মাদারীপুর পৌরসভা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
(মাদারিপুর পৌরসভা থেকে পুনর্নির্দেশিত)
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
মাদারিপুর
পৌরসভা
মাদারিপুর পৌরসভা
মাদারিপুর বাংলাদেশ-এ অবস্থিত
মাদারিপুর
মাদারিপুর
বাংলাদেশে মাদারীপুর পৌরসভার অবস্থান
স্থানাঙ্ক: ২৩°১০′১২.৬″ উত্তর ৯০°১২′৩৪″ পূর্ব / ২৩.১৭০১৬৭° উত্তর ৯০.২০৯৪৪° পূর্ব / 23.170167; 90.20944স্থানাঙ্ক: ২৩°১০′১২.৬″ উত্তর ৯০°১২′৩৪″ পূর্ব / ২৩.১৭০১৬৭° উত্তর ৯০.২০৯৪৪° পূর্ব / 23.170167; 90.20944
দেশ বাংলাদেশ
বিভাগঢাকা বিভাগ
জেলামাদারিপুর জেলা
উপজেলামাদারীপুর সদর উপজেলা
প্রতিষ্ঠাকাল১৮৭৫
সরকার
 • মেয়রমোঃ খালিদ হোসেন ইয়াদ
আয়তন
 • মোট১৪.০৫ কিমি (৫.৪২ বর্গমাইল)
জনসংখ্যা (২০১১)
 • মোট১,৫০,০০০
 • জনঘনত্ব১১০০০/কিমি (২৮০০০/বর্গমাইল)
সাক্ষরতার হার
 • মোট৭১.৪০%
সময় অঞ্চলবিএসটি (ইউটিসি+৬)
পোস্ট কোড৭৯০০ উইকিউপাত্তে এটি সম্পাদনা করুন
ওয়েবসাইটপ্রাতিষ্ঠানিক ওয়েবসাইট Edit this at Wikidata

মাদারিপুর পৌরসভা বাংলাদেশের মধ্যাঞ্চলের মাদারিপুর জেলার সদর উপজেলার অন্তর্গত একটি প্রথম শ্রেণীর পৌরসভা

আয়তন[সম্পাদনা]

মাদারিপুর পৌরসভা আয়তন ৩,৪৭১.৮১৩৩ একর (১৪.০৫ বর্গ কিলোমিটার)।[১]

জনসংখ্যা[সম্পাদনা]

২০১১ সালের পরিসংখ্যান অনুযায়ী মাদারিপুর পৌরসভায় ২৭১১৮ টি পরিবারে সর্বমোট ১৫০,০০০ (পুরুষ- ৭৭,৭০০, মহিলা- ৭২,৩০০) পৌর নাগরিক পৌর এলাকায় বসবাস করেন।[১]

অবস্থান ও সীমানা[সম্পাদনা]

মাদারিপুর জেলার কেন্দ্রে মাদারিপুর পৌরসভার অবস্থান। ঢাকা বিভাগ থেকে এ পৌরসভার দূরত্ব ৮৯ কিলোমিটার। এ পৌরসভার উত্তরে রাস্তি ও পাঁচখোলা, দক্ষিণে ঝাউদি ও ঘটমাঝি, পূর্বে ঝাউদি ও খোয়াজপুর এবং পশ্চিমে পেয়ারপুর ইউনিয়ন অবস্থিত।

ভৌগলিক অবস্থানঃ ২৩.০০’ থেকে ২০.৩০’ উত্তর অক্ষাংশ এবং ৮৯.৫৬’ থেকে ৯০.২১’ পূর্ব দ্রাঘিমাংশ।

প্রতিষ্ঠাকাল[সম্পাদনা]

১৮৭৫ খ্রিষ্টাব্দের এপ্রিল মাসে কলিকাতা মিউনিসিপ্যালিটির নিয়ন্ত্রণাধীন মাদারিপুর মিউনিসিপ্যাল কমিটি স্থাপিত হয়। যা পরবর্তীতে মাদারিপুর পৌরসভা নামে আখ্যায়িত করা হয়।[২] তৎকালিন মাদারিপুর মহকুমা প্রশাসক জে.বি. স্টুয়ার্ড এর সভাপতিত্বে ১৮৭৫ খ্রিষ্টাব্দের ২৬শে জুন মিউনিসিপ্যালিটির প্রথম সভা অনুষ্ঠিত হয়।[৩]

প্রশাসনিক এলাকা[সম্পাদনা]

মাদারিপুর পৌরসভার প্রশাসনিক কার্যক্রম মাদারিপুর সদর উপজেলার আওতাধীন। এটি জাতীয় সংসদের ২১৯নং নির্বাচনী এলাকা মাদারীপুর-২ এর অংশ।

এ পৌরসভায় ৯টি ওয়ার্ড, ৩৪টি মহল্লা রয়েছে। এ পৌরসভার আওতাধীন গ্রাম/এলাকাসমূহ হল:

  • হরি কুমারিয়া,
  • কুকরাইল,
  • শকুনী,
  • তরমগুরিয়া,
  • লক্ষ্মীগঞ্জ,
  • মাদারিপুর,
  • চর মদনরায়,
  • পানিছত্র,
  • সৈদারবালী,
  • কুলপদ্দী,
  • মোবারকদি,
  • পাকদী,
  • থানতলী,
  • চরমুগুরিয়া,
  • চর খাকদী,
  • পেয়ারপুর,
  • রুপরিয়া,
  • গৈদী,
  • ঘটমাঝি,
  • খাকদী,
  • কুমারখালী।[৪]

শিক্ষা ব্যবস্থা[সম্পাদনা]

মাদারিপুর পৌরসভার সাক্ষরতার হার ৭১.৪০%।[১] এ পৌরসভায় ৩টি কলেজ, ১টি আলিম মাদ্রাসাসহ ৪টি মাদ্রাসা, ২টি কারিগরি স্কুল এন্ড কলেজ, ৭টি মাধ্যমিক বিদ্যালয়, ২টি কওমী মাদ্রাসা, ২৭টি প্রাথমিক বিদ্যালয়, ১টি এবতেদায়ী মাদ্রাসা, ৩টি কিন্ডারগার্টেন ও ৩টি নূরানী কিন্ডারগার্টেন রয়েছে।

যোগাযোগ ব্যবস্থা[সম্পাদনা]

মাদারিপুর পৌরসভায় যোগাযোগের প্রধান সড়ক ঢাকা-মাদারিপুর মহাসড়ক। যে কোন যানবাহনে যোগাযোগ করা যায়। এছাড়া মোট রাস্তা কাঁচা ২১.৯২ কি.মি., ডব্লিউবিএম ৫.১৫ কি.মি., সিসি/আরসিসি ২৫.৫০ কি.মি., সলিং ২৮.২০ কি.মি., এইচ বি বি ৮.২৫কি.মি. এবং কার্পেটিং ৬৮.৮০ কি.মি.। ব্রীজ ১৭টি এবং কালভার্ট ১০৪টি। মাদারিপুর লঞ্চ ঘাট থেকে নৌ পথে ভ্রমণ পিয়াসুদের জন্য ঢাকা মহানগরীতে নির্বিঘ্নে খুব সহজে আসা-যাওয়া করা যায়।[৫]

স্বাস্থ্য[সম্পাদনা]

মাদারিপুর পৌরসভায় ১৮৭৬ সাল হতে ডিসপেনসারী আকারে তৈরী হয়ে বর্তমানে ১০০ শয্যা বিশিষ্ট সরকারি হাসপাতাল হিসেবে পরিচালিত হচ্ছে। ইতিমধ্যে এই হাসপাতাল ২৫০ শয্যায় উন্নীত করনের কাজ শুরু হয়েছে। ১০টি বেসরকারি হাসপাতাল এবং ১৩টি স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কেন্দ্র, ১টি ডায়াবেটিক হাসপাতাল, ১টি যক্ষ্মা হাসপাতাল রয়েছে।

ধর্মীয় উপাসনালয়[সম্পাদনা]

মাদারিপুর পৌরসভায় ১১০টি মসজিদ, ৫টি ঈদগাহ, ২৭টি মন্দির রয়েছে।

খাল ও নদী[সম্পাদনা]

হাট-বাজার[সম্পাদনা]

কুলপদ্দি বাজার, পানিছত্র চৌরাস্তা বাজার, মাদারিপুর (পুরান) বাজার, পৌর নতুন বাজার, কুকরাইল বাজার, চরমুগুরিয়া বাজার।

মাদারিপুর শকুনি দীঘি

চিত্তাকর্ষক স্থান[সম্পাদনা]

পত্র-পত্রিকা ও সাময়িকী[সম্পাদনা]

দৈনিক: সুবর্ণগ্রাম (১৯৯৮), প্রান্ত (২০০১), মাদারীপুর নিউজ (২০০৬), বিশ্লেষণ (২০০৯);

সাপ্তাহিক: সুপ্রভাত (১৯৯১), শাহ মাদার (১৯৯৩), শরীয়তউল্লাহ (১৯৯৬), আজকাল (১৯৯৯), গণসচেতনতা (২০০৬), সুবার্তা (২০০৭);

মাসিক: যুগচেতনা (১৯৯১), পোস্টার (১৯৯১), শান্তি সাময়িকী (১৯৯২), জাবল-ই-নূর (২০০৫);

সাহিত্য পত্রিকা: কথন, সন্দীপন, কিশলয়, বৈশাখী, ঊষা, ক্যানভাস, বর্ণমালা, নবপ্রভাত;

অবলুপ্ত: দৈনিক দিগন্ত (১৯৬০), সাপ্তাহিক জননী বাংলা (১৯৭২), সাপ্তাহিক মাদারীপুর বার্তা (১৯৮৬), সাপ্তাহিক আড়িয়াল খাঁ (১৯৮৯), পাক্ষিক বালারঞ্জিকা (১৮৬৩)।

কৃতী ব্যক্তিত্ব[সম্পাদনা]

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "মাদারীপুর জেলা"বাংলাদেশ জাতীয় তথ্য বাতায়ন (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০৭-২৯ 
  2. মাহমুদ, বাশার। "চন্দ্রদ্বীপ"ভোরের কাগজ। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০৭-২৯ 
  3. মিয়া, আবদুল জাব্বার (১৯৯৪)। মাদারীপুর জেলা পরিচিতি। মাদারিপুর: মিসেস লীনা জাব্বার। পৃষ্ঠা ৬। 
  4. বাালাদেশ জিওকোড (PDF)। ঢাকা: বাালাদেশ পরিসংখ্যন ব্যুরো। জুন ২০১৭। 
  5. "মাদারীপুর পৌরসভা"BDMayor (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০৭-২৯ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]