্ব ১.১২ বিলিয়ন ডলারে ইজারা নেওয়ার জন্য একটি চুক্তিতে এসেছিলেন, যা হাম্বানটোটা বেল্ট অ্যান্ড রোড ইনিশিয়েটিভের কাছে উন্মুক্ত করে দেয়।[১৬]

পরিবহন[সম্পাদনা]

বায়ু[সম্পাদনা]

মাত্তালা রাজাপাকসে আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর (এমআরআইএ) হাম্বানটোটার ১৮ কিমি (১১ মা) উত্তরে মাত্তালা শহরে অবস্থিত। ২০১৩ সালের মার্চ মাসে এটি চালু হয়। এটি কলম্বোতে বন্দরনায়েকে আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের পরে শ্রীলঙ্কার দ্বিতীয় আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর[১৭] ওয়েরাভিলা বিমানবন্দরও হাম্বানটোটার কাছাকাছি অবস্থিত।[১৮]

রাস্তা[সম্পাদনা]

এ২ হাইওয়ে গালে এবং মাতারার মাধ্যমে কলম্বোকে হাম্বানটোটা শহরের সাথে সংযুক্ত করেছে। কোটাওয়া থেকে মাতারা পর্যন্ত দক্ষিণের এক্সপ্রেসওয়ে বেলিয়াট্টা হয়ে হাম্বানটোটার সাথে সংযুক্ত হবে।

রেল[সম্পাদনা]

মাতারা-কাতারাগামা রেলওয়ে লাইন প্রকল্পে ২০০৬ সালে নির্মাণ কাজ শুরু হয়। এটি একটি ব্রডগেজ রেলপথ যা আনুমানিক $৯১ মিলিয়নের ব্যয়ে বাস্তবায়িত হচ্ছে।[১৯]

শক্তি[সম্পাদনা]

হামবানথোটা উইন্ড ফার্মে এনইজি মিকন এম১৫০০-৬০০ উইন্ড টারবাইন

হাম্বানটোটা উইন্ড ফার্ম হল শ্রীলঙ্কার প্রথম বায়ু খামার (আরও দুটি বাণিজ্যিক বায়ু খামার রয়েছে)।[২০] এটি দ্বীপরাষ্ট্রে বায়ু শক্তি উৎপাদন পরীক্ষা করার জন্য একটি পাইলট প্রকল্প।[২১] বায়ু শক্তির উন্নয়ন দরিদ্র রাস্তা এবং একটি অস্থিতিশীল পাওয়ার গ্রিডের মতো অপরিমেয় বাধার মুখোমুখি হয়। সিইবি-র ট্রান্সমিশন নেটওয়ার্ক ডেভেলপমেন্ট প্ল্যানের সাথে, হাম্বানটোটায় প্রথম ২২০ কেভি গ্রিড সাবস্টেশন নির্মাণাধীন রয়েছে, এটি ২০২২ সালের মধ্যে জাতীয় গ্রিডের সাথে সংযুক্ত হবে। সিএইচআইএনটি ইলেকট্রিক প্রধান ঠিকাদার এবং মিনেল লঙ্কা জাতীয় ঠিকাদার যে নকশা, সিভিল নির্মাণ এবং বৈদ্যুতিক ইনস্টলেশন কাজ সঞ্চালিত হয়। এই সাবস্টেশনটি তিরথাই থেকে ২২০/১৩২/৩৩ কেভি ৮৩.৩৩ এমভিএ পাওয়ার ট্রান্সফরমারগুলির ৬ ইউনিটসহ ৫০০ এমভিএ পরিচালনা করবে।[২২]

বন্দর[সম্পাদনা]

হাম্বানটোটা বন্দর

হাম্বানটোটা শহরটি একটি নতুন আন্তর্জাতিক বন্দর হাম্বানটোটা সমুদ্র বন্দরের জন্য নির্বাচিত স্থান। এটি ৩৬০ মিলিয়ন ডলার ব্যয়ে ২০১০ সালের শেষ নাগাদ শেষ হওয়ার কারণে প্রথম পর্যায়টি তিনটি পর্যায়ে নির্মিত হওয়ার কথা ছিল।[২৩] বন্দরের অংশ হিসাবে, ভারত, চীন, রাশিয়া এবং দুবাইয়ের কোম্পানিগুলো জোনে জাহাজ নির্মাণ, জাহাজ মেরামত এবং গুদামজাতকরণ সুবিধা স্থাপনে আগ্রহ প্রকাশ করার সাথে $৫৫০ মিলিয়ন ডলারের কর-মুক্ত পোর্ট জোন শুরু করা হচ্ছে। নির্মাণের প্রথম পর্যায়ের শেষে ১৮ নভেম্বর, ২০১০ তারিখে আনুষ্ঠানিকভাবে বন্দরটি খোলা হয়।[২৪] সমস্ত পর্যায় সম্পূর্ণরূপে সম্পন্ন হলে, এটি ৩৩টি জাহাজ বার্থ করতে সক্ষম হবে, যা এটিকে দক্ষিণ এশিয়ার বৃহত্তম বন্দরে পরিণত করবে।[২৫]

বন্দরের বাঙ্কারিং সুবিধা হচ্ছে মোট ৮০,০০০ মি (২৮,০০,০০০ ঘনফুট) ধারণক্ষমতা সহ ১৪টি ট্যাঙ্ক (৮টি তেল, ৩টি বিমান জ্বালানি এবং ৩টি এলপি গ্যাসের জন্য)। কিন্তু পুরো ২০১২ সালে হাম্বানটোটাতে মাত্র ৩৪টি জাহাজ ছিল, যেখানে কলম্বো বন্দরে ৩,৬৬৭টি জাহাজ ছিল।[২৬] বন্দরের খরচের জন্য শ্রীলঙ্কা তখনও চীনের কাছে অনেক বেশি ঋণে ছিল এবং এত কম যানবাহনের কারণে ঋণ পরিশোধ করতে পারেনি।[২৭] ২০১৭ সালে চীনকে ১.১ বিলিয়ন ডলারের বিনিময়ে বন্দরের জন্য ৯৯ বছরের লিজ দেওয়া হয়েছিল।[২৮]

হাম্বানটোটা বন্দরের উন্নয়নে চীনা সংস্থাগুলির জড়িত থাকার কারণে কিছু বিশ্লেষক দাবি করেছেন যে এটি চীনের স্ট্রিং অফ পার্লস কৌশলের অংশ। অন্যান্য বিশ্লেষকরা যুক্তি দেখিয়েছেন যে চীনা নৌবাহিনীকে বন্দরে প্রবেশের অনুমতি দেওয়া শ্রীলঙ্কার স্বার্থে হবে না এবং যাই হোক না কেন, বন্দরের উন্মুক্ত প্রকৃতি সংঘাতের সময় এটি চীনের কাছে সন্দেহজনক মূল্যের করে তুলবে।[২৯]

নভেম্বর ২০১৯-এ, রাষ্ট্রপতি গোটাবায়া রাজাপাকসে ইঙ্গিত দিয়েছিলেন যে শ্রীলঙ্কা সরকার বন্দরের ৯৯ বছরের ইজারা পূর্বাবস্থায় ফিরিয়ে আনতে এবং মূল ঋণ পরিশোধের সময়সূচীতে ফিরে যাওয়ার চেষ্টা করবে।[৩০][৩১] আগস্ট ২০২০ পর্যন্ত ৯৯ বছরের ইজারা তখনও বহাল ছিল।[৩২]

সংস্কৃতি[সম্পাদনা]

হাম্বানটোটাতে ক্রীড়া কার্যক্রমের জন্য মাহিন্দা রাজাপাকসে আন্তর্জাতিক স্টেডিয়াম রয়েছে। এটির ধারণক্ষমতা ৩৫,০০০ আসন এবং এটি ২০১১ ক্রিকেট বিশ্বকাপের জন্য নির্মিত হয়েছিল। এই প্রকল্পের খরচ আনুমানিক ৯০০ মিলিয়ন ভারতীয় টাকা ($৭.৮৬ মিলিয়ন)। শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট ২০১১ ক্রিকেট বিশ্বকাপের জন্য অবকাঠামো নির্মাণে তার ঋণ থেকে মুক্তি চাইছে।[৩৩]

মাগাম রুহুনুপুরা আন্তর্জাতিক সম্মেলন হল (এমআরআইএইচ) স্থানীয় ও আন্তর্জাতিক অনুষ্ঠানের জন্য নির্মিত হয়েছিল। সিরিবোপুরায় ২৮ একর জমির মধ্যে অবস্থিত এমআরআইএইচ শ্রীলঙ্কার দ্বিতীয় আন্তর্জাতিক সম্মেলন হল। প্রধান হলটিতে ১,৫০০ টি আসন রয়েছে এবং তিনটি অতিরিক্ত হল রয়েছে যার প্রতিটিতে ২৫০ টি আসন ধারণক্ষমতা রয়েছে। কনফারেন্স হলটি সম্পূর্ণরূপে আধুনিক প্রযুক্তিগত সুবিধা এবং ৪০০ টি যানবাহনের জন্য একটি যানবাহন পার্ক এবং হেলিকপ্টার অবতরণের জন্য একটি হেলিপ্যাড দিয়ে সজ্জিত।

২০১০ সালের ৩১ শে মার্চ, হাম্বানটোটা দ্বারা ২০১৮ কমনওয়েলথ গেমসের জন্য একটি চমকপ্রদ বিড করা হয়েছিল। সুনামির পর থেকে হাম্বানটোটা একটি বড় মুখ উত্তোলনের মধ্য দিয়ে যাচ্ছে। ২০১১ সালের ১০ ই নভেম্বর, হাম্বানটোটা দরদাতারা দাবি করেছিল যে তারা ইতোমধ্যে হোস্টিং স্বত্ব অর্জনের জন্য যথেষ্ট ভোট অর্জন করেছে।[৩৪] যাইহোক, ১১ নভেম্বর আনুষ্ঠানিকভাবে ঘোষণা করা হয় যে গোল্ড কোস্ট সিটি গেমস আয়োজনের অধিকার জিতেছে।[৩৫][৩৬]

জোড়া শহর[সম্পাদনা]

হাম্বানটোটা ২০০৭ সাল থেকে[৩৭] চীনের গুয়াংজুর সাথে যুগল।

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Fernando, Andrew Fidel (এপ্রিল ৫, ২০১৩)। "SLC expects financial assistance from government"ESPNCricinfo। সংগ্রহের তারিখ ৫ এপ্রিল ২০১৩ 
  2. "Hambantota"। Hambantota District Chamber of Commerce। ৫ এপ্রিল ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩০ এপ্রিল ২০১১ 
  3. "Hambantota District. Hambantota: Sri Lanka's Deep South"। ২০১৬-০৩-০৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১২-০৭-২৫ 
  4. The Asiatic annual register, or, A View of the history of …, Volume 8, Issue 1, p.74.
  5. Stubbs, Francis W. (জানুয়ারি ২০১০)। History of the Organization, Equipment, and War Services of the Regiment of Bengal ArtilleryGeneral Books। পৃষ্ঠা 165। আইএসবিএন 978-1-150-23818-5 
  6. "Divisions over tsunami new town"। BBC। ১৭ মার্চ ২০০৫। সংগ্রহের তারিখ ৮ মার্চ ২০১৬ 
  7. "Climate Normals for Habantota"National Oceanic and Atmospheric Administration। সংগ্রহের তারিখ ১৮ নভেম্বর ২০১৬ 
  8. "Klimatafel von Hambantota / Sri Lanka (Ceylon)" (PDF)Baseline climate means (1961–1990) from stations all over the world (জার্মান ভাষায়)। Deutscher Wetterdienst। সংগ্রহের তারিখ ১৮ নভেম্বর ২০১৬ 
  9. "Station Hambantota" (ফরাসি ভাষায়)। Meteo Climat। সংগ্রহের তারিখ ২৬ আগস্ট ২০২১ 
  10. "Census of Population and Housing 2012"statistics.gov.lk। Department of Census and Statistics, Sri Lanka। ২০১২। 
  11. "Hambantota District. Hambantota: Sri Lanka's Deep South"। ২০১৬-০৩-০৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১২-০৭-২৫ "Hambantota District. Hambantota: Sri Lanka's Deep South". Archived from the original on 2016-03-04. Retrieved 2012-07-25.
  12. "economynext.com"www.economynext.com। ২০১৮-০৮-০৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০১-০৯ 
  13. Lanka, Gamini Gunaratna, Sri Lanka News Paper by LankaPage.com (LLC)- Latest Hot News from Sri। "Sri Lanka : Sri Lanka launches special industrial zone to attract Chinese industries"www.colombopage.com। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০১-০৯ 
  14. "US $ 5 b investment in Hambantota: 1,235 acres for industrial zone"Sunday Observer। ২০১৭-০১-০৭। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০১-০৯ 
  15. "Sri Lanka, China open training center to support southern development – Xinhua | English.news.cn"news.xinhuanet.com। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০১-০৯ 
  16. "Hambantota Port agreement to be signed tomorrow – PM" 
  17. "Overview of Mattala Rajapaksa International Airport (MRIA)"www.airport.lk/। ২০১৮-০৪-১০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  18. "(WRZ) Weerawila Airport"FlightStats। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০১-০৭ 
  19. Massive Development in Hambantota District ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ২০১১-০৭-২২ তারিখে, Media Centre for National Development in Sri Lanka, retrieved 2010-01-19
  20. "Archived copy"। ২৪ নভেম্বর ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৩ অক্টোবর ২০১২ 
  21. "Archived copy"। ৩১ আগস্ট ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৬ নভেম্বর ২০১১ 
  22. "Minel Lanka Projects"। সংগ্রহের তারিখ ১৪ আগস্ট ২০২১ 
  23. Shirajiv Sirimane (২১ ফেব্রুয়ারি ২০১০)। "Hambantota port, gateway to world"। Sunday Observer। ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০১০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩০ এপ্রিল ২০১১ 
  24. Abi-Habib, Maria (২৫ জুন ২০১৮)। "How China Got Sri Lanka to Cough Up a Port"The New York Times। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৮-০৮ 
  25. Ondaatjie, Anusha (৮ মার্চ ২০১০)। http://www.businessweek.com/news/2010-03-08/sri-lanka-to-seek-tenants-for-550-million-tax-free-port-zone.html। সংগ্রহের তারিখ ১০ মার্চ ২০১০  |শিরোনাম= অনুপস্থিত বা খালি (সাহায্য)
  26. Abi-Habib, Maria (২৫ জুন ২০১৮)। "How China Got Sri Lanka to Cough Up a Port"The New York Times। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৮-০৮ Abi-Habib, Maria (25 June 2018). "How China Got Sri Lanka to Cough Up a Port". The New York Times. Retrieved 2020-08-08.
  27. Stacey, Kiran (১১ ডিসেম্বর ২০১৭)। "China signs 99-year lease on Sri Lanka's Hambantota port"Financial Times। ft.com। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৮-০৮ 
  28. Asantha Sirimanne, Anusha Ondaatjie (৩০ নভেম্বর ২০১৯)। "Sri Lanka leased Hambantota port to China for 99 yrs. Now it wants it back"Business Standard। Business Standard Ltd। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৮-০৮ 
  29. David Brewster। "Beyond the String of Pearls: Is there really a Security Dilemma in the Indian Ocean?. Retrieved 11 August 2014" 
  30. Asantha Sirimanne, Anusha Ondaatjie (৩০ নভেম্বর ২০১৯)। "Sri Lanka leased Hambantota port to China for 99 yrs. Now it wants it back"Business Standard। Business Standard Ltd। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৮-০৮ Asantha Sirimanne, Anusha Ondaatjie (30 November 2019). "Sri Lanka leased Hambantota port to China for 99 yrs. Now it wants it back". Business Standard. Business Standard Ltd. Retrieved 2020-08-08.
  31. Ondaatjie, Anusha; Sirimanne, Asantha (২৮ নভেম্বর ২০১৯)। "Sri Lanka Wants to Undo Deal to Lease Port to China for 99 Years"Bloomberg News। ৮ ডিসেম্বর ২০১৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। “We would like them to give it back,” Ajith Nivard Cabraal, a former central bank governor and an economic adviser to Prime Minister Mahinda Rajapaksa, said in an interview at his home in a Colombo suburb. “The ideal situation would be to go back to status quo. We pay back the loan in due course in the way that we had originally agreed without any disturbance at all.” 
  32. Saeed Shah, Asiri Fernando (৭ আগস্ট ২০২০)। "Pro-China Populists Consolidate Power in Sri Lanka"The Wall Street Journal। wsj.com। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৮-০৮ 
  33. Fernando, Andrew Fidel (এপ্রিল ৫, ২০১৩)। "SLC expects financial assistance from government"ESPNCricinfo। সংগ্রহের তারিখ ৫ এপ্রিল ২০১৩ Fernando, Andrew Fidel (April 5, 2013). "SLC expects financial assistance from government". ESPNCricinfo. Retrieved 5 April 2013.
  34. Ardern, Lucy (১১ নভেম্বর ২০১১)। "Sri Lanka boasting of Games bid win"Gold Coast Bulletin। সংগ্রহের তারিখ ১৭ নভেম্বর ২০১১ 
  35. "Candidate City Manual" (PDF)Commonwealth Games Federation। ডিসেম্বর ২০০৯। ৫ জুলাই ২০১০ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৭ নভেম্বর ২০১১ 
  36. Ardern, Lucy (১৩ নভেম্বর ২০১১)। "Coast wins 2018 Commonwealth Games"Gold Coast Bulletin। সংগ্রহের তারিখ ১৭ নভেম্বর ২০১১ 
  37. "Guangzhou Sister Cities [via WaybackMachine.com]"। Guangzhou Foreign Affairs Office। ২৪ অক্টোবর ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৩-০৭-২১ 
  • Stubbs, Francis W. (১৮৭৭) বেঙ্গল আর্টিলারির রেজিমেন্টের সংগঠন, সরঞ্জাম এবং যুদ্ধ পরিষেবার ইতিহাস : প্রকাশিত কাজ, অফিসিয়াল রেকর্ড এবং বিভিন্ন ব্যক্তিগত উৎস থেকে সংকলিত। (হেনরি এস কিং অ্যান্ড কোং। )

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]