এ. জি. স্টিল

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
সরাসরি যাও: পরিভ্রমণ, অনুসন্ধান
এ জি স্টিল
Ranji 1897 page 259 A. G. Steel.jpg
ব্যক্তিগত তথ্য
পূর্ণ নাম অ্যালান গিবসন স্টিল
জন্ম (১৮৫৮-০৯-২৪)২৪ সেপ্টেম্বর ১৮৫৮
পশ্চিম ডার্বি, লিভারপুল, ল্যাঙ্কাশায়ার, ইংল্যান্ড
মৃত্যু ১৫ জুন ১৯১৪(১৯১৪-০৬-১৫) (৫৫ বছর)
হাইড পার্ক, লন্ডন, ইংল্যান্ড
ব্যাটিংয়ের ধরন ডানহাতি
বোলিংয়ের ধরন ডানহাতি ফাস্ট-মিডিয়াম / স্লো-মিডিয়াম
আন্তর্জাতিক তথ্য
জাতীয় পার্শ্ব
টেস্ট অভিষেক
(ক্যাপ ২৮)
৬ সেপ্টেম্বর ১৮৮০ বনাম অস্ট্রেলিয়া
শেষ টেস্ট ১৭ জুলাই ১৮৮৮ বনাম অস্ট্রেলিয়া
ঘরোয়া দলের তথ্য
বছর দল
১৮৭৭–১৮৯ড ল্যাঙ্কাশায়ার
১৮৮০–১৮৯০ এমসিসি
১৮৭৮–১৮৮১ কেমব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয়
খেলোয়াড়ী জীবনের পরিসংখ্যান
প্রতিযোগিতা টেস্ট এফসি
ম্যাচ সংখ্যা ১৩ ১৬২
রানের সংখ্যা ৬০০ ৭,০০০
ব্যাটিং গড় ৩৫.২৯ ২৯.৪১
১০০/৫০ ২/০ ৮/৩৬
সর্বোচ্চ রান ১৪৮ ১৭১
বল করেছে ১৩৬০ ৩১,১৩৭
উইকেট ২৯ ৭৮৯
বোলিং গড় ২০.৮৬ ১৪.৭৮
ইনিংসে ৫ উইকেট ৬৪
ম্যাচে ১০ উইকেট ২০
সেরা বোলিং ৩/২৭ ৯/৬৩
ক্যাচ/স্ট্যাম্পিং ৫/– ১৪১/–
উৎস: ক্রিকেটআর্কাইভ, ১৫ অক্টোবর ২০১৭

অ্যালান গিবসন এজি স্টিল (ইংরেজি: AG Steel; জন্ম: ২৪ সেপ্টেম্বর, ১৮৫৮ - মৃত্যু: ১৫ জুন, ১৯১৪) লিভারপুলের পশ্চিম ডার্বি এলাকায় জন্মগ্রহণকারী বিখ্যাত ইংরেজ আন্তর্জাতিক ক্রিকেটার ছিলেন। ইংল্যান্ড ক্রিকেট দলের অন্যতম সদস্য ছিলেন তিনি। ঘরোয়া প্রথম-শ্রেণীর ইংরেজ কাউন্টি ক্রিকেটে ল্যাঙ্কাশায়ারের প্রতিনিধিত্ব করেছেন এ. জি. স্টিল। তাঁকে তাঁর সময়কালে কিংবদন্তীতুল্য ক্রিকেটার ডব্লিউজি গ্রেসের সাথে তুলনা করা হতো।

প্রারম্ভিক জীবন[সম্পাদনা]

লিভারপুলের যোসেফ স্টিল ও স্কটল্যান্ডীয় কির্কউড দম্পতির সন্তান এজি স্টিল লিভারপুলের পশ্চিম ডার্বি এলাকায় ২৪ সেপ্টেম্বর, ১৮৫৮ তারিখে জন্মগ্রহণ করেন। ক্রিকেট খেলায় অংশগ্রহণকারী সাত ভাইয়ের অন্যতম ছিলেন তিনি। তন্মধ্যে আর্নেস্ট (ইই), ডগলাস (ডিকিউ) ও হ্যারল্ড (এইচবি) ল্যাঙ্কাশায়ারের পক্ষে প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটে অংশগ্রহণ করেছিলেন।

মার্লবোরা কলেজে তাঁর বিদ্যালয়ের দিনগুলো অতিবাহিত হয়। সেখানে তিনি চমৎকারভাবে ক্রিকেট খেলতেন। কেমব্রিজের ট্রিনিটি কলেজেও এ ধারা অব্যাহত রাখেন।[১] ১৮৭৮ সালে কেমব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয় দলের সদস্যরূপে অংশগ্রহণ করে তাৎক্ষণিকভাবে তারকা খেলোয়াড়ে পরিণত হন। সেখানে তিনি বোলিং গড়ে শীর্ষস্থানে ছিলেন যা তাঁকে ইংল্যান্ডের পরিচ্ছন্ন ব্যক্তির মর্যাদা এনে দেয়।

ভাইদের কাছ থেকে স্বাতন্ত্র্যবোধ বজায় রাখতে সংক্ষিপ্ত নামে পরিচিত হয়ে উঠেন।

খেলোয়াড়ী জীবন[সম্পাদনা]

১৮৮০ সালে ইংল্যান্ডের ওভালে অনুষ্ঠিত প্রথম টেস্ট খেলায় অংশগ্রহণের সৌভাগ্য অর্জন করেন। এরপর ১৮৮২ সালে স্বল্প ব্যবধানে পরাজিত হওয়া বিখ্যাত টেস্টে অংশ নেন। ফলশ্রুতিতে দ্য স্পোর্টিং টাইমসে বিদ্রুপাত্মক শোকসংবাদ প্রকাশ করে যাতে বলা হয় যে,

আরআইপি ইংরেজ ক্রিকেট দেহ সমাহিত করা হবে ও ছাঁই অস্ট্রেলিয়ায় নিয়ে যাওয়া হবে।

অ্যাশেজের উৎপত্তি রহস্য[সম্পাদনা]

অল্প কয়েকদিন পর এজি স্টিল তাঁর কেমব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয়ের বন্ধু ইভো ব্লাই এবং স্টাড ভ্রাতৃদ্বয় জর্জ স্টাডচার্লস স্টাডের সহযোগিতায় দল গঠন করে অস্ট্রেলিয়ায় নিয়ে যান।

১৮৮২-৮৩ মৌসুমে ইংল্যান্ড দলকে সাথে নিয়ে স্বাগতিক অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ২-১ ব্যবধানে টেস্ট সিরিজ জয় করেন। ফলশ্রুতিতে তাঁরা ছাঁই ভর্তি পাত্র উপহার পান।

১৮৮৩ সালের ঐ সফরে সিডনি ক্রিকেট গ্রাউন্ডে অতিরিক্ত চতুর্থ টেস্ট খেলার আয়োজন করা হয়। সমগ্র সফরে ব্যাটিং ও বোলিং উভয় বিভাগেই শীর্ষস্থানে ছিলেন এজি স্টিল।

নিজদেশে অংশগ্রহণ[সম্পাদনা]

১৮৮৪ সালে লর্ডসের ইতিহাসের প্রথম টেস্ট খেলায় অংশ নিয়ে ব্যক্তিগত সর্বোচ্চ ১৪৮ রানের টেস্ট ইনিংস খেলেন।[২]

অদ্যাবধি লর্ডসের অনার্স বোর্ডে তাঁর নাম সর্বাগ্রে রয়েছে। ফলশ্রুতিতে ১৮৮৪ সালে আইসিসি টেস্ট ব্যাটসম্যানদের র‌্যাঙ্কিংয়ে শীর্ষস্থানে আরোহণ করেন তিনি। ১৮৮৫ সালেও তিনি একই অবস্থানে ছিলেন।

১৮৮৬ সালে তিনবার দলকে নেতৃত্ব দেন। ৩-০ ব্যবধানে জয় তুলে নিয়ে অস্ট্রেলিয়াকে হোয়াইটওয়াশ করেন। ১৮৮৮ সালে সর্বশেষ টেস্টেও অধিনায়কের দায়িত্বে ছিলেন। তবে এবার তাঁর দল পরাজিত হয়েছিল।

মূল্যায়ণ[সম্পাদনা]

এইচএস অ্যাল্থামের মতে, প্রশ্নাতীতভাবেই এজি স্টিলের বোলিংশৈলী ভালো ও সেরা একাদশের মধ্যে পার্থক্য এনে দিয়েছিল।

ব্যক্তিগত জীবন[সম্পাদনা]

১৮৮৮ সালে প্রকাশিত ব্যাডমিন্টন লাইব্রেরিতে ক্রিকেট খণ্ডে বোলিং অধ্যায় সম্পর্কে লিখেন।[৩]

১৯০২ সালে মেরিলেবোন ক্রিকেট ক্লাবের সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন। তাঁর সন্তান অ্যালান ইভো স্টিল এমসিসি ও মিডলসেক্সের পক্ষে প্রথম-শ্রেণীর খেলায় অংশ নিয়ে সুনাম কুড়ান। প্রথম বিশ্বযুদ্ধে ইভো নিহত হয়েছিলেন।

১৫ জুন, ১৯১৪ তারিখে লন্ডনে এজি স্টিলের দেহাবসান ঘটে। এরপর কেনসাল গ্রীন সিমেট্রিতে তাঁকে সমাহিত করা হয়।[৪]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Steel, Allan Gibson (STL877AG)"A Cambridge Alumni Databaseকেমব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয় 
  2. "India's fairy-tale T20 triumph"ESPN Cricinfo। সংগৃহীত ২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৭ 
  3. "Allan Gibson Steel – A tribute"Wisden Cricketers' Almanack। ১৯১৫। 
  4. Paths of Glory। Friends of Kensal Green Cemetery। ১৯৯৭। পৃ: ৯৩। 

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]

ক্রীড়া অবস্থান
পূর্বসূরী
আর্থার শ্রিউসবারি
ইংরেজ ক্রিকেট অধিনায়ক
১৮৮৬
উত্তরসূরী
আর্থার শ্রিউসবারি