দ্বিপ্রান্তিক ব্যাধি

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
দ্বিপ্রান্তিক ব্যাধি
প্রতিশব্দদ্বিপ্রান্তিক আবেগ সম্বন্ধীয় ব্যাধি,[১] দ্বিপ্রান্তিক অসুস্থতা, বাতিকজনিত বিষন্নতা, বাতিকজনিত বিষন্নতামূলক ব্যাধি, বাতিকজনিত বিষন্নতামূলক অসুস্থতা,[২] বাতিকজনিত বিষন্নতামূলক সাইকোসিস, চক্রাকার বাতুলতা (সার্কুলার ইনসেনিটি),[২] বাইপোলার রোগ[৩]
Comedy and tragedy masks without background.svg
দ্বিপ্রান্তিক ব্যাধির বৈশিষ্ট্য হল বিষন্নতা ও বাতিকের পর্ব।
বিশেষত্বমনোরোগ বিজ্ঞান
লক্ষণবিষন্নতা ও খুশি মেজাজ[৪][৫]
জটিলতাআত্মহত্যা, নিজের ক্ষতিসাধন[৪]
রোগের সূত্রপাত২৫ বছর বয়স[৪]
প্রকারভেদদ্বিপ্রান্তিক ১ ব্যাধি, দ্বিপ্রান্তিক ২ ব্যাধি, অন্যান্য[৫]
কারণপরিবেশগতবংশাণুগত[৪]
ঝুঁকির কারণপারিবারিক ইতিহাস, শৈশবে নির্যাতন, দী‌র্ঘকালীন চাপ[৪]
পার্থক্যমূলক রোগনির্ণয়মনোযোগের ঘাটতিজনিত অতিসক্রিয়তার ব্যাধি, ব্যক্তিত্বের ব্যাধি, চিত্তভ্রংশী বাতুলতা (স্কিৎজোফ্রেনিয়া), নেশার জিনিস ব্যবহারের ব্যাধি[৪]
চিকিৎসামানসিক চিকিৎসা, ওষুধ[৪]
ঔষধলিথিয়াম, মনোবৈকল্যরোধী ঔষধ (অ্যান্টিসাইকোটিক), খিঁচুনিরোধী ঔষধ (অ্যান্টিকনভালস্যান্ট)[৪]
সংঘটনের হার১-৩%[৪][৬]

দ্বিপ্রান্তিক ব্যাধি (ইংরেজি: Bipolar disorder বাইপোলার ডিসর্ডার), যা পূর্বে ম্যানিয়াজনিত বিষন্নতা নামে পরিচিত ছিল, হল একটি মানসিক ব্যাধি যার ফলে একজন ব্যক্তি একের পর এক বিষন্নতা ও অস্বাভাবিক রকম খোশমেজাজের পর্ব অতিক্রম করে এবং প্রতিটি পর্ব কয়েক দিন থেকে কয়েক সপ্তাহ স্থায়ী হয়ে থাকে।[৭][৮][৯] যদি খুশির মেজাজ তীব্র এবং তা সাইকোসিস এর লক্ষণগুলির সাথে সম্পর্কযুক্ত হয়, তখন এটিকে ম্যানিয়া বলা হয়; যদি এটির তীব্রতা কম হয়, তবে এটিকে ম্যানিয়া (হাইপোম্যানিয়া) বলা হয়[৭] ম্যানিয়ার সময় একজন মানুষ অস্বাভাবিক রকম প্রাণশক্তিপূর্ণ, খুশি বা খিটখিটে আচরণ করে বা অনুভব করে[৭] এবং তখন তারা প্রায়শই পরিণতি বিবেচনা করা ছাড়াই আবেগতাড়িত সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে থাকে।[৮] ম্যানিয়ার পর্যায়গুলি চলাকালীন সাধারণত ঘুমের প্রয়োজন কম থাকে।[৮] বিষন্নতাের পর্বগুলির সময় কান্নাকাটি, জীবনের প্রতি নেতিবাচক মনোভাব এবং অন্যদের দিকে ভালভাবে চোখে চোখ রেখে না তাকানোর মত ঘটনাগুলি ঘটতে পারে।[৭] এই রোগ আছে এমন মানুষদের মধ্যে আত্মহত্যার ঝুঁকি বেশি থাকে; ২০ বছরে দ্বিপ্রান্তিক ব্যাধি আক্রান্তদের ৬ শতাংশের বেশি আত্মহত্যায় মৃত্যুবরণ করে, আর ৩০-৪০ শতাংশ মানুষ নিজের ক্ষতি করে থাকে।[৭] উদ্বেগজনিত ব্যাধিনেশার জিনিস ব্যবহারের ব্যাধির মতো মানসিক স্বাস্থ্য সংক্রান্ত অন্যান্য সমস্যাগুলি সাধারণভাবে দ্বিপ্রান্তিক ব্যাধির সাথে সংশ্লিষ্ট।[৭]

বংশাণুগত এবং পরিবেশগত উভয় কারণই একটি ভূমিকা পালন করে বলে মনে করা হয়, যদিও দ্বিপ্রান্তিক ব্যাধির কারণগুলি স্পষ্টভাবে বোঝা যায় না।[৪] প্রতিটি ছোট প্রভাব সহ অনেক জিন, ব্যাধিটির বিকাশে অবদান রাখতে পারে।[৪][১০] বংশাণুগত কারণগুলিকে দ্বিপ্রান্তিক ব্যাধির বিকাশের ঝুঁকির প্রায় ৭০-৯০% জন্য দায়ী করা হয়।[১১][১২] পরিবেশগত ঝুঁকির কারণগুলির মধ্যে রয়েছে শৈশবকালীন নির্যাতনের ইতিহাস এবং দীর্ঘমেয়াদী চাপ।[৪] যদি বিষণ্নতামূলক পর্বের সাথে বা ছাড়াই অন্তত একটি ম্যানিয়া পর্ব থাকে, তবে এই অবস্থাটিকে বাইপোলার ১ ব্যাধি হিসাবে শ্রেণীবদ্ধ করা হয়, এবং যদি অন্তত একটি হাইপোম্যানিক পর্ব (কিন্তু সম্পূর্ণ ম্যানিক পর্ব না থাকে) এবং একটি প্রধান বিষণ্ন পর্ব থাকে, তবে এই অবস্থাটিকে শ্রেণীবদ্ধ করা হয় বাইপোলার ২ ব্যাধি হিসাবে।[৫] যদি এই লক্ষণগুলি ওষুধ বা চিকিৎসাজনিত সমস্যার কারণে ঘটে, তবে সেগুলি দ্বিপ্রান্তিক ব্যাধি হিসাবে নির্ণয় করা হয় না।[৫] অন্য যে রোগাবস্থাগুলি অনুরূপভাবে প্রকাশ পেতে পারে সেগুলি হল মনোযোগের ঘাটতিজনিত অতিসক্রিয়তার ব্যাধি, ব্যক্তিত্বের ব্যাধি, চিত্তভ্রংশী বাতুলতা (স্কিৎজোফ্রেনিয়া) ও নেশার জিনিস ব্যবহারের ব্যাধি, এছাড়াও বেশ কয়েকটি চিকিৎসাগত রোগাবস্থা।[৪] রোগনির্ণয়ের জন্য চিকিৎসাগত পরীক্ষার প্রয়োজন নেই, যদিও অন্য সমস্যাগুলির সম্ভাবনা বাতিল করার জন্য রক্ত পরীক্ষা বা চিকিৎসাবৈজ্ঞানিক চিত্রণ করা যেতে পারে।[১৩]

মেজাজ স্থিতিশীলকারক―লিথিয়াম এবং নির্দিষ্ট অ্যান্টিকনভালসেন্ট, যেমন ভালপ্রোয়েট এবং কার্বামাজেপাইন―দীর্ঘমেয়াদী পুনরায় সংক্রমণ প্রতিরোধের প্রধান ভিত্তি।[১৪] অ্যান্টিসাইকোটিকগুলি তীব্র ম্যানিয়া পর্বের সময় এবং সেইসাথে যেসব ক্ষেত্রে মেজাজ স্থিতিশীলকারক খুব কম সহ্য করা যায় বা অকার্যকর হয় বা যে ক্ষেত্রে সম্মতি অল্প হয়, সেসব ক্ষেত্রে দেওয়া হয়।[১৪] কিছু প্রমাণ রয়েছে যে, সাইকোথেরাপি এই ব্যাধিটির ধারাকে উন্নত করে।[১৫] বিষণ্নতামূলক পর্বে এন্টিডিপ্রেসেন্টের ব্যবহার বিতর্কিত: এগুলি কার্যকর হতে পারে কিন্তু ম্যানিক পর্বগুলিকে উদ্দীপিত করার সাথে সম্পর্কিত।[১৬] তাই বিষণ্ণ পর্বের চিকিৎসা প্রায়ই কঠিন হয়ে থাকে।[১৪] ইলেক্ট্রোকনভালসিভ থেরাপি (ইসিটি) তীব্র ম্যানিয়া এবং হতাশাজনক পর্বে, বিশেষত সাইকোসিস বা ক্যাটাটোনিয়ার ক্ষেত্রে কার্যকর । [ক][১৪] যদি একজন ব্যক্তি নিজের বা অন্যদের জন্য ঝুঁকিপূর্ণ হয়, যদি আক্রান্ত ব্যক্তি চিকিত্সা প্রত্যাখ্যান করে তবে মানসিক হাসপাতালে ভর্তির কখনও কখনও অনিচ্ছাকৃত চিকিত্সা প্রয়োজন হতে পারে।[৪]

বিশ্ব জনসংখ্যার প্রায় ১ শতাংশ মানুষের বাইপোলার ডিসঅর্ডার দেখা দেয়।[১৪] মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে, প্রায় ৩% মানুষ তাদের জীবনের কোনো না কোনো সময়ে এই রোগে আক্রান্ত হয়েছে বলে অনুমান করা হয়; এই হার মহিলা এবং পুরুষদের মধ্যে একই বলা চলে।[৬][১৮] সাধারণত লক্ষণগুলি ২০ থেকে ২৫ বছর বয়সের মধ্যে শুরু হয়; যথাসময়ের পূর্বে শুরু রোগের সূত্রপাত খারাপ আরোগ্যসম্ভাবনার সাথে সম্পর্কিত।[১৯] বাইপোলার ডিসঅর্ডারের রোগীদের পর্যবেক্ষণে কাজ করার আগ্রহ বাড়ছে, যেখানে কাজ, শিক্ষা, সামাজিক জীবন, পরিবার এবং জ্ঞানের মতো নির্দিষ্ট ক্ষেত্রগুলোর উপর জোর দেয়া হচ্ছে।[২০] বাইপোলার ডিসঅর্ডারে আক্রান্তদের প্রায় এক-চতুর্থাংশ থেকে এক-তৃতীয়াংশের এই অসুস্থতার কারণে আর্থিক, সামাজিক বা কর্ম-সংক্রান্ত সমস্যা রয়েছে।[৪] বাইপোলার ডিসঅর্ডার বিশ্বব্যাপী অক্ষমতার শীর্ষ ২০টি কারণগুলির মধ্যে একটি এবং এটি সমাজকে যথেষ্ট ক্ষতির সম্মুখীন করে।[২১] জীবনযাত্রার পছন্দ এবং ওষুধের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ার কারণে, বাইপোলার ডিসঅর্ডারে আক্রান্ত ব্যক্তিদের মধ্যে হৃৎ-ধমনীর ব্যাধির মতো প্রাকৃতিক কারণে মৃত্যুর ঝুঁকি সাধারণ জনসংখ্যার দ্বিগুণ হয়ে থাকে।[৪]

লক্ষণ ও উপসর্গ[সম্পাদনা]

দ্বি-প্রান্তিক মেজাজ পরিবর্তন

বয়ঃসন্ধিকালের শেষে এবং প্রারম্ভিক যৌবনকালে বাইপোলার ডিসঅর্ডারের সূত্রপাত সর্বাধিক হয়।[২২] [২৩] এই অবস্থাটি ম্যানিয়া এবং/অথবা বিষণ্নতার পর্বের মাঝে উপসর্গের অনুপস্থিতির দ্বারা চিহ্নিত করা হয়।[২৪] এই পর্বগুলির সময়, বাইপোলার ডিসঅর্ডারে আক্রান্ত ব্যক্তিদের মধ্যে স্বাভাবিক মেজাজ, সাইকোমোটর কার্যকলাপ (শারীরিক কার্যকলাপের স্তর, যা মেজাজ দ্বারা প্রভাবিত হয়)―যেমন: ম্যানিয়ার সময় একটানা চঞ্চলতা বা বিষণ্নতার সময় ধীর গতিবিধি―সার্কাডিয়ান রিদম (প্রাণীর দৈনন্দিন অভ্যাসে সূর্যালোকের প্রভাব) এবং চেতনায় ব্যাঘাত দেখা যায়। উফোরিয়া, যা "ক্লাসিক ম্যানিয়া" এর সাথে সম্পর্কিত, থেকে শুরু করে ডিসফোরিয়া এবং বিরক্তি পর্যন্ত ম্যানিয়া বিভিন্ন মাত্রার মেজাজের ব্যাঘাত ঘটাতে পারে।[২৫] মনস্তাত্ত্বিক উপসর্গ যেমন বিভ্রম বা হ্যালুসিনেশন ম্যানিয়া এবং বিষণ্ণতা উভয় পর্বেই ঘটতে পারে; এগুলোর বিষয়বস্তু এবং প্রকৃতি ব্যক্তির মধ্যে বিরাজমান মেজাজের সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ।[৪]

ডিএসএম-৫ মানদণ্ড অনুসারে, ম্যানিয়াকে হাইপোম্যানিয়া থেকে দৈর্ঘ্যের ভিত্তিতে আলাদা করা হয়: যদি ভালো মেজাজের উপসর্গগুলি অন্তত টানা চার দিন ধরে চলতে থাকে তখন হাইপোম্যানিয়া বিদ্যমান থাকে, যখন এই ধরনের লক্ষণগুলি এক সপ্তাহের বেশি সময় ধরে চলতে থাকে তখন ম্যানিয়া বিদ্যমান থাকে। তবে হাইপোম্যানিয়া সবসময় ম্যানিয়ার মতো দুর্বল কার্যকারিতার সাথে সম্পর্কিত থাকে না।[১৪] ম্যানিক বা হাইপোম্যানিক পর্ব থেকে বিষণ্ণ পর্বে পরিবর্তন করার জন্য দায়ী জৈবিক প্রক্রিয়াগুলি, বা এর বিপরীতটি ঘটা, ভালভাবে বোঝা যায় না।[২৬]

ম্যানিক পর্ব[সম্পাদনা]

১৯৮২ সালের একটি রঙিন লিথোগ্রাফ এ একজন মহিলাকে অত্যধিক হাসিখুশি উন্মাদনায় দেখা যাচ্ছে

ম্যানিয়া (বাতিক পর্ব নামেও পরিচিত) হল অন্তত এক সপ্তাহ ব্যাপী উৎফুল্ল বা খিটখিটে মেজাজের একটি স্বতন্ত্র সময়, যা উচ্ছ্বাস থেকে প্রলাপ পর্যন্ত বিস্তৃত হতে পারে। ম্যানিয়ার মূল লক্ষণ হল, সাইকোমোটর কার্যকলাপের শক্তি বৃদ্ধি । ম্যানিয়ার সাথে আত্ম-সম্মান বা মহত্ত্ব এর বৃদ্ধি, চিন্তার ক্রমাগত পরিবর্তন, দ্রুত কথা বলার প্রবণতা যা বাধা দেওয়া কঠিন, ঘুমের প্রয়োজনীয়তা হ্রাস, নিষ্ক্রিয় সামাজিক আচরণ,[২৫] লক্ষ্য-ভিত্তিক কার্যকলাপ বৃদ্ধি এবং অবিবেচিত সিদ্ধান্তেরও উপস্থিতি থাকতে পারে, যা আবেগপ্রবণ বা উচ্চ-ঝুঁকিসম্পন্ন হিসাবে চিহ্নিত করা হয় এমন আচরণ প্রদর্শন করতে পারে, যেমন: হাইপারসেক্সুয়ালিটি বা অত্যধিক খরচ করা।[২৭][২৮][২৯] ম্যানিক পর্বের একটি যথাযথ বর্ণনা মানানসই হওয়ার জন্য, এই আচরণগুলিকে অবশ্যই ব্যক্তির সামাজিকীকরণ বা কাজ করার ক্ষমতাকে ক্ষতিগ্রস্ত করে এমন হতে হবে।[২৭][২৯] যদি চিকিত্সা না করা হয়, তবে একটি ম্যানিক পর্ব সাধারণত তিন থেকে ছয় মাস পর্যন্ত স্থায়ী হয়।[৩০]

গুরুতর ম্যানিক পর্বে, একজন ব্যক্তি মানসিক লক্ষণগুলি ভুগতে পারেন, যেখানে মেজাজের সাথে চিন্তার বিষয়বস্তু প্রভাবিত হয়।[২৯] তারা অপ্রতিরোধ্য বোধ করতে পারে, অথবা যেন ঈশ্বরের সাথে তাদের একটি বিশেষ সম্পর্ক রয়েছে বা তাদের একটি মহান কাজ সম্পন্ন করতে হবে বা অন্যান্য মহৎ বা বিভ্রান্তিকর ধারণা তাদের মধ্যে থাকতে পারে।[৩১] এটি সহিংস আচরণের দিকে পরিচালিত করতে পারে এবং কখনও কখনও, মানসিক হাসপাতালে ভর্তি করাতে হতে পারে।[২৮][২৯] ম্যানিক লক্ষণগুলির তীব্রতার রেটিং স্কেল, যেমন: ইয়ং ম্যানিয়া রেটিং স্কেল দ্বারা পরিমাপ করা যেতে পারে, যদিও এই স্কেলগুলির নির্ভরযোগ্যতা সম্পর্কে প্রশ্ন রয়েছে।[৩২]

একটি ম্যানিক বা হতাশাজনক পর্বের সূত্রপাত প্রায়শই ঘুমের ব্যাঘাত দ্বারা পূর্বাভাসিত হয়।[৩৩] মেজাজ পরিবর্তন, সাইকোমোটর ও ক্ষুধা পরিবর্তন, এবং উদ্বেগের বৃদ্ধি ম্যানিক পর্বের বিকাশের তিন সপ্তাহ আগে পর্যন্ত ঘটতে পারে।[চিকিৎসাবিদ্যার তথ্যসূত্র প্রয়োজন] বাতিকগ্রস্ত ব্যক্তিদের প্রায় সবারই "স্ব-চিকিৎসা" হিসাবে বছরের পর বছর ধরে বিকশিত মাদকের অপব্যবহারের ইতিহাস থাকে।[৩৪]

হাইপোম্যানিক পর্ব[সম্পাদনা]

১৮৫৮ সালের একটি লিথোগ্রাফের শিরোনাম ছিল 'ম্যানাকোলি পাসিং ইন টু ম্যানিয়া'

হাইপোম্যানিয়া হল ম্যানিয়ার মৃদু রূপ, যা ম্যানিয়ার মতো একই মানদণ্ডের অন্তত চার দিন উপস্থিতি হিসাবে সংজ্ঞায়িত করা হয়,[২৯] কিন্তু যা ব্যক্তির সামাজিকীকরণ বা কাজ করার ক্ষমতা উল্লেখযোগ্যভাবে হ্রাস করে না, বিভ্রান্তি বা হ্যালুসিনেশনের মতো মানসিক বৈশিষ্ট্যের অভাব থাকে, এবং মানসিক হাসপাতালে ভর্তির প্রয়োজন হয় না।[২৭] প্রকৃতপক্ষে সামগ্রিক কার্যকারিতা হাইপোম্যানিয়ার পর্বের সময় বৃদ্ধি পেতে পারে এবং এটি বিষণ্নতার বিরুদ্ধে প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা হিসাবে কাজ করে বলে কেউ কেউ মনে করে থাকেন।[৩৫] হাইপোম্যানিক পর্বগুলি খুব কম ক্ষেত্রেই পূর্ণ-বিকশিত ম্যানিক পর্বে অগ্রসর হয়।[৩৫] কিছু কিছু লোক যারা হাইপোম্যানিয়ায় ভোগেন তাদের সৃজনশীলতা বৃদ্ধি পায়,[২৯][৩৬] যেখানে অন্যদের ক্ষেত্রে খিটখিটে বা খারাপ সিদ্ধান্ত গ্রহণের বিষয়টি প্রদর্শিত হয়।[১২]

হাইপোম্যানিয়ায় ভোগেন এমন কিছু ব্যক্তির কাছে এটিতে ভাল বোধ করতে পারেন, যদিও বেশিরভাগ লোকেরা যারা হাইপোম্যানিয়ায় ভোগে তারা এর অভিজ্ঞতার চাপ খুবই বেদনাদায়ক বলে বর্ণনা করে থাকেন।[২৯] বাইপোলার ডিসঅর্ডারে আক্রান্ত ব্যক্তিরা যারা হাইপোম্যানিয়ায় ভোগেন করেন তারা তাদের আশেপাশের লোকদের উপর তাদের কর্মের প্রভাব ভুলে যেতে থাকে। এমনকি যখন পরিবার এবং বন্ধুরা মেজাজের পরিবর্তনগুলি চিনতে পারে, তখনও আক্রান্ত ব্যক্তি প্রায়শই কিছু হয়নি বলে অস্বীকার করে।[৩৭] এটির সাথে বিষণ্ণতার পর্বগুলো না থাকলে, হাইপোম্যানিক এপিসোডগুলি প্রায়শই সমস্যাযুক্ত বলে মনে করা হয় না যদি না মেজাজের পরিবর্তনগুলি অনিয়ন্ত্রিত বা অস্থির না হয়।[৩৫] সাধারণত, লক্ষণগুলি কয়েক সপ্তাহ থেকে কয়েক মাস পর্যন্ত সময়ে ধরে চলতে থাকে।[৩৮]

বিষণ্ণতা পর্ব[সম্পাদনা]

উইলিয়াম ব্যাগের 'বিষাদ', হিউ ওয়েলচ ডায়মন্ডের একটি ছবি

বাইপোলার ডিসঅর্ডারের বিষণ্ণতা পর্বের লক্ষণগুলির মধ্যে রয়েছে দুঃখের অবিরাম অনুভূতি, বিরক্তি বা রাগ, পূর্বে উপভোগ করা ক্রিয়াকলাপের প্রতি আগ্রহ হারিয়ে ফেলা, অতিরিক্ত বা অনুপযুক্ত অপরাধবোধ, হতাশা, খুব বেশি ঘুমানো বা পর্যাপ্ত না হওয়া, ক্ষুধা এবং/অথবা ওজনের পরিবর্তন, ক্লান্তি, মনোযোগ দিতে সমস্যা হওয়া, আত্ম-ঘৃণা বা মূল্যহীনতার অনুভূতি, এবং মৃত্যু বা আত্মহত্যার চিন্তা।[৩৯] যদিও ইউনিপোলার এবং বাইপোলার এপিসোড নির্ণয়ের জন্য ডিএসএম-৫ মানদণ্ড একই, কিছু আধুনিক ক্লিনিকাল বৈশিষ্ট্য বেশি সাধারণ, যার মধ্যে ঘুমের বৃদ্ধি, হঠাৎ সূত্রপাত এবং লক্ষণগুলির সমাধান, উল্লেখযোগ্য ওজন বৃদ্ধি বা হ্রাস এবং প্রসবের পরে গুরুতর পর্বগুলি অন্তর্ভুক্ত রয়েছে।[১৪]

সূত্রপাতের সময় যত তাড়াতাড়ি হবে, প্রথম কয়েকটি পর্বের বিষণ্নতা হওয়ার সম্ভাবনা তত বেশি।[৪০] বাইপোলার ধরন ১ এবং ২ সহ বেশিরভাগ লোকের ক্ষেত্রে, বিষণ্ণ পর্বগুলি ম্যানিক বা হাইপোম্যানিক পর্বের চেয়ে অনেক বেশি দীর্ঘ হয়।[১৯] যেহেতু বাইপোলার ডিসঅর্ডার নির্ণয়ের জন্য একটি ম্যানিক বা হাইপোম্যানিক পর্বের প্রয়োজন হয়, তাই অনেক আক্রান্ত ব্যক্তিকে প্রাথমিকভাবে ভুলভাবে শনাক্ত করা হয় যে, তারা গুরুতর অবসাদে ভুগছে এবং তাদের নির্ধারিত এন্টিডিপ্রেসেন্ট দিয়ে ভুলভাবে চিকিত্সা করা হয়েছে।[৪১]

মিশ্র অনুভূতিমূলক পর্ব[সম্পাদনা]

বাইপোলার ডিসঅর্ডারে, একটি মিশ্র অবস্থা হল এমন একটি পর্ব যেখানে ম্যানিয়া এবং বিষণ্নতা উভয়ের লক্ষণ একই সাথে দেখা দেয়।[৪২] মিশ্র অবস্থার সম্মুখীন ব্যক্তিদের ম্যানিক উপসর্গ, যেমন: মহান চিন্তাভাবনা থাকতে পারে, যখন একই সাথে তারা অত্যধিক অপরাধবোধ বা আত্মহত্যার অনুভূতির মতো হতাশাজনক লক্ষণগুলিতেও ভুগে থাকে।[৪২] তাদের আত্মহত্যামূলক আচরণের ঝুঁকি বেশি বলে মনে করা হয় কারণ হতাশাজনক আবেগ যেমন: হতাশা প্রায়শই মেজাজের পরিবর্তন বা আবেগ নিয়ন্ত্রণে অসুবিধার সাথে যুক্ত থাকে।[৪২] উদ্বেগমূলক ব্যাধিগুলি অ-মিশ্র বাইপোলার ডিপ্রেশন বা ম্যানিয়ার তুলনায় মিশ্র বাইপোলার পর্বে সহাবস্থান হিসাবে বেশি ঘটে।[৪২] মাদকের (অ্যালকোহল সহ) অপব্যবহারও এই প্রবণতাকে অনুসরণ করে, যার কারণে বাইপোলার উপসর্গগুলি মাদকের অপব্যবহারের পরিণতি ছাড়া আর কিছুই নয়।[৪২]

সমবর্তী অবস্থা[সম্পাদনা]

বাইপোলার ডিসঅর্ডার নির্ণয় সহাবস্থানে থাকা (সমবর্তী) মানসিক অবস্থার কারণে জটিল হতে পারে যার মধ্যে রয়েছে অত্যধিক-অমোঘ ব্যাধি, মাদক-ব্যবহার ব্যাধি, আহার ব্যাধি, অ্যাটেনশন ডেফিসিট হাইপারঅ্যাকটিভিটি ডিসঅর্ডার, সামাজিক উদ্বেগমূলক ব্যাধি, রজঃস্রাবের পূর্ব লক্ষণ ( প্রিম্যানস্ট্রুয়াল ডিসফরিক ডিসঅর্ডার সহ) অথবা প্যাফরিক ডিসঅর্ডার।[৩৪][৩৯][৪৩][৪৪] উপসর্গ এবং পর্বগুলির একটি পুঙ্খানুপুঙ্খ অনুদৈর্ঘ্য বিশ্লেষণ, যদি সম্ভব হয় বন্ধুবান্ধব এবং পরিবারের সদস্যদের সাথে আলোচনার মাধ্যমে সাহায্য নেওয়া যায়, যেখানে এই সহজাত রোগগুলি বিদ্যমান থাকে সেখানে একটি চিকিত্সা পরিকল্পনা প্রতিষ্ঠার জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।[৪৫] বাইপোলার ডিসঅর্ডারে আক্রান্ত পিতামাতার সন্তানদের প্রায়শই অন্যান্য মানসিক স্বাস্থ্য সমস্যা থাকে। [তারিখের তথ্য][৪৬]

বাইপোলার ডিসঅর্ডারে আক্রান্ত ব্যক্তিদের প্রায়ই অন্যান্য সহ-অবস্থানকারী মানসিক অবস্থা থাকে, যেমন উদ্বেগ (বাইপোলার ডিসঅর্ডারে আক্রান্তদের প্রায় ৭১% লোকের মধ্যে উপস্থিত থাকে), মাদকের ব্যবহার (৫৬%), ব্যক্তিত্ব ব্যাধি (৩৬%) এবং অ্যাটেনশন ডেফিসিট হাইপারঅ্যাকটিভিটি ডিসঅর্ডার (১০-২০%), যা অসুস্থতার বোঝা বাড়াতে পারে এবং আরোগ্যসম্ভাবনাটিকে আরও খারাপ করতে পারে।[১৯] সাধারণ জনসংখ্যার তুলনায় বাইপোলার ডিসঅর্ডারে আক্রান্ত ব্যক্তিদের মধ্যে কিছু চিকিৎসা শর্তও অনেক সাধারণ। এর মধ্যে রয়েছে বিপাকীয় সংলক্ষণের বৃদ্ধির হার (বাইপোলার ডিসঅর্ডারে আক্রান্ত ৩৭% লোকের মধ্যে উপস্থিত), মাইগ্রেনের মাথাব্যথা (৩৫%), স্থূলতা (২১%) এবং টাইপ ২ ডায়াবেটিস (১৪%)।[১৯]মৃত্যুর ঝুঁকিতে এটি অবদান রাখে যা সাধারণ জনসংখ্যার তুলনায় বাইপোলার ডিসঅর্ডারে আক্রান্তদের মধ্যে দ্বিগুণ বেশি।[১৯]

বাইপোলার ডিসঅর্ডারে মাদকের অপব্যবহার একটি সাধারণ সহজাত রোগ; বিষয়টি ব্যাপকভাবে পর্যালোচনা করা হয়েছে।[৪৭][৪৮]

কারণসমূহ[সম্পাদনা]

বাইপোলার ডিসঅর্ডারের কারণগুলি সম্ভবত ব্যক্তিদের মধ্যে পরিবর্তিত হয়ে থাকে এবং এই ব্যাধিটির অন্তর্নিহিত সঠিক প্রক্রিয়াটি অস্পষ্ট থাকে।[৪৯] একটি শক্তিশালী বংশগত উপাদান নির্দেশ করে জিনগত প্রভাবগুলিকে ব্যাধি বিকাশের ঝুঁকির ৭৩-৯৩% এর জন্য দায়ী বলে মনে করা হয় ।[১২] বাইপোলার স্পেকট্রামের সামগ্রিক উত্তরাধিকার ০.৭১ বলে অনুমান করা হয়েছে।[৫০] যমজ অধ্যয়নগুলি তুলনামূলকভাবে ছোট নমুনার আকার দ্বারা সীমিত করা হয়েছে তবে একটি উল্লেখযোগ্য জেনেটিক অবদানের পাশাপাশি পরিবেশগত প্রভাবকে নির্দেশ করেছে। বাইপোলার I ডিসঅর্ডারের জন্য, যে হারে অভিন্ন যমজ (একই জিন) উভয়েরই বাইপোলার I ডিসঅর্ডার (একসঙ্গতা) হবে তা প্রায় ৪০%, এর তুলনায় ভ্রাতৃদ্বিতীয় যমজদের মধ্যে তা হবে প্রায় ৫%।[২৭][৫১] বাইপোলার I, II এবং সাইক্লোথিমিয়ার সংমিশ্রণ একইভাবে ৪২% এবং ১১% (যথাক্রমে অভিন্ন এবং ভ্রাতৃত্বপূর্ণ যমজ) হার তৈরি করে।[৫০] বাইপোলার I ছাড়া বাইপোলার II এর সংমিশ্রণ এর হার কম হয়— ২৩ এবং ১৭% এবং বাইপোলার II ও সাইক্লোথেমিয়ার সংমিশ্রণ এর হার— ৩৩ এবং ১৪, যা অপেক্ষাকৃত উচ্চতর জিনগত অসমসত্ত্বতার প্রতিফলন ঘটাতে পারে।[৫০]

বাইপোলার ডিসঅর্ডারের কারণগুলো মেজর ডিপ্রেসিভ ডিসঅর্ডারের সাথে সমপাতিত হয়। বাইপোলার ডিসঅর্ডার বা মেজর ডিপ্রেশনে আক্রান্ত সহ-যমজ হিসাবে মিলনকে সংজ্ঞায়িত করার সময়, অভিন্ন যমজদের মধ্যে মিলনের হার বৃদ্ধি পেয়ে ৬৭% এবং ভ্রাতৃদ্বিতীয় যমজদের ক্ষেত্রে ১৯% হয়ে যায়।[৫২] ভ্রাতৃত্বপূর্ণ যমজদের মধ্যে তুলনামূলকভাবে কম মিলিততা ইঙ্গিত দেয় যে ভাগ করা পারিবারিক পরিবেশগত প্রভাব সীমিত, যদিও তাদের শনাক্ত করার ক্ষমতা ছোট নমুনার আকার এর কারণে সীমিত হয়।[৫০]

জিনগত[সম্পাদনা]

আচরণগত জেনেটিক গবেষণায় ধারণা পাওয়া যায় যে অনেক ক্রোমোসোমাল অঞ্চল এবং ক্যান্ডিডেট জিনসমূহ বাইপোলার ব্যাধি সংবেদনশীলতার সাথে সম্পর্কিত যেখানে প্রতিটি জিন হালকা থেকে মাঝারি একটি প্রভাব বিস্তার করে।[৪৩] বাইপোলার ডিসঅর্ডারের ঝুঁকি সাধারণ জনসংখ্যার তুলনায় বাইপোলার ডিসঅর্ডারে আক্রান্তদের প্রথম পর্যায়ের আত্মীয়দের মধ্যে প্রায় দশগুণ বেশি; একইভাবে, সাধারণ জনসংখ্যার তুলনায় বাইপোলার ডিসঅর্ডারে আক্রান্তদের আত্মীয়দের মধ্যে মেজর ডিপ্রেসিভ ডিসঅর্ডারের ঝুঁকি তিনগুণ বেশি।[২৭]

ম্যানিয়ার ক্ষেত্রে প্রথম জেনেটিক লিঙ্কেজ ১৯৬৯ সালে আবিষ্কার হয়,[৫৩]যদিও লিঙ্কেজ অধ্যয়নগুলি অসামঞ্জস্যপূর্ণ ছিল।[২৭] বিভিন্ন পরিবারে বিভিন্ন জিন জড়িত থাকার কারণে অনুসন্ধানগুলি দৃঢ়ভাবে ভিন্নতাকে নির্দেশ করে।[৫৪] পরিপুষ্ট এবং প্রতিলিপিযোগ্য জিনোম-ওয়াইড উল্লেখযোগ্য অ্যাসোসিয়েশনগুলি দেখিয়েছে যে, কয়েকটি সাধারণ একক-নিউক্লিওটাইড পলিমরফিজম (SNPs) বাইপোলার ডিসঅর্ডারের সাথে সম্পর্কিত, যার মধ্যে রয়েছে CACNA1C, ODZ4, এবং NCAN জিনের বিভিন্ন রূপ।[৪৩][৫৫] সবচেয়ে বড় এবং সাম্প্রতিক জিনোম-ওয়াইড অ্যাসোসিয়েশন অধ্যয়ন এমন কোনও লোকাস খুঁজে পেতে ব্যর্থ হয়েছে যা একটি বড় প্রভাব ফেলে, যেটি এই ধারণাটিকে শক্তিশালী করে যে, বেশিরভাগ ক্ষেত্রে বাইপোলার ডিসঅর্ডারের জন্য কোনও একক জিন দায়ী নয়।[৫৫] BDNF, DRD4, <i>DAO</i>, এবং TPH1 এ বহুরুপতা প্রায়ই দ্বিমেরু ব্যাধির সঙ্গে সম্পর্কিত রয়েছে এবং প্রাথমিকভাবে একটি মেটা-বিশ্লেষণের সাথে যুক্ত হয়েছিল, কিন্তু একাধিক পরীক্ষার সংশোধনের পর অ্যাসোসিয়েশনটি বিলুপ্ত হয়ে যায়।[৫৬] অন্যদিকে, TPH2 তে দুটি পলিমরফিজম বাইপোলার ডিসঅর্ডারের সাথে যুক্ত হিসাবে চিহ্নিত করা হয়েছিল।[৫৭]

একটি জিনোম-ওয়াইড অ্যাসোসিয়েশন অধ্যয়নের অসামঞ্জস্যপূর্ণ ফলাফলের কারণে, একাধিক গবেষণা জৈবিক পথগুলিতে SNPs বিশ্লেষণ করার পদ্ধতি গ্রহণ করেছে। সিগন্যালিং পথগুলো গতানুগতিকভাবে বাইপোলার ব্যাধির সঙ্গে জড়িত যা এই গবেষণাগুলোর দ্বারা সমর্থিত হয়েছে, সেগুলো হলো: কর্টিকরপিন-নিঃসরণ হরমোন সংকেত, কার্ডিয়াক বিটা-অ্যাড্রেজেনিক সিগন্যালিং, ফসফোলাইপেজ সি সংকেত, গ্লুটামেট রিসেপটর সিগন্যালিং,[৫৮] কার্ডিয়াক হাইপারট্রফি সিগন্যালিং, Wnt সিগন্যালিং, খাঁজ সিগন্যালিং,[৫৯] এবং এন্ডোথেলিন 1 সিগন্যালিং। এই পথগুলিতে চিহ্নিত ১৬ টি জিনের মধ্যে তিনটিকে পোস্ট-মর্টেম অধ্যয়নগুলোতে মস্তিষ্কের ডোরসোলেটারাল প্রিফ্রন্টাল কর্টেক্স অংশে অনিয়ন্ত্রিত পাওয়া গেছে, যে তিনটি হল: CACNA1C, GNG2, এবং ITPR2[৬০]

বাইপোলার ডিসঅর্ডার নির্দিষ্ট ডিএনএ মেরামত এনজাইমের নিঃসরণ হ্রাস এবং অক্সিডেটিভ ডিএনএ ক্ষতির মাত্রা বৃদ্ধির সাথে যুক্ত।[৬১]

পরিবেশগত[সম্পাদনা]

মনোসামাজিক কারণগুলি বাইপোলার ডিসঅর্ডারের বিকাশ এবং ক্রমোন্নতিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে এবং পৃথক মনোসামাজিক পরিবর্তনশীলগুলি জেনেটিক স্বভাবগুলির সাথে পারস্পারিক ক্রিয়া ঘটাতে পারে।[৬২] সাম্প্রতিক জীবনের ঘটনা এবং আন্তঃব্যক্তিক সম্পর্কগুলি সম্ভবত বাইপোলার মুড পর্বগুলির সূচনা এবং পুনরাবৃত্তিতে অবদান রাখে, ঠিক যেমন তারা ইউনিপোলার ডিপ্রেশনের ক্ষেত্রে অবদান রাখে।[৬৩] সমীক্ষাগুলোতে, বাইপোলার ডিসঅর্ডার নির্ণয় করা প্রাপ্তবয়স্কদের ৩০-৫০% শৈশবে আঘাতমূলক/অপমানজনক অভিজ্ঞতার বর্ণনা করে থাকে; যা নির্দিষ্ট সময়ের পূর্বেই সূত্রপাত, আত্মহত্যার চেষ্টার উচ্চ হার, এবং পোস্ট-ট্রমাটিক স্ট্রেস ডিসঅর্ডারের মতো আরও সহ-ঘটিত ব্যাধিগুলির সাথে সম্পর্কিত।[৬৪] বাইপোলার স্পেকট্রাম ডিসঅর্ডার আছে এমন প্রাপ্তবয়স্কদের মধ্যে বর্ণনা করা শৈশবের মানসিক চাপের ঘটনাগুলির সংখ্যা যাদের বাইপোলার স্পেকট্রাম ডিসঅর্ডার নেই তাদের তুলনায় বেশি, বিশেষ করে শিশুর নিজের আচরণের পরিবর্তে কঠোর পরিবেশ থেকে উদ্ভূত ঘটনাগুলি।[৬৫] তীব্রভাবে, বাইপোলার ডিসঅর্ডারে আক্রান্ত প্রায় ৩০% লোকের মধ্যে ঘুমের অভাবের কারণে ম্যানিয়া হতে পারে।[৬৬]

স্নায়বিক[সম্পাদনা]

বাইপোলার ব্যাধি বা বাইপোলার-সদৃশ ব্যাধি স্ট্রোক, মস্তিষ্কের আঘাতজনিত জখম, এইচআইভি সংক্রমণ, মাল্টিপল স্ক্লেরোসিস, পোরফাইরিয়া এবং কদাচিৎ টেম্পোরাল লোব এপিলেপসি সহ স্নায়বিক অবস্থা বা আঘাতের ফলে বা এর সাথে যুক্ত হতে পারে, সাধারণত কম।[৬৭]

প্রস্তাবিত প্রক্রিয়াসমূহ[সম্পাদনা]

3-D image of human brain emphasizing emotional regulation circuits
ব্রেইন ইমেজিং অধ্যয়নগুলি বাইপোলার ডিসঅর্ডার এবং সুস্থ রোগীদের মধ্যে মস্তিষ্কের বিভিন্ন অঞ্চলের আয়তনের পার্থক্য প্রকাশ করেছে।

বাইপোলার ডিসঅর্ডার সৃষ্টিকারী সুনির্দিষ্ট প্রক্রিয়াগুলি ভালভাবে বোঝা যায় না। বাইপোলার ডিসঅর্ডার জ্ঞানীয় কাজ এবং আবেগ প্রক্রিয়াকরণের জন্য দায়ী নির্দিষ্ট মস্তিষ্কের অঞ্চলগুলির গঠন এবং কার্যকারিতার অস্বাভাবিকতার সাথে যুক্ত বলে মনে করা হয়।[২৪] বাইপোলার ডিসঅর্ডারের জন্য একটি নিউরোলজিক মডেল উপস্থাপন করা হয় যে, মস্তিষ্কের মানসিক বর্তনীকে দুটি প্রধান অংশে ভাগ করা যেতে পারে।[২৪] ভেন্ট্রাল সিস্টেম (আবেগজনিত উপলব্ধি নিয়ন্ত্রণ করে) অ্যামিগডালা, ইনসুলা, ভেন্ট্রাল স্ট্রাইটাম, ভেন্ট্রাল অ্যান্টিরিয়র সিঙ্গুলেট কর্টেক্স এবং প্রিফ্রন্টাল কর্টেক্স এর মতো মস্তিষ্কের গঠনগুলোকে অন্তর্ভুক্ত করে।[২৪] ডোরসাল সিস্টেম (আবেগজনিত নিয়ন্ত্রণের জন্য দায়ী) এর মধ্যে রয়েছে হিপোক্যাম্পাস, ডোরসাল অ্যান্টিরিয়র সিঙ্গুলেট কর্টেক্স এবং প্রিফ্রন্টাল কর্টেক্সের অন্যান্য অংশ।[২৪] মডেলটি থেকে অনুমান করা হয় যে, বাইপোলার ডিসঅর্ডার ঘটতে পারে যখন ভেন্ট্রাল সিস্টেম অতিরিক্ত সক্রিয় হয় এবং ডোরসাল সিস্টেমটি কম সক্রিয় থাকে।[২৪] অন্যান্য মডেলগুলি উপস্থাপন করে যে, বাইপোলার ডিসঅর্ডারে আক্রান্ত ব্যক্তিদের মধ্যে আবেগ নিয়ন্ত্রণ করার ক্ষমতা ব্যাহত হয় এবং ভেন্ট্রিকুলার প্রিফ্রন্টাল কর্টেক্স (ভিপিএফসি) এর কর্মহীনতা এই ব্যাঘাতের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।[২৪]

স্ট্রাকচারাল এমআরআই গবেষণার মেটা-বিশ্লেষণে দেখা গেছে যে, মস্তিষ্কের কিছু অঞ্চল (যেমন, বাম রোস্ট্রাল অ্যান্টিরিয়র সিঙ্গুলেট কর্টেক্স, ফ্রন্টো-ইনসুলার কর্টেক্স, ভেন্ট্রাল প্রিফ্রন্টাল কর্টেক্স এবং ক্লাস্ট্রাম ) বাইপোলার ডিসঅর্ডারে আক্রান্ত ব্যক্তিদের মধ্যে ছোট, যেখানে অন্যান্য অঞ্চলগুলি বড় ( পার্শ্বীয় ভেন্ট্রিকল, গ্লোবাস প্যালিডাস, সাবজেনুয়াল অ্যান্টিরিয়র সিঙ্গুলেট, এবং অ্যামিগডালা)। উপরন্তু, এই মেটা-বিশ্লেষণে দেখা গেছে যে, বাইপোলার ডিসঅর্ডারে আক্রান্ত ব্যক্তিদের গভীর হোয়াইট ম্যাটারের হাইপারটেনসিটির হার বেশি।[৬৮][৬৯][৭০][৭১]

কার্যকরী এমআরআই ফলাফলগুলি উপস্থাপন করে যে, vPFC লিম্বিক তন্ত্র, বিশেষ করে অ্যামিগডালা নিয়ন্ত্রণ করে।[৭২] বাইপোলার ডিসঅর্ডারে আক্রান্ত ব্যক্তিদের মধ্যে, vPFC কার্যকলাপ হ্রাস অ্যামিগডালার অনিয়ন্ত্রিত কার্যকলাপ ঘটতে দেয়, যা সম্ভবত অস্থির মেজাজ এবং দুর্বল আবেগ নিয়ন্ত্রণে অবদান রাখে।[৭২] এর সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ, ম্যানিয়ার ফার্মাকোলজিকাল চিকিত্সা vPFC কার্যকলাপকে নন-ম্যানিক ব্যক্তিদের স্তরে ফিরিয়ে দেয়, যা ধারণা দেয় যে, vPFC কার্যকলাপ মেজাজ অবস্থার একটি সূচক। তবে, যদিও ম্যানিয়ার ফার্মাকোলজিকাল চিকিত্সা অ্যামিগডালার হাইপারঅ্যাকটিভিটি কমায়, এটি বাইপোলার ডিসঅর্ডারবিহীন অ্যামিগডালার চেয়ে বেশি সক্রিয় থাকে, যা এই ধারণা দেয় যে, অ্যামিগডালা কার্যকলাপ বর্তমান মেজাজ অবস্থার পরিবর্তে এই ব্যাধিটির একটি চিহ্নিতকারী হতে পারে।[৭৩] ম্যানিক এবং হতাশাজনক পর্বগুলি vPFC এর বিভিন্ন অঞ্চলে কর্মহীনতার দ্বারা চিহ্নিত করা হয়। ম্যানিক এপিসোডগুলি ডান vPFC-এর সক্রিয়তা হ্রাসের সাথে যুক্ত বলে মনে হয় যেখানে বিষণ্ণ পর্বগুলি বাম vPFC-এর সক্রিয়তা হ্রাসের সাথে যুক্ত থাকে।[৭২]

বাইপোলার ব্যাধি রয়েছে এমন মানুষ যারা ইউথাইমিক মেজাজ অবস্থায় আছেন তার মধ্যে বাইপোলার ব্যাধি নেই এমন মানুষের তুলনায় ভাষাগত জাইরাস কার্যকলাপ কম দেখা যায়।[২৪] বিপরীতভাবে, তারা ব্যাধিবিহীন লোকদের তুলনায় ম্যানিক পর্বের সময় নিম্নতর ফ্রন্টাল কর্টেক্সে কার্যকলাপের হ্রাস প্রদর্শন করে।[২৪] বাইপোলার ডিসঅর্ডার আছে এবং যাদের নেই তাদের মধ্যে মস্তিষ্কের ক্রিয়াকলাপের পার্থক্য পরীক্ষা করে এমন অনুরূপ গবেষণাগুলোয় এই দুটি গ্রুপের তুলনা করার সময় মস্তিষ্কের এমন একটি সামঞ্জস্যপূর্ণ অঞ্চল খুঁজে পাওয়া যায়নি যা কম বা বেশি সক্রিয় ছিল।[২৪] বাইপোলারে আক্রান্ত ব্যক্তিদের বাম গোলার্ধের ভেন্ট্রাল লিম্বিক অঞ্চলগুলির সক্রিয়তা বৃদ্ধি পায় — যা মানসিক অভিজ্ঞতা এবং মানসিক প্রতিক্রিয়া তৈরি করে — এবং জ্ঞানের সাথে সম্পর্কিত ডান গোলার্ধের কর্টিকাল কাঠামোর সক্রিয়তা হ্রাস করে — আবেগ নিয়ন্ত্রণের সাথে সম্পর্কিত কাঠামো।[৭৪]

স্নায়ুবিজ্ঞানীরা বাইপোলার ডিসঅর্ডারের কারণ ব্যাখ্যা করার জন্য অতিরিক্ত মডেলের প্রস্তাব করেছেন। বাইপোলার ডিসঅর্ডারের জন্য একটি প্রস্তাবিত মডেল ধারণা দেয় যে, ফ্রন্টোস্ট্রিয়াটাল সার্কিটগুলোর সমন্বিত পুরস্কার সার্কিটগুলোর অতি সংবেদনশীলতা ম্যানিয়া সৃষ্টি করে এবং এই সার্কিটগুলোর সংবেদনশীলতা হ্রাস বিষণ্নতার কারণ হয়।[৭৫] "কিন্ডলিং" হাইপোথিসিস অনুসারে, যখন জিনগতভাবে বাইপোলার ডিসঅর্ডারের দিকে প্রবণ ব্যক্তিরা মানসিক চাপের ঘটনা অনুভব করেন, তখন মানসিক চাপ প্রান্তিকে পৌঁছায় যেখানে মেজাজের পরিবর্তন ক্রমশ কম হয়, যতক্ষণ না পর্বগুলি শেষ পর্যন্ত স্বতঃস্ফূর্তভাবে শুরু হয় (এবং পুনরাবৃত্তি ঘটে)। প্রাথমিক জীবনের চাপ এবং হাইপোথ্যালামিক-পিটুইটারি-অ্যাড্রিনাল অক্ষের কর্মহীনতার মধ্যকার একটি সম্পর্ক রয়েছে যা এটির অতিরিক্ত সক্রিয়তার দিকে পরিচালিত করাকে সমর্থন করাকে প্রমাণ করে, যা বাইপোলার ডিসঅর্ডারের বিকাশে ভূমিকা পালন করতে পারে।[৭৬][৭৭] মস্তিষ্কের অন্যান্য উপাদান যা বাইপোলার ডিসঅর্ডারে ভূমিকা পালনের প্রস্তাব করা হয়েছে, তা হল মাইটোকন্ড্রিয়া[৪৯] এবং একটি সোডিয়াম ATPase পাম্প।[৭৮] সার্কাডিয়ান রিদম এবং মেলাটোনিন হরমোনের নিয়ন্ত্রণও পরিবর্তিত বলে মনে হয়।[৭৯]

ডোপামিন, মেজাজ আবর্তনের জন্য দায়ী একটি নিউরোট্রান্সমিটার, ম্যানিক পর্যায়ে যার পরিবহন বৃদ্ধি পেয়ে থাকে।[২৬][৮০] ডোপামিন হাইপোথিসিস বলে যে, ডোপামিনের বৃদ্ধির ফলে মূল সিস্টেমের উপাদান এবং রিসেপ্টর যেমন ডোপামিনার্জিক রিসেপ্টরগুলির নিম্ন সংবেদনশীলতার সেকেন্ডারি হোমিওস্ট্যাটিক ডাউনরেগুলেশন হয়। এর ফলে হতাশাজনক পর্যায়ের ডোপামিন পরিবহনের বৈশিষ্ট্য কমে যায়।[২৬] হোমিওস্ট্যাটিক আপরেগুলেশন সম্ভাব্যভাবে চক্রটিকে আবার পুনরায় চালু করার মাধ্যমে বিষণ্নতামূলক পর্ব শেষ হয়।[৮১] বাইপোলার ডিসঅর্ডারের ম্যানিক পর্ব চলাকালীন বাম ডোরসোলেটারাল প্রিফ্রন্টাল কর্টেক্সের মধ্যে গ্লুটামেট উল্লেখযোগ্যভাবে বৃদ্ধি পায় এবং পর্বটি শেষ হয়ে গেলে স্বাভাবিক স্তরে ফিরে আসে।[৮২]

বাইপোলারের চিকিৎসার জন্য ব্যবহৃত ওষুধগুলি আন্তঃকোষীয় সংকেত সংশোধন করে তাদের প্রভাব প্রয়োগ করতে পারে, যেমন মায়ো-ইনোসিটল মাত্রা হ্রাস করে, সিএএমপি সংকেতকে বাধা দিয়ে এবং ডোপামিন-সম্পর্কিত জি-প্রোটিনের সাবইউনিট পরিবর্তন করে।[৮৩] এর সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ, প্রোটিন কাইনেজ এ (PKA) নিঃসরণ এবং সংবেদনশীলতা বৃদ্ধির সাথে মস্তিষ্ক এবং রক্তের নমুনায় Gαi, Gαs, এবং Gαq/11-এর উচ্চ মাত্রার বর্ণনা করা হয়েছে;[৮৪] সাধারণত, পিকেএ জি প্রোটিন কমপ্লেক্স থেকে Gαsসাবইউনিটের বিচ্ছিন্নতা থেকে অন্তঃকোষীয় সংকেত উদ্ভবের অংশ হিসাবে সক্রিয় হয়।

৫-হাইড্রোক্সিইন্ডোলঅ্যাসেটিক অ্যাসিডের হ্রাস মাত্রা, সেরোটোনিনের একটি উপজাত, হতাশাগ্রস্ত এবং ম্যানিক উভয় পর্যায়েই বাইপোলার ডিসঅর্ডারে আক্রান্ত ব্যক্তিদের সেরিব্রোস্পাইনাল ফ্লুইডে উপস্থিত থাকে। বাইপোলার ডিসঅর্ডারে আক্রান্ত ব্যক্তিদের মধ্যে ডোপামিন অ্যাগোনিস্টগুলোর ম্যানিয়াকে উদ্দীপিত করার ক্ষমতার কারণে ম্যানিক অবস্থায় ডোপামিনার্জিক কার্যকলাপ বৃদ্ধি পায় বলে অনুমান করা হয়। নিয়ন্ত্রক α 2 অ্যাড্রেনার্জিক রিসেপ্টরগুলির সংবেদনশীলতা হ্রাস এবং সেইসাথে লোকাস কোয়েরুলাসে কোষের সংখ্যা বৃদ্ধি ম্যানিক লোকেদের মধ্যে অ্যাড্রেনারজিকবিহীন কার্যকলাপের বৃদ্ধি নির্দেশ করে। মুড স্পেকট্রামের উভয় পাশে কম প্লাজমা GABA স্তর পাওয়া গেছে।[৮৫] একটি পর্যালোচনায় মনোমাইনের মাত্রায় কোনো পার্থক্য পাওয়া যায়নি, তবে বাইপোলার ডিসঅর্ডারে আক্রান্ত ব্যক্তিদের মধ্যে অস্বাভাবিক নরেপিনাফ্রিন বিপর্যয় পাওয়া গেছে।[৮৬] টাইরোসিনের ক্ষয় বাইপোলার ডিসঅর্ডারে আক্রান্ত ব্যক্তিদের মধ্যে মেথামফেটামিনের প্রভাবকে কমাতে এবং সেইসাথে ম্যানিয়াতে ডোপামিনকে জড়িত করে ম্যানিয়ার লক্ষণগুলিকে হ্রাস করতে পাওয়া গেছে।[৮৭]

রোগ নির্ণয়[সম্পাদনা]

বাইপোলার ডিসঅর্ডার সাধারণত বয়ঃসন্ধিকালে বা প্রারম্ভিক যৌবনের সময় নির্ণয় করা হয়, তবে সূত্রপাত সারা জীবনের যে কোন সময় ঘটতে পারে।[৫][৮৮] ব্যক্তির স্ব-প্রতিবেদিত অভিজ্ঞতা, পরিবারের সদস্য, বন্ধু বা সহকর্মীদের দ্বারা বর্ণনা করা অস্বাভাবিক আচরণ, একজন চিকিত্সক দ্বারা মূল্যায়ন করা অসুস্থতার লক্ষণীয় লক্ষণসমূহ এবং অন্যান্য কারণগুলিকে বাতিল করার জন্য আদর্শভাবে একটি মেডিকেল ওয়ার্ক-আপের উপর ভিত্তি করে এটি নির্ণয় করা হয়। কেয়ারগিভার-স্কোর করা রেটিং স্কেল, বিশেষ করে মায়ের কাছ থেকে, বাইপোলার ডিসঅর্ডারে আক্রান্ত যুবকদের শনাক্ত করার ক্ষেত্রে শিক্ষক এবং যুব-স্কোর করা বর্ণনার চেয়ে বেশি সঠিক বলে দেখানো হয়েছে।[৮৯] মূল্যায়ন সাধারণত বহিরাগত রোগীদের ভিত্তিতে করা হয়; যদি নিজের বা অন্যদের জন্য ঝুঁকি থাকে তাহলে ইনপেশেন্ট সুবিধায় ভর্তির বিষয়টি বিবেচনা করা হয়।

বাইপোলার ডিসঅর্ডার নির্ণয়ের জন্য সর্বাধিক ব্যবহৃত মানদণ্ড হল আমেরিকান সাইকিয়াট্রিক অ্যাসোসিয়েশনের (এপিএ) ডায়াগনস্টিক অ্যান্ড স্ট্যাটিস্টিক্যাল ম্যানুয়াল অফ মেন্টাল ডিসঅর্ডার, পঞ্চম সংস্করণ (DSM-5) এবং বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (WHO) ইন্টারন্যাশনাল স্ট্যাটিস্টিক্যাল ক্লাসিফিকেশন অব ডিজিজেস অ্যান্ড রিলেটেড হেলথ প্রব্লেমস, দশম সংস্করণ (ICD-10)। ICD-10 মানদণ্ড মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বাইরে ক্লিনিকাল নির্দিষ্টকরণে প্রায়শই ব্যবহৃত হয় যেখানে DSM মানদণ্ড মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে ব্যবহৃত হয় এবং এগুলো গবেষণা অধ্যয়নে আন্তর্জাতিকভাবে ব্যবহৃত প্রচলিত মানদণ্ড। ২০১৩ সালে প্রকাশিত DSM-5, এর পূর্বসূরি, DSM-IV-TR- এর তুলনায় আরও এবং আরও সঠিক নির্দিষ্টকারক অন্তর্ভুক্ত করে।[৯০] এই কাজটি আইসিডির আসন্ন একাদশ সংশোধনকে প্রভাবিত করেছে, যার মধ্যে ডিএসএম-৫ এর বাইপোলার স্পেকট্রামের মধ্যে বিভিন্ন রোগ নির্ণয় অন্তর্ভুক্ত রয়েছে।[৯১]

বাইপোলার ডিসঅর্ডার স্ক্রিনিং এবং মূল্যায়নের জন্য বেশ কিছু রেটিং স্কেল[৯২] যার মধ্যে রয়েছে বাইপোলার স্পেকট্রাম ডায়াগনস্টিক স্কেল, মুড ডিসঅর্ডার প্রশ্নাবলী, সাধারণ আচরণের তালিকা এবং হাইপোম্যানিয়া চেকলিস্ট ।[৯৩] মূল্যায়নের স্কেলগুলির ব্যবহার একটি সম্পূর্ণ ক্লিনিকাল সাক্ষাত্কারকে প্রতিস্থাপন করতে পারে না তবে তারা উপসর্গগুলির স্মরণকে পদ্ধতিগত করতে পরিবেশন করে।[৯৩] অন্যদিকে, বাইপোলার ডিসঅর্ডার স্ক্রিনিং করার যন্ত্রগুলির সংবেদনশীলতা কম থাকে।[৯২]

পার্থক্যগত রোগ নির্ণয়[সম্পাদনা]

বাইপোলার ডিসঅর্ডার একটি মানসিক এবং আচরণগত ব্যাধি হিসাবে রোগের আন্তর্জাতিক শ্রেণীবিভাগ দ্বারা শ্রেণীবদ্ধ করা হয়।[৯৪] বাইপোলার ডিসঅর্ডারে দেখা যায় এমন মানসিক ব্যাধিগুলির মধ্যে রয়েছে সিজোফ্রেনিয়া, মেজর ডিপ্রেসিভ ডিসঅর্ডার,[৯৫] অ্যাটেনশন ডেফিসিট হাইপারঅ্যাকটিভিটি ডিসঅর্ডার (ADHD), এবং নির্দিষ্ট ব্যক্তিত্বের ব্যাধি, যেমন বর্ডারলাইন পার্সোনালিটি ডিসঅর্ডার[৯৬][৯৭][৯৮] বাইপোলার ডিসঅর্ডার এবং বর্ডারলাইন পার্সোনালিটি ডিসঅর্ডারের মধ্যে একটি মূল পার্থক্য হল মেজাজের পরিবর্তনের প্রকৃতি; দিন থেকে সপ্তাহ বা তারও বেশি সময় ধরে মেজাজের স্থায়িত্ব পরিবর্তনের বিপরীতে, পরবর্তী অবস্থার (আরো সঠিকভাবে বলা হয় আবেগীয় অ্স্থিরতা ) আকস্মিক এবং প্রায়শই স্বল্পস্থায়ী এবং সামাজিক চাপের আনুষঙ্গিক।[৯৯]

যদিও বাইপোলার ডিসঅর্ডারের নির্ণয়কারী কোন জৈবিক পরীক্ষা নেই,[৫৫] রক্ত পরীক্ষা এবং/অথবা ইমেজিং করা হয় যেন একটি নির্দিষ্ট নির্ণয়ের আগে বাইপোলার ডিসঅর্ডারের মতো ক্লিনিকাল উপস্থাপনা সহ চিকিৎসাগত অসুস্থতাগুলি উপস্থিত রয়েছে কিনা তা তদন্ত করা যায়। স্নায়বিক রোগ যেমন মাল্টিপল স্ক্লেরোসিস, জটিল আংশিক খিঁচুনি, স্ট্রোক, ব্রেন টিউমার, উইলসন ডিজিজ, মস্তিষ্কের আঘাতজনিত জখম , হান্টিংটন ডিজিজ এবং জটিল মাইগ্রেন বাইপোলার ডিসঅর্ডারের বৈশিষ্ট্যগুলিকে অনুকরণমূলক হতে পারে।[৮৮] একটি ইইজি স্নায়বিক ব্যাধি যেমন মৃগীরোগ বাদ দিতে ব্যবহার করা যেতে পারে এবং মস্তিষ্কের ক্ষতগুলি বাদ দিতে মাথার সিটি স্ক্যান বা এমআরআই ব্যবহার করা যেতে পারে।[৮৮] উপরন্তু, অন্তঃস্রাবী গ্রন্থিতন্ত্রের ব্যাধি যেমন হাইপোথাইরয়েডিজম, হাইপারথাইরয়েডিজম এবং কুশিং'স ডিজিজ সংযোজক টিস্যু রোগের সিস্টেমিক লুপাস এরিথেমাটোসাসের মতো পার্থক্যের মধ্যে রয়েছে। ম্যানিয়ার সংক্রামক কারণ যা বাইপোলার ম্যানিয়ার মতো দেখা দিতে পারে তার মধ্যে রয়েছে হারপিস এনসেফালাইটিস, এইচআইভি, ইনফ্লুয়েঞ্জা বা নিউরোসিফিলিস ।[৮৮] কিছু ভিটামিনের ঘাটতি যেমন: পেলাগ্রা (নিয়াসিনের অভাব), ভিটামিন বি 12 ঘাটতি, ফোলেটের ঘাটতি এবং ওয়ার্নিক কোরসাকফ সিন্ড্রোম (থায়ামিনের অভাব) এর কারণে ম্যানিয়া হতে পারে।[৮৮] সাধারণ ওষুধ যা ম্যানিক উপসর্গ সৃষ্টি করতে পারে তার মধ্যে রয়েছে অ্যান্টিডিপ্রেসেন্টস, প্রিডনিসোন, পারকিনসন্স রোগের ওষুধ, থাইরয়েড হরমোন, উদ্দীপক (কোকেন এবং মেথামফেটামিন সহ), এবং কিছু অ্যান্টিবায়োটিক[১০০]

বাইপোলার স্পেকট্রাম[সম্পাদনা]

Kraepelin looking to the side
১৯ শতকে এমিল ক্রেপেলিন বাইপোলার ডিসঅর্ডার এবং সিজোফ্রেনিয়ার মধ্যে পার্থক্য করেছেন, গবেষকরা বিভিন্ন ধরণের বাইপোলার ডিসঅর্ডারের একটি বর্ণালি সংজ্ঞায়িত করেছেন।

বাইপোলার স্পেকট্রাম ডিসঅর্ডারগুলির মধ্যে রয়েছে: বাইপোলার I ডিসঅর্ডার, বাইপোলার II ডিসঅর্ডার, সাইক্লোথাইমিক ডিসঅর্ডার এবং এমন ক্ষেত্রগুলো যেখানে উপসীমা লক্ষণগুলি চিকিত্সাগতভাবে উল্লেখযোগ্য বৈকল্য বা কষ্টের কারণ হিসাবে পাওয়া যায়।[৫][৮৮][৯১] এই ব্যাধিগুলির মধ্যে প্রধান হতাশাজনক পর্বগুলি জড়িত যা ম্যানিক বা হাইপোম্যানিক পর্বগুলির সাথে একান্তরিত হয়, বা মিশ্র পর্বগুলির সাথে যা উভয় মেজাজের অবস্থার লক্ষণগুলিকে বৈশিষ্ট্যযুক্ত করে।[৫] বাইপোলার স্পেকট্রামের ধারণাটি এমিল ক্রেপেলিনের ম্যানিক ডিপ্রেসিভ অসুস্থতার মূল ধারণার অনুরূপ।[১০১] বাইপোলার II ডিসঅর্ডার ডিএসএম IV এর মধ্যে 1994 সালে একটি রোগনির্ণয় হিসাবে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল; যদিও এটি একটি স্বতন্ত্র সত্তা, একটি বর্ণালি অংশ, বা আদৌ বিদ্যমান কিনা তা নিয়ে বিতর্ক অব্যাহত রয়েছে।[১০২]

মানদণ্ড এবং উপপ্রকার[সম্পাদনা]

বাইপোলার I, বাইপোলার II এবং সাইক্লোথিমিয়ার সরলীকৃত রৈখিক তুলনা[১০৩][১০৪] :২৬৭

ডিএসএম এবং আইসিডি বাইপোলার ডিসঅর্ডারকে একটি ধারাবাহিকতায় ঘটতে থাকা ব্যাধিগুলির একটি বর্ণালি হিসাবে চিহ্নিত করে। DSM-5 এবং ICD-11 তিনটি নির্দিষ্ট উপপ্রকার তালিকাভুক্ত করে:[৫][৯১]

  • বাইপোলার I ডিসঅর্ডার : রোগটি নির্ণয় করার জন্য অন্তত একটি ম্যানিক পর্ব প্রয়োজন;[১০৫] বিষণ্ণতা পর্বের বাইপোলার I ব্যাধি অধিকাংশ ক্ষেত্রে সাধারণ, কিন্তু নির্ণয়ের জন্য অপ্রয়োজনীয়।[২৭] "হালকা, মাঝারি, মাঝারি-গভীর, গুরুতর" এবং "সাইকোটিক বৈশিষ্ট্য সহ" এর মতো নির্দিষ্টকারকগুলি ব্যাধিটির উপস্থাপনা এবং গতিপথ নির্দেশ করার জন্য প্রযোজ্য হিসাবে যুক্ত করা উচিত।[৫]
  • বাইপোলার II ডিসঅর্ডার : কোনও ম্যানিক পর্ব নেই এবং এক বা একাধিক হাইপোম্যানিক পর্ব এবং এক বা একাধিক প্রধান বিষণ্ন পর্ব নেই।[১০৫] হাইপোম্যানিক এপিসোডগুলি ম্যানিয়ার সম্পূর্ণ চরমে যায় না (অর্থাৎ, সাধারণত গুরুতর সামাজিক বা পেশাগত প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করে না এবং এটি সাইকোসিস ছাড়াই হয়) এবং এটি বাইপোলার II নির্ণয় করা আরও কঠিন করে তুলতে পারে, যেহেতু হাইপোম্যানিক পর্বগুলি কেবল সফল উচ্চ উত্পাদনশীলতার পর্ব হিসাবে প্রদর্শিত হতে পারে এবং একটি বিরক্তিকর, পঙ্গু বিষণ্নতার তুলনায় কম ঘন ঘন বলে বর্ণনা করা হয়।
  • সাইক্লোথাইমিয়া : বিষণ্নতার সময়কাল সহ হাইপোম্যানিক পর্বের ইতিহাস যা প্রধান বিষণ্ন পর্বের জন্য মানদণ্ড পূরণ করে না।[১০৬]

প্রাসঙ্গিক হলে, পেরিপার্টাম সুত্রপাত এবং দ্রুত আবর্তনের জন্য নির্দিষ্টকারকগুলো যেকোন সাব-টাইপের সাথে ব্যবহার করা উচিত। যে সমস্ত ব্যক্তিদের উপ-সীমা উপসর্গ রয়েছে যা ক্লিনিক্যালি উল্লেখযোগ্য যন্ত্রণা বা প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করে, কিন্তু তিনটি উপ-প্রকারের একটির জন্য সম্পূর্ণ মানদণ্ড পূরণ করে না তাদের অন্য নির্দিষ্ট বা অনির্দিষ্ট বাইপোলার ডিসঅর্ডার নির্ণয় করা যেতে পারে। অন্যান্য নির্দিষ্ট বাইপোলার ডিসঅর্ডার ব্যবহার করা হয় যখন একজন চিকিত্সক ব্যাখ্যা করতে চান যে কেন সম্পূর্ণ মানদণ্ড পূরণ করা হয়নি (যেমন: হাইপোম্যানিয়া পূর্বের প্রধান বিষণ্নতামূলক পর্ব ছাড়া)।[৫] যদি এই অবস্থার একটি অ-মানসিক চিকিৎসার কারণ আছে বলে মনে করা হয়, তবে অন্য একটি চিকিৎসা অবস্থার কারণে বাইপোলার এবং সম্পর্কিত ব্যাধি নির্ণয় করা হয়, যখন মাদক/ওষুধ-প্ররোচিত বাইপোলার এবং সম্পর্কিত ব্যাধি ব্যবহার করা হয় যদি কোনো ওষুধ উদ্দীপিত করেছে বলে মনে করা হয়।[১০৭]

দ্রুত আবর্তন[সম্পাদনা]

বাইপোলার ডিসঅর্ডারের মাপকাঠি পূরণকারী বেশিরভাগ লোকই তিন থেকে ছয় মাস স্থায়ী, প্রতি বছর গড়ে ০.৪ থেকে ০.৭ পর্যন্ত বেশ কয়েকটি পর্বের অভিজ্ঞতা পান।[১০৮] তবে দ্রুত আবর্তন একটি ক্রম নির্দিষ্টকারক যা যেকোনো বাইপোলার সাব-টাইপের ক্ষেত্রে প্রয়োগ করা যেতে পারে। এটিকে এক বছরের মধ্যে চার বা তার বেশি মেজাজ ব্যাঘাতের পর্ব হিসাবে সংজ্ঞায়িত করা হয়। দ্রুত আবর্তন সাধারণত অস্থায়ী কিন্তু বাইপোলার ডিসঅর্ডারে আক্রান্ত ব্যক্তিদের মধ্যে এটি সাধারণ এবং তাদের জীবনের কোনো না কোনো সময়ে তাদের মধ্যে ২.৮%-৪৫.৩% এর মধ্যে প্রভাব ফেলে।[৩৯][১০৯] এই পর্বগুলি অন্তত দুই মাসের জন্য উপশম (আংশিক বা পূর্ণ) বা মেজাজ প্রান্তিকতার পরিবর্তন (অর্থাৎ, একটি হতাশাজনক পর্ব থেকে একটি ম্যানিক পর্বে বা বিপরীতে) দ্বারা একে অপরের থেকে পৃথক করা হয়।[২৭] দ্রুত আবর্তনের ডনার এবং ফিভের সংজ্ঞাটি প্রকাশিত কাজে (DSM-V এবং ICD-11 সহ) প্রায়শই উদ্ধৃত করা হয়েছে : ১২ মাসের সময়কালে কমপক্ষে চারটি প্রধান বিষণ্ণ, ম্যানিক, হাইপোম্যানিক বা মিশ্র পর্ব।[১১০] দ্রুত আবর্তনের ফার্মাকোলজিকাল চিকিত্সার পরীক্ষা করা প্রকাশিত কাজে বিক্ষিপ্ত এবং এর সর্বোত্তম ফার্মাকোলজিক্যাল ব্যবস্থাপনার ক্ষেত্রে কোন স্পষ্ট ঐকমত্য নেই।[১১১] বাইপোলার ডিসঅর্ডারের দ্রুত আবর্তনের বা আল্ট্রাডিয়ান সাব-টাইপযুক্ত লোকেরা বাইপোলার ডিসঅর্ডারে আক্রান্ত অন্যান্য ব্যক্তিদের তুলনায় চিকিত্সা করা আরও কঠিন এবং ওষুধের প্রতি কম প্রতিক্রিয়াশীল হতে থাকে।[১১২]

শিশু[সম্পাদনা]

শিশুদের মধ্যে ম্যানিয়ার চিকিৎসার জন্য এফডিএ কর্তৃক অনুমোদিত একমাত্র ওষুধ হল লিথিয়াম।

১৯২০ এর দশকে, ক্রেপেলিন উল্লেখ করেছেন যে, বয়ঃসন্ধির আগে ম্যানিক পর্বগুলি বিরল।[১১৩] সাধারণভাবে, শিশুদের মধ্যে বাইপোলার ডিসঅর্ডার বিংশ শতাব্দীর প্রথমার্ধে স্বীকৃত ছিল না। বিংশ শতাব্দীর শেষ ভাগে ডিএসএম মানদণ্ডের ক্রমবর্ধমান অনুসরণের সাথে এই সমস্যাটি হ্রাস পেয়েছে।[১১৩][১১৪] শৈশবকালীন বাইপোলার ডিসঅর্ডারের নির্ণয়, যদিও পূর্বে বিতর্কিত ছিল,[১১৫] শৈশব এবং কৈশোর মনোরোগ বিশেষজ্ঞদের মধ্যে অধিকতর গ্রহণযোগ্যতা অর্জন করেছে।[১১৬] কমিউনিটি হাসপাতালে বাইপোলার ডিসঅর্ডারে আক্রান্ত আমেরিকান শিশু এবং কিশোর-কিশোরীদের একবিংশ শতাব্দীর শুরুতে ১০ বছরে ৪০% পর্যন্ত পৌঁছানোর হার ৪-গুণ বেড়েছে, যেখানে বহির্বিভাগের ক্লিনিকগুলিতে এটি দ্বিগুণ হয়ে ৬%-এ পৌঁছেছে।[১১৫] ডিএসএম মানদণ্ড ব্যবহার করে অধ্যয়নগুলি দেখায় যে, ১% পর্যন্ত যুবকের বাইপোলার ডিসঅর্ডার থাকতে পারে।[১১৩] ডিএসএম-5 একটি রোগ নির্ণয় প্রতিষ্ঠা করেছে- ডিসরাপটিভ মুড ডিসরেগুলেশন ডিসঅর্ডার-যা শিশুদের দীর্ঘমেয়াদী, ক্রমাগত বিরক্তিকরতাকে অন্তর্ভুক্ত করে যাকে কখনও কখনও বাইপোলার ডিসঅর্ডার বলে ভুল ভাবে চিহ্নিত করা হয়ে থাকে[১১৭] বাইপোলার ডিসঅর্ডারে খিটখিটে থেকে আলাদা যা বিচ্ছিন্ন মেজাজ পর্বের মধ্যে সীমাবদ্ধ।[১১৬]

বয়স্ক[সম্পাদনা]

বাইপোলার ডিসঅর্ডার বয়স্ক রোগীদের মধ্যে বিরল, পরিমাপিত জীবনকালের প্রাদুর্ভাব ৬০ এর বেশি বয়সীদের মধ্যে ১% এবং ১২-মাসের প্রভাব ৬৫ বছরের বেশি লোকেদের মধ্যে ০.১ থেকে ০.৫%। তা সত্ত্বেও, এটি মানসিক রোগের ভর্তিতে অতিরিক্তভাবে উপস্থাপন করা হয়, যা বয়স্ক পরিচর্যা সাইকিয়াট্রি ইউনিটে ভর্তি রোগীর ৪ থেকে ৮% তৈরি করে, এবং বয়স্ক জনসংখ্যার সাথে সামগ্রিকভাবে মেজাজের ব্যাধির ঘটনা বৃদ্ধি পাচ্ছে। হতাশাজনক পর্বগুলি সাধারণত ঘুমের ব্যাঘাত, ক্লান্তি, ভবিষ্যত সম্পর্কে হতাশা, ধীর চিন্তা, এবং দুর্বল একাগ্রতা এবং স্মৃতিশক্তি সহ উপস্থিত থাকে; শেষ তিনটি উপসর্গ দেখা যায় যা সিউডোমেনশিয়া নামেও পরিচিত। দেরীতে শুরু হওয়া বাইপোলার ডিসঅর্ডার এবং যারা জীবনের প্রথম দিকে এটি বিকাশ করেছিলেন তাদের মধ্যে ক্লিনিকাল বৈশিষ্ট্যগুলিও আলাদা; পূর্বের দলটিতে হালকা ম্যানিক এপিসোড সহ উপস্থিত থাকে, আরও বিশিষ্ট জ্ঞানীয় পরিবর্তন এবং খারাপ মনোসামাজিক কার্যকারিতার পটভূমি রয়েছে, যখন পরবর্তী দলগুলি সাধারণত মিশ্র আবেগপূর্ণ পর্বগুলির সাথে উপস্থিত থাকে,[১১৮] এবং অসুস্থতার একটি শক্তিশালী পারিবারিক ইতিহাস থাকে।[১১৯] বাইপোলার ডিসঅর্ডারে আক্রান্ত বয়স্ক ব্যক্তিরা জ্ঞানীয় পরিবর্তনের শিকার হন, বিশেষ করে কার্যনির্বাহী ফাংশনে যেমন, বিমূর্ত চিন্তাভাবনা এবং জ্ঞানীয় সেটগুলি পরিবর্তন হওয়া, সেইসাথে দীর্ঘ সময়ের জন্য মনোনিবেশ করা এবং সিদ্ধান্ত নেওয়া।[১১৮]

প্রতিরোধ[সম্পাদনা]

বাইপোলার ডিসঅর্ডার প্রতিরোধের প্রচেষ্টা চাপের উপর দৃষ্টি নিবদ্ধ করেছে (যেমন শৈশব প্রতিকূলতা বা অত্যন্ত বিরোধপূর্ণ পরিবার) যা যদিও বাইপোলারের জন্য একটি ডায়াগনস্টিকভাবে নির্দিষ্ট কার্যকারক এজেন্ট নয়, জিনগত এবং জৈবিকভাবে দুর্বল ব্যক্তিদের অসুস্থতার আরও গুরুতর অসুস্থতার ঝুঁকিতে রাখে।[১২০] অনুদৈর্ঘ্য গবেষণায় ইঙ্গিত দেওয়া হয়েছে যে পূর্ণ-বিকশিত ম্যানিক পর্যায়গুলি প্রায়শই বিভিন্ন ধরণের প্রড্রোমাল ক্লিনিকাল বৈশিষ্ট্য দ্বারা পূর্ববর্তী থাকে, যা একটি ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থার সংঘটনের জন্য সহায়তা প্রদান করে যখন একটি প্রাথমিক হস্তক্ষেপ এর আরও বিকাশকে বাধা দিতে পারে এবং/অথবা এর ফলাফলকে উন্নত করতে পারে।[১২১][১২২]

ব্যবস্থাপনা[সম্পাদনা]

ব্যবস্থাপনার লক্ষ্য হল ওষুধের মাধ্যমে নিরাপদে তীব্র পর্বগুলোর চিকিৎসা করা এবং রোগীর সাথে দীর্ঘমেয়াদী রক্ষণাবেক্ষণে কাজ করা যাতে পরবর্তী পর্বগুলি প্রতিরোধ করা যায় এবং ফার্মাকোলজিকাল এবং সাইকোথেরাপিউটিক কৌশলগুলির সংমিশ্রণ ব্যবহার করা যাতে স্বাভাবিক ক্রিয়া কার্যকরী করা যায়।[১৪] হাসপাতালে ভর্তির প্রয়োজন হতে পারে বিশেষ করে বাইপোলার I-এ উপস্থিত ম্যানিক পর্বগুলি সহ। এটি স্বেচ্ছামূলক বা (স্থানীয় আইনের অনুমতি সাপেক্ষে) অনৈচ্ছিক হতে পারে। অপ্রাতিষ্ঠানিকীকরণের কারণে দীর্ঘমেয়াদে ভর্তি থাকা এখন কম সাধারণ, যদিও এটি এখনও ঘটতে পারে।[১২৩] হাসপাতালে ভর্তির পরে (বা পরিবর্তে), উপলব্ধ সহায়তা পরিষেবাগুলির মধ্যে অন্তর্ভুক্ত থাকতে পারে ড্রপ-ইন সেন্টারসমূহ, একটি কমিউনিটি মানসিক স্বাস্থ্য দলের সদস্যদের পরিদর্শন বা অ্যাসার্টিভ কমিউনিটি ট্রিটমেন্ট টিম, সমর্থিত কর্মসংস্থান, রোগীর স্ব-সহায়ক গোষ্ঠী এবং বহিরাগত রোগীদের নিবিড় কার্যক্রম । এগুলিকে কখনও কখনও আংশিক-ভর্তি কার্যক্রম হিসাবে উল্লেখ করা হয়।[১২৪]

মনোসামাজিক[সম্পাদনা]

সাইকোথেরাপির লক্ষ্য হল বাইপোলার ডিসঅর্ডারে আক্রান্ত ব্যক্তিকে তাদের রোগ নির্ণয় মেনে নিতে এবং তা বুঝতে, বিভিন্ন ধরণের চাপের সাথে মোকাবিলা করতে, তাদের আন্তঃব্যক্তিক সম্পর্কের উন্নতি করতে এবং পূর্ণ বিকাশের আগে প্রড্রোমাল লক্ষণগুলি শনাক্ত করতে সহায়তা করা।[১২] জ্ঞানীয় আচরণগত থেরাপি, পরিবার-কেন্দ্রিক থেরাপি, এবং মনোশিক্ষার এটির পুনরায় সংক্রমণ প্রতিরোধের ক্ষেত্রে কার্যকারিতার সর্বাধিক প্রমাণ রয়েছে, যেখানে আন্তঃব্যক্তিক এবং সোশ্যাল রিদম থেরাপি এবং জ্ঞানীয়-আচরণগত থেরাপি অবশিষ্ট বিষণ্নতার লক্ষণগুলির ক্ষেত্রে সবচেয়ে কার্যকর বলে মনে হয়। বেশিরভাগ গবেষণা শুধুমাত্র বাইপোলার I এর উপর ভিত্তি করে করা হয়েছে, তবে, এবং তীব্র পর্যায়ে চিকিত্সা একটি বিশেষ চ্যালেঞ্জ হতে পারে।[১২৫] কিছু চিকিত্সক আরোগ্যের সমর্থনে একটি থেরাপিউটিক জোট গড়ে তোলার জন্য ম্যানিয়ায় আক্রান্ত ব্যক্তিদের সাথে কথা বলার প্রয়োজনীয়তার উপর জোর দেন।[১২৬]

ঔষধ[সম্পাদনা]

বাইপোলার ডিসঅর্ডার চিকিত্সার জন্য প্রায়ই লিথিয়াম ব্যবহৃত হয় এবং আত্মহত্যা কমানোর ক্ষেত্রে এর সর্বোত্তম প্রমাণ রয়েছে।

কোন পর্বের চিকিত্সা করা হচ্ছে তার উপর নির্ভর করে ওষুধগুলি আলাদা হতে পারে।[১৪] সর্বোত্তম সামগ্রিক প্রমাণ সহ ওষুধ হল লিথিয়াম, যা তীব্র ম্যানিক এপিসোড, পুনরায় সংক্রমণ প্রতিরোধ এবং বাইপোলার ডিপ্রেশন এর একটি কার্যকর চিকিত্সা।[১২৭][১২৮] লিথিয়াম বাইপোলার ডিসঅর্ডারে আক্রান্ত ব্যক্তিদের আত্মহত্যা, আত্ম-ক্ষতি এবং মৃত্যুর ঝুঁকি কমায়।[১২৯] একত্রে ব্যবহৃত অ্যান্টিসাইকোটিকস এবং মুড স্টেবিলাইজারগুলি এককভাবে ব্যবহৃত যেকোন শ্রেণীর ওষুধের চেয়ে ম্যানিয়ার চিকিৎসায় দ্রুত এবং বেশি কার্যকর। কিছু বিশ্লেষণ ইঙ্গিত দেয় যে, এককভাবে অ্যান্টিসাইকোটিকগুলি তীব্র ম্যানিয়ার চিকিত্সার ক্ষেত্রেও বেশি কার্যকর।[১৪] মুড স্টেবিলাইজারগুলি দীর্ঘমেয়াদী রক্ষণাবেক্ষণের জন্য ব্যবহার করা হয় তবে তীব্র বাইপোলার ডিপ্রেশনের দ্রুত চিকিত্সা করার ক্ষমতা প্রদর্শন করেনি।[১১২] বাইপোলার ডিসঅর্ডারের ক্ষেত্রে কেটামাইন (সাধারণ সাধারণ বিয়োজনকারী অ্যানেস্থেটিক, যা অস্ত্রপাচারে ব্যবহৃত হয়) উপকারী কিনা তা অস্পষ্ট।[১৩০] [হালনাগাদ প্রয়োজন]

মুড স্টেবিলাইজার[সম্পাদনা]

লিথিয়াম এবং অ্যান্টিকনভালসেন্ট কার্বামাজেপাইন, ল্যামোট্রিজিন এবং ভালপ্রোইক অ্যাসিডকে বাইপোলার ডিসঅর্ডারের মেজাজ অবস্থার উপর প্রভাবের কারণে মেজাজ স্থিতিশীলকারক হিসাবে শ্রেণীবদ্ধ করা হয়।[১১২] লিথিয়াম দীর্ঘমেয়াদী মেজাজ স্থিতিশীল করার জন্য বেছে নেওয়া হয়,[৬৩] যদিও এটি দীর্ঘকালীন সময়ের মধ্যে কিডনি এবং থাইরয়েডের কার্যকারিতা নষ্ট করে।[১৪] ভালপ্রোয়েট সাধারণভাবে নির্ধারিত একটি চিকিত্সা হয়ে উঠেছে এবং কার্যকরভাবে ম্যানিক এপিসোডগুলির চিকিত্সা করে।[১৩১] কারবামাজেপাইন লিথিয়াম বা ভালপ্রোয়েটের তুলনায় পুনরায় সংক্রমণ প্রতিরোধে কম কার্যকর।[১৩২][১৩৩] বিষণ্নতার চিকিৎসায় ল্যামোট্রিজিনের কিছু কার্যকারিতা রয়েছে এবং এই সুবিধাটি আরও গুরুতর বিষণ্নতায় সবচেয়ে বেশি হয়।[১৩৪] বাইপোলার ডিসঅর্ডার পুনরায় সংক্রমণ প্রতিরোধে এটির কিছু সুবিধা রয়েছে বলেও প্রমাণিত হয়েছে, যদিও গবেষণাগুলি সম্বন্ধে উদ্বেগ রয়েছে এবং বাইপোলার ডিসঅর্ডারের দ্রুত আবর্তনশীল উপ-প্রকারের ক্ষেত্রে কোনও লাভ হয় না।[১৩৫] ভ্যালপ্রোয়েট এবং কার্বামাজেপাইন টেরাটোজেনিক এবং সন্তান জন্মদানের বয়সের মহিলাদের ক্ষেত্রে চিকিত্সা হিসাবে এড়ানো উচিত, তবে গর্ভাবস্থায় এই ওষুধগুলি বন্ধ করা পুনরায় সংক্রমণের উচ্চ ঝুঁকির সাথে যুক্ত।[১৯] টপিরামেটের কার্যকারিতা য।[১৩৬] কার্বামাজেপাইন কার্যকরভাবে ম্যানিক এপিসোডের চিকিৎসা করে, এটি দ্রুত-আবর্তনশীল বাইপোলার ডিসঅর্ডারে বেশি উপকারী বলে কিছু প্রমাণে রয়েছে, অথবা যাদের বেশি সাইকোটিক লক্ষণ রয়েছে বা স্কিজোঅ্যাফেক্টিভ ডিসঅর্ডারের মতো আরও বেশি লক্ষণ রয়েছে।

অ্যান্টিসাইকোটিকস[সম্পাদনা]

অ্যান্টিসাইকোটিক ওষুধগুলি বাইপোলার ম্যানিক পর্বের স্বল্পমেয়াদী চিকিত্সার জন্য কার্যকর এবং এই উদ্দেশ্যে লিথিয়াম এবং অ্যান্টিকনভালসেন্টের চেয়ে উচ্চতর বলে মনে হয়।[৬৩] এছাড়াও অনিয়মিত অ্যান্টিসাইকোটিকগুলো অদমনীয় বাইপোলার ডিপ্রেশন মেজাজ স্টেবিলাইজারগুলোর সাথে চিকিত্সার জন্য নির্দেশিত হয়।[১১২] ওলানজাপাইন পুনরায় সংক্রমণ প্রতিরোধে কার্যকর, যদিও এটির সহায়ক প্রমাণ লিথিয়ামের প্রমাণের চেয়ে দুর্বল।[১৩৭] ২০০৬ সালের একটি পর্যালোচনায় দেখা গেছে যে, হ্যালোপেরিডল তীব্র ম্যানিয়ার জন্য একটি কার্যকর চিকিত্সা, সীমিত উপাত্ত হ্যালোপেরিডল, ওলানজাপাইন বা রিসপেরিডোনের মধ্যে সামগ্রিক কার্যকারিতার কোন পার্থক্য সমর্থন করে না এবং এটি আরিপিপ্রাজোলের চেয়ে কম কার্যকর হতে পারে।[১৩৮]

এন্টিডিপ্রেসেন্টস[সম্পাদনা]

বাইপোলার ডিসঅর্ডারের চিকিত্সার জন্য এন্টিডিপ্রেসেন্টসগুলি এককভাবে ব্যবহারের জন্য সুপারিশ করা হয় না এবং মেজাজ স্থিতিশীলকারকগুলোর উপর কোন সুবিধা প্রদান করে না।[১৪][১৩৯] বাইপোলার ডিসঅর্ডারে এন্টিডিপ্রেসেন্টের কার্যকারিতার অভাবের কারণে মুড স্টেবিলাইজারগুলির প্রভাবকে বাড়ানোর জন্য অ্যাটিপিকাল অ্যান্টিসাইকোটিক ওষুধগুলি (যেমন, অ্যারিপিপ্রাজল) এন্টিডিপ্রেসেন্টগুলির চেয়ে পছন্দনীয়।[১১২] এন্টিডিপ্রেসেন্টস ব্যবহার করে বাইপোলার ডিসঅর্ডারের চিকিৎসায় আবেগপূর্ণ পরিবর্তনের ঝুঁকি থাকে; যেখানে একজন ব্যক্তি বিষণ্ণতা থেকে ম্যানিক বা হাইপোম্যানিক পর্যায়ে চলে যায়।[১৯] বাইপোলার I ডিপ্রেশনে আবেগপূর্ণ পরিবর্তনের ঝুঁকি বেশি থাকে; অ্যান্টিডিপ্রেসেন্টগুলি সাধারণত বাইপোলার I ডিসঅর্ডারে এড়ানো হয় বা শুধুমাত্র যখন প্রয়োজন মনে করা হয় তখনই মেজাজ স্ট্যাবিলাইজার দিয়ে ব্যবহার করা হয়।[১৯] বাইপোলার ডিসঅর্ডারে যখন এন্টিডিপ্রেসেন্ট ব্যবহার করা হয় তখন পর্যায়ক্রমে আবর্তনকে ত্বরান্বিত করার ঝুঁকিও থাকে।[১৯]

অন্যান্য ওষুধ[সম্পাদনা]

মেজাজ স্থিতিশীলকারক কার্যকর না হওয়া পর্যন্ত শান্ত প্রভাবের জন্য অন্যান্য ওষুধের পাশাপাশি বেনজোডিয়াজেপিনের সংক্ষিপ্ত কোর্সগুলি ব্যবহার করা হয়।[১৪০] ইলেক্ট্রোকনভালসিভ থেরাপি (ইসিটি) বাইপোলার ডিসঅর্ডারে আক্রান্তদের মধ্যে তীব্র মেজাজের ব্যাঘাতের জন্য একটি কার্যকরী চিকিত্সা, বিশেষত যখন সাইকোটিক বা ক্যাটাটোনিক বৈশিষ্ট্যগুলি প্রদর্শিত হয়। বাইপোলার ডিসঅর্ডার সহ গর্ভবতী মহিলাদের ব্যবহারের জন্যও ইসিটি সুপারিশ করা হয়।[১৪]

শিশু[সম্পাদনা]

শিশুদের বাইপোলার ডিসঅর্ডারের চিকিৎসায় ওষুধ এবং সাইকোথেরাপি অন্তর্ভুক্ত থাকে।[১১৫] বাইপোলার স্পেকট্রাম ডিসঅর্ডারে মনোসামাজিক থেরাপির প্রভাবের উপর প্রকাশিত কাজ এবং গবেষণা খুবই কম, যা বিভিন্ন থেরাপির কার্যকারিতা নির্ধারণ করা কঠিন করে তোলে।[১৪১] মুড স্টেবিলাইজার এবং অ্যাটিপিকাল অ্যান্টিসাইকোটিকগুলি সাধারণত নির্দেশিত হয়।[১১৫] পূর্বের মধ্যে, লিথিয়াম হল একমাত্র যৌগ যা শিশুদের জন্য এফডিএ দ্বারা অনুমোদিত।[১১৩] মনস্তাত্ত্বিক চিকিত্সা সাধারণত রোগের উপর শিক্ষা, গ্রুপ থেরাপি এবং জ্ঞানীয় আচরণগত থেরাপির সমন্বয় করে।[১১৫] দীর্ঘমেয়াদী ওষুধ প্রায়ই প্রয়োজন হয়।[১১৫]

চিকিত্সার প্রতিরোধ[সম্পাদনা]

চিকিত্সার প্রতি দুর্বল প্রতিক্রিয়ার কারণে বাইপোলার ডিসঅর্ডারে চিকিত্সার প্রতিরোধের ধারণাকে সমর্থন করেছে।[১৪২][১৪৩] এই ধরনের চিকিত্সা প্রতিরোধের সংজ্ঞা এবং এর পরিচালনার জন্য প্রমাণ-ভিত্তিক বিকল্পগুলির নির্দেশিকাগুলি ২০২০ সালে পর্যালোচনা করা হয়েছিল।[১৪৪]

আরোগ্যসম্ভাবনা[সম্পাদনা]

পুনরাবৃত্ত পর্বের মধ্যে আংশিক বা সম্পূর্ণ আরোগ্যের সময়কাল সহ একটি আজীবন অবস্থা,[৩৯][১৪৫] যার কারণে অক্ষমতা এবং অকালমৃত্যুর হার বেড়ে যাওয়ায় বাইপোলার ডিসঅর্ডার বিশ্বব্যাপী একটি প্রধান স্বাস্থ্য সমস্যা হিসাবে বিবেচিত হয়।[১৪৫] এটি সহ-ঘটমান মানসিক এবং চিকিৎসা সমস্যা, প্রাকৃতিক কারণে মৃত্যুর উচ্চ হার (যেমন: হৃৎ-ধমনীর ব্যাধি ) এবং প্রাথমিক কম বা ভুল রোগ নির্ণয়ের উচ্চ হারের সাথেও যুক্ত, যা উপযুক্ত চিকিত্সায় বিলম্ব ঘটায় এবং দুর্বল আরোগ্যসম্ভাবনায় অবদান রাখে।[৪][৪০] সাধারণ জনসংখ্যার সাথে তুলনা করলে, বাইপোলার ডিসঅর্ডারে আক্রান্ত ব্যক্তিদের বহুমুত্ররোগ, শ্বাসযন্ত্রের রোগ, এইচআইভি, এবং হেপাটাইটিস সি ভাইরাস সংক্রমণ সহ অন্যান্য গুরুতর চিকিৎসা সহাবস্থানের হার বেশি থাকে।[১৪৬] একটি রোগ নির্ণয় করার পরে, বর্তমানে উপলব্ধ মানসিক ওষুধের সাহায্যে সমস্ত উপসর্গের সম্পূর্ণ উপশম অর্জন করা কঠিন থেকে যায় এবং লক্ষণগুলি প্রায়শই সময়ের সাথে ধীরে ধীরে আরও গুরুতর হয়ে ওঠে।[৯২][১৪৭]

ওষুধের অনুবর্তিতা হল সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য কারণগুলির মধ্যে একটি যা পুনরায় সংক্রমণের হার এবং তীব্রতা হ্রাস করতে পারে এবং সামগ্রিক পূআরোগ্য সম্ভাবনার উপর ইতিবাচক প্রভাব ফেলতে পারে।[১৪৮] তবে, বাইপোলার ডিসঅর্ডার এর চিকিৎসায় ব্যবহৃত ওষুধের প্রকারগুলি সাধারণত পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি করে[১৪৯] এবং বাইপোলার ডিসঅর্ডার আক্রান্ত ৭৫% এরও বেশি ব্যক্তি বিভিন্ন কারণে তাদের ওষুধগুলি অসঙ্গতভাবে গ্রহণ করেন।[১৪৮] বিভিন্ন ধরণের ব্যাধিগুলির মধ্যে, দ্রুত আবর্তন (এক বছরে চার বা তার বেশি পর্ব) আত্ম-ক্ষতি এবং আত্মহত্যার উচ্চ হারের কারণে সবচেয়ে দুর্বল আরোগ্য সম্ভাবনার সাথে যুক্ত।[৩৯] বাইপোলার নির্ণয় করা ব্যক্তি যাদের বাইপোলার ডিসঅর্ডারের পারিবারিক ইতিহাস রয়েছে তাদের ঘন ঘন ম্যানিক/হাইপোম্যানিক এপিসোড হওয়ার ঝুঁকি বেশি।[১৫০] প্রারম্ভিক সূচনা এবং মনস্তাত্ত্বিক বৈশিষ্ট্যগুলি আরও খারাপ ফলাফলের সাথে যুক্ত,[১৫১][১৫২] সেইসাথে লিথিয়ামের প্রতি প্রতিক্রিয়াশীল নয় এমন উপপ্রকার।[১৪৭]

প্রারম্ভিক স্বীকৃতি এবং হস্তক্ষেপও আরোগ্য সম্ভাবনার উন্নতি করে কারণ পূর্ববর্তী পর্যায়ে লক্ষণগুলি কম গুরুতর এবং চিকিত্সার প্রতি আরও প্রতিক্রিয়াশীল।[১৪৭] বয়ঃসন্ধিকালের পরে সূত্রপাত উভয় লিঙ্গের জন্য ভাল আরোগ্য সম্ভাবনার সাথে যুক্ত, এবং পুরুষ হওয়া উচ্চ স্তরের বিষণ্নতার বিরুদ্ধে একটি সুরক্ষামূলক কারণ। মহিলাদের জন্য, বাইপোলার ডিসঅর্ডার বিকাশের আগে আরও ভাল সামাজিক ক্রিয়াকলাপ এবং পিতামাতা হওয়া আত্মহত্যার প্রচেষ্টার প্রতি সুরক্ষামূলক।[১৫০]

কার্যকারিতা[সম্পাদনা]

জ্ঞানীয় প্রক্রিয়াসমূহ এবং ক্ষমতার পরিবর্তনগুলি মুড ডিসঅর্ডারগুলিতে দেখা যায়, যা বাইপোলার ডিসঅর্ডার এ মেজর ডিপ্রেসিভ ডিসঅর্ডারের তুলনায় বেশি।[১৫৩] এর মধ্যে মনোযোগ এবং কার্যনির্বাহী ক্ষমতা হ্রাস এবং স্মৃতিশক্তি হ্রাস অন্তর্ভুক্ত রয়েছে।[১৫৪] বাইপোলার ডিসঅর্ডারে আক্রান্ত ব্যক্তিরা প্রায়শই তাদের প্রথম পর্বের সময় (বা সম্ভবত আগে) জ্ঞানীয় কার্যকারিতা হ্রাস অনুভব করেন, যার পরে একটি নির্দিষ্ট মাত্রার জ্ঞানীয় কর্মহীনতা সাধারণত স্থায়ী হয়ে যায়, তীব্র পর্যায়গুলিতে আরও গুরুতর প্রতিবন্ধকতা এবং উপশমের সময়কালে মাঝারি দুর্বলতা সহ। ফলস্বরূপ, বাইপোলার ডিসঅর্ডার-এ আক্রান্ত দুই-তৃতীয়াংশ লোক তাদের মেজাজের উপসর্গগুলি সম্পূর্ণ উপশম করার পরেও পর্বগুলির মধ্যে দুর্বল মনোসামাজিক কার্যকারিতা অনুভব করতে থাকে। একই ধরনের উদাহরণ বাইপোলার ডিসঅর্ডার-I এবং বাইপোলার ডিসঅর্ডার-II উভয় ক্ষেত্রেই দেখা যায়, কিন্তু বাইপোলার ডিসঅর্ডার-II-এর লোকেরা কম মাত্রায় দুর্বলতা অনুভব করে।[১৪৯]

যখন শিশুদের মধ্যে বাইপোলার ডিসঅর্ডার দেখা দেয়, তখন এটি তাদের মনোসামাজিক বিকাশকে মারাত্মকভাবে এবং বিরূপভাবে প্রভাবিত করে।[১১৬] বাইপোলার ডিসঅর্ডারে আক্রান্ত শিশু এবং কিশোর-কিশোরীদের মাদকের অপব্যবহার, সাইকোসিস, একাডেমিক অসুবিধা, আচরণগত সমস্যা, সামাজিক অসুবিধা এবং আইনি সমস্যায় উল্লেখযোগ্য অসুবিধার হার বেশি।[১১৬] জ্ঞানীয় ঘাটতি সাধারণত অসুস্থতার সময় বৃদ্ধি পায়। বৈকল্যের উচ্চ ডিগ্রী পূর্ববর্তী ম্যানিক পর্ব এবং হাসপাতালে ভর্তির সংখ্যার সাথে এবং মানসিক লক্ষণগুলির উপস্থিতির সাথে সম্পর্কযুক্ত।[১৫৫] প্রাথমিক হস্তক্ষেপ জ্ঞানীয় বৈকল্যের অগ্রগতিকে ধীর করে দিতে পারে, যখন পরবর্তী পর্যায়ে চিকিত্সা যন্ত্রণা এবং জ্ঞানীয় কর্মহীনতার সাথে সম্পর্কিত নেতিবাচক পরিণতি কমাতে সাহায্য করতে পারে।[১৪৭]

অত্যধিক উচ্চাভিলাষী লক্ষ্য থাকা সত্ত্বেও যা প্রায়শই ম্যানিক পর্বের অংশ, ম্যানিয়ার লক্ষণগুলি এই লক্ষ্যগুলি অর্জন করার ক্ষমতাকে হ্রাস করে এবং প্রায়শই একজন ব্যক্তির সামাজিক এবং পেশাগত কার্যকারিতায় বাধা সৃষ্টি করে। বাইপোলার ডিসঅর্ডার এ আক্রান্ত এক-তৃতীয়াংশ লোক ম্যানিয়ার জন্য হাসপাতালে ভর্তি হওয়ার পর এক বছরের জন্য বেকার থাকে।[১৫৬] পর্বগুলির সময় এবং মাঝখানে ডিপ্রেশনের উপসর্গ, যা অসুস্থতার সময় হাইপোম্যানিক বা ম্যানিক উপসর্গের তুলনায় বেশির ভাগ লোকের ক্ষেত্রে বেশি দেখা যায়, সেগুলি বাইপোলার ডিসঅর্ডার-I এবং বাইপোলার ডিসঅর্ডার-II উভয়ের জন্য বেকারত্ব বা স্বল্প কর্মসংস্থান সহ পর্বগুলির মধ্যে নিম্ন কার্যকরী আরোগ্যের সাথে যুক্ত।[৫][১৫৭] তবে, অসুস্থতার সময়কাল (সময়কাল, শুরুর বয়স, হাসপাতালে ভর্তির সংখ্যা, এবং দ্রুত আবর্তনের উপস্থিতি বা না থাকা) এবং জ্ঞানীয় কর্মক্ষমতা বাইপোলার ডিসঅর্ডারে আক্রান্ত ব্যক্তিদের চাকরির ফলাফলের সর্বোত্তম ভবিষ্যদ্বাণী করে, তারপরে আসে বিষণ্নতার লক্ষণ এবং শিক্ষার বছরগুলি[১৫৭]

আরোগ্য এবং পুনরাবৃত্তি[সম্পাদনা]

২০০৩ সালে টোহেন এবং সহকর্মীদের দ্বারা ম্যানিয়া বা মিশ্র পর্বের প্রথম ভর্তির (হাসপাতালে ভর্তি হওয়া এবং তাই সবচেয়ে গুরুতর ক্ষেত্রে প্রতিনিধিত্ব করে) দ্বারা একটি প্রাকৃতিক গবেষণায় দেখা গেছে যে ৫০% ছয় সপ্তাহের মধ্যে সিন্ড্রোমাল আরোগ্য (আর নির্ণয়ের মানদণ্ড পূরণ করে না) অর্জন করেছে এবং ৯৮% দুই বছরের মধ্যে। দুই বছরের মধ্যে, ৭২% লক্ষণীয় আরোগ্য অর্জন করেছে (কোনও উপসর্গ নেই) এবং ৪৩% কার্যকরী আরোগ্য (আগের পেশাগত এবং আবাসিক অবস্থা পুনরুদ্ধার) অর্জন করেছে। তবে, ৪০% সিন্ড্রোমাল আরোগ্য ২ বছরের মধ্যে ম্যানিয়া বা বিষণ্নতার একটি নতুন পর্বের অভিজ্ঞতা লাভ করে এবং ১৯% আরোগ্য ছাড়াই পর্যায় পরিবর্তন করে।[১৫৮]

বাইপোলার ডিসঅর্ডারে আক্রান্ত ব্যক্তিদের দ্বারা পুনরায় সংক্রমণের পূর্বলক্ষণ (প্রোড্রোমাল), বিশেষত ম্যানিয়ার সাথে সম্পর্কিত লক্ষণগুলি নির্ভরযোগ্যভাবে শনাক্ত করা যায়।[১৫৯] উত্সাহজনক ফলাফলের সাথে এই জাতীয় লক্ষণগুলি লক্ষ্য করার সময় রোগীদের মোকাবেলা করার কৌশল শেখানোর উদ্দেশ্য রয়েছে।[১৬০]

আত্মহত্যা[সম্পাদনা]

বাইপোলার ডিসঅর্ডার আত্মঘাতী ধারণার কারণ হতে পারে যা আত্মহত্যার প্রচেষ্টার দিকে নিয়ে যায়। যে ব্যক্তিদের বাইপোলার ডিসঅর্ডার একটি বিষণ্ণতা বা মিশ্র আবেগপূর্ণ পর্ব দিয়ে শুরু হয় তাদের আরোগ্য সম্ভাবনা দুর্বল এবং আত্মহত্যার ঝুঁকি বেশি বলে মনে হয়।[৯৫] বাইপোলার ডিসঅর্ডারে আক্রান্ত দুইজনের মধ্যে একজন তাদের জীবদ্দশায় অন্তত একবার আত্মহত্যার চেষ্টা করে এবং অনেক প্রচেষ্টা সফলভাবে সম্পন্ন হয়।[৪৩] বার্ষিক গড় আত্মহত্যার হার ০.৪%, যা সাধারণ জনসংখ্যার ১০-২০ গুণ। [১৬১] বাইপোলার ডিসঅর্ডারে আত্মহত্যার ফলে মৃত্যুর সংখ্যা বাইপোলার ডিসঅর্ডার ছাড়া একই বয়সী ব্যক্তিদের মধ্যে প্রত্যাশিতের তুলনায় ১৮ থেকে ২৫ গুণ বেশি।[১৬২] আত্মহত্যার আজীবন ঝুঁকি বাইপোলার ডিসঅর্ডারে আক্রান্তদের মধ্যে সর্বোচ্চ ২০% পর্যন্ত বলে অনুমান করা হয়েছে।[২৭]

বাইপোলার ডিসঅর্ডারে আক্রান্ত ব্যক্তিদের আত্মহত্যার প্রচেষ্টা এবং আত্মহত্যা থেকে মৃত্যুর ঝুঁকির কারণগুলির মধ্যে রয়েছে বেশি বয়স, পূর্বে আত্মহত্যার প্রচেষ্টা, একটি বিষণ্ণতা বা মিশ্র সূচক পর্ব (প্রথম পর্ব), মানসিক লক্ষণ সহ একটি ম্যানিক সূচক পর্ব, পর্বগুলির সময় উপস্থিত হতাশা বা সাইকোমোটর আলোড়ন, সহ-বিদ্যমান উদ্বেগজনিত ব্যাধি, প্রথম পর্যায়ের আত্মীয়ের মুড ডিসঅর্ডার বা আত্মহত্যা, আন্তঃব্যক্তিক দ্বন্দ্ব, পেশাগত সমস্যা, শোক বা সামাজিক বিচ্ছিন্নতা।[১৯]

রোগবিস্তার-সংক্রান্ত বিদ্যা[সম্পাদনা]

বিশ্বজুড়ে বাইপোলার ডিসঅর্ডারের বোঝা: ২০০৪ সালে প্রতি ১০০,০০০ জন বাসিন্দার প্রতি অক্ষমতা-সামঞ্জস্যপূর্ণ জীবন বছর
  <১৮০
  ১৮০-১৮৫
  ১৮৫-১৯০
  ১৯০-১৯৫
  ১৯৫-২০০
  ২০০-২০৫
  ২০৫-২১০
  ২১০-২১৫
  ২১৫-২২০
  ২২০-২২৫
  ২২৫-২৩০
  >২৩০

বাইপোলার ডিসঅর্ডার বিশ্বব্যাপী অক্ষমতার ষষ্ঠ প্রধান কারণ এবং সাধারণ জনসংখ্যার মধ্যে প্রায় ১ থেকে ৩% এর জীবনকালে এর প্রকোপ রয়েছে।[৬][১৬৩][১৬৪] তবে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ন্যাশনাল এপিডেমিওলজিকাল ক্যাচমেন্ট এরিয়া সমীক্ষার তথ্যের পুনঃবিশ্লেষণে পরামর্শ দেওয়া হয়েছে যে জনসংখ্যার ০.৮% অন্তত একবার ম্যানিক পর্বের (বাইপোলার ১ এর বৈশিষ্ট্যসূচক সীমা) এবং আরও ০.৫% এর একটি হাইপোম্যানিক পর্ব রয়েছে ( বাইপোলার II বা সাইক্লোথিমিয়ার জন্য বৈশিষ্ট্যসূচক সীমা )। বৈশিষ্ট্যসূচক উপসীমা মানদণ্ড সহ, যেমন স্বল্প সময়ের মধ্যে এক বা দুটি উপসর্গ, জনসংখ্যার অতিরিক্ত ৫.১%, মোট ৬.৪% পর্যন্ত যোগ করে, বাইপোলার স্পেকট্রাম ডিসঅর্ডার হিসাবে শ্রেণীবদ্ধ করা হয়েছিল।[১৬৫] দ্বিতীয় মার্কিন জাতীয় কমরবিডিটি জরিপের তথ্যের আরও সাম্প্রতিক বিশ্লেষণে দেখা গেছে যে, বাইপোলার I-এর জন্য ১% আজীবন বিস্তারের মানদণ্ড পূরণ করেছে, বাইপোলার II-এর জন্য ১.১%, এবং উপ-সীমা লক্ষণগুলির জন্য ২.৪%।[১৬৬] কত শিশু এবং অল্প বয়স্কদের বাইপোলার ডিসঅর্ডার রয়েছে সে সম্পর্কে অনুমান পরিবর্তিত হয়।[১১৬] এই অনুমানগুলি ০.৬% থেকে 15% পর্যন্ত বিভিন্ন সেটিংস, পদ্ধতি এবং রেফারেল সেটিংসের উপর নির্ভর করে, যা অতিরিক্ত নির্ণয়ের সন্দেহ বাড়ায়।[১১৬] বিশ্বব্যাপী তরুণদের মধ্যে বাইপোলার ডিসঅর্ডারের একটি মেটা-বিশ্লেষণ অনুমান করেছে যে, সাত থেকে ২১ বছর বয়সের মধ্যে প্রায় ১.৮% লোকের বাইপোলার ডিসঅর্ডার রয়েছে।[১১৬] প্রাপ্তবয়স্কদের মতো, শিশু এবং কিশোর-কিশোরীদের মধ্যে বাইপোলার ডিসঅর্ডার ছেলে এবং মেয়েদের মধ্যে একই রকম ফ্রিকোয়েন্সিতে ঘটতে পারে বলে মনে করা হয়।[১১৬]

ধারণাগত এবং পদ্ধতিগত সীমাবদ্ধতা এবং ফলাফলের বৈচিত্র রয়েছে। বাইপোলার ডিসঅর্ডারের প্রাদুর্ভাব অধ্যয়নগুলি সাধারণত সাধারণ ইন্টারভিউয়ারদের দ্বারা পরিচালিত হয় যারা সম্পূর্ণরূপে কাঠামোবদ্ধ/নির্দিষ্ট ইন্টারভিউ স্কিম অনুসরণ করে; এই ধরনের ইন্টারভিউ থেকে একক অনুচ্ছেদের প্রতিক্রিয়া সীমিত বৈধতা ভোগ করতে পারে। উপরন্তু, রোগ নির্ণয় (এবং তাই প্রাদুর্ভাবের অনুমান) একটি শ্রেণীগত বা বর্ণালি পদ্ধতি ব্যবহার করা হয় কিনা তার উপর নির্ভর করে পরিবর্তিত হয়। এই বিবেচনার ফলে নিম্ন রোগ নির্ণয় এবং অতিরিক্ত রোগ নির্ণয় উভয়ের সম্ভাব্যতা নিয়ে উদ্বেগ দেখা দিয়েছে।[১৬৭]

বাইপোলার ডিসঅর্ডারের ঘটনা পুরুষ এবং মহিলাদের[১৬৮] পাশাপাশি বিভিন্ন সংস্কৃতি এবং জাতিগত গোষ্ঠীতে একই রকম।[১৬৯] বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার ২০০০ সালের একটি সমীক্ষায় দেখা গেছে যে, বাইপোলার ডিসঅর্ডারের প্রাদুর্ভাব এবং ঘটনা বিশ্বজুড়ে অনেকটা একই রকম। প্রতি ১০০,০০০ জনে বয়স-প্রমিত প্রসার দক্ষিণ এশিয়ায় ৪২১.০ থেকে আফ্রিকা ও ইউরোপে ৪৮১.৭ পুরুষদের জন্য এবং আফ্রিকা ও ইউরোপে ৪৫০.৩ থেকে ওশেনিয়ায় মহিলাদের জন্য ৪৯১.৬ পর্যন্ত। তবে, তীব্রতা সারা বিশ্বে ব্যাপকভাবে ভিন্ন হতে পারে। অক্ষমতা-সামঞ্জস্যপূর্ণ জীবন বছরের হার, উদাহরণস্বরূপ, উন্নয়নশীল দেশগুলিতে উচ্চতর বলে মনে হয়, যেখানে চিকিৎসা কভারেজ কম হতে পারে এবং ওষুধ কম উপলব্ধ।[১৭০] মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে, এশিয়ান আমেরিকানদের তাদের আফ্রিকান আমেরিকান এবং ইউরোপীয় আমেরিকান সমকক্ষদের তুলনায় উল্লেখযোগ্যভাবে কম হার রয়েছে।[১৭১] ২০১৭ সালে, গ্লোবাল বার্ডেন অফ ডিজিজ স্টাডি অনুমান করেছে যে, বিশ্বব্যাপী ৪.৫ মিলিয়ন নতুন ব্যাধিগ্রস্ত ব্যক্তি এবং মোট ৪৫.৫ মিলিয়ন ব্যাধিগ্রস্ত ব্যক্তি ছিল।[১৭২]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

জার্মান মনোচিকিৎসক এমিল ক্রেপেলিন ১৯ শতকের শেষের দিকে ম্যানিক-ডিপ্রেসিভ অসুস্থতা এবং "ডিমেনশিয়া প্রাইকক্স" (এখন সিজোফ্রেনিয়া নামে পরিচিত) মধ্যে পার্থক্য করেছিলেন।

১৮০০ শতাব্দীর গোড়ার দিকে , ফরাসি মনোরোগ বিশেষজ্ঞ জাঁ-এটিন ডমিনিক এসকুইরল এর লাইপেম্যানিয়া, তার আবেগপূর্ণ এক বাতিক,ছিল প্রথম বিবরণাদি যা আধুনিককালে বিষণ্নতা হিসেবে পরিণত হয়।[১৭৩] বাইপোলার অসুস্থতার বর্তমান ধারণার ভিত্তিটি ১৮৫০ এর দশকে খুঁজে পাওয়া যেতে পারে। ১৮৫০ সালে, জিন-পিয়েরে ফ্যালরেট "বৃত্তাকার উন্মাদনা" (la ফরাসি উচ্চারণ: ​[la fɔli siʁ.ky.lɛʁ] ); বক্তৃতাটি ১৮৫১ সালে "Gazette des hôpitaux" ("হাসপাতাল গেজেট") এ সংক্ষিপ্ত করা হয়েছিল।[২] তিন বছর পর, ১৮৫৪ সালে, জুলেস-গ্যাব্রিয়েল-ফ্রাঙ্কোইস বেইলার্গার (১৮০৯-১৮৯০) ফরাসি ইম্পেরিয়াল অ্যাকাডেমি ন্যাশনাল ডি মেডেসিনের কাছে একটি দুই পর্যায়বিশিষ্ট মানসিক রোগের বর্ণনা দেন যা ম্যানিয়া এবং মেল্যাঙ্কোলিয়ার মধ্যে পুনরাবৃত্তিমূলক দোলাচল সৃষ্টি করে, যাকে তিনি folie à double forme (ফরাসি উচ্চারণ: ​[fɔli a dubl fɔʀm] "দুই আকারে উন্মাদ" বলে আখ্যায়িত করেছিলেন ।[২][১৭৪] বেইলার্গারের আসল কাগজ, "ডে লা ফোলি আ ডাবল ফর্ম" ১৮৫৪ সালে আনালেস মেডিকো-সাইকোলজিক্স (মেডিকো-সাইকোলজিকাল অ্যানালস) নামক মেডিকেল জার্নাল এ প্রকাশিত হয়েছিল।[২]

জার্মান মনোচিকিৎসক এমিল ক্রেপেলিন (১৮৫৬-১৯২৬) এই ধারণার বিকাশ ঘটান, যিনি ব্যবহার কাহলবাউমের সাইক্লোথাইমিয়া এর ধারণা ব্যবহার করে [১৭৫] শ্রেণীকরণ এবং চিকিত্সা না হওয়া বাইপোলার রোগীদের প্রাকৃতিক ক্রমোন্নতি নিয়ে পড়াশোনা করেন। তিনি ম্যানিক ডিপ্রেসিভ সাইকোসিস শব্দটি তৈরি করেছিলেন, লক্ষণীয় যে তীব্র অসুস্থতার সময়কাল, ম্যানিক বা বিষণ্ণতা, সাধারণত তুলনামূলকভাবে লক্ষণ-মুক্ত বিরতি দ্বারা জোর দেওয়া হয় যেখানে রোগী স্বাভাবিকভাবে কাজ করতে সক্ষম হয়।[১৭৬]

"ম্যানিক-ডিপ্রেসিভ প্রতিক্রিয়া " শব্দটি ১৯৫২ সালে ডিএসএম-এর প্রথম সংস্করণে আবির্ভূত হয়েছিল, যা অ্যাডলফ মেয়ারের উত্তরাধিকার দ্বারা প্রভাবিত হয়েছিল। [২৩] "ইউনিপোলার" ডিপ্রেসিভ ডিসঅর্ডার এবং বাইপোলার ডিসঅর্ডারে উপ-শ্রেণীকরণ করার ফলে কার্ল ক্লিস্টের ধারণার উৎপত্তি - ১৯১১ সাল থেকে - ইউনিপোলার এবং বাইপোলার অ্যাফেকটিভ ডিসঅর্ডার, যা কার্ল লিওনহার্ড ১৯৫৭ সালে ইউনিপোলার এবং বাইপোলার ডিসঅর্ডারের মধ্যে পার্থক্য করার জন্য ব্যবহার করেছিলেন।[১৭৭] ডিএসএম -৩প্রকাশের পর থেকে এই উপপ্রকারগুলো কে আলাদা শর্ত হিসাবে বিবেচনা করা হয়েছে। ডেভিড ডনার, এলিয়ট গেরসন, ফ্রেডেরিক গুডউইন, রোনাল্ড ফিভ এবং জোসেফ ফ্লিসের ১৯৭০ এর দশকের কাজের উপর ভিত্তি করে বাইপোলার II এবং দ্রুত আবর্তনশীল উপপ্রকারগুলো ডিএসএম-৪ থেকে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে।[১৭৮][১৭৯][১৮০]

সমাজ ও সংস্কৃতি[সম্পাদনা]

গায়িকা রোজ-ম্যারি ক্লোনির বাইপোলার ডিসঅর্ডারের জনসমক্ষে প্রকাশ তাকে মানসিক অসুস্থতার প্রাথমিক সেলিব্রিটি মুখপাত্র করে তোলে।[১৮১]

ক্ষতি[সম্পাদনা]

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ২০১৫ সালে বাইপোলার I ডিসঅর্ডার (বাইপোলার ডিসঅর্ডারের অন্যান্য উপ-প্রকার এবং নির্ণয়কৃত ব্যক্তি ব্যতীত) নির্ণয় করা লোকদের জন্য প্রায় $২০২.১ বিলিয়ন ব্যয় করেছে।[১৪৬] একটি বিশ্লেষণ অনুমান করেছে যে, যুক্তরাজ্য ২০০৭ সালে এই ব্যাধিতে প্রায় ৫.২ বিলিয়ন পাউন্ড ব্যয় করেছে।[১৮২][১৮৩] অর্থনৈতিক খরচ ছাড়াও, বাইপোলার ডিসঅর্ডার বিশ্বব্যাপী অক্ষমতা এবং উত্পাদনশীলতা হ্রাসের একটি প্রধান কারণ।[২১] বাইপোলার ডিসঅর্ডারে আক্রান্ত ব্যক্তিরা সাধারণত বেশি অক্ষম হয়, তাদের কর্মক্ষমতা কম থাকে, অসুস্থতার দীর্ঘ সময় থাকে এবং অন্যান্য মানসিক স্বাস্থ্য ব্যাধির সম্মুখীন ব্যক্তিদের তুলনায় কর্মে অনুপস্থিতির হার বৃদ্ধি পায় এবং উৎপাদনশীলতা হ্রাস পায়।[১৮৪] যারা বাইপোলার ডিসঅর্ডারে আক্রান্ত ব্যক্তিদের যত্ন নেন তাদের উৎপাদনশীলতার হ্রাসও এই ক্ষতিগুলোতে উল্লেখযোগ্যভাবে অবদান রাখে।[১৮৫]

ওকালতি[সম্পাদনা]

বাইপোলার ডিসঅর্ডার নির্ণয় করা ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে সামাজিক কলঙ্ক, অপরিবর্তনীয় এবং কুসংস্কারসহ বিস্তৃত সমস্যা রয়েছে।[১৮৬] ২০০৭ সালে, অভিনেত্রী ক্যারি ফিশার তার বাইপোলার ডিসঅর্ডার নির্ণয়ের সাথে জনসমক্ষে গিয়েছিলেন। তিনি জনসাধারণের চোখে বাইপোলার ডিসঅর্ডারে আক্রান্ত ব্যক্তিদের জন্য সবচেয়ে স্বীকৃত উকিলদের মধ্যে একজন হয়ে ওঠেন এবং বাইপোলার ডিসঅর্ডার সহ মানসিক অসুস্থতাগুলির আশেপাশের কলঙ্ক দূর করার জন্য কঠোরভাবে সমর্থন করেছিলেন।[১৮৭] স্টিফেন ফ্রাইড, যিনি এই বিষয়ে বিস্তৃতভাবে লিখেছেন, উল্লেখ করেছেন যে ফিশার এই ব্যাধিটির দীর্ঘস্থায়ীতা, পুনরায় সংক্রমণের প্রকৃতির দিকে দৃষ্টি আকর্ষণ করতে সাহায্য করেছিলেন এবং বাইপোলার ডিসঅর্ডার পুনরায় সংক্রমণ শৃঙ্খলার অভাব বা নৈতিক ত্রুটিগুলি নির্দেশ করে না।[১৮৭] ৩৭ বছর বয়সে নির্ণয় হওয়ার পর থেকে, অভিনেতা স্টিফেন ফ্রাই তার ২০০৬ সালের ডকুমেন্টারি স্টিফেন ফ্রাই: দ্য সিক্রেট লাইফ অফ দ্য ম্যানিক ডিপ্রেসিভ দিয়ে এই অবস্থা সম্পর্কে সচেতনতা বাড়াতে চাপ দিয়েছেন।[১৮৮][১৮৯] বাইপোলার ডিসঅর্ডারের সাথে সম্পর্কিত সামাজিক কলঙ্ক কমানোর প্রয়াসে, অর্কেস্ট্রা কন্ডাক্টর রোনাল্ড ব্রাউনস্টেইন ২০১১ সালে তার স্ত্রী ক্যারোলিন হুইডনের সাথে এমই/২ অর্কেস্ট্রা প্রতিষ্ঠা করেছিলেন। ব্রাউনস্টেইন ১৯৮৫ সালে বাইপোলার ডিসঅর্ডারে আক্রান্ত হন এবং এমই/২ অর্কেস্ট্রার সাথে তার কনসার্টের পরিকল্পনা করা হয়েছিল তার সঙ্গীত সহকর্মীদের জন্য একটি স্বাগত পরিবেশন পরিবেশ তৈরি করার জন্য, পাশাপাশি মানসিক অসুস্থতা সম্পর্কে জনসচেতনতা বাড়াতে।[১৯০][১৯১]

উল্লেখযোগ্য ঘটনা[সম্পাদনা]

অসংখ্য লেখক বাইপোলার ডিসঅর্ডার সম্পর্কে লিখেছেন এবং অনেক সফল ব্যক্তি খোলাখুলিভাবে তাদের অভিজ্ঞতা নিয়ে আলোচনা করেছেন। কে রেডফিল্ড জ্যামিসন, একজন ক্লিনিক্যাল মনোরোগ বিশেষজ্ঞ এবং জনস হপকিন্স ইউনিভার্সিটি স্কুল অফ মেডিসিনের সাইকিয়াট্রির অধ্যাপক, তার স্মৃতিকথা অ্যান আনকুয়েট মাইন্ড (১৯৯৫) এ তার নিজের বাইপোলার ডিসঅর্ডার বর্ণনা করেছেন। [১৯২] বেশ কিছু সেলিব্রিটিও প্রকাশ্যে জানিয়েছেন যে তাদের বাইপোলার ডিসঅর্ডার আছে; ক্যারি ফিশার এবং স্টিফেন ফ্রাই ছাড়াও এর মধ্যে রয়েছে ক্যাথরিন জিটা-জোনস, মারিয়া কেরি, ক্যানইয়ে ওয়েস্ট,[১৯৩] জেন পাওলি, ডেমি লোভাটো,[১৮৭] এবং সেলেনা গোমেজ[১৯৪]

মিডিয়া চিত্রায়ন[সম্পাদনা]

বেশ কিছু নাটকীয় কাজ রোগ নির্ণয়ের ইঙ্গিতকারী বৈশিষ্ট্য সহ চরিত্রগুলিকে চিত্রিত করেছে যা মনোরোগ বিশেষজ্ঞ এবং চলচ্চিত্র বিশেষজ্ঞদের আলোচনার বিষয়বস্তু হয়েছে।

মিস্টার জোনস (১৯৯৩) এ, ( রিচার্ড গিয়ার ) একটি ম্যানিক পর্ব থেকে একটি হতাশাজনক পর্যায়ে চলে যায় এবং আবার ফিরে আসে, একটি মানসিক হাসপাতালে সময় কাটায় এবং সিন্ড্রোমের অনেক বৈশিষ্ট্য প্রদর্শন করে। [১৯৫] দ্য মস্কুইটো কোস্ট (1986) এ, অ্যালি ফক্স ( হ্যারিসন ফোর্ড ) প্রবেপরোয়াতা, মহানুভবতা, লক্ষ্য-নির্দেশিত কার্যকলাপ বৃদ্ধি এবং মেজাজের স্থিতিশীলতা, সেইসাথে কিছু প্যারানিয়া সহ কিছু বৈশিষ্ট্য প্রদর্শন করে।[১৯৫] মনোরোগ বিশেষজ্ঞরা ইঙ্গিত দিয়েছেন যে আর্থার মিলারের ক্লাসিক নাটক ডেথ অফ আ সেলসম্যানের প্রধান চরিত্র উইলি লোমানের বাইপোলার ডিসঅর্ডার রয়েছে।[১৯৬]

২০০৯ সালের নাটক ৯২০১০-এ সিলভার নামে একটি চরিত্র দেখানো হয়েছিল, যিনি বাইপোলার ডিসঅর্ডারে আক্রান্ত ছিলেন।[১৯৭] স্টেসি স্লেটার, বিবিসি সোপ ইস্টএন্ডার্সের একটি চরিত্র, এই ব্যাধিতে আক্রান্ত হয়েছে। বিবিসির হেডরুম প্রচারণার অংশ হিসেবে গল্পটি তৈরি করা হয়েছিল।[১৯৮] চ্যানেল ৪ সোপ ব্রুকসাইড এর আগে বাইপোলার ডিসঅর্ডার সম্পর্কে একটি গল্প দেখানো হয়েছিল যখন চরিত্র জিমি কর্খিলকে এই অবস্থার সাথে নির্ণয় করা হয়েছিল।[১৯৯] ২০১১ শোটাইমের রাজনৈতিক থ্রিলার ড্রামা হোমল্যান্ডের নায়ক ক্যারি ম্যাথিসনের বাইপোলার ডিসঅর্ডার রয়েছে, যা তিনি তার স্কুলের দিন থেকেই গোপন রেখেছিলেন।[২০০] ২০১৪ এর এবিসি মেডিকেল ড্রামা, ব্ল্যাক বক্স এ, বাইপোলার ডিসঅর্ডারে আক্রান্ত একজন বিশ্ববিখ্যাত নিউরোসায়েন্টিস্টকে দেখানো হয়েছে।[২০১] টিভি সিরিজ ডেভ-এ, নামবিহীন প্রধান চরিত্র, যে একজন উচ্চাকাঙ্ক্ষী র‍্যাপার,লিল ডিকি নিজের একটি কাল্পনিক সংস্করণ হিসাবে অভিনয় করেছেন। লিল ডিকির বাস্তব জীবনের হাইপ ম্যান গাটা নিজেও অভিনয় করেন। একটি পর্বে, তার ওষুধ বন্ধ করে এবং একটি পর্ব থাকার পর, গাটা অশ্রুসিক্তভাবে স্বীকার করে যে তার বাইপোলার ডিসঅর্ডার রয়েছে। গাটার বাস্তব জীবনে বাইপোলার ডিসঅর্ডার রয়েছে তবে শো-টিতে তার চরিত্রের মতো, তিনি ওষুধ দিয়ে এটি পরিচালনা করতে সক্ষম হন।[২০২]

সৃজনশীলতা[সম্পাদনা]

মানসিক অসুস্থতা এবং পেশাগত সাফল্য বা সৃজনশীলতার মধ্যে একটি যোগসূত্রের উপস্থাপন দেওয়া হয়েছে, যার মধ্যে সক্রেটিস, সেনেকা দ্য ইয়াংগার এবং সেজার লোমব্রোসোর বিবরণ রয়েছে । জনপ্রিয় সংস্কৃতিতে বিশিষ্টতা সত্ত্বেও, সৃজনশীলতা এবং বাইপোলারের মধ্যে সংযোগটি কঠোরভাবে অধ্যয়ন করা হয়নি। অধ্যয়নের এই ক্ষেত্রটিও নিশ্চিতকরণ পক্ষপাত দ্বারা প্রভাবিত হতে পারে। কিছু প্রমাণ দেখায় যে, বাইপোলার ডিসঅর্ডারের কিছু বংশগত উপাদান সৃজনশীলতার উত্তরাধিকারী উপাদানগুলির সাথে সমপাতিত হয়। বাইপোলার ডিসঅর্ডারে আক্রান্ত ব্যক্তিদের পেশাগতভাবে সফল হওয়ার সম্ভাবনা বেশি, সেইসাথে বাইপোলার ডিসঅর্ডারের মতো মেজাজগত বৈশিষ্ট্যগুলি প্রদর্শন করার সম্ভাবনা বেশি। উপরন্তু, সৃজনশীল জনসংখ্যার নমুনাগুলিতে বাইপোলার ডিসঅর্ডারের ফ্রিকোয়েন্সি নিয়ে অধ্যয়নগুলি পরস্পরবিরোধী ছিল, সৃজনশীল নমুনাগুলিতে সম্পূর্ণ-বিকশিত বাইপোলার ডিসঅর্ডার বিরল।[২০৩]

গবেষণা[সম্পাদনা]

শিশুদের মধ্যে বাইপোলার ডিসঅর্ডারের জন্য গবেষণার দিকনির্দেশের মধ্যে রয়েছে চিকিত্সার কার্যকরী করা, পেডিয়াট্রিক ডিসঅর্ডারের জেনেটিক এবং নিউরোবায়োলজিক্যাল ভিত্তির জ্ঞান বৃদ্ধি করা এবং রোগনির্ণয়ের মানদণ্ড উন্নত করা।[১১৫] কিছু চিকিত্সা গবেষণা ইঙ্গিত করছে যে মনোসামাজিক হস্তক্ষেপ যে পরিবার, মনোশিক্ষা, এবং দক্ষতা বৃদ্ধির সাথে জড়িত মনোসামাজিক হস্তক্ষেপগুলি (সিবিটি, ডিবিটি, এবং আইএসপিআরটি-এর মতো থেরাপির মাধ্যমে) ফার্মোকোথেরাপি ছাড়াও উপকৃত হতে পারে।[১৪১]

আরো দেখুন[সম্পাদনা]

ব্যাখ্যামূলক নোট[সম্পাদনা]

  1. ক্যাটাটোনিয়া হল একটি সিন্ড্রোম যা অন্যথায় জেগে থাকা একজন ব্যক্তির অস্বাভাবিক নড়াচড়ার সাথে গভীরভাবে প্রতিক্রিয়াহীনতা বা স্তব্ধতার দ্বারা চিহ্নিত করা হয়।[১৭]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Gautam S, Jain A, Gautam M, Gautam A, Jagawat T (জানুয়ারি ২০১৯)। "Clinical Practice Guidelines for Bipolar Affective Disorder (BPAD) in Children and Adolescents"Indian Journal of Psychiatry61 (Suppl 2): 294–305। ডিওআই:10.4103/psychiatry.IndianJPsychiatry_570_18পিএমআইডি 30745704পিএমসি 6345130অবাধে প্রবেশযোগ্য 
  2. Edward Shorter (২০০৫)। A Historical Dictionary of Psychiatry। New York: Oxford University Press। পৃষ্ঠা 165–166। আইএসবিএন 978-0-19-517668-1  উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ বৈধ নয়; আলাদা বিষয়বস্তুর সঙ্গে "Shorter2005" নামটি একাধিক বার সংজ্ঞায়িত করা হয়েছে
  3. Coyle, Nessa; Paice, Judith A. (২০১৫)। Oxford Textbook of Palliative Nursing (ইংরেজি ভাষায়)। Oxford University Press, Incorporated। পৃষ্ঠা 623। আইএসবিএন 9780199332342। সেপ্টেম্বর ৮, ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  4. Anderson IM, Haddad PM, Scott J (ডিসেম্বর ২৭, ২০১২)। "Bipolar disorder": e8508। ডিওআই:10.1136/bmj.e8508পিএমআইডি 23271744 
  5. American Psychiatry Association (২০১৩)। Diagnostic and Statistical Manual of Mental Disorders (5th সংস্করণ)। American Psychiatric Publishing। পৃষ্ঠা 123–154। আইএসবিএন 978-0-89042-555-8 
  6. Schmitt A, Malchow B, Hasan A, Falkai P (ফেব্রুয়ারি ২০১৪)। "The impact of environmental factors in severe psychiatric disorders"Front Neurosci8 (19)। ডিওআই:10.3389/fnins.2014.00019পিএমআইডি 24574956পিএমসি 3920481অবাধে প্রবেশযোগ্য  উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ বৈধ নয়; আলাদা বিষয়বস্তুর সঙ্গে "Schmitt2014" নামটি একাধিক বার সংজ্ঞায়িত করা হয়েছে উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ বৈধ নয়; আলাদা বিষয়বস্তুর সঙ্গে "Schmitt2014" নামটি একাধিক বার সংজ্ঞায়িত করা হয়েছে
  7. Anderson IM, Haddad PM, Scott J (ডিসে ২৭, ২০১২)। "Bipolar disorder"। BMJ (Clinical research ed.)345: e8508। ডিওআই:10.1136/bmj.e8508পিএমআইডি 23271744 
  8. American Psychiatry Association (২০১৩)। Diagnostic and Statistical Manual of Mental Disorders (5th সংস্করণ)। Arlington: American Psychiatric Publishing। পৃষ্ঠা 123–154। আইএসবিএন 0-89042-555-8 
  9. "DSM IV Criteria for Manic Episode"। জুলাই ৩১, ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  10. Goodwin, Guy M. (২০১২)। "Bipolar disorder": 596–598। ডিওআই:10.1016/j.mpmed.2012.08.011 
  11. Charney, Alexander; Sklar, Pamela (২০১৮)। "Genetics of Schizophrenia and Bipolar Disorder"Charney & Nestler's Neurobiology of Mental Illness (5th সংস্করণ)। Oxford University Press। পৃষ্ঠা 162। আইএসবিএন 9780190681425 
  12. Bobo WV (অক্টোবর ২০১৭)। "The Diagnosis and Management of Bipolar I and II Disorders: Clinical Practice Update" (Review): 1532–1551। ডিওআই:10.1016/j.mayocp.2017.06.022অবাধে প্রবেশযোগ্যপিএমআইডি 28888714 
  13. NIMH (এপ্রিল ২০১৬)। "Bipolar Disorder"। National Institutes of Health। জুলাই ২৭, ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ আগস্ট ১৩, ২০১৬ 
  14. Grande I, Berk M, Birmaher B, Vieta E (এপ্রিল ২০১৬)। "Bipolar disorder": 1561–1572। ডিওআই:10.1016/S0140-6736(15)00241-Xপিএমআইডি 26388529 
  15. Goodwin GM, Haddad PM, Ferrier IN, Aronson JK, Barnes T, Cipriani A, Coghill DR, Fazel S, Geddes JR, Grunze H, Holmes EA, Howes O, Hudson S, Hunt N, Jones I, Macmillan IC, McAllister-Williams H, Miklowitz DR, Morriss R, Munafò M, Paton C, Saharkian BJ, Saunders K, Sinclair J, Taylor D, Vieta E, Young AH (জুন ২০১৬)। "Evidence-based guidelines for treating bipolar disorder: Revised third edition recommendations from the British Association for Psychopharmacology": 495–553। ডিওআই:10.1177/0269881116636545পিএমআইডি 26979387পিএমসি 4922419অবাধে প্রবেশযোগ্য 
  16. Cheniaux E, Nardi AE (অক্টোবর ২০১৯)। "Evaluating the efficacy and safety of antidepressants in patients with bipolar disorder": 893–913। ডিওআই:10.1080/14740338.2019.1651291পিএমআইডি 31364895 
  17. American Psychiatric Association (২০১৩)। Diagnostic and Statistical Manual of Mental Disorders (Fifth সংস্করণ)। Arlington, VA: American Psychiatric Publishing। পৃষ্ঠা 119–121আইএসবিএন 978-0-89042-555-8 
  18. Diflorio A, Jones I (২০১০)। "Is sex important? Gender differences in bipolar disorder": 437–452। ডিওআই:10.3109/09540261.2010.514601পিএমআইডি 21047158 
  19. Carvalho AF, Firth J, Vieta E (জুলাই ২০২০)। "Bipolar Disorder": 58–66। ডিওআই:10.1056/NEJMra1906193পিএমআইডি 32609982 |pmid= এর মান পরীক্ষা করুন (সাহায্য) 
  20. Chen, Maxine; Fitzgerald, Heather M. (২০১৯)। "Functional outcome assessment in bipolar disorder: A systematic literature review": 194–214। আইএসএসএন 1399-5618ডিওআই:10.1111/bdi.12775পিএমআইডি 30887632পিএমসি 6593429অবাধে প্রবেশযোগ্য 
  21. Ferrari, AJ; Stockings, E (আগস্ট ২০১৬)। "The prevalence and burden of bipolar disorder: findings from the Global Burden of Disease Study 2013" (Review): 440–50। ডিওআই:10.1111/bdi.12423পিএমআইডি 27566286 
  22. Christie KA, Burke JD, Regier DA, Rae DS, Boyd JH, Locke BZ (১৯৮৮)। "Epidemiologic evidence for early onset of mental disorders and higher risk of drug abuse in young adults": 971–975। ডিওআই:10.1176/ajp.145.8.971পিএমআইডি 3394882 
  23. Goodwin ও Jamison 2007
  24. Chen CH, Suckling J, Lennox BR, Ooi C, Bullmore ET (ফেব্রুয়ারি ২০১১)। "A quantitative meta-analysis of fMRI studies in bipolar disorder": 1–15। ডিওআই:10.1111/j.1399-5618.2011.00893.xপিএমআইডি 21320248  উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ বৈধ নয়; আলাদা বিষয়বস্তুর সঙ্গে "Chen2011" নামটি একাধিক বার সংজ্ঞায়িত করা হয়েছে
  25. Akiskal, Hagop (২০১৭)। "13.4 Mood Disorders: Clinical Features"। Kaplan and Sadock's Comprehensive Textbook of Psychiatry (10th সংস্করণ)। Wolters Kluwer। 
  26. Salvadore G, Quiroz JA, Machado-Vieira R, Henter ID, Manji HK, Zarate CA (নভেম্বর ২০১০)। "The neurobiology of the switch process in bipolar disorder: a review": 1488–1501। ডিওআই:10.4088/JCP.09r05259greপিএমআইডি 20492846পিএমসি 3000635অবাধে প্রবেশযোগ্য 
  27. Barnett JH, Smoller JW (নভেম্বর ২০০৯)। "The genetics of bipolar disorder": 331–343। ডিওআই:10.1016/j.neuroscience.2009.03.080পিএমআইডি 19358880পিএমসি 3637882অবাধে প্রবেশযোগ্য 
  28. Tarr GP, Glue P, Herbison P (নভেম্বর ২০১১)। "Comparative efficacy and acceptability of mood stabilizer and second generation antipsychotic monotherapy for acute mania—a systematic review and meta-analysis": 14–19। ডিওআই:10.1016/j.jad.2010.11.009পিএমআইডি 21145595 
  29. Beentjes TA, Goossens PJ, Poslawsky IE (অক্টোবর ২০১২)। "Caregiver burden in bipolar hypomania and mania: a systematic review": 187–197। ডিওআই:10.1111/j.1744-6163.2012.00328.xপিএমআইডি 23005586 
  30. Titmarsh S (মে–জুন ২০১৩)। "Characteristics and duration of mania: implications for continuation treatment": 26–27। ডিওআই:10.1002/pnp.283অবাধে প্রবেশযোগ্য 
  31. Knowles R, McCarthy-Jones S, Rowse G (জুন ২০১১)। "Grandiose delusions: a review and theoretical integration of cognitive and affective perspectives": 684–696। ডিওআই:10.1016/j.cpr.2011.02.009পিএমআইডি 21482326 
  32. Furukawa TA (২০১০)। "Assessment of mood: Guides for clinicians": 581–589। ডিওআই:10.1016/j.jpsychores.2009.05.003পিএমআইডি 20488276 
  33. McKenna BS, Eyler LT (নভেম্বর ২০১২)। "Overlapping prefrontal systems involved in cognitive and emotional processing in euthymic bipolar disorder and following sleep deprivation: a review of functional neuroimaging studies": 650–663। ডিওআই:10.1016/j.cpr.2012.07.003পিএমআইডি 22926687পিএমসি 3922056অবাধে প্রবেশযোগ্য 
  34. Post RM, Kalivas P (মার্চ ২০১৩)। "Bipolar disorder and substance misuse: pathological and therapeutic implications of their comorbidity and cross-sensitisation": 172–176। ডিওআই:10.1192/bjp.bp.112.116855পিএমআইডি 23457180পিএমসি 4340700অবাধে প্রবেশযোগ্য 
  35. Bowins B (২০০৭)। "Cognitive regulatory control therapies": 215–236। ডিওআই:10.1176/appi.psychotherapy.2013.67.3.215পিএমআইডি 24236353 
  36. Srivastava S, Ketter TA (ডিসেম্বর ২০১০)। "The link between bipolar disorders and creativity: evidence from personality and temperament studies.": 522–530। ডিওআই:10.1007/s11920-010-0159-xপিএমআইডি 20936438 
  37. "Bipolar Disorder: NIH Publication No. 95-3679"। U.S. National Institutes of Health। সেপ্টেম্বর ১৯৯৫। এপ্রিল ২৯, ২০০৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  38. "Bipolar II Disorder Symptoms and Signs"। Web M.D.। ডিসেম্বর ৯, ২০১০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ডিসেম্বর ৬, ২০১০ 
  39. Muneer A (জুন ২০১৩)। "Treatment of the depressive phase of bipolar affective disorder: a review" (Review): 763–769। পিএমআইডি 23901682 
  40. Bowden CL (জানুয়ারি ২০০১)। "Strategies to reduce misdiagnosis of bipolar depression": 51–55। ডিওআই:10.1176/appi.ps.52.1.51পিএমআইডি 11141528 
  41. Muzina DJ, Kemp DE, McIntyre RS (অক্টোবর–ডিসেম্বর ২০০৭)। "Differentiating bipolar disorders from major depressive disorders: treatment implications": 305–312। ডিওআই:10.1080/10401230701653591পিএমআইডি 18058287 
  42. Swann AC, Lafer B, Perugi G, Frye MA, Bauer M, Bahk WM, Scott J, Ha K, Suppes T (জানুয়ারি ২০১৩)। "Bipolar mixed states: an international society for bipolar disorders task force report of symptom structure, course of illness, and diagnosis": 31–42। ডিওআই:10.1176/appi.ajp.2012.12030301পিএমআইডি 23223893 
  43. Kerner B (ফেব্রুয়ারি ২০১৪)। "Genetics of bipolar disorder": 33–42। ডিওআই:10.2147/tacg.s39297পিএমআইডি 24683306পিএমসি 3966627অবাধে প্রবেশযোগ্য 
  44. Cirillo PC, Passos RB, Bevilaqua MC, López JR, Nardi AE (ডিসেম্বর ২০১২)। "Bipolar disorder and Premenstrual Syndrome or Premenstrual Dysphoric Disorder comorbidity: a systematic review": 467–479। ডিওআই:10.1016/j.rbp.2012.04.010অবাধে প্রবেশযোগ্যপিএমআইডি 23429819 
  45. Sagman D, Tohen M (২০০৯)। "Comorbidity in Bipolar Disorder: The Complexity of Diagnosis and Treatment"। এপ্রিল ২৮, ২০০৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  46. [তারিখের তথ্য]DelBello MP, Geller B (ডিসেম্বর ২০০১)। "Review of studies of child and adolescent offspring of bipolar parents": 325–34। ডিওআই:10.1034/j.1399-5618.2001.30607.xপিএমআইডি 11843782 
  47. Cassidy, F.; Ahearn, E. P. (২০০১)। "Substance abuse in bipolar disorder": 181–188। আইএসএসএন 1398-5647ডিওআই:10.1034/j.1399-5618.2001.30403.xপিএমআইডি 11552957 
  48. Messer, Thomas; Lammers, Gero (২০১৭)। "Substance abuse in patients with bipolar disorder: A systematic review and meta-analysis": 338–350। আইএসএসএন 1872-7123ডিওআই:10.1016/j.psychres.2017.02.067পিএমআইডি 28419959 
  49. Nierenberg AA, Kansky C, Brennan BP, Shelton RC, Perlis R, Iosifescu DV (জানুয়ারি ২০১৩)। "Mitochondrial modulators for bipolar disorder: a pathophysiologically informed paradigm for new drug development": 26–42। ডিওআই:10.1177/0004867412449303পিএমআইডি 22711881 
  50. Edvardsen J, Torgersen S, Røysamb E, Lygren S, Skre I, Onstad S, Oien PA (২০০৮)। "Heritability of bipolar spectrum disorders. Unity or heterogeneity?": 229–240। ডিওআই:10.1016/j.jad.2007.07.001পিএমআইডি 17692389 
  51. Kieseppä T, Partonen T, Haukka J, Kaprio J, Lönnqvist J (২০০৪)। "High Concordance of Bipolar I Disorder in a Nationwide Sample of Twins": 1814–1821। ডিওআই:10.1176/appi.ajp.161.10.1814পিএমআইডি 15465978 
  52. McGuffin P, Rijsdijk F, Andrew M, Sham P, Katz R, Cardno A (২০০৩)। "The Heritability of Bipolar Affective Disorder and the Genetic Relationship to Unipolar Depression": 497–502। ডিওআই:10.1001/archpsyc.60.5.497অবাধে প্রবেশযোগ্যপিএমআইডি 12742871 
  53. Reich T, Clayton PJ, Winokur G (এপ্রিল ১৯৬৯)। "Family history studies: V. The genetics of mania": 1358–69। ডিওআই:10.1176/ajp.125.10.1358পিএমআইডি 5304735 
  54. Segurado R, Detera-Wadleigh SD, Levinson DF, Lewis CM, Gill M, Nurnberger JI, Craddock N, DePaulo JR, Baron M, Gershon ES, Ekholm J, Cichon S, Turecki G, Claes S, Kelsoe JR, Schofield PR, Badenhop RF, Morissette J, Coon H, Blackwood D, McInnes LA, Foroud T, Edenberg HJ, Reich T, Rice JP, Goate A, McInnis MG, McMahon FJ, Badner JA, Goldin LR, Bennett P, Willour VL, Zandi PP, Liu J, Gilliam C, Juo SH, Berrettini WH, Yoshikawa T, Peltonen L, Lönnqvist J, Nöthen MM, Schumacher J, Windemuth C, Rietschel M, Propping P, Maier W, Alda M, Grof P, Rouleau GA, Del-Favero J, Van Broeckhoven C, Mendlewicz J, Adolfsson R, Spence MA, Luebbert H, Adams LJ, Donald JA, Mitchell PB, Barden N, Shink E, Byerley W, Muir W, Visscher PM, Macgregor S, Gurling H, Kalsi G, McQuillin A, Escamilla MA, Reus VI, Leon P, Freimer NB, Ewald H, Kruse TA, Mors O, Radhakrishna U, Blouin JL, Antonarakis SE, Akarsu N (২০০৩)। "Genome Scan Meta-Analysis of Schizophrenia and Bipolar Disorder, Part III: Bipolar Disorder": 49–62। ডিওআই:10.1086/376547পিএমআইডি 12802785পিএমসি 1180589অবাধে প্রবেশযোগ্য 
  55. Craddock N, Sklar P (মে ২০১৩)। "Genetics of bipolar disorder": 1654–1662। ডিওআই:10.1016/S0140-6736(13)60855-7পিএমআইডি 23663951 
  56. Seifuddin F, Mahon PB, Judy J, Pirooznia M, Jancic D, Taylor J, Goes FS, Potash JB, Zandi PP (জুলাই ২০১২)। "Meta-analysis of genetic association studies on bipolar disorder": 508–18। ডিওআই:10.1002/ajmg.b.32057পিএমআইডি 22573399পিএমসি 3582382অবাধে প্রবেশযোগ্য 
  57. Gao J, Jia M, Qiao D, Qiu H, Sokolove J, Zhang J, Pan Z (মার্চ ২০১৬)। "TPH2 gene polymorphisms and bipolar disorder: A meta-analysis": 145–152। ডিওআই:10.1002/ajmg.b.32381পিএমআইডি 26365518 
  58. Torkamani A, Topol EJ, Schork NJ (নভেম্বর ২০০৮)। "Pathway analysis of seven common diseases assessed by genome-wide association": 265–272। ডিওআই:10.1016/j.ygeno.2008.07.011পিএমআইডি 18722519পিএমসি 2602835অবাধে প্রবেশযোগ্য 
  59. Pedroso I, Lourdusamy A, Rietschel M, Nöthen MM, Cichon S, McGuffin P, Al-Chalabi A, Barnes MR, Breen G (আগস্ট ২০১২)। "Common genetic variants and gene-expression changes associated with bipolar disorder are over-represented in brain signaling pathway genes": 311–317। ডিওআই:10.1016/j.biopsych.2011.12.031পিএমআইডি 22502986 
  60. Nurnberger JI, Koller DL, Jung J, Edenberg HJ, Foroud T, Guella I, Vawter MP, Kelsoe JR (জুন ২০১৪)। "Identification of pathways for bipolar disorder: a meta-analysis": 657–664। ডিওআই:10.1001/jamapsychiatry.2014.176পিএমআইডি 24718920পিএমসি 4523227অবাধে প্রবেশযোগ্য 
  61. Raza MU, Tufan T, Wang Y, Hill C, Zhu MY (আগস্ট ২০১৬)। "DNA Damage in Major Psychiatric Diseases": 251–267। ডিওআই:10.1007/s12640-016-9621-9পিএমআইডি 27126805পিএমসি 4947450অবাধে প্রবেশযোগ্য 
  62. Serretti A, Mandelli L (২০০৮)। "The genetics of bipolar disorder: Genome 'hot regions,' genes, new potential candidates and future directions": 742–771। ডিওআই:10.1038/mp.2008.29অবাধে প্রবেশযোগ্যপিএমআইডি 18332878 
  63. Geddes JR, Miklowitz DJ (মে ১১, ২০১৩)। "Treatment of bipolar disorder": 1672–1682। ডিওআই:10.1016/S0140-6736(13)60857-0পিএমআইডি 23663953পিএমসি 3876031অবাধে প্রবেশযোগ্য 
  64. Brietzke E, Kauer Sant'anna M, Jackowski A, Grassi-Oliveira R, Bucker J, Zugman A, Mansur RB, Bressan RA (ডিসেম্বর ২০১২)। "Impact of childhood stress on psychopathology": 480–488। ডিওআই:10.1016/j.rbp.2012.04.009অবাধে প্রবেশযোগ্যপিএমআইডি 23429820 
  65. Miklowitz DJ, Chang KD (২০০৮)। "Prevention of bipolar disorder in at-risk children: Theoretical assumptions and empirical foundations": 881–897। ডিওআই:10.1017/S0954579408000424পিএমআইডি 18606036পিএমসি 2504732অবাধে প্রবেশযোগ্য 
  66. Young, JW; Dulcis, D (জুলাই ১৫, ২০১৫)। "Investigating the mechanism(s) underlying switching between states in bipolar disorder": 151–62। ডিওআই:10.1016/j.ejphar.2015.03.019পিএমআইডি 25814263পিএমসি 4437855অবাধে প্রবেশযোগ্য 
  67. Murray ED, Buttner N, Price BH. (2012) Depression and Psychosis in Neurological Practice.
  68. Bora E, Fornito A, Yücel M, Pantelis C (জুন ২০১০)। "Voxelwise meta-analysis of gray matter abnormalities in bipolar disorder": 1097–1105। ডিওআই:10.1016/j.biopsych.2010.01.020পিএমআইডি 20303066 
  69. Kempton MJ, Geddes JR, Ettinger U, Williams SC, Grasby PM (সেপ্টেম্বর ২০০৮)। "Meta-analysis, database, and meta-regression of 98 structural imaging studies in bipolar disorder": 1017–1032। ডিওআই:10.1001/archpsyc.65.9.1017অবাধে প্রবেশযোগ্যপিএমআইডি 18762588 
  70. Arnone D, Cavanagh J, Gerber D, Lawrie SM, Ebmeier KP, McIntosh AM (সেপ্টেম্বর ২০০৯)। "Magnetic resonance imaging studies in bipolar disorder and schizophrenia: meta-analysis": 194–201। ডিওআই:10.1192/bjp.bp.108.059717অবাধে প্রবেশযোগ্যপিএমআইডি 19721106 
  71. Selvaraj S, Arnone D, Job D, Stanfield A, Farrow TF, Nugent AC, Scherk H, Gruber O, Chen X, Sachdev PS, Dickstein DP, Malhi GS, Ha TH, Ha K, Phillips ML, McIntosh AM (মার্চ ২০১২)। "Grey matter differences in bipolar disorder: a meta-analysis of voxel-based morphometry studies": 135–145। ডিওআই:10.1111/j.1399-5618.2012.01000.xপিএমআইডি 22420589 
  72. Strakowski SM, Adler CM, Almeida J, Altshuler LL, Blumberg HP, Chang KD, DelBello MP, Frangou S, McIntosh A, Phillips ML, Sussman JE, Townsend JD (জুন ২০১২)। "The functional neuroanatomy of bipolar disorder: a consensus model": 313–325। ডিওআই:10.1111/j.1399-5618.2012.01022.xপিএমআইডি 22631617পিএমসি 3874804অবাধে প্রবেশযোগ্য 
  73. Pavuluri M (জানুয়ারি ২০১৫)। "Brain biomarkers of treatment for multi-domain dysfunction: pharmacological FMRI studies in pediatric mania": 249–251। ডিওআই:10.1038/npp.2014.229পিএমআইডি 25482178পিএমসি 4262909অবাধে প্রবেশযোগ্য 
  74. Houenou J, Frommberger J, Carde S, Glasbrenner M, Diener C, Leboyer M, Wessa M (আগস্ট ২০১১)। "Neuroimaging-based markers of bipolar disorder: evidence from two meta-analyses": 344–355। ডিওআই:10.1016/j.jad.2011.03.016পিএমআইডি 21470688 
  75. Nusslock R, Young CB, Damme KS (নভেম্বর ২০১৪)। "Elevated reward-related neural activation as a unique biological marker of bipolar disorder: assessment and treatment implications": 74–87। ডিওআই:10.1016/j.brat.2014.08.011পিএমআইডি 25241675পিএমসি 6727647অবাধে প্রবেশযোগ্য 
  76. Bender RE, Alloy LB (এপ্রিল ২০১১)। "Life stress and kindling in bipolar disorder: review of the evidence and integration with emerging biopsychosocial theories": 383–398। ডিওআই:10.1016/j.cpr.2011.01.004পিএমআইডি 21334286পিএমসি 3072804অবাধে প্রবেশযোগ্য 
  77. Lee HJ, Son GH, Geum D (সেপ্টেম্বর ২০১৩)। "Circadian Rhythm Hypotheses of Mixed Features, Antidepressant Treatment Resistance, and Manic Switching in Bipolar Disorder": 225–232। ডিওআই:10.4306/pi.2013.10.3.225পিএমআইডি 24302944পিএমসি 3843013অবাধে প্রবেশযোগ্য 
  78. Brown ও Basso 2004
  79. Dallaspezia S, Benedetti F (ডিসেম্বর ২০০৯)। "Melatonin, circadian rhythms, and the clock genes in bipolar disorder": 488–493। ডিওআই:10.1007/s11920-009-0074-1পিএমআইডি 19909672 
  80. Lahera G, Freund N, Sáiz-Ruiz J (জানুয়ারি–মার্চ ২০১৩)। "Salience and dysregulation of the dopaminergic system": 45–51। ডিওআই:10.1016/j.rpsm.2012.05.003পিএমআইডি 23084802 
  81. Berk M, Dodd S, Kauer-Sant'anna M, Malhi GS, Bourin M, Kapczinski F, Norman T (২০০৭)। "Dopamine dysregulation syndrome: implications for a dopamine hypothesis of bipolar disorder": 41–49। ডিওআই:10.1111/j.1600-0447.2007.01058.xপিএমআইডি 17688462 
  82. Michael N, Erfurth A, Ohrmann P, Gössling M, Arolt V, Heindel W, Pfleiderer B (২০০৩)। "Acute mania is accompanied by elevated glutamate/glutamine levels within the left dorsolateral prefrontal cortex": 344–346। ডিওআই:10.1007/s00213-003-1440-zপিএমআইডি 12684737 
  83. Malhi, GS; Tanious, M (ফেব্রুয়ারি ২০১৩)। "Potential mechanisms of action of lithium in bipolar disorder. Current understanding" (Review): 135–53। ডিওআই:10.1007/s40263-013-0039-0পিএমআইডি 23371914  |hdl-সংগ্রহ= এর |hdl= প্রয়োজন (সাহায্য)
  84. Manji, Husseini K; Zarate, Carlos A, সম্পাদকগণ (২০১১)। Behavioral neurobiology of bipolar disorder and its treatmentসীমিত পরীক্ষা সাপেক্ষে বিনামূল্যে প্রবেশাধিকার, সাধারণত সদস্যতা প্রয়োজন। Berlin: Springer। পৃষ্ঠা 143, 147। আইএসবিএন 978-3-642-15756-1  অজানা প্যারামিটার |name-list-style= উপেক্ষা করা হয়েছে (সাহায্য)
  85. Kapczinski F, Frey BN, Zannatto V (অক্টোবর ২০০৪)। "[Physiopathology of bipolar disorders: what have changed in the last 10 years?]": 17–21। ডিওআই:10.1590/S1516-44462004000700005অবাধে প্রবেশযোগ্যপিএমআইডি 15597134 
  86. Berns GS, Nemeroff CB (নভেম্বর ২০০৩)। "The neurobiology of bipolar disorder": 76–84। ডিওআই:10.1002/ajmg.c.20016পিএমআইডি 14601039সাইট সিয়ারX 10.1.1.1033.7393অবাধে প্রবেশযোগ্য 
  87. Manji HK, Quiroz JA, Payne JL, Singh J, Lopes BP, Viegas JS, Zarate CA (অক্টোবর ২০০৩)। "The underlying neurobiology of bipolar disorder": 136–146। পিএমআইডি 16946919পিএমসি 1525098অবাধে প্রবেশযোগ্য 
  88. Price AL, Marzani-Nissen GR (মার্চ ২০১২)। "Bipolar disorders: a review": 483–493। পিএমআইডি 22534227। মার্চ ২৪, ২০১৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  89. Youngstrom EA, Genzlinger JE, Egerton GA, Van Meter AR (২০১৫)। "Multivariate Meta-Analysis of the Discriminative Validity of Caregiver, Youth, and Teacher Rating Scales for Pediatric Bipolar Disorder: Mother Knows Best About Mania": 112–137। ডিওআই:10.1037/arc0000024অবাধে প্রবেশযোগ্য 
  90. Perugi G, Ghaemi SN, Akiskal H (২০০৬)। "Diagnostic and Clinical Management Approaches to Bipolar Depression, Bipolar II and Their Comorbidities"। Bipolar Psychopharmacotherapy: Caring for the Patient। পৃষ্ঠা 193–234। আইএসবিএন 978-0-470-01795-1ডিওআই:10.1002/0470017953.ch11 
  91. "ICD-11 for Mortality and Morbidity Statistics"World Health Organization। World Health Organization। এপ্রিল ২০১৯। পৃষ্ঠা 6A60, 6A61, 6A62। সংগ্রহের তারিখ মার্চ ৭, ২০২০ 
  92. Carvalho AF, Takwoingi Y, Sales PM, Soczynska JK, Köhler CA, Freitas TH, Quevedo J, Hyphantis TN, McIntyre RS, Vieta E (ফেব্রুয়ারি ২০১৫)। "Screening for bipolar spectrum disorders: A comprehensive meta-analysis of accuracy studies": 337–346। ডিওআই:10.1016/j.jad.2014.10.024পিএমআইডি 25451435 
  93. Picardi A (জানুয়ারি ২০০৯)। "Rating scales in bipolar disorder": 42–49। ডিওআই:10.1097/YCO.0b013e328315a4d2পিএমআইডি 19122534 
  94. Drs; Sartorius, Norman; Henderson, A.S.। "The ICD-10 Classification of Mental and Behavioural Disorders Clinical descriptions and diagnostic guidelines" (PDF)www.who.int World Health OrganizationMicrosoft Word। পৃষ্ঠা 92, 97–9। সংগ্রহের তারিখ ২৩ জুন ২০২১Microsoft Bing-এর মাধ্যমে। 
  95. Baldessarini RJ, Faedda GL, Offidani E, Vázquez GH, Marangoni C, Serra G, Tondo L (মে ২০১৩)। "Antidepressant-associated mood-switching and transition from unipolar major depression to bipolar disorder: a review": 129–135। ডিওআই:10.1016/j.jad.2012.10.033পিএমআইডি 23219059 
  96. Sood AB, Razdan A, Weller EB, Weller RA (২০০৫)। "How to differentiate bipolar disorder from attention deficit hyperactivity disorder and other common psychiatric disorders: A guide for clinicians": 98–103। ডিওআই:10.1007/s11920-005-0005-8পিএমআইডি 15802085 
  97. Magill CA (২০০৪)। "The boundary between borderline personality disorder and bipolar disorder: Current concepts and challenges": 551–556। ডিওআই:10.1177/070674370404900806অবাধে প্রবেশযোগ্যপিএমআইডি 15453104 
  98. Bassett D (২০১২)। "Borderline personality disorder and bipolar affective disorder. Spectra or spectre? A review": 327–339। ডিওআই:10.1177/0004867411435289পিএমআইডি 22508593 
  99. Paris J (২০১২)। Bipolar II Disorder: Modelling, Measuring and Managing। Cambridge University Press। পৃষ্ঠা 81–84। আইএসবিএন 978-1-107-60089-8 
  100. Peet M, Peters S (ফেব্রুয়ারি ১৯৯৫)। "Drug-induced mania": 146–153। ডিওআই:10.2165/00002018-199512020-00007পিএমআইডি 7766338 
  101. Korn ML। "Across the Bipolar Spectrum: From Practice to Research"। Medscape। ডিসেম্বর ১৪, ২০০৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  102. Gitlin M, Malhi G (২০২০)। "The existential crisis of bipolar II disorder": 5। ডিওআই:10.1186/s40345-019-0175-7পিএমআইডি 31993793পিএমসি 6987267অবাধে প্রবেশযোগ্য 
  103. "Bipolar disorder"Harvard Health Publishing। সংগ্রহের তারিখ এপ্রিল ১১, ২০১৯ 
  104. Durand, V. Mark. (২০১৫)। Essentials of abnormal psychology.। Cengage Learning। পৃষ্ঠা 267। আইএসবিএন 978-1305633681ওসিএলসি 884617637 
  105. Renk K, White R, Lauer BA, McSwiggan M, Puff J, Lowell A (ফেব্রুয়ারি ২০১৪)। "Bipolar Disorder in Children": 928685। ডিওআই:10.1155/2014/928685অবাধে প্রবেশযোগ্যপিএমআইডি 24800202পিএমসি 3994906অবাধে প্রবেশযোগ্য 
  106. Van Meter AR, Youngstrom EA, Findling RL (জুন ২০১২)। "Cyclothymic disorder: a critical review": 229–243। ডিওআই:10.1016/j.cpr.2012.02.001পিএমআইডি 22459786 
  107. Angst J (২০১৩)। "Bipolar disorders in DSM-5: strengths, problems and perspectives": 12। ডিওআই:10.1186/2194-7511-1-12পিএমআইডি 25505679পিএমসি 4230689অবাধে প্রবেশযোগ্য 
  108. Angst J, Sellaro R (২০০০)। "Historical perspectives and natural history of bipolar disorder" (Review): 445–457। ডিওআই:10.1016/s0006-3223(00)00909-4পিএমআইডি 11018218 
  109. Buoli, M; Serati, M (ডিসেম্বর ২০১৭)। "Biological aspects and candidate biomarkers for rapid-cycling in bipolar disorder: A systematic review" (Review): 565–575। ডিওআই:10.1016/j.psychres.2017.08.059পিএমআইডি 28864122 
  110. Bauer M, Beaulieu S, Dunner DL, Lafer B, Kupka R (ফেব্রুয়ারি ২০০৮)। "Rapid cycling bipolar disorder – diagnostic concepts": 153–162। ডিওআই:10.1111/j.1399-5618.2007.00560.xপিএমআইডি 18199234 
  111. Fountoulakis KN, Kontis D, Gonda X, Yatham LN (মার্চ ২০১৩)। "A systematic review of the evidence on the treatment of rapid cycling bipolar disorder" (Systematic Review): 115–137। ডিওআই:10.1111/bdi.12045পিএমআইডি 23437958 
  112. Post, RM (মার্চ ২০১৬)। "Treatment of Bipolar Depression: Evolving Recommendations" (Review): 11–33। ডিওআই:10.1016/j.psc.2015.09.001পিএমআইডি 26876316 
  113. McClellan J, Kowatch R, Findling RL (২০০৭)। "Practice Parameter for the Assessment and Treatment of Children and Adolescents with Bipolar Disorder"। Work Group on Quality Issues: 107–125। ডিওআই:10.1097/01.chi.0000242240.69678.c4পিএমআইডি 17195735 
  114. Anthony J, Scott P (১৯৬০)। "Manic–depressive Psychosis in Childhood": 53–72। ডিওআই:10.1111/j.1469-7610.1960.tb01979.x 
  115. Leibenluft E, Rich BA (২০০৮)। "Pediatric Bipolar Disorder": 163–187। ডিওআই:10.1146/annurev.clinpsy.4.022007.141216পিএমআইডি 17716034 
  116. Diler, RS; Birmaher, B (২০১৯)। "Chapter E2 Bipolar Disorders in Children and Adolescents"। JM Rey's IACAPAP e-Textbook of Child and Adolescent Mental Health. (PDF)। International Association for Child and Adolescent Psychiatry and Allied Professions। পৃষ্ঠা 1–37। মার্চ ১৮, ২০২০ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ মার্চ ১৮, ২০২০  উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ বৈধ নয়; আলাদা বিষয়বস্তুর সঙ্গে "Diler2019" নামটি একাধিক বার সংজ্ঞায়িত করা হয়েছে উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ বৈধ নয়; আলাদা বিষয়বস্তুর সঙ্গে "Diler2019" নামটি একাধিক বার সংজ্ঞায়িত করা হয়েছে
  117. Roy AK, Lopes V, Klein RG (সেপ্টেম্বর ২০১৪)। "Disruptive mood dysregulation disorder: a new diagnostic approach to chronic irritability in youth": 918–924। ডিওআই:10.1176/appi.ajp.2014.13101301পিএমআইডি 25178749পিএমসি 4390118অবাধে প্রবেশযোগ্য 
  118. Forlenza O, Valiengo L, Stella F (২০১৬)। "Mood disorders in the elderly: Prevalence, functional impact, and management challenges": 2105–2114। ডিওআই:10.2147/NDT.S94643অবাধে প্রবেশযোগ্যপিএমআইডি 27601905পিএমসি 5003566অবাধে প্রবেশযোগ্য 
  119. Vasudev A, Thomas A (জুলাই ২০১০)। "'Bipolar disorder' in the elderly: what's in a name?": 231–235। ডিওআই:10.1016/j.maturitas.2010.02.013পিএমআইডি 20307944 
  120. Miklowitz DJ, Chang KD (Summer ২০০৮)। "Prevention of bipolar disorder in at-risk children: theoretical assumptions and empirical foundations.": 881–897। ডিওআই:10.1017/s0954579408000424পিএমআইডি 18606036পিএমসি 2504732অবাধে প্রবেশযোগ্য 
  121. Vieta, Eduard; Salagre, Estela (২০১৮-০৫-০১)। "Early Intervention in Bipolar Disorder": 411–426। আইএসএসএন 1535-7228ডিওআই:10.1176/appi.ajp.2017.17090972অবাধে প্রবেশযোগ্যপিএমআইডি 29361850 
  122. Faedda, Gianni L.; Baldessarini, Ross J. (২০১৯)। "An International Society of Bipolar Disorders task force report: Precursors and prodromes of bipolar disorder": 720–740। আইএসএসএন 1399-5618ডিওআই:10.1111/bdi.12831পিএমআইডি 31479581 
  123. Becker T, Kilian R (২০০৬)। "Psychiatric services for people with severe mental illness across western Europe: What can be generalized from current knowledge about differences in provision, costs and outcomes of mental health care?": 9–16। ডিওআই:10.1111/j.1600-0447.2005.00711.xপিএমআইডি 16445476 
  124. McGurk SR, Mueser KT, Feldman K, Wolfe R, Pascaris A (২০০৭)। "Cognitive Training for Supported Employment: 2–3 Year Outcomes of a Randomized Controlled Trial": 437–441। ডিওআই:10.1176/appi.ajp.164.3.437পিএমআইডি 17329468 
  125. Zaretsky AE, Rizvi S, Parikh SV (২০০৭)। "How well do psychosocial interventions work in bipolar disorder?": 14–21। ডিওআই:10.1177/070674370705200104অবাধে প্রবেশযোগ্যপিএমআইডি 17444074 
  126. Havens LL, Ghaemi SN (২০০৫)। "Existential despair and bipolar disorder: The therapeutic alliance as a mood stabilizer": 137–147। ডিওআই:10.1176/appi.psychotherapy.2005.59.2.137অবাধে প্রবেশযোগ্যপিএমআইডি 16170918 
  127. Brown KM, Tracy DK (জুন ২০১৩)। "Lithium: the pharmacodynamic actions of the amazing ion": 163–176। ডিওআই:10.1177/2045125312471963পিএমআইডি 24167688পিএমসি 3805456অবাধে প্রবেশযোগ্য 
  128. McKnight RF, de La Motte de Broöns de Vauvert SJ, Chesney E, ও অন্যান্য (জুন ২০১৯)। "Lithium for acute mania": CD004048। ডিওআই:10.1002/14651858.CD004048.pub4অবাধে প্রবেশযোগ্যপিএমআইডি 31152444পিএমসি 6544558অবাধে প্রবেশযোগ্য 
  129. Cipriani A, Hawton K, Stockton S, Geddes JR (জুন ২০১৩)। "Lithium in the prevention of suicide in mood disorders: updated systematic review and meta-analysis": f3646। ডিওআই:10.1136/bmj.f3646অবাধে প্রবেশযোগ্যপিএমআইডি 23814104 
  130. McCloud TL, Caddy C, Jochim J, Rendell JM, Diamond PR, Shuttleworth C, Brett D, Amit BH, McShane R, Hamadi L, Hawton K, Cipriani A (সেপ্টেম্বর ২০১৫)। "Ketamine and other glutamate receptor modulators for depression in bipolar disorder in adults": CD011611। ডিওআই:10.1002/14651858.CD011611.pub2পিএমআইডি 26415966 
  131. Macritchie K, Geddes JR, Scott J, Haslam D, de Lima M, Goodwin G (২০০৩)। Reid K, সম্পাদক। "Valproate for acute mood episodes in bipolar disorder": CD004052। ডিওআই:10.1002/14651858.CD004052পিএমআইডি 12535506 
  132. Post RM, Ketter TA, Uhde T, Ballenger JC (২০০৭)। "Thirty years of clinical experience with carbamazepine in the treatment of bipolar illness: Principles and practice": 47–71। ডিওআই:10.2165/00023210-200721010-00005পিএমআইডি 17190529 
  133. Rapoport SI, Basselin M, Kim HW, Rao JS (অক্টোবর ২০০৯)। "Bipolar disorder and mechanisms of action of mood stabilizers": 185–209। ডিওআই:10.1016/j.brainresrev.2009.06.003পিএমআইডি 19555719পিএমসি 2757443অবাধে প্রবেশযোগ্য 
  134. Geddes JR, Calabrese JR, Goodwin GM (২০০৮)। "Lamotrigine for treatment of bipolar depression: Independent meta-analysis and meta-regression of individual patient data from five randomised trials": 4–9। ডিওআই:10.1192/bjp.bp.107.048504অবাধে প্রবেশযোগ্যপিএমআইডি 19118318 
  135. van der Loos ML, Kölling P, Knoppert-van der Klein EA, Nolen WA (২০০৭)। "Lamotrigine in the treatment of bipolar disorder, a review": 95–103। পিএমআইডি 17290338 
  136. Vasudev K, Macritchie K, Geddes J, Watson S, Young A (২০০৬)। "Topiramate for acute affective episodes in bipolar disorder": CD003384। ডিওআই:10.1002/14651858.CD003384.pub2পিএমআইডি 16437453 
  137. Cipriani A, Rendell JM, Geddes J (২০০৯)। "Olanzapine in long-term treatment for bipolar disorder": CD004367। ডিওআই:10.1002/14651858.CD004367.pub2পিএমআইডি 19160237 
  138. Cipriani, A.; Rendell, J. M. (২০০৬-০৭-১৯)। "Haloperidol alone or in combination for acute mania": CD004362। আইএসএসএন 1469-493Xডিওআই:10.1002/14651858.CD004362.pub2পিএমআইডি 16856043 
  139. El-Mallakh RS, Elmaadawi AZ, Loganathan M, Lohano K, Gao Y (জুলাই ২০১০)। "Bipolar disorder: an update": 24–31। ডিওআই:10.3810/pgm.2010.07.2172পিএমআইডি 20675968 
  140. "Benzodiazepines for Bipolar Disorder"। WebMD.com। ফেব্রুয়ারি ২৫, ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ফেব্রুয়ারি ১৩, ২০১৩ 
  141. Fristad MA, MacPherson HA (২০১৪)। "Evidence-based psychosocial treatments for child and adolescent bipolar spectrum disorders": 339–355। ডিওআই:10.1080/15374416.2013.822309পিএমআইডি 23927375পিএমসি 3844106অবাধে প্রবেশযোগ্য 
  142. Gitlin, M. (২০০৬)। "Treatment-resistant bipolar disorder": 227–240। আইএসএসএন 1359-4184ডিওআই:10.1038/sj.mp.4001793অবাধে প্রবেশযোগ্যপিএমআইডি 16432528 
  143. Hui Poon, Shi; Sim, Kang (২০১৫)। "Pharmacological Approaches for Treatment-resistant Bipolar Disorder": 592–604। আইএসএসএন 1875-6190ডিওআই:10.2174/1570159x13666150630171954পিএমআইডি 26467409পিএমসি 4761631অবাধে প্রবেশযোগ্য 
  144. Fountoulakis, Konstantinos N.; Yatham, Lakshmi N. (২০২০-০৪-২৩)। "The CINP Guidelines on the Definition and Evidence-Based Interventions for Treatment-Resistant Bipolar Disorder": 230–256। আইএসএসএন 1469-5111ডিওআই:10.1093/ijnp/pyz064পিএমআইডি 31802122পিএমসি 7177170অবাধে প্রবেশযোগ্য |pmc= এর মান পরীক্ষা করুন (সাহায্য) 
  145. Montgomery P, Richardson AJ (এপ্রিল ২০০৮)। "Omega-3 fatty acids for bipolar disorder": CD005169। ডিওআই:10.1002/14651858.CD005169.pub2পিএমআইডি 18425912 
  146. Cloutier, M; Greene, M (জানুয়ারি ২০১৮)। "The economic burden of bipolar I disorder in the United States in 2015" (Review): 45–51। ডিওআই:10.1016/j.jad.2017.09.011অবাধে প্রবেশযোগ্যপিএমআইডি 28961441 
  147. Muneer A (মে ২০১৬)। "Staging Models in Bipolar Disorder: A Systematic Review of the Literature": 117–130। ডিওআই:10.9758/cpn.2016.14.2.117পিএমআইডি 27121423পিএমসি 4857867অবাধে প্রবেশযোগ্য 
  148. Jann MW (ডিসেম্বর ২০১৪)। "Diagnosis and treatment of bipolar disorders in adults: a review of the evidence on pharmacologic treatments": 489–499। পিএমআইডি 25610528পিএমসি 4296286অবাধে প্রবেশযোগ্য 
  149. Tsitsipa E, Fountoulakis KN (ডিসেম্বর ১, ২০১৫)। "The neurocognitive functioning in bipolar disorder: a systematic review of data": 42। ডিওআই:10.1186/s12991-015-0081-zপিএমআইডি 26628905পিএমসি 4666163অবাধে প্রবেশযোগ্য 
  150. Maciukiewicz M, Pawlak J, Kapelski P, Łabędzka M, Skibinska M, Zaremba D, Leszczynska-Rodziewicz A, Dmitrzak-Weglarz M, Hauser J (২০১৬)। "Can Psychological, Social and Demographical Factors Predict Clinical Characteristics Symptomatology of Bipolar Affective Disorder and Schizophrenia?": 501–513। ডিওআই:10.1007/s11126-015-9405-zপিএমআইডি 26646576পিএমসি 4945684অবাধে প্রবেশযোগ্য 
  151. Kennedy KP, Cullen KR, DeYoung CG, Klimes-Dougan B (সেপ্টেম্বর ২০১৫)। "The genetics of early-onset bipolar disorder: A systematic review": 1–12। ডিওআই:10.1016/j.jad.2015.05.017পিএমআইডি 26057335পিএমসি 5552237অবাধে প্রবেশযোগ্য 
  152. Serafini G, Pompili M, Borgwardt S, Houenou J, Geoffroy PA, Jardri R, Girardi P, Amore M (নভেম্বর ২০১৪)। "Brain changes in early-onset bipolar and unipolar depressive disorders: a systematic review in children and adolescents": 1023–41। ডিওআই:10.1007/s00787-014-0614-zপিএমআইডি 25212880 
  153. MacQueen GM, Memedovich KA (জানুয়ারি ২০১৭)। "Cognitive dysfunction in major depression and bipolar disorder: Assessment and treatment options" (Review): 18–27। ডিওআই:10.1111/pcn.12463অবাধে প্রবেশযোগ্যপিএমআইডি 27685435 
  154. Cipriani G, Danti S, Carlesi C, Cammisuli DM, Di Fiorino M (অক্টোবর ২০১৭)। "Bipolar Disorder and Cognitive Dysfunction: A Complex Link" (Review): 743–756। ডিওআই:10.1097/NMD.0000000000000720পিএমআইডি 28961594 
  155. Bortolato B, Miskowiak KW, Köhler CA, Vieta E, Carvalho AF (২০১৫)। "Cognitive dysfunction in bipolar disorder and schizophrenia: a systematic review of meta-analyses": 3111–3125। ডিওআই:10.2147/NDT.S76700পিএমআইডি 26719696পিএমসি 4689290অবাধে প্রবেশযোগ্য 
  156. Johnson SL (ফেব্রুয়ারি ২০০৫)। "Mania and dysregulation in goal pursuit: a review": 241–262। ডিওআই:10.1016/j.cpr.2004.11.002পিএমআইডি 15642648পিএমসি 2847498অবাধে প্রবেশযোগ্য 
  157. Tse S, Chan S, Ng KL, Yatham LN (মে ২০১৪)। "Meta-analysis of predictors of favorable employment outcomes among individuals with bipolar disorder": 217–229। ডিওআই:10.1111/bdi.12148পিএমআইডি 24219657 
  158. Tohen M, Zarate CA, Hennen J, Khalsa HM, Strakowski SM, Gebre-Medhin P, Salvatore P, Baldessarini RJ (২০০৩)। "The McLean-Harvard First-Episode Mania Study: Prediction of recovery and first recurrence": 2099–2107। ডিওআই:10.1176/appi.ajp.160.12.2099পিএমআইডি 14638578 
  159. Jackson A, Cavanagh J, Scott J (২০০৩)। "A systematic review of manic and depressive prodromes": 209–217। ডিওআই:10.1016/s0165-0327(02)00266-5পিএমআইডি 12738039 
  160. Lam D, Wong G (২০০৫)। "Prodromes, coping strategies and psychological interventions in bipolar disorders": 1028–1042। ডিওআই:10.1016/j.cpr.2005.06.005পিএমআইডি 16125292 
  161. Sadock, Kaplan এবং Sadock 2007
  162. McIntyre RS, Soczynska JK, Konarski J (অক্টোবর ২০০৬)। "Bipolar Disorder: Defining Remission and Selecting Treatment.": 46। সেপ্টেম্বর ২৭, ২০০৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  163. Boland EM, Alloy LB (ফেব্রুয়ারি ২০১৩)। "Sleep disturbance and cognitive deficits in bipolar disorder: toward an integrated examination of disorder maintenance and functional impairment": 33–44। ডিওআই:10.1016/j.cpr.2012.10.001পিএমআইডি 23123569পিএমসি 3534911অবাধে প্রবেশযোগ্য 
  164. Moreira AL, Van Meter A, Genzlinger J, Youngstrom EA (২০১৭)। "Review and Meta-Analysis of Epidemiologic Studies of Adult Bipolar Disorder": e1259–e1269। ডিওআই:10.4088/JCP.16r11165পিএমআইডি 29188905 
  165. Judd LL, Akiskal HS (জানুয়ারি ২০০৩)। "The prevalence and disability of bipolar spectrum disorders in the US population: re-analysis of the ECA database taking into account subthreshold cases": 123–131। ডিওআই:10.1016/s0165-0327(02)00332-4পিএমআইডি 12507745 
  166. Merikangas KR, Akiskal HS, Angst J, Greenberg PE, Hirschfeld RM, Petukhova M, Kessler RC (মে ২০০৭)। "Lifetime and 12-month prevalence of bipolar spectrum disorder in the National Comorbidity Survey replication": 543–552। ডিওআই:10.1001/archpsyc.64.5.543পিএমআইডি 17485606পিএমসি 1931566অবাধে প্রবেশযোগ্য 
  167. Phelps J (২০০৬)। "Bipolar Disorder: Particle or Wave? DSM Categories or Spectrum Dimensions?"। ডিসেম্বর ৪, ২০০৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  168. Farren CK, Hill KP, Weiss RD (ডিসেম্বর ২০১২)। "Bipolar disorder and alcohol use disorder: a review": 659–666। ডিওআই:10.1007/s11920-012-0320-9পিএমআইডি 22983943পিএমসি 3730445অবাধে প্রবেশযোগ্য 
  169. Ferrari AJ, Baxter AJ, Whiteford HA (নভেম্বর ২০১১)। "A systematic review of the global distribution and availability of prevalence data for bipolar disorder": 1–13। ডিওআই:10.1016/j.jad.2010.11.007পিএমআইডি 21131055 
  170. Ayuso-Mateos, Jose Luis। "Global burden of bipolar disorder in the year 2000" (PDF)World Health Organization। জানুয়ারি ১৯, ২০১৩ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ডিসেম্বর ৯, ২০১২ 
  171. Kurasaki, Karen S. (২০০২)। Asian American Mental Health: Assessment Theories and Methods। পৃষ্ঠা 14–15। আইএসবিএন 9780306472688 
  172. James SL, Abate D (নভেম্বর ২০১৮)। "Global, regional, and national incidence, prevalence, and years lived with disability for 354 diseases and injuries for 195 countries and territories, 1990–2017: a systematic analysis for the Global Burden of Disease Study 2017": 1789–1858। ডিওআই:10.1016/S0140-6736(18)32279-7পিএমআইডি 30496104পিএমসি 6227754অবাধে প্রবেশযোগ্য 
  173. Borch-Jacobsen M (অক্টোবর ২০১০)। "Which came first, the condition or the drug?": 31–33। মার্চ ১৩, ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  174. Pichot P. (২০০৪)। "150e anniversaire de la Folie Circulaire" (ফরাসি ভাষায়): 275–284। ডিওআই:10.1016/S0001-4079(19)33801-4পিএমআইডি 15506718 
  175. Millon 1996
  176. Kraepelin, Emil (১৯২১)। "Manic–depressive Insanity and Paranoia": 156–157। আইএসবিএন 978-0-405-07441-7পিএমসি 5166213অবাধে প্রবেশযোগ্য 
  177. Angst J, Marneros A (ডিসেম্বর ২০০১)। "Bipolarity from ancient to modern times: conception, birth and rebirth": 3–19। ডিওআই:10.1016/s0165-0327(01)00429-3পিএমআইডি 11869749 
  178. Bipolar Depression: Molecular Neurobiology, Clinical Diagnosis and Pharmacotherapy ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত মে ৭, ২০১৬ তারিখে Carlos A. Zarate Jr., Husseini K. Manji, Springer Science & Business Media, April 16, 2009
  179. Saunders KE (২০১০)। "The course of bipolar disorder": 318–328। ডিওআই:10.1192/apt.bp.107.004903অবাধে প্রবেশযোগ্য 
  180. DAVID L.DUNNER Interviewed by Thomas A. Ban ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত মে ২১, ২০১৩ তারিখে for the ANCP, Waikoloa, Hawaii, December 13, 2001
  181. "More Than a Girl Singer"cancertodaymag.org। সংগ্রহের তারিখ ১৮ মে ২০১৮ 
  182. Abdul Pari, AA; Simon, J (সেপ্টেম্বর ২০১৪)। "Economic evaluations in bipolar disorder: a systematic review and critical appraisal" (Review): 557–82। ডিওআই:10.1111/bdi.12213পিএমআইডি 24917477 
  183. McCrone, Paul; Dhanasiri, Sujith। "PAYING THE PRICE The cost of mental health care in England to 2026" (PDF)kingsfund.org। The King's Fund। 
  184. Kleine-Budde, K; Touil, E (জুন ২০১৪)। "Cost of illness for bipolar disorder: a systematic review of the economic burden" (Review): 337–53। ডিওআই:10.1111/bdi.12165পিএমআইডি 24372893 
  185. Miller, S; Dell'Osso, B (ডিসেম্বর ২০১৪)। "The prevalence and burden of bipolar depression" (Review): S3–11। ডিওআই:10.1016/S0165-0327(14)70003-5অবাধে প্রবেশযোগ্যপিএমআইডি 25533912 
  186. Elgie R. Morselli PL (ফেব্রু–মার্চ ২০০৭)। "Social functioning in bipolar patients: the perception and perspective of patients, relatives and advocacy organizations – a review": 144–157। ডিওআই:10.1111/j.1399-5618.2007.00339.xপিএমআইডি 17391357 
  187. Wiler, Sheila। "Carrie Fisher was a mental health hero. Her advocacy was as important as her acting."USA Today 
  188. "The Secret Life of the Manic Depressive"। BBC। ২০০৬। নভেম্বর ১৮, ২০০৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ফেব্রুয়ারি ২০, ২০০৭ 
  189. Barr, Sabrina (মার্চ ২৬, ২০১৮)। "Stephen Fry discusses mental health and battle with bipolar disorder: 'I'm not going to kid myself that it's cured'"The Independent। সংগ্রহের তারিখ মার্চ ১০, ২০২০ 
  190. Gram, David (ডিসেম্বর ২৭, ২০১৩)। "For this orchestra, playing music is therapeutic"The Boston Globe। এপ্রিল ১৪, ২০১৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ মার্চ ৭, ২০১৯ 
  191. Strasser, Franz; Botti, David (জানুয়ারি ৭, ২০১৩)। "Conductor with bipolar disorder on music and mental illness"BBC News 
  192. Jamison 1995
  193. Michele R. Berman, MD, and Mark S. Boguski, MD, PhD। "Understanding Kanye West's Bipolar Disorder" 
  194. Naftulin, Julia (২০২০-০৮-০৭)। "Selena Gomez opened up about the challenges of being in lockdown after her bipolar diagnosis"Insider। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-১২-০৬ 
  195. Robinson 2003
  196. McKinley, Jesse (ফেব্রুয়ারি ২৮, ১৯৯৯)। "Get That Man Some Prozac; If the Dramatic Tension Is All in His Head"The New York Times। জানুয়ারি ১, ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ মার্চ ৩, ২০১২ 
  197. "Child and Adolescent Bipolar Foundation special 90210 website"। CABF। ২০০৯। আগস্ট ৩, ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ এপ্রিল ৭, ২০০৯ 
  198. "EastEnders' Stacey faces bipolar disorder"। BBC Press Office। মে ১৪, ২০০৯। মে ১৮, ২০০৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ মে ২৮, ২০০৯ 
  199. Tinniswood, Rachael (মে ১৪, ২০০৩)। "The Brookie boys who shone at soap awards show"Liverpool Echo। Mirror Group Newspapers। সংগ্রহের তারিখ এপ্রিল ২৬, ২০১৪ 
  200. "Pilot"। Homeland। 1 মৌসুম। পর্ব 1। অক্টোবর ২, ২০১১। Showtime। 
  201. "Catherine Black by Kelly Reilly"। American Broadcasting Company। মে ২৩, ২০১৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ মে ২২, ২০১৪ 
  202. "How a white rapper's sidekick became a breakout sitcom star — and TV's unlikeliest role model"Los Angeles Times। এপ্রিল ১৫, ২০২০। 
  203. Akiskal, Hagop; Akiskal, Kareen (২০১০)। "The Genius-Insanity Debate: Focus on Bipolarity, Temperament, Creativity and Leadership"। Bipolar Disorder: Clinical and Neurobiological Foundations। Wiley। পৃষ্ঠা 83–89। আইএসবিএন 9780470661277ডিওআই:10.1002/9780470661277.ch9 

উদ্ধৃতকৃত লেখা[সম্পাদনা]

আরও পড়তে[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]