বেঞ্জোডায়াজেপিন

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন

বেঞ্জোডায়াজেপিন (Benzodiazepines) হচ্ছে এক শ্রেণির মস্তিষ্ক-নিয়ন্ত্রক ওষুধ (psychoactive drugs) যার মূল রাসায়নিক গঠন একটি বেনজিন রিং এবং একটি ডায়াজেপিন রিং-এর সমিশ্রণে তৈরি হয়।

লোরাজিপাম, বহুপ্রেশক্রিপশনকৃত একটি বেঞ্জোডায়াজেপিন।

এধরনের ওষুধের ভেতর ক্লোরডায়াজিপক্সাইড (chlordiazepoxide) হচ্ছে প্রথমটি যা ১৯৫৫ সালে লিও স্টার্নবাখ আবিস্কার করেন অনেকটা দূর্ঘটনাবশত।[১]

১৯৭৭ সালে সবচেয়ে বেশি প্রেস্ক্রিপশনকৃত ওষুধের তালিকার সর্বোপরের স্থানটি ছিল বেঞ্জোডায়াজেপিনের দখলে।

বেঞ্জোডায়াজেপিন GABA-A রিসেপ্টরে গামা-এমাইনো বিউটাইরিক এসিড (GABA) নামক নিউরোট্রান্সমিটারের কার্যক্ষমতাকে বাড়িয়ে দেয় যা পরে সিডটিভ, হিপনোটিক (তন্দ্রা উদ্রেককারি), উদ্বেগ প্রশমনকারি, খিঁচুনিরোধী, আর মাংশপেশী শিথিলকারক বৈশিষ্ঠসমূহের জন্ম দেয়। এইসব বৈশিষ্ঠই উদ্বিগ্নতায়, নিদ্রাহীনতায়, হৃদরোগে, মংশপেশীর খিঁচুনীতে, এলকোহল প্রত্যাহারকালে  এবং আরও বিভিন্নরকম মেডিকেল ও ডেন্টাল পদ্ধতিতে প্রি-মেডিকেশনে বেঞ্জোডায়াজেপিনের ব্যাবহারের সুফল বয়ে আনে।

চিকিৎসায় ব্যবহার[সম্পাদনা]

বেঞ্জোডায়াজেপিন-এর মানসিক প্রশান্তিকারক, নিদ্রাকারক, সম্মোহনকারক, উদ্বিগ্নতানাশক, খিঁচুনিরোধী, এবং পেশী শিথিলকারক প্রভাব রয়েছে, যা বিভিন্ন ধরণের অ্যালকোহল নির্ভরতা, খিঁচুনি, উদ্বেগজনিত ব্যাধি, উত্তেজনা, আতঙ্কগ্রস্ততা, এবং অনিদ্রার মতো ক্ষেত্রগুলোতে কার্যকর। সাধারণভাবে, বেঞ্জোডায়াজেপিনগুলি সহনীয় এবং বিস্তৃত অবস্থার জন্য স্বল্প মেয়াদে নিরাপদ এবং কার্যকর ওষুধ।[২][৩]

আতঙ্কজনিত রোগ[সম্পাদনা]

বেঞ্জোডায়াজেপিনগুলি প্রায়শই তাদের কার্যকারিতা, সহনশীলতা এবং উদ্বিগ্নতানাশে দ্রুতকাজ শুরু করার কারণে আতঙ্কজনিত ব্যাধি সম্পর্কিত উদ্বেগের চিকিত্সার জন্যবার বার বার ব্যবহৃত হয়।

সাধারণ উদ্বেগজনিত ব্যাধি[সম্পাদনা]

সাধারণ উদ্বেগজনিত ব্যাধি-এর স্বল্প-মেয়াদী ব্যবস্থায় বেঞ্জোডায়াজেপিনগুলির শক্তিশালী কার্যকারিতা রয়েছে, তবে সামগ্রিকভাবে দীর্ঘমেয়াদী উন্নতি করতে তেমন কার্যকর নয়।

অনিদ্রা[সম্পাদনা]

অনিদ্রার স্বল্পমেয়াদী চিকিত্সার জন্য বেঞ্জোডায়াজেপিন কার্যকর হতে পারে। তবে বেঞ্জোডায়াজেপিনের উপর নির্ভরতা সৃষ্টির ঝুঁকির কারণে তাদের ২ থেকে ৪ সপ্তাহের বেশি ব্যবহারের পরামর্শ দেওয়া হয় না।

মৃগীরোগ[সম্পাদনা]

দীর্ঘমেয়াদী খিঁচুনিজনিত মৃগীরোগের জরুরী অবস্থায় বেঞ্জোডায়াজেপিনের প্রয়োগ দ্রুত কার্যকরী ভূমিকা পালন করে থাকে।

এলকোহল প্রত্যাহার[সম্পাদনা]

ক্লোরডায়াজেপক্সাইড অ্যালকোহল ডিটোক্সিফিকেশনের জন্য সর্বাধিক ব্যবহৃত বেঞ্জোডায়াজেপিন, [৪] তবে ডায়াজেপাম বিকল্প হিসাবে ব্যবহৃত হতে পারে।

দুশ্চিন্তা[সম্পাদনা]

বেঞ্জোডায়াজেপিনগুলি কখনও কখনও তীব্র উদ্বেগের চিকিত্সায় ব্যবহৃত হয়, কারণ তারা বেশিরভাগ ব্যক্তিদের মধ্যে লক্ষণগুলির দ্রুত এবং চিহ্নিত বা মাঝারি উপশম নিয়ে আসে;[৫]তবে, সহনশীলতা, দীর্ঘমেয়াদী ক্ষেত্রগুলিতে কার্যকারিতার অভাব এবং নির্ভরতা সৃষ্টির ঝুঁকির কারণে তাদের ২ থেকে ৪ সপ্তাহের বেশি ব্যবহারের পরামর্শ দেওয়া হয় না।

অন্যান্য ব্যবহারঃ[সম্পাদনা]

এছাড়াও বেঞ্জোডায়াজেপিনগুলি প্রায়শই আরও বিস্তৃত বিভিন্ন ক্ষেত্রে ব্যবহৃত হয়ে থাকেঃ

  • কৃত্রিমভাবে শ্বাসগ্রহণকারী ব্যক্তির চরম সঙ্কটে প্রশান্তি আনতে পারে। [৬]
  • শ্বাসহীনতার (ছোট ছোট শ্বাস নেয়া) অগ্রিম পর্যায়ে বিশেষভাবে যেখানে অন্যান্য চিকিৎসায় পর্যাপ্ত পরিমাণে লক্ষণগুলি নিয়ন্ত্রণ করতে ব্যর্থ হয়, সেখানে বেঞ্জোডায়াজেপিনগুলি নির্দেশিত হয়ে থকে।
  • অস্ত্রোপচারের কয়েক ঘন্টা আগে উদ্বেগ দূর করার জন্য ওষুধ হিসাবে বেনজোডিয়াজেপাইনগুলি কার্যকর।
  • বেঞ্জোডায়াজেপিনগুলি তাদের শক্তিশালী পেশী-শিথিলকারী বৈশিষ্ট্যের জন্য সুপরিচিত এবং পেশীগুলির খিঁচুনিতে চিকিত্সার ক্ষেত্রে কার্যকর হতে পারে, [৭]: 577-5578 যদিও প্রায়শই তাদের পেশী শিথিল প্রভাবগুলিতে সহনশীলতা বৃদ্ধি পায়। [৮]
  • বেনজোডিয়াজেপাইনগুলি হেলুসিনোজেন বিষক্রিয়ায় বা নেশায় সৃষ্ট তীব্র আতঙ্কের চিকিৎসাতেও ব্যবহৃত হয়।[৯]
  • অত্যধিক-অমোঘ ব্যাধি (Obsessive–compulsive disorder)

এছাড়াও, ইলেক্ট্রোকনভালসিভ থেরাপির পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া কমাতে স্বল্পমাত্রায় বেঞ্জোডায়াজেপিন ব্যবহারের কিছু প্রমাণ রয়েছে।

অতিমাত্রা[সম্পাদনা]

যদিও বেঞ্জোডায়াজেপিনগুলি তাদের পূর্বসূরী, বার্বিচুরেটসের তুলনায় বেশি পরিমাণে নিরাপদ তবে ওভারডেজের ক্ষেত্রে তারা সমস্যা তৈরি করতে পারে [১০]। শুধু তাদের অতিমাত্রায় ব্যবহারে, খুব কমই গুরুতর জটিলতা সৃষ্টি হয়; [১৫০] ইংল্যান্ডের পরিসংখ্যান দেখিয়েছে যে এককভাবে বেঞ্জোডায়াজেপিনগুলির অতিমাত্রায় ব্যবহারের ফলে বিষক্রিয়ার দরুন মৃত্যুর ক্ষেত্রে ৩.৮% দায়ী ছিল। [১১] তবে এই ওষুধগুলিকে অ্যালকোহল, অপিয়েটস বা ট্রাইসাইক্লিক এন্টিডিপ্রেসেন্টগুলির সাথে একত্রে অতিমাত্রায় ব্যবহারে বিষাক্ততা মারাত্মকভাবে বৃদ্ধি পায়। [১২] [১৩] [১৪]

প্রতিনির্দেশনা[সম্পাদনা]

মাংশপেশি শিথিলকারক বৈশিষ্ট্যের দরুন বেনজোডিয়াজেপাইনগুলি শ্বাসকষ্টের কারণ হতে পারে। যে কারণে, তারা মাইস্থেনিয়া গ্রাভিস[১৫], স্লিপ এপনিয়া, ব্রঙ্কাইটিস এবং সিওপিডিযুক্ত লোকদের মধ্যে প্রতিনির্দেশিত হয়।[১৬][১৭]

গর্ভধারনকালেঃ

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে, খাদ্য ও ওষুধ প্রশাসন বেঞ্জোডায়াজেপিনগুলিকে ডি বা এক্স উভয় ক্ষেত্রেই শ্রেণিবদ্ধ করেছে যার অর্থ গর্ভজাতের ক্ষতির সম্ভাবনা প্রমাণিত হয়েছে।[১৮]

পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া[সম্পাদনা]

বেঞ্জোডায়াজেপিনগুলির সর্বাধিক সাধারণ পার্শ্ব প্রতিক্রিয়াগুলি তাদের নিদ্রাকারক এবং পেশী-শিথিল কর্মের সাথে সম্পর্কিত। এগুলির মধ্যে নিদ্রাচ্ছন্নতা, মাথা ঘোরা, এবং সতর্কতা ও মনোযোগ হ্রাস অন্তর্ভুক্ত।২০[১৯]

প্রাণিচিকিৎসায় ব্যবহার[সম্পাদনা]

মানুষের মতই, বেঞ্জোডায়াজেপিনগুলি প্রাণিদের নানা চিকিৎসায় ব্যবহৃত হয়ে থাকে।


তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Shorter, Edward. (২০০৫)। A historical dictionary of psychiatry। New York: Oxford University Press। আইএসবিএন 9780198039235ওসিএলসি 65200006 
  2. Perugi G, Frare F, Toni C (2007). "Diagnosis and treatment of agoraphobia with panic disorder". CNS Drugs. 21 (9): 741–64. doi:10.2165/00023210-200721090-00004. PMID 17696574.
  3. Tesar GE (May 1990). "High-potency benzodiazepines for short-term management of panic disorder: the U.S. experience". The Journal of Clinical Psychiatry. 51 Suppl (Suppl): 4–10, discussion 50–3. PMID 1970816.
  4. Ashworth M, Gerada C (August 1997). "ABC of mental health. Addiction and dependence--II: Alcohol". BMJ. 315 (7104): 358–60. doi:10.1136/bmj.315.7104.358. PMC 2127236. PMID 9270461.
  5. McIntosh A, Cohen A, Turnbull N, et al. (2004). "Clinical guidelines and evidence review for panic disorder and generalised anxiety disorder" (PDF). National Collaborating Centre for Primary Care. Retrieved 2009-06-16.
  6. Devlin JW, Roberts RJ (July 2009). "Pharmacology of commonly used analgesics and sedatives in the ICU: benzodiazepines, propofol, and opioids". Critical Care Clinics. 25 (3): 431–49, vii. doi:10.1016/j.ccc.2009.03.003. PMID 19576523.
  7. Royal Pharmaceutical Society of Great Britain (2009). British National Formulary (BNF 57). BMJ Group and RPS Publishing. ISBN 978-0-85369-845-6.
  8. Ashton H (May 2005). "The diagnosis and management of benzodiazepine dependence"(PDF). Current Opinion in Psychiatry. 18 (3): 249–55. doi:10.1097/01.yco.0000165594.60434.84. PMID 16639148.
  9. Wyatt JP, Illingworth RN, Robertson CE, Clancy MJ, Munro PT (2005). "Poisoning". Oxford Handbook of Accident and Emergency Medicine (2nd ed.). Oxford University Press. pp. 173–208. ISBN 978-0-19-852623-0.
  10. Fraser AD (October 1998). "Use and abuse of the benzodiazepines". Therapeutic Drug Monitoring. 20 (5): 481–9. doi:10.1097/00007691-199810000-00007. PMC 2536139. PMID 9780123.
  11. Charlson F, Degenhardt L, McLaren J, Hall W, Lynskey M (2009). "A systematic review of research examining benzodiazepine-related mortality". Pharmacoepidemiology and Drug Safety. 18 (2): 93–103. doi:10.1002/pds.1694. PMID 19125401.
  12. White JM, Irvine RJ (July 1999). "Mechanisms of fatal opioid overdose". Addiction. 94 (7): 961–72. doi:10.1046/j.1360-0443.1999.9479612.x. PMID 10707430.
  13. Robin Mantooth (28 January 2010). "Toxicity, benzodiazepine". eMedicine. Retrieved 2010-10-02.
  14. Ramrakha P, Moore K (2004). "Chapter 14: Drug overdoses". Oxford Handbook of Acute Medicine (2nd ed.). Oxford University Press. pp. 791–838 (798). ISBN 978-0-19-852072-6.
  15. "Myasthenia gravis"Wikipedia (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১৯-০৫-৩১। 
  16. Ballenger JC (2000). "Benzodiazepine receptors agonists and antagonists". In Sadock VA, Sadock BJ, Kaplan HI (eds.). Kaplan & Sadock's Comprehensive Textbook of Psychiatry (7th ed.). Lippincott Williams & Wilkins. pp. 2317–23. ISBN 978-0-683-30128-1.
  17. Meyler L, Aronson JK, eds. (2006). Meyler's Side Effects of Drugs: the International Encyclopedia of Adverse Drug Reactions and Interactions (15th ed.). Elsevier. pp. 429–43. ISBN 978-0-444-50998-7.
  18. Roach SS, Ford SM (2006). "Sedatives and hypnotics". Introductory Clinical Pharmacology (8th ed.). Lippincott Williams & Wilkins. p. 236. ISBN 978-0-7817-7595-3.
  19. Ballenger JC (2000). "Benzodiazepine receptors agonists and antagonists". In Sadock VA, Sadock BJ, Kaplan HI (eds.). Kaplan & Sadock's Comprehensive Textbook of Psychiatry (7th ed.). Lippincott Williams & Wilkins. pp. 2317–23. ISBN 978-0-683-30128-1.