ব্যান্ডেল

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
ব্যান্ডেল
কলকাতা মহানগর অঞ্চল
ব্যান্ডেল পশ্চিমবঙ্গ-এ অবস্থিত
ব্যান্ডেল
ব্যান্ডেল
ব্যান্ডেল ভারত-এ অবস্থিত
ব্যান্ডেল
ব্যান্ডেল
ভারতের পশ্চিমবঙ্গে অবস্থান
স্থানাঙ্ক: ২২°৫৫′২২″ উত্তর ৮৮°২২′৪৬″ পূর্ব / ২২.৯২২৭৪৩° উত্তর ৮৮.৩৭৯৫৪২° পূর্ব / 22.922743; 88.379542স্থানাঙ্ক: ২২°৫৫′২২″ উত্তর ৮৮°২২′৪৬″ পূর্ব / ২২.৯২২৭৪৩° উত্তর ৮৮.৩৭৯৫৪২° পূর্ব / 22.922743; 88.379542
রাষ্ট্র ভারত
রাজ্যপশ্চিমবঙ্গ
জেলাহুগলী
অঞ্চল/মহানগরবৃহত্তর কলকাতা
সরকার
 • ধরনপ্রতিনিধিত্ত গণতন্ত্র
 • শাসকহুগলী চুঁচুড়া পৌরসভা
আয়তন
 • মোট১৭.২৯ কিমি (৬.৬৮ বর্গমাইল)
উচ্চতা১৬ মিটার (৫২ ফুট)
জনসংখ্যা
 • মোট১,৭৭,৮৩৩
 • জনঘনত্ব১০০০০/কিমি (২৭০০০/বর্গমাইল)
ভাষা
 • দাপ্তরিকবাংলা, ইংরেজি
সময় অঞ্চলআইএসটি (ইউটিসি+৫:৩০)
পিন৭১১২২৩, ৭১২১০৩, ৭১২১০৪
টেলিফোন কোড+৯১ ৩৩ ২৬২১-xxxx, ২৬৮৬-xxxx, এসটিডি কোড-০৩৩
আইএসও ৩১৬৬ কোডআইএন-ডব্লিউবি
লোকসভা কেন্দ্রহুগলী
বিধানসভা কেন্দ্রচুঁচুড়া-১৯০
ওয়েবসাইটhooghly.nic.in

ব্যান্ডেল পশ্চিমবঙ্গের রাজ্যের হুগলী জেলার চুঁচুড়া মহকুমার অন্তর্গত হুগলী চুঁচুড়া পৌরসভার একটি এলাকা। এখানে পর্তুগীজ উপনিবেশীকদের দ্বারা বসতি স্থাপিত হয় এবং এটি চন্দননগর পুলিশ কমিশনারের আওতাভুক্ত এলাকায় অবস্থিত। এটি কলকাতা মহানগর উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (কেএমডিএ) দ্বারা আচ্ছাদিত এলাকা মধ্যে রয়েছে।[১] ব্যান্ডেল রেলওয়ে জংশন পূর্ব রেল জোনের একটি প্রধান রেল জংশন স্টেশন, এটি হাওড়া স্টেশন থেকে ৪০ কিলোমিটার উত্তরে অবস্থিত।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

ব্যান্ডেল বেসিলিকা

আগে, ব্যান্ডেল একটি পর্তুগিজ বসতি ছিল। পর্তুগিজরা ১৬৬০ খ্রিষ্টাব্দে চার্চ এবং মঠ নির্মান করে। 'ব্যান্ডেল' একটি পর্তুগিজ শব্দ থেকে উদ্ভূত হয়েছে যার অর্থ 'জাহাজের মাস্তুল'। ব্যান্ডেল চার্চ পশ্চিমবঙ্গ প্রাচীনতম খ্রিস্টীয় গির্জা এবং একটি চমৎকার পর্যটন আকর্ষণ হয়। এটি নোস সেনহোড়া দা রোসারিওকে উত্সর্গীকৃত, যা "নোস সেনহোড়া দা বোয়া ভিয়াজম" নামেও পরিচিত, যার অর্থ "আওয়ার লেডি অফ দ্য গুড জার্নি"। ১৫৯৯ খ্রিষ্টাব্দে পুরোনো গির্জাটির মূল পাথরটি মঠের নদীপার্শবর্তী প্রবেশদ্বারে স্থাপিত হয়েছিল।

সনাতন ধর্মীয় সংস্কৃতি:-

কিছুকাল পূর্বে ব্যান্ডেলের অদূরে রাজহাট গ্রামে একটি মন্দির স্থাপিত হয়েছে । মন্দিরটির নাম "লাহিড়ী বাবার মন্দির" । প্রতিদিন বহু মানুষের সমাগম হয় এই মন্দির প্রাঙ্গণে ।

ভৌগলিক অবস্থান[সম্পাদনা]

ব্যান্ডেল ২২°৫৫'২২" উত্তর থেকে ৮৮°২২'৪৬" পূর্বে [২] অবস্থিত এবং এটি সমুদ্র পৃষ্ঠ থেকে ১৬ মিটার উচ্চতায় অবস্থিত। ব্যান্ডেলের প্রধান নদী গঙ্গা। শহরটি গাঙ্গেয় সমভূমিতে অবস্থিত।

জলবায়ু[সম্পাদনা]

শহরটির জলবায়ু প্রকৃতি পশ্চিমবঙ্গের গঙ্গা বদ্বীপের মত গ্রীষ্মমন্ডলীয় ও শুষ্ক। দীর্ঘায়িত গরম এবং আর্দ্র আবহাওয়া হল ব্যান্ডেলের জলবায়ুর প্রধান বৈশিষ্ট্য। বর্ষাকাল প্রারম্ভিক জুন থেকে মধ্য-সেপ্টেম্বর পর্যন্ত থাকে। শীতকাল প্রায় তিন মাস ধরে চলছে, মধ্য নভেম্বর থেকে মধ্য ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত। গ্রীষ্মের সময় আবহাওয়া আদ্র এবং শীতকালে শুষ্ক।

অর্থনীতি[সম্পাদনা]

ডানলফ ফ্যাক্টরী
ব্যান্ডেলের কাছে সাহাগঞ্জের বিখ্যাত ডানলপ কারখানা অবস্থিত। যাইহোক, কারখানাটি তার প্রশাসনের কিছু সমস্যা কারণে বন্ধ করা হয়েছে।
বিটিপিএস
১৯৬৫ সালে ৮২.৫ মেগাওয়াট ক্ষমতার সাথে ব্যান্ডেল তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্র চালু করা হয়েছিল। এটি এখন পর্যন্ত প্রসারিত হয়েছে এবং বর্তমানে ৫৩০ মেগাওয়াটের একটি নির্দিষ্ট বিদ্যুৎ উৎপাদন ক্ষমতা রয়েছে। এটি পশ্চিমবঙ্গ বিদ্যুৎ উন্নয়ন কর্পোরেশন (ডব্লিউবিপিডিএলএল)-এর অধীনে পরিচালিত হয়। [5] একটি পুরনো পঞ্চায়েল স্টিল কারখানা কেনা এবং একটি ওয়াগন কারখানা জুপিটার ওয়াগন লিমিটেড স্থাপন করা হয়েছিল।
বেকারি
ব্যান্ডেল অনেক বেকারি শিল্পের ভিত্তি।
ব্যান্ডেল বাজার
ব্যান্ডেল বাজার হুগলী জেলার সবচেয়ে বড় এবং গুরুত্বপূর্ণ বাজারে অন্যতম। এটা কৃষি পণ্য আমদানী ও রপ্তানিকারক কেন্দ্র। বাজার থেকে শাকসব্জী, ফল (বিশেষ করে আম, তরমুজ) এবং চাল রপ্তানি হয়।
ব্যাংক
ব্যন্ডেলে এলাহাবাদ ব্যাংক, এক্সস ব্যাংক, বন্ধন ব্যাংক, ব্যাংক অফ বারোদা, ক্যানার ব্যাংক, সেন্ট্রাল ব্যাঙ্ক অফ ইন্ডিয়া, পাঞ্জাব ও সিন্ধু ব্যাংক, ভারতীয় স্টেট ব্যাঙ্ক, ইউকো ব্যাংক এবং ইউনাইটেড ব্যাংকের শাখা রয়েছে।
জুপিটার ওয়াগন লিমিটেড
জুপিটার, একটি প্রকৌশল কোম্পানী যা ড্রেড ওয়াগন, বোগি এবং সিএমএস ক্রসিংসের মতো রেললাইন ভিত্তিক পণ্য উৎপাদন করে, সেটি "ব্যান্ডেল আইটিআই"-এর সামনে অবস্থিত।

পরিবহন[সম্পাদনা]

১) সড়ক পরিবহন :-

বিশ্বের দীর্ঘতম রোড গ্রান্ড ট্রাঙ্ক রোড এই ব্যান্ডেল শহরের উপর দিয়ে গেছে । যার ফলে সড়ক পরিবহন কায়িক শ্রমসাধ্য ও অত্যন্ত সুবিধাজনক । সমস্ত রকম সড়কযান রোডটির উপর দিয়ে চলে । প্রত্যেক দিন অসংখ্য যাত্রী ও পণ্য পরিবহণ করায় জিটি রোডের ভূমিকা অতুলনীয় ।

২) রেল পরিবহন :-

ভারতের অন্যতম প্রাচীন রেলপথ হল হাওড়া বর্ধমান রেলপথ যার একটি অঙ্গ হল ব্যান্ডেল রেলওয়ে স্টেশন । ব্যান্ডেল মূলত একটি জংশন স্টেশন যেখান থেকে ব্যান্ডেল-শিয়ালদহ লাইন ও ব্যান্ডেল-কাটোয়া লাইন ভাগ হয়ে গেছে । ভারতের অন্যতম ব্যস্ত এই স্টেশনে তাই অসংখ্য যাত্রী ও পণ্য দূরদূরান্ত থেকে পরিবাহিত হয় যা যোগাযোগের অসীম সুবিধা করে দিয়েছে ।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "District-wise list of statutory towns"। ২১ জুলাই ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৭ আগস্ট ২০১৮ 
  2. "Yahoo maps"। সংগ্রহের তারিখ ২০০৯-০৪-০২ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]