পাকিস্তানের পরিবহন ব্যবস্থা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
পাকিস্তান পরিবহন নেটওয়ার্ক

পাকিস্তানের পরিবহন ব্যবস্থা খু্বই বিস্তৃত, বৈচিত্র্যময় এবং ১৯ কোটিরও বেশি মানুষকে সেবা দিয়ে থাকে। সাম্প্রতিক বছরগুলোতে, মোটরওয়ে সংযোজন সহ নতুন জাতীয় মহাসড়ক নির্মাণ হয়েছে যা দেশের অভ্যন্তরে বাণিজ্য এবং রসদকে উন্নত করেছে। পাকিস্তান রেলওয়ের মালিকানাধীন পাকিস্তান রেলওয়ে নেটওয়ার্কেরও সম্প্রসারণের কাজ চলছে। বিদেশী এবং দেশীয় অর্থায়নে বিমানবন্দর এবং সমুদ্রবন্দরগুলি নির্মিত হয়েছে।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

লাহোর জংশন রেলওয়ে স্টেশন, ১৮৯৫

আধুনিক-পাকিস্তানের পরিবহনের ইতিহাস সিন্ধু সভ্যতার থেকে এসেছে।

গ্র্যান্ড ট্রাঙ্ক রোড ছিল ষোড়শ শতাব্দীতে শেরশাহ সুরি দ্বারা পরিচালিত একটি প্রধান সড়ক এবং এটি সূরি ও মোগল আমলে ব্যবহৃত হত। রাস্তাটির পাশে অনেক গাছ লাগানো হয়েছিল , মসজিদ-মন্দির এবং পথিকদের রাত্রী যাপনের জন্য অনেকগুলো সরাইখানা নির্মান করা হয়েছিলো।

ব্রিটিশ আমলে রেল ও বিমানপথের কার্যক্রম শুরু হয়। পাকিস্তানের প্রথম রেলপথটি ১৮৮৫ সালে নির্মিত হয়েছিল।

রাস্তা[সম্পাদনা]

জাতীয় হাইওয়ে, মোটরওয়েস এবং পাকিস্তানের কৌশলগত রাস্তা

মোটরওয়ে[সম্পাদনা]

সারা দেশে বিশ্বমানের সড়ক নেটওয়ার্ক তৈরি এবং জাতীয় মহাসড়কের মাত্রাতিরিক্ত ব্যবহার হ্রাস করার জন্য ১৯৯০ সালের প্রথম দিকে মোটরওয়ে নির্মাণের কাজ শুরু হয়েছিল। ১৯৯৮ সালে পাকিস্তানের প্রথম মোটেওয়ে M2 নির্মিত হয় যা ইসলামাবাদলাহোরকে সংযুক্ত করে। গত পাঁচ বছরে M1 ও M4 সহ অনেকগুলো নতুন মোটরওয়ে খোলা হয়েছে। M4 মোটেওয়ে আংশিকভাবে চালু রয়েছে কিন্তু এর অর্ধেকটি এখনো নির্মাণাধীন রয়েছে। এটি গোজরা, টোবা টেক সিং, ঝাং, শোরকোট, পীরমহল এবং খানওয়ালের মধ্যদিয়ে পিন্ডি ভাটিয়ান, ফয়সালবাদ ও মুলতান শহরগুলিকে সংযুক্ত করে। M3 আবদুল হাকিম এবং মুলতানের নিকটবর্তী  নির্মাণাধীন M4 এর মাধ্যদিয়ে লাহোর ও মুলতানকে সংযুক্ত করবে। এটি শেষ হবে  নির্মাণাধীন M5 এ গিয়ে , যা সিন্ধুর সুখুর জেলাতে নিয়ে যাবে। এম 6 শিগগিরই নির্মাণ কাজ শুরু করার প্রস্তাব করা হয়েছে যা হায়দরাবাদে শেষ হবে, যেখানে এটি করাচির M9 মোটরওয়েটির সাথে সংযুক্ত হবে। এছাড়াও, বালুচিস্তান প্রদেশের M8 পাকিস্তানের দীর্ঘতম মোটরওয়ে, যার অর্ধেকটি নির্মাণাধীন ও অর্ধেক চলমান রয়েছে। মধ্য পাঞ্জাবে, লাহোর-শিয়ালকোট মোটরওয়ে (M11) নির্মাণাধীন রয়েছে এবং আগামী বছরের মধ্যে এটি চালু করা হবে। কেপিকে প্রদেশে হাক্কা-ডেরা ইসমাইল খান মোটরওয়ের (M14 ) নির্মাণ কাজ চলছে। কেপিকে প্রদেশে সোয়াত মোটরওয়ে ও হাজারা মোটরওয়ে নামে আরও দুটি এক্সপ্রেসওয়ে  নির্মাণাধীন রয়েছে ।

  • মোট: ২,৬৩,৭৭৫ কিমি
  • পাকা: ১,৫২,০৩৩ কিমি (মোটরওয়ের ১,৬০০ কিমি এবং এক্সপ্রেসওয়ের ৩০০ কিলোমিটার সহ)
  • কাঁচা: ১,০৫,৬৫০(২০০১)
  • রাস্তায় যানবাহন: ৪.২ মিলিয়ন গাড়ি ২,৫০,০০০ বাণিজ্যিক যানবাহন (২০০৪ এর হিসাব)

জাতীয় মহাসড়ক[সম্পাদনা]

কারাকোরাম মহাসড়কে একটি জিঙ্গেল ট্রাক

১৯৯০ এর দশকে পাকিস্তানে সকল জাতীয় মহাসড়ক, বিশেষত গুরুত্বপূর্ণ আর্থিক, কার্গো এবং টেক্সটাইল কেন্দ্রগুলিতে পুনর্নির্মাণের একটি চলমান প্রকল্প শুরু করে। জাতীয় হাইওয়ে কর্তৃপক্ষ পাকিস্তানের সমস্ত জাতীয় মহাসড়কের রক্ষণাবেক্ষণের জন্য দায়িত্বপ্রপ্ত।

  • মাকরান উপকূলীয় হাইওয়েটি সিন্ধুবেলুচিস্তান প্রদেশগুলির উপকূল অনুসরণ করে করাচি এবং গওয়াদারকে সংযুক্ত করে। নতুন উপকূলীয় হাইওয়ে নির্মাণের সাথে যাত্রার সময়টি ছয় বা সাত ঘন্টা কমে যায়। বেলুচিস্তানে দক্ষিণাঞ্চলে পরিবহন সুবিধা উন্নয়নের সামগ্রিক পরিকল্পনার অংশ হিসাবে এই হাইওয়েটি নির্মিত হয়েছিল।
  • কারাকোরাম হাইওয়ে বিশ্বের সর্বোচ্চ পাকা আন্তর্জাতিক সড়ক। এটি খুনজেরবরে মধ্যদিয়ে কারাকোরাম পর্বতমালা পেরিয়ে চীন ও পাকিস্তানকে সংযুক্ত করে।
  • গ্র্যান্ড ট্রাঙ্ক রোড এশিয়ার অন্যতম প্রাচীন ও দীর্ঘতম সড়ক পথ। দুই শতাব্দীরও অধিক সময় এটি উপমহাদেশের পূর্ব ও পশ্চিম অংশকে সংযুক্ত করে রাখে। এটি বাংলাদেশ থেকে শুরু হয়ে পশ্চিমবঙ্গের হাওড়া হয়ে পাকিস্তানের পেশাওয়ারের মধ্য দিয়ে আফগানিস্তানের কাবুল পর্যন্ত পৌছায়।
  • সিল্ক রোড হলো পূর্ব আফ্রিকা এবং ইউরোপ সহ ভূমধ্যসাগরের সাথে পূর্ব, দক্ষিণ এবং পশ্চিম এশিয়াকে সংযোগকারী এশীয় মহাদেশ জুড়ে বাণিজ্য রুটের একটি বিস্তৃত আন্তঃসংযুক্ত নেটওয়ার্ক।

প্রাদেশিক মহাসড়ক[সম্পাদনা]

বাস[সম্পাদনা]

এক শহর থেকে অন্য শহরে বিপুল সংখ্যক ভ্রমণকারীদের পরিবহনে বাসগুলি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। শহরে ব্যবহৃত ছোট ভ্যনগুলো যানযট সমস্যার কারণ হতে শুরু হওয়ায় সম্প্রতি করাচি, লাহোর এবং ইসলামাবাদে বিভিন্ন শহরের রাস্তায় বড় সিএনজি বাস চালু করা হয়েছে। বেসরকারী হলুদ এবং সাদা ছোট ভ্যনগুলো পাকিস্তানের বিভিন্ন শহরগুলিতে পরিষেবায় নিয়োজিত আছে এবং যাত্রীরা কম খরচে শহরের এক প্রান্ত থেকে অন্য প্রন্তে যাতায়াত করতে পারে। পাকিস্তান সরকার ২০০০ সাল থেকে বিদ্যমান বাসের বহরকে আধুনিকীকরণ ও পরিবেশকে ন্যূনতমভাবে প্রভাবিত করার জন্য একটি বড় উদ্যোগ হাতে নেয়। এই উদ্যোগটি ধীরে ধীরে সারা দেশে ৮০০০টি সিএনজি বাস এবং করাচিতে ৮০০টি বাস চালু করবে। এই উদ্যোগটি দক্ষতা এবং পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতার উচ্চমান নিশ্চিত করবে।

  • আন্তঃনগর

শহর ও শহরগুলির মধ্যে সু-প্রতিষ্ঠিত বাস পরিষেবা সরকারী এবং বেসরকারী উভয় খাতের দ্বারা পরিচালিত হয়। রাজা বাস সার্ভিস (আজিম ভাট্টি), আল-সাইড ট্রান্সপোর্ট, ওয়ারাইচ বাস, দেউবু এক্সপ্রেস, রেহবার ট্র্যাভেল, বিলাল দেউবু, ফয়সাল মুভারস, কোহিস্তান, খান ব্রাদার্স, স্কাইওয়েস এবং নিয়াজি এক্সপ্রেসের মতো বাস কোম্পানিগুলো চালু করেছে একটি আধুনিক আন্তঃনগর পরিষেবা যা পাকিস্তানের বেশিরভাগ শহরের সাথে সংযোগ স্থাপন করে এবং দিনে ২৪ ঘন্টা সেবায় নিয়োজিত। আন্তঃনগর বাসগুলি আরও আধুনিক এবং ভালভাবে রাখার প্রবণতা রয়েছে।

  • আন্তর্জাতিক

পাকিস্তানে আন্তর্জাতিক বাস পরিষেবাগুলিও সুপ্রতিষ্ঠিত এবং বিভিন্ন দেশের সাথে সংযুক্ত:

বিচ্ছিন্ন লেন ছাড়া
  • ট্রান্সলাহোর হচ্ছে লাহোরের একটি দ্রুত বাস ট্রানজিট সিস্টেম। লাহোরের ট্র্যাফিক পরিস্থিতি সহজ করতে এবং বাসের পরিষেবার মান উন্নত করতে ১৯৮৪ সালে লাহোর ট্রান্সপোর্ট কোম্পানি প্রতিষ্ঠিত হয়। ২০০১ সালের ডিসেম্বরে লাহোরের পরিবহন ব্যবস্থার দায়িত্ব এই কোম্পানিকে দেওয়া হয়েছিল। ৬৫০ টি বাসের একটি বিআরটি বহর চালু করা হয়েছিল যার নামকরণ করা হয়েছিল ট্রান্সলাহোর। দ্রুত বাস ট্রানজিট সিস্টেমের (বিআরটিএস) কোন আলাদা লেন ছিল না বিদায় নিয়মিত ট্র্যাফিকের সাথে রাস্তাগুলি ভাগ করতে হয়েছিল তবে এক্ষেত্রে প্রতিষ্ঠনটির রাস্তার কোন মালিকানা ছিল না। এর ফলে এমন একটি সিস্টেম তৈরি হয়েছিল যা কেবল নামে বিআরটিএস ছিল।
বিচ্ছিন্ন লেন সহ
রাওয়ালপিন্ডি-ইসলামাবাদ মেট্রোবাস, ইসলামাবাদ।
  • লাহোর মেট্রোবাস বাস পরিষেবা ১০ ফেব্রুয়ারী, ২০১৩-এ মুখ্যমন্ত্রী পাঞ্জাব শেহবাজ শরীফ উদ্বোধন করেছিলেন। এটি মেট্রো বাস সার্ভিসের জন্য ২৭ কিলোমিটার দীর্ঘ রোড ট্র্যাক নিয়ে গঠিত যা গজুমাতা থেকে শাহদারা পর্যন্ত প্রসারিত এবং এর মধ্যে ৮.৫ কিমি সমুন্নত। এতে রয়েছে ২৭ টি বাস স্টেশন , ই-টিকিটিং এবং কৃত্রিম পরিবহন ব্যবস্থা যা এমবিএসের একটি অংশ।
  • রাওয়ালপিন্ডি-ইসলামাবাদ মেট্রোবাস পরিষেবা হচ্ছে একটি প্রায়োগীক বাস দ্রুত ট্রানজিট সিস্টেম যা রাওয়ালপিন্ডি শহর এবং রাজধানী ইসলামাবাদের মূল অঞ্চলগুলিকে সংযুক্ত করে। এটি ২৪ কিলোমিটার দীর্ঘ এবং ২৪ টি স্টেশন রয়েছে। প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরীফ ৪ জুন, ২০১৫এ প্রকল্পটির উদ্বোধন করেন।
  • মুলতান মেট্রোবাস মুলতান শহরে একটি দ্রুত বাস ট্রানজিট। ১৮.২ কিলোমিটার দীর্ঘ এই বিআরটি সিস্টেম শহরের প্রধান বাণিজ্যিক অঞ্চলগুলিকে সংযুক্ত করে।
পরিকল্পনা
  • করাচি মেট্রোবাস করাচি শহরের জন্য পরিকল্পনা করা হয়েছে। এটি ৫টি করিডোর নিয়ে গঠিত এবং এর দৈর্ঘ্য হবে প্রায় ১০৯ কিলোমিটার (৬৮ মাইল), যার মধ্যে সবুজ এবং লাল লাইন নির্মাণের পর্যায়ে যেতে চলেছে।
  • ট্রান্সপেশোয়ার হচ্ছে পেশোয়ার শহরের জন্য একটি দ্রুত বাস ট্রানজিট সিস্টেম। প্রকল্পটি পিটিআই নেতৃত্বাধীন খাইবার পাখতুনখোয়া সরকারের বিবেচনায় রয়েছে। পিএমটিএস হবে একটি বাস দ্রুত ট্রানজিট সিস্টেম । প্রথম দিকে একটি লাল লাইন নির্মিত হবে যা চামকানি থেকে পেশোয়ারের হায়াটাবাদ অঞ্চল পর্যন্ত ১৮.৪ কিলোমিটার দৈর্ঘ্যের হবে।
  • ফয়সালাবাদ মেট্রোবাস একক লাইন বিআরটি সিস্টেম লাহোর বাস র‌্যাপিড ট্রানজিট সিস্টেমের মতো একটি পরিকল্পনা। মেট্রো লাইন শহরের প্রধান কেন্দ্রগুলি পেরিয়ে, ফয়সালাবাদ আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরকে সিটি বাস টার্মিনালের সাথে সংযুক্ত করবে। ২০১৫ সালের শেষ দিকে নির্মাণ শুরু হবে বলে আশা করা হচ্ছে।
পাকিস্তানে বাস সিস্টেমের (বিআরটি) তালিকা
শহর পদ্ধতি শুরু অবস্থা স্টেশন সংখ্যা দৈর্ঘ্য(কিমি)
লাহোর ট্রান্সলাহোর ১৯৮০ সম্পূর্ণ ১১২ ১৬০
লাহোর লাহোর মেট্রোবাস ২০১৩ সম্পূর্ণ ২৭ ২৭
ইসলামাবাদ রাওয়ালপিন্ডি-ইসলামাবাদ মেট্রোবাস ২০১৫ সম্পূর্ণ ২৪ ২২.৫
রাওয়ালপিন্ডি রাওয়ালপিন্ডি-ইসলামাবাদ মেট্রোবাস ২০১৫ সম্পূর্ণ ২৪ ২২.৫
মুলতান মুলতান মেট্রোবাস ২০১৭ সম্পূর্ণ ১৮ ১৮.২
করাচী করাচী মেট্রোবাস ২০১৮ নির্মানাধীন ৯০ ১০৯
ফয়সালাবাদ ফয়সালাবাদ মেট্রোবাস ২০১৮ পরিকল্পিত ২৮ ৩০
পেশোয়ার পেশোয়ার মেট্রোবাস ২০১৯ নির্মানাধীন ১৮ ২৬

ট্যাক্সি[সম্পাদনা]

হলুদ ট্যাক্সি পরিবহনের একটি সাধারণ রূপ, প্রধানত হোটেল এবং বিমানবন্দরগুলিতে দেখা যায়। ড্রাইভাররা গাড়ির ড্যাশবোর্ডে অবস্থিত একটি মিটার অনুযায়ী চার্জ করে, তবে মিটার না থাকলে ভাড়া নিয়ে আলোচনা করা যেতে পারে। ক্যাব ড্রাইভারগুলি নির্ভরযোগ্য এবং যাত্রীদের প্রয়োজনীয় যে কোনও গন্তব্যে নিয়ে যাবে।

পুরো পাকিস্তান জুড়ে  অনেকগুলি বেসরকারী চালিত পরিষেবা রয়েছে যা কার এবং মিনিবাস ব্যবহারের মাধ্যমে সেবা দিয়ে থাকে, এগুলো নির্ভরযোগ্য এবং দ্রুত পরিবহন সেবা সরবরাহ করে। সম্প্রতি, পাকিস্তানে রেডিও ক্যাব  চালু করা হয়, যা একটি টোল-ফ্রি নাম্বারে মাধ্যমে চালকদের নিকটবর্তী ট্যাক্সি স্ট্যান্ডের সাথে যোগাযোগ করতে সহায়তা করে। এই পরিষেবা বর্তমানে ইসলামাবাদ, রাওয়ালপিন্ডি, করাচি, পেশোয়ার এবং লাহোরে দেওয়া হচ্ছে। হায়দরাবাদ ও ফয়সালাবাদের জন্যও এই সেবাগুলো স্থাপন করা হচ্ছে। আইকেব নামে আরেকটি ক্যাব পরিষেবা চালু করা হয়েছিল আগস্ট, ২০১৭ সালে। দাবি করা হয় এটি দেশের প্রথম মোবাইল অ্যাপ্লিকেশন ভিত্তিক পরিষেবা কেন্দ্রিকী প্ল্যাটফর্ম যেখানে দেশের সকল সড়ক পরিবহন সেবা অন্তভুক্ত থাকবে। রাজধানী থেকে চালু করা আইকেবের কার্যক্রম দেশের মোট ১৩টি শহরে প্রসারিত হবে।

কার[সম্পাদনা]

কয়েক বছর ধরে পাকিস্তানি রাস্তায় কারের সংখ্যা তিনগুণ বেড়েছে। পাকিস্তানের বড় শহরগুলিতে ট্র্যাফিক জ্যাম একটি সাধারণ দৃশ্য। পাকিস্তানি রাস্তায় সর্বাধিক জনপ্রিয় কার হলো সুজুকি মেহরান, সুজুকি কাল্টাস, সুজুকি আল্টো, সুজুকি বোলান, দাইহাতসু কুরি, হুন্ডাই স্যান্ট্রো, হোন্ডা সিভিক, হোন্ডা সিটি, হোন্ডা অ্যাকর্ড, টয়োটা করলা, দাইহাতসু মীরা, নিসান দায়েজ এবং টয়োটা ভিটজ।

বিলাসবহুল এসইউভি এবং কার শহরগুলিতে অভিজাত শ্রেণী ব্যবহার করে এবং গ্রামাঞ্চলে অনেক বৃহত্তর জমিদাররা ব্যবহার করে , যাতে তারা পাকিস্তানে মোটামুটি সাধারণ দৃষ্টিতে পরিণত হয়। সর্বাধিক জনপ্রিয় মডেলগুলি হলেন টয়োটা ল্যান্ড ক্রুজার, টয়োটা প্রাদো, ল্যান্ড রোভার রেঞ্জ রোভার সহ বেশ কয়েকটি মার্সেডিজ-বেঞ্জেস, বিএমডাব্লু এবং অডিস।

ভবিষ্যতের গাড়ি

ভবিষ্যতের চাহিদা মেটাতে, জাতীয় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী এবং শিক্ষকরা তুর্কি মডেল ডিভরিম দ্বারা অনুপ্রাণিত হয়ে পাকিস্তানের প্রথম হাইব্রিড পেট্রোল কার, ডিভরিম দুই তৈরি করেছিলেন। এর আগে, নেভাল কলেজ করাচি এবং গোলাম ইসহাক খান ইনস্টিটিউটের শিক্ষার্থীরাও একটি সফল হাইব্রিড গাড়ি তৈরি করেছিল, তবে ডিভরিম দুই হলো সবচেয়ে কার্যকর। পাক-হুইলারের বর্তমান দলনেতা ফয়জান জাফর বলেছেন "প্রাথমিক নকশাটি এক লিটারে প্রায় ৪৫০ কিলোমিটার মাইলেজ দিচ্ছিল তবে আমরা একটি হাইব্রিট মডেলে রুপান্তর করার পর এই সংখ্যাটি ৭০০ কিলোমিটারেরও বেশি উন্নত করার চেষ্টা করছি"।

অটোরিকশা[সম্পাদনা]

পুরানো রিকশা নিয়ে পরিবেশগত সমস্যা বাড়ার কারণে, সরকার প্রচুর পরিমাণে নতুন এবং জ্বালানী সাশ্রয়ী রিকশায় বিনিয়োগ করেছে

অটোরিকশা শহরে ভ্রমণের একটি জনপ্রিয় মাধ্যম এবং পাকিস্তানের প্রায় প্রতিটি শহরে পাওয়া যায়। অটোরিকশার ভাড়া সাধারণত আলোচনা সাপেক্ষ। তবে অটোরিকশা চালিত দূষণের মাত্রার কারণে সরকার সম্প্রতি পুরাতন অটোরিকশাগুলোকে নিষিদ্ধ করে এবং এর প্রতিস্থাপন সিএনজি অটোরিকশা দিয়ে শুরু করেছে। যা কম গোলমাল করে, কম দূষীত করে, অনেক বড় ও আরও আরামদায়ক। পাঞ্জাব সরকার ২০০৫ সালে লাহোর, মুলতান, ফয়সালাবাদ, রাওয়ালপিন্ডি এবং গুজরওয়ানায় তিন চাকার অটোরিকশার বদলে চার চাকার গাড়ি প্রতিস্থাপনের সিদ্ধান্ত নিয়েছিল।

মোটরসাইক্লিং এবং রাইড-হিলিং[সম্পাদনা]

মোটরসাইক্লিং পাকিস্তানের পরিবহনের আরেকটি মাধ্যম। যে অঞ্চলে যানবাহন পৌঁছাতে পারে না সেখানে যাওয়ার সবচেয়ে দ্রুততম উপায় হিসাবে এটি বিবেচিত হয়। শহরগুলিতে মোটরসাইক্লিং অপারেটরও রয়েছে। তাদের মধ্যে কেউ হেলমেট ব্যবহার করেন আবার কেউ ব্যবহার করেন না। বিকেয়ার মতো সংস্থাগুলিও করাচি, লাহোর, রাওয়ালপিন্ডি এবং অন্যান্য শহরগুলিতে বাইক বা মোটরসাইকেলের সাথে রাইড হেলিং পরিষেবা সরবরাহ করে। রাইড-হেলিং পরিষেতে উবার এবং কেরেমও উপলভ্য।

রেল[সম্পাদনা]

পাকিস্তান রেলওয়ে নেটওয়ার্ক
লাহোর রেলস্টেশন
করাচি ক্যান্ট থেকে লাহোরের উদ্দেশ্যে ছেড়ে যাওয়া করাকোরাম এক্সপ্রেস।

ঘরোয়া[সম্পাদনা]

পাকিস্তানে রেল পরিষেবাগুলি রেলপথ মন্ত্রনালয়ের তত্ত্বাবধানে, রাষ্ট্র পরিচালিত পাকিস্তান রেলওয়ে সরবরাহ করে। বহুল পরিমাণ জনগণের চলাচল এবং মালামাল সরবরাহে রেলপথ পাকিস্তানে পরিবহনের একটি গুরুত্বপূর্ণ মাধ্যম। রেলওয়ে নেটওয়ার্ক ৮,১৬৩ কিলোমিটার যা সমস্ত গেজের ৫ ফুট ৬ এবং এতে ২৯৩ কিলোমিটার বিদ্যুতায়িত ট্র্যাকও অন্তর্ভুক্ত। যাত্রীর উপার্জন মোট রাজস্বের ৫০% থাকে। ১৯৯৯–২০০০ সালে এটির পরিমাণ ছিল ৪.৮ বিলিয়ন। পাকিস্তান রেলপথ বার্ষিক ৬৫ মিলিয়ন যাত্রী বহন করে এবং প্রতিদিন ২২৮টি মেল, এক্সপ্রেস এবং যাত্রী ট্রেন পরিচালনা করে। পাকিস্তান রেলওয়ে বিভিন্ন অনুষ্ঠানে বিশেষ ট্রেন পরিচালনা করে। ১২,০০০০ কর্মী সহ ফ্রেট বিজনেস ইউনিট রেলওয়ে নেটওয়ার্কের ২০০টিরও বেশি মালবাহী স্টেশন পরিচালনা করে। এফবিইউ করাচি বন্দর এবং কাসিম বন্দরের পাশাপাশি অন্যান্য স্টেশনগুলিতে কাজ করে এবং কৃষি, শিল্প ও আমদানিকৃত পণ্য যেমন গম, কয়লা, সার, সিমেন্ট এবং চিনির চলাচল থেকে রাজস্ব আয় করে। প্রায় ৩৯% রাজস্ব পেট্রোলিয়াম পরিবহন থেকে এবং ১৯% আমদানিকৃত গম, সার এবং রক ফসফেট থেকে আর বাকী ৪২% দেশীয় ব্যবসায় থেকে অর্জিত হয়। ফ্রেট রেট কাঠামো সড়ক পরিবহনের বাজার প্রবণতার উপর ভিত্তি করে তাই এটি রেল পরিবহনের মূল প্রতিযোগী।

দ্রুত গতির রেল[সম্পাদনা]

সাবেক প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরীফ বলেছিলেন যে একটি দ্রুতগতির রেল নেটওয়ার্ক তৈরি করা হবে যা সমস্ত বড় শহরগুলি হয়ে পেশোয়ার ও করাচিকে সংযুক্ত করবে ইতিমধ্যে সরকার এই প্রকল্পের জন্য পরিকল্পনা করছে।

দ্রুত ট্রানজিট[সম্পাদনা]

  • যাত্রী রেল

করাচি সার্কুলার রেলওয়ে ১৯৪০-এর প্রথম দিকে খোলা, পাকিস্তানের একমাত্র কার্যকরী গণপরিবহন ব্যবস্থা। ১৯৭৬ সালে করাচিতে একটি ভূগর্ভস্থ মেট্রো সিস্টেমের কাজ শুরু করার কথা ছিল, তবে পরিকল্পনাটি স্থগিত করা হয়েছে। লাহোর মেট্রো বাস সিস্টেম আরেকটি দ্রুত গণ ট্রানজিট সিস্টেম যা ২৫ ডিসেম্বর, ২০১২-এ পাঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী শাহবাজ শরীফ পরীক্ষা করেছিলেন। এটি ১১ ফেব্রুয়ারী ২০১৩ থেকে কার্যক্রম শুরু করে।লাহোর মেট্রো হবে পাকিস্তানের এ ধরনের প্রথম ট্রানজিট সিস্টেম। পেশোয়ার মেট্রোরও পরিকল্পনা রয়েছে। পাকিস্তান এবং চীন ২২ মে ২০১৪ লাহোরে একটি মেট্রো ট্রেন প্রকল্পের জন্য ১.৬ বিলিয়ন ডলারের একটি চুক্তি স্বাক্ষর করেছে। সরকার লাহোর মেট্রোর অরেঞ্জ লাইন নির্মাণের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। প্রকল্পের কাজ ২০১৪ সালে শুরু হবে এবং ২৭ মাসের মধ্যে শেষ হবে। প্রকল্পের মোট দৈর্ঘ্য হবে ২৭.১ কিমি, যার মধ্যে ২৫.৪ কিমি উচ্চতর এবং ১.৭ কিমি হবে ভূগর্ভস্থ।

লাহোর কেন্দ্রীয় রেল স্টেশন হলো লাহোরের প্রধান রেল স্টেশন। লাহোরের অন্যান্য ব্যস্ত রেলস্টেশনগুলো হলো শাহদারা বাঘ, বদমি বাঘ, মুঘলপুরা, শাহদারা টাউন, লাহোর সেনানিবাস, ওয়াগাহ, ওয়ালটন ক্যান্টনমেন্ট, কোট লক্ষপত, কাহনা নাউ, জিয়া বগা এবং রায়ওয়াইন্ড । শহরের এই রেল স্টেশনগুলি লাহোরের যাত্রীবাহী ট্রেনগুলি দ্বারা পরিবেশন করা হয়। লাহোর শহরে অ্যাক্সেস পেতে বিপুল সংখ্যক যাত্রী এই স্টেশনগুলি ব্যবহার করে।

  • মনোরেল

পাকিস্তান সরকার রাজধানী ইসলামাবাদে একটি মনোরেল সিস্টেম তৈরির পরিকল্পনা করেছে। লাহোরের গুলবার্গে নিউ এভিনিউয়ের জন্য একটি মনোরেল তৈরির পরিকল্পনাও রয়েছে।

  • মেট্রোরেল

লাহোর মেট্রো বা লাহোর র‌্যাপিড ম্যাস ট্রানজিট সিস্টেম (এলআরএমটিএস) একটি দ্রুত ট্রানজিট মেট্রো সিস্টেম যা পাকিস্তানের দ্বিতীয় বৃহত্তম শহর লাহোরে নির্মাণাধীন।১৯৯১ সালে এটির প্রথম প্রস্তাবিত হয় কিন্তু তহবিল যথেষ্ট ছিল না, ২০১২ সালে পাঞ্জাব সরকার এটি পরিত্যাগ করে আরও ব্যয়-কার্যকর করা হয় লাহোর মেট্রো বাস সিস্টেমে যা খোলাহয় ২০১৩ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে। পাঞ্জাব সরকার চীনের সহায়তায় ১.৬ বিলিয়ন ডলার প্রকল্প হিসাবে লাহোর মেট্রোর প্রকল্প পুনরায় চালু করার সিদ্ধান্ত নেন। অরেঞ্জ লাইন হবে প্রকল্পটির প্রথম লাইন যা ২৭.১ কিলোমিটার দীর্ঘ হবে এবং এটি নির্মাণাধীন রয়েছে।

পার্শ্ববর্তী দেশগুলির সাথে রেল সংযোগ[সম্পাদনা]

ভারত ভারত - থার এক্সপ্রেস করাচি ও খোকরপাড়ের মধ্যে এবং বিখ্যাত আন্তর্জাতিক ট্রেন সংহৌতা এক্সপ্রেস পাকিস্তানের লাহোর থেকে ভারতের অমৃতসরদিল্লি পর্যন্ত যাতায়েত করে।

ইরান ইরান - ৫ ফুট ৬ ইঞ্চির একটি রেলপথ জাহেদন থেকে কোয়েটা পর্যন্ত চলে এবং একটি ৪ ফুট ৮.৫ ইঞ্চি স্ট্যান্ডার্ড গেজ লাইন শেষ হয় মধ্য ইরানের জাহেদন থেকে কারমান পর্যন্ত যা ইরানের বাকি রেল নেটওয়ার্কের সাথে সংযোগ স্থাপন করেছে। ১৮ মে, ২০০৭ সালে পাকিস্তান ও ইরানের মধ্যে রেল সহযোগিতার জন্য একটি সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হয়েছিল যার অধীনে ২০০৮ সালের ডিসেম্বরের মধ্যে লাইনটি সম্পন্ন হয়। বর্তমানে রেল ব্যবস্থাটি জাহেদনে সংযুক্ত হয়েছে। ইরান রেলপথের ৪ ফুট ৮.৫ ইঞ্চি স্ট্যান্ডার্ড গেজ ট্র্যাক এবং পাকিস্তান রেলওয়ের ভারতীয় গেজ ট্র্যাকগুলির মধ্যে একটি ব্রেক-গেজ রয়েছে।

আফগানিস্তান আফগানিস্তান - আফগানিস্তানের সাথে বর্তমানে কোনও রেল যোগাযোগ নেই কারণ সেদেশে কোন রেল নেটওয়ার্ক নেই, তবে পাকিস্তান রেল তিন দফায় আফগান রেল নেটওয়ার্ক তৈরিতে সহায়তা করার প্রস্তাব দিয়েছে। প্রথম দফায় আফগানিস্তানের চমন থেকে স্পিন বোলডাক পর্যন্ত প্রসারিত হবে, দ্বিতীয় দফায় কান্দাহার পর্যন্ত প্রসারিত হবে এবং তৃতীয় দফায় হেরাতের সাথে সংযুক্ত হবে। সেখান থেকে লাইনটি তুর্কমেনিস্তানের খুশ্কায় প্রসারিত হবে। চূড়ান্ত দফায় মধ্য এশিয়ান রাশিয়ান গেজের এর সাথে লিঙ্ক করবে। ব্রেক-অফ-গেজ স্টেশনটি কোথায় হবে তা পরিষ্কার নয়। প্রস্তাবিত লাইনটি গবাদার বন্দর শহর ডালবাদিন এবং তফতান হয়ে সংযুক্ত হবে এবং এইভাবে বন্দর শহরটি মধ্য এশিয়ার সাথে সংযুক্ত করবে। প্রস্তাবিত লাইনটি গবাদার বন্দর শহর হয়ে ডালবাদিন ও তফতান সংযুক্ত হবে এবং এইভাবে বন্দর শহরটি সাথে মধ্য এশিয়াকে সংযুক্ত করবে।

চীন চীন - চীনের সাথে কোন যোগসূত্র নেই তবে ২০০৮ সালের ২৮ ফেব্রুয়ারি হাভেলিয়ান থেকে সমুদ্রপৃষ্ঠ উপরে ৪৭৩০ মিটার খুঞ্জেরব পথ হয়ে প্রায় ৭৫০ কিলোমিটার দূরের কাশগড়ের চীনা রেলওয়ে পর্যন্ত প্রস্তাবিত লাইনের সম্ভাব্যতা অধ্যয়নের জন্য চুক্তিগুলি প্রদান করা হয়।

তুর্কমেনিস্তান তুর্কমেনিস্তান- আফগানিস্তানের মাধ্য দিয়ে (প্রস্তাবিত) একটি লাইন তুর্কমেনিস্তানের খুশ্কায় প্রসারিত হবে।

তুরস্ক তুরস্ক - সম্প্রতি ইস্তাম্বুল-তেহরান-ইসলামাবাদ যাত্রীবাহী রেল পরিষেবা প্রস্তাব করা হয়েছিল। ইতোমধ্যে, পাকিস্তানের প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী ইউসুফ রাজা গিলানি ১৪ ই আগস্ট ২০০৯ সালে ইসলামাবাদ ও ইস্তাম্বুলের মধ্যে কনটেইনার ট্রেন পরিষেবা চালু করা হয়েছিল। প্রথম ট্রেনটি প্রায় ৭৫০ টন ধারণক্ষমতা সম্পন্ন ২০ টি কনটেইনার বহন করেছিল এবং প্রায় ৬,৫০০ কিমি ভ্রমণ করে ইসলামাবাদ থেকে ইরানের তেহরান হয়ে দুই সপ্তাহের মধ্যে ইস্তাম্বুল যায় । রেলপথ মন্ত্রী গোলাম আহমদ বিলুর বলেছিলেন ”কনটেইনার ট্রেন পরিষেবাটি পরীক্ষার পরে একটি যাত্রীবাহী ট্রেন চালু করা হবে”। এছাড়াও আশা করা হচ্ছে যে এই রুটটি শেষ পর্যন্ত ইউরোপ এবং মধ্য এশিয়ায় একটি সংযোগ স্থাপন করবে এবং যাত্রী বহন করবে।

ঐতিহ্য[সম্পাদনা]

গঙ্গাপুরে একটি ২ ফুট সরু গেজ ঘোড়া টানা ট্রামওয়ে চালু রয়েছে। এটি প্রথম ১৮৯৮ সালে খোলা হয়েছিল, ১৯৯৮ সালে বন্ধ হয়েছিল এবং ২০১০ সালে পুনরায় খোলা হয়েছিল।

আকাশ পথ[সম্পাদনা]

পাকিস্তানের বিমানবন্দর এবং সমুদ্রবন্দরসমূহ

পাকিস্তানের ১৫১টি বিমানবন্দর রয়েছে। প্রধান বিমানবন্দরগুলি হলো:

এছাড়া্ও পাকিস্তানে ১৩৯টি ছোট বিমানবন্দর রয়েছে যেগুলি মধ্যপ্রাচ্যে আসা যাওয়ার কাজে নিয়োজিত যেহেতু এই অঞ্চলে আনেক পাকিস্তানি প্রবাসে কাজ করে থাকেন। ৯১ টি পাকা রানওয়ে বিমানবন্দর রয়েছে যার মধ্যে ১৪টি রানওয়ে ৩,০৪৭ মিটারেরও বেশি। বাকি ৪৮ টি বিমানবন্দরে পাকা রানওয়ে নেই যার মধ্যে মাত্র একটি ৩০৪৮ মিটারের বড় । পাকিস্তানে ১৮টি হেলিপোর্টও রয়েছে।

জল পথ[সম্পাদনা]

পাকিস্তানের জলপথ নেটওয়ার্ক শুরু হয় আরব সাগরের পাশে অবস্থিত একমাত্র প্রধান শহর করাচিতে। তবুও, সিন্ধু নদীর তীরে এবং পাঞ্জাবের মধ্য দিয়ে দেশের নৌপথের উন্নয়নের পরিকল্পনা করা হচ্ছে যেহেতু এটি কর্মসংস্থানের সুযোগ এবং পাকিস্তানের অর্থনৈতিক ও সামাজিক উন্নয়নে উৎসাহিত করবে। পাকিস্তানের প্রধান জলবন্ধর সমূহ:

ফেরি[সম্পাদনা]

  • ফেরি চলমান রয়েছে করাচির কিমারি এবং মিনোরা দ্বীপের মধ্যে ।
  • ১৯৬০ সাল পর্যন্ত করাচির সাথে ভারতের মুম্বাই শহরের ফেরি সংযোগ ছিল, পরবর্তীতে উভয় দেশ যুদ্ধে অবতীর্ণ হওয়ার কারনে তা বন্ধ করে দেওয়া হয়েছিল।
  • ২০০৬ সালে করাচী ও দুবাইয়ের মধ্যে গাল্ফ ড্রিম ক্রুজ নামে একটি ক্রুজ পরিষেবা শুরু হয়েছিল, তবে এটি প্রথম যাত্রা ছাড়িয়ে যেতেও সক্ষম হয়নি সংযুক্ত আরব আমিরাত কর্তৃপক্ষের দ্বারা আরোপিত ভিসা সমস্যার কারনে ।

পাইপলাইনস[সম্পাদনা]

  • অপরিশোধিত তেলের পাইপলাইনের দৈর্ঘ্য ২,০১১ কিমি (১,২৫০ মাইল)।
  • পেট্রোলিয়াম পণ্য পাইপলাইনের দৈর্ঘ্য ৭৮৭ কিমি (৪৮৯ মাইল)।
  • প্রাকৃতিক গ্যাস পাইপলাইনের দৈর্ঘ্য ১০,৪০২ কিমি (৬,৪৬৪ মাইল)।

উপরের তথ্যটি ২০০৯ সালে গণনা করা হয়েছিল।

চীন-পাকিস্তান অর্থনৈতিক করিডোর[সম্পাদনা]

চীন-পাকিস্তান অর্থনৈতিক করিডোর একটি নির্মাণাধীন উন্নয়ন কর্মসূচি যা তেল ও গ্যাস পরিবহনের জন্য হাইওয়ে, রেলপথ এবং পাইপলাইনের মাধ্যমে চীনের উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলীয় স্বায়ত্তশাসিত জিনজিয়াংয়ের সাথে পাকিস্তানের দক্ষিণাঞ্চলীয় গওয়াদার বন্দরকে সংযুক্ত করা হবে। চীনা প্রধানমন্ত্রী লি কেকিয়াং প্রকল্পটির প্রথম সমর্থকদের মধ্যে ছিলেন। সেই থেকে চীনের রাষ্ট্রপতি শি জিনপিং, পাকিস্তানের সাবেক রাষ্ট্রপতি আসিফ আলী জারদারি এবং পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরীফ এই প্রকল্পের শক্ত সমর্থন দিয়েছেন। যখন করিডোরটি নির্মিত হবে, তখন এটি চীন, মধ্য প্রাচ্য এবং আফ্রিকার মধ্যে বাণিজ্যের প্রাথমিক প্রবেশদ্বার হিসাবে কাজ করবে। বিশেষত মধ্যপ্রাচ্যে থেকে আসা তেল গওয়াদারে লোড করা যাবে যা পারস্য উপসাগরের মুখের ঠিক বাইরে অবস্থিত যা পাকিস্তানের বেলুচিস্তান প্রদেশের মাধ্যদিয়ে চীনে স্থানান্তরিত করা যাবে। এই সংযোগে মধ্য প্রাচ্যের তেলের সরবরাহ চীনা বন্দরে পৌঁছাতে ১২,০০০ কিলোমিটার পথ ছোট করে তুলবে। প্রকল্পটি একটি বড় উৎসাহ পেয়েছিলো ফেব্রুয়ারী ২০১৩-এ যখন গওয়াদারের নিয়ন্ত্রণ চীনের রাষ্ট্রায়ত্ত প্রতিষ্ঠান চীন বিদেশবন্দর হোল্ডিংয়ে নিকট স্থানান্তরিত হয়েছিল। ২০০৭ সাল থেকে চীনা শ্রমিকদের দ্বারা গবাদারকে একটি পূর্ণঙ্গ গভীর পানির বাণিজ্যিক বন্দরে রূপান্তর করার জন্য একটি বিস্তৃত অগ্রযাত্রা চলছে। ১৯ ফেব্রুয়ারী ২০১৪, দক্ষিণ চীন মর্নিং পোস্ট জানিয়েছে যে পাকিস্তান ও চীন একটি চুক্তি সাক্ষর করেছে যেখানে উল্লেখ রয়েছে ইসলামাবাদকে সংযোগকারী ১,৩০০ কিলোমিটার কারাকরম হাইওয়ের একটি অংশ উন্নীত করা হবে, গওয়াদরে একটি আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর নির্মাণ করা হবে এবং চীনা সীমান্ত থেকে পাকিস্তানের রাওয়ালপিন্ডিতে একটি ফাইবার-অপটিক কেবল স্থাপন করা হবে। দ্যা ডিপলোমাটের মতে, করিডোর বিকাশের সাথে সাথে মধ্য এশিয়ার ঐতিহ্যগত, অর্থনৈতিক, ভূগোল, অবকাঠামোগত অভাব জনিত কারনে বন্ধ অঞ্চলগুলো সমুদ্র এবং বৈশ্বিক বাণিজ্য নেটওয়ার্কে আরও বেশি অ্যাক্সেস থাকবে। পাক-চীন অর্থনৈতিক করিডোর দপ্তর ২৭ আগস্ট, ২০১৩ এ ইসলামাবাদে উদ্বোধন করা হয়েছিল।

আরো দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]

Transport map of Pakistan at Relief Web

 এই নিবন্ধটিতে সিআইএ ওয়ার্ল্ড ফ্যাক্টবুক থেকে পাবলিক ডোমেইন কাজসমূহ অন্তর্ভুক্ত যা পাওয়া যাবে এখানে