হাওড়া–বর্ধমান কর্ড

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
(হাওড়া-বর্ধমান কর্ড থেকে পুনর্নির্দেশিত)
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
হাওড়া–বর্ধমান কর্ড
সংক্ষিপ্ত বিবরণ
শৃঙ্খলাংশকলকাতা শহরতলি রেল
অবস্থাচালু (সক্রিয়)
সেবাগ্রহণকারী অঞ্চলপশ্চিমবঙ্গ
বিরতিস্থলহাওড়া জংশন রেলওয়ে স্টেশন
বর্ধমান জংশন রেল স্টেশন
বিরতিস্থলসমূহ২৭
ক্রিয়াকলাপ
উদ্বোধনের তারিখ১৯১৭
মালিকভারতীয় রেল
পরিচালনাকারীপূর্ব রেল
প্রযুক্তিগত
রেললাইনের মোট দৈর্ঘ্য৯৫ কিমি (৫৯ মা)
ট্র্যাক গেজ১,৬৭৬ mm (5 ft 6 in) ব্রড গেজ
বৈদ্যুতিকরণ১৯৬৪-৬৫
চালন গতিসর্বোচ্চ ১৬০ কিমি/ ঘন্টা

হাওড়া–বর্ধমান কর্ড হাওড়া ও বর্ধমানকে যুক্ত করে একটি ব্রড গেজ রেললাইন। পশ্চিমবঙ্গের হাওড়া, হুগলি ও পুরানা বর্ধমান জেলার ৯৫ কিলোমিটার দীর্ঘ (৫৯ মাইল) রেললাইন পরিচালনা করে। এটি হাওড়া–গয়া–দিল্লি লাইন, হাওড়া–এলাহাবাদ–মুম্বাই লাইন এবং কলকাতা শহরতলির রেলপথের অংশ।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

হাওড়া-বর্ধমান কর্ড, হাওড়া-বর্ধমান মেন লাইনের চেয়ে হাওড়া থেকে বর্ধমানের মধ্যে একটি ছোট লাইন, ১৯১৭ সালে নির্মিত হয়েছিল। [১]

১৯৩২ সালে কলকাতা কর্ড লাইন দ্বারা ডানকুনির সাথে দমদমকে যুক্ত করতে উইলিংডন ব্রিজ (বিবেকানন্দ সেতু) এর উপর নির্মিত হয়েছিল।

২০০৩ সালের ডিসেম্বরে হাওড়া-বর্ধমান কর্ড লাইনের ধানিখালী স্টেশনটি যোগ করা হয়। [২]

বৈদ্যুতিকরন[সম্পাদনা]

হাওড়া-বর্ধমান কর্ড লাইন ১৯৬৪-৬৬ সালে বৈদ্যুতিকরন করা হয়।[৩]

দ্বিতল বিশিষ্ট ট্রেন পরিক্ষা মূলক যাত্রার পর হাওড়া স্টেশনে।

বিশ্লেষণ[সম্পাদনা]

২০১১ সালে হাওড়া ও ধনবাড়ের মধ্যে চলমান ভারতের প্রথম এয়ার-কনটেইশড ডাবল-ডেকার ট্রেনটি চালু হয়েছে। ট্রেনটি হাওড়া-বর্ধমানের কর্ড লাইনে প্রতি ঘন্টায় ১১০ কিলোমিটার গতিসম্পন্ন গতিতে চলবে। [৪]

এর আগে, স্থানীয় ট্রেনের জন্য নয়টি ইকুইটি ইএমইউ কোচ ব্যবহার করা হতো কিন্তু ২০১১ সালে বারো কোচ ইএমইউ ট্রেন চালু করা হয়, যার জন্য প্ল্যাটফর্মগুলি বাড়ানো হয়েছে।[৫][৬] ১১৭ কিলোমিটার (৭৩মাইল) লম্বা বাঁকুড়া-মাসাগ্রাম লাইন মাসগ্রামের কাছে হাওড়া-বর্ধমান কর্ড লাইনের সাথে সংযোগ স্থাপন করে।বাঁকুড়া থেকে হাওড়া চলাচলের জন্য (ভায়া খড়গপুর) ২৩১ কিলোমিটার (১৪৪ মাইল) দূরত্ব কমে ১৮৫ কিলোমিটার (১১৫ মাইল) হয়।[৭][৮]

২০০৩ সালে রেলওয়ে ট্র্যাক বেলুর মঠ পর্যন্ত প্রসারিত হয়েছিল। [৯]

রেলপথ (ট্র্যাক)[সম্পাদনা]

হাওড়া ও বেলুরের মধ্যে ৫ টি রেল ট্র্যাক আছে। বেলুর ও ডনকুনির মধ্যে দুটি রেল লাইন রয়েছে, দুনুনী ও শক্তিগড়ের মধ্যে তিনটি ট্র্যাক, এবং শক্তিগড় ও খানার মধ্যে চারটি ট্র্যাক রয়েছে।[১০]

লোকো ও কার শেড[সম্পাদনা]

হাওড়ার একটি ডিজেল এবং একটি বৈদ্যুতিক লোক শেড (চালা ) আছে। লোকো শেডে ডাব্লুডিএম -২, ডাব্লুডিএম -৩ এ, ডব্লিউডিএস -৬ ডিজেল লোকস পরিচালিত হয়। বৈদ্যুতিক লোকো ওয়াপ -৪ এই শেডে রয়েছে। ২০০১ সালে কমিশন জানায়, এটি ভারতীয় রেলওয়েগুলির মধ্যে বৃহত্তম ওয়াপ -৫ শেড গুলির মধ্যে একটি। এই লোকো শেডে ৭০+ লোকোর জন্য মেরামতের সুবিধা রয়েছে। বামনগাছি লোক শেডে দ্বারা ডাব্লুডিএম -২, ডব্লিউডিএস -৪ এবং ডব্লুডিএস -৬ ডিজেল লোকো পরিচালনা ও মেরামত করা হয়। বর্ধমানে ডাব্লুডিজি -৩ এ, ডাব্লুডিএম -৬, ডব্লিউডিএম -২ এবং ডব্লিউডিএম -৩ এ লোকো গুলি নিয়ে একটি ডিজেল লোকো শেড রয়েছে। লিলুয়াতে একটি ডিজেল লোকো শেড এবং হাওড়া এ একটি ইএমইউ লোক শেড রয়েছে। লিলুয়া ক্যারেজ ও ওয়াগান ওয়ার্কশপ কোচ ও মালবাহী গাড়িগুলি পরিচালনা করে। [১১]

টিকিয়াপাড়া কোচ ডিপো ২২ টি প্রাথমিক বেস ট্রেনকে ৬ টি রাউন্ড ট্রিপ ট্রেন পরিচালনা করে। এখানে মোট কোচ ধারণক্ষমতা ৭৪৪ কোচ।এটি রাজধানী এক্সপ্রেস এবং দুরন্ত এক্সপ্রেস মত গুরুত্বপূর্ণ ট্রেন পরিচালনা করে। এই কোচ ডিপো পূর্ব রেলের হাওড়া রেলওয়ে বিভাগের অন্তর্গত। বর্ধমান কোচ ও ওয়াগান ডিপো চারটি ট্রেন পরিচালনা করতে পারে।এই কোচ ডিপোটির কোচ ধারণ করার ক্ষমতা হল ৭১ টি।[১২]

গতির সীমা[সম্পাদনা]

হাওড়া-বর্ধমানের বেশির ভাগই 'এ' শ্রেণির লাইন হিসেবে শ্রেণীবদ্ধ করা হয় যেখানে ট্রেন প্রতি ঘন্টায় ১৬০ কিলোমিটার পর্যন্ত চলতে পারে। কিন্তু বেশির ভাগ ক্ষেত্রে প্রতি ঘন্টায় ১২০-১৩০ কিলোমিটার মধ্যে গতি সীমা বদ্ধ থাকে। হাওড়া রাজধানী (হাওড়া ও নয়াদিল্লির মধ্যে) গড়ে প্রতি ঘন্টায় ৮৫.৮ কিলোমিটার গতিতে ভ্রমণ করে এবং লিয়ালদহ রাজধানী (শিয়ালদহ ও নয়াদিল্লির মধ্যে) গড়ে প্রতি ঘন্টায় ৮৪.৭০ কিলোমিটার গতিতে ভ্রমণ করে।[১৩][১৪]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "The Chronology of Railway development in Eastern Indian"। railindia। ২০০৮-০৩-১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১১-১১-১৭ 
  2. "After fog, frenzy stalls trains – Mob blocks rail tracks with halt demand, schedules thrown awry"। Calcutta, India: The Telegraph, 9 January 2004। ২০০৪-০১-০৯। সংগ্রহের তারিখ ২০১১-১১-১৮ 
  3. "History of Electrification"। IRFCA। সংগ্রহের তারিখ ১৩ এপ্রিল ২০১৩ 
  4. "India's first double-decker train is fully AC"। Jagran Post। সংগ্রহের তারিখ ২০১১-১১-১৮ 
  5. "Local trains to stop twice at Kamarkundu"। Times of India, 17 February 2011। ২০১১-০২-১৭। সংগ্রহের তারিখ ২০১১-১১-১৮ 
  6. "Electric Multiple Units"। IRFCA। সংগ্রহের তারিখ ২০১১-১১-১৮ 
  7. Mandal, Sanjay (২০০৫-০৯-১২)। "Train to Bankura"। Calcutta, India: The Telegraph, 12 September 2005। সংগ্রহের তারিখ ২০১১-১১-১৮ 
  8. "Before swearing-in, Didi's rail sops on track"। Business Standard, 18 May 2011। সংগ্রহের তারিখ ২০১২-০৩-১৯ 
  9. "New rail link to Belur Math from August 16"। The Times of India, 13 August 2003। ২০০৩-০৮-১৩। সংগ্রহের তারিখ ২০১১-১১-১৮ 
  10. "Howrah Division Operating Department"। Eastern Railway। সংগ্রহের তারিখ ১০ এপ্রিল ২০১৩ 
  11. "Sheds and Workshops"। IRFCA। সংগ্রহের তারিখ ১০ এপ্রিল ২০১৩ 
  12. "Carriage and Wagon / Howrah Division" (PDF)। Indian Railways। সংগ্রহের তারিখ ১১ এপ্রিল ২০১৩ 
  13. "Permanent Way"Track Classifications। সংগ্রহের তারিখ ২০১২-০১-১৫ 
  14. "Trivia"Highest speed sections of track। সংগ্রহের তারিখ ২০১২-০১-১৫