২০১৯-২১ আইসিসি বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশীপ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
২০১৯-২১ আইসিসি বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশীপ
আইসিসি বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশীপের লোগো.jpg
তারিখ১ আগস্ট, ২০১৯ – ২২ জুন, ২০২১
ব্যবস্থাপকআন্তর্জাতিক ক্রিকেট কাউন্সিল
ক্রিকেটের ধরনটেস্ট ক্রিকেট
প্রতিযোগিতার ধরনলীগ ও ফাইনাল
বিজয়ী নিউজিল্যান্ড (১ম শিরোপা)
রানার-আপ ভারত
অংশগ্রহণকারী
খেলার সংখ্যা৬১
সর্বোচ্চ রান মারনাস লাবুশেন (১৬৭৫)
সর্বোচ্চ উইকেট রবিচন্দ্রন অশ্বিন (৭১)
প্রাতিষ্ঠানিক ওয়েবসাইটwww.icc-cricket.com/world-test-championship
ইউডিআরএসহ্যাঁ

২০১৯-২১ আইসিসি বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশীপ (ইংরেজি: 2019–21 ICC World Test Championship) টেস্ট ক্রিকেটকে ঘিরে চলমান আইসিসি বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশীপের উদ্বোধনী আসর।[১] ১ আগস্ট, ২০১৯ তারিখ থেকে অস্ট্রেলিয়া-ইংল্যান্ডের মধ্যকার অ্যাশেজ সিরিজের প্রথম টেস্টের মাধ্যমে এ প্রতিযোগিতা শুরু হয়। ২২ জুন, ২০২১ তারিখে নির্ধারিত সময়ে ইংল্যান্ডের সাউদাম্পটনে প্রতিযোগিতার পরিসমাপ্তি ঘটবে।[২] কোন কারণে চূড়ান্ত খেলা ড্র কিংবা টাইয়ে পরিণত হলে উভয় দলকে যুগ্ম চ্যাম্পিয়ন হিসেবে ঘোষণা করা হবে।

২০১০ সালে এ প্রতিযোগিতা আয়োজনের চিন্তাধারা অনুমোদনের প্রায় এক দশক পর আন্তর্জাতিক ক্রিকেট কাউন্সিলের (আইসিসি) বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশীপের চিন্তাধারাটি বাস্তবরূপ লাভ করে। ২০১৩ ও ২০১৭ সালে দুইবার প্রতিযোগিতা আয়োজনের চেষ্টা চালানো হলেও তা বাতিল করতে হয়।

বারোটি টেস্টভূক্ত দেশের মধ্যে নয়টি দেশ এ প্রতিযোগিতায় অংশ নিচ্ছে।[৩][৪] প্রত্যেক দলই অপর আটটি দলের মধ্যে যে-কোন ছয়টির বিপক্ষে টেস্ট সিরিজে অংশ নিবে। প্রত্যেক সিরিজই দুই থেকে পাঁচটি টেস্ট খেলার মধ্যে সীমাবদ্ধ থাকবে। সকল দলই তিনটি নিজদেশে ও তিনটি প্রতিপক্ষের মাঠে মোট ছয়টি সিরিজ খেললেও একই সংখ্যক টেস্ট খেলার প্রয়োজন পড়বে না। প্রত্যেক দলেরই প্রতিটি সিরিজ থেকে সর্বাধিক ১২০ পয়েন্ট লাভের সুযোগ রয়েছে। লীগভিত্তিক সিরিজ খেলা শেষে সর্বাধিকসংখ্যক পয়েন্ট লাভকারী দুই দল চূড়ান্ত খেলায় অবতীর্ণ হবে।[৫]

এই চ্যাম্পিয়নশীপে দীর্ঘদিনব্যাপী চলমান টেস্ট সিরিজও এর অংশ হিসেবে গণ্য হবে। যেমন: ২০১৯ সালের অ্যাশেজ সিরিজ। এছাড়াও, নয়টি দলের কয়েকটি দল এ সময়কালে অতিরিক্ত টেস্ট খেলায় অংশ নিবে যা এ চ্যাম্পিয়নশীপের অংশ নয়। ২০১৮-২৩ সালের আইসিসি ফিউচার ট্যুরস প্রোগ্রাম এগুলোতে রয়েছে। প্রধানতঃ তিনটি টেস্টভূক্ত দলকে প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ না করানোর কারণে এ প্রোগ্রামের আয়োজন করা হয়েছে।

২৯ জুলাই, ২০১৯ তারিখে আইসিসি কর্তৃপক্ষ আনুষ্ঠানিকভাবে বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশীপের উদ্বোধন করে।[৬] খেলোয়াড়দের পোশাক পরিধানের শর্ত হিসেবে সকল খেলোয়াড়ই তাদের ওডিআইটুয়েন্টি২০আইয়ের নম্বর ব্যবহার করবে। এছাড়াও, কেবলমাত্র টেস্ট ক্রিকেটে অংশগ্রহণকারী খেলোয়াড়ও এ শর্ত পালন করবে।[৭]

খেলার ধরণ[সম্পাদনা]

এ প্রতিযোগিতাটি দুই বছরের অধিক সময় ধরে চলবে। প্রত্যেক দলই অপর ছয়টি দলের বিপক্ষে টেস্ট সিরিজে অংশ নিবে। তিনটি স্ব-দেশে ও তিনটি প্রতিপক্ষের মাঠে মোট ছয়টি সিরিজ খেলবে। প্রত্যেক সিরিজই দুই থেকে পাঁচটি টেস্ট খেলার মধ্যে সীমাবদ্ধ থাকবে। তবে, দলগুলোকে একই সংখ্যক টেস্ট খেলার প্রয়োজন পড়বে না; কিন্তু একইসংখ্যক সিরিজ খেলতে হবে। লীগভিত্তিক সিরিজ খেলা শেষে সর্বাধিকসংখ্যক পয়েন্ট লাভকারী শীর্ষস্থানীয় দুই দল জুন, ২০২১ সালে ইংল্যান্ডে চূড়ান্ত খেলায় অবতীর্ণ হবে।[৮] প্রত্যেক খেলাই পাঁচদিনব্যাপী অনুষ্ঠিত হবে।

পয়েন্ট তালিকা[সম্পাদনা]

আইসিসির সিদ্ধান্ত অনুযায়ী প্রত্যেক সিরিজেই একই সংখ্যার পয়েন্ট বরাদ্দ রাখা হয়েছে। সিরিজের টেস্ট সংখ্যায় কোন প্রভাব ফেলবে না। ফলে, কোন দেশ কমসংখ্যায় টেস্ট খেললেও ক্ষতিগ্রস্ত হবে না। এছাড়াও, সিরিজের ফলাফলের উপর পয়েন্ট দেয়া হবে না। কেবলমাত্র খেলার ফলাফলেই পয়েন্ট দেয়া হবে। সিরিজের সকল খেলাতেই এ পয়েন্ট বিভাজিত হবে।[৯] পাঁচ খেলার সিরিজে প্রত্যেক খেলাতেই ২০% এবং দুই খেলার সিরিজের ক্ষেত্রে ৫০% পয়েন্ট প্রত্যেক খেলাতে দেয়া হবে।

প্রত্যেক সিরিজে সর্বাধিক ১২০ পয়েন্ট রাখা হয়েছে। পয়েন্ট বণ্টনপ্রণালী নিম্নে দেয়া হলো:

আইসিসি বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশীপের পয়েন্ট বণ্টনপ্রণালী[৯]
সিরিজে খেলার সংখ্যা জয়লাভের ক্ষেত্রে পয়েন্ট সংখ্যা টাইয়ের ক্ষেত্রে পয়েন্ট সংখ্যা ড্রয়ের ক্ষেত্রে পয়েন্ট সংখ্যা পরাজয়ের ক্ষেত্রে পয়েন্ট সংখ্যা
৬০ ৩০ ২০
৪০ ২০ ১৩
৩০ ১৫ ১০
২৪ ১২

অংশগ্রহণকারী দল[সম্পাদনা]

আইসিসির নয়টি পূর্ণাঙ্গ সদস্য এতে অংশ নিচ্ছে:

প্রত্যেক দলই আটটি সম্ভাব্য প্রতিপক্ষীয় দলের ছয়টির বিপক্ষে খেলবে। আইসিসি ঘোষণা করেছে যে, এ প্রতিযোগিতার প্রথম ও দ্বিতীয় আসরে ভারতপাকিস্তান দল একে-অপরের বিপক্ষে অংশগ্রহণ করা থেকে বিরত থাকবে।

আইসিসির নিম্নবর্ণিত তিনটি পূর্ণাঙ্গ সদস্য এ প্রতিযোগিতায় অংশ নিবে না:

আইসিসি র‍্যাঙ্কিংয়ে অবস্থানকারী তিনটি দেশ নিচেরসারিতে অবস্থান করছে। আইসিসি ফিউচার ট্যুরস প্রোগ্রামের আওতায় এ দলগুলো প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণকারী দলগুলোর বিপক্ষে খেলবে। আয়ারলান্ড ও আফগানিস্তান ১২টি করে এবং জিম্বাবুয়ে ২১ টেস্টে অংশ নিবে।[১০] তবে, এরফলে চ্যাম্পিয়নশীপের খেলায় এর কোন প্রভাব পড়বে না।[১১]

খেলার সময়সূচী[সম্পাদনা]

২০১৮-২০২৩ সালের ভবিষ্যৎ সফর পরিকল্পনার অংশ হিসেবে ২০ জুন, ২০১৮ তারিখে আইসিসি কর্তৃপক্ষ বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশীপের সময়সূচী ঘোষণা করে।[১২] এপ্রিল ও মে মাসে ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লীগের কোন খেলা অনুষ্ঠিত হবে না।

স্বাগতিক \ অতিথি
অস্ট্রেলিয়া  ১–২(৪) ৩–০(৩) ২–০(২)
বাংলাদেশ  বাতিল বাতিল ০–২(২)
ইংল্যান্ড  ২–২(৫) ১–০(৩) ২–১(৩)
ভারত  ২–০(২) ৩–১(৪) ৩–০(৩)
নিউজিল্যান্ড  ২–০(২) ২–০(২) ২–০(২)
পাকিস্তান  ১–০(১)* ২–০(২) ১–০(২)
দক্ষিণ আফ্রিকা  বাতিল ১–৩(৪) ২–০(২)
শ্রীলঙ্কা  ১–০(২) ০–২(২) ১–১(২)
ওয়েস্ট ইন্ডিজ  ০–২(২) ০–২(২) ০–০(২)
২১ জুন ২০২১ তারিখের ম্যাচ(সমূহ) খেলা শেষের পর হালনাগাদকৃত। উৎস: ICC Cricket
রং: নীল = স্বাগতিক দল বিজয়ী; হলুদ = ড্র; লাল = সফরকারী দল বিজয়ী।
  • * = পাকিস্তান বনাম বাংলাদেশ সিরিজে দুটি ম্যাচের মধ্যে একটি ম্যাচ কোভিড-১৯ এর প্রভাবে বাতিল করা হয়েছে ।
দল সর্বমোট খেলা খেলবে না
 অস্ট্রেলিয়া ১৯  শ্রীলঙ্কা ওয়েস্ট ইন্ডিজ
 বাংলাদেশ ১২  ইংল্যান্ড দক্ষিণ আফ্রিকা
 ইংল্যান্ড ২১  বাংলাদেশ নিউজিল্যান্ড
 ভারত ১৭  পাকিস্তান শ্রীলঙ্কা
 নিউজিল্যান্ড ১৩  ইংল্যান্ড দক্ষিণ আফ্রিকা
 পাকিস্তান ১৩  ভারত ওয়েস্ট ইন্ডিজ
 দক্ষিণ আফ্রিকা ১৬  বাংলাদেশ নিউজিল্যান্ড
 শ্রীলঙ্কা ১২  অস্ট্রেলিয়া ভারত
 ওয়েস্ট ইন্ডিজ ১৩  অস্ট্রেলিয়া পাকিস্তান

লীগ পর্ব[সম্পাদনা]

লীগের পয়েন্ট তালিকা[সম্পাদনা]

অব দল সিরিজ ম্যাচ পপ্র পয়েন্ট প.জ % উপ্ররা হার
খে হা ড্র খে হা ড্র টাই
 ভারত ১৭ ১২ ৭২০ ৫২০ ৭২.২% ১.৫৭৭
 নিউজিল্যান্ড ১১ ৬০০ ৪২০ ৭০.০% ১.২৮১
 অস্ট্রেলিয়া ১৪ ৪৮০ ৩৩২ [ক] ৬৯.২% ১.৩৯২
 ইংল্যান্ড ২১ ১১ ৭২০ ৪৪২ ৬১.৪% ১.১২০
 দক্ষিণ আফ্রিকা ১৩ ৬০০ ২৬৪ [খ] ৪৪.০% ০.৭৮৭
 পাকিস্তান ৫.৫ ১২ ৬৬০ ২৮৬ ৪৩.৩% ০.৮২২
 শ্রীলঙ্কা ১২ ৭২০ ২০০ ২৭.৮% ০.৭২৯
 ওয়েস্ট ইন্ডিজ ১৩ ৭২০ ১৯৪ [গ] ২৬.৯% ০.৬৬১
 বাংলাদেশ ৩.৫ ৪২০ ২০ ৪.৮% ০.৬০১
সর্বশেষ হালনাগাদ: ২৩ জুন ২০২১। সূত্র: আন্তর্জাতিক ক্রিকেট কাউন্সিল,[১৬] ইএসপিএন ক্রিকইনফো[১৭]
  1. ২৯ ডিসেম্বর ২০২০, ভারতের বিপরীতে ২য় টেস্টে স্লো ওভার রেটের কারণে অস্ট্রেলিয়াকে ৪ পয়েন্ট জরিমানা করা হয়।[১৩]
  2. ২৭ জানুয়ারি ২০২০, ইংল্যান্ডের বিপরীতে চতুর্থ টেস্টে দক্ষিণ আফ্রিকাকে স্লো-ওভার রেট এর কারণে ৬ পয়েন্ট জরিমানা করা হয়।[১৪]
  3. দক্ষিণ আফ্রিকার সঙ্গে ২২ জুন ২০২১ খেলার সময় ওয়েস্ট ইন্ডিজের স্লো-ওভার রেট এর কারণে ৬ পয়েন্ট জরিমানা করা হয়।[১৫]
  • শীর্ষে অবস্থানকারী দুটি দল অগ্রসর হবে ফাইনালে।
  • দলের অবস্থান নির্ধারিত হবে প্রতিযোগিতার মোট পয়েন্ট হতে অর্জিত পয়েন্টের শতকরা হারের ভিত্তিতে। যদি শতকরা হারে দুটি দলই সমমান অর্জন করে, তখন তাদের প্রতি উইকেটের জন্য প্রদত্ত রানের অনুপাতকে বিবেচনায় রাখা হবে। যদি সেখানও দলের অবস্থান সমান হয় তবে, উভয় দলের মধ্যে সর্বাধিক সিরিজ বিজয়ীকে অগ্রে বিবেচনা হবে এবং সবশেষে ৩০ এপ্রিল ২০২১ তারিখ পর্যন্ত দলীয় টেস্ট র‍্যাঙ্কিংকে বিবেচনা করা হবে।[১৮]
  • পূর্বের নিয়ম অনুযায়ী, দলের অবস্থান নির্ণয়ের কথা ছিল পয়েন্টের উপর ভিত্তি করে। যদি শীর্ষ দুই দলের পয়েন্ট সংখ্যা সমান হয়, তাহলে সর্বাধিক সিরিজ বিজয়ী দল শীর্ষে অবস্থান করবে। এরপরও যদি পয়েন্ট সংখ্যা সমান থাকে, তাহলে উইকেট প্রতি রান অনুপাতে শীর্ষ স্থান নির্ধারিত হবে। উইকেট প্রতি রানের অনুপাত হিসেব করতে রান সংগ্রহে উইকেট হারানো, ভাগ করা, উইকেট প্রতি রান দেয়া বিবেচনায় আনা হয়।[১৯]
    • পাকিস্তান বনাম বাংলাদেশ সিরিজ এর দুটি ম্যাচের মধ্যে একটি ম্যাচ বাতিল হওয়ার জন্য সিরিজ সংখ্যা অর্ধেক লেখা হয়েছে।

২০১৯[সম্পাদনা]

ইংল্যান্ড ব অস্ট্রেলিয়া[সম্পাদনা]

১–৫ আগস্ট, ২০১৯
স্কোরকার্ড
অস্ট্রেলিয়া 
২৮৪ (৮০.৪ ওভার)

৪৮৭/৭ডি. (১১২ ওভার)
 ইংল্যান্ড
৩৭৪ (১৩৫.৫ ওভার)

১৪৬ (৫২.৩ ওভার)
অস্ট্রেলিয়া ২৫১ রানে বিজয়ী
এজবাস্টন, বার্মিংহাম
পয়েন্ট : অস্ট্রেলিয়া ২৪, ইংল্যান্ড ০।
১৪–১৮ আগস্ট, ২০১৯
স্কোরকার্ড
ইংল্যান্ড 
২৫৮ (৭৭.১ ওভার)

২৫৮/৫ডি. (৭১ ওভার)
 অস্ট্রেলিয়া
২৫০ (৯৪.৩ ওভার)

১৫৪/৬ (৪৭.৩ ওভার)
ড্র
লর্ডস, লন্ডন
পয়েন্ট : অস্ট্রেলিয়া ৮, ইংল্যান্ড ৮।
২২–২৬ আগস্ট, ২০১৯
অস্ট্রেলিয়া 
১৭৯ (৫২.১ ওভার)

২৪৬ (৭৫.২ ওভার)
 ইংল্যান্ড
৬৭ (২৭.৫ ওভার)

৩৬২/৯ (১২৫.৪ ওভার)
ইংল্যান্ড ১ উইকেটে জয়ী
হেডিংলি, লিডস
পয়েন্ট : অস্ট্রেলিয়া ০, ইংল্যান্ড ২৪।
৪–৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৯
স্কোরকার্ড
অস্ট্রেলিয়া 
৪৯৭/৮ডি. (১২৬ ওভার)

১৮৬/৬ডি. (৪২.৫ ওভার)
 ইংল্যান্ড
৩০১ (১০৭ ওভার)

১৯৭ (৯১.৩ ওভার)
অস্ট্রেলিয়া ১৮৫ রানে জয়ী
ওল্ড ট্রাফোর্ড, ম্যানচেস্টার
পয়েন্ট : অস্ট্রেলিয়া ২৪, ইংল্যান্ড ০।
১২–১৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৯
স্কোরকার্ড
ইংল্যান্ড 
২৯৪ (৮৭.১ ওভার)

৩২৯ (৯৫.৩ ওভার)
 অস্ট্রেলিয়া
২২৫ (৬৮.৫ ওভার)

২৬৩ (৭৬.৫ ওভার)
ইংল্যান্ড ১৩৫ রানে জয়ী
দি ওভাল, লন্ডন
পয়েন্ট : ইংল্যান্ড ২৪, অস্ট্রেলিয়া ০।

শ্রীলঙ্কা ব নিউজিল্যান্ড[সম্পাদনা]

১৪ - ১৮ আগস্ট, ২০১৯
স্কোরকার্ড
নিউজিল্যান্ড 
২৪৯ (৮৩.২ ওভার)

২৮৫ (১০৬ ওভার)
 শ্রীলঙ্কা
২৬৭ (৯৩.২ ওভার)

২৬৮/৪ (৮৬.১ ওভার)
শ্রীলঙ্কা ৬ উইকেটে বিজয়ী
গালে আন্তর্জাতিক স্টেডিয়াম, গালে
পয়েন্ট : শ্রীলঙ্কা ৬০, নিউজিল্যান্ড ০।
২২-২৬ আগস্ট, ২০১৯
স্কোরকার্ড
শ্রীলঙ্কা 
২৪৪ (৯০.২ ওভার)

১২২ (৭০.২ ওভার)
 নিউজিল্যান্ড
৪৩১/৬ ডি (১১৫ ওভার)

ওয়েস্ট ইন্ডিজ ব ভারত[সম্পাদনা]

২২-২৬ আগস্ট, ২০১৯
স্কোরকার্ড
ভারত 
২৯৭ (৯৬.৪ ওভার)

৩৪৩/৭ ডি (১১২.৩ ওভার)
 ওয়েস্ট ইন্ডিজ
২২২ (৭৪.২ ও।আর)

১০০ (২৬.৫ ওভার)
৩০ আগস্ট - ৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৯
স্কোরকার্ড
ভারত 
৪১৬ (১৪০.১ ওভার)

১৬৮/৪ ডি (৫৪.৪ ওভার)
 ওয়েস্ট ইন্ডিজ
১১৭ (৪৭.১ ওভার)

২১০ (৫৯.৫ ওভার)
ভারত ২৫৭ রানে বিজয়ী
সাবিনা পার্ক, জ্যামাইকা
পয়েন্ট : ভারত ৬০, ওয়েস্ট ইন্ডিজ ০

২০১৯-২০[সম্পাদনা]

ভারত ব দক্ষিণ আফ্রিকা[সম্পাদনা]

২–৬ অক্টোবর ২০১৯
স্কোরকার্ড
ভারত 
৫০২/৭ ডি (১৩৬ ওভার)

৩২৩/৪ডি (৬৭ ওভার)
 দক্ষিণ আফ্রিকা
৪৩১ (১৩১.২ ওভার)

১৯১ (৬৩.৫ ওভার)
১০–১৪ অক্টোবর ২০১৯
স্কোরকার্ড
ভারত 
৬০১/৫ডি (১৫৬.৩ ওভার)
 দক্ষিণ আফ্রিকা
২৭৫ (১০৫.৪ ওভার)

১৮৯ (৬৭.২ ওভার) (ফ/অ)
১৯–২৩ অক্টোবর ২০১৯
স্কোরকার্ড
ভারত 
৪৯৭/৯ ডি (১১৬.৩ overs)
 দক্ষিণ আফ্রিকা
১৬২ (৫৬.২ ওভার)

১৩৩ (৪৮ ওভার) (ফ/অ)

ভারত ব বাংলাদেশ[সম্পাদনা]

১৪–১৮ নভেম্বর ২০১৯
Scorecard
বাংলাদেশ 
১৫০ (৫৮.৩ ওভার)

২১৩ (৬৯.২ ওভার)
 ভারত
৪৯৩/৬ডি (১১৪ ওভার)
২২–২৬ নভেম্বর ২০১৯
Scorecard
বাংলাদেশ 
১০৬ (৩০.৩ ওভার)

১৯৫ (৪১.১ ওভার)
 ভারত
৩৪৭/৯d (৮৯.৪ ওভার)

অস্ট্রেলিয়া ব পাকিস্তান[সম্পাদনা]

২১–২৫ নভেম্বর ২০১৯
অস্ট্রেলিয়া 
৫৮০ (১৫৭.৪ ওভার)
 পাকিস্তান
২৪০ (৮৬.২ ওভার)

৩৩৫ (৮৪.২ ওভার)
অস্ট্রেলিয়া একটি ইনিংসসহ ৫ রানে জয়ী
গাব্বা, ব্রিসবেন
পয়েন্ট : অস্ট্রেলিয়া ৬০, পাকিস্তান ০
২৯ নভেম্বর – ৩ ডিসেম্বর ২০১৯
Scorecard
অস্ট্রেলিয়া 
৫৮৯/৩ডি (১২৭ ওভার)
 পাকিস্তান
৩০২ (৯৪.২ ওভার)

২৩৯ (৮২ ওভার) (ফলো-অন)

পাকিস্তান ব শ্রীলঙ্কা[সম্পাদনা]

১১–১৫ ডিসেম্বর ২০১৯
Scorecard
 শ্রীলঙ্কা
৩০৮/৬ ডি.(৯৭ ওভার)
 পাকিস্তান
২৫২/২ (৭০ ওভার)
ড্র
রাওয়ালপিন্ডি ক্রিকেট স্টেডিয়াম,রাওয়ালপিন্ডি
পয়েন্ট : পাকিস্তান ২০, শ্রীলঙ্কা ২০
১৯–২৩ ডিসেম্বর ২০১৯
পাকিস্তান 
১৯১ (৫৯.৩ ওভার)

৫৫৫/৩ ডি. (১৩১ ওভার)
 শ্রীলঙ্কা
২৭১ (৮৫.৫ ওভার)

২১২ (৬২.৫ ওভার)
পাকিস্তান ২৬৩ রানে জয়ী
ন্যাশনাল স্টেডিয়াম, করাচী
পয়েন্ট : পাকিস্তান ৬০, শ্রীলঙ্কা ০

অস্ট্রেলিয়া ব নিউজিল্যান্ড[সম্পাদনা]

১২–১৬ ডিসেম্বর ২০১৯
(দিন/রাত)
Scorecard
অস্ট্রেলিয়া 
৪১৬ (১৪৬.২ ওভার)

৯/২১৭ডি (৬৯.১ ওভার)
 নিউজিল্যান্ড
১৬৬ (৫৫.২ ওভার)

১৭১ (৬৫.৩ ওভার)
অস্ট্রেলিয়া ২৯৬ রানে জয়ী
পার্থ স্টেডিয়াম, পার্থ
পয়েন্ট : অস্ট্রেলিয়া ৪০, নিউজিল্যান্ড ০
২৬–৩০ ডিসেম্বর ২০১৯
অস্ট্রেলিয়া 
৪৬২ (১১৫.১ ওভার)

৫/১৪৮ডি (৫৪.৫ ওভার)
 নিউজিল্যান্ড
১৩৭/৪ (৪৫ ওভার)

২৪০ (৭১ ওভার)
অস্ট্রেলিয়া ২৪৭ রানে জয়ী
মেলবোর্ন ক্রিকেট গ্রাউন্ড, মেলবোর্ন
পয়েন্ট : অস্ট্রেলিয়া ৪০, নিউজিল্যান্ড ০
৩–৭ জানুয়ারি ২০২০
অস্ট্রেলিয়া 
৪৫৪ (১৫০.১ ওভার)

২১৭/২ ডি. (৫২ ওভার)
 নিউজিল্যান্ড
২৫৬ (৯৫.৪ ওভার)

১৩৬ (৪৭.৫ ওভার)
অস্ট্রেলিয়া ২৭৯ রানে জয়ী
সিডনি ক্রিকেট গ্রাউন্ড, সিডনি
পয়েন্ট : অস্ট্রেলিয়া ৪০, নিউজিল্যান্ড ০

দক্ষিণ আফ্রিকা ব ইংল্যান্ড[সম্পাদনা]

২৬–৩০ ডিসেম্বর ২০১৯
বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশীপ
Scorecard
দক্ষিণ আফ্রিকা 
২৮৪ (৮৪.৩ ওভার)

২৭২ (৬১.৪ ওভার)
 ইংল্যান্ড
১৮১ (৫৩.২ ওভার)

২৬৮ (৯৩ ওভার)
৩–৭ জানুয়ারি ২০২০
বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশীপ
Scorecard
ইংল্যান্ড 
২৬৯ (৯১.৫ ওভার)

৩৯১/৮d (১১১ ওভার)
 দক্ষিণ আফ্রিকা
২২৩ (৮৯ ওভার)

২৪৮ (১৩৭.৪ ওভার)
১৬–২০ জানুয়ারি ২০২০
বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশীপ
Scorecard
দক্ষিণ আফ্রিকা 
৪৯৯/৯d (১৫২ ওভার)
 ইংল্যান্ড
২০৯ (৮৬.৪ ওভার)

২৩৭ (৮৮.৫ ওভার) (f/o)
২৪–২৮ জানুয়ারি ২০২০
বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশীপ
Scorecard
দক্ষিণ আফ্রিকা 
৪০০ (৯৮.২ ওভার)

২৪৮ (৬১.৩ ওভার)
 ইংল্যান্ড
১৮৩ (৬৮.৩ ওভার)

২৭৪ (৭৭.১ ওভার)

পাকিস্তান ব বাংলাদেশ[সম্পাদনা]

৭–১১ ফেব্রুয়ারি ২০২০
Scorecard
বাংলাদেশ 
২৩৩ (৮২.৫ ওভার)

১৬৮ (৬২.২ ওভার)
 পাকিস্তান
৪৪৫ (১২২.৫ ওভার)
পাকিস্তান এক ইনিংস সহ ৪৪ রানে জয়ী
রাওয়ালপিন্ডি ক্রিকেট স্টেডিয়াম, রাওয়ালপিন্ডি
পয়েন্ট : পাকিস্তান ৬০, বাংলাদেশ ০

নিউজিল্যান্ড ব ভারত[সম্পাদনা]

২১–২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২০
ভারত 
১৬৫ (৬৮.১ ওভার)

১৯১ (৮১ ওভার)
 নিউজিল্যান্ড
৩৪৮ (১০০.২ ওভার)

৯/০ (১.৪ ওভার)
নিউজিল্যান্ড ১০ উইকেটে জয়ী
বেসিন রিজার্ভ, ওয়েলিংটন
পয়েন্ট : নিউজিল্যান্ড ৬০, ভারত ০
২৯ ফেব্রুয়ারি-৪ মার্চ ২০২০
ভারত 
২৪২ (৬৩ ওভার)

১২৪ (৪৬ ওভার)
 নিউজিল্যান্ড
২৩৫ (৭৩.১ ওভার)

১৩২/৩ (৩৬ ওভার)
নিউজিল্যান্ড ৭ উইকেটে জয়ী
হ্যাগলে ওভাল, ক্রাইস্টচার্চ
পয়েন্ট : নিউজিল্যান্ড ৬০, ভারত ০

শ্রীলঙ্কা ব ইংল্যান্ড[সম্পাদনা]

১৪–১৮ জানুয়ারি ২০২১
শ্রীলঙ্কা 
১৩৫ (৪৬.১ ওভার)

৩৫৯ (১৩৬.৫ ওভার)
 ইংল্যান্ড
৪২১ (১১৭.১ ওভার)

৭৬/৩ (২৪.২ ওভার)
ইংল্যান্ড ৭ উইকেটে জয়ী
গালে আন্তর্জাতিক স্টেডিয়াম, গালে
পয়েন্ট : ইংল্যান্ড ৬০, শ্রীলঙ্কা ০
২২–২৬ জানুয়ারি ২০২১
শ্রীলঙ্কা 
৩৮১ (১৩৯.৩ ওভার)

১২৬ (৩৫.৫ ওভার)
 ইংল্যান্ড
৩৪৪ (১১৬.১ ওভার)

১৬৪/৪ (৪৩.৩ ওভার)
ইংল্যান্ড ৬ উইকেটে জয়ী
গালে আন্তর্জাতিক স্টেডিয়াম, গালে
পয়েন্ট : ইংল্যান্ড ৬০, শ্রীলঙ্কা ০

২০২০[সম্পাদনা]

বাংলাদেশ ব অস্ট্রেলিয়া[সম্পাদনা]

ইংল্যান্ড ব ওয়েস্ট ইন্ডিজ[সম্পাদনা]

৮–১২ জুন ২০২০
ইংল্যান্ড 
২০৪ (৬৭.৩ ওভার)

৩১৮ (১০২ ওভার)
 ওয়েস্ট ইন্ডিজ
৩১৩ (১১১.২ ওভার)

২০০/৬ (৬৪.২ ওভার)
ওয়েস্ট ইন্ডিজ ৪ উইকেটে জয়ী
রোজ বোল, সাউদাম্পটন
পয়েন্ট : ওয়েস্ট ইন্ডিজ ৪০, ইংল্যান্ড ০
১৬–২০ জুন ২০২০
ইংল্যান্ড 
৪৬৯/৯ডি. (১৬২ ওভার)

১২৯/৩ডি. (১৯ ওভার)
 ওয়েস্ট ইন্ডিজ
২৮৭ (৯৯ ওভার)

১২৯ (৩৭.১ ওভার)
ইংল্যান্ড ১১৩ রানে জয়ী
ওল্ড ট্রাফোর্ড, ম্যানচেস্টার
পয়েন্ট : ইংল্যান্ড ৪০, ওয়েস্ট ইন্ডিজ ০
২৪–২৮ জুন ২০২০
ইংল্যান্ড 
৩৬৯ (১১১.৫ ওভার)

২২৬/২ডি. (৫৮ ওভার)
 ওয়েস্ট ইন্ডিজ
১৯৭ (৬৫ ওভার)

১২৯ (৩৭.১ ওভার)
ইংল্যান্ড ২৬৯ রানে জয়ী
ওল্ড ট্রাফোর্ড, ম্যানচেস্টার
পয়েন্ট : ইংল্যান্ড ৪০, ওয়েস্ট ইন্ডিজ ০

ইংল্যান্ড ব পাকিস্তান[সম্পাদনা]

৫–৯ আগস্ট ২০২০
Scorecard
পাকিস্তান 
৩২৬ (১০৯.৩ ওভার)

১৬৯ (৪৬.৪ ওভার)
 ইংল্যান্ড
২১৯ (৭০.৩ ওভার)

২৭৭/৭ (৮২.১ ওভার)
ইংল্যান্ড ৩ উইকেটে জয়ী
ওল্ড ট্রাফোর্ড, ম্যানচেস্টার
পয়েন্ট : ইংল্যান্ড ৪০, পাকিস্তান ০
১৩–১৭ আগস্ট ২০২০
Scorecard
পাকিস্তান 
২৩৬ (৯১.২ ওভার)
 ইংল্যান্ড
১১০/৪ডি. (৪৩.১ ওভার)
২১–২৫ আগস্ট ২০২০
Scorecard
ইংল্যান্ড 
৫৮৩/৮ডি. (১৫৪.৪ ওভার)
 পাকিস্তান
২৭৩ (৯৩ ওভার)

১৮৭/৪ (৮৩.১ ওভার)
(ফ.অ. )

বাংলাদেশ ব নিউজিল্যান্ড[সম্পাদনা]

কোভিড-১৯ এর জন্য সিরিজ বাতিল ।

আগস্ট ২০২০
বাতিল
আগস্ট ২০২০
বাতিল

২০২০-২১[সম্পাদনা]

অস্ট্রেলিয়া ব ভারত[সম্পাদনা]

১৭–২১ ডিসেম্বর ২০২০
(দিন/রাত)
Scorecard
ভারত 
২৪৪ (৯৩.১ ওভার)

৩৬ (২১.২ ওভার)
 অস্ট্রেলিয়া
১৯১ (৭২.১ ওভার)

৯৩/২ (২১ ওভার)
অস্ট্রেলিয়া ৮ উইকেটে জয়ী
অ্যাডিলেড ওভাল, অ্যাডিলেড
পয়েন্ট : অস্ট্রেলিয়া ৩০, ভারত ০
২৬–৩০ ডিসেম্বর ২০২০
Scorecard

মেলবোর্ন ক্রিকেট গ্রাউন্ড, মেলবোর্ন
পয়েন্ট : অস্ট্রেলিয়া ০,ভারত ৩০
৭–১১ জানুয়ারি ২০২১
Scorecard

সিডনি ক্রিকেট গ্রাউন্ড, সিডনি
পয়েন্ট : অস্ট্রেলিয়া ১৩,ভারত ১৩
১৫–১৯ জানুয়ারি ২০২১
Scorecard

দ্য গাব্বা, ব্রিসবেন
পয়েন্ট : অস্ট্রেলিয়া ০, ভারত ৩০

নিউজিল্যান্ড ব ওয়েস্ট ইন্ডিজ[সম্পাদনা]

৩–৭ ডিসেম্বর ২০২০
নিউজিল্যান্ড 
৫১৯/৭ডি. (১৪৫ ওভার)
 ওয়েস্ট ইন্ডিজ
১৩৮ (৬৪ ওভার)

২৪৭ (৫৮.৫ ওভার) (ফ.অ)
নিউজিল্যান্ড একটি ইনিংস সহ ১৩৪ রানে জয়ী
সেডন পার্ক, হ্যামিলটন
পয়েন্ট : নিউজিল্যান্ড ৬০, ওয়েস্ট ইন্ডিজ ০
১১–১৫ ডিসেম্বর ২০২০
নিউজিল্যান্ড 
৪৬০ (১১৪ ওভার)
 ওয়েস্ট ইন্ডিজ
১৩১ (৫৬.৪ ওভার)

৩১৭ (৭৯.১ ওভার) (ফ.অ)
নিউজিল্যান্ড একটি ইনিংস সহ ১২ রানে জয়ী
বেসিন রিজার্ভ, ওয়েলিংটন
পয়েন্ট : নিউজিল্যান্ড ৬০, ওয়েস্ট ইন্ডিজ ০

নিউজিল্যান্ড ব পাকিস্তান[সম্পাদনা]

২৬–৩০ ডিসেম্বর ২০২০
নিউজিল্যান্ড 
৪৩১ (১৫৫ ওভার)

১৮০/৫ডি. (৪৫.৩ ওভার)
 পাকিস্তান
২৩৯ (১০২.২ ওভার)

২৭১ (১২৩.৩ ওভার)
নিউজিল্যান্ড ১০১ রানে জয়ী
বেয় ওভাল, মাউন্ট মাউঙ্গানুই
পয়েন্ট : নিউজিল্যান্ড ৬০, পাকিস্তান ০
৩–৭ জানুয়ারি ২০২১
পাকিস্তান 
২৯৭ (৮৩.৫ ওভার)

১৮৬ (৮১.৪ ওভার)
 নিউজিল্যান্ড
৬৫৯/৬ডি. (১৫৮.৫ ওভার)
নিউজিল্যান্ড এক ইনিংস সহ ১৭৬ রানে জয়ী
হ্যাগলে ওভাল, ক্রাইস্টচার্চ
পয়েন্ট : নিউজিল্যান্ড ৬০, পাকিস্তান ০

দক্ষিণ আফ্রিকা ব শ্রীলঙ্কা[সম্পাদনা]

২৬-৩০ ডিসেম্বর ২০২০
৩৯৬ (৯৬ ওভার)
৬২১ (১৪২.১ ওভার)
১৮০ (৪৬.১ ওভার)
দক্ষিণ আফ্রিকা এক ইনিংস সহ ৪৫ রানে জিতেছে
সুপারস্পোর্ট পার্ক,সেঞ্চুরিয়ন
ম্যাচসেরা: ফ্যাফ ডু প্লেসি
  • বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশীপ পয়েন্ট :- দক্ষিণ আফ্রিকা ৬০, শ্রীলঙ্কা ০
৩–৭ জানুয়ারী ২০২১
১৫৭ (৪০.৩ ওভার)
৩০২ (৭৫.৪ ওভার)
২১১ (৫৬.৫ ওভার)
৬৭/০ (১৩.২ ওভার)
দক্ষিণ আফ্রিকা ১০ উইকেটে জিতেছে
ওয়ান্ডারার্স স্টেডিয়াম,জোহানেসবার্গ
ম্যাচসেরা: ডিন এলগার
  • বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশীপ পয়েন্ট :- দক্ষিণ আফ্রিকা ৬০, শ্রীলঙ্কা ০

পাকিস্তান ব দক্ষিণ আফ্রিকা[সম্পাদনা]

২৬–৩০ জানুয়ারি ২০২১
Scorecard
দক্ষিণ আফ্রিকা 
২২০ (৬৯.২ ওভার)

২৪৫ (১০০.৩ ওভার)
 পাকিস্তান
৩৭৮ (১১৯.২ ওভার)

৯০/৩ (২২.৫ ওভার)
পাকিস্তান ৭ উইকেটে জয়ী
ন্যাশনাল স্টেডিয়াম, করাচী
পয়েন্ট : পাকিস্তান ৬০, দক্ষিণ আফ্রিকা ০
৪-৮ ফেব্রুয়ারি ২০২১
Scorecard
পাকিস্তান 
২৭২ (১১৪.৩ ওভার)

২৯৮ (১০২ ওভার)
 দক্ষিণ আফ্রিকা
২০১ (৬৫.৪ ওভার)

২৭৪ (৯১.৪ ওভার)
পাকিস্তান ৯৫ রানে জয়ী
রাওয়ালপিন্ডি ক্রিকেট স্টেডিয়াম, রাওয়ালপিন্ডি
পয়েন্ট : পাকিস্তান ৬০, দক্ষিণ আফ্রিকা ০

বাংলাদেশ ব ওয়েস্ট ইন্ডিজ[সম্পাদনা]

৩–৭ ফেব্রুয়ারী ২০২১
৪৩০ (১৫০.২ ওভার)
২৫৯ (৯৬.১ ওভার)
২২৩/৮ডি. (৬৭.৫ ওভার)
৩৯৫/৭ (১২৭.৩ ওভার)
  • টস জিতে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয় বাংলাদেশ।
  • ওয়েস্ট ইন্ডিজ টেস্টের চতুর্থ ইনিংসে পঞ্চম সর্বোচ্চতম রান তাড়া করতে এবং এশিয়ার সর্বোচ্চ সফল রান তাড়া করে।
বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশীপ পয়েন্ট:- ওয়েস্ট ইন্ডিজ ৬০, বাংলাদেশ ০
১১-১৫ ফেব্রুয়ারী ২০২১
৪০৯ (১৪২.২ ওভার)
২৯৬ (৯৬.৫ ওভার)
১১৭ (৫২.৫ ওভার)
২১৩ (৬১.৩ ওভার)
  • টস জিতে ব্যাট করতে নেমে ওয়েস্ট ইন্ডিজ
  • টেস্টে ১০০ উইকেট শিকারের ম্যাচের দিক থেকে মেহেদি হাসান দ্রুততম বাংলাদেশি বোলার হয়েছেন
বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশীপ পয়েন্ট:- ওয়েস্ট ইন্ডিজ ৬০, বাংলাদেশ ০

ভারত ব ইংল্যান্ড[সম্পাদনা]

প্রথম টেস্ট[সম্পাদনা]
৫-৯ ফেব্রুয়ারী ২০২১
৫৭৮ (১৯০.১ ওভার)
৩৩৭ (৯৫.৫ ওভার)
১৭৮ (৪৬.৩ ওভার)
১৯২ (৫৮.১ ওভার)
ইংল্যান্ড ২২৭ রানে জিতেছে
এম. এ. চিদাম্বরম স্টেডিয়াম,চেন্নাই
আম্পায়ার: নিতিন মেননঅনিল চৌধুরী (আম্পায়ার)
ম্যাচসেরা: জো রুট
  • টস জিতে ইংল্যান্ড ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়।
  • জো রুট টেস্টে নিজের 20 তম সেঞ্চুরি করেছিলেন এবং 100 তম টেস্টে ডাবল সেঞ্চুরি করা প্রথম ব্যাটসম্যান হয়েছিলেন।
বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশীপ পয়েন্ট:- ইংল্যান্ড ৩০, ভারত ০
দ্বিতীয় টেস্ট[সম্পাদনা]
১৩-১৭ ফেব্রুয়ারী ২০২১
৩২৯ (৯৫.৫ ওভার)
১৩৪ (৫৯.৫ ওভার)
২৮৬ (৮৫.৫ ওভার)
১৬৪ (৫৪.২ ওভার)
ভারত ৩১৭ রানে জিতেছে
এম. এ. চিদাম্বরম স্টেডিয়াম,চেন্নাই
আম্পায়ার: নিতিন মেনন ও বীরেন্দ্র শর্মা
ম্যাচসেরা: রবিচন্দ্রন অশ্বিন
  • টস জিতে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেয় ভারত
  • রবিচন্দ্রন অশ্বিন প্রথম ভারতীয় ক্রিকেটার যিনি পাঁচ উইকেট শিকার করেছেন এবং টেস্টে তিনবার সেঞ্চুরি করেছিলেন।
বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশীপ পয়েন্ট:- ভারত ৩০, ইংল্যান্ড ০
তৃতীয় টেস্ট[সম্পাদনা]
২৪-২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২১
১১২ (৪৮.৪ ওভার)
১৪৫ (৫৩.২ ওভার)
৮১ (৩০.৪ ওভার)
৪৯/০ (৭.৪ ওভার)
  • টস জিতে ইংল্যান্ড ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়
  • ১৯৩৫ সালের জানুয়ারির পর থেকে বল-বোলিংয়ের দিক থেকে এটি সংক্ষিপ্ততম টেস্ট ম্যাচ ছিল
বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশীপ পয়েন্ট:- ভারত ৩০, ইংল্যান্ড ০
চতুর্থ টেস্ট[সম্পাদনা]
৪-৮ মার্চ ২০২১
২০৫ (৭৫.৫ ওভার)
৩৬৫ (১১৪.৪ ওভার)
১৩৫ (৫৪.৫ ওভার)
ভারত এক ইনিংস সহ ২৫ রানে জিতেছে
নরেন্দ্র মোদী স্টেডিয়াম,আহমেদাবাদ
আম্পায়ার: নিতিন মেনন ও বীরেন্দ্র শর্মা
ম্যাচসেরা: ঋষভ পন্ত
  • টস জিতে ইংল্যান্ড ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়
  • ভারত লীগের শীর্ষ স্থানে পৌঁছায় এবং ফাইনাল খেলা নিশ্চিত করে।
বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশীপ পয়েন্ট:- ভারত ৩০, ইংল্যান্ড ০

দক্ষিণ আফ্রিকা ব অস্ট্রেলিয়া[সম্পাদনা]

কোভিড-১৯ এর প্রভাবে বাতিল করা হয়েছে ।

মার্চ ২০২১
বাতিল
মার্চ ২০২১
বাতিল
মার্চ ২০২১
বাতিল

ওয়েস্ট ইন্ডিজ ব শ্রীলঙ্কা (সোবার্সতিসেরা ট্রফি)[সম্পাদনা]

২১–২৫ মার্চ ২০২১
শ্রীলঙ্কা 
১৬৯ (৬৯.৪ ওভার)

৪৭৬ (১৪৯.৫ ওভার)
 ওয়েস্ট ইন্ডিজ
২৭১ (১০৩ ওভার)

২৩৬/৪ (১০০ ওভার)
ম্যাচ ড্র
স্যার ভিভিয়ান রিচার্ডস স্টেডিয়াম, অ্যান্টিগুয়া
পয়েন্ট : ওয়েস্ট ইন্ডিজ ২০, শ্রীলঙ্কা ২০
২৯ মার্চ-২ এপ্রিল ২০২১
ওয়েস্ট ইন্ডিজ 
৩৫৪ (১১১.১ ওভার)

২৮০/৪ডি. (৭২.৪ ওভার)
 শ্রীলঙ্কা
২৫৮ (১০৭ ওভার)

১৯৩/২ (৭৯ ওভার)
ম্যাচ ড্র
স্যার ভিভিয়ান রিচার্ডস স্টেডিয়াম, অ্যান্টিগুয়া
পয়েন্ট : ওয়েস্ট ইন্ডিজ ২০, শ্রীলঙ্কা ২০

ওয়েস্ট ইন্ডিজ ব দক্ষিণ আফ্রিকা[সম্পাদনা]

সিরিজটি প্রথমে কোভিড ১৯ এর জন্য বাতিল করা হলেও ২০২১ এর জুন মাসে ফাইনাল খেলার পাশাপাশি চালানোর সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় ।

১০–১৪ জুন ২০২১
Scorecard
ওয়েস্ট ইন্ডিজ 
৯৭ (৪০.৫ ওভার)

১৬২ (৬৪ ওভার)
 দক্ষিণ আফ্রিকা
৩২২ (৯৬.৫ ওভার)
দক্ষিণ আফ্রিকা এক ইনিংস সহ ৬৩ রানে জয়ী
ড্যারেন স্যামি ক্রিকেট স্টেডিয়াম, সেন্ট লুসিয়া
পয়েন্ট : দক্ষিণ আফ্রিকা ৬০, ওয়েস্ট ইন্ডিজ ০
১৮-২২ জুন ২০২১
Scorecard
দক্ষিণ আফ্রিকা 
২৯৮ (১১২.৪ ওভার)

১৭৪ (৫৩ ওভার)
 ওয়েস্ট ইন্ডিজ
১৪৯ (৫৪ ওভার)

১৬৫ (৫৮.৩ ওভার)
দক্ষিণ আফ্রিকা ১৫৮ রানে জয়ী
ড্যারেন স্যামি ক্রিকেট স্টেডিয়াম, সেন্ট লুসিয়া
পয়েন্ট : দক্ষিণ আফ্রিকা ৬০, ওয়েস্ট ইন্ডিজ ০

ফাইনাল[সম্পাদনা]

১৮-২৩ জুন, ২০২১
২১৭ (৯২.১ ওভার)
আজিঙ্কা রাহানে ৪৯ (১১৭)
কাইল জেমিসন ৫/৩১ (২২ ওভার)
২৪৯ (৯৯.২ ওভার)
ডেভন কনওয়ে ৫৪(১৫৩)
মহম্মদ শামি ৪/৭৬ (২৬ ওভার)
১৭০ (৭৩ ওভার)
ঋষভ পন্থ ৪১(৮৮)
টিম সাউদি ৪/৪৮ (১৯ ওভার)
১৪০/২ (৪৫.৫ ওভার)
কেন উইলিয়ামসন ৫২(৮৯)
রবিচন্দ্রন অশ্বিন ২/১৭ (১০ ওভার)
নিউজিল্যান্ড ৮ উইকেটে জয়ী
দি এজিয়াস বোল, সাউদাম্পটন
আম্পায়ার: রিচার্ড ইলিংওয়ার্থ(ইংল্যান্ড), মাইকেল গফ(ইংল্যান্ড), রিচার্ড কেটেলবরা(ইংল্যান্ড)[তৃতীয় আম্পায়ার]
ম্যাচসেরা: কাইল জেমিসন (নিউজিল্যান্ড)
  • নিউজিল্যান্ড টসে জিতে বল করার সিদ্ধান্ত নেয় ।
  • প্রথম দিন বৃষ্টির জন্য বাতিল হওয়ায় ২৩ শে জুন রিজার্ভ ডেট হিসেবে রাখা হয়েছে । চতুর্থ দিনও বৃষ্টির জন্য বাতিল ঘোষিত হয় ।
  • নিউজিল্যান্ড প্রথমবার কোনো আইসিসি ইভেন্টে চ্যাম্পিয়ন হয় এবং বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশীপ এর প্রথম চ্যাম্পিয়ন হিসেবে মর্যাদা লাভ করে । এই ম্যাচটি ছিল নিউজিল্যান্ডের বিখ্যাত উইকেট-কিপার বিজে ওয়াটলিংএর টেস্ট ক্যারিয়ার এর অন্তিম ম্যাচ ।

প্রথমে ফাইনাল লর্ড’স-এ হবার কথা ছিল। পরে ১০ মার্চ ২০২১ এ ঠিক করা হয় সাউদাম্পটনে অনুষ্ঠিত হবে।

পুরস্কারসমূহ[সম্পাদনা]

আন্তর্জাতিক ক্রিকেট কাউন্সিল ঘোষণা করে যে ইউএস$৩.৫ মিলিয়ন সমগ্র টুর্নামেন্টের জন্য মোট পুরস্কার । এই মোট পুরস্কারটি ভাগ করে দেওয়া হবে দলগুলির যোগ্যতার উপর ভিত্তি করে ।[২০]

চূড়ান্ত অবস্থান[সম্পাদনা]

অব. দল
 নিউজিল্যান্ড
 ভারত
 অস্ট্রেলিয়া
 ইংল্যান্ড
 দক্ষিণ আফ্রিকা
 পাকিস্তান
 শ্রীলঙ্কা
 ওয়েস্ট ইন্ডিজ
 বাংলাদেশ

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Test, ODI leagues approved by ICC Board"ESPNcricinfo। সংগ্রহের তারিখ ১৩ অক্টোবর ২০১৭ 
  2. "How will the Test championship be played?"ESPN Cricinfo। সংগ্রহের তারিখ ১৭ মে ২০১৮ 
  3. "Schedule for inaugural World Test Championship announced" 
  4. "Australia's new schedule features Afghanistan Test" 
  5. "FAQs - What happens if World Test Championship final ends in a draw or tie?"ESPN Cricinfo। সংগ্রহের তারিখ ২৯ জুলাই ২০১৯ 
  6. "ICC launches World Test Championship"International Cricket Council। সংগ্রহের তারিখ ২৯ জুলাই ২০১৯ 
  7. Neil Wagner - ICC World Test Championship Launch (ইংরেজি ভাষায়), সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০৮-০১ 
  8. Association, Press (১৩ অক্টোবর ২০১৭)। "ICC approves Test world championship and trial of four-day and matches"The Guardian (ইংরেজি ভাষায়)। আইএসএসএন 0261-3077। সংগ্রহের তারিখ ১৪ অক্টোবর ২০১৭ 
  9. "World Test Championship points system values match wins over series triumphs" 
  10. Ireland, Afghanistan and Zimbabwe, like the nine Championship participants will be able to add further fixtures outside the FTP including Test matches.
  11. Netherlands have also been included on the FTP as a one-day and T20 playing nation only.
  12. "Men's Future Tour Programme 2018-2023 released"International Cricket Council। ২০ জুন ২০১৮। সংগ্রহের তারিখ ২০ জুন ২০১৮ 
  13. "Australia fined for slow over-rate in second Test against India"International Cricket Council। ২৯ ডিসেম্বর ২০২০। সংগ্রহের তারিখ ২৯ ডিসেম্বর ২০২০ 
  14. "South Africa docked six WTC points, fined 60 percent of match fees for slow over-rate against England"ESPN Cricinfo। ২৮ জানুয়ারি ২০২০। সংগ্রহের তারিখ ২৭ জানুয়ারি ২০২০ 
  15. "West Indies fined for slow over-rate in second Test against South Africa"International Cricket Council। ২২ জুন ২০২১। সংগ্রহের তারিখ ২২ জুন ২০২১ 
  16. "World Test Championship (2019–2021) Points Table"International Cricket Council (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ৯ ফেব্রুয়ারি ২০২১ 
  17. "ICC World Test Championship 2019–2021 Table"ESPN Cricinfo। সংগ্রহের তারিখ ৯ ফেব্রুয়ারি ২০২১ 
  18. "World Test Championship Playing Conditions: Effective from 1 December 2020" (PDF)International Cricket Council। পৃষ্ঠা 3.40। সংগ্রহের তারিখ ৫ ফেব্রুয়ারি ২০২১ 
  19. "World Test Championship Playing Conditions: What's different?" (PDF)International Cricket Council। সংগ্রহের তারিখ ২ আগস্ট ২০১৯ 
  20. "Details of WTC prize money announced"International Cricket Council। সংগ্রহের তারিখ ১৪ জুন ২০২১ 

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

টেমপ্লেট:World championships in 2019 to 2021