ওয়ান্ডারার্স স্টেডিয়াম

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
ওয়ান্ডারার্স স্টেডিয়াম
The Wanderers 2.jpg
২০০৭ সালে ওয়ান্ডারার্স স্টেডিয়াম
স্টেডিয়ামের তথ্যাবলী
অবস্থানইলোভো, স্যান্ডটন, জোহানেসবার্গ
স্থানাঙ্ক২৬°৭′৫২.১৭″ দক্ষিণ ২৮°৩′২৬.৬৯″ পূর্ব / ২৬.১৩১১৫৮৩° দক্ষিণ ২৮.০৫৭৪১৩৯° পূর্ব / -26.1311583; 28.0574139স্থানাঙ্ক: ২৬°৭′৫২.১৭″ দক্ষিণ ২৮°৩′২৬.৬৯″ পূর্ব / ২৬.১৩১১৫৮৩° দক্ষিণ ২৮.০৫৭৪১৩৯° পূর্ব / -26.1311583; 28.0574139
ধারন ক্ষমতা৩৪,০০০[১]
প্রান্ত
কর্লেট ড্রাইভ প্রান্ত
গলফ কোর্স প্রান্ত
আন্তর্জাতিক তথ্যাবলী
প্রথম টেস্ট২৪–২৯ ডিসেম্বর ১৯৫৬: দক্ষিণ আফ্রিকা বনাম ইংল্যান্ড
শেষ টেস্ট৩-৭ জানুয়ারি ২০২১: দক্ষিণ আফ্রিকা বনাম শ্রীলঙ্কা
প্রথম ওডিআই১৩ ডিসেম্বর ১৯৯২: দক্ষিণ আফ্রিকা বনাম ভারত
শেষ ওডিআই৯ ফেব্রুয়ারি ২০২০: দক্ষিণ আফ্রিকা বনাম ইংল্যান্ড
১ম টি২০ আন্তর্জাতিক২১ অক্টোবর ২০০৫: দক্ষিণ আফ্রিকা বনাম নিউজিল্যান্ড
শেষ টি২০ আন্তর্জাতিক২১ ফেব্রুয়ারি ২০২০: দক্ষিণ আফ্রিকা বনাম অস্ট্রেলিয়া
ঘরোয়া দলের তথ্য
হাইভেল্ড লায়ন্স (১৯৫৬- বর্তমান)
৩ জানুয়ারি ২০২১ অনুযায়ী
উৎস: Cricinfo

ইম্পেরিয়াল ওয়ান্ডারার্স স্টেডিয়াম দক্ষিণ আফ্রিকার গুটেং প্রদেশের জোহানেসবার্গের ইলোভোতে অবস্থিত স্যান্ডটনের ঠিক দক্ষিণে অবস্থিত একটি স্টেডিয়াম। টেস্ট, ওয়ান ডে এবং প্রথম শ্রেণীর ক্রিকেট ম্যাচ এখানে অনুষ্ঠিত হয়। এটি এখন হাইভেল্ড লায়ন্সের নিজেদের ঘরের মাঠ হিসেবে ব্যবহার করা হয়।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

স্টেডিয়ামটিতে ৩৪,০০০ দর্শক আসন ক্ষমতা আছে। পুরনো ওয়ান্ডারার্স স্টেডিয়ামটি ১৯৫৬ সালে নির্মিত হয়। ১৯৯১ সালে দক্ষিণ আফ্রিকার আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে পুনরায় প্রবেশের পর এটি সম্পূর্ণরূপে সংস্কার করা হয়। ১৯৯৬ সালে, পাঁচটি নতুন ৬৫ মিটার উঁচু (২১৩ ফুট) ফ্লাডলাইট স্থাপন করা হয়। আগে থেকে চারটি ৩০ মিটার উঁচু (৯৮ ফুট) মাস্তুল দিবা-রাত্রির সীমিত ওভারের ক্রিকেট ম্যাচে সক্ষম।

২০০৪ সালের ১ অক্টোবর, ওয়ান্ডার্স ক্লাবহাউস আগুনে ধ্বংস হয়ে যায়। এই পর্যায়ে এটি লিবার্টি লাইফ ওয়ান্ডারার্স হিসাবে পরিচিত ছিল, তবে ২০০৮/০৯ মৌসুম থেকে মাঠের পৃষ্ঠপোষকতা গ্রহণ করেছিল। এইভাবে বিডভেস্ট গ্রুপটি এটি ২০১৯ সালের সেপ্টেম্বর মাসের পর বিডভেস্ট ওয়ান্ডারার্স স্টেডিয়াম নামে পরিচিত হয়ে ওঠে।

৪ অক্টোবর, ২০১৯ তারিখে ওয়ান্ডারার্স স্টেডিয়াম ইম্পেরিয়াল লজিস্টিকসের সাথে একটি নতুন নামকরণ অধিকার চুক্তির ঘোষণা করে। স্টেডিয়াম এখন ইম্পেরিয়াল ওয়ান্ডারার্স স্টেডিয়াম হিসাবে পরিচিত।

ম্যাচ আয়োজন[সম্পাদনা]

স্টেডিয়ামটি এছাড়াও ২০০৯ ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লীগের দ্বিতীয় সেমিফাইনাল এবং ফাইনাল আয়োজন করে। ফাইনালে ডেকান চার্জার্স রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালোরকে পরাজিত করে শিরোপা দখল করে।

এছাড়াও ওয়ান্ডারার্স স্টেডিয়ামে ১৯৮০ সালের এপ্রিল মাসে দক্ষিণ আফ্রিকা এবং দক্ষিণ আমেরিকান জাগুয়ার মধ্যে একটি রাগবি ইউনিয়নের ম্যাচ আয়োজন করা হয়। [২]

অন্যান্য[সম্পাদনা]

একবিংশ শতাব্দীর সবচেয়ে ঐতিহাসিকভাবে গুরুত্বপূর্ণ ক্রিকেট মাঠগুলির মধ্যে অন্যতম। এ মাঠে ওয়ানডে এবং টি-টোয়েন্টির ইতিহাসের কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচ আয়োজন করা হয়েছে।

২০০৩ ক্রিকেট বিশ্বকাপের ফাইনাল ম্যাচ ওয়ান্ডারার্স স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত হয়েছিল। এই স্টেডিয়ামটি দক্ষিণ আফ্রিকা এবং অস্ট্রেলিয়ার মধ্যে খেলা সর্বকালের অন্যতম সেরা ওয়ানডে ম্যাচও অনুষ্ঠিত হয়েছিল, যেখানে দক্ষিণ আফ্রিকা বিশ্ব রেকর্ড ৪৩৪ রান তাড়া করে ম্যাচ জিতেছিল।

১৮ জানুয়ারি, ২০১৫ তারিখে ওয়ান্ডারার্স স্টেডিয়ামে দক্ষিণ আফ্রিকার এবি ডি ভিলিয়ার্স দ্রুততম ওয়ানডে অর্ধ-শতকের জন্য ১৯ বছরের পুরনো রেকর্ড ভেঙ্গে ফেলেন। ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে মাত্র ১৬ বলে অর্ধ-শতক তুলে নেয়ার মাধ্যমে শ্রীলঙ্কার জয়সুরিয়াকে পেছনে ফেলে দেন। একই ম্যাচে, মাত্র ৩১ বলে সেঞ্চুরি তুলে নেয়ার মাধ্যমে কোরি অ্যান্ডারসনের দ্রুততম ওয়ানডে সেঞ্চুরির রেকর্ডটিও ভেঙে দিয়েছেন। অবশেষে তিনি ৩৩৮.৬৩ এর স্ট্রাইক রেটে ৪৪ বলে ১৪৯ রান করেছিলেন।[৩]

২১ ফেব্রুয়ারি ২০১৬ সালে, এ বি ডি ভিলিয়ার্স ইংল্যান্ডের বিপক্ষে টি-টোয়েন্টিতে দক্ষিণ আফ্রিকার হয়ে দ্রুততম অর্ধ-শতক (২১ বল) করেছিলেন। [৪]

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

  • টেস্ট ক্রিকেট মাঠগুলির তালিকা
  • ওয়ান্ডারার্স স্টেডিয়ামে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট সেঞ্চুরির তালিকা
  • ওয়ান্ডারার্স স্টেডিয়ামে আন্তর্জাতিক পাঁচ উইকেটের তালিকার তালিকা

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "www.wanderers.co.za"। ১৮ জানুয়ারি ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১ এপ্রিল ২০২১ 
  2. Michael Owen-Smith (১৯৯০)। Test Match Grounds of the World। Willow Books। পৃষ্ঠা 186। আইএসবিএন 0002182823 
  3. "South Africa vs West Indies 2nd ODI 2015"। ESPNcricinfo। সংগ্রহের তারিখ ১৮ জানুয়ারি ২০১৫ 
  4. "Dominant SA cruise to nine-wicket win"ESPNcricinfo। ২১ ফেব্রুয়ারি ২০১৬। সংগ্রহের তারিখ ২১ ফেব্রুয়ারি ২০১৬ 

 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]

ইভেন্ট এবং ভাড়াটে
পূর্বসূরী
লর্ডস
ক্রিকেট বিশ্বকাপ
ফাইনালের আয়োজক

২০০৩
উত্তরসূরী
কেনসিংটন ওভাল