আত্মহত্যা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
সরাসরি যাও: পরিভ্রমণ, অনুসন্ধান
আত্মহত্যা
Edouard Manet - Le Suicidé.jpg
১৮৭৭-১৮৮১ সালে এডোয়ার্ড ম্যানেট কর্তৃক অঙ্কিত দ্য সুইসাইড চিত্রকর্ম
শ্রেণীবিভাগ এবং বহিঃস্থ সম্পদ
বিশিষ্টতা Psychiatry
আইসিডি-১০ X৬০X৮৪
আইসিডি-৯-সিএম E৯৫০
ডিজিসেসডিবি ১২৬৪১
মেডলাইনপ্লাস ০০১৫৫৪
ইমেডিসিন article/288598
মেএসএইচ F01.145.126.980.875 (ইংরেজি)

আত্মহত্যা বা আত্মহনন (ইংরেজি: Suicide) হচ্ছে একজন নর কিংবা নারী কর্তৃক ইচ্ছাকৃতভাবে নিজের জীবন বিসর্জন দেয়া বা স্বেচ্ছায় নিজের প্রাণনাশের প্রক্রিয়াবিশেষ। ল্যাটিন ভাষায় সুই সেইডেয়ার থেকে আত্মহত্যা শব্দটি এসেছে, যার অর্থ হচ্ছে নিজেকে হত্যা করা। যখন কেউ আত্মহত্যা করেন, তখন জনগণ এ প্রক্রিয়াকে আত্মহত্যা করেছে বলে প্রচার করে। ডাক্তার বা চিকিৎসকগণ আত্মহত্যার চেষ্টা করাকে মানসিক অবসাদজনিত গুরুতর উপসর্গ হিসেবে বিবেচনা করে থাকেন। ইতোমধ্যেই বিশ্বের অনেক দেশেই আত্মহত্যার প্রচেষ্টাকে এক ধরনের অপরাধরূপে ঘোষণা করা হয়েছে।[১] অনেক ধর্মেই আত্মহত্যাকে পাপ হিসেবে বিবেচনা করা হয়।[২][৩][৪][৫] যিনি নিজেই নিজের জীবন প্রাণ বিনাশ করেন, তিনি - আত্মঘাতক, আত্মঘাতী বা আত্মঘাতিকা, আত্মঘাতিনীরূপে সমাজে পরিচিত হন।

প্রতিবছর প্রায় দশ লক্ষ মানুষ আত্মহত্যা করে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা-এর মতে প্রতি বছর সারা বিশ্বে যে সব কারণে মানুষের মৃত্যু ঘটে তার মধ্যে আত্মহত্যা ত্রয়োদশতম প্রধান কারণ।[৬] কিশোর-কিশোরী আর যাদের বয়স পঁয়ত্রিশ বছরের নিচে, তাদের মৃত্যুর প্রধান কারণ হচ্ছে আত্মহত্যা।[৭][৮] নারীদের তুলনায় পুরুষদের মধ্যে আত্মহত্যার হার অনেক বেশি। পুরুষদের আত্মহত্যা করার প্রবণতা নারীদের তুলনায় তিন থেকে চার গুণ।[৯][১০]


ইতিহাস[সম্পাদনা]

প্রাচীন এথেন্সে যদি কোন ব্যক্তি রাষ্ট্রের অনুমোদন ব্যতিরেকে আত্মহত্যা করত তাহলে তাকে সাধারণ কবরস্থানের সম্মান দেয়াকে অস্বীকার করা হত। তাকে কবরস্থ করা হত শহরের বাইরে অবস্থিত কোন জায়গায় একা শুধু তাই নয় তার জন্য কোন স্মৃতিফলক ও ব্যবহার করতে দেয়া হতনা । তবে সামরিক পরাজয়ের মোকাবেলা করার জন্য এটি গ্রহণযোগ্য পদ্ধতি বলে মনে করা হতো। প্রাচীন রোমে আত্মহত্যা প্রাথমিকভাবে অনুমোদিত ছিল, পরে এটি অর্থনৈতিক খরচের কারণে রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে একটি অপরাধ বলে অভিহিত হয়েছিল। প্লেটোর দ্বিধাবিভক্ত অবস্থায় প্রেক্ষাপটে অ্যারিস্টটল আত্মহত্যার সব ধরনের পন্থার নিন্দা জানিয়েছিলেন। রোমে কিছু আত্মহত্যার কারণ যেমন- গ্ল্যাডিয়েটর যুদ্ধে স্বেচ্ছাসেবক মৃত্যু, অন্যের জীবন বাঁচাতে, অন্যের জীবন রক্ষা করার জন্য, শোকের ফলে, ধর্ষণের জন্য লজ্জা থেকে মুক্তি পেতে, শারীরিক যন্ত্রণা থেকে মুক্তি, সামরিক পরাজয়ের মতো অসহিষ্ণু পরিস্থিতিতি থেকে অব্যাহতি বা অপরাধমূলক সাধনা সাধারণ বিষয় ছিল।

আত্মহত্যাকে খ্রিস্টান ইউরোপে একটি পাপ হিসাবে গণ্য করা হয়েছিল এবং ৪৫২ সালে Arles এর কাউন্সিলে তাকে শয়তানের কাজ হিসেবে নিন্দা করা হয়েছিল । মধ্যযুগে চার্চ করডোবার শহীদদের ক্ষেত্রে যেমন শহীদ হওয়ার বাসনা আত্মঘাতী ছিল তাই তাকে আলোচ্য আলোচনার বাইরে রাখা হয়েছিল। এই বিরোধ এবং মাঝে মাঝে সরকারী বিধিবিধান সত্ত্বেও সপ্তদশ শতকের শেষের দিক পর্যন্ত আত্মহত্যার বিষয়ে ক্যাথলিক মতবাদ পুরোপুরি নিষ্পত্তি হয়নি। ফ্রান্সের লুই চতুর্দশ এর ১৬৭০ সালে জারি করা ফৌজদারি অধ্যাদেশটি অত্যন্ত খারাপ ছিল, এমনকি সময়ের জন্যও: মৃত ব্যক্তির শরীরটি রাস্তায় টেনে আনা হত, মাথা নিচু করে তারপর আবর্জনা দিয়ে আবৃত করা হত। উপরন্তু, ব্যক্তির সমস্ত সম্পত্তি জব্দ করা হত।

রেনেসাঁর সময় থেকে আত্মহত্যার প্রতি দৃষ্টিভঙ্গি ধীরে ধীরে পরিবর্তন শুরু হয়েছিল। জন ডন এর কাজ 'বাইথানটোস' আত্মহত্যার প্রথম আধুনিক সুরক্ষার মধ্যে একটি ছিল, যিশু, শিমসন এবং শুলের মতো বাইবেলের পরিচয়ের আচার থেকে সাক্ষী এবং নির্দিষ্ট পরিস্থিতিতে আত্মহত্যার অনুমোদনের জন্য যুক্তি ও প্রকৃতির ভিত্তিতে আর্গুমেন্ট উপস্থাপন করেছিল ।

আত্মহননের সময় শুরু হওয়া সমাজের সেক্যুলারিজম আত্মহত্যার প্রতি ঐতিহ্যগত ধর্মীয় দৃষ্টিভঙ্গি নিয়ে প্রশ্ন তুলেছিল এবং বিষয়টি নিয়ে আরও আধুনিক দৃষ্টিকোণ নিয়ে এসেছিল। ডেভিড হিউম অস্বীকার করেন যে আত্মহত্যা একটি অপরাধ ছিল কারণ এটি কোনও ব্যক্তিকে প্রভাবিত করেনি এবং সম্ভাব্য ব্যক্তিটির সুবিধার জন্য ছিল বলে তিনি মনে করেন। তাঁর ১৭৭৭ প্রবন্ধে আত্মহত্যা এবং আত্মার অমরত্ব নিয়ে তিনি নিখুঁতভাবে জিজ্ঞাসা করেছিলেন, " কেন আমি একটি করুণ অস্তিত্বকে দীর্ঘায়িত করবো, কিছু অসার সুবিধা যা জনসাধারণ হয়তো আমার কাছ থেকে গ্রহণ করতে পারে,?" পাবলিক মতামত এছাড়াও উপলব্ধ করা যেতে পারে; ১৭৮৬ সালে টাইমস পত্রিকায় "আত্মহত্যা কি সাহসের কাজ?" এর উপর একটি প্রবল বিতর্ক শুরু হয়েছিল। ঊনবিংশ শতাব্দীর দিকে ইউরোপে আত্মহত্যার ঘটনা পাপ থেকে উন্মাদনার কারণে সৃষ্ট ঘটনায় স্থানান্তরিত হয়েছিল । যদিও এই সময়ের মধ্যে আত্মহত্যা বেআইনি ছিল, এটি ক্রমশ উপহাসমূলক মন্তব্যের লক্ষ্য হয়ে ওঠেছিল, যেমন গিলবার্ট এবং সুলেভান বাদ্যযন্ত্র মিকডো দিয়ে যিনি ইতিমধ্যেই নিজেকে হত্যা করেছিল এমন ব্যক্তিকে উপহাস করেছিল ।

১৮৭৯ সালের মধ্যে ইংরেজরা আত্মহত্যা ও হত্যাকাণ্ডের মধ্যে পার্থক্য করতে শুরু করেছিল, যদিও আত্মহত্যার ফলে সম্পত্তি জব্দ করা হত। ১৮৮২ সালে মৃত ব্যক্তিদের ইংল্যান্ডে দিনের বেলা দাফন করার অনুমতি দেয়া হয়েছিল এবং বিংশ শতকের মাঝামাঝি সময়ে পশ্চিমা বিশ্বের বেশির ভাগ দেশে আত্মহত্যা বৈধ হয়ে উঠেছিল । আত্মহত্যা শব্দটি প্রথম আত্মত্যাগের স্থলাভিষিক্ত হয়েছিল ১৭০০ সালের পূর্বেই যা প্রায়ই পশ্চিমে আত্মহত্যার একটি রূপ হিসেবে চিহ্নিত ছিল।

সংজ্ঞা[সম্পাদনা]

আত্মহত্যা, সম্পূর্ণ আত্মহত্যা হিসাবেও পরিচিত, "নিজের জীবন নিজেই গ্রহণের কাজ"। আত্মহত্যা বা আত্মঘাতী আচরণের মাধ্যমে আত্মহত্যা করার চেষ্টা করে, যার ফলে মৃত্যু ঘটতে পারে না। সহায়তাকারী আত্মহত্যা হল যখন একজন ব্যক্তি অন্য কোনও ব্যক্তিকে পরামর্শ বা পরোক্ষভাবে অন্য কোন সরঞ্জাম দিয়ে মৃত্যুর জন্য সাহায্য করে । এটি ইউথান্সিয়াসের বিপরীত, যেখানে একজন ব্যক্তি অন্য একজন ব্যক্তির মৃত্যুর আনুষ্ঠানিকতায় আরও সক্রিয় ভূমিকা নেয় । আত্মঘাতী ভাবনা হল একজনের জীবনকে শেষ করার চিন্তা কিন্তু তা করার জন্য কোনও সক্রিয় প্রচেষ্টা গ্রহণ করা না।

"কমিট" শব্দটির যথাযথতা সম্পর্কে এবং আত্মহত্যা বর্ণনা করার জন্য তার ব্যবহার সম্পর্কে অনেক মতবিরোধ আছে। যারা "কমিট" শব্দের তাৎপর্যপূর্ণ ব্যবহার নিয়ে আপত্তি করে তারা এই যুক্তি দিয়ে বলে যে আত্মহত্যা একটি অপরাধমূলক, পাপ বা নৈতিকভাবে ভুল কাজ। "পুরোপুরি আত্মহত্যা" বা "আত্মহত্যার মাধ্যমে মৃত্যুবরণ " বা সাধারণভাবে "নিজেকে মেরে ফেলাই হল "আত্মহত্যা" হিসাবে ব্যবহার করা উপযুক্ত শব্দ যা মানসিক স্বাস্থ্য সংস্থার মিডিয়ার নির্দেশনায় প্রতিফলিত হয়। এই প্রচেষ্টা সত্ত্বেও, "আত্মহত্যা করা" এবং অনুরূপ বিবরণ উভয় পণ্ডিতদের গবেষণা এবং সাংবাদিকতার মধ্যে সাধারণ বিষয় হিসাবে রয়ে যায়।

মানসিক ভারসাম্যহীনতা[সম্পাদনা]

প্রায় ২৭% থেকে ৯০% এরও বেশি সময় আত্মহত্যার সাথে মানসিক অসুখের সম্পর্ক থাকে । এশিয়াতে, মানসিক রোগের হার পশ্চিমা দেশের চেয়ে অনেক কম । যাদেরকে সাইকিয়াট্রিক ইউনিটে ভর্তি করা হয়েছে তাদের পূর্ণ আত্মহত্যার ঝুঁকি রয়েছে ৮.৬%। আত্মহত্যার মাধ্যমে মারা যায় তাদের প্রায় অর্ধেকের মধ্যে জটিল ডিপ্রেশন থাকতে পারে; এই বা অন্য কোনও মানসিক রোগ যেমন বাইপোলার ডিসঅর্ডার আত্মহত্যার জন্য ২0 গুণের বেশি ঝুঁকি বাড়ায়। অন্যান্য অবস্থার মধ্যে অন্তর্ভুক্ত সিজোফ্রেনিয়া (১৪%), ব্যক্তিত্বের রোগ (৮%), দ্বিপক্ষীয় ব্যাধি, মোটা হওয়া জনিত ব্যাধি, এবং ট্রোমাউত্তর স্ট্রেস ডিসঅর্ডার।

অন্যরা অনুমান করে যে প্রায় অর্ধেক যারা আত্মহত্যা করে এমন ব্যক্তিদের মধ্যে একটি স্বতন্ত্র রোগের আবির্ভাব ঘটতে পারে যাকে সীমানাগ্রাহ্য ব্যক্তিত্বের ব্যাধি হিসাবে দেখা হয়। সিজোফ্রেনিয়া রোগে আক্রান্তদের মধ্যে প্রায় ৫% মানুষ আত্মহত্যা করেন। ঝুঁকির পরিমাণ বেশি থাকে এমন রোগ হল অতিরিক্ত খাওয়া জনিত রোগ।

প্রায় ৮০% আত্মহত্যা করেছেন যারা মৃত্যুর আগে এক বছরের মধ্যে ডাক্তার দেখিয়েছেন, এবং যারা আগের মাসে ডাক্তার দেখিয়েছেন তাদের প্রায় ৪৫% আত্মহত্যা করেছেন । যারা আত্মহত্যা করেছিলেন তাদের প্রায় ২৫-৪০% আগের বছর মানসিক স্বাস্থ্য পরিষেবাগুলির সাথে যোগাযোগ করেছিল। SSRI টাইপের এন্টিডিপ্রেসেন্ট শিশুদের মধ্যে আত্মহত্যার ঝুঁকি বৃদ্ধি করে কিন্তু প্রাপ্তবয়স্কদের ঝুঁকি পরিবর্তন করে না।


পদার্থ ব্যবহার[সম্পাদনা]

পদার্থের অপব্যবহার হল বিষণ্ণতা এবং দ্বিপার্শ্বিক ব্যাধির পর আত্মহত্যার দ্বিতীয় ঝুঁকিপূর্ণ উপাদান। উভয় দীর্ঘস্থায়ী পদার্থের অপব্যবহার এবং তীব্র নেশা পারস্পরিকভাবে সম্পর্কযুক্ত। যখন ব্যক্তিগত দুঃখের সাথে মিলিত হয়, যেমন শোকের সহিত তখন ঝুঁকি আরও বৃদ্ধি পায়। পদার্থের অপব্যবহার মানসিক স্বাস্থ্য সংক্রান্ত রোগের সাথে যুক্ত।

বেশিরভাগ মানুষ সিডেটিভ হিপনেটিপ ড্রাগ (যেমন অ্যালকোহল বা বেনজোডিয়েজপাইন) এর প্রভাবের অধীনে যখন তারা আত্মহত্যার মাধ্যমে মারা যায় তখন ১৫% এবং ৬১% ক্ষেত্রে মদ্যপানের সাথে উপস্থিতি লক্ষ্য করা যায় । নির্ধারিত বেনজোডিয়েজপাইনের ব্যবহার আত্মহত্যার চেষ্টা এবং পূর্ণ আত্মহত্যার হারের সাথে জড়িত। পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া বা প্রত্যাহারের উপসর্গ দ্বারা সৃষ্ট মানসিক ব্যাঘাত হওয়ার কারণে বেনজোডিয়েজপাইনের প্রাদুর্ভাবের প্রভাবগুলি সন্দেহজনক। যেসব দেশে বেশী পরিমাণে অ্যালকোহল ব্যবহার করে এবং বারের ঘনত্ব বেশি সেখানে সাধারণত আত্মহত্যার হার অনেক বেশি হয়ে থাকে। ২.২-৩.৪% ব্যক্তি যাদেরকে মদ্যপানের জন্য চিকিৎসা দেয়া হয়েছিল তাদের আত্মহত্যার মাধ্যমে মৃত্যু হয়েছে । মদ্যপায়ী যারা আত্মহত্যার চেষ্টা করে তারা সাধারণত পুরুষ, বয়স্ক, এবং অতীতে তারা আত্মহত্যার চেষ্টা করেছিল । যারা হেরোইন ব্যবহার করে তাদের মধ্যে ৩ এবং ৩৫% আত্মহত্যার মধ্যমে মৃত্যু ( যারা ব্যবহার না করে তাদের তুলনায় প্রায় ১৪ গুন বেশি) হয়। বয়ঃসন্ধিকালীন বয়স্কদের মধ্যে যারা অ্যালকোহলের অপব্যবহার করে স্নায়বিক ও মানসিক ব্যাধি তাদের আত্মহত্যার ঝুঁকি বাড়িয়ে দেয় ।

কোকেন এবং মেথামফেটামিনের অপব্যবহার আত্মহত্যার সঙ্গে উচ্চতর সম্পর্ক রয়েছে। যারা কোকেন ব্যবহার করে তাদের প্রত্যাহার পর্যায়ে ঝুঁকি সবচেয়ে বেশি থাকে । যারা ইনহেলার ব্যবহার করেন তারাও প্রায় ২0% আত্মহত্যার চেষ্টা করে এবং কোন কোন ক্ষেত্রে তার মাত্রা ৬৫% এর বেশি মনে করা হয়। ধূমপান আত্মহত্যার ঝুঁকির সাথে সম্পর্কিত। কেন এই সমিতি বিদ্যমান তার সামান্য কোন প্রমাণ নেই; তবে এটা অনুমান করা হয়েছে যে, যারা ধূমপান করতে পছন্দ করে তাদেরও আত্মহত্যার প্রবণতা রয়েছে, ধূমপানের ফলে যে স্বাস্থ্যগত সমস্যাগুলি ঘটে তা মানুষকে তাদের জীবন শেষ করতে অনুপ্রাণিত করে এবং ধূমপান মস্তিষ্কে আত্মহত্যার প্রবণতা সৃষ্টি করে। তবে গাঁজা ব্যবহার স্বতন্ত্রভাবে ঝুঁকি বৃদ্ধি করতে দেখা যায় না।

সমস্যা নিয়ে জুয়া খেলা[সম্পাদনা]

সমস্যা নিয়ে জুয়া খেলা হচ্ছে সাধারণ জনসংখ্যার তুলনায় আত্মঘাতী চিন্তাভাবনা এবং প্রচেষ্টা চালানো । ১২ থেকে ২৪% রোগগত জুয়াড়ি আত্মহত্যার চেষ্টা করে। তাদের স্বামী/স্ত্রীর মধ্যে আত্মহত্যার হার সাধারণ জনসংখ্যার তুলনায় তিন গুণ বেশি। সমস্যাযুক্ত জুয়াগারের ঝুঁকি বাড়ানোর অন্য কারণগুলি হলও মানসিক অসুস্থতা, অ্যালকোহল এবং মাদকদ্রব্যের অপব্যবহার।

চিকিৎসার অবস্থা[সম্পাদনা]

আত্মহত্যাপ্রবণতা এবং শারীরিক স্বাস্থ্য সমস্যার মধ্যে একটি সম্পর্ক রয়েছে, যেমন-দীর্ঘস্থায়ী ব্যথা, মস্তিষ্কের আঘাত, ক্যান্সার, কিডনি ব্যর্থতা (হেমোডায়ালাইসিস প্রয়োজন), এইচআইভি, এবং সিস্টেমেটিক লেপাস এ্যারিথেমাসটুসাস । ক্যান্সার নির্ণয়ের পরে প্রায় আত্মহত্যার পরবর্তী ঝুঁকি দ্বিগুণ। বিষণ্ণতা এবং মদ অপব্যবহারের জন্য সামঞ্জস্য বজায় রাখার ফলে আত্মহত্যা প্রবণতা বেড়ে যায় । একাধিক চিকিৎসার ক্ষেত্রে তাদের ঝুঁকি বিশেষত বেশি ছিল। জাপানে স্বাস্থ্যগত সমস্যাগুলিকে আত্মহত্যার প্রাথমিক যুক্তি হিসেবে তালিকাভুক্ত করা হয়।

ঘুমের সমস্যা যেমন ইনসমনিয়া এবং ঘুম অ্যাপেনিয়া হতাশা এবং আত্মহত্যার ঝুঁকির কারণ হিসাবে মনে । কিছু কিছু ক্ষেত্রে ঘুমের সমস্যা বিষণ্ণতা সংক্রান্ত ঝুঁকির কারণ হতে পারে। অন্যান্য বেশ কয়েকটি মেডিক্যাল অবস্থা মস্তিষ্কের রোগের মতো উপসর্গ দেখা দিতে পারে, যেমন মানসিক অস্বাভাবিকতা , হাইপোথাইরয়েডিজম, আলজাইমার, মস্তিষ্ক টিউমার, সিস্টেমেটিক লেপাস ইরিথেমাটোসাস এবং অনেকগুলি ঔষধ থেকে বিরূপ প্রভাব পড়তে পারে (যেমন বিটা ব্লকার এবং স্টেরয়েড) ।

মনস্তাত্ত্বিক অবস্থা[সম্পাদনা]

মনস্তাত্ত্বিক অবস্থা আত্মহত্যার ঝুঁকি বাড়ায়: যেমন-হতাশা, জীবনের আনন্দ হাড়িয়ে ফেলা, বিষণ্ণতা এবং উদ্বিগ্নতা। সমস্যা সমাধান করার ক্ষমতা কমে যাওয়া, ক্ষমতা হ্রাস পাওয়া যা আগে ছিল এবং আবেগ নিয়ন্ত্রণে দুর্বলতা ও ভূমিকা পালন করে। প্রাপ্তবয়স্কদের মধ্যে অন্যদের বোঝা হওয়ার অনুভূতি গুরুত্বপূর্ণ। আত্মহত্যা যার কারণটি হল যে ব্যক্তি মনে করে যে সে সমাজের অংশ নয় তা মূলত অহংকারী আত্মহত্যা বলে পরিচিত। ক্রিসমাসের সময় আত্মহত্যার হার কমে যায়। তবে এক গবেষণায় পাওয়া গেছে যে পুরুষদের জন্মদিনে এর ঝুঁকি বেশি হতে পারে।

সাম্প্রতিক জীবনের চাপ যেমন-পরিবারের সদস্য বা বন্ধুকে হারানো , চাকরির ক্ষতি বা সামাজিক বিচ্ছিন্নতা (যেমন একা বেঁচে থাকা) আত্মহত্যার ঝুঁকি বাড়িয়ে তুলছে। যারা বিয়ে করেনি তারাও আরও ঝুঁকিপূর্ণ। [13] ধার্মিক হওয়ার ফলে আত্মহত্যার ঝুঁকি কমে যায়। এটি ধর্মনিরপেক্ষ অবস্থানের কারণে হয়েছে যা অনেক ধর্ম আত্মহত্যার বিরুদ্ধে দাঁড়ায় এবং অধিকতর যৌক্তিকতা ধর্ম দিতে পারে। মুসলমানদের মধ্যে যারা ধার্মিক তাদের মধ্যে আত্মহত্যার নিম্ন হার আছে বলে মনে হয়; তবে এই সমর্থনকারী তথ্য শক্তিশালী নয়। আত্মহত্যার চেষ্টার হারের মধ্যে কোন পার্থক্য পরিলক্ষিত হয় না। এর প্রবণতা মধ্য প্রাচ্যে তরুণ মহিলাদের বেশি হার হতে পারে।

প্রহসন বা কুসংস্কার থেকে রক্ষা পাওয়ার জন্য কেউ কেউ নিজের জীবন নিতে পারে। শৈশবের যৌন নির্যাতন এবং সৎ পিতামাতার যত্নে লালিত পালিত হওয়ার ফলেও আত্মহত্যার ঝুঁকি বেড়ে যায় । যৌন নিপীড়ন সামগ্রিক ঝুঁকির মধ্যে প্রায় ২০% অবদান রাখে বলে বিশ্বাস করা হয়।

আত্মহত্যার একটি বিবর্তনমূলক ব্যাখ্যা হচ্ছে এটি অন্তর্ভুক্তিকৃত ফিটনেস উন্নত করতে পারে। এটি ঘটতে পারে যদি আত্মহত্যার কারণে মৃত্যুবরণকারী ব্যক্তির কোন সন্তান না থাকে এবং জীবিত থাকার কারণে আত্মীয়দের কাছ থেকে সম্পদ সংগ্রহ করতে হয়। একটি আপত্তি হল বয়ঃসন্ধিকালের মৃত্যু সম্ভবত অন্তর্ভুক্তিকৃত ফিটনেস বৃদ্ধি করে না। পূর্বপুরুষদের ক্ষেত্রে সংগঠিত অভিযোজন বর্তমানে অপ্রত্যাশিত হতে পারে।

দারিদ্র্য আত্মহত্যার ঝুঁকির সাথে সম্পর্কিত। আপেক্ষিক দরিদ্রতা বৃদ্ধি একজন ব্যক্তির চারপাশে আত্মহত্যার ঝুঁকি বৃদ্ধি করে। ভারতে ২00,000-এরও বেশি কৃষক আত্মহত্যার কারণে মৃত্যুবরণ করে। চীনে আত্মহত্যা নগরের চেয়ে গ্রামীণ দরিদ্র জনগোষ্ঠীর মধ্যে আত্মহত্যার হার তিন গুণ বেশি, দেশটির এই অঞ্চলে অর্থনৈতিক সমস্যাকেই এর কারণ হিসাবে বিশ্বাস করা হয়।


মিডিয়া[সম্পাদনা]

মিডিয়া, যার মধ্যে রয়েছে ইন্টারনেট , আত্মহত্যার ক্ষেত্রে একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। আত্মহত্যার বিবরণটি নেতিবাচক প্রভাব ফেলতে পারে তখন যখন তার সাথে উচ্চ-ভলিউম, পুনরাবৃত্তিমূলক কভারেজ, আত্মহত্যার প্রশংসা করে বা রোমান্টিকাইজ করা হয়। যখন একটি নির্দিষ্ট উপায়ে কী করে নিজেকে হত্যা করা যায় তার বিস্তারিত বর্ণনা দেওয়া হয়, আত্মহত্যার এই পদ্ধতি সমগ্র জনসংখ্যার মধ্যে বৃদ্ধি পেতে পারে।

আত্মহত্যার ছোঁয়াচে বা প্রতারণা আত্মহত্যার এই ট্রিগারটি ওয়ারথার প্রভাব নামে পরিচিত, জিওথ এর দ্য সরো অব ইয়ার ওয়ারথার চরিত্রটির নামকরণ করেন, যিনি নিজেকে হত্যা করেছিলেন এবং বইটিকে অনেক প্রশংসা করার সাথে সাথে অনুকরণ করা হয়েছিল। এই ঝুঁকিগুলি কিশোর-কিশোরীদের মধ্যে বেশি, যারা মৃত্যুকে রোমান্টিকাইজ করাতে পারে। সংবাদের মাধ্যমে যখন এটি প্রদর্শিত হয় তখন এর একটি উল্লেখযোগ্য প্রভাব রয়েছে; অনেকটা বিনোদন মিডিয়ার সমতুল্য বলা যায়। Werther এর প্রভাবকে প্রস্তাবিত পাপাজেনো প্রভাব বলা হয়, কার্যকর কড়া প্রক্রিয়া কভারেজ যেখানে একটি প্রতিরক্ষামূলক প্রভাব থাকতে পারে। শব্দটি মোজার্টের অপেরা দ্য ম্যাজিক ফ্লোট একটি চরিত্রের উপর ভিত্তি করে তৈরি করা হয়েছে, যিনি (একজন পছন্দনীয় ব্যক্তির ক্ষতির আশঙ্কা করছেন) নিজেকে হত্যা করার পরিকল্পনা করেছিলেন যতক্ষণ পর্যন্ত না তার বন্ধুরা তাকে সাহায্য করে। যদি মিডিয়া অনুমোদিত পরামর্শ অনুযায়ী রিপোর্ট করে তখন আত্মহত্যার ঝুঁকি কমে যেতে পারে। শিল্প থেকে ক্রয়-বিক্রয় করা কঠিন হতে পারে, বিশেষ করে দীর্ঘমেয়াদী প্রকল্পের জন্য।

যৌক্তিক[সম্পাদনা]

যৌক্তিক আত্মহত্যার কারণটি নিজের জীবনের জন্য যুক্তিযুক্ত, যদিও কেউ আত্মহত্যাকে কখনো যৌক্তিক বলে বিবেচনা করে না। অন্যের উপকারের জন্য নিজের জীবন গ্রহণের কাজটিকে পরমার্থ আত্মহত্যা বলা হয়। এর একটি উদাহরণ হল একজন বয়স্ক ব্যক্তি যিনি তার নিজের কমিউনিটির অল্প বয়স্ক মানুষদের বৃহত্তর পরিমাণে খাবারের জন্য নিজের জীবন উৎসর্গ করেন । কিছু ইনউইট সংস্কৃতিতে আত্মহত্যাকে শ্রদ্ধা, সাহস, বা প্রজ্ঞা হিসাবে দেখা হয়।

একটি আত্মঘাতী হামলা একটি রাজনৈতিক পদক্ষেপ যেখানে একটি আক্রমণকারী অন্যদের বিরুদ্ধে সহিংসতা বহন করে, যদিও তারা বুঝতে পারে যে তাদের নিজের মৃত্যু ঘটবে। কিছু আত্মঘাতী বোমারু শহীদের খেতাব প্রাপ্তির আকাঙ্ক্ষা দ্বারা অনুপ্রাণিত। কামিকাযি মিশনটি একটি উচ্চতর কারণ বা নৈতিক দায়বদ্ধতার দায়িত্ব হিসেবে সম্পন্ন করা হয়েছিল । হত্যা জনিত আত্মঘাতী ঘটনাটি হল যখন একজন ব্যক্তির আত্মহত্যা এক সপ্তাহের মধ্যে সম্পন্ন হয়।

গণ আত্মহত্যা প্রায়ই সামাজিক চাপের অধীনে সম্পাদিত হয় যেখানে সদস্যরা একজন নেতাকে স্বায়ত্তশাসন প্রদান করে। গণ আত্মহত্যা অল্প সংখ্যক বা দুইজন মানুষের মাধ্যমে সংগঠিত হতে পারে যাকে এক আত্মঘাতী সত্তা হিসেবে উল্লেখ করা যেতে পারে।

বর্ধিত জীবনযাপনের পরিস্থিতিতে যেসব পরিস্থিতি স্থায়ী এবং অসহনশীল মনে হলে কিছু লোক তা থেকে পালিয়ে যাওয়ার উপায় হিসেবে আত্মহত্যা করে। নাৎসী কনসেন্ট্রেশন ক্যাম্পে কিছু কয়েদীরা ইচ্ছাকৃতভাবে বিদ্যুতায়িত বেড়া স্পর্শ করে নিজেদেরকে হত্যা করেছে বলে জানা যায়।

আত্মহত্যার পদ্ধতি[সম্পাদনা]

নেতৃস্থানীয় আত্মঘাতী পদ্ধতি বিভিন্ন দেশে ভিন্ন ভিন্ন রকমের হয় । বিভিন্ন অঞ্চলের নেতৃস্থানীয় পদ্ধতিগুলির মধ্যে রয়েছে, যেমন- গলায় ফাঁস দিয়ে, বিষাক্ত কীটনাশক পান করে এবং আগ্নেয়াস্ত্র ব্যবহার করে মানুষ আত্মহত্যা করে । বিভিন্ন পার্থক্যের উপলব্ধতার কারণে এই পার্থক্যগুলি অংশ হিসাবে বিবেচিত হয়। ৫৬ টি দেশের মধ্যে একটি পর্যালোচনা করে দেখা গেছে যে বেশিরভাগ দেশের মধ্যে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যার পদ্ধতিটি সবচেয়ে সাধারণ পদ্ধতি ছিল, যার মধ্যে ৫৩% পুরুষ এবং ৩৯% মহিলা আত্মঘাতী ছিল।

বিশ্বব্যাপী আত্মহত্যার ৩০% কীটনাশক বিষক্রিয়া থেকে ঘটতে পারে, যার অধিকাংশই উন্নয়নশীল বিশ্বে ঘটতে দেখা যায় । এই পদ্ধতির ব্যবহার ইউরোপের ৪% থেকে প্যাসিফিক অঞ্চলের ৫0% এর চেয়ে আলাদাভাবে পরিবর্তিত হয়। চাষাবাদের কাজের মধ্যে সহজলভ্যতার কারণে এটি ল্যাটিন আমেরিকায়ও প্রচলিত। অনেক দেশে নারীদের মধ্যে প্রায় ৬০% এবং ৩০% পুরুষের মধ্যে মাদকদ্রব্যের অপব্যবহারের মাধ্যমে আত্মহত্যা করে থাকে। অনেকের মধ্যে অপরিকল্পিত এবং দ্বিধাদ্বন্দ্বের সময়কালে ঘটে থাকে। মৃত্যুর হার পদ্ধতি অনুসারে পরিবর্তিত হয়: আগ্নেয়াস্ত্র ৮০-৯০%, পানিতে ডুবে ৬৫-৮০%, ৬০-৮৫% গলায় ফাঁস দিয়ে, ৪০- ৬০% গাড়ি দুর্ঘটনা, ৩৫-৬0% লাফিয়ে , ৪০-৫0% পুড়িয়ে, কীটনাশক পান করে ৬-৭৫% , ও ওষুধের মাত্রা বারিয়ে ১.৫-৪%। আত্মহত্যার সর্বাধিক প্রচলিত পদ্ধতি বেশিরভাগ সফল পদ্ধতির থেকে ভিন্ন; ৮৫% পর্যন্ত প্রচেষ্টাগুলি উন্নত বিশ্বে ড্রাগ ওভারডোজের মাধ্যমে সম্পন্ন হয়।

চীনে কীটনাশক পান করা সবচেয়ে সাধারণ পদ্ধতি। জাপানে স্বতঃস্ফূর্ততা যা সেপুকু (বা হারা-কিরী) নামে পরিচিত এখনও ঘটে; যাইহোক, গলায় ফাঁস দিয়ে এবং জাম্পিং সবচেয়ে সাধারণ পদ্ধতি সেখানে। হংকং এবং সিঙ্গাপুরে জাম্পিং এর মাধ্যমে যথাক্রমে ৫০% এবং ৮০% আত্মহত্যা সম্পন্ন হয় । সুইজারল্যান্ডে অল্পবয়সী ছেলেদের মধ্যে আত্মহত্যার জন্য সর্বাধিক আগ্নেয়াস্ত্র ব্যবহার করার প্রবণতা লক্ষ্য করা যায়, তবে এই পদ্ধতি তুলনামূলকভাবে হ্রাস পেয়েছে যখন বন্দুকগুলি ব্যবহারের উপর বিধি নিষেধ আরোপ করা হয়েছিল । মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে আত্মহত্যার ৫৭% আগ্নেয়াস্ত্র ব্যবহারের সাথে জড়িত, এই পদ্ধতি মহিলাদের তুলনায় পুরুষদের মধ্যে কিছুটা বেশি । পরবর্তী সবচেয়ে সাধারণ কারণ পুরুষের মধ্যে গলায় ফাঁস দিয়ে এবং নারীদের মধ্যে বিষা পান করা। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রায় ৪০% আত্মহত্যা এই পদ্ধতিগুলির সঙ্গে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে জড়িত ।

প্যাথোফিজিওলজি[সম্পাদনা]

আত্মহত্যা বা বিষণ্ণতার জন্য কোনও পরিচিত একীভূত অন্তর্নিহিত প্যাথোফিজিওলজি নেই। যদিও এটিকে আচরণগত, সামাজিক-পরিবেশগত এবং মানসিক কারণগুলির একটি পারস্পরিক প্রতিক্রিয়া হিসাবে অনেকে বিশ্বাস করে।

নিম্ন স্তরের মস্তিষ্ক-প্রাপ্তি নিউরোট্রফিক ফ্যাক্টর (বিডিএনএফ) এর উভয়ই সরাসরি আত্মহত্যার সাথে সম্পর্কিত এবং পরোক্ষভাবে বিষণ্ণতা, পোস্টট্রোম্যাটিক স্ট্রেস ডিসঅর্ডার, সিজোফ্রেনিয়া এবং অবসেসিভ-কমপালসিভ ডিসঅর্ডার আত্মহত্যায় ভূমিকা পালন করে। আধুনিক উত্তর গবেষণায় মস্তিষ্কের হিপোক্যাম্পাস এবং প্রিস্টলাল কর্টেক্সের মধ্যে বিডিএনএফ এর সঙ্গে মানসিক অবস্থার হ্রাস পাওয়া গিয়েছে । মস্তিষ্কের নিউরোট্রান্সমিটার যা সেরোটনিন নামে পরিচিত আত্মহত্যা দ্বারা যারা মারা যায় এমন ব্যক্তিদের মধ্যে কম বলে বিশ্বাস করা হয়। এটি আংশিকভাবে মৃত্যুর পরে পাওয়া 5-HT2A রিসেপ্টরগুলির বৃদ্ধির মাত্রার প্রমাণের উপর ভিত্তি করে ধারণা করা হয়েছে। অন্য প্রমাণগুলি সেরিব্রাল মেরুদণ্ডের তরলিতে সেরোটোনিন, ৫-হাইড্রোক্সাইন্ডলেলেসেটিক এসিডের বিরতিতে উৎপাদনের হার কমিয়ে দেয়। সরাসরি প্রমাণ সংগ্রহ করা কঠিন। এপিজেনেটিক্স হল পরিবেশগত কারণগুলির প্রতিক্রিয়া জিনগত অভিব্যক্তি অভ্যন্তরীণ ডিএনএ পরিবর্তন করে না এমন একটি গবেষণা, আত্মঘাতী ঝুঁকি নির্ধারণে এটি ভূমিকা পালন করে বলে বিশ্বাস করা হয়।



আত্মঘাতী হামলা[সম্পাদনা]

অনেক সময় নিরীহ জনসাধারণের উপর হামলার মাধ্যমে হত্যা করার জন্যও ব্যক্তির আত্মহত্যাকে এক ধরনের অস্ত্র হিসেবে ব্যবহার করা হয়ে থাকে।[১১][১২][১৩] আত্মঘাতী হামলার মাধ্যমে এক বা একাধিক ব্যক্তিকে হত্যার লক্ষ্যে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তি কোন উদ্দেশ্যকে সামনে রেখে নিজের জীবনকে উৎসর্গ করে। একজন আত্মঘাতী বোমা হামলাকারী বোমা বহন করে কিংবা তার শরীরে টেপ দিয়ে বোমা বেধে রেখে জনতাকে হত্যার লক্ষ্যে অগ্রসর হয় ও বোমা ফাটায়। এরফলে আত্মঘাতী বোমা হামলাকারী নিরীহ জনগণকে হত্যা কিংবা আহত করে এবং নিজেও এর শিকার হয়। সাধারণতঃ বোমা বহনকারী ব্যক্তি নির্মমভাবে নিজের প্রাণ বিসর্জন দিয়ে থাকে কিংবা গুরুতর আহত হয়।

মানব সভ্যতার ইতিহাসে বেশ কিছু উল্লেখযোগ্য আত্মঘাতী হামলার উদাহরণ রয়েছে। তন্মধ্যে - কামিকাযিদের আক্রমণ অন্যতম। তারা জাপানী বোমারু বিমানের পাইলট হিসেবে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে আমেরিকান সৈনিকদের হত্যার লক্ষ্যে নৌবহরে তাদের বিমানকে সংঘর্ষের মাধ্যমে ধ্বংস করার ক্ষেত্রে ব্যবহার করেছিল।

৯/১১ খ্যাত ১১ সেপ্টেম্বর, ২০০১ তারিখে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে সন্ত্রাসী বোমা হামলা পরিচালিত হয়। এতে উড়ন্ত বিমানকে ওয়ার্ল্ড ট্রেড সেন্টারের সুউচ্চ ভবনপেন্টাগনকে লক্ষ্য করে ধ্বংসাত্মক কর্মকাণ্ড পরিচালনা করা হয়েছিল যা মানব ইতিহাসে জঘন্যতম ঘটনা হিসেবে স্বীকৃতি পেয়েছে।

এছাড়াও, ভারতের সপ্তম প্রধানমন্ত্রী রাজীব গান্ধী ১৯৯১ সালের ২১ মে দক্ষিণ ভারতের তামিলনাড়ু রাজ্যের শ্রীপেরামবুদুরে এক আত্মঘাতী বোমা বিস্ফোরণে নির্মম হত্যাকাণ্ডের শিকার হন। ভারতের ইতিহাসে এই ঘটনা রাজীব গান্ধী হত্যাকাণ্ড নামে পরিচিত পায়। উক্ত বিস্ফোরণে রাজীব গান্ধী ছাড়াও আরও চৌদ্দ জন নিহত হয়েছিলেন।[১৪]

ঝুঁকিগত কারণ[সম্পাদনা]

নিবিড় পর্যবেক্ষণ ও গবেষণার মাধ্যমে দেখা যায় যে, মানসিক ভারসাম্যহীনতার কারণে ৮৭% থেকে ৯৮% আত্মহত্যাকর্ম সংঘটিত হয়। এছাড়াও, আত্মহত্যাজনিত ঝুঁকির মধ্যে অন্যান্য বিষয়াদিও আন্তঃসম্পৃক্ত। তন্মধ্যে - নেশায় আসক্তি, জীবনের উদ্দেশ্য খুঁজে না পাওয়া, আত্মহত্যায় পারিবারিক ঐতিহ্য অথবা পূর্বেকার মাথায় আঘাত অন্যতম প্রধান উপাদান।[১৫][১৬]

আর্থ-সামাজিক প্রেক্ষাপটে বেকারত্ব, দারিদ্র্যতা, গৃহহীনতা এবং বৈষম্যতাজনিত উপাদানগুলো আত্মহত্যায় উৎসাহিত করে থাকে।[১৭] দারিদ্র্যতা সরাসরি আত্মহত্যার সাথে জড়িত নয়। কিন্তু, এটি বৃদ্ধির ফলে আত্মহত্যার ঝুঁকি বৃদ্ধি পায় এবং উদ্বেগজনিত কারণে আত্মহত্যার উচ্চস্তরে ব্যক্তি অবস্থান করে।[১৮] শৈশবকালীন শারীরিক ইতিহাস কিংবা যৌন অত্যাচার,[১৯] অথবা, কঠোর নিয়ন্ত্রণের মাধ্যমে সময় অতিবাহিতজনিত কারণও ঝুঁকিগত উপাদান হিসেবে বিবেচিত।[২০][২১][২২] বর্তমানে প্রেমে ব্যার্থতা বা প্রিয়জনের মৃত্যুতে শোকাহত হয়ে আত্মহত্যা করার প্রবণতা বেড়ে চলেছে। পরিবার বা সমাজ স্বীকৃতি না দেওয়ায় প্রেমিক যুগলের সম্মিলিত আত্মহত্যার ঘটনাও প্রায়ই ঘটছে।

আরোগ্য লাভ[সম্পাদনা]

আধুনিক চিকিৎসা পদ্ধতিতে আত্মহত্যাকে মানসিক অসুস্থতাসংক্রান্ত বিষয় হিসেবে চিহ্নিত করেছে। উপযুক্ত চিকিৎসা পদ্ধতি গ্রহণের মাধ্যমে এ ব্যাধি থেকে রক্ষা পাওয়া সম্ভবপর। যখন একজন ব্যক্তি আত্মহত্যার বিষয়ে ব্যাপক চিন্তা-ভাবনা শুরু করেন, তখনই তাকে দ্রুত চিকিৎসকের কাছে নিয়ে যেতে হবে। মনোবিদগণ বলেন যে, যখন ব্যক্তি নিজেকে হত্যা করার পরিকল্পনা করে তা জানামাত্রই সংশ্লিষ্টদের উচিত হবে কাউকে জানানো। ভুক্তভোগী ব্যক্তি ইতোমধ্যেই সিদ্ধান্ত নিয়ে থাকেন যে কিভাবে আত্মহত্যা করবেন, তা সবিশেষ গুরুত্বপূর্ণ।

যে সকল ব্যক্তি দুঃশ্চিন্তায় পড়েন তারা আত্মহত্যায় সর্বোচ্চ ঝুঁকিপূর্ণ দলের অন্তর্ভুক্ত। উন্নত দেশে বিশেষ করে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে চরম মুহুর্তজনিত হটলাইন রয়েছে যাতে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তি তাদের চিন্তা-ভাবনা এবং আত্মহত্যার পরিকল্পনার কথা জানায়। হটলাইন ব্যবহারের মাধ্যমে ভুক্তভোগী তার সমস্যার সমাধানের পথ সম্পর্কে অবহিত হয়ে আত্মহত্যা থেকে নিজেকে মুক্ত রাখে। বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থার মতে, নিজেকে ভালবাসাকে আত্মহত্যা থেকে বাঁচার জন্য অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ উপাদান হিসেবে বিবেচনা করা হয়।

আত্মহত্যা প্রতিরোধ হল প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থাগুলির মাধ্যমে আত্মহত্যার ঘটনাগুলি কমাতে যৌথ প্রচেষ্টার জন্য ব্যবহৃত একটি শব্দ। নির্দিষ্ট পদ্ধতিতে অ্যাক্সেস হ্রাস করা, যেমন আগ্নেয়াস্ত্র বা টক্সিনস ঝুঁকি হ্রাস করতে পারে। অন্যান্য পদক্ষেপগুলির মধ্যে রয়েছে কয়লা (বার্ন করার জন্য) এবং সেতু এবং পাতাল রেলপথগুলিতে নিরাপত্তা বেষ্টনি ব্যবহার করা । মাদকদ্রব্য ও মদ্যপানের অভ্যাস জনিত বিষয়গুলির চিকিৎসা করা, তাছাড়া বিষণ্নতা এবং যারা অতীতে আত্মহত্যার চেষ্টা করেছিল তাদের ক্ষেত্রেও কার্যকর হতে পারে। কেউ কেউ প্রতিরোধমূলক কৌশল (যেমন বারের সংখ্যা হ্রাস করা) হিসাবে মদ অ্যাক্সেস হ্রাস করার প্রস্তাব করেছেন। যদিও সঙ্কট হটলাইনগুলি সাধারণ কারণ তাদের কার্যকারিতা সমর্থন বা প্রত্যাখ্যানের জন্য সামান্য প্রমাণ রয়েছে। অল্প বয়স্ক ব্যক্তি যারা আত্মহত্যার বিষয়ে সাম্প্রতিকভাবে চিন্তা করেছেন তাদের ক্ষেত্রে জ্ঞানীয় আচরণগত থেরাপির ফলাফলগুলি আশাব্যঞ্জক বলে মনে হয়। অর্থনৈতিক উন্নয়নের মাধ্যমে দারিদ্র্য কমাতে সক্ষম হলে আত্মহত্যার হার হ্রাস করতে পারে। সামাজিক সংযোগ বৃদ্ধির প্রচেষ্টা, বিশেষ করে বয়স্ক পুরুষের ক্ষেত্রে কার্যকর হতে পারে। আন্তর্জাতিক আত্মঘাতী অভিযান এবং বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার সহায়তায় ১০ সেপ্টেম্বর বিশ্ব আত্মহত্যা প্রতিরোধ দিবস পালন করা হয়।

স্ক্রিনিং[সম্পাদনা]

আত্মহত্যার চূড়ান্ত হারে সাধারণ জনসংখ্যার স্ক্রীনিংয়ের প্রভাবগুলির উপর সামান্য তথ্য রয়েছে। আত্মঘাতী ধারণা এবং আত্মঘাতী অভিপ্রায় থেকে আহতদের মধ্যে যারা জরুরী বিভাগে আসে তাদের স্ক্রীনিং সনাক্ত করার মাধ্যমে সাহায্য করা যায় । বেক ডিপ্রেশন ইনভেন্টরি বা বয়স্ক লোকেদের জন্য জরুরী বিষণ্নতা স্কেল যেমন সাইকোমেট্রিক পরীক্ষা ব্যবহার করা হচ্ছে। যেহেতু আত্মহত্যার ঝুঁকি নাই এমন সরঞ্জামগুলির মাধ্যমে ইতিবাচক পরীক্ষার জন্য উচ্চ মাত্রার মানুষ রয়েছে সেহেতু এমন কিছু সমস্যা রয়েছে যা স্ক্রীনিং মানসিক স্বাস্থ্যসেবা সম্পদের ব্যবহার বৃদ্ধি করতে পারে। যাদের মধ্যে বেশি ঝুঁকি আছে তা নিরীক্ষণ বাঞ্ছনীয়। আত্মহত্যার বিষয়ে জিজ্ঞাসা করা ঝুঁকি বাড়ানোর কারণ নয়।

মানসিক অসুখ[সম্পাদনা]

মানসিক স্বাস্থ্য সমস্যার সঙ্গে যেসব চিকিৎসা দেয়া হয় তা আত্মহত্যার ঝুঁকি কমাতে পারে। যারা সক্রিয়ভাবে আত্মঘাতী হয় তারা ইচ্ছাকৃত বা অনিচ্ছাকৃতভাবে মনস্তাত্ত্বিক যত্নে ভর্তি হতে পারে। নিজের ক্ষতি করতে ব্যবহার করা সম্পদগুলি সাধারণত সরানো দরকার । কিছু ক্লিনিক রোগী আত্মহত্যা প্রতিরোধের চুক্তিতে স্বাক্ষর করে, যেখানে তারা মুক্ত না হলে নিজেদের ক্ষতি করতে সম্মত হয় না। এই ধরনের প্রমাণ এই প্রথা থেকে একটি গুরুত্বপূর্ণ প্রভাব সমর্থন করে না। যদি একজন ব্যক্তি কম ঝুঁকিতে থাকে তবে তার জন্য বাহিরের মানসিক স্বাস্থ্যের ব্যবস্থা করা যেতে পারে। স্বল্পমেয়াদী হাসপাতালে থাকা রোগীদের আত্মবিশ্বাসের সাথে ব্যক্তিত্বের ব্যাঘাত ঘটায় তাদের ফলাফল উন্নত করার জন্য সম্প্রদায়ের যত্নের চেয়ে আরও কার্যকরী হতে প্রমাণ পাওয়া যায় নি।

তাত্ত্বিক প্রমাণ রয়েছে যে মনস্তাত্ত্বিক বিশেষত, দ্বান্দ্বিক আচরণের থেরাপি কিশোর কিশোরীদের মধ্যে আত্মহত্যা হ্রাস করে পাশাপাশি যা ব্যক্তিত্বের ব্যাঘাত ঘটায় তাও হ্রাস করে । এটা উচ্চ ঝুঁকিতে থাকা প্রাপ্তবয়স্কদের আত্মহত্যার চেষ্টা হ্রাসে সহায়ক হতে পারে। যদিও সম্পূর্ণ আত্মহত্যার প্রবণতা হ্রাস পাওয়ার প্রমাণ পাওয়া যায় নি।

এন্টিডিপ্রেসেন্টসগুলির উপকারিতা-বনাম-ক্ষতির মধ্যে অনেক বিতর্ক আছে। তরুণদের মধ্যে কিছু অ্যান্টিডিপ্রেসেন্টস, যেমন এসএসআরআইএস, আত্মহত্যার ঝুঁকি ১০০০ জনের মধ্যে ২৫ জন এবং ১০০০ জনের মধ্যে ৪০ জন পর্যন্ত বৃদ্ধি করে। বয়স্ক ব্যক্তিদের ক্ষেত্রে তারা ঝুঁকি হ্রাস করতে পারে। সাধারণ জনসংখ্যার প্রায় একই স্তরের দ্বিপদসংক্রান্ত ব্যাধি এবং একধরনের বিষণ্ণতা সংক্রান্ত ঝুঁকি কমাতে লিথিয়াম কার্যকর ভূমিকা পালন করে । যাদের সিজোফ্রেনিয়া আছে ক্লোজাপাইন তাদের মধ্যে আত্মহত্যার চিন্তা কমাতে পারে।

মহামারী-সংক্রান্ত বিদ্যা[সম্পাদনা]

প্রায় 0.৫% থেকে ১.৪% মানুষ আত্মহত্যা দ্বারা মারা যায়, ১১.৬% হারে প্রতি বছর এক লাখ লোকের মৃত্যু হয় । ২০১৩ সালে আত্মহত্যার ফলে ৮৪২,000 টি মৃত্যুর ঘটনা ঘটেছে যা ১৯৯০ সালে ছিল ৭১২,000 টি। ১৯৬০-এর দশক থেকে ২০১২ সালের মধ্যে আত্মহত্যার হার ৬০% বৃদ্ধি পেয়েছে, এই বৃদ্ধি প্রাথমিকভাবে উন্নয়নশীল বিশ্বের মধ্যে দেখা যায়। বিশ্বব্যাপী ২০০৮/২০০৯ সালের হিসাবে আত্মহত্যা ছিল মৃত্যুর দশম প্রধান কারণ। আত্মহত্যার ফলে যে মৃত্যু হয়েছে তার মধ্যে ১০ থেকে ৪০ টির মধ্যে আত্মহত্যার চেষ্টা করা হয়েছে।

আত্মহত্যার হারগুলি বিভিন্ন দেশ এবং সময়ের সাথে উল্লেখযোগ্যভাবে ভূমিকা রাখে । ২০০৮ সালে মৃত্যুর শতকরা হিসাবে এটি ছিল: আফ্রিকা ০.৫%, দক্ষিণ পূর্ব এশিয়া ১.৯%, আমেরিকা ১.২% এবং ইউরোপ ১.৪%। প্রতি ১০০,০০০ জনের মধ্যে ছিল: অস্ট্রেলিয়া ৮.৬, কানাডা ১১.১, চীন ১২.৭, ভারত ২৩.২, যুক্তরাজ্য ৭.৬, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ১১.৪ এবং দক্ষিণ কোরিয়া ২৮.৯। এটিকে ২০০৯ সালে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের দশম শীর্ষস্থানীয় কারণ হিসাবে স্থান পেয়েছিল, প্রতি বছর প্রায় ৩৬,০০ টি ঘটনা ঘটে, আত্মহত্যার চেষ্টা করার কারণে প্রায় ৬৫০,০০০ জন ব্যক্তি জরুরী বিভাগগুলিতে বার্ষিকভাবে দেখা গিয়েছে। ১৯৯৯ -২০০০ এর দশকে ৫০ বছর বয়সী পুরুষের মধ্যে হার অর্ধেক বেড়েছে। লিথুনিয়া, জাপান ও হাঙ্গেরির মধ্যে সর্বোচ্চ হার লক্ষ্য করা যায় । উন্নয়নশীল বিশ্বে প্রায় ৭৫% আত্মহত্যার ঘটনা ঘটছে। আত্মহত্যার সবচেয়ে বড় সংখ্যক দেশ চীন এবং ভারত, মোট অর্ধেকেরও বেশি। চীনে আত্মহত্যা জনিত মৃত্যু হল ৫ম প্রধান কারণ।

লিঙ্গ[সম্পাদনা]

বিশ্বব্যাপী ২০১২ সালের হিসাব অনুযায়ী, আত্মহত্যার মাধ্যমে মৃত্যুর নারীর তুলনায় পুরুষের প্রায় ১.৮ গুণ বেশি হয় । পাশ্চাত্য জগতে মেয়েদের তুলনায় আত্মহত্যার মাধ্যমে পুরুষদের তিন থেকে চার গুন বেশি মারা যায়। এই পার্থক্য ৬৫ বছরেরও বেশি বয়সী পুরুষের আত্মহত্যা দ্বারা মৃত্যু নারীদের চেয়ে দশগুণ বেশি উচ্চারিত হয়। আত্মহত্যা প্রচেষ্টা এবং স্ব-ক্ষতি নারীদের মধ্যে দুই থেকে চার গুণ বেশি লক্ষ্য করা যায়। গবেষকরা প্রচেষ্টা এবং সম্পূর্ণ আত্মহত্যার মধ্যে পার্থক্য নির্দেশ করেছেন তাতে লক্ষ্য করা গেছে পুরুষদের মধ্যে প্রাণনাশের জন্য আরও মারাত্মক উপায় অবলম্বন করে । যাইহোক, অ আত্মঘাতী স্ব-ক্ষতি থেকে ইচ্ছাকৃত আত্মহত্যার প্রচেষ্টাকে বর্তমানে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র জাতীয় পর্যায়ে পরিসংখ্যান সংগ্রহ করার সময় পৃথক করে দেখা হয় না।

চীনে বিশ্বের সর্বোচ্চ নারী আত্মহত্যার হার লক্ষ্য করা যায় এবং এটি একমাত্র দেশ যেখানে এটি পুরুষদের তুলনায় (০.৯ এর অনুপাত) বেশী। পূর্ব ভূমধ্যসাগরে আত্মহত্যার হার পুরুষদের এবং নারীদের মধ্যে প্রায় সমান। সর্বোচ্চ আত্মহত্যার হার দক্ষিণ কোরিয়াতে প্রতি ১০০,০০০ জনের মধ্যে ২২ জন পাওয়া যায়, যা দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ায় এবং পশ্চিম প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের চেয়ে অনেক বেশি ।

কিছু অংশ সামাজিক সমস্যা যার ফলে হতাশা বেড়ে যায়, যেমন যাদের লিঙ্গ নির্ধারণ নিয়ে জটিলতা আছে তাদের মধ্যে আত্মহত্যার ঝুঁকি বেশি রয়েছে।

বেশ কয়েকটি রিভিউর ফলাফল থেকে ট্রান্সজেন্ডার, সমকামী, গে এবং উভকামী লোকের মধ্যে আত্মহত্যার ঝুঁকি বেশি মাত্রায় পেয়েছে। ট্রান্সজেন্ডার ব্যক্তির মধ্যে আত্মহত্যার প্রচেষ্টা হার ৩০ এবং ৫০% এর মধ্যে।

বয়স[সম্পাদনা]

অনেক দেশে আত্মহত্যার হার মধ্যবয়স্ক বা বয়স্কদের মধ্যে সর্বোচ্চ। ১৫ থেকে ২৯ বছর বয়সের মধ্যে আত্মহত্যার সংখ্যা সবচেয়ে বেশি। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে ৮০ বছরের চেয়ে বেশি বয়স্ক ককেশিয়ান পুরুষের মধ্যে সবচেয়ে বেশি, যদিও যুবক যুবতীরা প্রায়ই আত্মহত্যার চেষ্টা করে। এটি কিশোর কিশোরীদের মধ্যে মৃত্যুর দ্বিতীয় সর্বোচ্চ সাধারণ কারণ এবং অল্পবয়সী ছেলেদের মধ্যে দ্বিতীয়টি দুর্ঘটনা জনিত মৃত্যুর কারণ বলে ধারণা করা হয়। উন্নত বিশ্বের অল্পবয়সী ছেলেমেয়েদের মধ্যে এটা প্রায় ৩০% মৃত্যুর কারণ। উন্নয়নশীল বিশ্বে এর হার অনুরূপ, কিন্তু এটি অন্যান্য ধরনের আতঙ্ক থেকে যে মৃত্যু হয় তার চেয়ে এর হার বেশি । বিশ্বের অন্যান্য অঞ্চলের তুলনায় দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ায়, আত্মহত্যা থেকে মৃত্যুর হার বয়স্ক মহিলাদের তুলনায় অল্পবয়সী নারীদের মধ্যে বেশি হারে দেখা যায়।

সামাজিক ও সংস্কৃতি[সম্পাদনা]

আইন[সম্পাদনা]

বেশিরভাগ পশ্চিমা দেশগুলিতে আত্মহত্যা আর অপরাধ নয়। তবে, মধ্যযুগ থেকে বেশিরভাগ পশ্চিমা ইউরোপীয় দেশগুলিতে অন্তত ১৮০০ সাল পর্যন্ত এটি ছিল। অধিকাংশ মুসলমান-সংখ্যাগরিষ্ঠ দেশগুলিতে এটি একটি অপরাধ।

অস্ট্রেলিয়ায় আত্মহত্যা একটি অপরাধ নয়। এটি আত্মহত্যার দ্বারা মৃত্যুদণ্ডের প্রয়াস চালানোর জন্য কাউকে উপদেশ দেওয়া, উত্সাহিত করা, বা সহায়তা করার জন্য এবং অন্যকে দোষারোপ করাকে অপরাধ বলে মনে করা হয়, এবং আইনটি স্পষ্টভাবে কাউকে নিজের জীবন নেয়া থেকে অন্যকে বাঁচানোর জন্য "এমন বিষয়গুলো যথাযথভাবে প্রয়োজনীয়" ব্যবহার করতে অনুমতি দেয় । ১৯৯৬ থেকে ১৯৯৭ সাল পর্যন্ত অস্ট্রেলিয়ার উত্তরাঞ্চলীয় প্রদেশে বৈধ ডাক্তারের সহায়তায় আত্মহত্যার ব্যবস্থা ছিল।

ইউরোপের কোনও দেশ আত্মহত্যা বা আত্মহত্যার চেষ্টা করাকে অপরাধ বলে মনে করা হয় না। ইংল্যান্ড ও ওয়েলস আত্মহত্যার আইন ১৯৬১ এবং রিপাবলিক অফ আয়ারল্যান্ডের মাধ্যমে ১৯৯৩ সালে আত্মঘাতী হত্যাকাণ্ডকে অপরাধ থাকে অব্যাহতি দেয়া হয়েছিল। "কমিট" শব্দটি অবৈধ বলে উল্লেখ করা হয়েছে, তবে অনেক প্রতিষ্ঠান নেতিবাচক পরিণতির কারণে এটি বন্ধ করেছে।

ভারতে, আত্মহত্যা অবৈধ এবং বেঁচে থাকা পরিবারের সদস্যদেরকে বৈধ সমস্যাগুলি মোকাবেলা করতে হতে পারে। ২০১৪ সালে ভারত সরকার এই আইনটি বাতিল করেছে। জার্মানিতে সক্রিয় ইথ্যুনিসিয়া অবৈধ এবং আত্মহত্যার সময় যে কেউ উপস্থিত হয় তা জরুরী অবস্থায় সাহায্যের জন্য ব্যর্থতার জন্য অভিযুক্ত হতে পারে। সম্প্রতি মনস্তাত্ত্বিকভাবে অসুস্থতার জন্য সহায়তার মাধ্যমে আত্মহত্যাকে বৈধতা দেয়ার জন্য সুইজারল্যান্ড পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে। সুইজারল্যান্ডের লাউসনে হাইকোর্ট ২০০৬ সালের রায়ে একটি দীর্ঘকালীন মনস্তাত্ত্বিক সমস্যার সঙ্গে জড়িত একটি বেনামী ব্যক্তিকে তার নিজের জীবন শেষ করার অধিকার প্রদান করেছিল।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে আত্মহত্যা বৈধ তবে যারা আত্মহত্যার জন্য চেষ্টা করবে তারা শাস্তি পেতে পারে। ওয়াশিংটনে চিকিৎসকের সহায়তায় দীর্ঘমেয়াদি রোগীদের আত্মহত্যা বৈধ। ওরেগনের লোকেরা দীর্ঘমেয়াদি রোগের জন্য আত্মহত্যার জন্য সাহায্য চেয়ে অনুরোধ করতে পারে । কানাডিয়ানদের মধ্যে যারা আত্মহত্যার চেষ্টা করেছিল তাদের যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশে বাধা দিতে পারে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সীমান্ত প্রহরীরা যাদের মানসিক রোগ আছে এবং যারা আগে আত্মহত্যার জন্য চেষ্টা করেছিল তাদের অস্বীকার করতে পারে।

ধর্মীয় দৃষ্টিভঙ্গি[সম্পাদনা]

খ্রিস্টধর্মের বেশিরভাগ ক্ষেত্রে আত্মহত্যা একটি পাপ বলে মনে করা হয়, মূলত মধ্যযুগের প্রভাবশালী খ্রিস্টান চিন্তাবিদদের রচনাগুলি যেমন সেন্ট অগাস্টিন এবং সেন্ট টমাস অ্যাকুইনাসের মতামত, কিন্তু আত্মহত্যা বাইজেন্টাইন খ্রিষ্টীয় কোডের জাসটিয়ানের অধীনে এটি পাপ বলে বিবেচিত হয়নি। ক্যাথলিক মতবাদে আর্গুমেন্টটি "তুমি নিজেকে হত্যা করোনা" (ম্যাথু ১৯:১৮ যিশুর নতুন চুক্তির অধীন প্রযোজ্য), সেইসাথে ধারণা করা হয় যে জীবন ঈশ্বরের দ্বারা প্রদত্ত একটি উপহার, যা নষ্ট হওয়া নয় । আত্মহত্যা "প্রাকৃতিক আদেশ" এর বিরুদ্ধে এবং এইভাবে বিশ্বের জন্য ঈশ্বরের মাস্টার পরিকল্পনায় হস্তক্ষেপ করা হয়।

যাইহোক, এটি বিশ্বাস করা হয় যে মানসিক অসুস্থতা বা দুঃখের ভয়াবহ আতঙ্কে আত্মসমর্পণকারী ব্যক্তির দায়িত্ব হ্রাস করে। কাউন্টার-আর্গুমেন্টগুলি নিম্নোক্ত বিষয়গুলি অন্তর্ভুক্ত করে: ষষ্ঠ আজ্ঞাটি আরও নির্ভুলভাবে অনুবাদ করা হয় "আপনি আত্মহত্যা করবেন না" (অগত্যা নিজের জন্য আবেদন করেন না), যে ঈশ্বর মানুষকে স্বাধীন ইচ্ছা দিয়েছেন, যে নিজের জীবন নেয় রোগ নিরাময়ের সে ঈশ্বরের আইন লঙ্ঘন করে না এবং ঈশ্বর অনুসরণকারীদের আত্মহত্যার একটি সংখ্যা কোন নিন্দা ছাড়াই বাইবেলের মধ্যে নথিভুক্ত করা হয়েছে।

ইহুদীবাদ এই জীবনকে মূল্যবান বলে মনে করে, এবং আত্মহত্যাকে ঈশ্বরের ধর্মকে অস্বীকার করার সমতুল্য বলে মনে করা হয়। এটি সত্ত্বেও, চরম পরিস্থিতিতে যখন তাদের হত্যা বা তাদের ধর্মের সাথে বিশ্বাসঘাতকতা করতে বাধ্য করা হয়েছে তখন ইহুদীরা স্বতন্ত্র বা গণআত্মহত্যা করেছিল( দেখুন Masada, ইহুদীদের উপর প্রথম ফরাসি নিপীড়ন, এবং ইয়র্ক কাসল) এবং একটি গুরুতর অনুস্মারক হিসাবে সেখানে "যখন একটি ছুরি গলার মধ্যে লেগে আছে" ইহুদি লিটারগিতে এমনকি একটি প্রার্থনা আছে "যারা ঈশ্বরের নামকে শুদ্ধ করার" জন্য মৃত্যুবরণ করে (শহীদ দেখুন)। এই কাজগুলি ইহুদি কর্তৃপক্ষের মধ্যে মিশ্র প্রতিক্রিয়া পেয়েছে, কেউ কেউ বীরত্বপূর্ণ শহীদদের উদাহরণ হিসেবে গণ্য করে, অন্যেরা বলে যে শহীদ হওয়ার আশায় তাদের নিজের জীবনকে গ্রহণ করা ভুল।

ইসলামী ধর্মীয় মতামত আত্মহত্যার বিরুদ্ধে। কুরআন "নিজেকে খুন করো না বা ধ্বংস করো না" বলে এটা নিষেধ করেছে। হাদিসগুলি স্বতন্ত্রভাবে বলেছে আত্মহত্যা করা বেআইনি এবং মহা পাপ । প্রায়ই ইসলামী দেশে আত্মহত্যার সাথে স্টিগমা জড়িত থাকে। হিন্দুধর্মে আত্মহত্যাকে ঘৃণা করা হয় এবং সমসাময়িক হিন্দু সমাজে আত্মহত্যাকে অন্যকে হত্যা করার সমান পাপ বলে মনে করা হয়। হিন্দু ধর্মশাস্ত্র বলে যে যারা আত্মহত্যা দ্বারা মারা যায় এমন ব্যক্তির আত্মা জগতের অংশ হয়ে যাবে, পৃথিবীর ভেতরে ঘুরে করবে যতক্ষণ না অন্য কেউ মারা যায় বা তার নিজের জীবন গ্রহণ করে। যাইহোক, হিন্দুধর্মে উপবাস এবং অহিংস অনুশীলনের মাধ্যমে মানুষ নিজের জীবন নেয়ার অধিকার আছে যাকে প্রায়োপবেশ বলা হয়। প্রায়োপবেশ শুধু তাদের জন্য যাদের কোন আশা আকাঙ্গখা নেই এবং যাদের জীবনের জন্য কোন দায়িত্ববোধ নেই। সতী ও বিধবারা আত্মহত্যা করতে পারতো যা মধ্যযুগে প্রচলিত ছিল।


[২৩]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Laws - IPC - Section 309"vakilno1.com। সংগৃহীত এপ্রিল ৫, ২০১০ 
  2. "Suicide as seen in Islam"inter-islam.org। সংগৃহীত এপ্রিল ৫, ২০১০ 
  3. "Hinduism and suicide"hinduwebsite.com। সংগৃহীত এপ্রিল ৫, ২০১০ 
  4. "Euthanasia and Judaism: Jewish Views of Euthanasia and Suicide - ReligionFacts"religionfacts.com। সংগৃহীত এপ্রিল ৫, ২০১০ 
  5. Vander Heeren, Achille (১৯১২)। "Suicide"The Catholic Encyclopedia 14। New York: Robert Appleton Company। 
  6. Bruce Gross, Forrensic Examiner, Summer, 2006
  7. "CIS: UN Body Takes On Rising Suicide Rates – Radio Free Europe / Radio Liberty 2006" 
  8. O'Connor, Rory; Sheehy, Noel (২৯ Jan ২০০০)। Understanding suicidal behaviour। Leicester: BPS Books। পৃ: 33–37। আইএসবিএন 978-1-85433-290-5 
  9. [১]
  10. Gelder et al, 2005 p169. Psychiatry 3rd Ed. Oxford: New York
  11. VIRGINIA WHEELER (২০১০-০৪-০৬)। "9 dead in suicide attack on U.S. HQ"The Sun। সংগৃহীত ২০১০-০৪-০৬ 
  12. Reuters (২০১০-০৪-০৬)। "Policemen die in Ingushetia suicide bomb"Reuters। সংগৃহীত ২০১০-০৪-০৬ 
  13. Rod Nordland, Riyadh Mohammed (২০১০-০৪-০৫)। "Baghdad blasts kill dozens"New York Times। সংগৃহীত ২০১০-০৪-০৬ 
  14. "1991: Bomb kills India's former leader Rajiv Gandhi"BBC News। ১৯৯১-০৫-২১। সংগৃহীত ২০০৮-০৮-০৫ 
  15. Teasdale TW, Engberg AW (October ২০০১)। "Suicide after traumatic brain injury: a population study"। J. Neurol. Neurosurg. Psychiatr. 71 (4): 436–40। ডিওআই:10.1136/jnnp.71.4.436পিএমআইডি 11561024পিএমসি 1763534  |month= প্যারামিটার অজানা, উপেক্ষা করুন (সাহায্য)
  16. Simpson G, Tate R (December ২০০৭)। "Suicidality in people surviving a traumatic brain injury: prevalence, risk factors and implications for clinical management"। Brain Inj 21 (13-14): 1335–51। ডিওআই:10.1080/02699050701785542পিএমআইডি 18066936  |month= প্যারামিটার অজানা, উপেক্ষা করুন (সাহায্য)
  17. Qin P, Agerbo E, Mortensen PB (April ২০০৩)। "Suicide risk in relation to socioeconomic, demographic, psychiatric, and familial factors: a national register-based study of all suicides in Denmark, 1981–1997"। Am J Psychiatry 160 (4): 765–72। ডিওআই:10.1176/appi.ajp.160.4.765পিএমআইডি 12668367  |month= প্যারামিটার অজানা, উপেক্ষা করুন (সাহায্য)
  18. Birtchnell J, Masters N (September ১৯৮৯)। "Poverty and depression"। Practitioner 233 (1474): 1141–6। পিএমআইডি 2616460  |month= প্যারামিটার অজানা, উপেক্ষা করুন (সাহায্য)
  19. Dube SR, Anda RF, Felitti VJ, Chapman DP, Williamson DF, Giles WH (December ২০০১)। "Childhood abuse, household dysfunction, and the risk of attempted suicide throughout the life span: findings from the Adverse Childhood Experiences Study"। JAMA 286 (24): 3089–96। পিএমআইডি 11754674  |month= প্যারামিটার অজানা, উপেক্ষা করুন (সাহায্য)
  20. "Child Protection and Child Outcomes: Measuring the Effects of Foster Care" (PDF)। সংগৃহীত ২০১১-১১-০১ 
  21. Koch, Wendy (২০০৭-০৭-০৩)। "Study: Troubled homes better than foster care"। Usatoday.Com। সংগৃহীত ২০১১-১১-০১ 
  22. Lawrence, CR; Carlson, EA; Egeland, B (২০০৬)। "The impact of foster care on development"। Development and Psychopathology 18 (1): 57–76। ডিওআই:10.1017/S0954579406060044পিএমআইডি 16478552 
  23. Preventing Suicide, A resource for teacher and other school staff, 2000

আরও পড়ুন[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]