বাংলাদেশ-সৌদি আরব সম্পর্ক

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
বাংলাদেশ–সৌদি আরব সম্পর্ক সম্পর্ক
মানচিত্র Bangladesh এবং Saudi Arabia অবস্থান নির্দেশ করছে

বাংলাদেশ

সৌদি আরব

বাংলাদেশ–সৌদি আরব সম্পর্ক আনুষ্ঠানিকভাবে শুরু হয় ১৯৭৬ খ্রিস্টাব্দে যখন সৌদি আরব ১৯৭১-এ স্বাধীনতা অর্জনকারী বাংলাদেশকে একটি স্বাধীন ও সার্বভৌম দেশ হিসাবে স্বীকৃতি প্রদান করে। বর্তমানে এই দুই দেশের সম্পর্ক ভাতৃপ্রতীম, সুদৃঢ় এবং ক্রমবিকাশমান।

গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ এবং রাজতন্ত্রী সৌদি আরবের মধ্যে বর্তমানে একটি সুসম্পর্ক বিদ্যামান। মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ রাষ্ট্র হওয়ায় উভয় দেশের মধ্যে একটি আত্মিক বন্ধন স্বাভাবিক ভাবেই তৈরী হয়ে যায়, কারণ সৌদি আরবেই ইসলাম ধর্মের সমস্ত গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনা অবস্থিত এবং সেখানেই ইসলাম ধর্ম বিকশিত হয়। উভয় দেশ অর্গানাইজেশন অব ইসলামিক কোঅপারেশন (OIC) এর সদস্য। সৌদি আরবে প্রচুর প্রবাসী বাংলাদেশী কাজ করেন।[১][২][৩][৪]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

১৯৪৭ সালে পূর্ব বাংলা সদ্য প্রতিষ্ঠিত পাকিস্তান নামক মুসলিম রাষ্ট্রের অংশ হয়ে স্বাধীনতা লাভ করে। এই নব্য প্রতিষ্ঠিত রাষ্ট্রের সাথে সৌদি আরবের সখ্যতা গড়ে উঠে। কিন্তু কয়েক বছরের মধ্যেই বাঙালী জাতীয়তাবাদের ওপর ভিত্তি করে বাংলার মানুষ আন্দোলন শুরু করে এবং কালক্রমে তা যুদ্ধে মোড় নেয়। ১৯৭১ সালের সেই যুদ্ধে সৌদি আরব পাকিস্তানকে সমর্থন করে। তার বাঙালী জাতীয়তাবাদীদের মুসলিম রাষ্ট্রবিরোধী এবং ইসলাম বিরোধী আখ্যা দেয়। একই সাথে বাংলাদেশের সাথে ভারত এবং সোভিয়েত ইউনিয়নের সুসম্পর্ক গড়ে উঠে, যারা বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধে সর্বাত্মক সহযোগীতা করে। বাংলাদেশ স্বাধীনতা যুদ্ধ শেষ হওয়ার পর পৃথিবীর বিভিন্ন দেশ একে স্বাধীন দেশ হিসেবে স্বীকৃতি প্রদান করা শুরু করে। কিন্তু সৌদি আরব তখনো স্বীকৃতি প্রদান করেনি।

কূটনৈতিক সম্পর্ক প্রতিষ্ঠা[সম্পাদনা]

শেখ মুজিবুর রহমানকে হত্যা করার পর ১৯৭৫-৭৬ সালে সৌদি আরব এবং বাংলাদেশের মধ্যে আনুষ্ঠানিকভাবে কূটনৈতিক সম্পর্ক প্রতিষ্ঠিত হয়। জিয়াউর রহমান এবং হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদ সৌদি আরবের সাথে রাজনৈতিক এবং বাণিজ্যিক সম্পর্ক উন্নয়নের জন্য নানা পদক্ষেপ গ্রহণ করে। তখন থেকে বেশ কিছু দক্ষ এবং অদক্ষ বাংলাদেশি শ্রমিক সৌদি আরবে কাজ করতে পাঠানো হয়। বর্তমানে মোট শ্রমিকের সংখ্যা ২.৫ মিলিয়ন। সৌদি আরবে হজ্জ্ব করতে এবং পড়াশোনার জন্য বিপুল সংখ্যক বাংলাদেশি গমন করে। বর্তমানে প্রতিবছর প্রায় ১ লক্ষ মানুষ সেখানে যায় শুধু হজ্জ্ব করতে। বাংলাদেশে অর্থনৈতিক ভাবে সহায়তা করে এমন দেশের মধ্যে সৌদি আরব অন্যতম প্রধান দেশ।[৫]

উভয় দেশের নাগরিকদের পারস্পরিক সম্পর্ক[সম্পাদনা]

২০১৬ সালে সামজিক যোগাযোগ মাধ্যমে একজন বাংলাদেশির ছবি প্রকাশিত হয়। যিনি সৌদি আরবে রাস্তা পরিস্কারের কাজে নিয়োজিত ছিলেন। ছবিতে দেখা যায় তিনি একটি স্বর্ণের দোকানে প্রদর্শিত গয়নার দিকে তাকিয়ে আছে। সামজিক যোগাযোগ মাধ্যমের উক্ত ছবিতে আরবরা অনেক উপহাস মূলক মন্তব্য করা শুরু করে। অথচ ঐ ছবি বা মন্তব্য সম্পর্কে সেই বাংলাদেশি সচেতন ছিলেন না। এমন ঘটনার প্রেক্ষিতে একজন সৌদি নাগরিক লজ্জিত হন এবং সেই বাংলাদেশি ব্যাক্তিকে খুঁজে সেই সোনার গয়না এবং অনেক টাকা উপহার দিয়ে আসে। [৬][৭]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Saudi Arabia widens its door for Bangladesh - Dhaka Tribune" (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ৩ এপ্রিল ২০১৬ 
  2. "সংরক্ষণাগারভুক্ত অনুলিপি"। ২০১৪-০১-১০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০১-১০ 
  3. "সংরক্ষণাগারভুক্ত অনুলিপি"। ১০ জানুয়ারি ২০১৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১০ জানুয়ারি ২০১৭ 
  4. "Kingdom-Bangladesh meet will boost economic and trade ties" (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ৩ এপ্রিল ২০১৬ 
  5. "Bangladesh and Saudi Arabia"The Economist (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ৩ এপ্রিল ২০১৬ 
  6. Basma, Atassi (ডিসেম্বর ৫, ২০১৬)। "Cleaner in Saudi Arabia showered with gifts after social media mockery" (ইংরেজি ভাষায়)। CNN। CNN। সংগ্রহের তারিখ ৭ ডিসেম্বর ২০১৬ 
  7. Abeer, Al-Fahd (৭ ডিসেম্বর ২০১৬)। "Saudis shower a cleaner mocked on social media with gold and money"Saudi Gazette (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ৭ ডিসেম্বর ২০১৬