বাগলকোট জেলা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
বাগলকোট জেলা
কর্ণাটকের জেলা
কর্ণাটকের বাগলকোট জেলার কুড়ালসঙ্গম
ডাকনাম: ক্বতি
কর্ণাটক রাজ্যের মধ্যে বাগলকোট জেলার অবস্থান
কর্ণাটক রাজ্যের মধ্যে বাগলকোট জেলার অবস্থান
স্থানাঙ্ক: ১৬°০৭′ উত্তর ৭৫°২৭′ পূর্ব / ১৬.১২° উত্তর ৭৫.৪৫° পূর্ব / 16.12; 75.45স্থানাঙ্ক: ১৬°০৭′ উত্তর ৭৫°২৭′ পূর্ব / ১৬.১২° উত্তর ৭৫.৪৫° পূর্ব / 16.12; 75.45
দেশ ভারত
ভারতের রাজ্যকর্ণাটক
প্রতিষ্ঠিত1997
প্রতিষ্ঠা করেনকর্ণাটক সরকার
সদর শহরবাগলকোট
মহকুমাবাগলকোট,
রাবাকবি বাণাহাটতি,
গুলেডগুড্ডা,
বাদামি,
হুনাগুন্ড,
জামখন্ডি,
মুধোল,
লিকাল,
বিলাগি.
সরকার
 • ধরনজেলা পঞ্চায়েত
 • জেলাশাসকআর রামাচন্দ্রম
আয়তন
 • মোট৬,৫৯৩ বর্গকিমি (২,৫৪৬ বর্গমাইল)
উচ্চতা৫২৪ মিটার (১,৭১৯ ফুট)
জনসংখ্যা (২০১১)
 • মোট১৮,৮৯,৭৫২
 • জনঘনত্ব২৯০/বর্গকিমি (৭৪০/বর্গমাইল)
ভাষা
 • সরকারিকন্নড়
সময় অঞ্চলভারতীয় প্রমাণ সময় (ইউটিসি+5:30)
ডাক সূচক সংখ্যা587101-587325
টেলিফোন কোড+৯১-৮৩৫৪
যানবাহন নিবন্ধন
ওয়েবসাইটbagalkot.nic.in

বাগলকোট জেলা (/ˈbɑːɡələkt/), ভারতের কর্ণাটক রাজ্যের একটি প্রশাসনিক জেলা। জেলা সদরটি বাগলকোট শহরে অবস্থিত। জেলাটি উত্তর কর্ণাটকে অবস্থিত এবং বেলগাভি জেলা, গদাগ জেলা, কোপ্পাল জেলা, রায়চুর জেলা এবং বিজয়পুর জেলা দ্বারা সীমানা বেষ্টিত। ১৯৯৭ সালে বিজাপুর থেকে নতুন বাগলকোট জেলাটি গঠন করা হয়েছিল[১]। দ্বিখণ্ডিত বাগলকোট জেলা নয়টি মহকুমা নিয়ে গঠিত - বাদামি, বাগলকোট, বিলাগি, গুলেগুদ্দা, রাবকবি বনহাট্টি, হুনাগুন্ড, ইলকাল, জামখণ্ডি ও মুধোল[২]


ঐতিহাসিকভাবে, বাদামি, যা বাগালকোটের অংশ, প্রথম পুলকেশিনের অধীনে দক্ষিণ ভারতের চালুক্য সাম্রাজ্যের রাজধানী ছিল; তিনি ৫৫০ খ্রিস্টাব্দে জেলাটি জয় করেছিলেন। বাগলকোটের বাদামি তালুকটি খ্রিস্টীয় ৫৫০ সাল থেকে ৭৫৩ খ্রিস্টাব্দ পর্যন্ত অর্থাত রাষ্ট্রকূট দের দ্বারা চালুক্য রাজা দ্বিতীয় কীর্তিবর্মণের পতনের সময় অবধি চালুক্য বংশের রাজধানী থেকে যায়।


চালুক্য শিল্প ও স্থাপত্যের অবশিষ্টাংশ বাগলকোটের গুরুত্বপূর্ণ পর্যটন কেন্দ্র। পাত্তাদাকাল্লুতে দ্বিতীয় বিক্রমাদিত্য দ্বারা নির্মিত বহু ইউনেস্কো স্বীকৃত বিশ্ব ঐতিহ্যবাহী স্থান রয়েছে। অন্যদিকে মালপ্রভা নদীর তীরে অবস্থিত আইহোল একটি গুরুত্বপূর্ণ মন্দিরের শহর, যেখানে প্রাথমিক ও পরবর্তীকালে চালুক্য যুগের ১৪০ টিরও বেশি মন্দির রয়েছে। বাদামি গুহা মন্দিরের গুহা মন্দির এবং লোকপুরা এবং বিলগিতে রাষ্ট্রকূট বংশের নির্মিত জৈন মন্দিরগুলিও নিকটেই রয়েছে।

কুটির শিল্পগুলি বাগালকোটের অর্থনীতির একটি প্রধান অবস্থান দখল করে। জেলাটি রেশম ও তাঁত শিল্পের জন্য পরিচিত।

ঘটপ্রভা নদী, মালপ্রভা নদী এবং কৃষ্ণা নদী এই জেলার মধ্য দিয়ে প্রবাহিত। কৃষ্ণা ও মালপ্রভা নদীর সংমিশ্রণস্থলে পবিত্র স্থান কুড়ালসঙ্গম অবস্থিত।

.

বর্ণ-প্রথার বিরুদ্ধে লড়াইয়ের জন্য পরিচিত দ্বাদশ শতাব্দীর সমাজ সংস্কারবাদী বাসবান্নার সমাধি হুঙ্গুন্ডের কুডালসঙ্গমে অবস্থিত।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

গ্রীক জ্যোতির্বিদ টলেমি এর আগে বাগলকোট জেলার অনেক শহর চিহ্নিত করেছিলেন। পট্টডাকালকে পেট্রিগাল হিসাবে উল্লেখ করা হত, অন্যদিকে বদামি বাদামাইওই নামে পরিচিত.[৩]

প্রাচীন শিলালিপিতে, চালুক্যদের অধীনে শহরের পুরাতন নাম বাগডেজ রূপে উল্লেখ করা হয়েছিল। ১৬৬৪ থেকে ১৭৫৫ সালের মধ্যে এই অঞ্চলটি সাভানুর নবাবের অধীনে ছিল, তার পরে পেশোয়া বালাজিরাও এই শহর অধীনস্থ করেন।১৭৭৮ খ্রিস্টাব্দে হায়দার আলী বাগলকোটের দখল নেন। ১৮০০ সালে, বাগালকোটে রতিয়া পরিবারের সদস্য প্রাদেশিক পরিচালক আনন্দराव ভিকাজি একটি প্রাসাদ তৈরি করেন। ১৮১০ সালে, পেশোয়া দ্বিতীয় বাজিরাও নীলকণ্ঠराव সরসুবেদারকে এই অঞ্চলটি দিয়েছিলেন; জেনেরাল মুনরো ১৮১৮ সালে এটি দখল না করা পর্যন্ত এটি সরসুবেদারের অধীনেই ছিল।

বিভাগ[সম্পাদনা]

জেলা মানচিত্র

পর্যটন[সম্পাদনা]

বাদামী গুহা মন্দির

বৈষ্ণব গুহা মন্দির। বাদামি গুহার তৃতীয় মন্দির, নির্মাণকাল- ৫৭৮ খ্রিষ্টাব্দ
বাদামির তৃতীয় গুহায় বিষ্ণু মূর্তি

পট্টডাকালে দ্বিতীয় বিক্রমাদিত্য দ্বারা নির্মিত বহু ইউনেস্কো স্বীকৃত ঐতিহ্যবাহী স্থান রয়েছে।

মল্লিকার্জুন মন্দির ও কাশি বিশ্বনাথ মন্দির

মল্লিকার্জুন মন্দির নির্মিত হয়, দ্রাবিড় শৈলী অনুযায়ী এবং কাশী বিশ্বনাথ মন্দির নির্মিত হয় নগর শৈলী অনুযায়ী। নির্মানকাল আনুমানিক ৭৪০ খ্রিষ্টাব্দ।

  • আইহোল

মালাপ্রভা নদীর তীরে মন্দির শহর আইহোল, যেখানে পূর্ব এবং উত্তর চালুক্য বংশ দ্বারা নির্মিত ১৪০টি মন্দির রয়েছে।

আইহোলের দুর্গা মন্দির
  • মহাকূট মন্দির সমূহ

ভগবান শিবের উদ্দেশ্যে নির্মিত মহাকূটেশ্বর মন্দিরটি দ্রাবিড় রীতিতে নির্মিত।

বনভূমিতে নির্মিত নাগনাথ মন্দিরটি চালুক্য রাজবংশ দ্বারা নির্মিত প্রথম আমলের মন্দির।

মহাকূটেশ্বর ও সঙ্গমেশ্বর মন্দির
  • বাণশঙ্করী আম্মা মন্দির

বাণশঙ্করী মন্দিরটি পার্বতীর এক রূপ বাণশঙ্করী বা শাক্ম্ভরীকে উত্সর্গীকৃত। এটি চোলাচাগুডে অবস্থিত।

ভূগোল[সম্পাদনা]

বাগলকোট জেলা

বাগলকোট জেলা পুরোপুরি উত্তর কর্ণাটক মালভূমিতে অবস্থিত, এটি বৃহত্তর দাক্ষিণাত্য মালভূমির অংশ। উত্তর-কর্ণাটকে অবস্থিত, বাগলকোট জেলার পশ্চিমে বেলগাঁও জেলা, উত্তর ও উত্তর-পূর্বে বিজাপুর জেলা এবং গুলবর্গা জেলা, পূর্বে রায়চুর জেলা এবং দক্ষিণ-পূর্বে কোপ্পল জেলা, দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পশ্চিম যথাক্রমে গাদাগ জেলা ও ধারওয়াড় জেলা। এটি ১৬°১২′উত্তর এবং ৭৫°৪৫′ পূর্ব দ্রাঘিমায় অবস্থিত এবং ৬৫৯৩ বর্গকিলোমিটার এলাকা জুড়ে রয়েছে। বাগলকোট জেলায় নয়টি তালুক রয়েছে - বাগলকোট, বাদামি, হুনাগুন্ডা, মুধোল, জামখণ্ডি, বিলগি, রাবকবিবানহাটি, গুলেগুদ্দা। এই অঞ্চলের গড় উচ্চতা প্রায় ৬১০ মিটার । সারা বছর জলবায়ু উষ্ণ এবং শুষ্ক এবং বৃষ্টিপাত খুব কম ও খরাপ্রবণ। কর্ণাটকে বছরে সবচেয়ে কম বৃষ্টিপাত হয় বাগলকোট জেলাতে। এই অঞ্চলে বার্ষিক গড় বৃষ্টিপাত প্রায় ৩১৮ মিমি। সেপ্টেম্বর ও ডিসেম্বর মাসে মোট বার্ষিক বৃষ্টিপাতের প্রায় ৫২% অংশ থাকে।

বাগলকোট সবুজ গাছপালা বিহীন এবং অর্ধ-শুকনো অঞ্চল। কৃষ্ণা নদী, ঘটপ্রভা নদী এবং মালপ্রভা নদী এই অঞ্চল দিয়ে প্রবাহিত হয়েছে তবে বহুবর্ষজীবী নয়। অঞ্চলটিতে মাটি মূলত কালোমৃত্তিকা ও কিছু অঞ্চলে ল্যাটেরাইট লাল মাটি। জেলাটিতে খনিজ সম্পদের প্রাচুর্য রয়েছে। বাগলকোট শহর থেকে ২৪ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত কালাদগি গ্রামে তাম্র আকরিক উত্তোলন হয়। জেলার দক্ষিণ অংশে লোহা আকরিক রয়েছে। অঞ্চলটিতে প্রচলিত শৈল প্রকারের মধ্যে রয়েছে গ্রীনস্টোন, কোয়ার্টজাইট, বেলেপাথর এবং চুনাপাথর।

জনমিতি[সম্পাদনা]

ঐতিহাসিক জনসংখ্যা
বছরজন.±%
১৯০১৪,৬৬,২০০—    
১৯১১৪,৯০,৬৬৮+৫.২%
১৯২১৪,৬৭,০৬২−৪.৮%
১৯৩১৫,০২,৫৪০+৭.৬%
১৯৪১৫,৭০,৫২২+১৩.৫%
১৯৫১৬,৬১,৬৪৫+১৬%
১৯৬১৭,৭১,৬০২+১৬.৬%
১৯৭১৯,৩১,৬৫১+২০.৭%
১৯৮১১১,৫১,০০৫+২৩.৫%
১৯৯১১৩,৯০,২৫৯+২০.৮%
২০০১১৬,৫১,৮৯২+১৮.৮%
২০১১১৮,৮৯,৭৫২+১৪.৪%

২০১১ সালের জনগণনা অনুযায়ী বাগলকোট জেলার জনসংখ্যা ১,৮৮৯,৭৫২ জন [৪] যা প্রায় লেসোথো[৫] রাষ্ট্রের জনসংখ্যা অথবা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের পশ্চিম ভার্জিনিয়া[৬] রাজ্যের জনসংখ্যার সমতুল্য। জনসংখ্যার বিচারে ভারতের ৬৪০টি জেলার মধ্যে বাগলকোটের স্থান ২৪৯তম। জেলায় জনসংখ্যার ঘনত্ব ২৮৮ জন প্রতি বর্গকিলোমিটার (৭৫০ জন/বর্গমাইল). । ২০০১ থেকে ২০১১ সালের মধ্যে জেলার জনসংখ্যা-বৃদ্ধির হার ছিল ১৪.৪৬ শতাংশ।[৭] জেলার লিঙ্গানুপাত প্রতি ১০০০ জন পুরুষ পিছু ৯৮৪ জন নারী এবং সাক্ষরতার হার ৬৯.৩৯ শতাংশ[৮]

কর্ণাটকের রাজ্য ভাষা কন্নড় জেলার সর্বাধিক প্রচলিত ভাষা।

শিক্ষা[সম্পাদনা]

অর্থনীতি[সম্পাদনা]

কৃষি বাগলকোটের বৃহত্তম জীবিকা, যার মধ্যে ৬৬% শ্রমজীবী ​​লোক জড়িত রয়েছেন; বাগলকোটের প্রায় ৮০% মহিলা শ্রমিক কৃষিতে নিযুক্ত আছেন। উত্তর কর্ণাটকের বেশিরভাগ অংশের মতই, বাগলকোট কৃষ্ণমৃত্তিকায় সমৃদ্ধ যা তুলো চাষের পক্ষে উপযুক্ত। জেলাটি কর্ণাটকের দ্বাদশ বৃহত্তম অর্থনীতি হিসাবে পরিণত হয়েছে।

জেলার প্রধান ফসলাদি হ'ল রবি এবং জওয়ার, পাশাপাশি বাদাম, তুলা, ভুট্টা, বজরা, গম, আখ এবং তামাক অন্যতম। জোয়ার বেশিরভাগ কৃষিক্ষেত্রেই চাষ করা হয় কারণ এটি বর্ষাকালের পাশাপাশি শীতকালেও জন্মে। এই অঞ্চলে বিভিন্ন ডাল চাষ হয় মূলত অরহড় ডাল, ছোলা, কুলিথ এবং মুগডাল। বাগলকোটে ক্যাস্টর অয়েল, তিসি এবং তিলও জন্মে। সেচের জন্য জলের সরবরাহে কেন্দুর জলাশয়ের মতো জলাধার রয়েছে যা বদামি থেকে ছয় মাইল দূরে এবং মুগকুন্ডি জলাশয় যা বাগালকোট থেকে ৪ মাইল দূরে। পর্যাপ্ত বৃষ্টিপাতের অভাবে দুর্ভিক্ষ বাঘলকোটে খুব সাধারণ বিষয়। ১৯০১ সালে এই অঞ্চলে দুর্ভিক্ষ দেখা দিলে বাঘালকোটের কৃষি শিল্পকে যথেষ্ট আর্থিক ক্ষতি হয়েছিল। কর্ণাটকে এই জেলার পঞ্চম সর্বোচ্চ কৃষকের আত্মহত্যার হার রয়েছে[৯]। দক্ষ জল ব্যবস্থাপনার কৌশল এবং সরকারী বেকারত্ব নিরোধক প্রকল্পগুলি কেবলমাত্র সামান্যতম প্রশমিত করেছে এখানকার খরার কষ্ট।


জনসংখ্যার একটি বিশাল অনুপাত তাঁতিদের নিয়েও গঠিত। প্রধান উত্পাদন সূতি এবং রেশম কাপড়। প্রচুর পরিমাণে সুতার সুতাও এখানে রং করে রাজ্য ও দেশের অন্যান্য অঞ্চলে রফতানি হয়। জেলার বেশিরভাগ অভিবাসী কাপড়ের ব্যবসায়ী।

প্রশাসন[সম্পাদনা]

বাগলকোট জেলা কর্মকর্তারা
জেলাশাসক ক্যপ্টেন রাজেন্দ্র
জেলা পঞ্চায়েত প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা শ্রীমতি গঙ্গুবাঈ মানকর আইএএস
সংসদ সদস্য (বাগলকোট লোকসভা নির্বাচনী এলাকা) পি সি গদ্দিগৌদর (বিজেপি)
The জেলা পঞ্চায়েত অফিসে সম্পন্ন হয় 2005 সালে অবস্থিত এবং শহরের বাইরে. বিল্ডিং ঘর এবং অফিসের ডেপুটি কমিশনার এবং প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা

জেলা প্রশাসক হলেন বাগলকোট জেলা প্রশাসনের প্রধান। জেলা প্রশাসক অফিস জেলাতে পৌর পরিষেবা সরবরাহ করে, জনগণনার তথ্য সংগ্রহ করে, বিচারিক নজির প্রয়োগ করে, স্থানীয় নির্বাচন পরিচালনা করে এবং রাজস্ব আদায় করে। মহকুমাশাসকরা জেলা প্রশাসককে মহকুমা পর্যায়ে প্রশাসনিক বিষয়ে সহায়তা করেন - প্রতিটি তালুকের একটি করে মহকুমাশাসক থাকে। প্রতিটি তালুকের গ্রামীণ অঞ্চল স্থানীয়ভাবে নির্বাচিত জেলা পঞ্চায়েত দ্বারা পরিচালিত হয়, প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) এর নেতৃত্বে। জেলা পঞ্চায়েতে গ্রামীণ উন্নয়ন প্রকল্পগুলি সেচ, জল সরবরাহ, রাস্তা এবং অবকাঠামোগত সুবিধাসমূহের জন্য দায়ী করা হয়। বাগলকোট জেলা ভারতের লোকসভায় একজন সংসদ সদস্য (এমপি) অবদান রাখে। জেলাটি কর্ণাটকের বিধানসভায় বিধানসভা পরিষদের সাত সদস্যকে অবদান রাখে, প্রতিটি তালুকের একজন করে। কর্ণাটক ভারতের পাঁচটি রাজ্যের মধ্যে একটি যাদের নিজস্ব আইন পরিষদ রয়েছে । বাগলকোট জেলা আইন পরিষদ (এমএলসি) এর চার সদস্যকে বিধান পরিষদে অবদান রাখে।

বাগলকোট জেলার জেলা পঞ্চায়েত সংস্থায় ২৬ জন সদস্য রয়েছে। এর মধ্যে জেলা পঞ্চায়েতের সভাপতি ও সহ সভাপতিও নির্বাচিত হন। এছাড়াও, জেলা পঞ্চায়েতের সদস্যদের সমন্বয়ে পাঁচটি স্থায়ী কমিটি নির্বাচিত হয় যাদের সদস্যসংখ্যা সাতজনের বেশি নয়। পাঁচটি স্থায়ী কমিটির মধ্যে রয়েছে পরিকল্পনা ও অর্থ, সাধারণ স্থায়ী, কৃষি ও শিল্প, শিক্ষা ও স্বাস্থ্য ও সামাজিক ন্যায়বিচার।

সংস্কৃতি[সম্পাদনা]

খাদ্যরীতি[সম্পাদনা]

হুনাগুন্ড তালুকের আমিনগাদ, আমিনগাদ করদন্তু নামক মিষ্টান্নর জন্য পরিচিত। এছাড়া জেলা জুড়ে ছড়িয়ে রয়েছে খানাবলী যেখানে নিরামিষ ভাতাদি সাধারণত লিঙ্গায়াত খাবার পরিবেশন করা হয়।

খানাবলীতে দ্বিপ্রাহরিক আহার্য

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "A Handwork of Karnataka - Administration" (PDF)। Government of Karnataka। পৃষ্ঠা 354, 355। ৮ অক্টোবর ২০১১ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৬ নভেম্বর ২০১০ 
  2. "Bagalkot district statistics- Area and Population" (PDF)। ১৭ জুলাই ২০১১ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৭ নভেম্বর ২০১০ 
  3. "World Heritage Sites - Pattadakal"। Archaeological Survey of India। ৩০ অক্টোবর ২০১০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৭ নভেম্বর ২০১০ 
  4. উদ্ধৃতি ত্রুটি: অবৈধ <ref> ট্যাগ; districtcensus নামের সূত্রের জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  5. US Directorate of Intelligence। "Country Comparison:Population"। সংগ্রহের তারিখ ১ অক্টোবর ২০১১Benin 9,325,032 
  6. "2010 Resident Population Data"। U. S. Census Bureau। সংগ্রহের তারিখ ৩০ সেপ্টেম্বর ২০১১North Carolina 9,535,483 
  7. "District Census 2011"। Census2011.co.in। ২০১১। সংগ্রহের তারিখ ২০১১-০৯-৩০ 
  8. "District Census 2011"। Census2011.co.in। ২০১১। সংগ্রহের তারিখ ২০১১-০৯-৩০ 
  9. "Burdened by debt". 2006. The Hindu. The Hindu Group. 14 Sep. 2003

বাহ্যিক লিঙ্ক[সম্পাদনা]