পাকিস্তান রেলওয়ে

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পাকিস্তান রেলওয়ে
স্থানীয় নাম
پاکستان ریلویز
ধরনরাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন এন্টারপ্রাইজ
শিল্পরেল পরিবহন
পূর্বসূরীউত্তর পশ্চিম প্রদেশ রেলওয়ে
প্রতিষ্ঠাকাল১৫ আগস্ট ১৯৪৭ (৭৪ বছর আগে) (1947-08-15)[১]
সদরদপ্তর,
পাকিস্তান
বাণিজ্য অঞ্চল
পাকিস্তান
প্রধান ব্যক্তি
পরিষেবাসমূহ
আয়বৃদ্ধি রুপি৫৪.৫৯ বিলিয়ন (US$৩৪০ million)[২] (২০১৮-১৯)
বৃদ্ধি রুপি−৪৫ বিলিয়ন (US$−২৮০ million)[৩] (২০১৮-১৯)
মালিকপাকিস্তান সরকার (1947-Present)
কর্মীসংখ্যা
৭২,০৭৮[৪] (2016-17)
মাতৃ-প্রতিষ্ঠানরেলপথ মন্ত্রণালয়
বিভাগসমূহ
অধীনস্থ প্রতিষ্ঠান
ওয়েবসাইট

পাকিস্তান রেলওয়ে (সংক্ষেপে:PR) (উর্দু: پاکستان ریلویز‎‎) পাকিস্তানের জাতীয়, রাষ্ট্রায়ত্ত রেলওয়ে সংস্থা। ১৮৬১ সালে প্রতিষ্ঠিত এবং লাহোরে সদর দফতর অবস্থিত, এটি টর্কাম থেকে করাচি পর্যন্ত পাকিস্তান জুড়ে ৭,৭৯১ কিলোমিটার (৪,৮৪১ মাইল) ট্র্যাকের মালিক, মাল ও যাত্রী পরিষেবা উভয়ই প্রদান করে।

২০১৪ সালে, রেলপথ মন্ত্রণালয় পাকিস্তান রেলওয়ে ভিশন ২০২৬ চালু করেছে, যা পাকিস্তানের পরিবহন খাতে পিআর এর অংশীদারিত্বের হার ৪% থেকে বাড়িয়ে ২০% করতে চায়, ৮৮৬.৬৮ বিলিয়ন মার্কিন ডলার চীন - পাকিস্তান অর্থনৈতিক করিডোর রেল আপগ্রেডে ব্যবহার করে। পরিকল্পনার মধ্যে অন্তর্ভুক্ত রয়েছে নতুন লোকোমোটিভ নির্মাণ, বর্তমান রেলের অবকাঠামোগত উন্নয়ন ও উন্নতি, গড় ট্রেনের গতি বৃদ্ধি, সময়োপযোগী কার্যকারিতা উন্নত করা এবং যাত্রীসেবার সম্প্রসারণ। প্রকল্পের প্রথম পর্যায় ২০১৭ সালে শেষ হয়েছিল এবং দ্বিতীয় পর্যায় ২০২১ সালের মধ্যে শেষ হওয়ার কথা রয়েছে। পাকিস্তান রেলওয়ে আন্তর্জাতিক রেলওয়ে ইউনিয়নের সক্রিয় সদস্য।

২০১৮/১৯ অর্থ বছরে, পাকিস্তান রেলওয়ে ৭০ মিলিয়ন যাত্রী সেবা প্রদান করেছে।[৫]পাকিস্তান রেলওয়ে এমএল 1 এর নতুন ভিশনের জন্য পাকিস্তান রেলওয়ে ২০২০ সালের ১২ সেপ্টেম্বর আন্তর্জাতিক দরপত্র প্রদান করেছে।[৬]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

১৮৫৫ সালে, ব্রিটিশ রাজত্বকালে, বেশ কয়েকটি রেলওয়ে কোম্পানি সিন্ধু ও পাঞ্জাবে ট্র্যাক লাগানো এবং পরিচালনা শুরু করেছিল। দেশটির রেলপথ ব্যবস্থা মূলত সিন্ডে রেলওয়ে, পাঞ্জাব রেলওয়ে, দিল্লি রেলওয়ে এবং সিন্ধু ফ্লোটিলা সহ ছোট, বেসরকারি সংস্থাগুলি দ্বারা পরিচালিত স্থানীয় রেললাইনগুলি জোড়াতালি দিয়ে ছিল। ১৮৭০ সালে, চারটি সংস্থা মিলে সিন্ডে, পাঞ্জাব ও দিল্লি রেলওয়ে গঠন করেছিল। অল্পকালের মধ্যেই সিন্ধু উপত্যকা রাজ্য রেলওয়ে, পাঞ্জাব উত্তর রাজ্য রেলওয়ে, সিন্ধ – সাগর রেলওয়ে, সিন্ধ – পিশিন রাজ্য রেলওয়ে, ট্রান্স-বেলুচিস্তান রেলওয়ে এবং কান্দাহার রাজ্য রেলওয়ে সহ আরও কয়েকটি রেললাইন নির্মিত হয়েছিল। এই ছয়টি সংস্থা ১৮৮০ সালে সিন্ডে, পাঞ্জাব এবং দিল্লি রেলওয়ে একত্রিত হয়ে উত্তর পশ্চিম রাজ্য রেলওয়ে গঠন করেছিল। ১৮৮০ থেকে ১৯৪৭ সালের মধ্যে উত্তর পশ্চিম রাজ্য রেলওয়ে পাঞ্জাব এবং সিন্ধু জুড়ে বিস্তৃত হয়েছিল।

১৯৪৭ সালে স্বাধীনতার পরে উত্তর পশ্চিম রাজ্য রেলওয়ের অধিকাংশ অবকাঠামো পাকিস্তানের ভূখণ্ডে ছিল এবং এর নামকরণ করা হয় পাকিস্তান পশ্চিম রেলওয়েপূর্ববঙ্গে, পাকিস্তান ভূখণ্ডে আসাম বেঙ্গল রেলওয়ের অংশটির নামকরণ করা হয়েছিল পাকিস্তান পূর্ব রেলওয়ে।দেশে উত্তর পশ্চিম রাজ্য রেলওয়ের ৮,১২২ কিমি (৫,০৪৭ মা); ৬,৮৮০ কিমি (৪,২৮০ মা) ছিল ১,৬৭৬ মিলিমিটার (৫ ফুট ৬ ইঞ্চি), ৫০৬ কিলোমিটার (৩১৪ মা) টেমপ্লেট:Track gauge (৩ ফুট ৩+ 3⁄8 ইঞ্চি), এবং ৭৩৬ কিলোমিটার (৪৫৭ মা) ছিল ৭৬২ মিলিমিটার (২ ফুট ৬ ইঞ্চি) সংকীর্ণ গেজ।

১৯৫০ সাল থেকে ১৯৫৫ সাল পর্যন্ত মাশরিক-মাগরেব এক্সপ্রেস পশ্চিম পাকিস্তানের কোহ-ই-তফতান থেকে পূর্ব পাকিস্তানের চট্টগ্রামে চলাচল করতো এবং আত্তারি ও বেনাপোলের মধ্যে ১,৯৮৬-কিলোমিটার (১,২৩৪ মা) রুটের জন্য ভারতীয় ট্র্যাকগুলি এবং রোলিং স্টক ব্যবহার করে। ১৯৫৪ সালে করাচি-পেশোয়ার রেলপথ থেকে মারদান এবং চরসদা পর্যন্ত একটি শাখা লাইন প্রসারিত করা হয়েছিল। দুই বছর পরে, জ্যাকবাবাদ-কাশমোর মিটার-গেজ লাইনটি ১,৬৭৬ মিলিমিটার (৫ ফুট ৬ ইঞ্চি) ব্রডগেজে রূপান্তরিত হয়েছিল। কোটরি – আত্তক রেললাইন লাইনের কোট আদু-কাশমোর বিভাগটি ১৯৬৯ থেকে ১৯৭৩ সালে নির্মিত হয়েছিল, করাচি থেকে উত্তর পাকিস্তান পর্যন্ত একটি বিকল্প রুট প্রদান করেছিল। ১৯৭৪ সালে, পাকিস্তান ওয়েস্টার্ন রেলওয়ের নামকরণ করে রাখা হয় পাকিস্তান রেলওয়ে। ২০০৬ সালের ফেব্রুয়ারিতে, ১২৬-কিলোমিটার (৭৮ মা) হায়দরাবাদ-খোকরাপাড় শাখা লাইনটি ১,৬৭৬ মিলিমিটার (৫ ফুট ৬ ইঞ্চি)তে রূপান্তরিত হয়েছিল। দেশের সমস্ত সরু-গজ ট্র্যাকগুলি ১,৬৭৬ মিলিমিটার (৫ ফুট ৬ ইঞ্চি)তে রূপান্তরিত হয়েছিল বা ২০০০ এর দশকে ভেঙে ফেলা হয়েছিল। ২০১৬ সালের ৮ জানুয়ারী, লোধরান–রাইউইন্ড শাখা লাইন ডাবল-রেল প্রকল্পসম্পন্ন হয়েছিল।


কাঠোমা[সম্পাদনা]

রোলিং স্টক[সম্পাদনা]

উৎপাদন[সম্পাদনা]

নেটওয়ার্ক[সম্পাদনা]

লাইনসমূহ[সম্পাদনা]

পাকিস্তান রেইলওয়ে নেটওয়ার্কের মানচিত্র

পাকিস্তান রেলওয়ে নেটওয়ার্ক প্রধান লাইন এবং শাখা লাইনে বিভক্ত। করাচি-পেশোয়ার লাইন হল প্রধান উত্তর-দক্ষিণ লাইন, এবং রোহরি-চমন লাইন হল প্রধান পূর্ব-পশ্চিম লাইন।

মেইন লাইনসমূহ[সম্পাদনা]

পরিষেবা[সম্পাদনা]

দুর্ঘটনা[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "PRINCIPAL STATISTICS" (PDF)। ৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৭ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৮ নভেম্বর ২০১৬ 
  2. Imaduddin (১৯ আগস্ট ২০১৯)। "Pakistan Railways achieves highest revenue of Rs 54.59bn"Business Recorder 
  3. "Railways suffers loss of Rs45b in 2018-19"। The Express Tribune। ১৪ ডিসেম্বর ২০২০। সংগ্রহের তারিখ ১৪ ডিসেম্বর ২০২০ 
  4. Year Book 2017-18 (PDF)। Ministry of Railways (GOP)। ২০১৮। পৃষ্ঠা 3। ২ জুলাই ২০১৯ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১ মে ২০২১ 
  5. "Pakistan Railways achieves record income in 2018-19"International Railway Journal। ২০ আগস্ট ২০১৯। সংগ্রহের তারিখ ২০ আগস্ট ২০১৯ 
  6. https://www.urdupoint.com/en/pakistan/tender-for-ml1-railway-track-to-be-issued-nex-814894.html

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]