ওপরা উইনফ্রি

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
(অপরাহ উইনফ্রে থেকে পুনর্নির্দেশিত)
Jump to navigation Jump to search
ওপরা উইনফ্রি
Oprah Winfrey (2004).jpg
২০০৪ সালে লস অ্যাঞ্জেলেসের হোটেল বেল-এয়ারে ৫০তম জন্মদিনের পার্টিতে উইনফ্রে।
স্থানীয় নাম Oprah Winfrey
জন্ম গেইল উইনফ্রি[১]
(১৯৫৪-০১-২৯) ২৯ জানুয়ারি ১৯৫৪ (বয়স ৬৪)
কোসসিউস্কো, মিসিসিপি, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র
বাসস্থান মনটেসিটো, ক্যালিফোর্নিয়া, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র
জাতীয়তা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র মার্কিন
পেশা
কার্যকাল ১৯৮৩ – বর্তমান
বেতন $৭৫ মিলিয়ন (২০১৩)[২]
মোট সম্পত্তি অপরিবর্তিত $৩ বিলিয়ন (সেপ্টেম্বর ২০১৭)[৩]
রাজনৈতিক দল ডেমোক্রেটিক পার্টি
সঙ্গী স্টেডম্যান গ্রাহাম (১৯৮৬–বর্তমান)
সন্তান কানান (১৯৬৮-১৯৬৮)[৪]
ওয়েবসাইট oprah.com
স্বাক্ষর
Oprah Winfrey Signature.svg

ওপ্‌রা গেইল উইনফ্রি (জন্ম: জানুয়ারি ২৯, ১৯৫৪) একজন জনপ্রিয় মার্কিন টেলিভিশন ব্যক্তিত্ব। টক শো-এর উপস্থাপিকা হিসাবে তিনি ১৯৮০ এর দশকের মধ্যভাগ হতে বিপুল জনপ্রিয়তা অর্জন করেন। তিনি ওপ্‌রা নামেই সমধিক পরিচিত। একই সাথে তিনি একজন মানবহিতৈষী ও গণমাধ্যম ধনকুবের। আন্তর্জাতিকভাবে বিস্তৃত টক শো 'দ্য ওপরা উইনফ্রি শো' তাকে একাধিক এমি পুরস্কার এনে দিয়েছে। এই শো' টেলিভিশনের ইতিহাসে সবচেয়ে বেশি প্রচারিত বলে গণ্য। নিজে ম্যাগাজিন প্রকাশের পাশাপাশি তিনি একজন শক্তিমান সাহিত্য সমালোচক এবং একাডেমি পুরস্কার মনোনীত অভিনেত্রী। তিনি বিংশ শতাব্দীর সবচেয়ে ধনী আফ্রিকান মার্কিন,[৫] উত্তর আমেরিকার প্রথম কোটিপতি[৬] এবং সর্বকালের সেরা আফ্রিকান মার্কিন মানবহিতৈষী।[৭][৮] পরপর তিন বছর তিনি বিশ্বের অনন্য কৃষ্ণাঙ্গ কোটিপতি হিসেবে বিবেচিত হয়েছেন। কারো কারো মতে তিনি বিশ্বের সবচেয়ে প্রভাবশালী মহিলা।[৯][১০] ২০০৮ সালের জুনে প্রকাশিত ফর্বস ম্যাগাজিন প্রকাশিত ২০০৮ সালের ১০০ জনপ্রিয় প্রভাবশালী ব্যক্তির তালিকায় পর পর দ্বিতীয়বারের মতো সর্বোচ্চ স্থান দখল করেন। এ নিয়ে তিনি পাঁচবার ফোর্বস কর্তৃক বিশ্বের সবচেয়ে প্রভাবশালী মহিলা নির্বাচিত হলেন। ২০১৩ সালে মার্কিন রাষ্ট্রপতি বারাক ওবামা তাকে রাষ্ট্রপতি পদক এবং ডিউকহার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয় তাকে সম্মানসূচক ডক্টরেট ডিগ্রি প্রদান করে।[১১][১২]

ওপরা যুক্তরাষ্ট্রের দক্ষিণের রাজ্য মিসিসিপির নিভৃত পল্লীতে এক অবিবাহিত মায়ের ঘরে জন্মগ্রহণ করেন। পরে বেড়ে উঠেছেন আরও উত্তরের শহর মিলওয়াকিতে। তিনি নয় বছর বয়সে ধর্ষিত হন এবং চৌদ্দ বছর বয়সে এক পুত্র সন্তান জন্ম দেন। তবে শিশুটি জন্মের কিছুদিন পর মারা যায়। তার বাবার কাছে থাকাকালীন ওপরা হাইস্কুলে পড়ার ফাঁকে টেনেসীর একটি স্থানীয় রেডিওতে চাকুরি পেয়ে যান। তখন তার বাবা টেনেসী রাজ্যে নরসুন্দর হিসেবে কাজ করতেন। মাত্র উনিশ বছর বয়সে সেখানে ওপরা তার রেডিও পেশা শুরু করেন স্থানীয় সান্ধ্যকালীন খবর উপস্থাপনার মাধ্যমে। পরে অবশ্য তাকে উপস্থিত বক্তব্যে পারদর্শিতা দেখে দিবাকালীন টক শো' উপস্থাপন করতে দেয়া হয়। শিকাগোর একটি স্থানীয় রেডিওর তৃতীয় সারির একটি টক শো' যখন ওপরার হাত ধরে প্রথম সারিতে জায়গা করে নিল তখনই ওপরা নিজের প্রডাকশন কোম্পানি খুললেন এবং আন্তর্জাতিক প্রচারে চুক্তিবদ্ধ হলেন।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Oprah Winfrey Interview"Academy of Achievement (ইংরেজি ভাষায়)। জানুয়ারি ২১, ১৯৯১। সংগ্রহের তারিখ আগস্ট ২৫, ২০০৮ 
  2. "The World's Most Powerful Celebrities List"ফোর্বস (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২৯ জানুয়ারি ২০১৮ 
  3. "#184 Oprah Winfrey"ফোর্বস (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২৯ জানুয়ারি ২০১৮ 
  4. "Oprah Winfrey in Melbourne for Australian tour 2015 spreads a message of love, reveals lost child"নিউজ.কম (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২৯ জানুয়ারি ২০১৮ 
  5. Miller, Matthew (মে ৬, ২০০৯)। "The Wealthiest Black Americans"ফোর্বস (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২৯ জানুয়ারি ২০১৮ 
  6. Nsehe, Mfonobong। "The Black Billionaires 2015"ফোর্বস (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২৯ জানুয়ারি ২০১৮ 
  7. "Biography.com" (ইংরেজি ভাষায়)। Biography.com। জানুয়ারি ১৩, ২০১০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৯ জানুয়ারি ২০১৮ 
  8. "Oprah Winfrey Debuts as First African-American On BusinessWeek's Annual Ranking of 'Americas Top Philanthropists'" (সংবাদ বিজ্ঞপ্তি) (ইংরেজি ভাষায়)। Urban Mecca। নভেম্বর ১৯, ২০০৪। নভেম্বর ২০, ২০০৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৯ জানুয়ারি ২০১৮ 
  9. Meldrum Henley-on-Klip, Andrew (জানুয়ারি ৩, ২০০৭)। "'Their story is my story' Oprah opens $40m school for South African girls"The Guardian (ইংরেজি ভাষায়)। UK। সংগ্রহের তারিখ ২৯ জানুয়ারি ২০১৮ 
  10. "The most influential US liberals: 1–20"The Daily Telegraph (ইংরেজি ভাষায়)। London। অক্টোবর ৩১, ২০০৭। সংগ্রহের তারিখ ২৯ জানুয়ারি ২০১৮ 
  11. Jarmul, David। "Oprah Winfrey Urges Duke Graduates to Help Others Move to 'Higher Ground'"Duke Tuday (ইংরেজি ভাষায়)। Duke University Office of News & Communications। সংগ্রহের তারিখ ২৯ জানুয়ারি ২০১৮ 
  12. "Oprah Winfrey Receives Honorary Degree at Harvard, Tells Graduates to Max Out Your Humanity | E! Online" (ইংরেজি ভাষায়)। Ca.eonline.com। সংগ্রহের তারিখ ২৯ জানুয়ারি ২০১৮ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]