ভারতে অবৈধ অভিবাসন

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন

ভারতে একজন অবৈধ অভিবাসী হলেন ভারতীয় আইন দ্বারা নির্ধারিত সরকারী অনুমতি ব্যতীত ভারতে বাসকারী একজন ব্যক্তি। যারা স্পষ্টভাবে শরণার্থী হিসাবে সুনির্দিষ্টভাবে মঞ্জুরিপ্রাপ্ত তারা এই বিভাগের মধ্যে পড়ে না।

২০০১ সালের ভারত গণপরিষদের অভিবাসীদের সম্পর্কে তথ্য দেয়, কিন্তু কেবল আলাদা ভাবে অবৈধ অভিবাসীদের জন্য ছিলনা সেই তথ্য। ২০০১ সালের আদমশুমারি অনুযায়ী ভারতের বৃহত্তম অভিবাসীর দল পাকিস্তান থেকে আসে। [১][২]

জনসংখ্যার উপাত্ত[সম্পাদনা]

অবৈধ অভিবাসন[সম্পাদনা]

২০০০ সালে আনুমানিক হিসাব অনুযায়ী ভারতে অবৈধ বাংলাদেশি অভিবাসীর সংখ্যা দাঁড়ায় প্রায় ১.৫ কোটি এবং প্রতি বছর প্রায় ৩ লাখ অবৈধ বাংলাদেশী ভারতে প্রবেশ করেছে। এই অবৈধ অভিবাসীদের দিকে আঙুলের তোলার কারণ হল যে কিছু অবৈধ ব্যক্তির চারটি চেকপোস্টে ধরা পড়া। অনেক অভিবাসী সীমান্ত এলাকায় বসতি স্থাপন করেছেন, কিছু কিছু মুম্বাইদিল্লি মতো দূরবর্তী স্থানেও অবস্থান করছেন। [৩] ১৪ ই জুলাই, ২০০৪ সালে ইউপিএ সরকারের সময়, কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শ্রীপ্রকাশ জয়সাল সংসদে একটি বিবৃতি দিয়েছিলেন, তিনি বলেন ভারতে বসবাসরত ১.২ কোটি অবৈধ বাংলাদেশী অনুপ্রবেশকারী রয়েছেন এবং পশ্চিমবঙ্গে ৫.৭ মিলিয়ন বাংলাদেশী রয়েছে যা ভারতের মধ্যে সবচেয়ে বেশি। সম্প্রতি এনডিএ সরকারের ঘনিষ্ঠ মন্ত্রী কিরণ রিজিজু ২ কোটি অবৈধ অভিবাসির চিত্র তুলে ধরেছেন। [৪] সমালোচকরা উল্লেখ করেন যে, বাঙালি রাজনীতিবিদরা, বিশেষ করে ক্ষমতাসীন তৃণমূল কংগ্রেস এবং সিপিআই (এম) , বিশ্বাস করে যে এই সমস্যার একটি নরম পন্থা, তাদেরকে মুসলমানদের ভোট জয় করতে সহায়তা করে। [৫]

২০০১ সালের আদমশুমারি অনুযায়ী ভারতে ৩০,৮৪,৮২৬ জন লোক বসবাস করে, যারা বাংলাদেশ থেকে এসেছিল [১] বর্তমানে অবৈধ অভিবাসীদের সংখ্যা নির্ভরযোগ্য নয়। আসাম রাজ্যের জন্য আদমশুমারির থেকে যে তথ্য প্রকাশ করে তাতে ২ লাখেরও বেশি ব্যক্তিকে অবৈধ অভিবাসি হিসাবে চিহ্নিত করে। [৬][৭] সরকার ও গণমাধ্যমে ২ কোটি মার্কিন ডলারেরও বেশী তথ্য পাওয়া যায়। [৮][৯] ভারতীয় পরিসংখ্যান ইনস্টিটিউটের সামির গুহ রায় এই অনুমানকে "স্পষ্টভাবে অতিরঞ্জিত" বলে অভিহিত করেছেন। জনসংখ্যা বৃদ্ধির এবং জনসংখ্যাতাত্ত্বিক পরিসংখ্যান পরীক্ষা করার পর, রায় এই পরিবর্তে বলে যে, অধিকাংশ ক্ষেত্রেই অবৈধ অভিবাসীদের সংখ্যা উল্লেখযোগ্য পরিমাণে পরিবর্তন করা হয়েছে। রায়ের সংখ্যার একটি বিশ্লেষণে দেখা যায় যে প্রায় ৯১,০০০ বাংলাদেশি অবৈধভাবে ১৯৮১-১৯৯১ সাল পর্যন্ত ভারতে প্রবেশ করে। [১০]

বার্মিজ অভিবাসী[সম্পাদনা]

ভারতে বসবাসরত ৫০,০০০-১,০০,০০০ বার্মিজ অভিবাসীদের বেশিরভাগই ভারতীয় রাজ্য মিজোরামে পাওয়া যায়। এছাড়া দিল্লিতে ছোট সংখ্যায় এদের পাওয়া যায়। [১১][১২][১৩]

পাকিস্তানী অভিবাসী[সম্পাদনা]

২০০৯ সালের হিসাবে ভারতে বসবাসকারী অবৈধ কয়েক হাজার পাকিস্তানী মানুষ রয়েছে। এর সংখ্যা ৭,৭০০ জনের এরও বেশি। [১৪]

আফগানিস্তানী অভিবাসী[সম্পাদনা]

২০০৯ সাল নাগাদ ভারতে আফগানিস্তানী ১৩ হাজার অবৈধ অভিবাসীরা ছিল। [১৪]

বাংলাদেশী অবৈধ অভিবাসীদের উপর রাজনৈতিক উদ্বেগ[সম্পাদনা]

আসাম[সম্পাদনা]

পশ্চিমবঙ্গ[সম্পাদনা]

এই সমস্যায় অন্যান্য ভারতীয় রাজ্য প্রভাবিত ছিল, যদিও পশ্চিমবঙ্গ বেশিরভাগ শান্ত ছিল। তবে ভারতীয় পত্রিকা রিপোর্ট করেছে যে, "রাজ্য সরকার"য়ের সহায়তায় অবৈধ বাংলাদেশী অভিবাসীরা গ্রামাঞ্চলে নন্দীগ্রাম সহ [১৫] এবং স্থানীয় বামপন্থীদের সহায়তায় বসতি স্থাপন করেছে। এই অভিবাসীরাদের জমি মালিকানা প্রমাণ করার জন্য দস্তাবেজের অভাব রয়েছে। [১৫]"

বাংলাদেশ সরকার অবৈধ অভিবাসনের বিষয়ে ভারতের দাবি অস্বীকার করেছে। [১৬][১৭]

২০০১ সালের আদমশুমারি পরে উদ্বেগ কিছুটা হ্রাস পায় যখন বৃদ্ধির হারগুলি স্বাভাবিক পর্যায়ে ছিল বিশেষ করে পশ্চিমবঙ্গে, এভাবে এই ভয়কে অস্বীকার করে যে অভিবাসীদের অব্যাহত আগমন ঘটেছে। [১৮][১৯] যদিও কিছু উদ্বেগ রয়েছে এখনও।

কেরালা[সম্পাদনা]

বাংলাদেশী অবৈধ অভিবাসীদের ওপর উচ্চতর বিচার বিভাগের উদ্বেগ[সম্পাদনা]

সামাজিক উদ্বেগ[সম্পাদনা]

অভিবাসী ছাড়াও বেশিরভাগ চোরাকারবারীরা নিয়মিত ভারতে পশ্চিমবঙ্গের সীমান্ত অতিক্রম করে প্রবেশ করে। [২০] বাংলাদেশ সরকারের কাছ থেকে কিছু ভারতীয় পণ্যের উপর আরোপিত উচ্চ শুল্ক এড়াতে তারা প্রধানত ভারত থেকে চোরাচালানকারী সামগ্রী ও প্রাণিসম্পদগুলি নিয়ে বাংলাদেশে ঢুকে পড়ে। [২০] বাংলাদেশী নারী ও শিশুকে ভারতকে পাচার করা হয়। [২১] সেন্টার ফর উইমেন অ্যান্ড চিলড্রেন স্টাডিজয়ের অনুমান ১৯৯৮ সালে ২৭,০০০ বাংলাদেশী নারী ও শিশু ভারতে পতিতাবৃত্তিতে বাধ্য হয়েছেন। [২২][২৩] CEDAW রিপোর্ট অনুযায়ী, ভারতের কলকাতায় বৈদেশিক পতিতাদের ১% এবং পতিতালয়গুলির পতিতাদের ২.৭% বাংলাদেশ থেকে এসেছে। [২৪]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Census of India 2001. Data Highlights: Migration Tables. Pg 19
  2. "Migrations to India"। ১১ ফেব্রুয়ারি ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৭ জুন ২০১৪ 
  3. Jamwal, N.S.। "Border Management: Dilema of Guarding the India-Bangladesh border" (PDF)। Strategic Analysis, January-March 2004। সংগ্রহের তারিখ ২৬ আগস্ট ২০১৭ 
  4. "Two crore illegal Bangladeshi living in India: Govt"। Business Standard / Press Trust of India, 16 November 2016। সংগ্রহের তারিখ ২৬ আগস্ট ২০১৭ 
  5. "Bangladesh infiltrators: Bengal will be eaten up by the Frankenstein it created"। One India, 27 March 2015। সংগ্রহের তারিখ ২৬ আগস্ট ২০১৭ 
  6. "1. Population Explosion in West Bengal: A Survey"voi.org। ২০ মার্চ ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  7. "Illegal Migration into Assam"satp.org 
  8. 2 cr Bangladeshis in India: Fernandes Tribune India - 27 September 2003
  9. "Illegal Bangladeshi Immigration"। ১৮ ডিসেম্বর ২০১০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩০ এপ্রিল ২০১৮ 
  10. Hans Günter Brauch; John Grin; Úrsula Oswald (২০০৯)। Facing Global Environmental Change: Environmental, Human, Energy, Food, Health and Water Security Concepts। Springer। পৃষ্ঠা 304। আইএসবিএন 3540684883 
  11. "India: Close The gap for Burmese refugees" (PDF)। ৮ জানুয়ারি ২০১১ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩০ এপ্রিল ২০১৮ 
  12. "Online Burma Library > Main Library > Refugees > Burmese refugees in India"burmalibrary.org 
  13. "Survival, Dignity, and Democracy: Burmese Refugees in India, 1997 (From the SAHRDC Resource Centre)"hrdc.net 
  14. "'More illegal immigrants from Afghanistan than Pakistan'"। Hindustan Times। ২০১১-১১-১৪। Archived from the original on জানুয়ারি ৩, ২০১৩। 
  15. "Left Front puts Nandigram land acquisition on hold"The Financial Express 
  16. "The Tribune, Chandigarh, India - Editorial"tribuneindia.com 
  17. The Bengal Borderland: Beyond State and Nation in South Asia By Willem van Schendel, Published 2005, Anthem Press
  18. "Differing population growth figure in West Bengal"The Times of India 
  19. "India News, Latest Sports, Bollywood, World, Business & Politics News - Times of India"The Times of India 
  20. "World bank report" (PDF)। ১২ জুলাই ২০১৮ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩০ এপ্রিল ২০১৮ 
  21. "The World Factbook"cia.gov 
  22. "Coalition Against Trafficking in Women, Factbook on Global Sexual Exploitation, Donna M. Hughes, Laura Joy Sporcic, Nadine Z. Mendelsohn and Vanessa Chirgwin"। ২০১২-০৪-১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৪-৩০ 
  23. Trafficking in Bangladeshi Women and Girls, by Bimal Kanti Paul; Syed Abu Hasnath, Geographical Review, p.268-276, April 2000
  24. Third and fourth periodic reports of States parties, COMMITTEE ON THE ELIMINATION OF DISCRIMINATION AGAINST WOMEN, UNITED NATIONS

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]