বাংলাদেশ-ভারত সীমান্ত

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
সীমানাটা তৈরি হয়েছে একটা সরু দাগ দিয়ে যাকে 'চিকেন্স নেক'  বা 'পাখির ঘাড়' বলা হয় এবং যা ভারতের মূল ভূভাগ ও উত্তর-পূর্ব ভারতকে অসুবিধেজনক অবস্থায় যোগ করেছে

বাংলাদেশ-ভারত সীমানা, আঞ্চলিকভাবে আন্তর্জাতিক সীমানা (আইবি) বলা হয়, এটা বাংলাদেশ এবং ভারতের মধ্যে চালু আন্তর্জাতিক সীমানা, যেটা বাংলাদেশের আটটা বিভাগ এবং ভারতের রাজ্যগুলোর সীমা নির্ধারণ করেছে।

বাংলাদেশ এবং ভারত একটা ৪,১৫৬ কিমি (২,৫৮২ মাইল) লম্বা আন্তর্জাতিক সীমানাঅংশ ভাগ করে, এটা বিশ্বের পঞ্চম দীর্ঘতম ভূমি সীমানা, যার মধ্যে আছে অসম ২৬২ কিমি (১৬৩ মাইল), ত্রিপুরা ৮৫৬ কিমি (২৭৫ মাইল), মিজোরাম ১৮০ কিমি (১১০ মাইল), মেঘালয়া ৪৪৩ কিমি (২৭৫ মাইল) এবং পশ্চিমবঙ্গ ২,২১৭ কিমি (১,৩৭৮ মাইল)।[১] সীমানার পাশাপাশি বাংলাদেশের বিভাগগুলোর মধ্যে আছে মৈমনসিংহ, খুলনা, রাজশাহি, রংপুর, সিলেট এবং চট্টগ্রাম। দুটো রাষ্ট্রের মধ্যে কতগুলো থাম দিয়ে মার্কা করা আছে। সামান্য সীমা নির্ধারণ করা জায়গায় দু-দিক থেকে কাঁটাতারের বেড়া দেওয়া আছে। ২০১৫ খ্রিস্টাব্দের ৭ মে ভারত এবং বাংলাদেশ দু-দেশের অনুমোদনসাপেক্ষে ভূমি পরিসীমা চুক্তি করে সীমানার সরলীকরণ করা হয়েছে।[২]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

Bangladesh
India
বাংলাদেশ-ভারত সীমান্তের ১২৭৩ নং পোস্ট

রাডক্লিফ লাইন ১৯৪৭ খ্রিস্টাব্দের ১৭ অাগস্ট ভারত ভাগের সময় ভারত এবং পাকিস্তানের মধ্যে একটা সীমা নির্ধারণ লাইন হিসেবে প্রকাশিত হয়েছিল। এই কাজের স্থপতি, স্যর সিরিল রাডক্লিফ, যিনি বর্ডার কমিশনের সভাপতি ছিলেন এবং ৮.৮ কোটি জনগণের মধ্যে ১৭৫,০০০ বর্গমাইল (৪৫০,০০০ বর্গকিমি) ভূমি নিরপেক্ষভাবে সমদ্বিখণ্ডিত করে দিয়েছিলেন।[৩]

বিচার্য বিষয়সমূহ [সম্পাদনা]

বিডিআর (বর্তমান বিজিবি) কম্যান্ডার সীমানায় মৃত সৈনিকদের পরীক্ষা করছেন

গোসম্পদ, খাবার জিনিস, ওষুধ এবং মাদকদ্রব্য ভারত থেকে বাংলাদেশে চোরা কারবারের গুপ্তপথ হিসেবে সীমানাকে ব্যবহার করা হয়। এছাড়াও, বেআইনি অনুপ্রবেশকারীরা বাংলাদেশ থেকে ভারতে সীমানা অতিক্রম করে। কারণ একটা বিরাট সংখ্যক বেআইনি অনুপ্রবেশকারী সীমানা অতিক্রম করে বাংলাদেশ থেকে ভারতে ঢোকে, ভারতীয় সীমা প্রহরা চৌকিগুলো একটা বিতর্কিত দেখামাত্র-গুলিচালনা নীতি কার্যকর করেছে।[৪][৫] ভারতীয় সেনা এবং বেআইনি অনুপ্রবেশকারীদের মধ্যে হিংসার খবরের জন্যে এই নীতি নেওয়া হয়েছে।[৬] ২০০১ খ্রিস্টাব্দে খুব লক্ষণীয়ভাবে ভারতীয় সীমা সুরক্ষা বল এবং বর্ডার গার্ডস বাংলাদেশ ছোটো লড়াইয়ে সামিল হয়ছিল, এই সীমানা যার সাক্ষ্য বহন করে।  

২০০৯ খ্রিস্টাব্দের জুলাইতে চ্যানেল ৪ নিউজ সংবাদ দেয় যে, বিএসএফ ভারত-বাংলাদেশি বেড়া চৌকির পাশাপাশি কয়েকশো বাংলাদেশি মানুষকে হত্যা করে। বিএসএফ দাবি করে যে, বেড়া চৌকির মূল উদ্দশ্য হল বেআইনি অনুপ্রবেশ ঠেকানো এবং সীমা-পার সন্ত্রাসবাদ প্রতিরোধ।[৭] ২০১০ খ্রিস্টাব্দে হিউম্যান রাইটস ওয়াচ (এইচআরডব্লু) ৮১ পাতার প্রতিবেদন দাখিল করে যাতে বলা হয়েছে, বিএসএফের অসংখ্য অপব্যবহার সামনে এসেছে। প্রতিবেদনটা নেওয়া হয়েছে বিএসএফের পীড়নের শিকার, সাক্ষী, বিএসএফ সদস্য এবং তার বাংলাদেশি প্রতিরূপ থেকে। প্রতিবেদন বলছে যে, একুশ শতকের প্রথম দশকের মধ্যে ১০০০ বাংলাদেশি নাগরিক নিহত হয়েছে। এইচআরডব্লু বলছে বিএসএফ শুধু বেআইনি অনুপ্রবেশকারী অথবা চোরাকারবারীদেরই হত্যা করেনি, এমনকি নিরীহ ব্যক্তি যাদের কাছাকাছি দেখা গিয়েছে, কখনোবা এমনকি যারা সীমানার কাছে জমিতে কাজ করছে (কৃষিজমি) তাদেরও।[৮]

বাংলাদেশের শেষ বাড়ি, তামাবিল, সিলেট, জয়িন্তা পাহাড় রিসর্ট, বাংলাদেশ-ভারত সীমানা

বাংলাদেশ সরকার বিএসএফের বিরুদ্ধে অভিযোগ করে যে, তারা জোর করে বাংলাদেশ ভূখণ্ডে ঢুকে ভারত-বাংলাদেশ সীমানার পাশাপাশি এলোপাথাড়ি গুলি চালায়। এটা বাংলাদেশ থেকে ব্যাপকভাবে বেআইনি অনুপ্রবেশের প্রতিশোধ এবং যার ফলে ভারত-বাংলাদেশের মাঝে কাঁটাতারের বেড়ার সূত্রপাত।[৯] ২০০৮ খ্রিস্টাব্দের অাগস্টে এক সাংবাদিক সম্মেলনে বিএসএফ কর্তৃপক্ষ স্বীকার করেছে যে, তারা ৫৯ জন বেআইনি ব্যক্তিকে হত্যা করেছে (৩৪ বাংলাদেশি, ২১ ভারতীয় এবং বাকিরা অজ্ঞাত) যারা আগের ছ-মাসের মধ্যে সীমানা পার করার চেষ্টা করেছিল।[১০] বাংলাদেশি সংবাদ মাধ্যম অভিযোগ করেছে যে বিএসএফ বাংলাদেশের ঠাকুরগাঁও জেলার হরিপুর উপজেলা থেকে ২০১০ খ্রিস্টাব্দে ৮ এবং ১৫ বছর বয়সী ৫ জন বাংলাদেশি শিশুকে অপহরণ করেছে। শিশুরা সীমানার কাছে মাছ ধরতে এসেছিল।[[১১] ২০১০-এ হিউম্যান রাইটস ওয়াচ অভিযোগ করেছে যে সীমান্ত প্রতিরক্ষা বাহিনী এলোপাথাড়ি হত্যা করেছে। ২০১১ খ্রিস্টাব্দের ৭ জানুয়ারি বিএসএফ বাহিনী হত্যা করে লাশটা বেড়ার ওপর ঝুলিয়ে রেখেছিল - যেটা ছিল ফেলানি (১৫ বছর বয়সী এক বাংলাদেশি বালিকা)।[১২]

ভারত এবং বাংলাদেশের মধ্যে চোরাচালান এবং অবৈধ অনুপ্রবেশ, গরু পাচার, মাদক এবং বেআইনি অস্ত্র চালান ইত্যাদি নিয়ে ইতিমধ্যে অনেক সম্মেলন সংঘটিত হয়েছে, বিজিবি থেকে কর্নেল মুহম্মদ শাহিদ সারওয়ার সীমান্ত প্রতিরক্ষা বাহিনীকে দুর্বৃত্তদের এক তালিকা দিয়েছেন, যা ভারতে জায়গা নিয়েছে, এবং বিএসএফ-ও একই ধরনের তালিকা বিজিবিকে হস্তান্তর করেছে। 

পরিবেষ্টিত অঞ্চল, বিপরীত অধিকৃত এবং অনির্দেশিত সীমানাগুলো[সম্পাদনা]

ভারত-বাংলাদেশ সীমানা

পরিবেষ্টিত অঞ্চল অথবা ছিটমহলসমূহ হল ভারত ও বাংলাদেশের মাঝে ভারত  অন্তর্ভুক্ত পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের সীমানায় অবস্থিত দু-দেশের মধ্যে একটা দীর্ঘ বিচার্য বিষয়।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Border Management: Dilemma of Guarding the India–Bangladesh Border"IDSA। জানুয়ারি ২০০৪। 
  2. "Parliament passes historic land accord bill to redraw border with Bangladesh – Times of India"। সংগ্রহের তারিখ ১৭ নভেম্বর ২০১৬ 
  3. Read, Anthony; Fisher, David (১৯৯৮)। The Proudest Day: India's Long Road to Independence। New York: W. W. Norton & Company। পৃষ্ঠা 482। আইএসবিএন 9780393045949 
  4. Adams, Brad (২৩ জানুয়ারি ২০১১)। "India's shoot-to-kill policy on the Bangladesh border"The Guardian। London। 
  5. "India: New Killings, Torture at Bangladeshi Border"। ২৪ জুলাই ২০১১। সংগ্রহের তারিখ ১৭ নভেম্বর ২০১৬ 
  6. "BSF jawan killed in ambush near Bangladesh border – Latest News & Updates at Daily News & Analysis"। ৬ আগস্ট ২০১০। সংগ্রহের তারিখ ১৭ নভেম্বর ২০১৬ 
  7. [১], Channel 4 News, 24 July 2009
  8. "India/Bangladesh: Indiscriminate Killings, Abuse by Border Officers"Human Rights Watch। ২৩ জানুয়ারি ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২১ জানুয়ারি ২০১১ 
  9. Staff Correspondent (২৪ এপ্রিল ২০০৫)। "Border tension flares as BSF kills 2 more"The Daily Star। সংগ্রহের তারিখ ১৯ এপ্রিল ২০০৭ 
  10. India says 59 killed over last six months on Bangladesh border, Reuters, 24 August 2008.
  11. "BSF abducts 5 children from border"The Daily Star। ২৪ জুলাই ২০১০। ২৬ জুলাই ২০১০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৪ জুলাই ২০১০ 
  12. "15 Years Innocent Bangladeshi Girl Felani Killed by Aggressive Indian Border Security Force (BSF)"। ৮ জানুয়ারি ২০১৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৭ নভেম্বর ২০১৬ 

আরো দেখুন[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]

স্থানাঙ্ক: ২৬°১৫′৪৩″ উত্তর ৮৮°৪৫′০৬″ পূর্ব / ২৬.২৬১৯৪° উত্তর ৮৮.৭৫১৬৭° পূর্ব / 26.26194; 88.75167