রোজালিন ইয়ালো

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
রোজালিন সাসম্যান ইয়ালো
Rosalyn Yalow.jpg
রোজালিন ইয়ালো (১৯৭৭)
জন্মরোজালিন সাসম্যান
(১৯২১-০৭-১৯)১৯ জুলাই ১৯২১
নিউয়র্ক, যুক্তরাষ্ট্র
মৃত্যু৩০ মে ২০১১(2011-05-30) (বয়স ৮৯)[১]
দ্য ব্রোনেস্ক, নিউয়র্ক, যুক্তরাষ্ট্র
জাতীয়তাআমেরিকান
কর্মক্ষেত্রচিকিৎসা পদার্থবিজ্ঞান
প্রাক্তন ছাত্রহান্টার কলেজ
ইউনিভার্সিটি অব ইলিনয়েজ এ্যাট আরবানা চ্যাম্পাইন
পরিচিতির কারণরেডিওইমিউনোঅ্যাসে (আরআইএ)
যাদেরকে প্রভাবিত
করেছেন
মিল্ডরেড ড্রেসেলহাউস [২]
উল্লেখযোগ্য
পুরস্কার
১৯৭২ ডিকসন প্রাইজ
১৯৭৫ এএমএ সায়েন্টিফিক অ্যাচিভম্যান্ট এওয়ার্ড
১৯৭৬ মৌলিক চিকিৎসা গবেষণার জন্য অ্যালবার্ট লস্কর এওয়ার্ড
১৯৭৭ মৌলিক চিকিৎসা গবেষণার জন্য অ্যালবার্ট লস্কর এওয়ার্ড
১৯৮৮ বিজ্ঞানে জাতীয় মেডেল
স্ত্রী/স্বামীএ. অ্যারন ইয়ালো (এম. ১৯৪৩; ২ সন্তান)

রোজালিন সাসম্যান ইয়ালো (১৯ জুলাই, ১৯২১ - ৩০ শে মে, ২০১১) ছিলেন একজন আমেরিকান চিকিৎসা পদার্থবিদ এবং রেডিওইমিউনোঅ্যাসে বা রেডিও প্রতিরোধ পরীক্ষা (আরআইএ) পদ্ধতি উন্নয়নের জন্য ১৯৭৭ সালে দেহতত্ত্ব বা চিকিৎসা শাস্ত্রে নোবেল পুরস্কারের সহ-বিজয়ী ছিলেন ( রজার গুলেমিন এবং অ্যান্ড্রু শ্যাচলির সাথে) । তিনি ছিলেন নারীদের মধ্যে দ্বিতীয় (প্রথমজন গের্তি কোরি), এবং আমেরিকান বংশোদ্ভূত প্রথম নারী, যিনি শারীরবিজ্ঞান বা চিকিৎসা শাস্ত্রে নোবেল পুরস্কার পেয়েছিলেন। [৩][৪]

জীবন[সম্পাদনা]

শৈশব[সম্পাদনা]

রোজালিন সাসম্যান ইয়ালো জন্মেছিলেন নিউয়র্কের ব্রোনেস্ক শহরে, তিনি ছিলেন ক্লারা (নিইই যিপার ) ও সাইমন সাসম্যানের কন্যা এবং তিনি বেড়ে উঠেছেন ইহুদী পরিবারে। তিনি নিউ ইয়র্ক শহরের ওয়াল্টন উচ্চ বিদ্যালয়ে (ব্রোনেস্ক) পড়াশুনা করেছেন। উচ্চ বিদ্যালয়ে পড়াশোনার পর, তিনি হান্টার কলেজে যোগদান করেন এটি ছিল মহিলা কলেজ এবং এখানে ছিলো বিনা বেতনে অধ্যয়ন করার সুযোগ, তার মা আশা করেছিলো ইয়ালো শিক্ষক হবেন কিন্তু ইয়ালো সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন তিনি পদার্থ বিজ্ঞান নিয়ে অধ্যয়ন করবেন।

পদার্থবিজ্ঞানে ক্যারিয়ার অর্জনে আমি উচ্ছ্বসিত ছিলাম। অনেক বাস্তবিক কারণে, আমার পরিবার ভেবেছিলো আমার জন্যে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক হওয়াটাই সবচেয়ে কাঙ্ক্ষিত অবস্থান হবে।

রোজালিন ইয়ালো [৫]

কলেজ[সম্পাদনা]

ইয়ালো টাইপ করতে জানতেন এবং ড রুডল্ফ শোএনহাইমার, যিনি ‍ছিলেন কলম্বিয়া ইউনিভার্সিটি কলেজ অব ফিজিশিয়ান্স এন্ড সার্জন এর বিশিষ্ট প্রাণরসায়নবিদ, তার অধীনে ইয়ালো সেক্রেটারী হিসেবে খন্ডকালীন চাকরি করতেন । কোনো বিখ্যাত গ্রাজুয়েট স্কুল একটি মেয়েকে ভর্তি এবং আর্থিকভাবে সহায়তা করবে এটা ইয়ালো বিশ্বাস করতেন না, তাই তিনি আরো একটি চাকরি নিয়েছিলেন, স্টেনোগ্রাফি নিয়ে পড়াশুনা করার শর্তে তাকে সেক্রেটারি হিসাবে নিয়োগ দিয়েছিলেন কলম্বিয়ার আরেক বায়োকেমিস্ট মাইকেল হাইডেলবার্গার । তিনি ১৯৪১ সালের জানুয়ারীতে হান্টার কলেজ থেকে স্নাতক ডিগ্রী লাভ করেন।[৫]

কয়েক বছর পরে, তিনি আরবানা চ্যাম্পাইন ইউনিভার্সিটি অফ ইলিনয়তে পদার্থবিজ্ঞানে শিক্ষক সহকারী হওয়ার প্রস্তাব পেয়েছিলেন। তিনি এই প্রস্তাবটি আংশিকভাবে গ্রহণ করেছিলেন কারণ দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ সবে শুরু হয়েছিল এবং অনেক পুরুষ লড়াইয়ে নেমেছিল এবং বিশ্ববিদ্যালয়টি বন্ধ না হওয়ার জন্য মহিলাদেরকে শিক্ষা এবং চাকরির প্রস্তাব দেয়। ১৯১৭ সাল থেকে ইউনিভার্সিটি অব ইলিনয়েজ এ্যাট আরবানা চ্যাম্পাইন বিশ্ববিদ্যালয়ের অনুষদের ৪০০ সদস্যের মধ্যে তিনিই ছিলেন প্রথম ও একমাত্র নারী।[৬]:১০৯ ১৯৪৫ সালে ইয়ালো পিএইচ ডি ডিগ্রী অর্জন করেন।

পরবর্তী গ্রীষ্মতে, ইয়ালো নিউ ইয়র্ক বিশ্ববিদ্যালয়ে সরকারী পৃষ্ঠপোষকতায় বিনা বেতনে পদার্থ বিজ্ঞানের দুটি কোর্স নেন।.[৭]

বিবাহ এবং সন্তান[সম্পাদনা]

১৯৪৩ সালের জুন মাসে, তিনি বিয়ে করেন তার সহকর্মী অ্যারন ইয়ালোকে, যিনি ছিলেন রাব্বির পুত্র। তাদের দুই সন্তান বেনজামিন ও ইলানা এবং তারা কোশের বাড়িতে বেড়ে উঠেছিলো। ”ব্যক্তিগত জীবনের সাথে ক্যারিয়ারের ভারসাম্য বজায় রাখা” ইয়ালো বিশ্বাস করতেন না এবং এর পরিবর্তে কর্মজীবনের যেখানেই পারেন তিনি তার গৃহজীবনকে অন্তর্ভুক্ত করেছিলেন।[৬]:১০৯ যায় হোক, ইয়ালো প্রাধান্য দিয়েছিলেন চিরচরিত গৃহকত্রী নিয়মকে এবং নিজেকে উৎসর্গ করেছিলেন একজন স্ত্রী এবং মাতৃত্বের চিরায়িত দায়িত্বে।

পুরো ক্যারিয়ার জুড়ে তিনি নারীবাদী সংগঠনগুলি থেকে দূরে ছিলেন, কিন্তু তারপরেও তিনি বিজ্ঞানে আরও বেশি নারীদের অন্তর্ভুক্ত করার পক্ষে ছিলেন।[৭] যেহেতু তিনি বিশ্বাস করতেন, যুদ্ধের কারণে তিনি একটি চমৎকার সুযোগ পেয়েছেন পদার্থ বিজ্ঞানে, সেই একই কারণে যুদ্ধের পর নারীদের সংখ্যা কমে যাবে আগ্রহের অভাবে। ইয়ালো দেখেন নারীবাদী আন্দোলন চ্যালেঞ্জ হয়ে দাড়াঁয় তার চিরাচরিত বিশ্বাসে এবং তিনি ভাবতেন এটি নারীদেরকে মা ও স্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালনে অনুৎসাহিত করবে।[৬]:১০৯

কর্ম[সম্পাদনা]

১৯৪১ সালে হান্টার কলেজ থেকে স্নাতক পাস করার পরের মাসে, রোজালিন সাসম্যান ইয়ালো ইউনিভার্সিটি অব ইলিনয়েজ এ্যাট আরবানা চ্যাম্পাইন বিশ্ববিদ্যালয়ের পদার্থ বিজ্ঞান বিভাগ থেকে সহকারী শিক্ষক হওয়ার প্রস্তাব পেয়েছিলেন। একজন নারী হিসেবে ইলিনয়েজ বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রকৌশলী কলেজের পদার্থবিজ্ঞান স্নাতক প্রোগ্রামের গ্রহণযোগ্যতা পেতে তাকে অনেক প্রতিবন্ধকতা পার করতে হয়েছিলো। প্রশিক্ষণ, স্বীকৃতিদান, পদোন্নতি এবং বিজ্ঞানের আরো অনেক উন্নয়নের দিক এবং বিশেষ করে পদার্থ বিজ্ঞান নিয়ন্ত্রণ করতো ক্ষমতাশালী সব পুরুষ ব্যক্তিত্ব।

১৯৪১ সালের সেপ্টেম্বরে যখন ইয়ালো বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রবেশ করে, তখন ৪০০ অধ্যাপক ও শিক্ষক সহকারীর মধ্যে তিনিই ছিলেন একমাত্র নারী। দুই দশকেরও বেশি সময় ধরে এই বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষকদের মধ্যে তিনিই ছিলেন একমাত্র নারী ।[৮] দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় পুরুষ প্রার্থীর ঘাটতির কারণে এই বিখ্যাত গ্র্যাজুয়েট বিদ্যালয়ে ইয়ালো তার অবস্থানে কৃতিত্ব অর্জন করেছিলেন। তার চারিদিকে জ্ঞানী ব্যক্তি থাকায় বিজ্ঞানের ব্যাপক বিশ্ব সম্পর্কে তারা ইয়ালোকে সচেতন করেন। তারা তার প্রতিভা বুঝতে পারে, তাকে উৎসাহিত করেন এবং তাকে সমর্থন করেন। ইয়ালোর সফলতায় তারা সহায়তা করেছিলেন।[৬]

তার উচ্চাকাঙ্ক্ষার কারণে তিনি বুঝতে পারতেন তার কর্ম ক্ষেত্রের অন্য নারীরা তার মত নয়। অন্য নারীরা দেখেছিলেন, বিজ্ঞানের সেই সময়ে কোনো নারীর জন্য একমাত্র কাঙ্খিত পথ পরিত্যাগ করে ইয়ালোর আগ্রহই তাকে একটি উচ্চ বিদ্যালয়ে বিজ্ঞানের শিক্ষক করে তোলো কিন্তু ইয়ালো বিজ্ঞানী হতে চেয়েছিলেন।[৬] ইলিনয়েজ বিশ্ববিদ্যালয়ে থাকাকালীন, জ্ঞান বৃদ্ধির জন্যে তিনি অতিরিক্ত স্নাতক কোর্স নিয়েছিলেন কারণ তিনি তার নিয়মিত পাঠদানের দায়িত্ব ছাড়াও মূল পরীক্ষামূলক গবেষণা করতে চেয়েছিলেন। [৯]

কয়েক বছর ধরে ইয়ালো তার কর্ম ক্ষেত্রের অন্যান্য মহিলাদের সমালোচনার মুখোমুখি হয়েছিলেন কিন্তু তিনি কখনো পিছু হটেনি অথবা অন্য তরুণীদের থেকে মুখ ফিরিয়েও নেননি, যদিও তিনি বিশ্বাস করতেন তাদেরও সত্যিকারের বিজ্ঞানী হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। তিনি কখনোই বিজ্ঞান ক্ষেত্রে নারী সংগঠনের পক্ষে ছিলেন না।[৯] এমনকি তিনি উদ্ধৃত করে বলেছেন যে “ এটা আমাকে বিরক্ত করে যে, এখন বিজ্ঞানে নারীদের জন্য বিভিন্ন সংস্থা রয়েছে, যার অর্থ তারা মনে করেন পুরুষদের থেকে তাদের সাথে আলাদা আচরণ করা উচিত। আমি এতে একমত নই। “[৬]:৮১ ইয়ালো নারী চিকিৎসা বা বিজ্ঞান প্রতিনিধিত্বের উন্নতির জন্য চ্যাম্পিয়ন ছিলেন না, তারপরও নোবেল জয়ের পরে মেয়েরা এবং তরুণীরা ইয়ালোকে একজন আদর্শ মডেল হিসেবে নিয়েছিলো।[৬]:৭৬[১০]

ইউনিভার্সিটি অব ইলিনয়েজ এ্যাট চ্যাম্পাইন আরবানা গ্রাজুয়েট স্কুলে শিক্ষকতা এবং পাঠদানের পর ফেডারেল টেলিকমিউনিকেশন ল্যাবরেটরিতে সহকারী বৈদ্যুতিক প্রকৌশলী হিসাবে ছিলো ইয়ালোর প্রথম কাজ । সেখানে তিনি আবারও নিজেকে একমাত্র নারী কর্মচারী হিসেবে পেয়েছিলেন।[৬] ১৯৪৬ সালে, তিনি পদার্থবিজ্ঞানের পাঠদানের জন্য হান্টার কলেজে ফিরে এসেছিলেন এবং ফলস্বরূপ বহু নারীকে প্রভাবিত করেছিলেন, বিশেষত একজন তরুণী মাইল্ড্রেড ড্রেসেলহাউস। ইয়ালো প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পাঠদানের বাহিরে এবং গবেষণা জীবনের মধ্যে, ভবিষ্যতে "কার্বন বিজ্ঞানের কুইন" পরিচালনার জন্য দায়বদ্ধ ছিলেন।[১১][১২] তিনি ১৯৪৬ থেকে ১৯৫০ সাল পর্যন্ত পদার্থবিজ্ঞানের প্রভাষক ছিলেন, যদিও ১৯৪৭ সালের মধ্যে, তিনি ব্রোনক্স ভিএ হাসপাতালের পরামর্শদাতা হয়ে ভেটেরান্স অ্যাডমিনিস্ট্রেশনের (ভিএ) সাথে দীর্ঘ সম্পর্কের সূচনা করেছিলেন।[১৩]

তেজস্ক্রিয় পদার্থের চিকিৎসার ব্যবহার অনুসন্ধান করার জন্য ভিএ গবেষণা কার্যক্রম প্রতিষ্ঠা করতে চেয়েছিলো।[৮] ১৯৫০ সালের মধ্যে, ইয়ালো ব্রোনক্স ভিএ হাসপাতালে একটি রেডিওআইসোটোপ ল্যাবরেটরি সজ্জিত করেছিলেন এবং অবশেষে পুরো সময় গবেষণায় মনোনিবেশ করার জন্য তিনি শিক্ষকতা ছেড়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন। সেখানে তিনি সলোমন বেরসনের সাথে রেডিওইমিউনোঅ্যাসে (আরআইএ)[৬] বিকাশে সহযোগিতা করেছিলেন, এটি একটি রেডিওআইসোটোপ ট্রেসিং কৌশল যা মানুষের রক্তে বিভিন্ন জৈবিক পদার্থের ক্ষুদ্র পরিমাণ পরিমাপের পাশাপাশি অন্যান্য জলীয় তরলগুলির এক বিশাল সংখ্যাও প্রদান করে । প্রাথমিকভাবে ডায়াবেটিস মেলিটাসে ইনসুলিনের স্তর অধ্যয়ন করার জন্য ব্যবহৃত হয়েছিল, এই কৌশলটি তখন থেকেই হরমোন, ভিটামিন এবং এনজাইম সহ অন্যান্য শতাধিক পদার্থের জন্য প্রয়োগ করা হয়েছিল - যা আগে থেকে সনাক্ত করা খুব কম ছিলো।[৮]

বিপুল বাণিজ্যিক সম্ভাবনা সত্ত্বেও, ইয়ালো এবং বেরসন এই পদ্ধতি উন্মুক্ত করতে বা পেটেন্ট দিতে অস্বীকার করেছিলেন। ১৯৬৮ সালে, ইয়ালো মাউন্ট সিনাই হাসপাতালে মেডিসিন বিভাগের গবেষণা অধ্যাপক হিসাবে নিযুক্ত হন, সেখানে তিনি এবং পরে লার্জে সলোমন বেরসন বিশিষ্ট প্রফেসর হন।[১৩]

পুরষ্কার[সম্পাদনা]

ইয়ালো (বাম), কেনেথ স্টার্লিং, এমডি (কেন্দ্র), এবং ব্রোনক্স ভিএ মেডিকেল সেন্টারের পরিচালক হ্যারল্ড জাফরি (ডান) এর সাথে মিডলটন পুরস্কার গ্রহণ করছেন

ইয়ালোকে পর্তুগালের ফুলব্রাইট ফেলোশিপ প্রদান করা হয়েছিল, এটি প্রতিযোগিতামূলক, যোগ্যতা-ভিত্তিক অনুদানের একটি আমেরিকান স্কলারশিপ প্রোগ্রাম, যা বিজ্ঞান, ব্যবসা, একাডেমি, পাবলিক সার্ভিস, সরকার এবং চারুকলা সহ সকল ক্ষেত্রে উদ্যোগ নেওয়ার জন্য অংশগ্রহণকারীদের স্পনসর করে।[১৪]

১৯৬১ সালে, ইয়ালো আমেরিকান ডায়াবেটিস অ্যাসোসিয়েশনের এলি লিলি পুরষ্কার জিতেছিলেন, যা ডায়াবেটিস এবং এর জটিলতার উপর দৃষ্টি নিবদ্ধ করে বিশ্বের বৃহত্তম বৈজ্ঞানিক ও চিকিৎসা সম্মেলনে বৈজ্ঞানিক সেশনে অংশ নিতে ১০০ জন জ্ঞানীকে বৃত্তি প্রদান করে। অতিরিক্ত, এটি এই জ্ঞানীদেরকে পেশাদার শিক্ষা কার্যক্রমের অনুষদ হিসাবে পরিবেশন করার জন্য এবং ক্লিনিক্যালভাবে এই রোগটি নিয়ন্ত্রণ করার জন্য শিক্ষা এবং প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করে।[১৫]

এক বছর পরে তাকে গায়ারডনার ফাউন্ডেশন আন্তর্জাতিক পুরস্কারে ভূষিত করা হয়েছিল, যা বিশ্বের সৃজনশীল এবং দক্ষতা সম্পন্ন সেইসব বায়োমেডিকাল বিজ্ঞানীদের স্বীকৃতি দেয় যারা মানবতাকে এগিয়ে নিয়ে চলেছে।[১৬]

একই বছর, ইয়ালো আমেরিকান কলেজ অফ ফিজিশিয়ান্স পুরষ্কারে ভূষিত হয়েছিল, এটি অভ্যন্তরীণ চিকিৎসায় শ্রেষ্ঠ ব্যক্তি এবং স্বতন্ত্র অবদানকে স্বীকৃতি দেয়।[১৭]

১৯৭২ সালে, ইয়ালোকে এক্সিলেন্স ইন রিসার্চ এর জন্য উইলিয়াম এস মিডলটন অ্যাওয়ার্ড প্রদান করা হয়েছিল, যা বায়োমেডিক্যাল ল্যাবরেটরি রিসার্চ অ্যান্ড ডেভলপমেন্ট সার্ভিস এর প্রবীণ বায়ো বায়োমেডিকাল গবেষণা বিজ্ঞানীদের ভেটেরান্সের স্বাস্থ্যসেবা সম্পর্কিত অসামান্য বৈজ্ঞানিক অবদান এবং কৃতিত্বের স্বীকৃতি হিসাবে প্রতি বছর সর্বাধিক সম্মান প্রদান করে।[১৮][১৯]

এছাড়াও ১৯৭২ সালে, তাকে এন্ডোক্রাইন সোসাইটির কোচ অ্যাওয়ার্ড প্রদান করা হয়, এটি এন্ডোক্রিনোলজির গবেষণা, শিক্ষা এবং ক্লিনিক্যাল অনুশীলনে দক্ষতায় নিজেদের উৎসর্গ করেছেন সেইসব ব্যক্তিদেরকে পুরষ্কার দেয়।[২০]

১৯৭৫ সালে, ইয়ালো এবং বেরসন (যিনি ১৯৭২ সালে মারা গিয়েছিলেন) আমেরিকান মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশন সায়েন্টিফিক অ্যাচিভমেন্ট অ্যাওয়ার্ডে ভূষিত হয়েছেন, এটি বিশেষ অনুষ্ঠানে দেয়া একটি স্বর্ণপদক পুরস্কার যা অসামান্য বৈজ্ঞানিক কৃতিত্বের স্বীকৃতি স্বরূপ দেয়া হয়।[২১][২২]

পরের বছর তিনি বেসিক মেডিকেল গবেষণার জন্য অ্যালবার্ট লস্কর অ্যাওয়ার্ডের প্রথম মহিলা প্রাপক এবং প্রথম পারমাণবিক পদার্থবিদ হয়েছিলেন। ১৯৪৫ সালে অ্যালবার্ট এবং মেরি লস্কর দ্বারা প্রতিষ্ঠিত, এই পুরষ্কারটি এমন বিজ্ঞানীদের সম্মান প্রদানের উদ্দেশ্যে করা হয়েছে যারা মৌলিক জৈবিক আবিষ্কার এবং মানব স্বাস্থ্যের উন্নতির জন্য ক্লিনিক্যাল অগ্রগতি করেছেন।[২৩][২৪]

১৯৭৭ সালে, ইয়ালো ষষ্ঠ স্বতন্ত্র নারী (মেরি কুরির দুটি জয় বিবেচনা করে সামগ্রিকভাবে, সপ্তম) এবং প্রথম আমেরিকান বংশোদ্ভূত নারী ছিলেন, যিনি বৈজ্ঞানিক ক্ষেত্রে নোবেল পুরস্কার অর্জন করেছিলেন। তিনি দেহবিজ্ঞান বা ওষুধ বিভাগে জয়ী বিশ্বের দ্বিতীয় নারীও ছিলেন (প্রথমটি জের্তি কোরি) । রেডিওইমিউনোঅ্যাসে (আরআইএ) কৌশল তৈরিতে তার ভূমিকার জন্য তিনি রজার গুলেমিন এবং অ্যান্ড্রু ভি শ্যাচলির সাথে একত্রে সম্মানিত হয়েছিলেন।[২৫] মানবদেহে পদার্থ পরিমাপ করে হেপাটাইটিস জাতীয় রোগের জন্য দাতাদের রক্তের স্ক্রিনিং করা সম্ভব হয়েছিল।[২৬] জীবাণুর অভ্যন্তরে বা বাইরে তরলের মধ্যে ক্ষুদ্র পরিমাণে পাওয়া যায় এমন প্রচুর পরিমাণ পদার্থ পরিমাপ করতে রেডিওইমিউনোঅ্যাসে (আরআইএ) ব্যবহার করা যেতে পারে (যেমন ভাইরাস, ড্রাগ এবং হরমোন)। বর্তমানে সম্ভাব্য ব্যবহারের তালিকা অসীম, তবে বিশেষত, আরআইএ রক্ত-অনুদানের বিভিন্ন ধরনের হেপাটাইটিসের জন্য স্ক্রিনিং করা যায়। এই কৌশলটি হরমোনজনিত স্বাস্থ্য সমস্যাগুলি সনাক্ত করতেও ব্যবহার করা যেতে পারে। আরও, কিছু ক্যান্সার সহ অনেক বিদেশী পদার্থ রক্তে সনাক্ত করতে আরআইএ ব্যবহার করা যেতে পারে। অবশেষে, কৌশলটি অ্যান্টিবায়োটিক এবং ওষুধের মাত্রার কার্যকারিতা পরিমাপ করতে ব্যবহার করা যেতে পারে।[২৭]

১৯৭৮ সালে, ইয়ালো আমেরিকান একাডেমি অফ আর্টস অ্যান্ড সায়েন্সেসের ফেলো নির্বাচিত হয়েছিলেন, যা বিজ্ঞান বা ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের প্রশিক্ষণ প্রাপ্তদের প্রাথমিক কর্মজীবনের জন্য পাবলিক নীতি এবং প্রশাসনের ক্যারিয়ার সম্পর্কে শেখার সুযোগ দেয়।[২৮] [২৯] [৩০]

১৯৮৬ সালে, ইয়ালোকে নিউইয়র্ক একাডেমি অব সায়েন্সেসের ন্যাচারাল সায়েন্সেসে এ ক্রেসি মরিসন পুরষ্কারে ভূষিত করা হয়েছিল, যা জনাব আব্রাহাম ক্রেসি মরিসন নিউইয়র্ক একাডেমি অফ সায়েন্সেস এবং এর অধিভুক্ত সমিতিগুলির ক্ষেত্রের মধ্যে একটি বৈজ্ঞানিক বিষয়ের উপর বিশেষ গবেষণাপত্র রয়েছে এমন ব্যক্তিদের অফার বা প্রস্তাব করেন।[৩১]

১৯৮৮ সালে, ইয়ালো বিজ্ঞান জাতীয় পদক পেয়েছিলো, যা আমেরিকান ব্যক্তিদের দেওয়া হয় যারা বিজ্ঞান এবং প্রযুক্তিতে সর্বোচ্চ সম্মানের অধিকারী।[৩২]

১৯৯৩ সালে, ইয়ালোকে জাতীয় মহিলা হল অব ফেইম এ অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছিল।[৩৩]

আরো দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. গ্লিক, এস. (২০১১)। "রোজালিন সাসম্যান ইয়ালো (১৯২১–২০১১) চিকিৎসা শাস্ত্রে নোবেল বিজয়ী দ্বিতীয় মহিলা"। Nature474 (7353): 580। doi:10.1038/474580aPMID 21720355 
  2. এমআইটি নিউজ অফিস (২১ ফেব্রুয়ারি ২০১৭)। "ইনস্টিটিউট অধ্যাপক ইমেরিতা মিল্ড্রেড ড্রেসেলহাউস, উপকরণগুলির বৈদ্যুতিক বৈশিষ্ট্যের অগ্রগামী, ৮৬ বছর বয়সে মারা যায়"এমআইটি নিউজ। সংগ্রহের তারিখ ২১ ফেব্রুয়ারি ২০১৭ 
  3. অন্তর্ভুক্ত দ্য টেলিগ্রাফ
  4. বনোলিস, লুইসা। "গবেষণা প্রোফাইল – রোজালিন ইয়ালো"লিন্ডাউ নোবেল বিজয়ী সভা। সংগ্রহের তারিখ ৩১ আগস্ট ২০১৮ 
  5. ইয়ালো, রোজালিন (১৯৭৭)। "আত্মজীবনী"। Nobelprize.org। সংগ্রহের তারিখ অক্টোবর ২, ২০১২ 
  6. স্ট্রস, ইউজিন (১৯৯৯)। রোজালিন ইয়ালো, নোবেল বিজয়ী: মেডিসিনে তার জীবন ও কর্ম। কেমব্রিজ, এমএ: পার্সিয়াস বই। আইএসবিএন 978-0738202631 
  7. কান, সি. রোনাল্ড; রথ, জেসি (২০১২)। "রোজালিন সাসম্যান ইয়ালো (১৯২১–২০১১)"মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় বিজ্ঞান একাডেমির কার্যক্রম১০৯ (৩): ৬৬৯–৬৭০। doi:10.1073/pnas.1120470109জেস্টোর 23077082পিএমসি 3271914অবাধে প্রবেশযোগ্যবিবকোড:2012PNAS..109..669K 
  8. অ্যান্ডারসন, রেবেকা জে. (সেপ্টেম্বর ২০১৭)। "ব্রেকিং বেরিয়ার: রোজালিন ইয়ালোর জীবন ও কর্ম" (PDF)ফার্মাকোলজিস্ট৫৯ (৩): ১৫২–১৬৩। 
  9. "রোজালিন সাসম্যান ইয়ালো"মাইক্রোবায়োলজি এবং ইমিউনোলজির বিশ্ব (ইংলিশ ভাষায়)। ২০০৩। 
  10. হারোড, জর্ডান। "নোবেল পুরস্কার অর্জনকারী প্রথম আমেরিকান বংশোদ্ভূত মহিলা রোজালিন সাসম্যান ইয়ালোর সাথে দেখা করুন, যিনি চিকিৎসকদের আপনার রক্তে দেখতে দেন"বিপুল বিজ্ঞান। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০৬-২০ 
  11. "মাইল্ড্রেড ড্রেসেলহাউস - বিজ্ঞান ভিডিও"ভেগা বিজ্ঞান ট্রাস্ট। সংগ্রহের তারিখ ৩১ আগস্ট ২০১৮ 
  12. অ্যান্ডারসন, মার্ক (এপ্রিল ২৮, ২০১৫)। "মিল্ড্রেড ড্রেসেলহাউস: কার্বনের রানী"আইইইই স্পেকট্রাম। সংগ্রহের তারিখ ৩১ আগস্ট ২০১৮ 
  13. হাউয়েস, রুথ এইচ. (অক্টোবর ২০১১)। "রোজালিন সাসম্যান ইয়ালো (১৯২১–২০১১)"পদার্থবিজ্ঞান ও সমাজ (ইংরেজি ভাষায়)। ৪০ (৪)। 
  14. আন্তর্জাতিক শিক্ষার শক্তি, "ফুলব্রাইট মার্কিন ছাত্র প্রোগ্রাম," ফুলব্রাইট, অ্যাক্সেস করা হয়েছিলো ১৪ই মে, ২০১৮, https://us.fulbrightonline.org/about.
  15. ভার্জিনিয়া আলেকজান্দ্রিয়া, "৭৪ তম বার্ষিক বৈজ্ঞানিক অধিবেশনগুলির জন্য লিলি নতুন স্কলারস প্রোগ্রাম ঘোষণা করেছেন, "আমেরিকান ডায়াবেটিস অ্যাসোসিয়েশন, সর্বশেষ পরিবর্তিত হয়েছে ২৪ জানুয়ারী, ২০১৪,অ্যাক্সেস করা হয়েছিলোে ১৬ই মে, ২০১৮, http://www.diabetes.org/newsroom/press-releases/2014/scholars-awards.html ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ২৯ মার্চ ২০১৯ তারিখে.
  16. গায়ারডনার, " কানাডা গায়ারডনার পুরষ্কার," গায়ারডনার, অ্যাক্সেস করা হয়েছিলো ১৬ই মে, ২০১৮, https://gairdner.org.
  17. আমেরিকান কলেজ অফ ফিজিশিয়ান্স, "পুরষ্কার, মাস্টারশিপ এবং প্রতিযোগিতা," আমেরিকান কলেজ অফ ফিজিশিয়ান্স, অ্যাক্সেস করা হয়েছিলো ১৬ই মে, ২০১৮, https://www.acponline.org/about-acp/awards-masterships-and-competitions.
  18. মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ভেটেরান্স বিষয়ক বিভাগ, "গবেষণা এবং উন্নয়ন অফিস," মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ভেটেরান্স বিষয়ক বিভাগ, অ্যাক্সেস করা হয়েছিলো ১৪ই মে, ২০১৮, https://www.research.va.gov/services/blrd/research-awards.cfm.
  19. হেইস, মার্গেরাইট হেইস (২০১০)। "ভেটেরান্স বিষয়ক গবেষণা ও উন্নয়ন কর্মসূচী অধিদপ্তর প্রতিষ্ঠার ঐতিহাসিক দৃষ্টিভঙ্গি" (PDF)মার্কিন সরকার প্রকাশনা অফিস। ভেটেরান্স বিষয়ক গবেষণা ও উন্নয়ন কর্মসূচী বিভাগ। সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-১০-০২ 
  20. এন্ডোক্রাইন সোসাইটি, "পুরষ্কার," এন্ডোক্রাইন সোসাইটি, অ্যাক্সেস করা হয়েছিলো ১৬ই মে, ২০১৮, https://www.endocrine.org/awards#!?sort=_contentstartdate.
  21. আমেরিকান মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশন, "আমেরিকান মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশন পুরষ্কার প্রোগ্রাম মানদণ্ড," আমেরিকান মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশন, অ্যাক্সেস করা হয়েছিলো ১৪ই মে, ২০১৮, https://www.ama-assn.org/content/american-medical-association-ama-awards-program-criteria.
  22. "আমেরিকান মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশন (এএমএ) পুরষ্কার প্রাপক"। আমেরিকান মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশন। 
  23. অ্যালবার্ট এবং মেরি লস্কর ফাউন্ডেশন, " লস্কর পুরষ্কার," অ্যালবার্ট এবং মেরি লস্কর ফাউন্ডেশন, অ্যাক্সেস করা হয়েছিলো ১৪ই মে, ২০১৮, http://www.laskerfoundation.org/awards-overview/.
  24. "অ্যালবার্ট লস্কর বেসিক মেডিকেল রিসার্চ অ্যাওয়ার্ড"। লস্কর ফাউন্ডেশন। 
  25. লুইসা বনোলিস, "গবেষণা প্রোফাইল: রোজালিন ইয়ালো," লিন্ডাউ নোবেল বিজয়ী সভা, অ্যাক্সেস করা হয়েছিলো ১৪ই মে, ২০১৮, http://www.mediatheque.lindau-nobel.org/research-profile/laureate-yalow.
  26. "ফিজিওলজি বা মেডিসিনের জন্য রোজালিন সাসম্যান ইয়ালোর নোবেল পুরস্কার বিজয়ী"। america.gov। সংগ্রহের তারিখ জুন ১৯, ২০১০ 
  27. "রোজালিন সাসম্যান ইয়ালো"। America.gov। এপ্রিল ২৭, ২০০৮। সংগ্রহের তারিখ জুন ২৬, ২০১০ 
  28. আমেরিকান একাডেমি অফ আর্টস অ্যান্ড সায়েন্সেস, "ফেলোশিপ,"আমেরিকান একাডেমি অফ আর্টস অ্যান্ড সায়েন্সেস, অ্যাক্সেস করা হয়েছিলো ১৪ই মে, ২০১৮, https://www.amacad.org/content/about/about.aspx?d=103 ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ২ ডিসেম্বর ২০১৮ তারিখে.
  29. "সদস্যদের বই, ১৭৮০–২০১০: অধ্যায় Y" (PDF)। আমেরিকান একাডেমি অফ আর্টস অ্যান্ড সায়েন্সেস। সংগ্রহের তারিখ জুন ২, ২০১১ 
  30. স্ট্রস, ইউজিন (২০০০), "রোজালিন ইয়ালো, নোবেল বিজয়ী: মেডিসিনে তার জীবন ও কর্ম", মেডিকেল ফিজিক্স, বেসিক বই, ২৬ (৪): ২২২–২২৩, doi:10.1118/1.598828, আইএসবিএন 978-0-7382-0263-1, বিবকোড:1999MedPh..26..663S 
  31. মাইনার রায় ওয়াল্ডো, এড., নিউইয়র্ক একাডেমি অফ সায়েন্সেসের লেনদেন (এন.পি., ১৯৪৪), ৭:১৬৮, https://archive.org/stream/in.ernet.dli.2015.21502/2015.21502.Transactions-Of-The-New-York-Academy-Of-Sciences-Vol-7-1944.
  32. জাতীয় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মেডেল ফাউন্ডেশন, "বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির জন্য আমেরিকার সর্বোচ্চ সম্মান উদযাপন," জাতীয় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মেডেল ফাউন্ডেশন, অ্যাক্সেস করা হয়েছিলো ১৪ই মে, ২০১৮, https://www.nationalmedals.org/about.
  33. জাতীয় মহিলা হল অব ফেইম, রোজালিন এস ইয়ালো

আরও পড়ুন[সম্পাদনা]

  • Goldsmith, S J (১৯৮৭), "Georg de Hevesy Nuclear Medicine Pioneer Award Citation--1986. Rosalyn S. Yalow and Solomon A. Berson", J. Nucl. Med. (প্রকাশিত হয় অক্টো ১৯৮৭), 28 (10), পৃষ্ঠা 1637–9, PMID 3309206 
  • Kyle, Robert A; Shampo, Marc A (২০০২), "Rosalyn Yalow--pioneer in nuclear medicine", Mayo Clin. Proc. (প্রকাশিত হয় জানু ২০০২), 77 (1), পৃষ্ঠা 4, doi:10.4065/77.1.4, PMID 11794457 
  • Opfell, Olga S (১৯৭৮)। The Lady Laureates : Women Who Have Won the Nobel Prize। Metuchen, N.J & London: Scarecrow Press, Inc। পৃষ্ঠা 224–233। আইএসবিএন 978-0810811614 
  • "Festschrift for Rosalyn S. Yalow: hormones, metabolism, and society", Mt. Sinai J. Med., 59 (2), পৃষ্ঠা 95–185, ১৯৯২, PMID 1574076 
  • Patton, Dennis D (২০০২), "Three Nobelists who paved the way", J. Nucl. Med. (প্রকাশিত হয় মার্চ ২০০২), 43 (3), পৃষ্ঠা 25N–28N, PMID 11911104 
  • Raju, T N (১৯৯৯), "The Nobel chronicles. 1977: Roger Charles Louis Guillemin (b 1924); Andrew Victor Schally (b 1926); Rosalyn S Yalow (b 1921)", Lancet (প্রকাশিত হয় অক্টো ২৩, ১৯৯৯), 354 (9188), পৃষ্ঠা 1481, doi:10.1016/S0140-6736(05)77628-5, PMID 10543707 
  • "Nobel Prize in Physiology or Medicine 1977 awarded to Veterans Administration senoior investigators", American Journal of Physical Medicine (প্রকাশিত হয় ফেব্রু ১৯৭৮), 57 (1), পৃষ্ঠা 44–5, ১৯৭৮, PMID 345822 
  • Schwartz, I L (১৯৭৩), "Solomon A. Berson and Rosalyn S. Yalow: a scientific appreciation", Mt. Sinai J. Med., 40 (3), পৃষ্ঠা 284–94, PMID 4351488 
  • Straus, E W (১৯৯২), "Festschrift for Rosalyn S. Yalow: Hormones, metabolism, and society", Mt. Sinai J. Med. (প্রকাশিত হয় মার্চ ১৯৯২), 59 (2), পৃষ্ঠা 95–100, PMID 1574075 
  • Yanaihara, N (১৯৭৮), "1977 Nobel Prize winners in medicine and physiology", Tanpakushitsu Kakusan Koso, 23 (3), পৃষ্ঠা 232–6, PMID 349610 
  • Yalow, R S (১৯৯২), "The Nobel lectures in immunology. The Nobel Prize for Physiology or Medicine, 1977 awarded to Rosalyn S. Yalow", Scand. J. Immunol. (প্রকাশিত হয় জানু ১৯৯২), 35 (1), পৃষ্ঠা 1–23, doi:10.1111/j.1365-3083.1992.tb02829.x, PMID 1734492 
  • Yalow, R S; Berson, S A (১৯৯৬), "Immunoassay of endogenous plasma insulin in man. 1960", Obes. Res. (প্রকাশিত হয় নভে ১৯৯৬), 4 (6), পৃষ্ঠা 583–600, doi:10.1002/j.1550-8528.1996.tb00274.x, PMID 8946445 
  • Haber, Louis (১৯৭৯)। Women Pioneers of Science। New York: Harcourt Brace Jovanovich। আইএসবিএন 9780152992026 

বহিঃ সংযোগ[সম্পাদনা]