হরিপাল

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
হরিপাল
গ্রাম
হরিপাল পশ্চিমবঙ্গ-এ অবস্থিত
হরিপাল
হরিপাল
হরিপাল ভারত-এ অবস্থিত
হরিপাল
হরিপাল
ভারতের পশ্চিমবঙ্গে অবস্থান
স্থানাঙ্ক: ২২°৪৯′৫৩″ উত্তর ৮৮°৭′৭″ পূর্ব / ২২.৮৩১৩৯° উত্তর ৮৮.১১৮৬১° পূর্ব / 22.83139; 88.11861স্থানাঙ্ক: ২২°৪৯′৫৩″ উত্তর ৮৮°৭′৭″ পূর্ব / ২২.৮৩১৩৯° উত্তর ৮৮.১১৮৬১° পূর্ব / 22.83139; 88.11861
দেশ ভারত
রাজ্যপশ্চিমবঙ্গ
জেলাহুগলি
সরকার
 • ধরনপঞ্চায়েত রাজ (ভারত)
 • শাসকগ্রাম পঞ্চায়েত
জনসংখ্যা (২০১১)
 • মোট৩,৩৯৫
ভাষা
 • দাপ্তরিকবাংলা, ইংরেজি, নেপালি
সময় অঞ্চলআইএসটি (ইউটিসি+৫:৩০)
আইএসও ৩১৬৬ কোডIN-WB
যানবাহন নিবন্ধনWB
ওয়েবসাইটwb.gov.in

হরিপাল ভারতের পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের হুগলির হরিপাল সমষ্টি উন্নয়ন ব্লক-এর চন্দননগর মহকুমার একটি গ্রাম।

ভূগোল ও জনসংখ্যা[সম্পাদনা]

হরিপাল গ্রাম ভারতের হুগলি জেলায় অবস্থিত। এটি ২২°৪৯'৫৩″ পূর্ব দ্রাঘিমাংশ এবং ৮৮°৭'৭″ উত্তর অক্ষাংশে অবস্থিত।[১]

২০১১ ভারতের জনগণনা অনুসারে হরিপালের মোট জনসংখ্যা ছিল ৩,৩৩৯ জন যার মধ্যে ১,৭১৭ (৫১%) পুরুষ এবং ১,৬৭৮ (৪৯%) মহিলা ছিলেন। ছয় বছরের নিচের জনসংখ্যা ছিল ২৯৪ জন। হরিপালে মোট সাক্ষরতার সংখ্যা ২,৭০৪ (ছয় বছরের ওপর জনসংখ্যা ৮৭.২০%) ছিল।[২] গ্রামের মানুষেরা বাংলা ও ইংরেজি ভাষায় কথা বলে।

প্রশাসনিক বিন্যাস[সম্পাদনা]

প্রশাসনিকভাবে এই গ্রামটি হরিপাল থানার অন্তর্গত। ২০১১ ভারতের জনগণনা অনুসারে স্বতন্ত্র পরিচয়সহ কয়েকটি গ্রাম রয়েছে, যেমন চান্দিনগর (১,৬০১), রঘুবাতি (১,০৪৭), আমিনপুর (১,৪৫৪), খামার চণ্ডী (৩,৩২০) এবং গোপিনগর (৪,৫১২)। কার্যত এই গ্রামগুলি হরিপালের অংশ হয়ে গেছে।[২] এটি গ্রাম পঞ্চায়েত সমিতি দ্বারা শাসিত হয় এবং হরিপাল সিডি ব্লকের সদর দপ্তর খামারচণ্ডিতে অবস্থিত।[৩]

অর্থনীতি[সম্পাদনা]

নগরীর চারপাশ থেকে প্রায় ৩২ লক্ষ মানুষকে কাজের সন্ধানে কলকাতায় যাতায়াত করতে হয়। হাওড়া-তারকেশ্বর বিভাগে ৪৮টি ট্রেন রয়েছে যা ২১টি রেল স্টেশন থেকে যাত্রী বহন করে থাকে।[৪]

শিক্ষা ও স্বাস্থ্য[সম্পাদনা]

১৯৬৬ সালে হরিপালে প্রখ্যাত স্বাধীনতা সংগ্রামী ধরনাথ ভট্টাচার্য প্রতিষ্ঠা করেন বিবেকানন্দ মহাবিদ্যালয়। এটি একটি ডিগ্রি কলেজ ও বর্ধমান বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত। এখানে বাংলা, ইংরেজি, সংস্কৃত, ইতিহাস, রাষ্ট্রবিজ্ঞান, দর্শন, ভূগোলের গণিত, পদার্থবিজ্ঞান, কম্পিউটার বিজ্ঞান, পুষ্টি, প্রাণিবিদ্যা, উদ্ভিদবিজ্ঞান এবং গণিতকবিদ্যা পড়ানো হয়ে থাকে। বাংলা এবং ইংরেজি ভাষার মাধ্যমে শিক্ষাদান করা হয়।[৫][৬]

সংস্কৃতি[সম্পাদনা]

১১২৬ সালে প্রতিষ্ঠিত দ্বারহাট্টার দ্বারিকা চান্দি মন্দিরটি স্থাপিত হয়েছিল। বছরের পর বছর ধরে এটি ক্ষতিগ্রস্থ হওয়ায় এটি পুনরায় পুরোপুরি সংস্কার করা হয়েছিল। কার্যত সমস্ত পোড়ামাটির সজ্জা বিলীন হয়ে গেছে। দ্বারহাট্টা হরিপাল পোস্ট অফিস এলাকায় এবং হরিপাল-জঙ্গিপাড়া রোডে অবস্থিত।

ডেভিড জে ম্যাকচ্যাশন, যিনি হিন্দু পোড়ামাটির এবং বাংলার মন্দিরের অধ্যয়নের ক্ষেত্রে প্রধান অবদান রেখেছিলেন এবং ইংরেজিতে ভারতীয় লেখার ক্ষেত্রে প্রথম কয়েকজন পণ্ডিতদের মধ্যে একজন ছিলেন। তিনি দ্বারহাট্টা এবং হরিপালের কয়েকটি মন্দিরেরও বর্ণনা করেছেন।[৭] তিনি বলেছেন দ্বারহাট্টা ও হরিপালে সরু চূড়া সঙ্গে পঞ্চরত্ন মন্দিরের বিরল উদাহরণ, হরিপালের রাধা-গোবিন্দ মন্দির (১৬৫৪) একটি আটচালা মন্দির। ১৭২৮ সালে, তৈরি দ্বারহাট্টায় রাজা-রাজেশ্বর মন্দির। হরিপালের ছোট শিব মন্দিরটি পঞ্চরত্ন রেখা দেউল যার সাথে লম্বা বারান্দা রয়েছে। দ্বারহাট্টা ও হরিপালে পঞ্চরত্ন মন্দিরগুলি সম্পূর্ণ চিত্রগুলিতে সজ্জিত রয়েছে। রাধা-গোবিন্দের স্নান-মন্দিরের হালকা সজ্জা রয়েছে।

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Haripal station, Hooghly"Hooghly district। Wikimapia। সংগ্রহের তারিখ ১২ জুন ২০১৬ 
  2. "C.D. Block Wise Primary Census Abstract Data(PCA)"2011 census: West Bengal – District-wise CD Blocks। Registrar General and Census Commissioner, India। সংগ্রহের তারিখ ১০ জুন ২০১৬ 
  3. "District Census Handbook: Hugli, Series-20, Part XIIA" (PDF)Map of Hooghly district with CD Block HQs and Police Stations (on the fifth page)। Directorate of Census Operations, West Bengal, 2011। সংগ্রহের তারিখ ২০ জুন ২০১৭ 
  4. Dey, Teesta। "The Suburban Railway Network of Kolkata: A Geographical Apprisal" (PDF)। eTraverse, the Indian journal of spatial science, 2012। ১৮ নভেম্বর ২০১৭ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৮ অক্টোবর ২০১৮ 
  5. "Vivekananda Mahavidyalaya, Haripal"। VMH। ১ জুলাই ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩০ জুন ২০১৭ 
  6. "Vivekananda Mahavidyalaya"। College Admission। সংগ্রহের তারিখ ৩০ জুন ২০১৭ 
  7. McCutchion, David J., Late Mediaeval Temples of Bengal, first published 1972, reprinted 2017, pages 15, 33 & 73, 34-35, 44, 48, 75. The Asiatic Society, Kolkata, আইএসবিএন ৯৭৮-৯৩-৮১৫৭৪-৬৫-২

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]