আর্থার কার

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
Jump to navigation Jump to search
আর্থার কার
ব্যক্তিগত তথ্য
পূর্ণ নামআর্থার উইলিয়াম কার
জন্ম(১৮৯৩-০৫-২১)২১ মে ১৮৯৩
মিকলহাম, সারে, ইংল্যান্ড
মৃত্যু৭ ফেব্রুয়ারি ১৯৬৩(১৯৬৩-০২-০৭) (৬৯ বছর)
পশ্চিম উইটন, ইয়র্কশায়ার, ইংল্যান্ড
ব্যাটিংয়ের ধরনডানহাতি
বোলিংয়ের ধরনডানহাতি মিডিয়াম
আন্তর্জাতিক তথ্য
জাতীয় পার্শ্ব
টেস্ট অভিষেক২৩ ডিসেম্বর ১৯২২ বনাম দক্ষিণ আফ্রিকা
শেষ টেস্ট১৭ আগস্ট ১৯২৯ বনাম দক্ষিণ আফ্রিকা
খেলোয়াড়ী জীবনের পরিসংখ্যান
প্রতিযোগিতা টেস্ট এফসি
ম্যাচ সংখ্যা ১১ ৪৬৮
রানের সংখ্যা ২৩৭ ২১০৫১
ব্যাটিং গড় ১৯.৭৫ ৩১.৫৬
১০০/৫০ ০/১ ৪৫/৯৮
সর্বোচ্চ রান ৬৩ ২০৬
বল করেছে ১৮১৬
উইকেট ৩১
বোলিং গড় - ৩৭.০৯
ইনিংসে ৫ উইকেট
ম্যাচে ১০ উইকেট
সেরা বোলিং - ৩/১৪
ক্যাচ/স্ট্যাম্পিং ৩/০ ৩৯৫/১
উৎস: ক্রিকইনফো, ৮ জানুয়ারি ২০১৮

আর্থার উইলিয়াম কার (ইংরেজি: Arthur Carr; জন্ম: ২১ মে, ১৮৯৩ - মৃত্যু: ৭ ফেব্রুয়ারি, ১৯৬৩) সারের মিকলহম এলাকায় জন্মগ্রহণকারী বিখ্যাত ইংরেজ আন্তর্জাতিক ক্রিকেট তারকা ছিলেন। ইংল্যান্ড ক্রিকেট দলের অন্যতম সদস্য ছিলেন। প্রথম-শ্রেণীর ইংরেজ কাউন্টি ক্রিকেটে নটিংহ্যামশায়ারের প্রতিনিধিত্ব করেছেন আর্থার কার। দলে তিনি মূলতঃ ডানহাতি ব্যাটসম্যান হিসেবে খেলতেন। এছাড়াও ডানহাতে মিডিয়াম বোলিং করতেন তিনি।

প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেট[সম্পাদনা]

প্রতিশ্রুতিশীল তরুণ ব্যাটসম্যান হিসেবে আবির্ভাব ঘটে আর্থার কারের। ১৯১০ সালে বিদ্যালয়ের ছাত্র অবস্থাতেই নটিংহ্যামশায়ারের পক্ষে প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটে প্রথম খেলতে নামেন। এরপর থেকে বেশ ভালো খেলতে থাকেন। ফলশ্রুতিতে ১৯১৯ সালে নটিংহ্যামশায়ারের অধিনায়কত্ব লাভ করেন।

১৯৩৪ সালে নটিংহ্যামশায়ারের অধিনায়কত্ব করা থেকে তাঁকে দূরে সরিয়ে রাখা হয়। এরপর আর কোন প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেট খেলতে আর্থার কারকে দেখা যায়নি।

আর্থার কার তাঁর সমগ্র খেলোয়াড়ী জীবনে ১১ টেস্টে অংশ নিয়ে ১৯.৭৫ গড়ে ২৩৭ রান তুলেছিলেন। প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটে ৪৬৮ খেলায় ৩১.৫৬ গড়ে ২১০৫১ রান তুলেন। তন্মধ্যে ৪৫টি সেঞ্চুরিও করেছেন তিনি। এছাড়াও প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটে মাঝে-মধ্যে মিডিয়াম পেস বোলিং করতেন। ৩৭.০৯ গড়ে ৩১ উইকেট পেয়েছেন।

আন্তর্জাতিক ক্রিকেট[সম্পাদনা]

১৯২২-২৩ মৌসুমে দক্ষিণ আফ্রিকা সফরের জন্য কারকে ইংল্যান্ড দলের সদস্য মনোনীত করা হয়। এ সফরেই তাঁর টেস্ট অভিষেক ঘটে। ২৩ ডিসেম্বর, ১৯২২ তারিখে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে তাঁর টেস্ট অভিষেক ঘটে।

১৯২৬ সালে অ্যাশেজ সিরিজ খেলার জন্য ইংল্যান্ডে আসে অস্ট্রেলিয়া দল। এ সিরিজে আর্থার কারকে ইংল্যান্ডের দলনেতা হিসেবে দায়িত্ব দেয়া হয়। লিডসে অনুষ্ঠিত তৃতীয় টেস্টে টসে জয়লাভের পরও অস্ট্রেলিয়াকে ব্যাটিং করার জন্য আমন্ত্রণ জানিয়েছিলেন। এরপর খেলার প্রথম ওভারেই চার্লি ম্যাককার্টনির ক্যাচ স্লিপে ফেলে দেন। ম্যাককার্টনি মধ্যাহ্নভোজনের পূর্বেই সেঞ্চুরি করেন ও ইংল্যান্ড দল সৌভাগ্যবশতঃ পরাজয় থেকে রক্ষা পায়।

সিরিজের চতুর্থ টেস্টে টনসিলে আক্রান্ত হন। পঞ্চম টেস্টে আরোগ্য লাভ করলেও পার্সি চ্যাপম্যানকে অধিনায়ক হিসেবে তাঁর স্থলাভিষিক্ত করা হয়। তিনি এ সিদ্ধান্তে বেশ মনঃক্ষুণ্ণ হন। তবে, ১৯২৯ সালে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে আরও দুই টেস্টে দলকে শেষবারের মতো নেতৃত্ব দিয়েছিলেন। এরপর থেকেই নটিংহ্যামশায়ারের অধিনায়কত্ব করে অধিকাংশ সময় ইংরেজ কাউন্টি ক্রিকেট প্রতিযোগিতায় প্রভাববিস্তারকারী দলে পরিণত করতে সচেষ্ট ছিলেন।

মূল্যায়ন[সম্পাদনা]

১৯৩০ ও পরবর্তী বছরগুলোয় ভবিষ্যতের ইংল্যান্ড দলনেতা ডগলাস জারদিন ও নর্দাম্পটনশায়ারের ফাস্ট-বোলারদ্বয় হ্যারল্ড লারউডবিল ভোসকে নিয়ে বডিলাইন বোলিং কৌশল বাস্তবায়নে তৎপর হন।

১৯২৩ সালে উইজডেন কর্তৃক বর্ষসেরা ক্রিকেটার মনোনীত হন তিনি।[১]

৭ ফেব্রুয়ারি, ১৯৬৩ তারিখে ৭০ বছর বয়সে ইয়র্কশায়ারের পশ্চিম উইটন এলাকায় তাঁর দেহাবসান ঘটে।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Wisden Cricketers of the Year" (English ভাষায়)। CricketArchive। সংগ্রহের তারিখ ২০০৯-০২-২১ 

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

আরও পড়ুন[সম্পাদনা]

  • Wynne-Thomas, Peter (২০১৭)। Arthur Carr: The Rise and Fall of Nottinghamshire's Bodyline Captain। Sheffield: Chequered Flag Publishing। আইএসবিএন 978-0-9932152-9-2 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]


ক্রীড়া অবস্থান
পূর্বসূরী
আর্থার জিলিগান
ইংরেজ ক্রিকেট অধিনায়ক
১৯২৬
উত্তরসূরী
রনি স্ট্যানিফোর্থ
পূর্বসূরী
আর্থার জোন্স
নটিংহ্যামশায়ার ক্রিকেট অধিনায়ক
১৯১৯-১৯৩৪
উত্তরসূরী
জর্জ হিন